× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
Why the price of eggs has risen worldwide
hear-news
player
google_news print-icon

বিশ্বজুড়ে ডিমের দাম বাড়ল কেন

বিশ্বজুড়ে-ডিমের-দাম-বাড়ল-কেন
প্রতীকী ছবি
দাম বৃদ্ধির সবচেয়ে বড় প্রভাব পড়েছে প্রোটিনের তুলনামূলক অনেক দামি উৎস মাংসের তুলনায় কম মূল্যের ডিমের ওপর নির্ভরশীল ভোক্তাদের ওপর।

ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানের পর থেকে বিশ্বজুড়ে বেড়েছে জ্বালানি তেলসহ বিভিন্ন পণ্যের দাম। যুদ্ধে সরবরাহ ব্যবস্থায় ব্যাঘাত ঘটা কিংবা জোগান কমে যাওয়ার শঙ্কায় রোধ করা যায়নি অনেক পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি। ডিমের ক্ষেত্রেও তেমনটি ঘটেছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের বরাত দিয়ে কাঠমান্ডু পোস্টের প্রতিবেদনে ডিমের মূল্যবৃদ্ধির দুটি কারণ উল্লেখ করা হয়।

এতে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সে ব্লার্ড ফ্লুর মারাত্মক প্রাদুর্ভাবে ডিমের বৈশ্বিক সরবরাহ ব্যবস্থায় টান পড়েছে। একই সঙ্গে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধে ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যে পণ্যটির চালান ব্যাহত হয়েছে।

এ দুই কারণের বাইরে খ্রিষ্টানদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান ইস্টার সানডে এবং ইহুদিদের পাসওভারকে সামনে রেখে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপজুড়ে ডিমের চাহিদা বেড়েছে, যা প্রভাব ফেলেছে দামের ওপর।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, দাম বৃদ্ধির সবচেয়ে বড় প্রভাব পড়েছে প্রোটিনের তুলনামূলক অনেক দামি উৎস মাংসের তুলনায় কম মূল্যের ডিমের ওপর নির্ভরশীল ভোক্তাদের ওপর

ব্লার্ড ফ্লুর মারাত্মক সংক্রমণ

যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ও অঙ্গরাজ্য সরকারগুলোর ডাটা বিশ্লেষণ করে রয়টার্স দেখেছে, দেশটির বাণিজ্যিক খামারগুলোতে বার্ড ফ্লুর বলি হয়েছে ১ কোটি ৯০ লাখের বেশি ডিমপাড়া মুরগি। ভাইরাসের এ প্রাদুর্ভাব ২০১৫ সালের পর সবচেয়ে মারাত্মক।

এদিকে সর্বকালের সবচেয়ে মারাত্মক বার্ড ফ্লুর প্রাদুর্ভাব দেখছে ফ্রান্স। ভাইরাসটির সংক্রমণ রোধে দেশটিতে প্রায় ৮ শতাংশ ডিমপাড়া মুরগি নিধন করা হয়েছে।

ব্লার্ড ফ্লু প্রায়ই ছড়ায় বন্যপাখির মাধ্যমে। কোনো দেশে ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দিলে সংক্রমণ রোধে একটি খামারের সব মুরগি কিংবা হাঁসের মতো প্রাণী হত্যা করা হয়।

যুক্তরাষ্ট্র-ফ্রান্সে দাম কেমন বেড়েছে

যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বেশি ডিম উৎপাদনকারী অঙ্গরাজ্য আইওয়ায় বার্ড ফ্লুর মারাত্মক প্রভাব পড়েছে। অঙ্গরাজ্যটিতে ১ কোটির বেশি ডিমপাড়া মুরগি নিধন করা হয়েছে। অন্যদিকে নেব্রাস্কায় ১৭ লাখের বেশি ডিমপাড়া মুরগি নিধন করা হবে।

সংক্রমণ রোধে ডিমপাড়া মুরগি নিধনের প্রভাব পড়েছে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে। দেশটির মধ্যপশ্চিমাঞ্চলীয় অঙ্গরাজ্যগুলোতে মার্চে এক ডজন বড় ডিমের দাম পাইকারিতে ৩ ডলার ছাড়ায়। ওই অঞ্চলগুলোতে পণ্যটির দাম এক বছর আগের একই সময়ের চেয়ে প্রায় ২০০ শতাংশ বেড়ে যায়।

ফ্রান্সে পাইকারিতে ডিমের দাম গত বছরের তুলনায় বেড়েছে ৬৯ শতাংশ। এর প্রভাব ডিম দিয়ে বানানো অন্য পণ্যগুলোর ওপরও পড়ছে।

বাংলাদেশের ওপর মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব কি আছে

বাংলাদেশ ২০১৯-২০ অর্থবছরেই ডিমে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করে। সে সময়ে দেশের মানুষের পুষ্টি ও খাদ্য চাহিদা মেটাতে ডিমের প্রয়োজন ছিল ১ হাজার ৭৩২ কোটি ৬৪ লাখ পিস। ওই অর্থবছরে উৎপাদন হয়েছিল ১ হাজার ৭৩৬ কোটি ৪৩ লাখ পিস।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের ২০২২ সালের ফেব্রুয়ারির মাসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে ডিম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২ হাজার ২৬৬ কোটি ৪৪ লাখ পিস। ফেব্রুয়ারিতে ডিমের উৎপাদন হয়েছে ২০৬ কোটি ৯৮ লাখ পিস।

দেশে ডিম আমদানিতে কড়াকড়ি রয়েছে। এরপরও মাঝে মাঝে কিছু প্রতিষ্ঠান ডিম আমদানি করে থাকে।

বিশ্ববাজারে ডিমের মূল্যবৃদ্ধির খবরের মধ্যে রাজধানীতে পণ্যটির দাম কমার খবর পাওয়া গেছে। মগবাজারে এক সপ্তাহের ব্যবধানে ডিমের দাম কমেছে।

ওই এলাকায় গত সপ্তাহে এক ডজন ডিমের দাম ছিল ১১৫ টাকা। বর্তমানে সেটি ১০০ থেকে ১০৫ টাকার মধ্যে ওঠানামা করছে।

আরও পড়ুন:
ফোন দিলে বিনা মূল্যে ডিম
মুরগির ডিম ফোটানোর ডিজিটাল মেশিন তৈরি করলেন রাশেদ
ডিমের খাবারে নাজিম মামার দিনে আয় ২৫ হাজার
‘শয়তানের ডিম’ খাওয়ার দিন আজ
মুরগি-ডিমের দাম বৃদ্ধির যত কারণ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
The price of lotus palm oil rose and sugar

কমল পাম তেলের দাম, বাড়ল চিনির

কমল পাম তেলের দাম, বাড়ল চিনির পাম তেল ও চিনি। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
এখন থেকে পাম সুপার এক লিটার ১২৫ টাকা দরে বিক্রি হবে। আগে নির্ধারিত দাম ছিল ১৩৩ টাকা। সে হিসাবে দাম কমেছে আট টাকা। নতুন দর অনুযায়ী, খোলা চিনি প্রতি কেজি ৯০ টাকায় বিক্রি হবে, আগে যা ছিল কেজিতে ৮৪ টাকা। আর প্যাকেট চিনি ৯৫ টাকা দরে বিক্রি হবে, আগে যেটা ছিল ৮৯ টাকা।

চিনি ও পাম তেলের দাম পুনর্নির্ধারণ করেছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

এখন থেকে পাম সুপার এক লিটার ১২৫ টাকা দরে বিক্রি হবে। আগে নির্ধারিত দাম ছিল ১৩৩ টাকা। সে হিসাবে দাম কমেছে আট টাকা।

পাম তেলের দাম কমানো হলেও খোলা ও প্যাকটজাত চিনির দাম বাড়ানো হয়েছে।

নতুন দর অনুযায়ী, খোলা চিনি প্রতি কেজি ৯০ টাকায় বিক্রি হবে, আগে যা ছিল কেজিতে ৮৪ টাকা। আর প্যাকেট চিনি ৯৫ টাকা দরে বিক্রি হবে, আগে যেটা ছিল ৮৯ টাকা।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভায় চিনি ও পাম সুপারের দাম পুনর্নির্ধারণ করা হয়। বর্তমান বাজারদর এটিই।

এর আগে ২২ সেপ্টেম্বর নিত্যপণ্যের মধ্যে ৯টির দাম নির্ধারণ করে দেয়ার যে উদ্যোগ সরকার নিয়েছে, তার মধ্যে প্রথম চিনি ও পাম তেলের দাম নির্ধারণ করে দেয়া হয়।

ওই সময় পাম তেলের দাম নির্ধারণ হয় ১৩৩ টাকা লিটার, আগে যা ছিল ১৪৫ টাকা। অর্থাৎ কমানো হয় ১২ টাকা।

অন্যদিকে প্যাকেটজাত চিনির সর্বোচ্চ দর ঠিক করা হয় ৮৯ টাকা আর খোলা চিনি প্রতি কেজি নির্ধারণ হয় ৮৪ টাকা।

এর আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে পাম তেলের দাম লিটারে ১২ টাকা কমানোর সুযোগ আছে বলে সুপারিশ করে বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন। চিনির দামও কমিয়ে আনার পরামর্শ দেয় এই প্রতিষ্ঠান।

ট্যারিফ কমিশন থেকে দেয়া সুপারিশে বলা হয়, বিশ্ববাজারে সয়াবিন তেলের দামে তেমন প্রভাব পড়েনি, কিন্তু কমেছে পাম তেলের দাম। তাই এই তেলের দাম স্থানীয় বাজারে কমানোর সুযোগ আছে। সয়াবিন তেল যে দামে বিক্রি হচ্ছে তা যৌক্তিক। পাম তেলের দাম বর্তমানে ১৪৫ টাকা । এই তেলের দাম লিটারে অন্তত ১২ টাকা কমিয়ে ১৩৩ টাকা নির্ধারণ করা যেতে পারে।

চিনি বিষয়ে ট্যারিফ কমিশন থেকে পাঠানো সুপারিশে বলা হয়, প্রতি কেজি খোলা চিনি ভোক্তাপর্যায়ে খুচরা মূল্য ৮৪ টাকা। আর প্যাকেটজাত চিনির কেজিপ্রতি দাম হওয়া উচিত ৮৮ টাকা।

গত ৩০ আগস্ট বৈঠকে সিদ্ধান্ত ছিল, বেঁধে দেয়া হবে ৯ পণ্যের দাম। বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ভোজ্যতেল, চিনি, রড, সিমেন্ট, চাল, আটা, ময়দা, মসুর ডাল, ডিমের যৌক্তিক দাম নির্ধারণ করে দেয়া হবে।

সেই অনুযায়ী তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণও শুরু করে বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন, তবে সামনে আসে নানা বিপত্তি।

৯ পণ্যের দাম নির্ধারণ করা থেকে সরে আসছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ভোজ্যতেল, চিনি, রড ও সিমেন্টের দাম নির্ধারণ করবে এই মন্ত্রণালয়।

তথ্য-উপাত্ত না পাওয়ায় রড ও সিমেন্টের দাম নির্ধারণে আরও বেশ কয়েক দিন সময় লাগবে।

আরও পড়ুন:
ভর্তুকিতে হলেও বন্ধ চিনিকলগুলো চালুর দাবি
সাগরে বিপুল চিনি
কেরু ছাড়া সরকারি সব চিনিকল লোকসানে
দাম চড়া, দেশি চিনির দেখা মেলে না
‘জামাই আপ্যায়নের’ লাল চিনি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Oil is still being sold at the previous price

এবারও ‘আগের কেনা’ অজুহাতে কমেনি সয়াবিনের দাম

এবারও ‘আগের কেনা’ অজুহাতে কমেনি সয়াবিনের দাম বোতলজাত সয়াবিন তেল। ফাইল ছবি
আলিম স্টোরে তেল কিনতে আসা রোকেয়া খাতুন বলেন, ‘তেলের দাম কমলেও বাজারে সেটার প্রভাব পেলাম না। আগের দামেই তেল কিনতে হলো। অথচ দাম বাড়লে সঙ্গে সঙ্গে সেটার প্রভাব পড়ে।’ মুদি ব্যবসায়ী লিপন ইসলাম বলেন, ‘এগুলো সব আগের দামে কেনা সয়াবিন তেল। নতুন দামে এখনো তেল দোকানে আনা হয়নি৷ যে কারণে ১৭৮ টাকা দরে বিক্রি করলে লোকসান গুনতে হবে।’

দাম বাড়ানোর ঘোষণা এলে সঙ্গে সঙ্গে কার্যকর আর কমানোর ঘোষণা এলে ‘আগের কেনা’ বলে ব্যবসায়ীদের দাম কমাতে না চাওয়ার বিষয়টি আবার দেখা গেল।

বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১৪ টাকা কমিয়ে ১৭৮ টাকা নির্ধারণ করার ঘোষণা এলেও দেশবাসীকে এখনও বাড়তি দামেই কিনতে হচ্ছে রান্নার উপকরণটি।

মঙ্গলবার থেকে নতুন দাম কার্যকরের যে ঘোষণা তেল বিপণন কোম্পানিগুলো দিয়েছে, তার কোনো নমুনা নেই বাজারে।

প্রধানমন্ত্রীর শিল্প ও বাণিজ্য উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের সঙ্গে বৈঠকের পর তেল বাজারজাতকারী কোম্পানিগুলোর মোর্চা বাংলাদেশ ভেজিটেবল ওয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যারার্স অ্যাসোসিয়েশন বোতলজাত তেলের দাম লিটারে ১৪ টাকা আর খোলা সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ১৭ টাকা কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে জানায়, নতুন এই দাম কার্যকর হবে মঙ্গলবার থেকে।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বোতলজাত এক লিটার তেল বিক্রি করতে হবে ১৭৮ টাকায়, যা এতদিন ছিল ১৯২ টাকা। আর পাঁচ লিটার বোতলের দাম হবে ৮৮০ টাকা যা এতদিন ছিল ৯৪৫ টাকা। খোলা সয়াবিন তেলের নতুন দাম হবে ১৫৮ টাকা, যা এতদিন ছিল ১৭৫ টাকা।

কিন্তু রাজধানীর কারওয়ান বাজারসহ মিরপুরের কয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, পুরোনো দামেই বিক্রি হচ্ছে পণ্যটি।

শেওড়াপাড়ার মুদি ব্যবসায়ী লিপন ইসলাম বলেন, ‘এগুলো সব আগের দামে কেনা তেল। নতুন দামে এখনো তেল দোকানে আনা হয়নি ৷ যে কারণে ১৭৮ টাকা দরে বিক্রি করলে লোকসান গুনতে হবে।’

গত ২৩ আগস্ট যখন তেলের দাম লিটারে ৭ টাকা বাড়ানো হয়, সে সময় ব্যবসায়ীরা আগের কম দামে কেনা তেলের দাম বাড়িয়ে দেন সঙ্গে সঙ্গে।

এই চিত্র তারও আগে দেখা গেছে। এমনও দেখা গেছে দাম বাড়ানোর ঘোষণা আসার ১০ দিনেও ক্রেতারা নতুন দামে তেল কিনতে পারেননি।

শেওড়াপাড়ার আলীম স্টোরের আলিমুজ্জামান জানান, নতুন কোনো দামের নির্দেশনা তারা পাননি। এজন্য আগের দরে তেল বিক্রি করছেন।

আলিম স্টোরে তেল কিনতে আসা রোকেয়া খাতুন বলেন, ‘তেলের দাম কমলেও বাজারে সেটার প্রভাব পেলাম না। আগের দামেই তেল কিনতে হলো। অথচ দাম বাড়লে সঙ্গে সঙ্গে সেটার প্রভাব পড়ে।’

মিরপুরের ৬০-ফিট সড়কে জহির জেনারেল স্টোরের দোকানি জসিম মিয়া বলেন, ‘তেলের দাম এক লিটার ১৯২ টাকা।’

ঘোষণা তো ১৭৮ টাকা, ১৪ টাকা কেন বেশি দেব এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘নতুন দামের তেল এখনও সরবরাহ করা হয়নি। কোম্পানির প্রতিনিধি তেল দেবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন। পুরোনো তেলই বিক্রি করতে হচ্ছে। ক্রেতারা নতুন দামের তেল চাচ্ছেন, কিন্তু দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ নিয়ে ক্রেতাদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হচ্ছে।’

খুচরা বাজার তো বটেই পাইকারি বাজার কারওয়ান বাজারের চিত্রও একই। এই বাজারে তেলের ডিলার বিপ্লব কুমার সাহা বলেন, ‘পাইকারি বাজারে এখন তেল সরবরাহে ঘাটতি নেই। চাহিদামতো তেল এখন পাওয়া যাচ্ছে। তবে তেলের নতুন দাম ঘোষণার পর এখনো তেল আসেনি। সাধারণত দাম নির্ধারণের তিন-চার দিন পর নতুন দামের থেকে তেল সরবরাহ শুরু করেন মিলমালিকরা। তখন নতুন দামে তেল বিক্রি করা যাবে।’

খোলাবাজার তো বটেই এমনটি সুপার শপেও নতুন দাম কার্যকর হতে দেখা যায়নি। সেখানকার বিক্রেতারা এসব বিষয়ে কথাই বলতে চান না। একাধিক বিক্রেতা বলেছেন, তাদেরকে কোম্পানি থেকে যে মূল্য তালিকা দেয়া হয়েছে, সেই দামেই তারা বিক্রি করতে বাধ্য।

আরও পড়ুন:
সালমানের সঙ্গে বৈঠকে সয়াবিন তেলের দাম কমল ১৪ টাকা
ভোজ্যতেলে ভ্যাটমুক্ত সুবিধা আরও ৩ মাস
ঘোষণাতেই সারা, দাম কমেনি চিনি-পাম তেলের

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The price of soybean oil is Tk 14 per liter

সালমানের সঙ্গে বৈঠকে সয়াবিন তেলের দাম কমল ১৪ টাকা

সালমানের সঙ্গে বৈঠকে সয়াবিন তেলের দাম কমল ১৪ টাকা
বিশ্ববাজারে টাকা এক বছর ঊর্ধ্বগতির কারণে দেশে ভোজ্যতেলের দাম ২০২১ সাল থেকে বাড়তে থাকে লাফিয়ে লাফিয়ে। এক পর্যায়ে বোতলজাত সয়াবিন তেলের লিটার ২০৫ টাকা হয়ে যায়। তবে দুই দফায় কমিয়ে গত ২১ জুলাই তেলের লিটার ১৮৫ টাকা করা হয়। এর মধ্যে ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন দাম আরও বাড়িয়ে দেয়। গত ২৩ আগস্ট লিটারে ৭ টাকা বাড়িয়ে নতুন দাম ১৯২ টাকা করা হয়।

ভোজ্যতেল কোম্পানির মালিকদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর শিল্প ও বাণিজ্য উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের সঙ্গে বৈঠকের পর সয়াবিন তেলের দামে এলো স্বস্তির খবর। প্রতি লিটার বোতলজাত দেলের দাম ১৪ টাকা আর খোলা তেলের দাম ১৭ টাকা কমিয়ে নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে।

নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বোতলজাত এক লিটার তেল বিক্রি করে ১৭৮ টাকায়, যা এতদিন ছিল ১৯২ টাকা। আর পাঁচ লিটারের বোতলের দাম হবে ৮৮০ টাকা যা এতদিন ছিল ৯৪৫ টাকা।

খোলা সয়াবিন তেলের নতুন দাম হবে ১৫৮ টাকা, যা এতদিন ছিল ১৭৫ টাকা।

সোমবার বাংলাদেশ ভেজিটেবল ওয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যারার্স অ্যাসোসিয়েশন এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই বিষয়টি জানানো হয়। মঙ্গলবার থেকেই এই দাম কার্যকর হবে বলেও জানানো হয়েছে।

গত ২২ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় পাম অয়েলের দর লিটারে ১৩ টাকা কমিয়ে ১৩৩ টাকা ঠিক করে দেয়। তবে সয়াবিন তেল নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত সেদিন নেয়া হয়নি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর ভেজিটেবল ওয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যারার্স অ্যাসোসিয়েশনের চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, ‘আমাদের ভোজ্যতেল মালিক সমিতির সদস্যরা বর্তমানে ডলারের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি এবং এলসি খোলার জটিলতার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান এবং প্রধানমন্ত্রীর সিনিয়র সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন সিটি গুরুপের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, মেঘনা গুরুপের চেয়ারম্যান মোস্তফা কামাল এবং টি কে গুরুপের এমডি মোস্তফা হায়দার।

‘সভায় ডলারের মূল্য বৃদ্ধির বিষয়ে এবং এলসি খোলার জটিলতার বিষয়ে আলোচনা শেষে এবং ভোক্তাদের সুবিধার্থে ভোজ্যতেলের দাম ১৪ টাকা কমিয়ে পুনর্নির্ধারণ করা হয়, যা ৪ অক্টোবর থেকে কার্যকর হবে।’

বিশ্ববাজারে টাকা এক বছর ঊর্ধ্বগতির কারণে দেশে ভোজ্যতেলের দাম ২০২১ সাল থেকে বাড়তে থাকে লাফিয়ে লাফিয়ে। এক পর্যায়ে বোতলজাত সয়াবিন তেলের লিটার ২০৫ টাকা হয়ে যায়। তবে দুই দফায় কমিয়ে গত ২১ জুলাই তেলের লিটার ১৮৫ টাকা করা হয়।

এর মধ্যে ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতন দাম আরও বাড়িয়ে দেয়। গত ২৩ আগস্ট লিটারে ৭ টাকা বাড়িয়ে নতুন দাম ১৯২ টাকা করা হয়।

ডলারের বাড়তি দাম কমেনি, তবে আন্তর্জাতিক বাজারে কমে আসার পর হ্রাসকৃত দামের তেল দেশে আসার পর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় নতুন করে হিসাব কষে এই দাম ঠিক করে দিয়েছে।

গত কয়েক মাসে ডলারের দাম ৮৪ টাকা থেকে বেড়ে ১০৬ টাকা হয়ে গেছে। টাকার ২৫ শতাংশ দরপতনের কারণে আমদানি পণ্যের খবরও ২৫ শতাংশ বেড়ে গেছে।

সরকার ভোজ্যতেলের দর ভোক্তাদের কাছে আরও সহনীয় করতে ভ্যাটে ছাড় দিয়েছে।

ব্যবসায়ীদের ওপর চাপ কিছুটা কমাতে গত ১৪ মার্চ এনবিআর প্রজ্ঞাপন জারি করে সয়াবিন ও পাম অয়েলের উৎপাদন পর্যায়ে ১৫ শতাংশ এবং ব্যবসা পর্যায়ে ৫ শতাংশ ভ্যাট মওকুফ করে।

এর দুদিন পর ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে আরোপিত ১৫ শতাংশ ভ্যাট কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়। তখন এর মেয়াদ ঠিক করা হয় ৩০ জুন পর্যন্ত। পরে ৩ জুলাই আরেকটি প্রজ্ঞাপনে ভ্যাট মওকুফ সুবিধার মেয়াদ বাড়িয়ে ৩০ সেপ্টেম্বর করা হয়। যার মেয়াদ শেষ হয় গত শুক্রবার।

ভ্যাট ছাড় আরও তিন মাস অব্যাহত রাখতে গত ২০ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে এনবিআরে চিঠি দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
২ হাজার লিটার সয়াবিন তেল উদ্ধার, জরিমানা
পামঅয়েলের দাম কমল লিটারে ৩ টাকা
বাড়ানোর সিদ্ধান্তে সঙ্গে সঙ্গে, দাম কমানোর ঘোষণায় গড়িমসি
সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ৮ টাকা কমিয়ে ১৬০
বিশ্ববাজারে বৃদ্ধির সুযোগে কিছু কামানোর চেষ্টা চলছে: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The crazy horse of commodity prices has come to the bug Planning Minister

দ্রব্যমূল্যের পাগলা ঘোড়া বাগে এসেছে: পরিকল্পনামন্ত্রী 

দ্রব্যমূল্যের পাগলা ঘোড়া বাগে এসেছে: পরিকল্পনামন্ত্রী  প্রতীকী ছবি
মূল্যস্ফীতি নিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের জন্য ভালো সংবাদ আছে। দ্রব্যমূল্যের পাগলা ঘোড়া বাগে এসেছে এই মাসে। সবাই আমাদের কাছে ফোন করে জানার জন্য। গত মাসে মূল্যস্ফীতি বেড়েছিল।’

দেশে বর্তমান মূল্যস্ফীতির তথ্য না জানিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, চলতি বছরের আগস্টে মূল্যস্ফীতি অনেক বাড়লেও সেপ্টেম্বরে তা কমে এসেছে।

তিনি আরও বলেছেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

সোমবার বাংলাদেশ উন্নয়ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (বিআইডিএস) আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

মূল্যস্ফীতি নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের জন্য ভালো সংবাদ আছে। দ্রব্যমূল্যের পাগলা ঘোড়া বাগে এসেছে এই মাসে। সবাই আমাদের কাছে ফোন করে জানার জন্য। গত মাসে মূল্যস্ফীতি বেড়েছিল।

‘এই মাসে নেমেছে এবং ভালোভাবে নেমেছে। আমি যদিও অর্থনীতিবিদ নই, তবুও আমি বলছি আগামী মাসে মূল্যস্ফীতি আরও কমবে।’

মূল্যস্ফীতি কমার কারণ ব্যাখ্যা করে মন্ত্রী বলেন, ‘কেন কমেছে? কারণ আমাদের সরকারের কৌশলগত ব্যবস্থা। তেলের দাম বেড়েছিল, কিন্তু এখন কমেছে। কারণ এক কোটি কার্ড বিতরণ করা হয়েছে। সেখানে কম দমে বিক্রি হচ্ছে চাল, তেল।

‘ফলে আমরা দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সরাসরি আঘাত করতে পেরেছি। ফলে দাম কমে এসেছে। শুধু কমেনি; ভালো কমেছে। বিশ্ববাজারেও কমেছে। কয়েক দিনের মধ্যে আপনারা মূল্যস্ফীতির পুরোটা তথ্য পেয়ে যাবেন।’

সাম্প্রতিক মাসগুলোতে বড় ধরনের মূল্যস্ফীতি দেখেছে জনগণ। চলতি বছরের জুনে মূল্যস্ফীতি বেড়ে হয় ৭ দশমিক ৫৬ শতাংশ, যা ৯ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। পরের মাসে সেটি কমে হয় ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ, তবে আগস্টের তথ্য এখনও প্রকাশ করেনি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বিবিএস যে জনশুমারি ও গৃহগণনা করেছে, তার প্রাথমিক ফলের ওপর শুমারি-পরবর্তী যাচাই করবে বিআইডিএস।

আগামী ১০ থেকে ১৬ অক্টোবর সারা দেশে জনশুমারি ও গৃহগণনার পরবর্তী যাচাই (পিইসি) জরিপ হবে।

রাজধানীর আগরগাঁওয়ে বিআইডিএসের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী। গেস্ট অফ অনার ছিলেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা সচিব মামুন-আল-রশীদ, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন ও বিবিএসের মহাপরিচালক মতিউর রহমান।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিআইডিএসের মহাপরিচালক ড. বিনায়ক সেন। বক্তব্য দেন জনশুমারি ও গৃহগণনা প্রকল্পের পরিচালক দিলদার হোসেন ও পিইসি কার্যক্রমের সমন্বয়কারী ড. ইউনূস।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ট্যাবের মাধ্যমে কম্পিউটার অ্যাসিস্টেড পারসোনাল ইন্টারভিউইং (সিএপিআই) পদ্ধতিতে পিইসি করা হবে। ৯ অক্টোবর রাত ১২টা ১ মিনিটে নির্ধারিত এলাকায় থাকা সব দেশি-বিদেশি নাগরিককে গণনার আওতায় আনা হবে। এ ছাড়া ছয় মাসের কম সময়ের জন্য সাময়িকভাবে বিদেশে অবস্থান করা নির্দিষ্ট এলাকার সব বাংলাদেশি নাগরিককে ফের গণনা করা হবে।

পরে নতুন তথ্যের সঙ্গে আগে পাওয়া শুমারির তথ্য মিলিয়ে দেখে বলা যাবে শুমারিতে কতটা ভুল কিংবা ত্রুটি হয়েছে। তার পরই তথ্য সমন্বয় করে জনশুমারির মূল প্রতিবেদন তৈরি করা হবে।

অনুষ্ঠানে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘নানা প্রতিবন্ধকতার মধ্যেও বিবিএস একটি ভালো শুমারি করেছে। এখন সেটির পরীক্ষা করা হচ্ছে। বিবিএসকে আরও একটু স্বাধীনতা দেয়া উচিত।

‘ভারতে পরিসংখ্যান সংস্থা যেভাবে স্বাধীনতা ভোগ করে, বাংলাদেশে সেটি হচ্ছে না। পরিসংখ্যান ব্যুরোকে আরও হালনাগাদ তথ্য দিতে হবে।’

আরও পড়ুন:
১৭ মাস পর সর্বোচ্চ মূল্যস্ফীতি মার্চে
অন্যায্য বাজার ও জনজীবন
মূল্যবৃদ্ধির পাগলা ঘোড়া টেনে ধরবে কে?
মূল্যতালিকা প্রদর্শনসহ দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ১৬ সুপারিশ
দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির পেছনে বিএনপির হাত আছে: যুবলীগ চেয়ারম্যান

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
VAT exemption on edible oil for another 3 months

ভোজ্যতেলে ভ্যাটমুক্ত সুবিধা আরও ৩ মাস

ভোজ্যতেলে ভ্যাটমুক্ত সুবিধা আরও ৩ মাস ভোজ্যতেলে ভ্যাট মওকুফের মেয়াদ বাড়তে পারে। ছবি: নিউজবাংলা
বর্তমানে ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে ৫ শতাংশ ছাড়া আর কোনো স্তরে ভ্যাট নেই। এ সুবিধাটি দুই দফা পর্যন্ত বাড়ানো হয়। সর্বশেষ মেয়াদ ছিল ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। এরপর আরও তিন দিন পেরিয়ে গেছে। এর মধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো ঘোষণা না আসায় বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে।

ছয় মাস ধরে চলা ভোজ্যতেলে উৎপাদন ও ব্যবসায় পর্যায়ে মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট মওকুফের মেয়াদ আবারও বাড়তে পারে।

ভোজ্যতেলের দাম যেন নতুন করে না বাড়ে, তাই ভ্যাট প্রত্যাহারের সুবিধা আরও তিন মাস বহাল রাখতে পারে বলে বাণিজ্য ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ড-এনবিআর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

আগামী জুন পর্যন্ত এই সুবিধা বাড়াতে গত ২০ সেপ্টেম্বর বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে এনবিআরে চিঠি দেয়া হয়। এতে বলা হয়, ‘আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত (কাঁচামাল) সয়াবিন ও পাম অয়েলের দাম কমলেও ডলারের দাম বাড়ার কারণে দেশীয় বাজারে পণ্যটির মূল্য কমানো সম্ভব হচ্ছে না।

‘তাই স্থানীয় বাজারে ভোজ্যতেলের মূল্য এবং সরবরাহ স্থিতিশীল রাখতে ভ্যাট অব্যাহতির বর্তমান মেয়াদ ১ অক্টোবর থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত পুনরায় বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।’

এনবিআরের এক কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবটি পেয়েছি। শিগগিরই এ বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আসবে।’

বর্তমানে ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে ৫ শতাংশ ছাড়া আর কোনো স্তরে ভ্যাট নেই। এ সুবিধাটি দুই দফা পর্যন্ত বাড়ানো হয়। সর্বশেষ মেয়াদ ছিল ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। এরপর আরও তিন দিন পেরিয়ে গেছে। এর মধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো ঘোষণা না আসায় বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে।

ভোজ্যতেল উৎপাদক ও বিপণনকারী কোম্পানি সিটি গ্রুপের পরিচালক বিশ্বজিৎ সাহা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভ্যাট মওকুফ সুবিধার মেয়াদ অব্যাহতি না রাখা হলে ভোজ্যতেল আমদানিতে শুল্ক-করহার বেড়ে যাবে। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বাজারে। সে জন্য আমাদের দাবি হচ্ছে, বর্তমান যে সুবিধা রয়েছে তার মেয়াদ আগামী বাজেট পর্যন্ত বহাল রাখা হোক।’

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের পর গত মার্চ থেকে বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত ভোজ্যতেলের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে যাওয়ায় অভ্যন্তরীণ বাজারেও দামে প্রভাব পড়ে।

ব্যবসায়ীদের ওপর চাপ কিছুটা কমাতে গত ১৪ মার্চ এনবিআর প্রজ্ঞাপন জারি করে সয়াবিন ও পাম তেলের উৎপাদন পর্যায়ে ১৫ শতাংশ এবং ব্যবসা পর্যায়ে ৫ শতাংশ ভ্যাট মওকুফ করে।

এর দুদিন পর ভোজ্যতেলের আমদানি পর্যায়ে আরোপিত ১৫ শতাংশ ভ্যাট কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়। তখন এর মেয়াদ ঠিক করা হয় ৩০ জুন পর্যন্ত।

পরে ৩ জুলাই আরেকটি প্রজ্ঞাপনে ভ্যাট মওকুফ সুবিধার মেয়াদ বাড়িয়ে ৩০ সেপ্টেম্বর করা হয়। যার মেয়াদ শেষ হয় গত শুক্রবার।

বিশ্ববাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম কমা অব্যাহত রয়েছে। উৎপাদন বৃদ্ধি, রপ্তানিকারক দেশগুলোতে মজুত বেড়ে যাওয়ায় এমন দরপতন হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কমোডিটি এক্সচেঞ্জ শিকাগো বোর্ড অফ ট্রেডে গত ২৮ জুলাই সয়াবিন তেলের দর উঠেছিল টনপ্রতি ১ হাজার ৪৫১ ডলার। বর্তমানে টনপ্রতি দাম ১ হাজার ২০০ ডলার।

আন্তর্জাতিক বাজারে সয়াবিনের চেয়ে বেশি কমেছে পাম তেলের দাম।

তবে দেশের বাজারে এই দাম কমার সুফল পাওয়া যায়নি ডলারের বিপরীতে টাকার দরপতনের কারণে। গত কয়েক মাসে ৮৪ টাকার ডলারের দর এখন ১০৬ টাকা।

বর্তমানে প্রতি লিটার সয়াবিন তেলের দর নির্ধারিত আছে ১৯২ টাকা আর প্রতি লিটার পাম তেলের দাম ঠিক করে দেয়া হয়েছে ১৩২ টাকা।

দেশের ব্যবসায়ীরা মূলত মালয়েশিয়া ও ইন্দোনেশিয়া থেকে পরিশোধিত আকারে পাম অয়েল আমদানি করেন।

আর অপরিশোধিত সয়াবিন তেল আমদানি করে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল থেকে। বছরে ২১ লাখ টন ভোজ্যতেল আমদানি হয়। এ ছাড়া মাড়াই করে পাওয়া যায় আরও তিন লাখ টন সয়াবিন।

আরও পড়ুন:
১ কোটি ৬৫ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কিনছে সরকার
দাম বাড়ানোর পর বাড়ছে সয়াবিনের সরবরাহ
সয়াবিনের দাম লিটারে বাড়ল ৭ টাকা
ভোজ্যতেলের দাম বাড়াতে সেই পুরোনো কৌশল
১ লাখ ২৫ হাজার টন সয়াবিন তেল কিনছে টিসিবি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
What is the reason for not reducing the price of eggs?

ডিমের কেন আগুন দাম

ডিমের কেন আগুন দাম নানা কারণে কমছে না ডিমের দাম। ছবি: নিউজবাংলা
ব্যবসায়ীরা বলছেন, চিকেন ফিডের দাম বৃদ্ধি, লোকসানের আশঙ্কায় খামারিদের উৎপাদন কমিয়ে দেয়া এবং ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে ওঠা খামার করোনাভাইরাস মহামারির অভিঘাতে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কমছে না ডিমের দাম।

চলতি বছরের আগস্টে ডিমের দাম ১৫৫ টাকা ডজন ছাড়িয়ে যায়, তবে সেপ্টেম্বরের শুরুতে দাম কমে ১২০ টাকায় নামলেও দেশে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রভাবে তা আবার ঊর্ধ্বমুখী। দুই সপ্তাহে দাম আবার হয় ১৪০ টাকা।

এর পর থেকে ডিমের দাম আর কমছে না। রাজধানীর বাজারে শনিবার প্রতি ডজন লাল ডিম ১৪০ টাকা আর হালি বিক্রি হয়েছে ৪৭ টাকায়। আর সাদা ডিম ডজন বিক্রি হয়েছে ১৩৫ টাকা। এ ডিমের হালি বিক্রি হয় ৪৫ টাকায়।

কেন কমছে না ডিমের দাম, তা নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, চিকেন ফিডের দাম বৃদ্ধি, লোকসানের আশঙ্কায় খামারিদের উৎপাদন কমিয়ে দেয়া এবং ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে ওঠা খামার করোনাভাইরাসের অভিঘাতে বন্ধ হয়ে যাওয়াই এর প্রধান কারণ।

কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ী সঞ্জয় চক্রবর্তী বলেন, ‘ডিমের দাম না কমার কারণ হলো মুরগির খাদ্যের দাম। খাদ্যের দাম যতদিন না কমবে, ততদিন ডিমের দামও কমবে না।’

তিনি বলেন, ‘আগে মুরগির খাদ্যের যে বস্তার দাম ছিল এক হাজার ৫০ টাকা, সেটার দাম এখন ২৫০০ থেকে ২৮০০ টাকা। দাম বেশি হওয়ায় মুরগি উৎপাদন কমিয়ে দিয়েছেন খামারিরা। ফলে ডিমের যে চাহিদা সেই পরিমাণ সরবরাহ নেই।’

ডিমের উৎপাদন কম ও দাম না কমার পেছনে করোনাভাইরাস মহামারির প্রভাবের কথাও জানান ভাই ভাই এগ শপের মালিক সঞ্জয়। গত বছরেও একই কারণে ডিমের দাম বেড়েছিল।

গত বছরের অক্টোবরে ডিমের ডজন ৯০ টাকা থেকে বেড়ে হয় ১১০ টাকা। ওই সময় ব্যবসায়ীরা জানান, করোনার সময় ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় অনেক খামার বন্ধ হয়ে গেছে। ডিম ও ব্রয়লার মুরগির উৎপাদন কমে গেছে। বাজারে মুরগি ও ডিমের চাহিদা বেশি থাকলেও ওই পরিমাণ সরবরাহ নেই। ফলে দাম বাড়ছে।

করোনাভাইরাস মহামারির নেতিবাচক প্রভাবের কথা আবারও উঠে এলো সঞ্জয়ের কথায়। তিনি বলেন, ‘অনেক ছোট ছোট খামার গড়ে উঠেছিল। করোনার মধ্যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা। লোকসান দিয়ে ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছেন। অনেকে বাড়িঘর বিক্রি করে লোকসান ভরেছেন। সেসব বন্ধ হয়ে গেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এসব ছোট ছোট খামার থেকে প্রচুর ডিম উৎপাদন হতো। আগে গাড়ি ভরে ভরে মাল (ডিম) আসত। এখন আসে কম।’

একই তথ্য জানালেন ডিমের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান বরিশাল এন্টারপ্রাইজের কুদ্দুস মিয়া। তিনি বলেন, ‘করোনার মধ্যে অনেক ছোট ছোট ফার্ম বন্ধ হয়ে গেছে। ডিমের উৎপাদন কমে গেছে। চাহিদার বিপরীতে সরবরাহ কম বলেই দাম কমছে না।’

বৃহৎ আমদানিকারক কুদ্দুস মিয়া বলেন, ‘মুরগির খাদ্যের দাম অনেক বেশি। ডিমের কস্টিং বেশি। যে পরিমাণ ডিম দরকার, তার চেয়ে কম উৎপাদনের এটি একটি কারণ।’

এই ব্যবসায়ী বলেন, ‘টাঙ্গাইল থেকে বেশির ভাগ ডিম আসে। আমার দেশের ডিমের প্রায় ৮০ শতাংশই ওই অঞ্চলের। খাদ্যের দাম বেশি হওয়ায় ভবিষ্যৎ লোকসানের আশঙ্কায় এসব অঞ্চলে খামারে বাচ্চা উঠাচ্ছেন না খামারিরা।

‘বাচ্চা মুরগি চার থেকে পাঁচ মাস লালন-পালনের পর ডিম পাওয়া যায়। দাম কমে গেলে লোকসান হবে, এই ভয়ে খামারিরা উৎপাদন কমিয়ে দিয়েছেন।’

ডিমের কেন আগুন দাম

ডিমের দাম কমার বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন ব্যবসায়ীরা। সঞ্জয় চক্রবর্তী বলেন, ‘শীতের মধ্যে ফার্মে ফ্যানের প্রয়োজন কম হয়। মুরগির অসুখ কম হয়। ডিমের উৎপাদন বাড়ে এবং দাম কমার একটা সম্ভাবনা থাকে।’

কুদ্দুস মিয়া বলেন, ‘ডিমের দাম সামনে কমার আশা আছে। শীতের মধ্যে বিদ্যুতের খরচ কমে যাবে। এ ছাড়া বড় বড় কোম্পানি যারা, তাদের প্রোডাকশন কমছে না, বরং বাড়ছেই। তাতে কিছু দাম কমতে পারে।’

ডিমের দাম বৃদ্ধিতে জনমনে অসন্তোষের কারণে একপর্যায়ে ডিম আমদানিরও চিন্তা করে সরকার। ২৯ আগস্ট সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এ রকম পরিকল্পনার কথা বলেছিলেন।

ওই দিনই জ্বালানি তেলের দাম লিটারে ৫ টাকা কমানোর ঘোষণায় ডিমের দাম কিছুটা কমে এলেও পরে তা আবার ঊর্ধ্বমুখী হয়, তবে ডিম আমদানির বিষয়ে পরবর্তী সময়ে আর কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি।

এদিকে ডিমের দাম নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করলেও আমদানির বিপক্ষে অবস্থান নেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

গত বৃহস্পতিবার গাজীপুরে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে এক কর্মশালায় তিনি বলেন, ‘একটি ডিমের দাম ১২-১৩ টাকা কোনোভাবেই হতে পারে না। এই দাম অস্বাভাবিক। একটা ডিমের উৎপাদন খরচ ৫-৬ টাকা হলে উৎপাদনকারী সর্বোচ্চ ৮ টাকায় বিক্রি করতে পারে।

‘সরবরাহ একটু কমে গেলেই কিছু অসাধু ব্যবসায়ী, ফার্মের মালিক, হ্যাচারি মালিক নানা ষড়যন্ত্র করে ডিমের দাম বাড়িয়ে দেয়।’

মন্ত্রী বলেন, ‘অনেকেই হয়তো আমার সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করবেন। তারপরও আমি বলব, ডিম আমদানির দরকার নেই। ডিম আমদানি করলে আমরা আমদানিনির্ভর হয়ে পড়ব, যা আমরা চাই না।

‘আমদানি না করলে আমাদের একটু কষ্ট হবে, সবাই মিলে এই কষ্ট করতে হবে। স্থানীয় পর্যায়ে ডিম উৎপাদন করে খেতে হবে।’

আরও পড়ুন:
ডিম, মুরগিতে ‘১৫ দিনে ৫১৮ কোটি টাকা লোপাট’
চাহিদা বাড়ছে ভাঙা ডিমের
বাড়তি দরে কিনতে নারাজ, দাম কমেছে ডিম-মুরগির
ম্যাজিস্ট্রেট দেখেই হালিতে ডিমের দাম কমল ৬ টাকা
ডিম-মুরগির বাজার চড়া যে কারণে

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The price of sugar is Rs 6 more than the fixed price

নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে ৬ টাকা বেশি চিনির দাম

নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে ৬ টাকা বেশি চিনির দাম
‘আমরা তো লস দিয়ে ব্যবসা করছি। ম্যাজিস্ট্রেট এসে আমাদের ধরে। গোড়ায় হাত দিতে পারে না। কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারে না। কয়েকদিন তাই বেচাও বন্ধ রেখেছিলাম।’

সরকার নির্ধারিত দামে নয়, তার চেয়ে কেজিতে ৬ টাকা বেশিতে রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে বিক্রি হচ্ছে চিনি। তবে বেঁধে দেয়া দামের চেয়ে কম মূল্যে পাওয়া যাচ্ছে পাম তেল।

বিক্রেতারা জানান, চিনি নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশিতে কিনতে হচ্ছে বলেই বিক্রি করতে হচ্ছে বেশি দামে।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারসহ আরও কয়েকটি বাজার ঘুরে শনিবার দেখা গেছে, প্রতি কেজি পরিশোধিত খোলা চিনি বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়। আর পরিশোধিত প্যাকেটজাত চিনি বিক্রি হচ্ছে ৯৫ টাকায়। অথচ সরকারিভাবে দাম বেঁধে দেয়া হয়েছে ৮৪ ও ৮৯ টাকা।

সেই হিসাবে, খোলা ও প্যাকেটজাত চিনির কেজিতে ৬ টাকা বেশি গুণতে হচ্ছে ক্রেতাদের।

বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী ২২ সেপ্টেম্বর এক প্রজ্ঞাপনে পাম সুপার খোলা, পরিশোধিত চিনি খোলা ও পরিশোধিত প্যাকেটজাত চিনির সর্বোচ্চ খুচরা দাম নির্ধারণ করে দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, পাম সুপার খোলা তেল প্রতি লিটার সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ১৩৩ টাকা, প্রতি কেজি পরিশোধিত খোলা চিনি ৮৪ টাকা ও পরিশোধিত প্যাকেটজাত খোলা চিনির দাম ৮৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

২৫ সেপ্টেম্বর থেকে এই মূল্য কার্যকর করার কথা উল্লেখ করা হয়। ওই সময় থেকে আরও ৫ দিন পেরোলেও বাজারে চিনির দর কার্যকর হয়নি।

এর কারণ হিসেবে বিক্রেতারা বলছেন, প্রতি কেজি চিনি কিনতে হচ্ছে ৮৭ টাকায়। খুচরা বিক্রি করতে কেজিতে প্রায় ১০ গ্রাম করে ঘাটতি যায়। এতে করে নির্ধারিত দামের চেয়ে প্রায় ৪ টাকার মতো বেশি দামে চিনি কিনতে হচ্ছে। ফলে কেজিতে ২ টাকার মতো মুনাফা নিয়ে ৯০ টাকায় চিনি বিক্রি করছেন তারা।

কারওয়ান বাজারের শাহ মিরান জেনারেল স্টোরের শাহজাহান মনা বলেন, ‘আজকে এক বস্তা চিনি দাম চার হাজার ৩৫০ টাকা। এক বস্তাতে থাকে ৫০ কেজি। এক কেজি করে মেপে চিনি বিক্রি করতে ১০ গ্রাম করে ঘাটতি যায়। বস্তা প্রতি লেবার খরচ ১০ টাকা। সব মিলিয়ে প্রতি কেজি চিনিতে খরচ পড়ছে ৮৭ টাকার বেশি। আমরা বেচি ৯০ টাকায়।’

তিনি বলেন, ‘প্যাকেটজাত চিনির এক বস্তায় থাকে ২০ কেজি। দাম নিচ্ছে এক হাজার ৮৪০ টাকা। ৯২ টাকা কেনাই পড়ছে। সেখানে আমরা দুই, তিন টাকা লাভে বিক্রি করছি। প্রতি কেজির দাম নিচ্ছি ৯৫ টাকা।’

জাহিদ জেনারেল স্টোরের জাহিদুল ইসলাম জাহিদ বলেন, ‘এক বস্তা চিনির কেনা দাম চার হাজার ৫০০ টাকা। তাহলে কয় টাকায় বেচতে হবে, বলেন?’

তিনি বলেন, ‘পাইকারদের জিজ্ঞেস করেন, দাম বেশি কেন? আমাদের বেশি দামে কিনতে হচ্ছে, তাই বেশিতে বিক্রি হচ্ছে। তার ওপর দাম নিয়ে ভেজাল হওয়ায় চিনি সেভাবে উঠাইনি, বিক্রিও করছি না।’

পাইকারি বিক্রেতা আবুল কাশেম দিলেন একই তথ্য। সোনালী ট্রেডার্সের এই স্বত্বাধিকারী ফ্রেশ চিনির ডিলার। তিনি বলেন, ‘প্রতি বস্তা চার হাজার ২৫০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি করছি।’

৮৪ টাকায় চিনি বিক্রির নির্দেশনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ওই দামে কিনতেও পাই না, বেচতেও পারি না।’

কোম্পানির কাছে জানতে চান কি না- এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘এ নিয়ে তো কথাই বলা যায় না। কোম্পানি কোনো কথা বলতে চায় না।’

নাম প্রকাশ করার অনুরোধ জানিয়ে আরেকজন ডিলার বলেন, ‘এমনও হয় যে, মাল কেনার সময় কোম্পানি রশিদ দেবে সরকার নির্ধারিত দামে, কিন্তু টাকা নেবে বেশি দামে।’

তিনি যোগ করেন, ‘আমরা তো লস দিয়ে ব্যবসা করছি। ম্যাজিস্ট্রেট এসে আমাদের ধরে। গোড়ায় হাত দিতে পারে না। কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারে না। কয়েক দিন তাই বেচাও বন্ধ রেখেছিলাম।’

চিনির আরেক ডিলার জামাল ট্রেডার্সের জামাল হোসেন বলেন, ‘কোম্পানি দাম কমায়নি। আমি আলাপ করেছি, দাম কমাবে। কমালে আমাদেরকে এসএমএসের মাধ্যমে জানিয়ে দেবে। আমাদের যে প্যাকেটজাত মাল (চিনি) আছে, বেশি দরে কেনা। সেটাই বিক্রি করছি।’

অন্যদিকে মন্ত্রণালয়ের নির্ধারিত দরের চেয়ে ১৬ থেকে ১৮ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে পাম তেল। প্রতি লিটার পাম তেলের দাম ১৩৩ টাকা নির্ধারণ করা হলেও বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ১১৫ থেকে ১১৭ টাকায়।

বিক্রেতা মামা-ভাগিনা স্টোরের আবু বক্কর বলেন, ‘প্রতি লিটার পাম তেল বিক্রি করছি ১১৫ টাকায়। আর কেজির হিসাব ধরলে ১২৫ টাকার মতো পড়বে।’

পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতা সেকান্দার এন্টারপ্রাইজের মো. সেকান্দার বলেন, ‘আমরা প্রতি লিটার পাম তেল বিক্রি করছি ১১৫ থেকে ১১৭ টাকায়। আর কেজি হিসাবে নিলে ১২৫ টাকায় বিক্রি। সরকার দাম বেঁধে দিয়েছে ১৩৩ টাকা। তাদের হিসাবে বিক্রি করতে গেলে ১৪০ থেকে ১৪২ টাকায় বিক্রি করা লাগবে।’

সরকার নির্ধারিত দামের চেয়ে কমে কীভাবে বিক্রি করছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা যে দামে কিনি, তার চেয়ে দুই-এক টাকা লাভে বিক্রি করি। এর বেশি কিছু জানি না।’

আরও পড়ুন:
ঝাঁজ কমল কাঁচা মরিচের, কমল সবজির দামও
কমেছে সবজির দাম, বেড়েছে মাংসের
ঈদের ছুটিতে কাঁচা মরিচের ডাবল সেঞ্চুরি, শসার সেঞ্চুরি
ডিমের বাজারও চড়া
চিনি রপ্তানিতেও লাগাম টানছে ভারত

মন্তব্য

p
উপরে