× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

অর্থ-বাণিজ্য
Investors in the capital market lost in further decline
hear-news
player
print-icon

আরও পতনে দিশেহারা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারী

আরও-পতনে-দিশেহারা-পুঁজিবাজারে-বিনিয়োগকারী
নতুন গুজব যোগ হয়েছে, অনেকেই নাকি শেয়ার বিক্রি করে দিয়ে ডলার কিনছে। কিন্তু আমার প্রশ্ন হচ্ছে, সবাই ডলার কিনতে গেলে এত ডলার পাবে কোথায়? আসলে পুঁজিবাজারে পতন শুরু হলেই অনেক গুজব ছড়ানো হয়, এর-ওর সঙ্গে মেলানো হয়। এখন বাজারের অবস্থা খারাপ, তাই নানা গুজব ঘুরছে চারদিকে। সেই গুজবেই পড়ছে বাজার: ছায়েদুর রহমান

টালমাটাল বিশ্ব পরিস্থিতিতে দেশের অর্থনীতি নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে পুঁজিবাজারে টানা তৃতীয় দিন বড় পতন হলো। আরও শতাধিক পয়েন্ট সূচক হারিয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্সের অবস্থান দাঁড়িয়েছে ১০ মাসের সর্বনিম্ন অবস্থানে।

পুঁজিবাজারে বিনিয়োগে ব্যাংকগুলোর বিশেষায়িত কোম্পানি মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছায়েদুর রহমান জানিয়েছেন, তারা জানতে পেরেছেন, ডলারের বিপরীতে টাকার দর হারানোর পরিপ্রেক্ষিতে নতুন একটি গুজব ছড়ানো হয়েছে। বলা হচ্ছে, ডলারে বিনিয়োগ এখন বেশি লাভজনক।

ইউক্রেনে রুশ হামলার পর ধস নামা পুঁজিবাজার ঈদের আগে ঘুরে দাাঁড়ানোর ইঙ্গিত দেয়ার পর ছুটি শেষেও পরিস্থিতি ছিল ইতিবাচকই। তবে রাষ্ট্রায়ত্ত বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠান আইসিবির ঋণ সমন্বয়ের কারণে শেয়ার বিক্রি করতে বাধ্য হওয়ার পাশাপাশি অর্থনীতির বৈশ্বিক, আঞ্চলিক ও দেশীয় নানা ঘটনায় বাজারে দেখা দেয় আতঙ্ক।

টানা দরপতনের মধ্যে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ও আইসিবির বৈঠকের পর একটি বিজ্ঞপ্তি আসে যে, ব্যাংক ঋণ পরিশোধের সময় পিছিয়ে দিতে আবেদন করা হয়েছে। পাশাপাশি পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতা তহবিল থেকে আইসিবিকে আরও টাকা দেয়া হবে। কিন্তু এসব খবরেও বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা ফিরে আসছে না।

টানা দুই দিন সূচক অনেকটাই বেড়ে লেনদেন শুরু হলেও শেষটা হয় পতনের মধ্য দিয়ে।

মঙ্গলবার লেনদেন শুরুর ৭ মিনিটের মধ্যে সূচক বেড়ে গিয়েছিল ৫৪ পয়েন্ট। তবে এক পর্যায়ে ১১২ পয়েন্ট কমে যায়। শেষ দুই ঘণ্টায় ক্রয়চাপে সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে হারানো সূচকের অনেকটাই উদ্ধার হয়েছিল।

আগের রাতে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের কাছে আইসিবির ৫০০ কোটি টাকার তহবিল চেয়ে চিঠি দেয়ার বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে আসার পর বুধবারও শুরুতে উত্থান হয়।

এদিনও প্রথম ৬ মিনিটে সূচক বেড়ে গিয়েছিল ৪৩ পয়েন্ট। বেলা সোয়া ১১ টা পর্যন্তও সূচক অনেকটাই বেড়ে লেনদেন হচ্ছিল। কিন্তু এরপর থেকে সময় যত গড়িয়েছে সূচক তত পড়েছে।

শেষ পর্যন্ত সূচক আগের দিনের চেয়ে ৯৩ পয়েন্ট হারিয়ে সূচকের অবস্থান দাঁড়ায় ৬ হাজার ৩০৯ পয়েন্টে।

মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমবিএ) সভাপতি ছায়েদুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাজার এখন পুরোপুরি গুজবনির্ভর হয়ে পড়েছে। নানান ধরনের গুজব। এতদিন বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কা হওয়া নিয়ে অহেতুক গুজব ছিল। সেই গুজবে কান দিয়ে ছোট-বড় বিনিয়োগকারী শেয়ার বিক্রি করতে হুমড়ি খেয়ে পড়েন। অথচ এই চরম সংকটের মধ্যেও গতকাল শ্রীলঙ্কার শেয়ার বাজারে সূচক কিন্তু ৪০০ পয়েন্ট বেড়েছে। আমাদের বাজারে দরপতন হচ্ছেই। বুঝতে পারছি না, কেনো এমন হচ্ছে। মনে হচ্ছে সবাই গুজবের পেছনে ছুটছে।’

তিনি বলেন,‘নতুন গুজব যোগ হয়েছে, অনেকেই নাকি শেয়ার বিক্রি করে দিয়ে ডলার কিনছে।কিন্তু আমার প্রশ্ন হচ্ছে, সবাই ডলার কিনতে গেলে এত ডলার পাবে কোথায়?

‘আসলে পুঁজিবাজারে পতন শুরু হলেই অনেক গুজব ছড়ানো হয়, এর-ওর সঙ্গে মেলানো হয়। এখন বাজারের অবস্থা খারাপ, তাই নানা গুজব ঘুরছে চারদিকে। সেই গুজবেই পড়ছে বাজার’- বলেন ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছায়েদুর।

এক দিনেই দর হারিয়েছে ৩১০টি কোম্পানির শেয়ার। বিপরীতে বেড়েছে ৪২টির। আর ২৯টি কোম্পানি দর ধরে রাখতে পারে।

আরও পতনে দিশেহারা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারী
টানা দ্বিতীয় দিন সূচক বেড়ে লেনদেন শুরু করলেও শেষটা হয় পতনের মধ্য দিয়ে

যেসব কোম্পানি দর হারিয়েছে তার মধ্যে ৪০টির বেশি কোম্পানি দিনের দরপতনের সর্বোচ্চ সীমা বা তার কাছাকাছি পরিমাণ দর হারায়।

সব মিলিয়ে ৬০টি কোম্পানি দর হারিয়েছে ৪ থেকে ৫ শতাংশের কাছাকাছি পর্যন্ত। আরও ৪৯টি দর হারিয়েছে ৩ শতাংশের বেশি। আরও ৭৩টি কোম্পানি দর হারিয়েছে ২ শতাংশের বেশি।

চামড়া, সিরামিক, সিমেন্ট, আবাসন ও ভ্রমণ খাতের সবগুলো কোম্পানি দর হারিয়েছে। প্রধান খাতগুলোর মধ্যে বস্ত্রে তিনটির দর বৃদ্ধির বিপলীতে ৫৫টি, সাধারণ বিমা খাতে দুটি কোম্পানির দর বৃদ্ধির বিপরীতে ৩৬টি, জীবন বিমায় দুটির বিপরীতে ১১টি, প্রকৌশল খাতে তিনটির বিপরীতে ৩৭টি, ওষুধ ও রসায়ন খাতে তিনটির বিপরীতে ২৭টি, ব্যাংকে ৫টির বিপরীতে ২০টি, আর্থিক খাতে তিনটির বিপরীতে ১৬টি কোম্পানি দর হারিয়েছে।

অন্যদিকে কেবল একটি কোম্পানির দর দিনের দর বৃদ্ধির সর্বোচ্চ সীমা ছুঁতে পেরেছে। সেটি হলো এস আলম কোল্ড রোল স্টিল।

এর চেয়ে কম সূচক ছিল গত বছরের ১৫ জুলাই। তবে সে সময় ৬ হাজার ৩০৭ পয়েন্ট সূচক বিনিয়োগকারীদের মধ্যে উচ্ছ্বাসের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। টানা এক দশকের মন্দা কাটিয়ে বাজার সে সময় টানা বাড়ছিল। এক পর্যায়ে সূচক সাত হাজার ছাড়িয়ে যাওয়ার পর আট হাজার ছুঁয়ে ফেলে কি না, সেই আলোচনা তৈরি হয়।

কিন্তু সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে শুরু হওয়া বাজার সংশোধন শেষ হতে না হতেই দুই নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ও বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে মতভিন্নতার বিষয়টি সামনে আসে। সেই ইস্যুর সমাধান হতে না হতেই পরে শুরু হয় ইউক্রেন যুদ্ধ।

এখন আবার দেশে পণ্যমূল্যের পাশাপাশি ডলারে দাম ক্রমেই বেড়ে চলার মধ্যে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার বিষয়ে সতর্ক করেছেন।

সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে আমদানিনির্ভর উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর মধ্যে যেগুলো জরুরি নয়, সেগুলো পিছিয়ে দেয়া হবে। সরকারি চাকুরেদের বিদেশ সফরে দেয়া হয়েছে নিষেধাজ্ঞা, বিলাস দ্রব্যের আমদানিও করা হচ্ছে নিরুৎসাহিত। কিন্তু এসব ঘটনাতেও ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন ঠেকানো যাচ্ছে না।

আরও পড়ুন:
ফের পতনের ধারায় পুঁজিবাজার
এসএফআইএল সিকিউরিটিজের যাত্রা শুরু
‘শ্রীলঙ্কার বিপর্যয়ে’ ভয় দেখাল দেশের পুঁজিবাজার
হঠাৎ বিক্রয়চাপে পতন, আরও বাড়ল লেনদেন
সূচক পাঁচ সপ্তাহের সর্বোচ্চ, লেনদেন তিন মাসের

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Crest Bangko and Tamhar cheated 431 people got Rs

ক্রেস্ট, বাংকো ও তামহার প্রতারিত ৪৩১ জন পেলেন পৌনে ৫ কোটি টাকা

ক্রেস্ট, বাংকো ও তামহার প্রতারিত ৪৩১ জন পেলেন পৌনে ৫ কোটি টাকা
‘ডিএসই আশা করছে পর্যায়ক্রমে সকল বিনিয়োগকারীদের পাওনা পরিশোধ করা হবে৷ সকল পাওনা পরিশোধের জন্য ডিএসই সংশ্লিষ্ট ব্রোকারদের সাথে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। সকল ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করছে৷ এ ধরনের ঘটনা যেন ভবিষ্যতে না ঘটে সে বিষয়েও সতর্ক রয়েছে৷’

গ্রাহকদের টাকা আত্মসাতের অভিযোগে বন্ধ হয়ে যাওয়া ব্রোকারেজ হাউজ ক্রেস্ট, বাংকো ও তামহা সিকিউরিটিজ লিমিটেডের ৪৩১ জন পাওনাদার ৪ কোটি ৭৬ লাখ টাকা ফেরত পেয়েছেন।

আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে যাচাই-বাছাই শেষে অর্থ ফেরত কার্যক্রমের অংশ হিসেবে তাদেরকে এই টাকা ফেরত দেয় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ-ডিএসই।

সংস্থাটির উপ-মহাব্যবস্থাপক শফিকুর রহমান নিউজবাংলাকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের নির্দেশেনা অনুযায়ী অর্থ ফেরত কার্যক্রম শুরু করেছে ডিএসই।

ওই তিন হাউজের যে সব বিনিয়োগকারী ১৫ মের মধ্যে ডিএসইতে অভিযোগ দাখিল করেছেন তাদের নিজ নিজ বিও হিসাবে উল্লেখিত ব্যাংক হিসাবের মাধ্যমে আনুপাতিক হারে অর্থ ফেরত শুরু করা হয়েছে।

এরই ধারাবাহিকতায় ২৯ জুন থেকে ৫ জুলাই পর্যন্ত সময়ের মধ্যে বিইএফটিএনের মাধ্যমে ৪৩১ বিনিয়োগকারীকে ৪ কোটি ৭৬ লাখ টাকা দেয়া হয় বলে জানান ডিএসই কর্মকর্তা।

শফিকুর রহমান বলেন, ‘ডিএসই আশা করছে পর্যায়ক্রমে সকল বিনিয়োগকারীদের পাওনা পরিশোধ করা হবে৷ সকল পাওনা পরিশোধের জন্য ডিএসই সংশ্লিষ্ট ব্রোকারদের সাথে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। সকল ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করছে৷ এ ধরনের ঘটনা যেন ভবিষ্যতে না ঘটে সে বিষয়েও সতর্ক রয়েছে৷’

চলতি বছরের ২ ফেব্রুয়ারি ওই তামহা সিকিউরিটিজের বিওধারী বিনিয়োগকারীরা এক সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ তোলেন, অভিনব কায়দায় প্রতারণা করে দুই শতাধিক বিনিয়োগকারীর ৬৮ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

এই সিকিউরিটিজের মালিক ডুপ্লিকেট সফটওয়্যার ব্যবহার করে বিনিয়োগকারীদের সব শেয়ার বিক্রি করে দেয় বলে অভিযোগ করেন তারা। বিএসইসি ওই সিকিউরিটিজের শেয়ার লেনদেন স্থগিত করে দেয়ার পর সিডিবিএলে যোগাযোগ করে বিনিয়োগকারীরা জানতে পারেন তাদের হিসাবে কোনো শেয়ার নেই।

তামহা কর্তৃপক্ষ দুই শতাধিক বিনিয়োগকারীর মোবাইল নম্বর পরিবর্তন করে ডুপ্লিকেট সফটওয়্যার ব্যবহার করে শেয়ার ক্রয়-বিক্রয়ের তথ্য বিনিয়োগকারীদের ফোনে এসএমএস ও মেইল পাঠাতো। এ কারণে তারা জালিয়াতি বুঝতে পারেনি।

হাউজটি ১৩৯ কোটি টাকা ৭০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে বলে বিএসইসির এক পরিদর্শন প্রতিবেদনে ওঠে আসে। অনিয়ম-দুর্নীতির দায়ে গত ২৮ নভেম্বর ব্রোকারেজ হাউসটির শেয়ার কেনাবেচার কার্যক্রম বন্ধ করে দেয় ডিএসই।

গত বছরের জুনে বাংকো সিকিউরিটিজের কার্যক্রমও বন্ধ করে দেয়া হয় অনিয়ম-দুর্নীতির কারণে। বিএসইসির তদন্ত অনুযায়ী, এ ব্রোকারেজ হাউসের মালিকপক্ষ গ্রাহকদের ৬৬ কোটি ৫৯ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছে।

এ ঘটনায় ডিএসই মতিঝিল থানায় সাধারণ ডায়েরি বা জিডিও করে। পরে দুদক প্রতিষ্ঠানটির ছয়জনকে আসামি করে মামলা করেছে। আসামিরা হলেন বাংকো সিকিউরিটিজের চেয়ারম্যান আবদুল মুহিত এবং পরিচালক শফিউল আজম, ওয়ালিউল হাসান চৌধুরী, নুরুল ঈশান সাদাত, এ মুনিম চৌধুরী ও জামিল আহমেদ চৌধুরী।

২০২০ সালের জুনে ডিএসইর এক তদন্তে উঠে আসে ক্রেস্ট সিকিউরিটিজের মালিকপক্ষ গ্রাহকের ৮০ কোটি টাকার বেশি আত্মসাৎ করেছে। ৫৭ পুরানা পল্টনে প্রতিষ্ঠানটির কার্যালয়। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম বন্ধ। আর অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির এমডি শহিদ উল্লাহ ও তাঁর স্ত্রী নিপা সুলতানাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

২১ হাজার বিনিয়োগকারীর হিসাব ছিল এই হাউসে। আর গ্রাহকদের টাকা ছিল ১০০ কোটি। শেয়ার কেনাবেচার বাইরে বেআইনিভাবে লভ্যাংশের বিনিময়ে গ্রাহকদের কাছ থেকে টাকাও নিতেন তাঁরা। মালিকপক্ষ ১৮ কোটি টাকা সরিয়ে নিয়েছিলেন নিজেদের ব্যাংক হিসাবে।

আরও পড়ুন:
পুঁজিবাজারে হতাশার বছরে শেষ মুহূর্তের চমক
বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বাড়ছে বস্ত্রে
দুটি মিউচুয়াল ফান্ডের অনুমোদন দিল বিএসইসি
‘ঘুম ভাঙছে’ পুঁজিবাজারের, বাড়ছে লেনদেন
হঠাৎ ক্রয়চাপে উত্থান

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Uterus in the declining capital market

পতনমুখী পুঁজিবাজারে হঠাৎ ইউটার্ন

পতনমুখী পুঁজিবাজারে হঠাৎ ইউটার্ন
লেনদেনের বিষয়ে এক্সপো ট্রেডার্সের প্রধান নির্বাহী শহিদুল হোসেন বলেন, ‘বিনিয়োগকারীরা শেয়ার কেনার ফলে লেনদেন ও সূচক উভয়ই বেড়েছে। ঈদের আগে মানুষের টাকার প্রয়োজন পড়ে, সেটা বিগত কয়েক দিনে তুলে ফেলেছে। এখন আর টাকার প্রয়োজন নেই। ফলে যে টাকা ছিল তাতে কিছু কেনাবেচা করেছেন বিনিয়োগকারীরা।’

দুর্বল ও লোকসানি কোম্পানির দর বৃদ্ধি প্রবণতার সঙ্গে টানা দুই দিন পতনের পরে ঘুরে দাঁড়াল পুঁজিবাজার। গতি এলো লেনদেনেও।

আগের সপ্তাহে টানা চার দিন সূচকে অল্প অল্প করে মোট ৭৫ পয়েন্ট যোগ হয়। সর্বশেষ কর্মদিবসে লেনদেন ৯০০ কোটির ঘর অতিক্রম করেছিল। তবে চলতি সপ্তাহের শুরুতে বড় ব্যবধানে লেনদেন হ্রাস পায়, কমে সূচকও। দ্বিতীয় দিনেও সেই ধারা অব্যাহত ছিল।

প্রথম দিনে ১৭ ও দ্বিতীয় দিনে ১২ অর্থাৎ দুই কর্মদিবসে ২৯ পয়েন্ট সূচক হ্রাস পায়। তৃতীয় কর্মদিবস মঙ্গলবার কিছুটা পুষিয়ে দিল ২৫ পয়েন্ট বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে।

নতুন বছর শুরু হতে না হতেই আন্তর্জাতিক নানা ঘটনাপ্রবাহ, ইউক্রেন যুদ্ধ, শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়, ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন- ইত্যাদি কারণে মন্দা যেন কাটছিল না। এমতাবস্থায় নতুন অর্থবছরে নতুন বিনিয়োগে পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়াবে এমন আশার বাণী শোনান পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা।

তাদের ভাষ্যমতে, অর্থবছরের শেষে বিভিন্ন কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে, যা দেখে বিনিয়োগকারীরা নতুন বিনিয়োগের ছক আঁকেন। বাজারে নতুন ফান্ড ইনজেক্ট হয়। যার কারণে ইতিবাচক চাঞ্চল্য দেখা যায়।

কিন্তু অর্থবছরের শুরু দুই দিনে লেনদেন হাজার কোটির কাছাকাছি থেকে ৬০০ কোটির ঘরে নেমে আসে। এতে শঙ্কা তৈরি হয় কোনদিকে যাচ্ছে পুঁজিবাজার।

তবে ভাটা পড়া লেনদেনে কিছুটা জোয়ার এলো। দিনভর হাতবদল হয়েছে ৯৬০ কোটি ৭৯ লাখ ৬১ হাজার টাকা, যা ১৩ কর্মদিবসের মধ্যে সর্বোচ্চ। এর আগে এর চেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছিল ১৬ জুন। ওই দিন ডিএসইতে হাতবদল হয় ১ হাজার ৪৬ কোটি ৬৩ লাখ ২২ হাজার টাকার।

সমানসংখ্যক শেয়ারদর বৃদ্ধি ও পতন হয়েছে। ১৬০টি শেয়ারের দর বৃদ্ধির বিপরীতে কমেছে ১৫৯টির। অপরিবর্তিত দামে লেনদেন হয়েছে ৬৩টি কোম্পানির শেয়ার।

পতনমুখী পুঁজিবাজারে হঠাৎ ইউটার্ন
দুই কর্মদিবস পতনের পর মঙ্গলবার সূচকের পাশাপাশি বেড়েছে লেনদেনও

লেনদেনের বিষয়ে এক্সপো ট্রেডার্সের প্রধান নির্বাহী শহিদুল হোসেন বলেন, ‘বিনিয়োগকারীরা শেয়ার কেনার ফলে লেনদেন ও সূচক উভয়ই বেড়েছে। ঈদের আগে মানুষের টাকার প্রয়োজন পড়ে, সেটা বিগত কয়েক দিনে তুলে ফেলেছে। এখন আর টাকার প্রয়োজন নেই। ফলে যে টাকা ছিল তাতে কিছু কেনাবেচা করেছেন বিনিয়োগকারীরা।’

দর বৃদ্ধির শীর্ষ ১০

দর বৃদ্ধির শীর্ষে রয়েছে ইস্টার্ন ক্যাবলস। গতকাল দর বৃদ্ধির তৃতীয় স্থানে ছিল কোম্পানিটি। আজ ৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ বেড়ে ১৬১ টাকা ৫০ পয়সা থেকে সর্বশেষ দাম ১৭৭ টাকা ৬০ পয়সায় দাঁড়িয়েছে। গতকালও প্রায় সমান পরিমাণ দর বেড়েছিল কোম্পানিটির।

গতকাল ডিএসইর মাধ্যমে কোম্পানি জানায়, তারা অ্যালুমিনিয়াম তার সরবরাহের লক্ষ্যে চায়না ন্যাশনাল টেকনিক্যাল ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশনের সঙ্গে চুক্তি সই করে। এ খবরে টানা দুই দিন সর্বোচ্চ সীমায় দর বাড়ল।

২০১৭ সালে শেয়ারপ্রতি ১ টাকা ১৯ পয়সায় আয় হয়েছিল। এরপর টানা চার বছর লোকসানে রয়েছে কোম্পানি। বিগত দুই বছর লভ্যাংশ না দিলে ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত প্রতি বছর বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দিয়েছে ইস্টার্ন ক্যাবলস। এর মধ্যে ২০১৮ সালে ১০ শতাংশ ছাড়া সবই নগদ ছিল।

প্রায় একই সমান দর বেড়েছে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের। ১২৪ টাকা ৫০ পয়সা থেকে বেড়ে ১৩৬ টাকা ৯০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে প্রতিটি শেয়ার।

৮ মাস আগেও বর্তমানের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ দামে শেয়ার লেনদেন হতে দেখা গেছে। গত বছরের ১৮ নভেম্বর শেয়ারটির দর উঠেছিল ২৩২ টাকা ৯০ পয়সা।

ডিএসইর ওয়েবসাইটে কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন-সংশ্লিষ্ট পর্যাপ্ত তথ্য নেই। ২০১৮ সালের পরে আর কোনো লভ্যাংশ দেয়নি কোম্পানিটি।

দর বৃদ্ধির তৃতীয় স্থানে রয়েছে আমান কটন লিমিটেড। ৯ দশমিক ৭১ শতাংশ দর বেড়ে শেয়ার বিক্রি হয়েছে ৩০ টাকা ৫০ পয়সায়। গতকাল সর্বশেষ দর ছিল ২৭ টাকা ৮০ পয়সা।

গত দুই বছরে তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায়, এক বছরেরও কম সময়ে গত বছরের ৭ ডিসেম্বর কোম্পানির দর উঠেছিল ৫২ টাকা ৬০ পয়সায়। এর পরে শুধুই কমেছে দর।

দর বৃদ্ধির তালিকায় চতুর্থ স্থানে থাকা এনার্জি প্যাক পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেডের দর বেড়েছে ৭ দশমিক ৭৩ শতাংশ। ৩৮ টাকা ৮০ পয়সা থেকে সমাপনী দর দাঁড়িয়েছে ৪১ টাকা ৮০ পয়সায়।

গত বছর পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির পর সেই বছরই বিনিয়োগকারীদের ১০ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছে কোম্পানি। এ ছাড়া তিন বছরের আর্থিক প্রতিবেদন বলছে, শেয়ার প্রতি প্রায় ৩ টাকার মতো আয় রয়েছে।

চলতি বছরের ২২ মে থেকে দর বাড়ছে শেয়ারের। ওই দিন শেয়ার লেনদেন হয়েছিল ৩৪ টাকা ৪০ পয়সায়।

তালিকার পরের স্থানে থাকা আমান ফিডের দর ৬ দশমিক ৭৮ শতাংশ বেড়ে হাতবদল হয়েছে ৩৭ টাকা ৮০ পয়সা।

২০১৫ সালে তালিকাভুক্তির পর কোম্পানিটি প্রতি বছরই নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে। সঙ্গে ২০১৯ ও ২০২১ সালে ছাড়া বোনাসও পেয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। গত বছরের ৩১ আগস্ট ৭৮ টাকা ১০ পয়সায় শেয়ার লেনদেনের পর দর শুধু কমেছেই।

তালিকার দশে স্থান পাওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে এর পরের স্থানে রয়েছে যথাক্রমে সোনালী পেপার, স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক, মীর আখতার হোসেন লিমিটেড, ফু-ওয়াং ফুড ও তিতাস গ্যাস লিমিটেড।

দরপতনের শীর্ষ ১০

দরপতনের শীর্ষে রয়েছে আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড। শেয়ারটির দর ৫০ পয়সা বা ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ কমে সর্বশেষ ২৪ টাকা ৭০ পয়সায় লেনদেন হয়।

১৩৩ বারে কোম্পানিটির মোট ২ লাখ ৩৯ হাজার ৩৪৮টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যার বাজারমূল্য ৫৯ লাখ টাকা।

অ্যাপেক্স ফুটওয়্যার লুজার তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। শেয়ারটির দর ৫ টাকা ৩০ পয়সা বা ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ কমেছে। শেয়ারটির সর্বশেষ দর দাঁড়িয়েছে ২৬১ টাকা ৯০ পয়সা।

তৃতীয় স্থানে রয়েছে সাভার রিফ্যাক্টরিজ। ১ দশমিক ৯৭ শতাংশ দর বেড়ে শেয়ারটির দর দাঁড়িয়েছে ২৪৩ টাকা ১০ পয়সায়। লোকসানে ডুবে থাকা এক কোটি ৩৯ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানিটি কোনো দিনই বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দিতে পারেনি।

এর পরেই মনস্পুল পেপারের দর ৩ টাকা ২০ পয়সা বা ১ দশমিক ৯৭ শতাংশ কমে ১৫৯ টাকা ৫০ পয়সায় হাতবদল হয়েছে।

দরপতনের শীর্ষ দশে রয়েছে যথাক্রমে পেপার প্রসেসিং, ইমাম বাটন, নিউ লাইন ক্লোথিং, গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল, শ্যামপুর সুগার মিলস ও কেডিএস অ্যাক্সেসরিজ।

সূচক বাড়াল যারা

সর্বোচ্চ ১০ দশমিক ৬১ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে গ্রামীণফোন। এদিন কোম্পানিটির দর ৩ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ বেড়েছে।

সূচকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পয়েন্ট যোগ করেছে রবি। দর ১ দশমিক ৯২ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে ৩ দশমিক ৩৯ পয়েন্ট।

বেক্সিমকো লিমিটেড সূচকে যোগ করেছে ২ দশমিক ৯২ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে ২ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

এ ছাড়া তিতাস গ্যাস, ওয়ালটন হাইটেক, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বিকন ফার্মা, পাওয়ার গ্রিড, সোনালী পেপার ও বার্জার পেইন্টস সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ২৪ দশমিক ৯১ পয়েন্ট।

সূচক কমাল যারা

সবচেয়ে বেশি শূন্য দশমিক ৮২ পয়েন্ট সূচক কমেছে ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ-আইসিবির কারণে। কোম্পানিটির দর কমেছে ১ দশমিক শূন্য ৯ শতাংশ।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ শূন্য দশমিক ৭ পয়েন্ট কমিয়েছে ইউনাইটেড পাওয়ার। কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে শূন্য দশমিক ৫২ শতাংশ।

এর পরই স্কয়ার ফার্মার দর শূন্য দশমিক ৩৭ শতাংশ কমার কারণে সূচক কমেছে শূন্য দশমিক ৬৬ পয়েন্ট।

এ ছাড়া আল-আরাফাহ ব্যাংক, বেক্সিমকো সুকুক, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো, ট্রাস্ট ব্যাংক, বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং কোম্পানি, সাউথ ইস্ট ব্যাংক ও ইস্টার্ন ব্যাংকের দরপতনে সূচক কমেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০ কোম্পানি কমিয়েছে ৪ দশমিক ৬ পয়েন্ট।

আরও পড়ুন:
বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ বাড়ছে বস্ত্রে
দুটি মিউচুয়াল ফান্ডের অনুমোদন দিল বিএসইসি
‘ঘুম ভাঙছে’ পুঁজিবাজারের, বাড়ছে লেনদেন
হঠাৎ ক্রয়চাপে উত্থান
ইটিএফ চালু নিয়ে ডন গ্লোবাল-বিএসইসি বৈঠক

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Investors are leaning towards loss making companies in the recessionary market

মন্দা বাজারে লোকসানি কোম্পানিতে ঝুঁকছেন বিনিয়োগকারীরা

মন্দা বাজারে লোকসানি কোম্পানিতে ঝুঁকছেন বিনিয়োগকারীরা
লেনদেনের বিষয়ে মিয়া আব্দুর রশিদ সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা শেখ ওহিদুজ্জামান স্বাধীন বলেন, ‘ঈদের আগে নতুন করে শেয়ার কেনা থেকে বিরত রাখবেন বিনিয়োগকারীরা। এ ছাড়া মার্জিন লোন নিয়ে যারা ট্রেড করেন, তাদের ট্রেডিংও বন্ধ থাকবে। লেনদেন কমার এটি একটি কারণ।’

টানা দর হারাতে থাকা পুঁজিবাজারে দুর্বল ও লোকসানি কোম্পানিগুলো আবার তেজ দেখাতে শুরু করেছে। সবচেয়ে বেশি দাম বেড়েছে এমন কোম্পানিগুলোর মধ্যে বেশ কয়েকটি উৎপাদনে নেই, লভ্যাংশ দিতে পারছে না বছরের পর বছর ধরে।

দেশের পুঁজিবাজারে মন্দাভাবের সময় এ বিষয়টি প্রায়ই দেখা যায়। লোকসানি, উৎপাদন বন্ধ- এমন সিংহভাগ কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন বেশ কম। শেয়ারসংখ্যা কম হওয়ার কারণে শেয়ারদর কৃত্রিমভাবে বাড়ানোর সুযোগ থাকে। প্রায়ই দেখা যায়, শেয়ারদর বাড়লে বিনিয়োগকারীরা সেই কোম্পানির শেয়ারেই বেশি আকৃষ্ট হন।

এমনিতেই দর সংশোধনে থাকা পুঁজিবাজারে ইউক্রেন যুদ্ধ, ডলারের বিপরীতে টাকার মূল্য হ্রাসসহ নানা ইস্যুতে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে মনস্তাত্ত্বিক চাপ প্রবল। তার ওপর বাজেটে প্রত্যাশিত কোনো ঘোষণা আসেনি। আশা ছিল, বাজেট পাসের সময় অন্তত কিছু পাওয়া যাবে, কিন্তু অর্থমন্ত্রী এখানেও কোনো সুখবর রাখেননি।

গত অর্থবছরের শুরুটা ঝলমলে থাকলেও সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহের শেষ দিন থেকে পুঁজিবাজারে টানা যে দর সংশোধন শুরু হয়, এরপর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির মতভেদ, পরে বছর শেষের সমন্বয়, এরপর নতুন বছর শুরু হতে না হতেই আন্তর্জাতিক নানা ঘটনাপ্রবাহ, ইউক্রেন যুদ্ধ, শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়, ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন- পুঁজিবাজারে আস্থা তৈরি হওয়ার মতো যেন কোনো একটি ঘটনাও নেই।

পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা বলছিলেন, অর্থবছরের শেষে বিভিন্ন কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে, যা দেখে বিনিয়োগকারীরা নতুন বিনিয়োগের ছক আঁকেন। বাজারে নতুন ফান্ড ইনজেক্ট হয়। যার কারণে ইতিবাচক চাঞ্চল্য দেখা যায়। এতে সময় লাগবে।

গত বৃহস্পতিবার অর্থবছরের শেষ দিন শেষ বেলায় হঠাৎ করেই ক্রয়চাপ ও সূচক বাড়তে দেখা দিলেও নতুন অর্থবছরের প্রথম দুই কর্মদিবসেই পড়ল সূচক, শেয়ারদর। সেই সঙ্গে কমল লেনদেন।

বৃহস্পতিবার যেখানে ৯৩৭ কোটি টাকা ছাড়িয়ে লেনদেন হয়েছিল, রোববার তা দাঁড়ায় ৬৫৪ কোটি ৮৩ লাখ ৩৯ হাজার টাকায়। সেখান থেকে কিছুটা বেড়ে সোমবার হাতবদল হয়েছে ৬৩২ কোটি ৫০ লাখ ৮২ হাজার টাকা।

১৬২ কোম্পানির শেয়ারের দর বৃদ্ধির বিপরীতে হারিয়েছে ১৬৫টি, অপরিবর্তিত ছিল ৫৪টির দর।

মন্দা বাজারে লোকসানি কোম্পানিতে ঝুঁকছেন বিনিয়োগকারীরা
সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেনের চিত্র

লেনদেনের বিষয়ে মিয়া আব্দুর রশিদ সিকিউরিটিজের শীর্ষ কর্মকর্তা শেখ ওহিদুজ্জামান স্বাধীন বলেন, ‘ঈদের আগে নতুন করে শেয়ার কেনা থেকে বিরত রাখবেন বিনিয়োগকারীরা। এ ছাড়া মার্জিন লোন নিয়ে যারা ট্রেড করেন, তাদের ট্রেডিংও বন্ধ থাকবে। লেনদেন কমার এটি একটি কারণ।’

‘এ ছাড়া নতুন অর্থবছরের ফান্ড ইনজেক্ট হয়। অনেক প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী ইনভেস্ট করেন। কিন্তু ফান্ড জোগাড় করতে তাদের সময় লাগে। জুলাইয়ের অর্ধেক যাওয়ার পরে তারা হয়তো ফান্ড কালেক্ট করে নতুন বিনিয়োগ করবেন। এতে আশা করা যায় বাজার চাঙা হবে।’

দর বৃদ্ধির শীর্ষ ১০

দর বৃদ্ধির শীর্ষে রয়েছে লোকসানি জাহিদ স্পিনিং লিমিটেড। কোম্পানির দর দিনের সর্বোচ্চ অর্থাৎ ১০ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ দর দাঁড়িয়েছে ১২ টাকা ১০ পয়সায়।

পাঁচ বছরের মধ্যে বিগত দুই বছর শেয়ারপ্রতি মোটা অঙ্কের লোকসান দিয়েছে জাহিদ স্পিনিং। তবে তার আগের তিন বছর কিছুটা মুনাফায় ছিল কোম্পানি। তবে কোনোদিনই নগদ লভ্যাংশ পাননি এর বিনিয়োগকারীরা।

বুধবার গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে বিটিআরসির নিষেধাজ্ঞার পর গ্রামীণফোনের দরপতনের বিপরীতে শেয়ারদর বাড়তে শুরু করে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের।

পরপর তিন কর্মদিবস দর বাড়ল। ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ বেড়ে ৩৩ টাকা ১০ পয়সা থেকে ৩৬ টাকা ৪০ পয়সায় শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

দর বৃদ্ধির তৃতীয় স্থানে রয়েছে আরেক লোকসানি কোম্পানি ইস্টার্ন ক্যাবলস। ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ দর দাঁড়িয়েছে ১৬১ টাকা ৫০ পয়সায়।

লেনদেন শুরুর পর ডিএসই জানায়, কোম্পানিটি অ্যালুমিনিয়াম তার সরবরাহের লক্ষ্যে চায়না ন্যাশনাল টেকনিক্যাল ইমপোর্ট অ্যান্ড এক্সপোর্ট করপোরেশনের সঙ্গে চুক্তি সই হয়েছে। এর পরেই দর বেড়ে যায়।

মন্দা বাজারে লোকসানি কোম্পানিতে ঝুঁকছেন বিনিয়োগকারীরা
সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পাওয়া ১০টি কোম্পানির মধ্যে বেশির ভাগই লোকসানি

২০১৭ সালে শেয়ারপ্রতি ১ টাকা ১৯ পয়সায় আয় হয়েছিল। এরপর টানা চার বছর লোকসানে রয়েছে কোম্পানি। বিগত দুই বছর লভ্যাংশ না দিলে ২০১৫ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত প্রতি বছর বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দিয়েছে ইস্টার্ন ক্যাবলস। এর মধ্যে ২০১৮ সালে ১০ শতাংশ ছাড়া সবই নগদ ছিল।

একই সমান দর বেড়েছে ব্যাপক লোকসানে থাকা শ্যামপুর সুগার মিলস লিমিটেডের। প্রতি বছরই লোকসান গুনলেও অজানা কারণে দাম চড়া রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানিটির শেয়ারের।

লভ্যাংশ দিতে না পারায় ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে লেনদেন হচ্ছে শেয়ারটি। ২১ জুন থেকে ধারাবাহিক দর বাড়ছে। ওইদিন ৭৭ টাকা ১০ পয়সায় শেয়ার বেচাকেনা হয়েছিল। আজকে সর্বশেষ দর দাঁড়িয়েছে ১১৯ টাকা ৫০ পয়সায়। এই সময়ে দর বেড়েছে ৪২ টাকা ৪০ পয়সা।

ডিএসই থেকে অস্বাভাবিক দর বৃদ্ধির কারণ জানতে চাইলে কোনো মূল্য সংবেদনশীল তথ্য নেই বলে জানিয়েছে কোম্পানি।

এর পরই দর বেড়েছে প্রাইম টেক্সটাইল, ইন্ট্রাকো রি-ফুয়েলিং স্টেশন, জুট স্পিনার্স, সাভার রিফ্যাক্টরিজ, খান ব্রাদার্স বিপি ওভেন ব্যাগ ইন্ডাস্ট্রিজ ও এমএল ডায়িং।

এর মধ্যে জুট স্পিনার্স ও সাভার রিফ্রাকটরিজ লোকসানের কারণে কখনও লভ্যাংশ দিতে পারেনি।

দর পতনের শীর্ষ ১০

সবচেয়ে বেশি ১ দশমিক ৯৯ শতাংশ দর কমেছে প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্সের। ২০১৫ সাল বাদে আর কোনো বছর নগদ লভ্যাংশ দিতে পারেনি কোম্পানিটি।

গতকাল ৮০ টাকা ১০ পয়সায় লেনদেন হওয়া শেয়ার আজ হাতবদল হয়েছে ৭৮ টাকা ৫০ পয়সায়।

প্রায় একই সমান দর কমেছে মনস্পুল পেপারের। ২০ ফেব্রুয়ারি ২৭২ টাকা ৯০ পয়সায় লেনদেন হওয়ার পর ক্রমাগত দরপতন দেখা গেছে। আজ সর্বশেষ দর দাঁড়িয়েছে ১৬২ টাকা ৭০ পয়সায়।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা অ্যাপেক্স ফুটওয়্যারের দর ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ কমে ২৬৭ টাকা ২০ পয়সায় শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এ ছাড়া দরপতনের তালিকার দশে রয়েছে যথাক্রমে পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, নাভানা সিএনজি, ইউনিয়ন ব্যাংক, গ্রামীণফোন, পেপার প্রসেসিং, ফার্স্ট ফিন্যান্স ও অ্যাপেক্স ট্যানারি।

সূচক কমাল যারা

সবচেয়ে বেশি ১২৩ দশমিক ৩৭ পয়েন্ট সূচক কমেছে গ্রামীণফোনের কারণে। কোম্পানিটির দর কমেছে ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৩ দশমিক ৭ পয়েন্ট কমিয়েছে ওয়ালটন হাইটেক। কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে শূন্য দশমিক ৪৩ শতাংশ।

এর পরই বেক্সিমকোর দর ১ দশমিক ৬ শতাংশ কমার কারণে সূচক কমেছে ২৯ দশমিক ৫ পয়েন্ট।

এ ছাড়া বার্জার পেইন্টস, ব্র্যাক ব্যাংক, ইউনাইটেড পাওয়ার, বিকন ফার্মা, বেক্সিমকো ফার্মা, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো ও বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলসের দরপতনে সূচক কমেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০ কোম্পানি কমিয়েছে ২৮৩ দশমিক শূন্য ৯ পয়েন্ট।

বিপরীতে রবি একাই পেয়ে ২৭৭ দশমিক শূন্য ৭ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে। এদিন কোম্পানিটির দর ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ বেড়েছে। আগের দুই কর্মদিবসেও সর্বোচ্চ সূচক বাড়িয়েছিল কোম্পানিটি।

সূচকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পয়েন্ট যোগ করেছে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ। দর ২ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে ২৬ দশমিক শূন্য ৬ পয়েন্ট।

আইসিবি সূচকে যোগ করেছে ১১ দশমিক ৬৩ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে শূন্য দশমিক ৯ শতাংশ।

এ ছাড়া স্কয়ার ফার্মা, রেনাটা, ইস্টার্ন ক্যাবলস, এমএল ডায়িং, ইউসিবি, বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিলস লিমিটেড ও শাইনপুকুর সিরামিকস সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ৩৫৩ দশমিক ৫৬ পয়েন্ট।

আরও পড়ুন:
দুটি মিউচুয়াল ফান্ডের অনুমোদন দিল বিএসইসি
‘ঘুম ভাঙছে’ পুঁজিবাজারের, বাড়ছে লেনদেন
হঠাৎ ক্রয়চাপে উত্থান
ইটিএফ চালু নিয়ে ডন গ্লোবাল-বিএসইসি বৈঠক
ফের পতনে লেনদেন তলানিতে, দুর্বল কোম্পানির ‘সুদিন’

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The first day of the financial year did not bring relief to the capital market

অর্থবছরের প্রথম দিন স্বস্তি দিল না পুঁজিবাজারে

অর্থবছরের প্রথম দিন স্বস্তি দিল না পুঁজিবাজারে
গত অর্থবছরের শুরুটা ঝলমলে থাকলেও সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহের শেষ দিন থেকে পুঁজিবাজারে টানা যে দর সংশোধন শুরু হয়, এরপর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির মতভেদ, পরে বছর শেষের সমন্বয়, এরপর নতুন বছর শুরু হতে না হতেই আন্তর্জাতিক নানা ঘটনাপ্রবাহ, ইউক্রেন যুদ্ধ, শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়, ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন- পুঁজিবাজারে আস্থা তৈরি হওয়ার মতো যেন কোনো একটি ঘটনাও নেই।

টানা নয় মাস সংশোধনে থাকা পুঁজিবাজার নতুন অর্থবছরের প্রথম কর্মদিবসেও হতাশ করল।

শুক্রবার থেকে শুরু হওয়া ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রথম কর্মদিবস রোববার দেশের পুঁজিবাজারে দেখা দিল নেতিবাচক প্রবণতা। কমল বেশিরভাগ শেয়ারের দর, কমল সূচক, ভাটা দেখা দিল লেনদেনও।

গত বৃহস্পতিবার ২০২১-২২ অর্থবছরের শেষ কর্মদিবসে দিনভর উঠানামার মধ্যে একে শেষ ১৪ মিনিটে ব্যাপক লেনদেন ও সূচকের লাফ দেখা দিলেও ইতিবাচর প্রবণতার ছিটেফোঁটাও দেখা যায়নি পরের দিনের বেশিরভাগ সময়।

কেবল লেনদেন শুরুর মিনিট পাঁচেক সময়ে সূচক ১২ পয়েন্ট বেড়েছিল। কিন্ত সেখান থেকে নেমে আসতে সময় নেয়নি। এরপর সূচক প্রায় পুরোটা সময় ছিল নেতিবাচক।

গত অর্থবছরের শুরুটা ঝলমলে থাকলেও সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহের শেষ দিন থেকে পুঁজিবাজারে টানা যে দর সংশোধন শুরু হয়, এরপর কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির মতভেদ, পরে বছর শেষের সমন্বয়, এরপর নতুন বছর শুরু হতে না হতেই আন্তর্জাতিক নানা ঘটনাপ্রবাহ, ইউক্রেন যুদ্ধ, শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়, ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন- পুঁজিবাজারে আস্থা তৈরি হওয়ার মতো যেন কোনো একটি ঘটনাও নেই।

এর মধ্যে বড় বিনিয়োগকারীরা হাত গুটিয়ে বসে, ছোট বিনিয়োগকারীদের একটি বড় অংশও কেনাবেচা করতে পারছে না। শেয়ারদর কমে যাওয়ায় টাকা আটকে গেছে হাজারো মানুষের। এই পতন থেকে বেরিয়ে আসা যাবে কবে-এ নিয়ে অপেক্ষার যেন শেষ নেই।

পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা বলছিলেন, অর্থবছরের শেষে বিভিন্ন কোম্পানির আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে, যা দেখে বিনিয়োগকারীরা নতুন বিনিয়োগের ছক আঁকেন। বাজারে নতুন ফান্ড ইনজেক্ট হয়। যার কারণে ইতিবাচক চাঞ্চল্য দেখা যায়। বিষয়টি বিনিয়োগকারীদের মনে আশা সঞ্চার করে। তবে নতুন অর্থবছরের শুরুতেই পতনে বিনিয়োগকারীদের সেই আশায় গুঁড়েবালি।

শেষ পর্যন্ত ১৭ পয়েন্ট কমে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্স অবস্থান করছে ৬ হাজার ৩৫৯ পয়েন্টে।

লেনদেনে বড় ভাটা পড়েছে। আগের কর্মদিবসের চেয়ে ২৮২ কোটি ৯১ লাখ ৩৬ হাজার টাকা কমে হাতবদল হয়েছে ৬৫৪ কোটি ৮৩ লাখ ৩৯ হাজার টাকার।

বৃহস্পতিবার ৯৩৭ কোটি ৭৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকার শেয়ার হাতবদল হয়।

অর্থবছরের প্রথম দিন বছরের যতগুলো শেয়ারের দাম বেড়েছে, কমেছে তার প্রায় দ্বিগুণ। ১২০টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে হ্রাস পেয়েছে ২১৯টির। আগের দামেই লেনদেন হয়েছে ৪৩টি কোম্পানির শেয়ার।

অর্থবছরের প্রথম দিন স্বস্তি দিল না পুঁজিবাজারে
নতুন অর্থবছরের প্রথম কর্মদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেনের চিত্র

লেনদেনের বিষয়ে ট্রেজার সিকিউরিটিজের চিফ অপারেটিং অফিসার মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ বলেন, ‘ঈদের আগে আর চারদিন লেনদেন হবে। এই সময়ের বাজারটা কাউন্ট না করা-ই ভালো। কারণ, এখন অনেকেই নিজেদের জায়গায় অনড় থাকবেন। যারা মার্জিন লোন নিয়ে ট্রেড করেন, তারা এই অল্প কয়েকদিনের জন্য সুদ টানতে চাইবেন না। সুতরাং ঈদের পরে যে বাজারটা দাঁড়াবে, সেটা দেখে আমরা বলতে পারব যে, বাজার কোন দিকে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘কোম্পানিগুলোর আর্থিক প্রতিবেদন সম্পর্কে খবর পাওয়া যাচ্ছে। সেগুলো ধীরে ধীরে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করবে। বিনিয়োগকারীদের নজর থাকবে তাতে। সুতরাং ঈদের পরে বোঝা যাবে আসল পরিস্থিতি, এখনই বাজারকে কোনোভাবে মূল্যায়ন করা ঠিক হবে না।’

দর বৃদ্ধির শীর্ষ ১০

বুধবার গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে বিটিআরসির নিষেধাজ্ঞার পর গ্রামীণফোনের দর পতনের বিপরীতে শেয়ার দর বাড়তে শুরু করে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের। বৃহস্পতিবারের পর আজও দর বেড়েছে ৩ টাকা বা ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ।

শেয়ারটি সর্বশেষ ৩৩ টাকা ১০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। ৪ হাজার ৭২১ বারে মোট ৫৮ লাখ ২০৩টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

তালিকার দ্বিতীয় স্থানে থাকা মেঘনা ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের দর লাগামহীন ঘোড়ার মতো ছুটছে। নতুন তালিকাভুক্ত মেঘনা কোম্পানিটি ৮ জুন লেনদেন শুরুর পর থেকে প্রতিদিনই দিনের সর্বোচ্চ সীমা বা এর কাছাকাছি দর বেড়েছে শেয়ারটির। আজ ৯ দশমিক ৯৩ শতাংশ দর বেড়ে সর্বশেষ ৫৪ টাকা ২০ পয়সায় প্রতিটি শেয়ার লেনদেন হয়।

এর পরেই দর বেড়েছে লোকসানি শ্যামপুর সুগারমিলসের। তালিকাভুক্তির প্রতি বছরই বড় অংকের লোকসান গুনছে কোম্পানিটি। ফলে লভ্যাংশের মুখ দেখেননি বিনিয়োগকারীরা।

৯ দশমিক ৯০ শতাংশ দর বেড়ে ক্লোজিং প্রাইস দাঁড়িয়েছে ১০৮ টাকা ৭০ পয়সা।

দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে জায়গা করে নিয়েছে যথাক্রমে বিডি থাই অ্যালুমিনিয়াম, জিলবাংলা সুগার মিল, ইন্ট্রাকো রি-ফুয়েলিং স্টেশন, বিডি ওয়েল্ডিং, একমি পেস্টিসাইডস, আইপিডিসি ফাইন্যান্স এবং লোকসানি দুলামিয়া কটন।

দর পতনের শীর্ষ ১০

দরপতনের শীর্ষে রয়েছে ফু-ওয়াং ফুড লিমিটেড। শেয়ারটির দর ৫০ পয়সা বা ২ শতাংশ কমে সর্বশেষ ২৪ টাকা ৫০ পয়সা দরে লেনদেন হয়।

১ হাজার ৯৬৪ বারে কোম্পানিটির ৫৮ লাখ ৬৭ হাজার ৭৭৮টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে, যার বাজার মূল্য ১৪ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

পেপার প্রসেসিং অ্যান্ড প্যাকেজিং লুজার তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। শেয়ারটির দর ৩ টাকা ৬০ পয়সা বা ১ দশমিক ৯৯ শতাংশ কমেছে। শেয়ারটি সর্বশেষ ১৭৭ টাকা ৪০ পয়সা দরে লেনদেন হয়।

তৃতীয় সর্বোচ্চ দর হারিয়েছে অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ। দর ৫০ পয়সা বা ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ কমে সর্বশেষ ২৪ টাকা ৭০ পয়সা লেনদেন হয়।

লুজার তালিকায় থাকা কোম্পানিগুলো হচ্ছে- প্রাইম ব্যাংক, প্রাইম ইন্স্যুরেন্স, তমিজউদ্দিন টেক্সটাইল, গ্রামীণফোন, আইসিবি, ন্যাশনাল টি ও প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড।

বুধবার গ্রামীণফোনের সিম বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। পরের দুই দিনই কোম্পানিটির দর কমল সর্বোচ্চ।

সূচক কমাল যারা

সবচেয়ে বেশি ১৯ দশমিক ১০ পয়েন্ট সূচক কমেছে গ্রামীণফোনের কারণে। কোম্পানিটির দর কমেছে ১ দশমিক ৯৭ শতাংশ। আগের দিনেও কাছাকাছি পয়েন্ট সূচক কমেছিল গ্রামীণফোনের দর পতনে।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১০ দশমিক ৭৮ পয়েন্ট কমিয়েছে ওয়ালটন হাইটেকের কারণে। কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে ১ দশমিক ৩৩ শতাংশ।

এর পরেই রেনাটার দর ১ দশমিক ৩২ শতাংশ দর কমার কারণে সূচক কমেছে ৪ দশমিক ৬৩ পয়েন্ট।

এছাড়া আইসিবি, স্কয়ার ফার্মা, ব্র্যাক ব্যাংক, ব্রিটিশ আমেরিকার টোব্যাকো, তিতাস গ্যাস, ইসলামী ব্যাংক ও ডাচ্ বাংলা ব্যাংকের দরপতনে সূচক কমেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০ কোম্পানি কমিয়েছে ৫২ দশমিক ২২ পয়েন্ট।

বিপরীতে সবচেয়ে বেশি ৩৮ দশমিক ৩২ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে রবি। এদিন কোম্পানিটির দর ৯ দশমিক ৯৭ শতাংশ বেড়েছে। বৃহস্পতিবারেও সর্বোচ্চ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছিল কোম্পানিটি।

সূচকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পয়েন্ট যোগ করেছে লাফার্জ হোলসিম বাংলাদেশ। দর ১ দশমিক ৯ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে ৩ দশমিক ৬৮ পয়েন্ট।

বেক্সিমকো লিমিটেড সূচকে যোগ করেছে ৩ দশমিক ২১ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে ১ দশমিক ১৬ শতাংশ।

এ ছাড়া আইপিডিসি, বার্জার পেইন্টস, বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস, ইউনাইটেড পাওয়ার, সোনালী পেপার, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ ও সাইফ পাওয়ার সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ৫৮ দশমিক ৯৪ পয়েন্ট।

আরও পড়ুন:
হঠাৎ ক্রয়চাপে উত্থান
ইটিএফ চালু নিয়ে ডন গ্লোবাল-বিএসইসি বৈঠক
ফের পতনে লেনদেন তলানিতে, দুর্বল কোম্পানির ‘সুদিন’
মন্দা পুঁজিবাজারে দুর্বল কোম্পানির দাপট
সিএসই-৩০ সূচকে নতুন ৮ কোম্পানি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Bangladesh Bank will stand by the development of capital market Governor

পুঁজিবাজারের উন্নয়নে পাশে থাকবে বাংলাদেশ ব্যাংক: গভর্নর

পুঁজিবাজারের উন্নয়নে পাশে থাকবে বাংলাদেশ ব্যাংক: গভর্নর আগামী অর্থবছরের জন্য মুদ্রানীতি ঘোষণা করছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। ছবি: নিউজবাংলা
প্রায় এক বছর ধরে পুঁজিবাজার নিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সঙ্গে নানা বিষয়ে মতভেদের কারণে বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। বাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগের সীমা বা এক্সপোজার লিমিট গণনার পদ্ধতিই নয় কেবল, আরও নানা বিষয়ে দুই পক্ষের চিন্তা ভিন্ন। পুঁজিবাজার নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রক্ষণশীল মনোভাবের জন্য যে কর্মকর্তাকে দায়ী করা হয়, তাকে ১৯ বছর পর বদলি করায় নতুন এক ধরনের সমীকরণ অবশ্য তৈরি হয়েছে।

পুঁজিবাজারকে আর্থিক খাতের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অংশ উল্লেখ করে বাজারের সার্বিক স্থিতিশীলতা এবং দীর্ঘমেয়াদি উন্নয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক সচেষ্ট থাকবে বলে আগামী অর্থবছরের জন্য ঘোষিত মুদ্রানীতিতে কথা বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ঘোষিত নিজের মেয়াদের শেষ মুদ্রানীতিতে এ কথা বলেন গভর্নর ফজলে কবির।

প্রায় এক বছর ধরে পুঁজিবাজার নিয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির সঙ্গে নানা বিষয়ে মতভেদের কারণে বাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। বাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগের সীমা বা এক্সপোজার লিমিট গণনার পদ্ধতিই নয় কেবল, আরও নানা বিষয়ে দুই পক্ষের চিন্তা ভিন্ন।

এ নিয়ে এক দফা সরাসরি এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের মধ্যস্থতায় আরও এক দফায় বৈঠক হলেও দুই পক্ষ কাছাকাছি আসেনি। আর পুঁজিবাজারে প্রভাব ফেলে এমন সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে দুই পক্ষ সমন্বয় করে কাজ করবে বলে ২০১৪ সালে সরকারের পক্ষ থেকে যে ঘোষণা দেয়া হয়, সেটি মেনে চলার ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো আগ্রহ দেখা যায়নি।

পুঁজিবাজার নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রক্ষণশীল মনোভাবের জন্য যে কর্মকর্তাকে দায়ী করা হয়, তাকে ১৯ বছর পর বদলি করায় নতুন এক ধরনের সমীকরণ অবশ্য তৈরি হয়েছে।

গভর্নর তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, ‘পুঁজিবাজারে তারল্য সরবরাহ বৃদ্ধির জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগে এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের সহায়তায় আবর্তনশীল ভিত্তিতে পুনর্বিনিয়োগযোগ্য পুঁজিবাজারে ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের সহায়তা তহবিলের আকার ১৫৩ কোটি টাকা বৃদ্ধি করে ১ হাজার ৯ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে।

‘এই তহবিল থেকে ২৮০ কোটি টাকা ছাড় করার পাশাপাশি পুঁজিবাজারে প্রতিটি ব্যাংকের বিনিয়োগের জন্য ২০০ কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠনের সুবিধার আওতায় রেপোর মাধ্যমে ২১৮ কোটি টাকা দেয়া হয়েছে, যা পুঁজিবাজারের তারল্য বাড়াতে সাহায্য করেছে।’

সংবাদ সম্মেলনে ১ জুলাই থেকে শুরু হওয়া নতুন অর্থবছরে বেসরকারি খাতে মুদ্রার সরবরাহের ক্ষেত্রে কিছুটা রক্ষণশীল নীতি ঘোষণা করা হয়।

এই এক বছরে বেসরকারি ঋণে প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ১৪ দশমিক ১ শতাংশ, যা সদ্যসমাপ্ত অর্থবছরে হবে ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ। অবশ্য লক্ষ্যমাত্রা যাই হোক না কেন, এই অর্থবছরে বেসরকারি ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৩ দশমিক ১ শতাংশ।

এই প্রবৃদ্ধি করার পেছনে কারণ হিসেবে উঠে এসেছে করোনার বিধিনিষেধের কারণে বেশ কয়েক মাস অর্থনীতির চাকা থমকে থাকা। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর ঋণ সরবরাহ অবশ্য বাড়ছে।

ঋণ সরবরাহ কিছুটা লাগামের কারণ মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ। বেসরকারি ঋণে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য কমানোর পাশাপাশি নীতি সুদহার বাড়িয়েও এই লক্ষ্য অর্জন করতে চাইছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই হারে ঋণ দিয়ে থাকে, যা ব্যাংকিং খাতে মৌলিক নীতিনির্ধারণী সুদের হার বা রেপো সুদহার হিসেবে পরিচিত।

এক সার্কুলার জারি করে বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানিয়েছে, মূল্যস্ফীতির বাড়তি চাপ সামাল দিতে বাজারে অর্থপ্রবাহ নিয়ন্ত্রণে রাখতে এখন থেকে নীতি সুদহার নির্ধারিত হবে ৫ দশমিক ৫০ শতাংশ।

এর আগে গত ২৯ মে এই সুদহার ৪ দশমিক ৭৫ শতাংশ থেকে ২৫ বেসিস পয়েন্ট বৃদ্ধি করে ৫ শতাংশ করা হয়েছিল।

আরও পড়ুন:
ইটিএফ চালু নিয়ে ডন গ্লোবাল-বিএসইসি বৈঠক
ফের পতনে লেনদেন তলানিতে, দুর্বল কোম্পানির ‘সুদিন’
মন্দা পুঁজিবাজারে দুর্বল কোম্পানির দাপট
সিএসই-৩০ সূচকে নতুন ৮ কোম্পানি
নিষ্ক্রিয় বিনিয়োগকারীরা, লেনদেন তলানিতে

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Satvik Ahmed is the new CFO of DSE

ডিএসইর নতুন সিএফও সাত্বিক আহমেদ

ডিএসইর নতুন সিএফও সাত্বিক আহমেদ
স্কয়ার টেক্সটাইল লিমিটেডে ফাইন্যান্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস ডিপার্টমেন্টের নির্বাহী হিসেবে ২০০১ সালে কর্মজীবন শুরু সাত্বিকের। ২২ বছরের বেশি সময় ধরে দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য ও নেতৃস্থানীয় প্রতিষ্ঠানে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (সিএফও) হিসেবে বৃহস্পতিবার যোগদান করেছেন সাত্বিক আহমেদ শাহ। ডিএসইর উপ-মহাব্যবস্থাপক শফিকুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে যোগদানের আগে সাত্বিক আহমেদ এস আলম গ্রুগের মালিকানাধীন একুশে টেলিভিশনে অতিরিক্ত প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (অ্যাডিশনাল সিএফও) ছিলেন।

স্কয়ার টেক্সটাইল লিমিটেডে ফাইন্যান্স অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস ডিপার্টমেন্টের নির্বাহী হিসেবে ২০০১ সালে কর্মজীবন শুরু সাত্বিকের। ২২ বছরের বেশি সময় ধরে দেশের বিভিন্ন স্বনামধন্য ও নেতৃস্থানীয় প্রতিষ্ঠানে দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন।

তিনি কনকর্ড গ্রুপ অব কোম্পানিজের হেড অব গ্রুপ অডিট এবং ইন্টারনাল কন্ট্রোলের মহাব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। জেমকন গ্রুপ, বেঙ্গল গ্রুপ, অপসোনিন ফার্মা এবং স্কয়ার গ্রুপের স্কয়ার টেক্সটাইলেও বিভিন্ন পদে ছিলেন।

সাত্বিক আহমেদ শাহ হিসাববিজ্ঞানে বিকম ও এমকম পাস করেন। ফাইন্যান্সে এমবিএ ও চার্টার্ড অ্যাকাউনটেন্সি (সিসি) পাস করেন।

এ ছাড়া তিনি লন্ডনের ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্ট্রার অফ সার্টিফিকেটেড অডিটরস থেকে লিড অডিটর আইএসও এবং যুক্তরাষ্ট্রের ইনফরমেশন সিস্টেমস অডিট অ্যান্ড কন্ট্রোল অ্যাসোসিয়েশন থেকে সার্টিফায়েড ইনফরমেশন সিস্টেম অডিটর-সিআইএসএ এবং ফাইন্যান্স ও অডিট সার্ভিসেস সেক্টরে কোর্স করেন।

আরও পড়ুন:
সুযোগ-সুবিধা কমানোর গুঞ্জনে ডিএসই এমডি অবরুদ্ধ
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে আসেনি: রকিবুর
ব্যাংক বিমায় আগ্রহের দিনে ওয়েবসাইটে ৩৫ মিনিট জটিলতা
ডিএসইর লেনদেন চলবে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত
১ ঘণ্টা ২০ মিনিট পর ডিএসইতে স্বাভাবিক লেনদেন

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Last minute surprises in a year of frustration in the capital markets

পুঁজিবাজারে হতাশার বছরে শেষ মুহূর্তের চমক

পুঁজিবাজারে হতাশার বছরে শেষ মুহূর্তের চমক
এক বছর আগে আজকের দিনে পুঁজিবাজারের সূচক ছিল ৬ হাজার ১৫০ পয়েন্ট। সেই হিসাবে এক বছরে বেড়েছে ২২৬ পয়েন্ট। তবে কেবল বছর শেষের দুইটি দিন বিবেচনা করলে চলবে না। এই অর্থবছরের শুরুতে পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারীদের যে স্বপ্ন দেখিয়েছিল, সেটি পূরণ করতে পারেনি। বরং ব্যাপকভাবে হতাশ ও ক্ষতিগ্রস্ত করেছে হাজারো বিনিয়োগকারীকে।

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের শেষ দিন পুঁজিবাজারে দিনভর সূচকের অবস্থান ও লেনদেনের গতি ধরে রাখার লড়াইয়ের মধ্যে শেষ ১৫ মিনিটে দেখা গেল চমক।

দিনভর সূচক ওঠানামা করতে থাকে। লেনদেনের অবস্থান ধরে রাখতে পারে কি না, এ বিষয়টি নিয়েও ছিল দৃষ্টি। তবে বেলা ২টা ১৬ মিনিটের পর শেষ ১৪ মিনিটে হঠাৎ লাফ দিয়ে উঠে যায় সূচক। এ সময়ে লেনদেনও হয় ২০০ কোটি টাকার বেশি।

বৃহস্পতিবার চলতি সপ্তাহ অর্থবছরের শেষ কর্মদিবসে বেলা ২টা ১৬ মিনিট সূচক ছিল আগের দিনের চেয়ে ৫ পয়েন্ট বেশি। এটি যেকোনো সময় আগের দিনের অবস্থানের নিচেও নেমে যেতে পারত, আবার উঠেও যেতে পারত। কিন্তু এর পরের ১৪ মিনিট তা দ্রুত ওপরের দিকে উঠতে থাকে।

১৩ মিনিটে সূচক বেড়ে যায় ৩২ পয়েন্ট। তখন আগের দিনের তুলনায় সূচকে যোগ হয় ৩৭ পয়েন্ট। তবে একেবারে শেষ মুহূর্তের সমন্বয়ে সেখান থেকে কিছুটা কমে ২৬ পয়েন্ট যোগ হয়ে শেষ হয় লেনদেন। শেষ পর্যন্ত সূচকের অবস্থান দাঁড়ায় ৬ হাজার ৩৭৬ পয়েন্ট।

এ নিয়ে টানা চার দিন সূচক বাড়ল। এক দিন বাদে লেনদেনও প্রতিদিনেই ছাড়িয়ে গেছে আগের দিনকে।

বেলা শেষে ৯৩৭ কোটি ৭৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকার শেয়ার হাতবদল হয়, যা গত ১৬ জুনের পর সর্বোচ্চ। সেদিন লেনদেন ছিল ১ হাজার ৪৬ কোটি ৬৩ লাখ ২২ হাজার টাকা।

দিনভর লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ১৯৫টির, কমেছে ১৩৬টির এবং অপরিবর্তিত দামে লেনদেন হয়েছে ৫০টি কোম্পানির শেয়ার।

পুঁজিবাজারে হতাশার বছরে শেষ মুহূর্তের চমক
বৃহস্পতিবার পুঁজিবাজারের সূচক বাড়ে একেবারে শেষ ১৪ মিনিটের উত্থানে

এক বছর আগে আজকের দিনে পুঁজিবাজারের সূচক ছিল ৬ হাজার ১৫০ পয়েন্ট। সেই হিসাবে এক বছরে বেড়েছে ২২৬ পয়েন্ট।

তবে কেবল বছর শেষের দুইটি দিন বিবেচনা করলে চলবে না। এই অর্থবছরের শুরুতে পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারীদের যে স্বপ্ন দেখিয়েছিল, সেটি পূরণ করতে পারেনি। বরং ব্যাপকভাবে হতাশ ও ক্ষতিগ্রস্ত করেছে হাজারো বিনিয়োগকারীকে।

এই অর্থবছরে জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ পর্যন্ত পরিস্থিতি ছিল ঝলমলে। মৌলভিত্তির কোম্পানির শেয়ারদর বাড়তে থাকে, বাড়ে জাংক শেয়ার বলে পরিচিত স্বল্প মূলধনি বা দুর্বল কোম্পানির দরও। একপর্যায়ে এক যুগের মধ্যে সর্বোচ্চ সূচক ও লেনদেন হয়।

লেনদেন ৩ হাজার কোটি টাকা ও সূচক ৭ হাজার ৩০০ পয়েন্ট ছাড়িয়ে যাওয়ার পর ২০১০ সালের মহাধসের ক্ষতি কাটিয়ে সূচক আবার ১০ হাজার ছুঁবে-এমন আশার কথা বলাবলি হতে থাকে।

তবে সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে শুরু হওয়া সংশোধন বজায় থাকে ডিসেম্বর পর্যন্ত। এই সময়ে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি ও আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে নানা বিষয়ে মতভেদের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। এর প্রভাব পড়ে পুঁজিবাজারে।

এই মতভেদ দূর করতে অর্থ মন্ত্রণালয় বৈঠক করলেও পরের ঘোষিত বৈঠক আর হয়নি। এর মধ্যে ফেব্রুয়ারির চতুর্থ সপ্তাহে ইউক্রেনে রুশ হামলা শুরুর পর নামে ধস। এরপর শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মনস্তাত্ত্বিক প্রভাবের মধ্যে ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে বৈশ্বিক অর্থনৈতিক টানাপড়েনে পুঁজিবাজারের বিনিয়োগকারীদের পুঁজিতেও টান পড়তে থাকে।

লেনদেন একপর্যায়ে ৪০০ কোটির নিচে নেমে আসে। তবে মে মাসের শেষ দিক থেকেই ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা শুরু হয়। এই সময়ে লেনদেন কিছুটা বাড়লেও মূল্যসূচকের উন্নতি হয়নি।

বরং জুনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ বা ডিএসইর প্রধান সূচক কমেছে ৫৬ পয়েন্ট।

বাজারসংশ্লিষ্টরা বলছেন, তবে অর্থবছর শেষ হতে যাচ্ছে, অনেক কোম্পানি তাদের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করবে; যা দেখে বিনিয়োগকারীরা নতুন বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নেবেন। এই সময়টায় নতুন বিনিয়োগ আসে বাজারে।

ট্রেজার সিকিউরিটিজের চিফ অপারেটিং অফিসার মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জুনের শেষ, অর্থবছর শেষ হবে। নতুন অর্থবছরে নতুন পরিকল্পনায় বিনিয়োগ করবেন বিনিয়োগকারীরা। যার কারণে এই সময়ে লেনদেন কিছুটা বাড়ে। কয়েক দিন পর এটা আরও বাড়বে বলে মনে করছি।’

ব্যাংক-বিমার ভালো দিন

সবচেয়ে ভালো দিন পার করেছেন ব্যাংক ও সাধারণ বিমা খাতের বিনিয়োগকারীরা। খাতভিত্তিক লেনদেনের ষষ্ঠ অবস্থানে থাকলেও দর বৃদ্ধির ক্ষেত্রে শীর্ষে ছিল ব্যাংক।

তালিকাভুক্ত ৩৩টি ব্যাংকের মধ্যে ২৫টি বা ৭৫ শতাংশের বেশি কোম্পানির দর বেড়েছে। এ ছাড়াও আগের দামেই লেনদেন হয়েছে ৫টি কোম্পানির শেয়ার। বিপরীতে মাত্র ১০ পয়সা করে দর কমেছে ৩টি ব্যাংকের। টাকার অংকে লেনদেন হয়েছে ৫৯ কোটি ৬১ লাখ।

সাধারণ বিমা খাতের ২৫টি বা ৭০ শতাংশের কাছাকাছি কোম্পানির দর বেড়ে লেনদেন হয়েছে। অপরিবর্তিত ছিল ৩টির দর। বিপরীতে কমেছে ১৩টি বা ৩১ শতাংশের দর। খাতটিতে লেনদেন হয়েছে ৩৩ কোটি ১০ লাখ টাকার মতো।

ভালো দর বৃদ্ধি দেখা গেছে জীবন বিমাতেও। ৯টি বা ৭০ শতাংশ কোম্পানির দর বৃদ্ধি দেখা গেছে। যদিও লেনদেন হয়েছে মাত্র ১২ কোটি টাকা।

১০৭ কোটির বেশি লেনদেন করে তালিকার তৃতীয় স্থানে থাকা প্রকৌশল খাতের ২৬টি বা ৬১ শতাংশ কোম্পানির দর বৃদ্ধি দেখা গেছে। বিপরীতে কমেছে ৩০ শতাংশ কোম্পানির দর।

সুবিধা করতে পারেনি বাকি খাতের বিনিয়োগকারীরা। লেনদেনের শীর্ষে থাকা বস্ত্র খাতে ৪৮ শতাংশ দর বৃদ্ধির বিপরীতে ৩৬ শতাংশ কোম্পানির দরপতন হয়েছে।

সর্বোচ্চ ১৩৮ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে।

এছাড়া লেনদেনের শীর্ষ পাঁচের বাকি খাতের মধ্যে ওষুধ ও রসায়নে ৩৫ শতাংশ, বিবিধ ২৮ শতাংশ ও জ্বালানি খাতে ৫৬ শতাংশ কোম্পানির দর বৃদ্ধি দেখা গেছে।

দর বৃদ্ধির শীর্ষ ১০

লাগামহীন ঘোড়ার মতো ছুটছে নতুন তালিকাভুক্ত মেঘনা ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের দর। ৮ জুন লেনদেন শুরুর পর থেকে প্রতিদিনই দিনের সর্বোচ্চ সীমা বা এর কাছাকাছি দর বেড়েছে শেয়ারটির।

আজ ৪ টাকা ৪০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৮০ শতাংশ দর বেড়ে শেয়ারটি সর্বশেষ ৪৯ টাকা ৩০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। ৭ হাজার ১৮৩ বারে ২ লাখ ২৪ হাজার ৯৪০টি শেয়ার ওই দামে বেচাকেনা হয়েছে।

দর বৃদ্ধির দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ইন্ট্রাকো রি-ফুয়েলিং স্টেশন লিমিটেড। দুই বছর ধরে মুনাফা কমছে কোম্পানিটির। ২০১৮ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির বছর থেকেই বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দিয়ে আসছে কোম্পানিটি। তবে মুনাফা কমে যাওয়া ২০২১ সালে নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে ২ শতাংশ বা ২০ পয়সা।

টানা তিন কর্মদিবস দর বাড়ল কোম্পানির শেয়ারের। বৃহস্পতিবার শেয়ার দর ২ টাকা ২০ পয়সা বা ৯ দশমিক ৬৫ শতাংশ বেড়ে সর্বশেষ ২৫ টাকায় লেনদেন হয়।

এর পরেই দর বেড়েছে নাভানা সিএনজি লিমিটেডের। কোম্পানিটির দর ২ টাকা ৬০ পয়সা বা ৯ দশমিক ১৯ শতাংশ বেড়ে লেনদেন হয়েছে ৩০ টাকা ৯০ পয়সায়।

এ ছাড়া দর বৃদ্ধির শীর্ষ দশে রয়েছে যথাক্রমে, শাইনপুকুর সিরামিকস, আফতাব অটো, ক্রাউন সিমেন্ট, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স, সোনালী পেপার, হামিদ ফেব্রিকস ও আমরা নেটওয়ার্কস।

দর পতনের শীর্ষ ১০

বুধবার গ্রামীণফোনের সিম বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয় টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। পরের দিনই কোম্পানিটির দর কমল সর্বোচ্চ।

নিষেধাজ্ঞার কারণ হিসেবে বিটিআরসি বলছে, গ্রামীণফোন কোয়ালিটি সার্ভিস দিতে পারছে না। যদিও কোম্পানিটি দাবি করেছে, তাদের সেবা বিশ্বমানের চেয়ে এগিয়ে।

তবে গ্রামীণফোনের দর পতন শুরু হয়েছে গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে। ১২ সেপ্টেম্বর ৩৮৭ টাকা ৮০ পয়সায় লেনদেন হওয়ার পরে শুরু হয় দর পতন। মাঝে কিছুটা বাড়লেও আগের দরে আর পৌঁছাতে পারেনি।

বৃহস্পতিবার শেয়ারটির দর ৬ টাকা বা ২ শতাংশ কমে সর্বশেষ ২৯৪ টাকা ১০ পয়সা দরে লেনদেন হয়। এদিন এক হাজার ৩২ বারে কোম্পানিটির এক লাখ ৭৩ হাজার ২৬২টি শেয়ার হাতবদল হয়েছে, যার বাজার মূল্য ৫ কোটি ৯ লাখ টাকা।

এর পরেই দর পতন হয়েছে লোকসানি জুট স্পিনার্সের। ২ টাকা ৯০ পয়সা বা ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ কমে সর্বশেষ ১৪৩ টাকা ৭০ পয়সা দরে লেনদেন হয়েছে প্রতিটি শেয়ার।

১৯৮৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়া কোম্পানিটি বছরের পর বছর লোকসান দেখাচ্ছে। ফলে বিনিয়োগকারীরা কোনো দিন লভ্যাংশ পায়নি।

পতনের তালিকায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে লোকসানি সাভার রিফ্যাক্টরিজ। গত তিন বছর ধরে কোম্পানিটি লোকসান দেখাচ্ছে। বৃহস্পতিবার শেয়ার দর ৪ টাকা ৭০ পয়সা বা ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ কমে সর্বশেষ দাঁড়ায় ২৩৩ টাকা ২০ পয়সা।

দর পতনের শীর্ষ দশে জায়গা করে নিয়েছে বিডি মনোস্পুল পেপার, গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল, পেপার প্রসেসিং, অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ, এসকে ট্রিমস, নাহি অ্যালুমিনিয়াম কম্পোজিট প্যানেল ও সিএপিএম বিডিবিএল মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

সূচক বাড়াল যারা

সবচেয়ে বেশি ১১ দশমিক ০৯ পয়েন্ট সূচক বাড়িয়েছে রবি। এদিন কোম্পানিটির দর ৫ দশমিক ২৪ শতাংশ দর বেড়েছে।

আগের দিনের মতো দর বাড়ায় সূচকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পয়েন্ট যোগ করেছে আইসিবি। দর ৩ দশমিক ৮৯ শতাংশ বাড়ায় সূচক বেড়েছে ৪ দশমিক ৩২ পয়েন্ট।

তিতাস গ্যাস সূচকে যোগ করেছে ১ দশমিক ৬৮ পয়েন্ট। কোম্পানির দর বেড়েছে ২ দশমিক ৮৮ শতাংশ।

এ ছাড়া প্রাইম ব্যাংক, ব্যাংক এশিয়া, পূবালী ব্যাংক, সোনালী পেপার, বাংলাদেশ স্টিল রি-রোলিং মিল, আইএফআইসি ব্যাংক ও ক্রাউন সিমেন্ট সূচকে পয়েন্ট যোগ করেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০টি কোম্পানি সূচক বাড়িয়েছে ২৫ দশমিক ৩২ পয়েন্ট।

বিপরীতে সবচেয়ে বেশি ১১ দশমিক ৪৪ পয়েন্ট সূচক কমেছে গ্রামীণফোনের কারণে। কোম্পানিটির দর কমেছে ২ শতাংশ। আগের দিনেও কাছাকাছি পয়েন্ট সূচক কমেছিল গ্রামীণফোনের দরপতনে।

দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১ দশমিক ৭৩ পয়েন্ট কমিয়েছে বেক্সিমকো লিমিটেড। কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে ১ দশমিক ০৭ শতাংশ।

এর পরেই ইউনাইটেড পাওয়ারের দর শূন্য দশমিক ৮৪ শতাংশ দর কমার কারণে সূচক কমেছে ১ দশমিক ৭২ পয়েন্ট।

এ ছাড়া স্কয়ার ফার্মা, ওয়ালটন হাইটেক, বেক্সিমকো ফার্মা, বেক্সিমকো গ্রীণ সুকুক বন্ড, বিকন ফার্মা, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও ব্র্যাক ব্যাংকের দরপতনে সূচক কিছুটা কমেছে।

সব মিলিয়ে এই ১০ কোম্পানি কমিয়েছে ১৯ দশমিক ৯৫ পয়েন্ট।

আরও পড়ুন:
ফের পতনে লেনদেন তলানিতে, দুর্বল কোম্পানির ‘সুদিন’
মন্দা পুঁজিবাজারে দুর্বল কোম্পানির দাপট
সিএসই-৩০ সূচকে নতুন ৮ কোম্পানি
নিষ্ক্রিয় বিনিয়োগকারীরা, লেনদেন তলানিতে
পুঁজিবাজারে দরপতনের ‘তিনে তিন’

মন্তব্য

p
উপরে