× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
Minister of Commerce hints at reduction in edible oil prices
hear-news
player
print-icon

ভোজ্যতেলের দাম কমার আভাস বাণিজ্যমন্ত্রীর

ভোজ্যতেলের-দাম-কমার-আভাস-বাণিজ্যমন্ত্রীর
আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের দাম কমায় দেশেও প্রভাব পড়বে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী। ফাইল ছবি
ভোজ্যতেলের দাম নিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাড়ার সম্ভাবনা নেই আমার ধারণা। নতুন দাম অনুযায়ী দামটা কমবে। পাম অয়েলে তো যথেষ্ট প্রভাব পড়বে মনে করি। সয়াবিনের অতটা বাড়বে না, সে রকমই আমরা আশা করি।’

দেশে ভোজ্যতেলের দাম কমার আভাস দিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় চা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী এ আভাস দেন।

এক বছর ধরে দেশে ভোজ্যতেলের বাজারে অস্থিরতা চলছে। করোনার কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের কাঁচামালের দাম দফায় দফায় বাড়ার কারণে দেশীয় বাজারে এ পণ্যটির দাম হুহু করে বেড়েছে। প্রতিবারই সরকারি হস্তক্ষেপে দাম নির্ধারণ করা হলেও প্রতিফলন ঘটেনি বাজারে।

সর্বশেষ ঈদের পরের দিন ৫ মে বোতলজাত প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৯৮ টাকা এবং খোলা সয়াবিন তেল ১৮০ টাকা নির্ধারণের ঘোষণা দেয়া হয়। এর পর থেকে সয়াবিন তেলের বাজারে সংকট দেখা দেয়।

এমন বাস্তবতায় ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমা শুরু হয়েছে এবং ইন্দোনেশিয়া রপ্তানির নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে। একটা মাস, দুই মাস ধরে আমরা রিঅ্যাসেস করব। খুব শিগগিরই পাঁচ থেকে সাত দিনের মধ্যে মে মাসের পুরো তথ্য নিয়ে আমরা রিভিউ করব।

‘আমাদের কাছে যেটা রিপোর্ট আছে, আজকে দাম কমেছে। আজকের দামের প্রভাব ফেলতে সময় লাগবে এক থেকে দেড় মাস।’

তিনি বলেন, ‘সুখবর যেটা, পাম অয়েলের দাম কমেছে এবং সয়াবিনের দাম কমার দিকে লক্ষ করা যাচ্ছে। ছয়-সাত দিনের মধ্যে যে সভাটা হবে, সেটা অ্যাসেস করে দেখে নতুন দাম নির্ধারণ করা হবে।’

টিপু মুনশি বলেন, ‘বাড়ার সম্ভাবনা নেই আমার ধারণা। নতুন দাম অনুযায়ী দামটা কমবে। পাম অয়েলে তো যথেষ্ট প্রভাব পড়বে মনে করি। সয়াবিনের অতটা বাড়বে না, সে রকমই আমরা আশা করি।’

চালের দামের বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘মূলত চাল কন্ট্রোল করে খাদ্য মন্ত্রণালয়। এই ব্যাপারে আমাদের সাহায্য চাইলে আমরা সাহায্য করব।

‘আমরা যতটুকু জেনেছি, খাদ্য মন্ত্রণালয় আটটি টিম করেছে। এসব টিম ইতোমধ্যে বেরিয়ে পড়েছে জানার জন্য এবং কতটুকু স্টক আছে, তা বের করার চেষ্টা করছে।’

তিনি বলেন, ‘যেকোনো কিছুর সুফল পেতে হলে সময় দিতে হয়। আশা করছি এ সপ্তাহের মধ্যে তারা আরও ভালো অবস্থানে নিয়ে যাবে। আমাদের দেশে চালের অভাব নেই। যা দরকার, তা কিন্তু আমাদের আছে। কোথাও কোথাও কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে। একটি সিম্পল প্রশ্ন আমার রয়ে গেছে। আমি সেদিনও বলতে চেয়েছিলাম।

‘যে চালটা ৫০ টাকা, সেটি শুধু প্যাকেট করেই ৭০ থেকে ৭৫ টাকা বিক্রি করছে। একই চাল খোলাবাজারে ক্রেতা কম দামে কিনতে পারে। নিশ্চয়ই তারা কাস্টমার পাচ্ছে বলেই বিক্রি করতে পারছে। মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থার কারণে তারা আজকে প্যাকেটজাত খাবার খাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘সাধারণ মানুষ এখন মোটা চাল খেতে চাচ্ছে না। মোটা চালের ক্রেতা নেই। মোটা চাল চিকন করা হচ্ছে এবং সেই চালটিই খাওয়া হচ্ছে।’

ওই সময় অপর প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারের লক্ষ্য স্বল্প আয়ের মানুষের স্বার্থ দেখা। আপনারা জানেন দেশের মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বেড়েছে। ১৭ কোটি মানুষের মধ্যে প্রায় সাড়ে চার থেকে পাঁচ কোটি মানুষের সামর্থ্য হলো প্রায় ওয়েস্টার্ন ওয়ার্ল্ড, ইউরোপের মতো। বাকি তিন কোটি ২০ শতাংশ মানুষের আয় স্বল্প।

‘যাদের টাকা আছে তিনি কী করবেন, সেটি আমাদের দেখার বিষয় নয়। সরকারের লক্ষ্য নিম্ন আয়ের মানুষের স্বার্থ দেখা। আমাদের কথা হলো ন্যায্য মূল্যের যেসব পণ্য পাওয়া উচিত, সেটা আমরা অবশ্যই দেখব।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের দেখা দরকার সাধারণ মানুষ সঠিক মূল্যে পণ্য কিনতে পারছে কি না। ক্রয়ক্ষমতার দুইটি দিক রয়েছে। একটি হলো যারা উৎপাদনকারী এবং যারা ভোক্তা। আমরা যদি এমন একটি পর্যায়ে নিয়ে যাই যে, উৎপাদনকারী আর ইন্টারেস্ট পাচ্চ্ছে না, তাহলে কিন্তু প্রভাব পড়বে।

‘আমাদের দেখতে হবে উৎপাদন খরচ, প্রফিট, মার্জিন কতটা থাকা উচিত এবং সামঞ্জস্যপূর্ণ প্রাইসের ক্ষেত্রে যেন কোনোভাবে বড় ধরনের পার্থক্য না থাকে।’

আরও পড়ুন:
সরিষা ও ধানের কুঁড়ার তেলের উৎপাদন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত
এক প্রতিষ্ঠানে মজুত ৫ হাজার লিটার তেল
৬ হাজার লিটার ভোজ্যতেল জব্দ, জরিমানা আড়াই লাখ
দুই জেলায় ১০ হাজার ৩৬৪ লিটার সয়াবিন জব্দ
সরিষা তেলের দামও আকাশমুখী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
The government will measure the impact of the increase in oil prices

তেলের দাম বাড়ার প্রভাব মাপবে সরকার

তেলের দাম বাড়ার প্রভাব মাপবে সরকার জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব খতিয়ে দেখবে সরকার। অলংকরণ: মামুন হোসাইন
তেলের দাম বাড়ানোর ফলে মূল্যস্ফীতি অর্থনীতিকে কতটা পর্যুদস্ত করছে, তা খতিয়ে দেখবে অর্থ মন্ত্রণালয়। দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত করে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। নিম্ন আয়ের মানুষকে কীভাবে আরও স্বস্তি দেয়া যায়, সে বিষয়েও সুপারিশ থাকবে মূল্যায়ন প্রতিবেদনে।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে সার্বিক অর্থনীতির ওপর। দাম বাড়ার সঙ্গে বেড়েছে পরিবহন ভাড়া। বাড়তে শুরু করেছে কৃষি, শিল্প ও সেবার খরচ। এতে শঙ্কায় রপ্তানিকারকরা। মহাদুশ্চিন্তায় আছেন ভোক্তা। স্থির আয়ের সঙ্গে বাড়তি অস্বাভাবিক ব্যয়ের হিসাব মেলাতে প্রতিনিয়ত অসহনীয় হয়ে উঠছে জনজীবন।

তেলের দাম বাড়ানোর ফলে মূল্যস্ফীতি অর্থনীতিকে কতটা পর্যুদস্ত করছে, তা খতিয়ে দেখবে অর্থ মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ কথা জানিয়েছেন।

বিষয়টির সত্যতা জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল নিউজবাংলাকে জানান, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার কারণে মূল্যস্ফীতির চাপ বাড়বে। এটি সার্বিক অর্থনীতিতে কেমন প্রভাব ফেলবে, তার মূল্যায়ন করতে যাচ্ছে অর্থ মন্ত্রণালয়। খুব শিগগিরই এ মূল্যায়নের কাজ শুরু হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, এ মূল্যায়নের মাধ্যমে যে দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত হবে, অর্থনীতিকে স্থিতিশীলতায় ফেরাতে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ছাড়া মূল্যস্ফীতির চাপে থাকা নিম্ন আয়ের মানুষকে কীভাবে আরও স্বস্তি দেয়া যায়, সে বিষয়েও সুপারিশ থাকবে এই অর্থনৈতিক প্রভাব মূল্যায়ন প্রতিবেদনে।

উদ্যোক্তা-ব্যবসায়ীরা দাবি করেছেন, এ পর্যালোচনাটি দাম বাড়ার আগে হওয়া উচিত ছিল।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ রিভার ট্রান্সপোর্ট এজেন্ট ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মো. রাকিবুল আলম দীপু জানান, মার্কেট সার্ভে না করে একটা পণ্যের দাম বৃদ্ধির কারণে সারা দেশের সমস্ত কর্মকাণ্ডে কী পরিমাণ প্রভাব পড়বে, সেটি পর্যালোচনা করা হয়নি। সেটি সহনীয় ও পরিকল্পিতভাবে না হওয়ায় এখন তার বোঝা দেশের সব জনগণ, তথা অর্থনীতির ওপর পড়ছে। সরকারকেও সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে।

নিট পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম মনে করেন, অর্থ মন্ত্রণালয়ের উচিত যত দ্রুত সম্ভব এ বিষয়ে একটি বিশদ মূল্যায়ন করা এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া। না হলে মূল্য দিতে হবে অর্থনীতিকে।

এ প্রসঙ্গে বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার সম্ভাব্য নেতিবাচক প্রভাব মূল্যায়নের উদ্যোগটি ইতিবাচক, তবে সেটি খাতভিত্তিক সুনির্দিষ্ট হতে হবে। আবার শুধু প্রভাব বের করলেই হবে না; কীভাবে দুর্বলতাগুলো কাটিয়ে ওঠা যায়, তার কার্যকর পদক্ষেপ নিতে প্রয়োজনীয় ব্যয়ও করতে হবে। তা না হলে অর্থনীতি দ্রুত রুগ্ন হয়ে পড়বে এবং তার অস্থির আচরণ আরও বাড়তে থাকবে।’

আহসান মনসুর কৃষকদের হাতে সরাসরি ভর্তুকি পৌঁছে দেয়া, নিম্ন আয়ের মানুষদের সুরক্ষামূলক কার্যক্রমের তালিকায় পণ্য বাড়ানো এবং জনজীবনে সরাসরি প্রভাব ফেলে এমন খাতগুলোতে ভর্তুকি বাড়ানোর পরামর্শ দেন।

করোনা পরবর্তী বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ নানামুখী সংকটেও এতদিন দেশের অর্থনীতির স্থিতিশীলতা বজায় ছিল। আমদানি নিয়ন্ত্রণ ও ব্যয় সংকোচনমূলক পদক্ষেপের কারণে কমে আসছিল ঊর্ধ্বগতির মূল্যস্ফীতিও, কিন্তু গত ৫ আগস্ট মধ্যরাতে হঠাৎ জ্বালানি তেলের দাম ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে ৫১ দশমিক ৬৮ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধির ঘটনা পাল্টে দেয় গোটা অর্থনীতির হিসাব-নিকাশ। এটি নতুন করে ভাবনায় ফেলেছে সব শ্রেণির ভোক্তা ও ব্যবহারকারীকে। জীবনযাত্রার ব্যয় আগামী দিনে কোথায় গিয়ে ঠেকবে, তা নিয়ে উদ্বেগ সবার।

যদিও দাম বাড়ানোর আগে আগে অর্থনীতিতে এর ক্ষতিকর প্রভাব কতভাবে পড়তে পারে সে বিষয়ে বিশদ কোনো পর্যালোচনা করেনি বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়। তারা দেখেছে শুধু নিজেদের লাভ-ক্ষতি। তাদের হিসেবে দেখানো হয়, এই মূল্যবৃদ্ধির ফলে সরকারের ভর্তুকি বাঁচবে প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা।

এক লাফে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়িয়ে করা হয়েছে ১১৪ টাকা। আগে এর দাম ছিল ৮০ টাকা। এতে মূল্যবৃদ্ধি ঘটেছে ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ। ৫১ দশমিক ১৬ শতাংশ বাড়িয়ে ৮৬ টাকা লিটারের পেট্রলের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয় ১৩০ টাকা। অন্যদিকে ৫১ দশমিক ৬৮ শতাংশ বাড়িয়ে ৮৯ টাকার অকটেনের নতুন দাম করা হয় ১৩৫ টাকা।

এ পরিমাণ ভর্তুকি বাঁচাতে গিয়ে অর্থনীতির সব খাতে সৃষ্ট নেতিবাচক প্রভাবের কারণে কত হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হবে, সেটি ভেবে দেখা হয়নি। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির বিদ্যমান বাস্তবতায় চাপে থাকা অর্থনীতির সুরক্ষা দিতে অর্থ মন্ত্রণালয় এখন সেদিকেই গুরুত্ব দিতে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
ঢাকা-ব‌রিশাল রু‌টে লঞ্চের খরচ বেড়ে দ্বিগুণ
পাম্পে পাম্পে হানা, কম তেলে জরিমানা
তেলের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে ছাত্র সমাবেশে পুলিশের লাঠিপেটা
জ্বালানির দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে শাহবাগে গণঅবস্থান
ট্যাংকলরির ধর্মঘট স্থগিত

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
This time the dollar touched 120 taka in the open market

এবার খোলাবাজারে ডলার ছুঁল ১২০ টাকা

এবার খোলাবাজারে ডলার ছুঁল ১২০ টাকা
পাগলা ঘোড়ার মতোই ছুটছে আন্তর্জাতিক লেনদেনে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের দাম। সংকটের মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বেঁধে দেয়া দরের চেয়ে ২৫ টাকা বেশিতে এখন ১২০ টাকায় খোলাবাজারে কিনতে হচ্ছে মুদ্রাটি। দেশের ইতিহাসে এর আগে এই ঘটনা কখনও ঘটেনি।

মানি এক্সচেঞ্জে নজরদারি, পুলিশের অভিযান, দামে কারসাজির অভিযোগ নিয়ে ছয়টি ব্যাংকের ট্রেজারি প্রধানকে সরিয়ে দেয়া- কোনো কিছুতেই কাজ হচ্ছে না।

পাগলা ঘোড়ার মতোই ছুটছে আন্তর্জাতিক লেনদেনে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত যুক্তরাষ্ট্রের মুদ্রা ডলারের দাম। সংকটের মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বেঁধে দেয়া দরের চেয়ে ২৫ টাকা বেশিতে এখন ১২০ টাকায় খোলাবাজারে কিনতে হচ্ছে মুদ্রাটি। দেশের ইতিহাসে এর আগে এই ঘটনা কখনও ঘটেনি।

গত ২৭ জুলাই খোলাবাজারে ডলারের দর উঠেছিল ১১২ টাকা। এরপর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরদারির পর কয়েক দিন সেখান থেকে কিছুটা কমে ১০৮ টাকায় থিতু হয়।

কিন্তু চলতি সপ্তাহ থেকে আবার শুরু হয় ঊর্ধ্বগতি। সোমবার খোলাবাজারে ডলার বিক্রি হয় ১১৫ টাকা ৬০ পয়সায়।

তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বেঁধে দেয়া দর সেদিনও ছিল ৯৪ টাকা ৭০ পয়সা। পরদিন তা আরও ৩০ পয়সা বাড়িয়ে করা হয় ৯৫ পয়সা।
এরপর দিন খোলাবাজারে আবার লাফ দেয় ডলার। এক দিনে বাড়ে ৪ টাকা ৪০ পয়সা।

খোলাবাজার ব্যবসায়ীরা বলছেন, তীব্র সংকট রয়েছে ডলারের। প্রবাসীদের দেশে আসা কমেছে, বিদেশি পর্যটকরাও কম আসছেন। এ কারণে ডলারের সরবরাহ কম।

দিলকুশা দোহার মানি এক্সচেঞ্জে ডলার কিনতে আসা এক ক্রেতা বলেন, ‘প্রতি ডলার ১২০ টাকা চাচ্ছে। ব্যাংকরেট ৯৫ টাকা বললে প্রতিষ্ঠানটি বলে, ওসব বলে লাভ নেই। আমাদের যে রেটে দিতে পারব সেটা বলেছি। এতে সাধারণ জনগণ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। প্রয়োজনীয় ডলার পাওয়া যাচ্ছে না। ব্যাংকে গিয়েও ডলার পাওয়া যাচ্ছে না। ব্যাংকগুলো বলছে ডলার নেই।’

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বেঁধে দেয়া দরে ডলার মিলছে না ব্যাংকেও। ব্যাংকের আমদানি, রপ্তানি ও রেমিট্যান্সেও দর অনেক বেড়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, গত বছরের ৫ আগস্ট আন্তব্যাংক মুদ্রাবাজারে প্রতি ডলার ৮৪ টাকা ৮০ পয়সায় বিক্রি হয়।

এক বছরেরও বেশি সময় ধরে একই জায়গায় ‘স্থির’ ছিল ডলারের দর। তখন ডলারের আনুষ্ঠানিক দর ও খোলাবাজারের দরের মধ্যে পার্থক্য ছিল কমই। বরং গোটা বছরে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাজার থেকে ডলার কিনে দর ধরে রাখতে চেষ্টা করেছে।

তবে মহামারি করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসায় আমদানি অস্বাভাবিক পরিমাণে বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি বিশ্ববাজারে খাদ্য, জ্বালানি, শিল্পের উপকরণের দর বেড়ে যাওয়ায় বাজারে ডলারের সংকট দেখা দেয়। আর দাম বাড়তে থাকায় এখন খোলাবাজার থেকে ডলার কিনে অবৈধভাবে মজুদও করার তথ্য মিলছে।

খোলাবাজারে ডলারের দাম নিয়ন্ত্রণে আনতে রাজধানীর বিভিন্ন মানি চেঞ্জারে অভিযান শুরু করে বাংলাদেশ ব্যাংক। জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) সদস্যদের সঙ্গে নিয়ে এ পরিদর্শন কার্যক্রম চালায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

পাশাপাশি অবৈধভাবে ডলার মজুতকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার ঘোষণা দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা বিভাগ (ডিবি)। ফলে ডলারের বাজারের দাম নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংকের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও এখন নানামুখী পদক্ষেপ নিচ্ছে। তবে সব চেষ্টাই এখন নিষ্ফল।

আরও পড়ুন:
দিনে ৪ কোটি ডলার বিক্রি, তবু বাগে আসছে না
ডলার কারসাজি: ৬ ব্যাংকের ট্রেজারি প্রধানকে অপসারণের নির্দেশ
আরও ৩০ পয়সা দর হারাল টাকা

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Facilitation increased in exchange and sale of gold ornaments

স্বর্ণালংকার পরিবর্তন ও বিক্রিতে সুবিধা বাড়ল

স্বর্ণালংকার পরিবর্তন ও বিক্রিতে সুবিধা বাড়ল
আগে স্বর্ণালংকার ব্যবসায়ীদের কাছে কেউ গহনা বিক্রি করলে মূল দামের ২০ শতাংশ বাদ দেয়া হতো। তবে বাজুসের নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এখন থেকে মূল দামের ১৫ শতাংশ টাকা কম দেয়া হবে।

স্বর্ণালংকার বিক্রি করলে এখন থেকে বেশি টাকা পাবেন অলংকারের মালিকেরা। অলংকার পরিবর্তন করার ক্ষেত্রেও বাড়ছে সুবিধা।

স্বর্ণালংকার ব্যবসায়ীদের সংগঠন বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আগে স্বর্ণালংকার ব্যবসায়ীদের কাছে কেউ গহনা বিক্রি করলে মূল দামের ২০ শতাংশ বাদ দেয়া হতো। তবে বাজুসের নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, এখন থেকে মূল দামের ১৫ শতাংশ টাকা কম দেয়া হবে।

এছাড়া, অলংকার পরিবর্তনের ক্ষেত্রে ১০ শতাংশ দাম বাদ দেয়ার আগের নিয়ম পরিবর্তন করে ৮ শতাংশ করা হয়েছে।

এর ফলে আগের চেয়ে বাড়তি সুবিধা পাবেন গহনার মালিক। বাজুস সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, সংগঠনের এক সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এছাড়া স্বর্ণালংকার বা গহনা বিক্রির সময় ন্যূনতম মজুরি প্রতি গ্রামে ৩০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

দেশের সব জুয়েলারি ব্যবসায়ীকে এই সিদ্ধান্ত অনুসরণের আহ্বান জানিয়েছে বাজুস।

আরও পড়ুন:
স্বর্ণের দাম বাড়ল ভরিতে ১৩৪১ টাকা
বিমানের ময়লার ঝুড়িতে মিলল ১ কেজি স্বর্ণের বার
আমিরাতফেরত যাত্রীর ব্যাগে সোয়া কেজি স্বর্ণ
ডিবি পরিচয়ে স্বর্ণালংকার লুটে গ্রেপ্তার ৪
স্বর্ণের দাম আরও কমল

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Oil prices may come down after 2 months Information Minister

২ মাস পর কমতে পারে তেলের দাম: তথ্যমন্ত্রী

২ মাস পর কমতে পারে তেলের দাম: তথ্যমন্ত্রী ফাইল ছবি
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ববাজারে দাম কমে আসলে তার প্রভাব আমাদের দেশে পড়তে দেড় থেকে দুই মাস সময় লাগে। তখন আমাদের দেশে জ্বালানি তেলের দাম সমন্বয় করা হবে।’

বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমার প্রভাব দেশে আসতে আসতে দেড় থেকে দুই মাস লেগে যেতে পারে বলে মনে করছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহদ।

সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক মতবিনিময়ে এ মন্তব্য করেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের অর্থনীতিতে এতো ভর্তুকি দেয়া সম্ভব না। প্রতিদিন ১০০ ডলার করে গত তিন মাসে সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দেয়া হয়েছে। এখন সরকার দাম বাড়াতে বাধ্য হয়েছে।

‘বিশ্ববাজারে দাম কমে আসলে তার প্রভাব আমাদের দেশে পড়তে দেড় থেকে দুই মাস সময় লাগে। তখন আমাদের দেশে জ্বালানি তেলের দাম সমন্বয় করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমি জনগণের কাছে অনুরোধ জানাব, বিশ্ববাজারে যখন তেলের মূল্য কমে আসবে, সেটি যখন বাংলাদেশের বাজারে প্রভাব পড়তে শুরু করবে তখন জ্বালানি তেলের মূল্য আবার সমন্বয় করা হবে।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমি জানি এই বিষয়টি নিয়ে অনেক রাজনৈতিক দল মাঠ গরম করার চেষ্টা করছে। তাদেরকে আমি অনুরোধ জানাব বিশ্ব পরিস্থিতির দিকে তাকাতে। সরকার গত বছর ৫৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়েছে৷ এবছরও কি ৫৩ হাজার কোটি টাকা বা বিপিসির পক্ষে প্রতিদিন ১০০ কোটি টাকা ভর্তুকি দেয়া সম্ভব?

‘সেটি কোনো দেশের পক্ষে সম্ভব নয়। সেটি সম্ভব নয় বিধায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইউরোপের অনেক শক্তিশালী দেশ এবং জাপানও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী নীতি নিয়ে চলছে। সংকটময় পরিস্থিতির জন্যই বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের মূল্য বাড়ানো হয়েছে।’

জ্বালানি তেলে দাম আরও আগে বাড়ানো উচিৎ ছিল বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তেলের দাম আরো আগেই বাড়ানো উচিৎ ছিল। তাহলে আমাদের এতো ভর্তুকি দিতে হতো না। হঠাৎ করে বাড়ানোর পরিপ্রেক্ষিতে মানুষ একটু হতচকিত হয়ে গেছে। এটা আমি জানি বা বুঝি। তবে বিশ্ব প্রেক্ষাপটে মূল্য সমন্বয় না করে উপায় ছিল না।

‘যখন বিশ্ব বাজারে দাম কমে তখন এর প্রভাব পড়তে দেড় থেকে দুই মাস সময় লাগে। এজন্য যে দাম কমলে আজকেই বাংলাদেশে চলে আসে না। আসতে সময় লাগে দেড় থেকে দুই মাস। যখন দেখতে পারছি যে কোনভাবে আমাদের অর্থনীতি এতো ভর্তুকি দেয়া সম্ভব না, প্রতিদিন ১০০ ডলার করে গত তিন মাসে সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দেয়া হয়েছে। তখন সরকার দাম বাড়াতে বাধ্য হয়েছে। যখন বিশ্ব বাজারে দাম কমলে দেশের বাজারে সমন্বয় করা হবে।’

জ্বালানির দামে দোহাই দিয়ে গণপরিবহনে সরকার নির্ধারিত ভাড়ার অতিরিক্ত আদায়ের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘সরকার যে মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে তার থেকে যদি কেউ ভাড়া বেশি নেয়। সেটা অন্যায়। সরকার নিশ্চয়ই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে। এটির প্রভাব অন্যান্য পণ্যের ওপর এখনই পড়ার কোন কারন নেই।’

মন্ত্রী বলেন, ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে তেলের দাম ৭০ থেকে ১০০ ভাগ বৃদ্ধি পেয়েছে। গত বছর তেলের দাম বাড়ায়নি। গত বছর ৫৩ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিয়েছি। এভাবে ভর্তুকি দেয়া কোনোভাবেই সম্ভব না। গত ৩ মাসে সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকা লোকসান দিয়েছে। এ জন্যই দাম বাড়ালো হয়েছে।

‘কিছু তেল ভারতে পাচার হচ্ছিল। ভারত থেকে আসা লরি ট্রাক তেল ভরে নিয়ে যায়। সরকার দাম বাড়ানোর পরেও ডিজেলে ভর্তুকি দিতে হবে।’

আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সমন্বয় করে জ্বালানি মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে সরকারের পক্ষ থেকে গত শুক্রবার জানানো হয়। ওই দিন মধ্যরাতেই কার্যকর হয় নতুন দর। এর প্রতিবাদে চলছে বিক্ষোভ।

দেশে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়ানো হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী এক লিটার ডিজেল ও কেরোসিন কিনতে হবে ১১৪ টাকায়।

অকটেনের দাম লিটারে বাড়ানো হয় ৪৬ টাকা। এখন প্রতি লিটার অকটেন কিনতে ১৩৫ টাকা গুনতে হবে। এর বাইরে লিটারপ্রতি ৪৪ টাকা বাড়ানো হয় পেট্রলের দাম। এখন থেকে জ্বালানিটির প্রতি লিটার ১৩০ টাকা।

শতকরা হিসাবে ডিজেলের দাম বাড়ানো হয় ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ। আর অকটেন ও পেট্রলের দাম বৃদ্ধি করা হয় ৫১ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি: ঢাকার বিক্ষোভের খবর ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে
তেলের দাম না কমানো পর্যন্ত শাহবাগে অবস্থান
জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি চ্যালেঞ্জ করে রিট

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Writ challenging the decision to increase the price of fuel oil

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি চ্যালেঞ্জ করে রিট

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি চ্যালেঞ্জ করে রিট প্রতীকী ছবি
রিটে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ সচিব, মন্ত্রণালয়টির উপসচিব এবং বিইআরসি চেয়ারম্যানকে বিবাদী করা হয়। রিটটি বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্টে বেঞ্চে শুনানি হবে বলে জানিয়েছেন রিটকারী আইনজীবী।

ডিজেল, পেট্রল, অকটেনসহ জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টের রিট করা হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় সোমবার রিটটি করেন।

রিটে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ সচিব, মন্ত্রণালয়টির উপসচিব ও বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) চেয়ারম্যানকে বিবাদী করা হয়েছে।

রিটটি বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্টে বেঞ্চে শুনানি হবে বলে জানিয়েছেন রিটকারী আইনজীবী।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়ে গত ৫ আগস্ট জারি করা প্রজ্ঞাপনকে কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারির আবেদন করা হয়েছে।

রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত স্থগিত রাখার নির্দেশনাও চাওয়া হয়েছে।

বৈশ্বিক পরিস্থিতির কথা জানিয়ে দেশে জ্বালানি তেলের দাম আরেক দফা বাড়ানোর ঘোষণা দেয় সরকার।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়ানো হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী এক লিটার ডিজেল ও কেরোসিন কিনতে হবে ১১৪ টাকায়।

অন্যদিকে অকটেনের দাম লিটারে বাড়ানো হয় ৪৬ টাকা। এখন প্রতি লিটার অকটেন কিনতে ১৩৫ টাকা ‍গুনতে হবে।

এর বাইরে লিটারপ্রতি ৪৪ টাকা বাড়ানো হয় পেট্রলের দাম। এখন থেকে জ্বালানিটির প্রতি লিটার ১৩০ টাকা।

শতকরা হিসাবে ডিজেলের দাম বাড়ানো হয় ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ। আর অকটেন ও পেট্রলের দাম বৃদ্ধি করা হয় ৫১ শতাংশ।

জ্বালানি তেলের বর্ধিত এ দাম কার্যকর হয় শুক্রবার মধ্যরাত থেকে। এর আগেই দেশের বিভিন্ন প্রান্তে জ্বালানি তেল নিতে পেট্রল পাম্পে ভিড় জমান গাড়িচালকরা, তবে অনেক জায়গায় বন্ধ করে দেয়া হয় পেট্রল পাম্প।

আরও পড়ুন:
বিশ্ববাজারে কমলে দেশেও কমবে তেলের দাম: কাদের
জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদ মহাসড়কে
লঞ্চ ভাড়া কতটা বাড়বে, সিদ্ধান্ত বিকেলে
ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে ধর্মঘটে ট্যাংকলরি মালিকরা
তেলের দামে যে সংস্কার চায় আইএমএফ

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The explanation of the increase in oil prices is given by the Ministry of Energy

তেলের দাম বাড়ানোর ব্যাখ্যা জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের

তেলের দাম বাড়ানোর ব্যাখ্যা জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের প্রতীকী ছবি
ডিজেলের দাম বাড়ানোর পরও এ তেলে লিটারপ্রতি ৮ দশমিক ১৩ টাকা লোকসান গুনতে হবে বলে জানিয়েছে জ্বালানি মন্ত্রণালয়। জ্বালানি তেল যাতে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার না হয়ে যায়, সে বিষয়টিও বিবেচনায় রাখা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে।

জ্বালানি তেলের আকস্মিক মূল্যবৃদ্ধির ব্যাখ্যা দিয়েছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়।

শুক্রবার সন্ধ্যায় বৈশ্বিক পরিস্থিতির কথা জানিয়ে দেশে জ্বালানি তেলের দাম আরেক দফা বাড়ানোর ঘোষণা দেয় সরকার।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়ানো হয়েছে। নতুন দাম অনুযায়ী এক লিটার ডিজেল ও কেরোসিন কিনতে হবে ১১৪ টাকায়।

অন্যদিকে অকটেনের দাম লিটারে বাড়ানো হয় ৪৬ টাকা। এখন প্রতি লিটার অকটেন কিনতে ১৩৫ টাকা ‍গুনতে হবে।

এর বাইরে লিটারপ্রতি ৪৪ টাকা বাড়ানো হয় পেট্রলের দাম। এখন থেকে জ্বালানিটির প্রতি লিটারের দাম ১৩০ টাকা।

তেলের দাম বাড়ানোর পরদিন শনিবার দুপুরে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দেয়া বিবৃতিতে বলা হয়, মূল্য বৃদ্ধি না করা হলে তিনটি বৃহৎ প্রকল্প বাস্তবায়নের সক্ষমতা হারাবে সরকার।

ডিজেলের দাম বাড়ানোর পরও এ তেলে লিটারপ্রতি ৮ দশমিক ১৩ টাকা লোকসান গুনতে হবে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।

জ্বালানি তেল যাতে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার না হয়ে যায়, সে বিষয়টিও বিবেচনায় রাখা হয়েছে বলে জানানো হয়েছে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে।

ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, সর্বশেষ গত বছরের ৩ নভেম্বর প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে স্থানীয় পর্যায়ে কেবল ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য বৃদ্ধি করে পুনর্নির্ধারণ (ডিজেল ৮০ টাকা ও কেরোসিন ৮০ টাকা) করা হয়। সে সময় আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বৃদ্ধির প্রবণতা সত্ত্বেও অকটেন ও পেট্রলের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়নি।

মন্ত্রণালয় জানায়, ২০২১-২২ অর্থবছরের শুরুর দিকে কোভিড-১৯-এর প্রকোপ কিছুটা কমায় বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বৃদ্ধি পাওয়ায় জ্বালানি তেলের দাম বাড়তে থাকে। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারির শেষ দিকে ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরুর পর পরিশোধিত জ্বালানি তেলের মূল্য আরও বেড়ে যায়।

ব্যাখ্যায় বলা হয়, ‘বিপিসির ব্রেক ইভেন অর্থ আন্তর্জাতিক বাজারে যদি ডিজেল প্রতি ব্যারেল ৭৪ দশমিক শূন্য ৪ ডলার এবং অকটেন প্রতি ব্যারেল ৮৪ দশমিক ৮৪ ডলারে নেমে আসে, তবে ডিজেল ও অকটেন প্রতি লিটার যথাক্রমে ৮০ টাকা ও ৮৯ টাকায়, অর্থাৎ বিদ্যমান মূল্যে বিক্রয় করা সম্ভব হতো, যা এখন প্রায় অসম্ভব।

‘একইভাবে ক্রুড অয়েলের মূল্য এ বছরের জুনে ব্যারেলপ্রতি ১১৭ মার্কিন ডলার অতিক্রম করে, যা এখনও অব্যাহত আছে। জ্বালানি তেল আমদানিতে সর্বশেষ গত জুলাই মাসের গড় প্লাস রেট অনুযায়ী বিপিসির দৈনিক লোকসানের পরিমাণ ডিজেলে প্রায় ৭৪ কোটি ৯৪ লাখ ৯২ হাজার ৭০০ টাকা ও অকটেনে প্রায় ২ কোটি ৯২ লাখ ২৩ হাজার ২১৬ টাকা। মোট প্রায় ৭৭ কোটি ৮৭ লাখ ১৫ হাজার ৯১৬ টাকা। গত মে ও জুনে লোকসান ছিল শতাধিক কোটি টাকা।’

বিপিসির বিপুল ভর্তুকি দিতে হচ্ছে জানিয়ে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যায় বলা হয়, ‘এভাবে গত ফেব্রুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত বিপিসির প্রকৃত লোকসান/ভর্তুকি দাঁড়ায় ৮ হাজার ১৪ কোটি টাকার ওপরে। সর্বশেষ মূল্য সমন্বয়ে ডিজেলের মূল্য ১১৪ টাকা করা হলেও গত জুলাইয়ের গড় হিসাবে প্রতি লিটারে খরচ পড়বে ১২২ দশমিক ১৩ টাকা, অর্থাৎ প্রতি লিটারে তার পরও ৮ দশমিক ১৩ টাকা লোকসান বিপিসিকে বহন করতে হবে।

‘গত ১২ জুলাইয়ের তথ্য অনুযায়ী, কলকাতায় ডিজেল লিটারপ্রতি ৯২ দশমিক ৭৬ রুপি বা সমতুল্য ১১৪ দশমিক শূন্য ৯ টাকায় বিক্রয় হচ্ছে, যা বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৩৪ দশমিক শূন্য ৯ টাকা বেশি এবং পেট্রল লিটারপ্রতি ১০৬ দশমিক শূন্য ৩ রুপি বা সমতুল্য ১৩০ দশমিক ৪২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা বাংলাদেশ থেকে ৪৪ দশমিক ৪২ টাকা বেশি। এ পার্থক্যের কারণে বহু কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা ব্যয়ে আমদানীকৃত জ্বালানি পণ্য পাচার হওয়ার আশঙ্কা বিদ্যমান। তাই মূল্য সমন্বয়ে পার্শ্ববর্তী দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের জ্বালানি পণ্যের মূল্যের পার্থক্যজনিত পাচার রোধ বিবেচনায় নেয়া হয়েছে।’

‘বিপিসির আর্থিক সক্ষমতা কমছে’

জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের ব্যাখ্যায় বলা হয়, ‘আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে বিপিসির আর্থিক সক্ষমতা ক্রমান্বয়ে হ্রাস পেতে থাকে। জ্বালানি পণ্যের বিদ্যমান হারে তেল বিক্রয় ও অন্যান্য আয় খাতে গড়ে বিপিসির মাসিক জমা/আয় প্রায় ৫ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে এলসি পেমেন্টসহ অন্যান্য খাতে বিপিসির ব্যয় বর্তমানে সর্বশেষ জুলাই মাসে গিয়ে দাঁড়ায় ১০ হাজার ৩১২ দশমিক ৭৬ কোটি টাকা।’

এতে বলা হয়, ‘বিপিসির জ্বালানি তেলের অর্থায়নের জন্য দুই মাসের আমদানি মূল্যের সমান হিসেবে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা চলতি মূলধন হিসেবে সংস্থান রাখা আবশ্যক। বর্তমানে চলতি মূলধন হ্রাস পাওয়ায় গত মার্চ থেকে অদ্যাবধি উন্নয়ন প্রকল্প ও বিবিধ খাত থেকে প্রায় ১১ হাজার কোটি টাকা উত্তোলন করে ভর্তুকিসহ জ্বালানি তেলের মূল্য ও অন্যান্য বিল পরিশোধ করতে হয়েছে।

‘গত ৩১ জুলাই বিপিসির হিসাবে সামগ্রিকভাবে অর্থ জমা রয়েছে প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকা, যা দিয়ে আগস্ট মাসের পর আমদানি ব্যয় অর্থায়ন করা সম্ভব হবে না। উল্লেখ্য, বিপিসির জন্য জাতীয় বাজেটে কোনো অর্থ সংস্থান রাখা হয়নি। এ অবস্থায় আন্তর্জাতিক পেমেন্ট অবিস্মিত রাখার মাধ্যমে দেশের ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ন রাখার স্বার্থে মূল্য সমন্বয়ের মাধ্যমে বিপিসির আর্থিক অবস্থা স্থিতিশীল রাখা জরুরি।’

এতে আরও বলা হয়, ‘২০১৬ সালে সরকার যখন জ্বালানি তেলের মূল্য হ্রাস করে পুনর্নির্ধারণ করে, তখন ডলার ও টাকার বিনিময় হার ছিল ৭৯ টাকা। গত বছরের ৩ নভেম্বর সরকার যখন জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি করে, তখন ডলার ও টাকার বিনিময় হার ছিল ৮৫ দশমিক ৮৫ টাকা, যা বর্তমানে ৯৩ দশমিক ৫০ টাকায় উন্নীত হয়েছে।

‘অধিকন্তু বর্তমানে ডলার সংকটের কারণে ব্যাংকসমূহ বিসি রেটে বিপিসির এলসি খুলতে অনীহা প্রকাশ করায় বাংলাদেশ ব্যাংক মার্কেট রেটে ডলার সংগ্রহের নির্দেশনা প্রদান করে। ফলে ডলারের বিপরীতে টাকার অবমূল্যায়নের কারণেও জ্বালানি তেল আমদানিতে বিপিসির ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে।’

সরকারের ব্যাখ্যায় বলা হয়, ‘বর্তমানে বিপিসিতে তার পরিচালন সক্ষমতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নিজস্ব তহবিল হতে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন প্রকল্প চলমান। এগুলো হলো সিঙ্গেল পয়েন্ট মুরিং উইথ ডবল পাইপলাইন, ঢাকা-চট্টগ্রাম পাইপলাইন, জেট এ-১ পাইপলাইন এবং ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন।

‘তা ছাড়া ইআরএল ইউনিট-২ প্রকল্পের সমুদয় অর্থ (প্রায় ১৯ হাজার ৪০৪ দশমিক ৭২ কোটি টাকা) বিপিসির নিজস্ব তহবিল হতে সংস্থানের জন্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় ডিপিপি অনুমোদনের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয় করা না হলে বর্ণিত প্রকল্পসমূহ বাস্তবায়নে বিপিসি আর্থিক সক্ষমতা হারিয়ে ফেলবে।’

আরও পড়ুন:
ভাড়া বাড়লে সড়কে বাস নামাবেন বগুড়ার মালিকরা
সিলেটে কমেছে বাস চলাচল, নেয়া হচ্ছে বাড়তি ভাড়া
অগ্রিম টিকিটে বাড়তি ভাড়া, বন্ধ নতুন টিকিট
‘রাতে আটটি পাম্প ঘুরেও তেল নিতে পারিনি’ 
বাস ভাড়া বৃদ্ধি নিয়ে বৈঠক বিকেলে

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The landlords knew that the price of oil would increase

তেলের দাম বাড়বে, আগেই জানতেন বাসমালিকরা

তেলের দাম বাড়বে, আগেই জানতেন বাসমালিকরা জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পরের দিন শনিবার কম বাস চলাচল করতে দেখা যায় রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায়। ছবি: নিউজবাংলা
যাত্রীদের ভোগান্তি আড়ালে আগের ভাড়া নিতে বাসের কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন মালিকরা। একই সঙ্গে বাসের ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে চালকদের অন্তত শনিবার দিনভর গাড়ি চালাতে বলেছেন তারা। শনিবার সকাল থেকে রাজধানী ও দূরপাল্লার বাস চলাচলের বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়ে এমন তথ্য পেয়েছে নিউজবাংলা।

সরকার জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর ঘোষণা হঠাৎ দিলেও বিষয়টি আগেই জানতেন বাসমালিকরা। এ কারণে কৌশলী ভূমিকা নিয়েছেন তারা।

যাত্রীদের ভোগান্তি আড়ালে আগের ভাড়া নিতে বাসের কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন মালিকরা। একই সঙ্গে বাসের ভাড়া বাড়ানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে চালকদের অন্তত শনিবার দিনভর গাড়ি চালাতে বলেছেন তারা।

শনিবার সকাল থেকে রাজধানী ও দূরপাল্লার বাস চলাচলের বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়ে এমন তথ্য পেয়েছে নিউজবাংলা।

এদিকে ডিজেলের মূল্য বৃদ্ধির কথা বলে যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায়ের চেষ্টা করতে দেখা যায় বাসের চালক ও সহকারীদের। ভাড়া বাড়ানোর আনুষ্ঠানিক নিশ্চয়তা শনিবার বিকেলের মধ্যে না এলে পরিবহন ধর্মঘটের প্রস্তুতি নিচ্ছেন চালকরা।

কৌশলী বাসমালিকরা

বৈশ্বিক পরিস্থিতির কথা জানিয়ে দেশে জ্বালানি তেলের দাম আরেক দফা বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে সরকার। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের শুক্রবার সন্ধ্যার প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, ডিজেল ও কেরোসিনের দাম লিটারে ৩৪ টাকা বাড়ানো হয়েছে।

নতুন দাম অনুযায়ী এক লিটার ডিজেল ও কেরোসিন কিনতে হবে ১১৪ টাকায়। অন্যদিকে অকটেনের দাম লিটারে বাড়ানো হয় ৪৬ টাকা। এখন প্রতি লিটার অকটেন কিনতে ১৩৫ টাকা ‍গুনতে হবে।

এর বাইরে লিটারপ্রতি ৪৪ টাকা বাড়ানো হয় পেট্রলের দাম। এখন থেকে জ্বালানিটির প্রতি লিটার ১৩০ টাকা।

ডিজেলের আকস্মিক এ মূল্যবৃদ্ধির পর শনিবার সকাল থেকে রাজধানী ও দূরপাল্লার অনেক বাসের চলাচল স্বাভাবিক ছিল। এমনকি তারা আগের ভাড়াতেই গাড়ি চালানোর দাবি করেন, তবে এর বিপরীত চিত্রও দেখা গেছে।

শুক্রবার জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পর থেকেই অনেক মালিক তাদের বাস চালানো বন্ধ রাখেন।

রাজধানীর গুলিস্তান-মহাখালীসহ একাধিক বাস টার্মিনাল ঘুরে এমন দৃশ্য চোখে পড়ে। রাজধানীর গুলিস্তানে গিয়ে দেখা যায় প্রায় সব রুটের বাস ছাড়ছে এখান থেকে।

গাজীপুরগামী একটি পরিবহনের চালক মিল্টন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মালিক বলেছে আজকে কষ্ট করে হলেও আগের ভাড়াতেই বাস চালাতে। বিকেলের মধ্যেই ভাড়া বাড়ানোর একটি সিদ্ধান্ত পাওয়া যাবে। এটা নিয়ে আমাদের দুঃশ্চিন্তা করতে মানা করেছে মালিক।’

ঢাকার দোহারগামী একটি বাসের চালক মোহাম্মদ আলী জানান, মালিকের নির্দেশে তিনিও আগের ভাড়াই নিচ্ছেন।

তেলে বাড়তি খরচ করে বাস চালানোর কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এই তো দুপুর পর্যন্তই চালাব। তারপর অবস্থা বুঝে বন্ধ করে দেব। ভাড়া না বাড়লে গাড়ি বন্ধ থাকবে।’

আগের ভাড়াতে বাস চলছে কি না, তা যাচাই করতে কয়েকটি বাসে চড়ে রাজধানীর একাধিক গন্তব্যে যান এ প্রতিবেদক। প্রতিটি বাসের সহকারীরা যাত্রীদের কাছ থেকে আগের ভাড়াই আদায় করেন।

আগের ভাড়ায় বাস চালাচ্ছেন কেন জানতে চাইলে গুলিস্তান থেকে গাজীপুরগামী একটি পরিবহনের সহকারী বলেন, ‘আমরা তো বাস নামাইতাম না। আমাগো মালিক আওয়ামী লীগের নেতা। সরকারের কথা তো মানতে হইব। আমাগোরে কইল তোরা বাস চালা।

‘ভাড়া বাড়ানোর ব্যবস্থা হইতাছে। বাড়তি ভাড়া নিয়া গ্যাঞ্জাম বাধাইস না। পাবলিক ক্ষেইপা গেলে চাপ আইব। চুপচাপ থাক; সব হইব।’

যাত্রাকালে কথাচ্ছলে মহাখালী থেকে মিরপুরগামী একটি বাসচালকের কাছ থেকেও একই ধরনের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

মিরাজ নামের ওই চালক বলেন, ‘মালিক বলল, কোনো ঝামেলার দরকার নাই। ভাড়া অটো বাড়ব। কোনো আওয়াজ দরকার নাই।’

চালকের তথ্য অনুযায়ী, এ পরিবহনের মালিকও আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুক্ত।

মহাখালী বাস টার্মিনালে গিয়ে দেখা গেল স্বনামধন্য পরিবহনগুলোর টিকেট কাউন্টারগুলো খোলা, তবে বন্ধ রয়েছে অনেকগুলো পরিবহনের কাউন্টার।

খোলা কাউন্টারগুলোতে আগের ভাড়াতেই যাত্রীদের টিকেট দেয়া হচ্ছে।

তেলের দাম বাড়বে, আগেই জানতেন বাসমালিকরা

উত্তরা পরিবহনের টিকিট কাউন্টারের দায়িত্বরত মো. আলিফ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সকাল থেকেই আমাদের বাস চলছে, তবে আগের তুলনায় অর্ধেক। সব মালিকরা বাস চালাচ্ছেন না। আজকে সকাল থেকে ৬টা বাস ছেড়ে গেছে।

‘অন্য দিন এই সময়ে ১২ থেকে ১৫টি বাস ছাড়ে। একটু পর হয়তো আর আমাদের বাস চলবে না।’

কিশোরগঞ্জগামী অনন্যা পরিবহনের কাউন্টারের দায়িত্বরত মো. শামীম বলেন, ‘আমাদের বাস চলেছে। মালিকরা ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে সমিতির সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় আছে। বিকেলের মধ্যে সিদ্ধান্ত না পেলে বাস বন্ধ করার প্রস্তুতি আছে আমাদের।’

কাউন্টারগুলো থেকে আগের ভাড়ায় যাত্রী তোলা হলেও কিছু কিছু বাসের চালক-সহকারীদের মাঝ রাস্তা থেকে বাড়তি ভাড়ায় যাত্রী তুলতেও দেখা যায়।

মহাখালী টার্মিনালের বাইরে ময়মনসিংহগামী স্বাধীন পরিবহনের একটি বাসের সহকারীর সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়ান সুমন নামের এক যুবক। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি মুক্তাগাছা যাব। অন্য সময় ২২০ থেকে ২৫০ টাকায় যাই। আজকে ওরা ৩৫০ টাকা চাইছে ডিজেলের দাম বাড়ার কারণে। সরকার তো এখনও বাসের ভাড়া বাড়ায়নি। তাহলে তারা কেন বাড়তি ভাড়া আদায় করছে?’

তেলের দাম বাড়বে, আগেই জানতেন বাসমালিকরা

মালিক সমিতির মহাসচিবের ভাষ্য

বাস চলাচল, ভাড়া বৃদ্ধিসহ প্রাসঙ্গিক বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের সব মালিককে বাস চালাতে আমরা নির্দেশ দিয়েছি। একই সঙ্গে বাড়তি ভাড়া না নিতেও বলা হয়েছে। অধিকাংশ বাসমালিকই আমাদের নির্দেশনা মানছেন।

‘কেউ কেউ আছে, তারা তাদের বাস বন্ধ রেখেছেন। আমরা ভাড়া সমন্বয়ের জন্য বিআরটিএকে চিঠি দিয়েছি। আজকে বিকেল ৫টায় বিআরটিএ কার্যালয়ে একটি বৈঠক হবে। আমরা যাত্রী সাধারণের কথা মাথায় রেখে বাস চালিয়ে যাব।’

নির্দেশনা অমান্য করে বাড়তি ভাড়া নেয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘তেলের দাম বাড়লে পরিবহন খাতে একটা অস্থিরতা সৃষ্টি হয়। আর অস্থির সময়ে সবাইকে নিয়মের মধ্যে রাখা সম্ভব হয় না।

‘এমন সময়ে অনেকেই সুযোগ নিতে চায়। তবুও আমরা খেয়াল রাখব ভাড়া সমন্বয়ের আগে কেউ যেন বাড়তি ভাড়া আদায় করতে না পারে।’

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ার খবর আগে থেকে জানতেন কি না, সে প্রশ্নের জবাবে এনায়েত উল্লাহ বলেন, ‘হ্যাঁ, আমরা জানতাম। মাসখানেক আগে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ে একটা মিটিং করেছিলাম আমরা। তখন এ বিষয়টা নিয়ে আমাদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছিল।’

আরও পড়ুন:
বাস ভাড়া বৃদ্ধি নিয়ে বৈঠক বিকেলে
মাগুরায় ‘মালিক পক্ষের নির্দেশে’ বাস ভাড়া বেশি
রাজশাহীতে বাস সংকট, দুর্ভোগে যাত্রীরা
চট্টগ্রামে বন্ধ ডিজেলচালিত বাস, চলছে গ্যাসেরগুলো
রাজধানীতে বাস পাচ্ছেন না যাত্রীরা

মন্তব্য

p
উপরে