× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
Introducing Social Media Prepaid Card for Women Entrepreneurs
google_news print-icon

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া প্রিপেইড কার্ড চালু

নারী-উদ্যোক্তাদের-জন্য-সোশ্যাল-মিডিয়া-প্রিপেইড-কার্ড-চালু
ই-কুরিয়ার সরাসরি ক্লায়েন্টের প্রিপেইড কার্ডে ফান্ড ট্রান্সফার করবে, আর তাই নারী উদ্যোক্তাদের সশরীরে নগদ অর্থ সংগ্রহের জন্য ই-কুরিয়ারে যেতে হবে না। 

নারীদের ফেসবুককেন্দ্রীক ব্যবসায় উৎসাহ দিতে দেশে প্রথমবারের মতো মাস্টারকার্ড, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ও ই-কুরিয়ার যৌথভাবে চালু করেছে সোশ্যাল মিডিয়া প্রিপেইড কার্ড।

কার্ডটি নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষভাবে ডিজাইন করা, যাতে তারা ফেসবুককেন্দ্রীক ব্যবসা-বাণিজ্যে উপকৃত হবেন।

বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ কার্ডের উদ্ধোধন করা হয়।

কার্ডে দ্বৈত মুদ্রা (ডুয়েল কারেন্সি) সুবিধা থাকায় তৃতীয়-পক্ষের কোনো পেমেন্ট সাহায্য ছাড়াই নারী উদ্যোক্তারা তাদের ফেসবুক পেজ বুস্ট করতে পারবেন।

ই-কুরিয়ার সরাসরি ক্লায়েন্টের প্রিপেইড কার্ডে ফান্ড ট্রান্সফার করবে, আর তাই নারী উদ্যোক্তাদের সশরীরে নগদ অর্থ সংগ্রহের জন্য ই-কুরিয়ারে যেতে হবে না।

এই কার্ডে রয়েছে ই-কমার্স পোর্টাল, জুয়েলারি শপ, গ্রোসারি এবং ক্লদিং স্টোরগুলোতে বিশেষ ছাড়, যা বিশেষভাবে কার্ডহোল্ডারদের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে।

কার্ডহোল্ডাররা বাংলাদেশে সাগে পাঁচ হাজারের বেশি আউটলেটে ডুয়েল কারেন্সি ট্রানজেকশন সুবিধা, হোটেলে অবস্থানে বোগো (বাই-ওয়ান-গেট-ওয়ান), ডাইনিং ও লাইফস্টাইল অফার এবং স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মে সহজে সাবস্ক্রিপশন (নেটফ্লিক্স, অ্যামাজন প্রাইম, ইত্যাদি), এমটিবি গ্রিন পিন সার্ভিস, সার্বক্ষণিক কন্টাক্ট সেন্টার সার্ভিস, এসএমএস ব্যাংকিং, পিওএস সেবা, এটিএম ও কিউআর-কোড ট্রানজেকশন সুবিধা পাবেন ।

ই-কুরিয়ারের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) বিপ্লব ঘোষ রাহুল বলেন, ‘মাস্টারকার্ড ও মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের সঙ্গে যৌথ পার্টনারশিপের ভিত্তিতে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য প্রথমবারের মতো কো-ব্র্যান্ডেড প্রিপেইড কার্ড চালু করতে পেরে ই-কুরিয়ার আনন্দিত। ই-কুরিয়ার বাংলাদেশের প্রথম বেসরকারি লজিস্টিকস এবং কুরিয়ার ব্র্যান্ড, যেটি গত আট বছর ধরে অত্যাধুনিক ও বিশেষায়িত লজিস্টিকস সল্যুশনের মাধ্যমে নারী উদ্যোক্তা এবং তাদের প্রচেষ্টাগুলোকে সহযোগিতা করে আসছে।’

সে সঙ্গে এ পর্যন্ত দেশের ৬৪ জেলায় ৯০ লাখের বেশি পার্সেল পৌঁছে দিয়েছে বলে জানায়। এই সেবা নারীদের আর্থিক অন্তর্ভুক্তি এবং এফ-কমার্স ব্যবসা দেশের অর্থনীতিতে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে জানান তিনি।

মাস্টারকার্ড বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল বলেন, ‘মহামারি ফেসবুকের মতো ই-কমার্স চ্যানেলে ভোক্তা ব্যয় বৃদ্ধিতে তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব ফেলেছে। যেহেতু নারী উদ্যোক্তারা বাংলাদেশের এফ-কমার্স খাতে অবদান রাখছেন। এ জন্য এই কার্ড চালু করা হলো।’

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের (এমটিবি) এমডি অ্যান্ড সিইও সৈয়দ মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘অভিনব পেমেন্ট সল্যুশন বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে এমটিবি সর্বদা অগ্রণী ভূমিকা পালন করে। যৌথভাবে কো-ব্র্যান্ডেড প্রিপেইড কার্ড চালু করায় বিভিন্ন আর্থিক সুবিধা নিশ্চিত করতে পারবেন। এতে বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান এফ-কমার্স খাতে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার আরও সুবিধাজনক হবে।’

মেটার (যেটি পূর্বে ফেসবুক নামে পরিচিত ছিল) তথ্যানুসারে, ২০২১ সালে বাংলাদেশে উদ্যোক্তা-সংশ্লিষ্ট গ্রুপগুলোর ৪০ শতাংশই তৈরি করেছেন নারীরা।

ই-কুরিয়ারের তথ্য-উপাত্ত থেকে আরও জানা গেছে, বাংলাদেশে এফ-কমার্সের ৮০-৯০ শতাংশই নারীদের দিয়ে পরিচালিত।

আরও পড়ুন:
নারী উদ্যোক্তা ফোরামের আয়োজনে জুসি ফেস্ট অনুষ্ঠিত
নারী উদ্যোক্তাদের জুসি ফেস্ট শনিবার
গ্লোবাল ইয়ুথ লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড পেলেন ব্যারিস্টার ওলোরা
নারী উদ্যোক্তাদের স্টার্ট আপ ইকোসিস্টেম শেখাল আইডিয়া প্রকল্প
নারী উদ্যোক্তাদের জন্য আরও বরাদ্দ চান পরিকল্পনামন্ত্রী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Increasing reserves by borrowing is not sustainable Ahsan Mansoor

ধার করে নিয়ে রিজার্ভ বৃদ্ধি টেকসই হয় না: আহসান মনসুর

ধার করে নিয়ে রিজার্ভ বৃদ্ধি টেকসই হয় না: আহসান মনসুর পল্টনে শনিবার ‘বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতের দুরবস্থার কারণ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন ড. আহসান এইচ মনসুর। ছবি: নিউজবাংলা
ড. আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘রপ্তানি ও প্রবাসী আয় বৃদ্ধি এবং অর্থ পাচার বন্ধের মতো টেকসই পথে হেঁটে রিজার্ভ বাড়াতে হবে। প্রবাসী আয়ে যে প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে তা বন্ধ করে দেয়া দরকার। কারণ ডলারের দাম বাজারভিত্তিক হয়ে গেছে। এসব প্রণোদনা খাচ্ছে দুবাইয়ের কিছু প্রতিষ্ঠান, যার সঙ্গে যুক্ত স্বার্থান্বেষী মহল।’

দেশের ব্যাংক খাতে নানামুখী সংস্কারের প্রয়োজন বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর।

নির্বাচনের আগে আর্থিক খাত সংস্কারে সরকারের দেয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন না হওয়ায় হতাশা জানিয়েছেন অর্থনীতিবিদ। জোর দিয়ে বলেছেন, দেশের ব্যাংক খাতে এখন ব্যাপক সংস্কার প্রয়োজন। আর এই প্রয়োজনটা দেশের স্বার্থেই।

রাজধানীর পল্টনে শনিবার ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম-ইআরএফ আয়োজিত ‘বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতের দুরবস্থার কারণ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে ড. আহসান এইচ মনসুর এসব কথা বলেন।

দেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ প্রসঙ্গে ড. মনসুর বলেন, ‘অন্য দেশ বা সংস্থা থেকে ধার করে এনে রিজার্ভ বাড়ানো হচ্ছে, যা কখনোই টেকসই হবে না। রপ্তানি ও প্রবাসী আয় বৃদ্ধি এবং অর্থ পাচার বন্ধের মতো টেকসই পথে হেঁটে রিজার্ভ বাড়াতে হবে।’

প্রবাসী আয়ে যে প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে তা বন্ধ করে দেয়ার পক্ষে মত দেন ড. মনসুর। ‘ডলারের দাম বাজারভিত্তিক হয়ে গেছে। এসব প্রণোদনা খাচ্ছে দুবাইয়ের কিছু প্রতিষ্ঠান, যার সঙ্গে যুক্ত স্বার্থান্বেষী মহল’, মন্তব্য করেন তিনি।

আহসান মনসুর বলেন, ‘নির্বাচনের আগে আর্থিক খাতে ব্যাপক সংস্কার আনার কথা বলা হয়েছিল। কিন্তু ছয় মাস পার হলেও কিছুই হয়নি। এটা খুবই হতাশাজনক।

‘আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল-আইএমএফ বাংলাদেশকে ঋণ দিচ্ছে সেটা ভালো। তবে তাদের দেয়া সংস্কার শর্তগুলো নিজেদের স্বার্থেই পূরণ করা উচিত।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আমানত খেয়ে ফেলেছি। এভাবে কতদিন ব্যাংক চলবে? ব্যাংক খাত নিয়ে শ্বেতপত্র প্রকাশ করা দরকার। সেটা বাংলাদেশ ব্যাংককে দিয়ে নয়, করতে হবে সরকারকে। ব্যাংক খাতে আজ কেন এই অবস্থা তা খুঁজে বের করতে হবে।’

‘দেশের অর্থ বাইরে যাওয়া বন্ধ না হলে কাজের কাজ কিছুই হবে না। বর্তমানে ব্যাংকের আমানত ফেরত দেয়ার নিশ্চয়তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। মানুষের ব্যাংকের প্রতি আস্থা কমে গেছে, যা ফেরাতে হবে। দেশের আর্থিক খাতের এই সংকট মোকাবেলায় রাজনৈতিক সদিচ্ছার বিকল্প নেই, অভিমত দেন এই অর্থনীতিবিদ।

ড. মনসুর বলেন, ‘বর্তমানে টাকা ছাপিয়ে অচল ব্যাংক টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। ইসলামী ধারার ব্যাংকগুলোকে রক্ষার নামে টাকা ছাপানো অব্যাহত রাখা হলেও মূল্যস্ফীতি বাড়বে।

‘শুধু তাই নয়, টাকা ছাপিয়ে সরকারকে ঋণ দিলেও মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনা যাবে না। মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে টাকা ছাপানো বন্ধের বিকল্প নেই।’

তথ্য লুকানোর অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘খেলাপি ঋণ ১১ শতাংশ বলা হলেও তা আসলে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ। এই খাতের প্রকৃত তথ্য প্রকাশ না করে কার্পেটের নিচে রেখে দিলে একসময় গন্ধ বের হবে। এভাবে সমস্যা জিইয়ে রাখলে কোনো সমাধান আসবে না।

‘ঋণ আদায় না করে ঋণের সুদকে আয় দেখিয়ে মুনাফা দেখাচ্ছে অনেক ব্যাংক। সেই মুনাফার অর্থ থেকে দেয়া হচ্ছে লভ্যাংশ। সরকারকে ট্যাক্সও দিচ্ছে তারা। আসলে কোনো আয়ই হয়নি, উল্টো আমানতের অর্থ লুটে খাচ্ছে। ঘরের থালাবাটি বেচে ব্যাংকগুলো কোরমা-পোলাও খাচ্ছে।’

এভাবে চললে ব্যাংকগুলো গ্রাহকের আমানত ফেরত দিতে পারবে না বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ইআরএফ সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম। সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি রেফায়েত উল্লাহ।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশ ব্যাংকে ‘ডাল মে কুচ কালা হ্যায়’: ড. দেবপ্রিয়
মানবসম্পদ উন্নয়ন না হলে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশের ফাঁদে পড়ার শঙ্কা
‘এনবিআরের মূল সমস্যা লিডারশিপ’
প্রবৃদ্ধিতে না তাকিয়ে মূল্যস্ফীতির লাগাম টেনে ধরতে হবে

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The teachers federation is silent on the discussion in the meeting

বৈঠকে আলোচনার বিষয়ে আপাতত চুপ শিক্ষক ফেডারেশন

বৈঠকে আলোচনার বিষয়ে আপাতত চুপ শিক্ষক ফেডারেশন শনিবার ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠক শেষে মিডিয়ার মুখোমুখি শিক্ষক নেতারা। কোলাজ: নিউজবাংলা
ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠক বিষয়ে শিক্ষক ফেডারেশনের মহাসচিব অধ্যাপক নিজামুল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘আমরা এই মুহূর্তে কোনো কথা বলব না। আমাদের তিন দফা দাবি নিয়ে ওনাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। এ নিয়ে শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে, তারপর মিডিয়াকে জানাব।’

সার্বজনীন পেনশনের প্রত্যয় স্কিম প্রত্যাহারসহ আরও দুই দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে করেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তবে বৈঠক আলোচ্য বিষয় সম্পর্কে আপাতত গণমাধ্যমকে জানাবেন না বলে জানিয়েছেন শিক্ষক ফেডারেশনের মহাসচিব এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নিজামুল হক ভূঁইয়া।

শনিবার দুপুরে ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এই বৈঠক শেষে বের হওয়ার সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

অধ্যাপক নিজামুল বলেন, ‘আমরা এই মুহূর্তে কোনো কথা বলব না। আমাদের তিন দফা দাবি নিয়ে ওনাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। এ নিয়ে শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে, তারপর মিডিয়াকে জানাব।’

আপনাদের দাবি তো সরকারের কাছে, রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনায় এলেন কেন?- এমন প্রশ্নের জবাবে শিক্ষক ফেডারেশনের মহাসচিব বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক একজন জাতীয় নেতা। প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শে তিনি আমাদের সঙ্গে বসেছেন।

‘ওবায়দুল কাদের, তিনি রাষ্ট্রের সেকেন্ড ম্যান। ওনার সঙ্গে আমাদের দাবি নিয়ে খুব খোলামেলা আলোচনা হয়েছে।’

বৈঠকে উপস্থিত থাকা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. জিনাত হুদাকে এ বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে তিনিও একই অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কোনো কথা বলব না। ওনাদের সঙ্গে যেসব বিষয়ে আমাদের আলোচনা হয়েছে সেসবের অনেক কিছু নিয়েই নিজেদের মধ্যে আলোচনা করার বিষয় রয়েছে। আজ রাতে ৪০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক প্রতিনিধিদের সঙ্গে আমরা বসব। সেখানে আলোচনা হবে এরপর আমরা একটি সিদ্ধান্ত নেব।

ড. জিনাত হুদা বলেন, ‘প্রতিনিধিদের নিয়ে ফেডারেশনের বৈঠকের পর স্ব-স্ব বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি তাদের শিক্ষকদের সঙ্গে বসে এসব বিষয় জানাবেন। পরে ওনারা কী বলেন সেটির ওপর ভিত্তি করে আমাদের ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা নির্ধারণ করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘মন্ত্রী মহোদয় (ওবায়দুল কাদের) আমাদেরকে বলেছেন যে প্রত্যয় স্কিমটি ২০২৪ সাল নয়, ২৫ সালের জুলাই থেকে ইমপ্লিমেন্ট হবে। এরপর আমরা আমাদের ব্যাখ্যাটা ওনাকে দিয়েছি। কারণ এটি সবাই জানে.....। আচ্ছা যাই হোক, এখন আর বেশি কথা না বলি।’

আরও পড়ুন:
কোটা আন্দোলনকারীদের দাবি সংবিধানবিরোধী: কাদের
কোটা আন্দোলনকারীদের নামে শাহবাগ থানায় মামলা পুলিশের
আন্দোলনরত শিক্ষক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক কাদেরের
কোটা নিয়ে আন্দোলনকারীদের দাবি সঠিক নয়: সেলিম মাহমুদ
কোটা আন্দোলনে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি ভর করেছে: কাদের

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The excuse of rain in the vegetable market is the added suffering of the buyer

সবজির বাজারে বৃষ্টির অজুহাত, ক্রেতার বাড়তি ভোগান্তি

সবজির বাজারে বৃষ্টির অজুহাত, ক্রেতার বাড়তি ভোগান্তি ফাইল ছবি।
রাজধানীতে শুক্রবার ভোর থেকেই ছিল ভারী বর্ষণ। জলাবদ্ধতায় চরম ভোগান্তিতে পড়েন নগরবাসী। আর কাঁচাবাজারে সবজির দাম যেন এদিন সেই ভোগান্তি আরেকটু বাড়িয়ে দিয়েছে। বৃষ্টির দোহাই দিয়ে সব সবজির দামই বাড়িয়ে দিয়েছেন বিক্রেতারা।

রাজধানীতে শুক্রবার ভোর থেকেই ছিল ভারী বর্ষণ। জলাবদ্ধতায় চরম ভোগান্তিতে পড়েন নগরবাসী। আর কাঁচাবাজারে সবজির দাম যেন এদিন সেই ভোগান্তি আরেকটু বাড়িয়ে দিয়েছে। বৃষ্টির অজুহাতে এদিন সবজির দাম আগের দিনের তুলনায় ছিল বেশি।

রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় সব ধরনের সবজিই বিক্রি হচ্ছে আগের চেয়ে বেশি দামে। টমেটো ২০০ টাকা কেজি এবং পেঁয়াজের দাম ১২০ টাকা পর্যন্ত উঠেছে।

এ ছাড়া প্রতিকেজি গাজর বিক্রি হচ্ছে ১৫০- ১৭০ টাকায়, শসা ৮০-১২০ টাকায়, কাঁচা মরিচ ২৬০ টাকা, ধনেপাতা ৩০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে হঠাৎ করে বেগুনের দাম কেজিতে ১০০ টাকা ছাড়িয়েছে। লম্বা বেগুন ১২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা কিছুদিন আগেও ছিল ৮০-১০০ টাকায়। আর সবুজ গোল বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৮০- ১০০ টাকায়। কালো গোল বেগুন বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকায়।

রাজধানীর মেরাদিয়া হাট বাজার, গোড়ান বাজার, খিলগাঁও রেলগেট কাঁচাবাজারসহ বেশকিছু বাজার সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, করলা বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়, কাঁকরোল ৮০-৯০ টাকায়, পেঁপে ৫০-৬০ টাকায়, ঢেঁড়স ৭০- ৮০ টাকায়, পটল ৫০-৬০ টাকায়, চিচিঙ্গা ৬০-৮০ টাকা, ধুন্দুল ৬০ টাকা, ঝিঙা ৬০-৮০ টাকা, বরবটি ১০০- ১২০ টাকায়, কচুর লতি ৮০- ১০০ টাকায়, কচুরমুখী ১০০- ১২০ টাকায়, মিষ্টি কুমড়া ৪০ টাকায়। প্রতিটি লাউ ৭০- ৮০ টাকায়, চাল কুমড়া ৬০ টাকা, ফুলকপি ৮০ টাকা, বাঁধাকপি ৬০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। এ ছাড়া প্রতি হালি কাঁচা কলা ৪০ টাকা, হালি লেবু বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা করে।

সবজির বাজারে দাম বাড়ার কারণ হিসেবে বিক্রেতারা দাবি করছেন, বন্যায় ও বৃষ্টির কারণে সবজির উৎপাদন কমে গেছে। অন্যদিকে উচ্চমূল্যের বাজারে নাকাল অবস্থা সাধারণ মানুষের। প্রতিনিয়তই বাজারে এসে হিমশিম খেতে হয় সাধারণ মানুষের।

প্রায় দেড় মাস ধরে কোরবানির ঈদের আগে থেকেই বাজারে পেঁয়াজের দাম ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। সপ্তাহের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১০-১৫ টাকা বেড়েছে। বর্তমানে খুচরা পর্যায়ে দেশি পেঁয়াজ প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০-১২৫ টাকায়।

দক্ষিণ বনশ্রীর এলাকার এক মুদি দোকানি জানান, গত সপ্তাহ দেশি পেঁয়াজ ৯৫ থেকে ৯৮ টাকা কেজিতে বিক্রি করা হয়েছে। তবে এ সপ্তাহে দেশি পেঁয়াজের দাম ১২০ টাকা হয়েছে। এই দাম শুনলে ক্রেতারা তেমন একটা কিনতে চায় না। আর ভারতীয় পেঁয়াজের দাম কম হলেও বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ পাওয়া যাচ্ছে না। পাইকারি বাজারে দেশি পেঁয়াজের সঙ্গে নিম্নমানের ভারতীয় পেঁয়াজ মিশিয়ে বিক্রি করছেন অনেকে। ফলে দেশি পেঁয়াজের দামে বিক্রি হচ্ছে কম দামি ভারতীয় পেঁয়াজ। যদি ভারতীয় পেঁয়াজ বাজারে পাওয়া যেত তাহলে দাম হতো সর্বোচ্চ ৮০ থেকে ৯০ টাকা পর্যন্ত।

আরও পড়ুন:
দেশজুড়ে পেঁয়াজের বাজারে নৈরাজ্য চলছে
আলু পেঁয়াজ ডিমের দাম কঠোরভাবে তদারকি হচ্ছে: বাণিজ্যমন্ত্রী
বাজারে আগুন, ডিম-সবজি-মাছের দাম বাড়ছেই
ঘোষণার ৫ দিনেও কমেনি সয়াবিন তেলের দাম
ময়মনসিংহে এক মাসে কেজিতে ৮০ টাকা বাড়ল ব্রয়লারের দাম

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Trade in local currency will strengthen economies in SAARC countries Governor

সার্কভুক্ত দেশে স্থানীয় মুদ্রায় বাণিজ্যে অর্থনীতি শক্তিশালী হবে: গভর্নর

সার্কভুক্ত দেশে স্থানীয় মুদ্রায় বাণিজ্যে অর্থনীতি শক্তিশালী হবে: গভর্নর শুক্রবার চট্টগ্রামে রেডিসন ব্লু’র মোহনা হলে সার্ক ফাইন্যান্স সেমিনারে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার। ছবি: সংগৃহীত
বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে স্থানীয় মুদ্রায় লেনদেন করলে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির ওপর থেকে নির্ভরশীলতা কমে আসবে। এতে সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বাড়বে এবং বিনিময় ঝুঁকি ও লেনদেন খরচ কমবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার বলেছেন, সার্কভুক্ত দেশে স্থানীয় মুদ্রা বাণিজ্যে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা, প্রবৃদ্ধি এবং আঞ্চলিক সহযোগিতার অপার সম্ভাবনা রয়েছে। সার্কের সদস্য দেশগুলোতে স্থানীয় মুদ্রায় বাণিজ্য করলে অর্থনীতি আরও শক্তিশালী হবে।

শুক্রবার চট্টগ্রামে রেডিসন ব্লু’র মোহনা হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগে আয়োজিত ‘স্থানীয় মুদ্রায় লেনদেন: সার্ক দেশগুলোর জন্য সমস্যা ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক সার্ক ফাইন্যান্স সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে গভর্নর এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, স্থানীয় মুদ্রা চালুর ক্ষেত্রে সহযোগিতামূলক প্রচেষ্টা, নীতি উদ্ভাবন এবং কৌশলগত চুক্তির মাধ্যমে আরও স্থিতিস্থাপক এবং সমন্বিত আঞ্চলিক অর্থনীতির পথ প্রশস্ত করা সম্ভব।

আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, ‘আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে ডলার দীর্ঘসময় ধরে আধিপত্য করে আসছে। বাণিজ্যের প্রায় ৪০ শতাংশ লেনদেন এ মুদ্রার মাধ্যমে হয়ে আসছে। কিন্তু ভূরাজনৈতিক উত্তেজনা ও অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার আলোকে এবং ভারসাম্যহীনতার ফলে অনেক দেশ একটি একক মুদ্রার ওপর নির্ভরশীল না থেকে বিকল্প পথ খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে।

তিনি আরও বলেন, সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে স্থানীয় মুদ্রায় লেনদেন করলে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতির ওপর থেকে নির্ভরশীলতা কমে আসবে। এতে সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা বাড়বে এবং বিনিময় ঝুঁকি ও লেনদেনের খরচ কমবে।

‘নিজস্ব মুদ্রায় বাণিজ্য করলে আমরা আমাদের অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে পারি। স্থানীয় বাণিজ্যের ক্ষেত্রে অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। তার মধ্যে প্রধান চ্যালেঞ্জ হলো অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর মধ্যে শক্তিশালী দ্বিপাক্ষিক চুক্তি ও সহযোগিতার কাঠামো প্রতিষ্ঠা করা। সেক্ষেত্রে স্থানীয় মুদ্রার স্থিতিশীলতা ও রূপান্তরযোগ্যতা নিশ্চিত করতে হবে এবং বাণিজ্যে ভারসাম্য বজায় রাখতে হবে।

সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন রির্জাভ ব্যাংক অফ ইন্ডিয়ার চিফ জেনারেল ম্যানেজার আদিত্য গায়হা, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মো. খায়েরুজ্জামান মজুমদার, বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গর্ভনর ড. মো. হাবিবুর রহমান, নির্বাহী পরিচালক সায়েরা ইউনুস।

বাংলাদেশ ব্যাংক ও কমার্শিয়াল ব্যাংকের কর্মকর্তাবৃন্দ সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
আর্থিক খাতে সুশাসন নিশ্চিত করতে গভর্নরের তাগিদ
সংস্কারে সন্তুষ্ট আইএমএফ, ডিসেম্বরে ঋণের দ্বিতীয় কিস্তি ছাড়
বৈশ্বিক র‌্যাঙ্কিংয়ে গভর্নর রউফের অবস্থানের অবনমন
মুডি’স-এর ঋণমান কমানো ভূরাজনৈতিক, এতে কিছু আসে যায় না: গভর্নর
চার বছরের মধ্যে ৭৫ শতাংশ ক্যাশলেস লেনদেন: গভর্নর

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
GI recognition for Gopalganj bronze jewellery

গোপালগঞ্জের ব্রোঞ্জের গহনাকে জিআই স্বীকৃতি

গোপালগঞ্জের ব্রোঞ্জের গহনাকে জিআই স্বীকৃতি
গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলম বলেন, ‘জিআই পণ্য হিসেবে গোপালগঞ্জের ব্রোঞ্জের গহনা নিবন্ধনের জন্য বৃহস্পতিবার ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (নিবন্ধন ও সুরক্ষা) আইন, ২০১৩ এর ধারা ১২ অনুসারে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পেটেন্ট, শিল্প-নকশা ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর কর্তৃক জার্নালে প্রকাশ করা হয়েছে।’

জিআই পণ্যের স্বীকৃতি পেয়েছে গোপালগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী ব্রোঞ্জের গহনা। এটি জেলার দ্বিতীয় পণ্য হিসেবে জিআই স্বীকৃতি অর্জন করেছে।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক কাজী মাহবুবুল আলম বাসসকে শুক্রবার এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য হিসেবে গোপালগঞ্জের ব্রোঞ্জের গহনা নিবন্ধনের জন্য বৃহস্পতিবার ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য (নিবন্ধন ও সুরক্ষা) আইন, ২০১৩ এর ধারা ১২ অনুসারে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পেটেন্ট, শিল্প-নকশা ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর কর্তৃক জার্নালে প্রকাশ করা হয়।’

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘এই স্বীকৃতির ফলে জেলার মুকসুদপুর উপজেলার জলিরপাড়ের ব্রোঞ্জের গহনার ঐতিহ্যকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব হবে। এছাড়া ব্রোঞ্জের গহনা তৈরির সঙ্গে সম্পৃক্ত কারিগরদের কর্মসংস্থান ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে তা সহায়ক হবে বলেও আমরা বিশ্বাস করি। এতে ব্রোঞ্জ শিল্পভিত্তিক অর্থনীতি আরও গতিশীল হবে। এলাকার আর্থ-সামজিক অবস্থারও উন্নয়ন ঘটবে।’

চলতি বছরের ১২ মার্চ জলিরপাড়ের ব্রোঞ্জের গহনার জিআই পণ্যের স্বীকৃতি চেয়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও দপ্তরগুলোতে আবেদন করা হয়। এর আগে গোপালগঞ্জের রসগোল্লা জেলার প্রথম পণ্য হিসেবে জিআই স্বীকৃতি লাভ করে।

ব্রোঞ্জ মার্কেটের ব্যবসায়ী ও জলিরপাড় ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার সুভাষ বৈদ্য বলেন, ‘আমাদের ওয়ার্ডে প্রায় ১শ’ বছর আগে গড়ে উঠেছে ব্রোঞ্জের গহনা তৈরির পল্লী। পরে এটি জলিরপাড় ইউনিয়নের ঘরে ঘরে ছড়িয়ে পড়ে। এই পল্লীকে কেন্দ্র করে এখানে ব্রোঞ্জ মার্কেট প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। জলিরপাড়ের ব্রোঞ্জের গহনার সুখ্যাতি সারাদেশে ছড়িয়ে পড়ে। ক্রমে দেশের গণ্ডি পেরিয়ে এটি বিদেশের বাজারে ছড়িয়ে যায়।

‘কিন্তু এই শিল্পে আধুনিকতার ছোঁয়া লাগেনি। তাই সম্প্রতিকালে ভারতসহ বিভিন্ন দেশের ব্রোঞ্জের গহনা আমাদের বাজারের প্রায় ৫০ ভাগ দখল করে নিয়েছে। তারপরও জলিরপাড়ের ব্রোঞ্জের গহনা শতাধিক পরিবার টিকিয়ে রেখেছে। জলিরপাড় ব্রোঞ্জ মার্কেটে এখনও ৪৫টি দোকান রয়েছে। এসব দোকানে এখনও ব্রোঞ্জের গহনা বিক্রি হচ্ছে।’

ব্রোঞ্জ গহনা প্রস্তুতকারক জলিরপাড় গ্রামের জগদীশ শীল বলেন, ‘ব্রোঞ্জ গহনা তৈরির তামা, দস্তা ও পিতলের দাম বেড়েছে। সহজপ্রাপ্যতা কমেছে। ভারতসহ অন্যান্য দেশের ব্রোঞ্জ গহনার রং খুব চকচকে। আমাদের গহনার রং তাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না।

‘সুদৃশ্য, মনোহর ও সৌখিন দামী গহনার বাজার ভারত ও চীনের দখলে চলে গেছে। তাই কানের দুল, হাতের বয়লাসহ যেসব গহনার চাহিদা রয়েছে এমন সব গহনা আমরা তৈরি করি। সরকার এ শিল্পকে আধুনিকায়ন, প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ও সব ধরনের সহযোগিতা করলে আমরা ব্রোঞ্জ গহনার শত বছরের ঐতিহ্য ধরে রাখতে পারব।’

জগদীশ আরও বলেন, ‘এখানে এখনও মানসম্পন্ন কারিগর রয়েছে। আধুনিক যন্ত্রপাতি সমন্বয়ে তাদের কাজে লাগিয়ে আমরাও দামি গহনা তৈরি করতে পারি। এতে শ্রমিক, মালিক ও ব্যবসায়ীরা আরও বেশি উপার্জন করতে পারবেন। একইসঙ্গে এই শিল্প দেশের অর্থনীতিকে আরও সমৃদ্ধ ও গতিশীল করবে।’

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জের রসগোল্লা পেল জিআই পণ্যের স্বীকৃতি
জিআই পণ্যের স্বীকৃতি পেল মুক্তাগাছার মণ্ডা
টাঙ্গাইল শাড়িকে জিআই পণ্য ঘোষণা করেছে সরকার
টাঙ্গাইল শাড়ির জিআই স্বত্ব পেতে অবশেষে আবেদন
টাঙ্গাইলের শাড়িতে ভারতের জিআই স্বত্ব মানা যায় না 

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Bangladesh Bank to publish monetary policy online amid exclusion of journalists

সাংবাদিকদের বর্জনের মধ্যে অনলাইনে মুদ্রানীতি প্রকাশ করবে বাংলাদেশ ব্যাংক

সাংবাদিকদের বর্জনের মধ্যে অনলাইনে মুদ্রানীতি প্রকাশ করবে বাংলাদেশ ব্যাংক ফাইল ছবি।
ঐতিহ্যগতভাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সংবাদ সম্মেলনে মুদ্রানীতি দিয়ে থাকে। গভর্নর ও প্রধান অর্থনীতিবিদ বিভিন্ন নীতিগত বিষয় ব্যাখ্যা করেন। সাংবাদিকদের বর্জনের মধ্যে এবার সেই ঐতিহ্য ভেঙে জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদের মুদ্রানীতি অনলাইনে ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ঐতিহ্য থেকে সরে এসে অর্থনৈতিক সাংবাদিকদের বর্জন এড়াতে মুদ্রানীতি (মনিটারি পলিসি স্টেটমেন্ট-এমপিএস) অনলাইনে প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

ঐতিহ্যগতভাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংবাদ সম্মেলনে মূলধারার গণমাধ্যমের সাংবাদিকরা মুদ্রানীতি নিয়ে আলোচনা করার জন্য উপস্থিত থাকেন। গভর্নর ও প্রধান অর্থনীতিবিদ বিভিন্ন নীতিগত বিষয় ব্যাখ্যা করেন। মুদ্রানীতি এবং ব্যাংকিং খাতের কর্মক্ষমতা সম্পর্কে চ্যালেঞ্জিং নানা প্রশ্নেরও জবাব দেন তারা।

তবে সেই ঐতিহ্য ভেঙে বাংলাদেশ ব্যাংক এখন অনলাইনে হালনাগাদের মাধ্যমে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের জুলাই-ডিসেম্বর মেয়াদের মুদ্রানীতি ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সাইফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘এটি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত। সংবাদ সম্মেলনের পরিবর্তে আগামী ১৮ জুলাই বিকেল ৩টায় মুদ্রানীতি (এমপিএস) অনলাইনে প্রকাশ করা হবে।

ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) সভাপতি রেফায়েত উল্লাহ মীরধা বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংক এর আগে মুদ্রানীতি প্রকাশের সম্মেলন কভার করতে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার সীমিত করেছিল।

‘আমরা এমন কোনো ব্যবস্থা সমর্থন করি না, যেখানে কর্মকর্তাদের অনুমতি পেলেই কেবল সাংবাদিকরা বাংলাদেশ ব্যাংকে প্রবেশ করতে পারবেন এবং কথা বলার জন্য একটি সময় নির্ধারণ করে দিতে পারবেন। ইআরএফ এই ব্যবস্থা প্রত্যাখ্যান করেছে এবং আগের মতোই ঝামেলামুক্ত প্রবেশাধিকারের দাবিতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।’

তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংক সাংবাদিকদের অবাধ প্রবেশাধিকারের দাবি পূরণ না করলে ইআরএফ বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুষ্ঠান বর্জন অব্যাহত রাখবে।’

আরও পড়ুন:
ঋণমুক্ত হওয়ার পথ সহজ করল বাংলাদেশ ব্যাংক
রপ্তানি তথ্যে অসঙ্গতির জন্য দায়ী এনবিআর ও ইপিবি
এক বছরে ১৩ বিলিয়ন ডলার বিক্রি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক
এক সপ্তাহে রিজার্ভ বেড়েছে ৩১ কোটি ৮০ লাখ ডলার
আর্থিক অভিজাতদের স্বার্থে বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা: সিপিডি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Signing of MoU between Rupali Bank and Pension Authority

রূপালী ব্যাংক ও পেনশন কর্তৃপক্ষের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

রূপালী ব্যাংক ও পেনশন কর্তৃপক্ষের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর সম্প্রতি কাকরাইলে পেনশন কর্তৃপক্ষের কার্যালয়ে কবিরুল ইজদানী খান ও মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন। ছবি: সংগৃহীত
সম্প্রতি কাকরাইলে পেনশন কর্তৃপক্ষের কার্যালয়ে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ও অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কবিরুল ইজদানী খান এবং রূপালী ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর এই সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন।

রূপালী ব্যাংক পিএলসি ও জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের মধ্যে সার্বজনীন পেনশন স্কিম বাস্তবায়নে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছে। এখন থেকে সব স্কিমের মাসিক কিস্তি আদায়সহ দেশে ও বিদেশে এর যাবতীয় প্রচার-প্রচারণায় জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের সহযোগী হিসেবে কাজ করবে রূপালী ব্যাংক।

সম্প্রতি রাজধানীর কাকরাইলে পেনশন কর্তৃপক্ষের কার্যালয়ে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান ও অর্থ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব কবিরুল ইজদানী খান এবং রূপালী ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর এই সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেন।

জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের সদস্য মো. মুর্শীদুল হক খান, যুগ্ম সচিব এ. কে এম আতিকুল হক, সিনিয়র সহকারী সচিব মো. শরীফ উদ্দিন, ব্যাংকের উপ-মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ কাউসার মোস্তাফিজ ও সহকারী মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামানসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

আরও পড়ুন:
রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের ডিএমডি হলেন ফয়েজ আলম
নতুন অর্থমন্ত্রীকে রূপালী ব্যাংকের অভিনন্দন
নোয়াখালীর কবিরহাটে রূপালী ব্যাংকের এটিএম বুথ উদ্বোধন
রূপালী ব্যাংকে ইসলামী ব্যাংকিং উইন্ডো উদ্বোধন
দুস্থদের মাঝে রূপালী ব্যাংকের খাবার বিতরণ

মন্তব্য

p
উপরে