প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন ৭৫ ভাগ

প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন ৭৫ ভাগ

নাজুক প্যাকেজগুলোর সঙ্গে জড়িত ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা, তৈরি পোশাক ও চামড়া শিল্পের দুস্থ শ্রমিক, রপ্তানিমুখী শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, কৃষিজীবী এবং করোনা প্রতিরোধে নিয়োজিত সরকারি কর্মচারীরা।  

করোনা মহামারির প্রাদুর্ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে ২৩টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছিল সরকার।

এর মধ্যে পাঁচটি প্যাকেজের অগ্রগতি সন্তোষজনক হলেও অপর পাঁচটির অবস্থা নাজুক। তবে এই ১০টি বাদে অন্য ১৩ প্যাকেজের বাস্তবায়ন হার মাঝামাঝি অবস্থায়।

২৩ প্যাকেজে জড়িত মোট অর্থের পরিমাণ ১ লাখ ২৮ হাজার ৪৪১ কোটি টাকা, যা জিডিপির ৩ দশমিক ৪ শতাংশ।

এর মধ্যে সামগ্রিকভাবে মোট বরাদ্দের মধ্যে বাস্তবায়িত হয়েছে ৭৫ শতাংশ। অর্থাৎ টাকার অঙ্কে ৯৬ হাজার কোটি টাকার বেশি খরচ হয়েছে।

অর্থমন্ত্রণালয়ের এ সংক্রান্ত অগ্রগতি প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে। ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে চলতি বছরের ৩০ জুনের তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা হয়েছে প্রতিবেদনটি।

প্রতিবেদনের একটি কপি গত সপ্তাহে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, নাজুক প্যাকেজগুলোর সঙ্গে জড়িত ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা, তৈরি পোশাক ও চামড়া শিল্পের দুস্থ শ্রমিক, রপ্তানিমুখী শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, কৃষিজীবী এবং করোনা প্রতিরোধে নিয়োজিত সরকারি কর্মচারীরা।

অপরদিকে, শতভাগ বাস্তবায়নকারী প্যাকেজগুলোর উপকারভোগীরা হলো: রপ্তানিমুখী শিল্প শ্রমিক, রপ্তানিমুখী শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, করোনায় চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মী, দরিদ্র জনগোষ্ঠী এবং গৃহহীন দরিদ্র জনগোষ্ঠী।

করোনার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে গত বছরের এপ্রিল থেকে ধাপে ধাপে প্যাকেজগুলো ঘোষণা করে সরকার।

এর মধ্যে বেশিরভাগ প্যাকেজ মূলত ব্যাংকঋণ নির্ভর। এতে অর্থের পরিমাণ ১ লাখ কোটি টাকার বেশি। অবশিষ্ট প্যাকেজগুলো বাস্তবায়নের দায়িত্ব বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ও বিভাগের।

বাস্তবায়নের দিক থেকে নাজুক পাঁচটি প্যাকেজে মোট বরাদ্দ দেয়া হয়েছে ১২ হাজার ৪৭০ কোটি টাকা। এর মধ্যে গত জুন পর্যন্ত এসব তহবিল থেকে খরচ হয়েছে মাত্র ৮০৪ কোটি টাকা, যা শতকরা হারে গড়ে প্রায় সাড়ে ৬ শতাংশ।

অর্থাৎ এক বছরের বেশি সময় ধরে উল্লিখিত প্যাকেজগুলোর আওতায় বরাদ্দের সিংহভাগ টাকাই খরচ হয়নি।

তবে অন্য পাঁচ প্যাকেজ বাস্তবায়নের চিত্র ভিন্ন। এগুলোর বাস্তবায়নের হার কোনো কোনো ক্ষেত্রে শতভাগ ছাড়িয়ে গেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

নাজুক পাঁচ প্যাকেজের বাস্তবায়ন চিত্র

প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাস্তবায়নের দিকে থেকে যে পাঁচটি প্যাকেজের অবস্থা নাজুক, সেগুলোর মধ্যে রয়েছে রপ্তানিমুখী শিল্পকে সহায়তা দিতে প্রাকজাহাজীকরণ পুনঃঅর্থায়ন কর্মসূচি।

এ কর্মসূচির আওতায় ৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। গত এপ্রিল থেকে চলতি অর্থবছরে পর্যন্ত খরচ হয়েছে মাত্র ২৯১ কোটি টাকা। বাস্তবায়নের হার মাত্র ৫ দশমিক ৮২ শতাংশ।

পোশাক মালিকরা বলছেন, টাকা ছাড়ে নানা শর্ত ও জটিলতার কারণে এ তহবিলের টাকা নিতে অনেকে উৎসাহী নন। যে সময় টাকা দেয়া হয়, তাতে রপ্তানিকারকদের খুব বেশি লাভ হয় না।

যোগাযোগ করা হলে বিকেএমইএ-এর প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই প্যাকেজ থেকে অর্থ ব্যয় না হওয়ার অন্যতম কারণ হচ্ছে নানা ধরনের শর্ত দেয়া আছে। যখন টাকা প্রয়োজন, তখন দেয়া হয় না। এ কারণে রপ্তানিকারকরা খুব একটা আগ্রহ দেখাচ্ছে না।’

সরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান বিআইডিএসের সাবেক উর্ধ্বতন পরিচালক ও অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. জায়েদ বখত নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনাকালে ব্যাংকগুলোর ঋণ কার্যক্রম গতিহীন হয়ে পড়ে। পুনঃঅর্থায়ন কর্মসূচির জন্য যে ধরনের নীতিমালা কিংবা রেগুলেশন তৈরি করা দরকার, সেভাবে করতে পারেনি। এ দুর্বলতার কারণে পুনঃঅর্থায়ন কর্মসূচি থেকে টাকা ছাড় করা সম্ভব হয়নি।’

এ ছাড়া ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের সহায়তা করতে ২ হাজার কোটি টাকার ‘এসএমই খাতের জন্য ক্রেডিট গ্যারান্টি স্কিম’ প্যাকেজ ঘোষণা করে সরকার। জুন পর্যন্ত এ প্যাকেজ থেকে খরচ হয়েছে মাত্র ২৯ কোটি টাকা। পড়ে আছে ১ হাজার ৯৭১ কোটি টাকা। বাস্তবায়নের হার প্রায় দেড় শতাংশ।

‘কৃষিকাজ যান্ত্রিকীকরণ’ শীর্ষক প্যাকেজে বরাদ্দ ৩ হাজার ২২০ কোটি টাকা। জুন পর্যন্ত এ থেকে খরচ হয়েছে ৪০৮ কোটি টাকা। বাস্তবায়নের হার প্রায় সাড়ে ৬ শতাংশ।

করোনা ব্যবস্থাপনায় নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মীদের স্বাস্থ্যবিমা এবং জীবনবিমা খাতে বরাদ্দ আছে ৭৫০ কোটি টাকা। এ থেকে জুন পর্যন্ত খরচ হয় ৭০ কোটি টাকা।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) অর্থায়নে পোশাক ও চামড়া খাতে চাকরি হারানো শ্রমিকদের ৩ হাজার টাকা করে দেয়ার জন্য ১ হাজার ৫০০ কোটি টাকার তহবিল গঠন করা হয়েছিল। সেখান থেকে জুন পর্যন্ত ৬ হাজার ৬৫ জন শ্রমিকের জন্য মাত্র ৬ কোটি টাকা খরচ হয়। অবশিষ্ট টাকা ব্যয় হয়নি।

অর্থমন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে নিউজবাংলাকে বলেন, যে সব প্যাকেজের অগ্রগতি তেমন ভালো নয়, সেগুলোর সমস্যা চিহ্নিত করে বাস্তবায়ন যাতে দ্রুত গতিতে সম্পন্ন করা যায়, তার জন্য শিগগিরই সংশ্লিষ্টদের নিয়ে একটি বৈঠক হবে। ওই বৈঠকে নতুন করে দিকনির্দেশনা দেয়া হবে।

শতভাগ বাস্তবায়িত প্যাকেজগুলোর চিত্র

রপ্তানিমুখী শিল্পপ্রতিষ্ঠানের জন্য বিশেষ তহবিল গঠন করে সরকার। পোশাক খাতের সুরক্ষায় শ্রমিক-কর্মচারীদের বেতন দিতে গঠিত এ তহবিলের আকার ছিল প্রথমে ৫ হাজার কোটি টাকা। পরবর্তীতে দুই ধাপে বাড়িয়ে মোট ১০ হাজার ৫০০ কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়। নির্ধারতি সময়ের আগেই এই তহবিলের পুরোটা শেষ হয়ে যায়।

প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় রপ্তানিমুখী শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে সহায়তা দিতে রপ্তানি উন্নয়ন তহবিল (ইডিএফ) সুবিধা ৩৫০ কোটি মার্কিন ডলার থেকে ৫০০ কোটি ডলারে উন্নীত করা হয়। ফলে অতিরিক্ত যোগ হয় ১৫০ কোটি ডলারের সমপরিমাণ ১২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা।

পরে অর্থ আরও বাড়িয়ে বাংলাদেশি মুদ্রায় প্যাকেজের আকার করা হয় ১৭ হাজার কোটি টাকা। ৩০ জুন পর্যন্ত পুরো অর্থই খরচ হয়।

চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের বিশেষ সম্মানী বাবদ ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রেখে একটি প্যাকেজ ঘোষণা করা হয় গত বছর। জুন পর্যন্ত খরচ হয় ১১০ কোটি টাকা।

১০ টাকা কেজি দরে চাল দিতে প্রথমবার ২৫১ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়। পরে এটি বাড়িয়ে করা হয় ৭৭০ কোটি টাকা। জুন পর্যন্ত পুরো টাকাই ব্যয় হয়।

গৃহহীন মানুষের জন্য গৃহ নির্মাণ প্যাকেজে বরাদ্দ রাখা হয় ২ হাজার ১৩০ কোটি টাকা। জুন পর্যন্ত এ প্যাকেজের আওতায় খরচ হয় ২ হাজার ২৩৬ কোটি টাকা ।

আরও পড়ুন:
মুদ্রানীতি জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সহায়ক নয় : সিপিডি
প্রণোদনার ঋণ কোথায় গেল, জানতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ নেই
প্রণোদনা: যারা ঋণ পেয়েছেন তাদের আর নয়
প্রণোদনার টাকা আ. লীগ নেতারা নিয়ে যাচ্ছে: ফখরুল

শেয়ার করুন

মন্তব্য

সেরা পারফর্মারদের পুরস্কৃত করল পদ্মা ব্যাংক

সেরা পারফর্মারদের পুরস্কৃত করল পদ্মা ব্যাংক

সেরা পারফর্মারদের সঙ্গে পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. এহসান খসরু।

‘২০২১-এর লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য ভিন্নমাত্রার আধুনিক স্ট্র্যাটেজি গ্রহণ করেছে পদ্মা ব্যাংক। এর অনেকগুলো পন্থার মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে পারফরমারদের স্বীকৃতি এবং পুরস্কার।’

‘অ্যাকাউন্ট ওপেনিং ক্যাম্পেইনে’ সফল ১০ কর্মীকে পুরস্কৃত করেছে পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড। অ্যাকাউন্ট ওপেনিংয়ের পাশাপাশি ডিপোজিট সংগ্রহে সেরাদেরও ক্রেস্টের সঙ্গে পুরস্কারের চেক তুলে দেয়া হয়।

শনিবার রাজধানীর মিরপুরে পদ্মা ব্যাংক ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অনুপ্রেরণাদায়ী এই পুরস্কার তুলে দেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. এহসান খসরু।

এ সময় তিনি বলেন, ‘২০২১-এর লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য ভিন্নমাত্রার আধুনিক স্ট্র্যাটেজি গ্রহণ করেছে পদ্মা ব্যাংক। এর অনেকগুলো পন্থার মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে পারফরমারদের স্বীকৃতি এবং পুরস্কার। পাশাপাশি তাদের বিশেষ রিওয়ার্ড এবং পদোন্নতির পরিকল্পনাও রয়েছে।

অনুষ্ঠানে এহসান খসরু ব্যাংকের নতুন ‘মার্কেটিং এডভাইজার’ কনসেপ্টের মাধ্যমে আমানত সংগ্রহের বিশেষ কর্মসূচী ঘোষণা করেছেন।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন পদ্মা ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফয়সাল আহসান চৌধুরী, চিফ অপারেটিং অফিসার জাবেদ আমিন, হেড অফ আইসিসিডি এ টি এম মুজাহিদুল ইসলাম, এসইভিপি হেড অফ আরএএমডি এন্ড ল’ ফিরোজ আলম, সিএফও মো. শরিফুল ইসলাম-সহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন:
মুদ্রানীতি জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সহায়ক নয় : সিপিডি
প্রণোদনার ঋণ কোথায় গেল, জানতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ নেই
প্রণোদনা: যারা ঋণ পেয়েছেন তাদের আর নয়
প্রণোদনার টাকা আ. লীগ নেতারা নিয়ে যাচ্ছে: ফখরুল

শেয়ার করুন

আবারও মাঠে সেই ডেসটিনি

আবারও মাঠে সেই ডেসটিনি

ডেসটিনি কার্যালয়। ছবি: সংগৃহীত

সমবায় অধিদপ্তরের অনুমোদন নিয়ে নতুন কমিটি গঠন করেছে ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি। এক দশক নিষ্ক্রিয় থেকে আবারও কার্যক্রম শুরু করেছে আলোচিত এ সমবায় প্রতিষ্ঠান। তবে পুরনো বিনিয়োগকারীদের অর্থ কীভাবে ফেরত দেয়া হবে সে বিষয়ে সবাই নীরব।

আর্থিক খাতের আঁতকে ওঠা প্রতিষ্ঠানের নাম ডেসটিনি। প্রলোভন দেখিয়ে লুট করা হয়েছে গ্রাহকের হাজার হাজার কোটি টাকা। অনিয়মের কারণে প্রতিষ্ঠানের অনেক শীর্ষ কর্তাই এখন জেলে। তবে প্রায় ১০ বছর পর আবার মাঠে নেমেছে বিতর্কিত সমবায় প্রতিষ্ঠান ডেসটিনি।

দীর্ঘদিন নিষ্ক্রিয় থেকে আবারও আলোচনায় ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি। নিয়ন্ত্রক সংস্থা সমবায় অধিদপ্তরের অনুমোদনে গঠন করা হয়েছে নতুন কমিটি। পুরনো কমিটিতে যারা ছিলেন, তারা এখন নতুন কমিটিতে নেই। বলা হচ্ছে, যেহেতু তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে, তাই নতুন কমিটিতে তাদের স্থান হয়নি।

সমবায় অধিদপ্তরের যুগ্ম নিবন্ধক মোহাম্মদ হাফিজুল হায়দার চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, সমবায় থেকে নিবন্ধন নিয়ে কার্যক্রম শুরু করেছে ডেসিটিনি। তিনি বলেন, ডেসটিনি কো-অপারেটিভে কোনো সমস্যা হয়নি। যে ১২ জন নিয়ে নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। এ জন্য তারা আবার নিবন্ধন নিয়ে কাজ পরিচালনা করতে পারবে।

ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডের সহ-সভাপতি জাকির হোসেন জানান, সরকারের সকল নিয়মনীতি মেনে আবারও ব্যবসা করতে চায় ডেসটিনি। এ ক্ষেত্রে কোম্পানির সম্পদ বিক্রি করে গ্রাহকদের দায়দেনা পরিশোধ করা হবে। তিনি জানান, এমএলএম ব্যবসা করার জন্য আবেদন করা হয়েছে। তবে, এই আইনটি যুগপযোগী করতে হবে।

সমবায় বিশেষজ্ঞ এমদাদ হোসেন মালেক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন এলএমএম কোম্পনি লোভনীয় অফার দিয়ে গ্রাহকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। ডেসটিনি আবার কোন ফর্মে নিবন্ধন করে ব্যবসা করবে? আগে যে কযেক হাজার কোটি টাকা গ্রাহকের পকেট থেকে বের করে নিয়েছে, তারা তো এখনও টাকা ফেরত পায়নি।’

কমিটি অনুমোদন দিয়েছে সমবায় অধিদপ্তর

গত ২৮ জুন ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেডের নতুন কমিটির অনুমোদন দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা সমবায় অধিদপ্তর। ১২ সদস্যের এই কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন সাবেক সেনাপ্রধান লে. জেনারেল এম হারুন অর রশিদ (অব.)। সহ-সভাপতি হয়েছেন মো. জাকির হোসেন, আর সম্পাদক হয়েছেন আজম আলী।

আবারও মাঠে সেই ডেসটিনি

নির্বাচন পরিচালনার জন্য ১৭ মে সমবায় সমিতি বিধিমালা ২০০৪-এর ২৬(২) বিধি অনুসারে সরকারি কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে তিন সদস্যের নির্বাচন কমিটি গঠন করা হয়। ১২টি পদের বিপরীতে ২৩ জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। তবে ‍পরে ১৩ জন তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন। ফলে সীমিত ব্যবস্থাপনা কমিটির ১২টি পদে ১২ জন প্রার্থীই থাকেন। একই পদের বিপরীতে একাধিক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী না থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন সবাই।

নির্বাচনে সভাপতি, সহ-সভাপতি, সম্পাদক, যুগ্ম সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ পদে একজন করে এবং ব্যবস্থাপনা কমিটি সদস্য হিসেবে ৭ জনসহ মোট ১২ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়।

কার্যক্রম শুরু করেছে ডেসটিনি

দীর্ঘদিন পর আবার অনুমোদন পেয়ে নড়চেড়ে বসেছে ডেসটিনি। এতোদিন ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড বন্ধ থাকায় তৈরি হয় স্থবিরতা। ডেসটিনির মালিকানাধীন সকল সম্পদ পুলিশের নিয়ন্ত্রণে হলেও প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

কাকরাইল মোড়ে আলিস টাওয়ারের কয়েকটি ফ্লোরে সীমিত পরিসরে কাজ শুরু করা হয়েছে। নতুন নেতৃত্ব পাওয়া সকলেই প্রতিদিন ওই অফিসে বসছেন। অফিস চালু হবার খবরে বিনিয়োগকারী অংশীদাররাও আসতে শুরু করেছে।

আবারও মাঠে সেই ডেসটিনি

রাজধানীর কাকরাইলের মাহতাব প্লাজায় ডেসটিনির যে তিনটি অফিস ছিল, সেই অফিসগুলো এখন বন্ধ। এতোদিন চালু থাকলেও কয়েকদিন আগে পুলিশ অফিস গেইটে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। কো-অপারেটিভের কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য নতুন কমিটি অফিস নিয়ন্ত্রণে নেবার চেষ্টা করছে।

জানা গেছে, ডেসটিনির যে সব সম্পত্তি এখন পুলিশের জিম্মায়, সেগুলো এই কমিটির নিয়ন্ত্রণে নেবার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। বিশেষ করে মাল্টিপারপাসের নামে থাকা সম্পত্তি নিতে চায় কমিটি।

গ্রাহকের হা-হুতাশ

কেউ দিয়েছে হাজার, কেউ লাখ লাখ টাকা। কোটি টাকাও দিয়েছে অনেক পরিবার। দশ বছর আগের দেয়া সেই টাকার জন্য আক্ষেপ এখনও স্পষ্ট। কেউ প্রকাশ্যে, কেউ বা অপ্রকাশ্যে চাহিদা তুলে ধরছেন। কিন্তু কোথায় গেলে মিলবে টাকা, তা কেউ জানে না।

ডেসটিনির অফিসে অফিসে এখনও খোঁজ নেন গ্রাহকরা। কবে চালু হবে, বিনিয়োগকৃত টাকার কোনো হদিস কি মিলেবে? কিন্তু কোনো সদুত্তর নেই। সমবায় অধিদপ্তর থেকে নতুন কমিটি করে দেবার পর আলিস টাওয়ারে গ্রাহকদের ভীড় বাড়ছে।

ডেসটিনি কো-অপারেটিভে অনিয়ম

সমবায় মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে ২০১২ সালের ৪ এপ্রিল সমবায় অধিদপ্তরের অতিরিক্ত নিবন্ধক অমিয় কুমার চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করা হয়। ওই কমিটি ডেসটিনি কো-অপারেটিভে ১ হাজার ৪৪৮ কোটি ৭৮ লাখ ৭৩ হাজার ৯৫২ টাকার অনিয়ম খুঁজে পায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সমবায় অধিদপ্তরের নিবন্ধকের অনুমোদন না নিয়ে সমিতির সদস্যদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা অর্থ ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেডের অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোতে বিনিয়োগ, অনুমোদনহীনভাবে অলাভজনক প্রতিষ্ঠানে ঋণ বিতরণ ও সেসব প্রতিষ্ঠানের শেয়ার কেনা, সম্পদের মূল্য বেশি দেখানো, বাজেটবহির্ভূত এবং অনুমোদনহীন বিভিন্ন ব্যয়ের মাধ্যমে এসব অনিয়ম করা হয়।

বিশ্লেষক মন্তব্য

সমবায় বিশ্লেষক এমদাদ হোসেন মালেক বলেন, ‘পুরনো বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ কি বর্তমান কমিটি দেখবে নাকি নতুন করে কার্যক্রম পরিচালনা করবে, সেটি স্পষ্ট নয়। তারা যদি নতুন করে রেজিস্ট্রেশন নেয়, তাহলে আগের বিনিয়োগকারীরা অর্থ কি ফেরত পাবেন? যদি ফেরত পান, কী উপায়ে পাবেন? এগুলো স্পষ্ট না করে ব্যবসা কাজ শুরু করলে জনমনে সন্দেহের জায়গা তৈরি হবে।’

তিনি আরও বলেন, ডেসটিনির পরে ইউনি পে টু ইউ এসেও একই কাজ করেছে। প্রায় হাজার কোটি টাকা নিয়ে গেছে তারা। এ ছাড়া যুবক নামে আরও একটি প্রতিষ্ঠানও কয়েক হাজার কোটি টাকা নিয়ে গেছে। যুবকের সম্পত্তি বিক্রি করে গ্রাহকের টাকা দেয়া সম্ভব ছিল। কিন্তু গ্রাহকের টাকা ফিরিয়ে দেয়ার ব্যবস্থা কেউ এখনও করেনি।

তিনি বলেন, অতীতের অভিজ্ঞতা বলে নতুন আইনের আওতায় না নিয়ে এসে কোনোভাবেই এসব ব্যবসাকে অনুমোদন করা উচিত নয়। আগে নিয়ন্ত্রকমূলক জায়গায় নিয়ে তারপর অনুমতি নিতে হবে। না হলে ডেসটিনি আবার নতুন আঙ্গিকে এসে গ্রাহক ঠকাবে।

আরও পড়ুন:
মুদ্রানীতি জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সহায়ক নয় : সিপিডি
প্রণোদনার ঋণ কোথায় গেল, জানতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ নেই
প্রণোদনা: যারা ঋণ পেয়েছেন তাদের আর নয়
প্রণোদনার টাকা আ. লীগ নেতারা নিয়ে যাচ্ছে: ফখরুল

শেয়ার করুন

করোনায় বন্ধ ৩১১টি গার্মেন্টস

করোনায় বন্ধ ৩১১টি গার্মেন্টস

বিজিএমইএ সহসভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম বলেন, ‘চট্টগ্রামে ৬৭৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বন্ধ ৩৯৮টি। আমদানি-রপ্তানি কাজে নিয়োজিত ১৯০টি। করোনা পরিস্থিতিতে ঢাকায় ২৮১টি ও চট্টগ্রামে ৩০টি পোশাক শিল্পপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে।’

করোনা পরিস্থিতিতে ৩১১টি পোশাক শিল্পপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতির (বিজিএমইএ) সহসভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম।

চট্টগ্রাম নগরের খুলশীর বিজিএমইএ ভবনের সম্মেলন কক্ষে শনিবার বেলা ২টার দিকে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘বিজিএমইএর সদস্যভুক্ত ৪ হাজার ৭০০ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২ হাজার ৭৩৪টি বন্ধ হয়ে গেছে। বাকি ১ হাজার ৯৬৬ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১ হাজার ৬০০টি আমদানি-রপ্তানিতে নিয়োজিত।

‘চট্টগ্রামে ৬৭৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বন্ধ ৩৯৮টি। আমদানি-রপ্তানি কাজে নিয়োজিত ১৯০টি। করোনা পরিস্থিতিতে ঢাকায় ২৮১টি ও চট্টগ্রামে ৩০টি পোশাক শিল্পপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বন্দর কাস্টমস পরিবহনসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠনের ধর্মঘটের মাধ্যমে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। একটি গোষ্ঠী এটি করছে। আমদানি-রপ্তানির প্রবাহ ঠিক রাখতে এই অপচেষ্টা বন্ধ করা প্রয়োজন।’

সৈয়দ নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ব্র্যান্ডিং ছাড়া পোশাকশিল্পকে টিকিয়ে রাখা যাবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক এ শিল্পকে এগিয়ে নিতে। শ্রমঘন শিল্প হওয়ায় আমরা ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখছি।’

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে বঙ্গবন্ধু শিল্পনগর ও আনোয়ারা ইকোনমিক জোনে পোশাকশিল্পের কারখানা স্থাপনে স্বল্পমূল্যে ভূমি বরাদ্দ, সহজ ও স্বল্প সুদে ব্যাংকঋণ দেয়া, চট্টগ্রামে কিছু ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় স্থাপন, চট্টগ্রামস্থ আমদানি-রপ্তানি নিয়ন্ত্রকের দপ্তর, বস্ত্র অধিদপ্তর, ইপিবি, বিনিয়োগ বোর্ড, জয়েন্ট স্টক কোম্পানিকে সমস্যা সমাধানে সিদ্ধান্ত গ্রহণে ক্ষমতায়ন, শাহ আমানত বিমানবন্দরে আন্তর্জাতিক কানেকটিভিটি বৃদ্ধির আহ্বান জানান তিনি।

বিজিএমইএর পরিচালক এম এ সালাম বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রণোদনা দেয়ায় আমরা করোনায় শ্রমিকদের বেতন দিতে পেরেছি। ভিয়েতনাম, ভারতের চেয়ে আমাদের সরকার পোশাকশিল্প নিয়ে অনেক দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছে। মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্রবন্দর, বে-টার্মিনাল হলে তৈরি পোশাকশিল্পে বিপ্লব ঘটাবে।’

বিজিএমইএর সাবেক প্রথম সহসভাপতি এস এম আবু তৈয়ব বলেন, ‘আমরা দুর্নীতি করতে চাই না। দুর্নীতির শিকারও হতে চাই না। দেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে অটোমেশন চাই। পোশাকশিল্পে লুকানোর মতো কোনও জায়গা নেই। ইজি অব ডুয়িং বিজনেস চাই।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএর সাবেক প্রথম সহসভাপতি নাসিরুদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, মঈনুদ্দিন আহমেদ মিন্টু, সাহাবুদ্দিন আহমেদ।

আরও পড়ুন:
মুদ্রানীতি জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সহায়ক নয় : সিপিডি
প্রণোদনার ঋণ কোথায় গেল, জানতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ নেই
প্রণোদনা: যারা ঋণ পেয়েছেন তাদের আর নয়
প্রণোদনার টাকা আ. লীগ নেতারা নিয়ে যাচ্ছে: ফখরুল

শেয়ার করুন

রপ্তানির খবরে ইলিশে আগুন

রপ্তানির খবরে ইলিশে আগুন

রপ্তানির খবরে মোকাম ও আড়তে বেড়েছে ইলিশের দাম। ছবি: নিউজবাংলা

মাছ ব্যবসায়ী ফারুক বলেন, ‘রপ্তানিকারকরা ১ কেজির ওপরের মাছ ১৪০০ টাকায় কিনছেন। তাই আমাদের মতো খুচরা বিক্রেতাদেরও বেশি দামে ইলিশ কিনতে হচ্ছে। গত বছর এ সময় ইলিশের আমদানি ছিল বেশি, দামও ছিল কম। তখন সব শ্রেণির ক্রেতারাই কিনতে পেরেছেন, এবার অনেকেই দাম বেশির কারণে কিনতে পারছেন না।’

ভরা মৌসুমেও বাজারে ইলিশের সরবরাহ কম থাকায় বেড়েছে দাম। যার প্রভাব পড়েছে পাইকারি থেকে খুচরা বাজারে। এতে সাধারণের নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে ইলিশ।

হঠাৎ ইলিশের দাম বৃদ্ধিকে অবশ্য খুলনার কয়েকটি বাজারের মাছ ব্যবসায়ীরা রপ্তানিকে দায়ী করছেন।

নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, ৫০০-৬০০ গ্রামের ইলিশ ৭০০ টাকা, ৭০০ গ্রামের ৮০০ টাকা ও ১ কেজি ওজনের ইলিশ ১৩০০ থেকে ১৪০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

নগরীর ময়লাপোতা সন্ধ্যাবাজারের মাছ বিক্রেতা ফারুক বলেন, ‘এবার ইলিশ গত বছরের তুলনায় অনেক কম। তারপরে আবার ভারতে রপ্তানি করা হচ্ছে। রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানের লোকজন এসে আড়ত থেকে ইলিশ কিনছে বেশি দামে।’

তিনি বলেন, ‘রপ্তানিকারকরা ১ কেজির ওপরের মাছ ১৪০০ টাকায় কিনছেন। তাই আমাদের মতো খুচরা বিক্রেতাদেরও বেশি দামে ইলিশ কিনতে হচ্ছে। গত বছর এ সময় ইলিশের আমদানি ছিল বেশি, দামও ছিল কম। তখন সব শ্রেণির ক্রেতারাই কিনতে পেরেছেন, এবার অনেকেই দাম বেশির কারণে কিনতে পারছেন না।’

উচ্চমূল্যে মাছ রপ্তানিকে দাম বৃদ্ধির অন্যতম কারণ বলে জানান একই বাজারের আরেক ব্যবসায়ী। তার দাবি, ‘গত বছরের তুলনায় এবার মাছের সরবরাহ পাঁচ ভাগের এক ভাগ। তার ওপর আবার ইলিশ ভারতে যাচ্ছে। তাহলে দেশের মানুষ খাবে কী?’

নগরীর মিস্ত্রিপাড়া বাজারের ইলিশ বিক্রেতা মোজাম্মেল বলেন, ‘বিদেশে যাওয়ার কারণে ইলিশের দাম এখন বাড়তি। শুক্রবার পাইকারি আড়ত থেকে ৮০০ থেকে ৯০০ গ্রামের ইলিশের মণ কিনেছি ৫০ হাজার টাকায়। গত বছরের তুলনায় যা অনেক বেশি। দাম শুনে কিনতে চাচ্ছে না বেশির ভাগ ক্রেতা।

‘আড়তে এসে এলসি ব্যবসায়ীরা বেশি দামে মাছ কিনে নিচ্ছেন। দুই দিন আগেও মাছের দাম কম ছিল। রপ্তানির খবরে বাজার চড়েছে।’

মিস্ত্রিপাড়া বাজারের এক ক্রেতা সজীব বলেন, ‘বাজারে এসেছিলাম ইলিশ কিনতে। কিন্তু দাম শুনে হতাশ হয়েছি। কদিন আগেও ৫০০ গ্রাম সাইজের ইলিশ কিনেছি ৪০০ টাকায়। এখন তো সেটাই ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা কেজি চাচ্ছেন। তাই ইলিশ না কিনে অন্য মাছ কিনলাম।’

আরও পড়ুন:
মুদ্রানীতি জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সহায়ক নয় : সিপিডি
প্রণোদনার ঋণ কোথায় গেল, জানতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ নেই
প্রণোদনা: যারা ঋণ পেয়েছেন তাদের আর নয়
প্রণোদনার টাকা আ. লীগ নেতারা নিয়ে যাচ্ছে: ফখরুল

শেয়ার করুন

ইভ্যালির সুবিধাভোগীর কাছ থেকে টাকা আদায় চান তানজীব

ইভ্যালির সুবিধাভোগীর কাছ থেকে টাকা আদায় চান তানজীব

ব্যারিস্টার তানজীব বলেন, ‘পাওনা পরিশোধের একটি উপায় আছে। ইভ্যালিকে দীর্ঘদিন দেশে নানাভাবে প্রমোট করা হয়েছে। সেটি হয়েছে সরকারি-বেসরকারিভাবে। তাই এ সময়ে যারা ইভ্যালির কাছ থেকে বিভিন্ন সময় নানাভাবে সুবিধা নিয়েছে, তাদের কাছ থেকেই সেই টাকা উদ্ধার করতে হবে, যা গ্রাহকদের ফিরিয়ে দেয়া যেতে পারে।’

ইভ্যালির কাছে গ্রাহকদের পাওনা হাজার কোটি টাকা। এর বিপরীতে প্রতিষ্ঠানটির ব্যাংক হিসাবে এখন জমা ৩০ লাখ টাকা।

পাওনা টাকা ফেরত পাওয়া নিয়ে গ্রাহক চিন্তিত, সরকার বিব্রত। এমন বাস্তবতায় টাকা উদ্ধারে নতুন ফর্মুলা দিলেন দেশে ব্যবসা নিয়ে কাজ করা বিশিষ্ট আইনজীবী ব্যারিস্টার তানজীব–উল-আলম।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) উদ্যোগে শনিবার আয়োজিত এক ওয়েবিনারে অংশ নিয়ে তিনি এ ফর্মুলা দেন।

তানজীব বলেন, ‘পাওনা পরিশোধের একটি উপায় আছে। ইভ্যালিকে দীর্ঘদিন দেশে নানাভাবে প্রমোট করা হয়েছে। সেটি হয়েছে সরকারি-বেসরকারিভাবে। তাই এ সময়ে যারা ইভ্যালির কাছ থেকে বিভিন্ন সময় নানাভাবে সুবিধা নিয়েছে, তাদের কাছ থেকেই সেই টাকা উদ্ধার করতে হবে, যা গ্রাহকদের ফিরিয়ে দেয়া যেতে পারে।

‘কিন্তু কোনোভাবেই গ্রাহকের পাওনা পরিশোধের দায় সরকারের হতে পারে না। সরকার জনগণের করের টাকা থেকে সে দায় পরিশোধ করতেও পারে না। সেটি সাংবিধানিকও হবে না।’

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুনের সঞ্চালনায় ওয়েবিনারে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. রেহমান সোবহান, জ্যেষ্ঠ গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম, ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সেলিম আর এফ হোসেন, বিডি জবসের প্রতিষ্ঠাতা ফাহিম মাশরুর, চালডাল ডটকমের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াসিম আলিম, শপআপের চিফ অব স্টাফ জিয়াউল হক, অ্যাসিক্স বিডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আফসানা আসিফ, ই-ক্যাবের সাধারণ সম্পাদক আবদুল ওয়াহিদ তমালসহ অনেকে।

ইভ্যালি নিয়ে ব্যারিস্টার তানজীব বলেন, ‘ইভ্যালির লেনদেন হয়েছে অনলাইনে। তাদের কাছ থেকে কারা কত টাকা নিয়েছে সেগুলো নিশ্চয়ই অনলাইন লেনদেনের হিসাবে ডকুমেন্ট রয়ে গেছে। মোটা দাগে আমরা ক্রিকেট বোর্ডে ইভ্যালিকে স্পন্সর হতে দেখেছি। সরকারের দায়িত্বশীল সংস্থাও টাকা নিয়েছে। গণমাধ্যমেও এর বিজ্ঞাপন প্রচার হয়েছে।

‌‘এসব খাতে লেনদেনে অস্বাভাবিকতা খতিয়ে দেখা যেতে পারে। তবে এ ধরনের ডিটেইল তদন্ত করতে হলে সবার আগে ইভ্যালিতে একজন লিক্যুইডিটর নিয়োগ দিতে হবে। সেটি নিয়োগ দিতে পারে একমাত্র আদালত। আদালত সেটি স্বেচ্ছায় করতে পারবে না। পাওনা উদ্ধার প্রক্রিয়ার উপায় হিসেবে ক্ষতিগ্রস্তরা আদালতে রিট করতে পারেন। তখন আদালত এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবেন।’

তানজীবের দাবি, ‘এ প্রক্রিয়া পাওনাদারদের সব পাওনা পরিশোধের নিশ্চয়তা দেয় না। লিক্যুইডিটর বসার পর কোনো অডিট ফার্ম দিয়ে অডিট করানোর পর কোথায় কোথায় তার টাকার উৎস রয়েছে এবং টাকা কোথায় গেছে সেটি বের হতে পারে।

‌‘এটি সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। সব মিলে দেড়-দুই বছর লেগে যেতে পারে। তবে কিছু টাকা আসবে এবং ক্ষতিগ্রস্তরা পুরোপুরি না পাক, কিছু টাকা ফেরত পেতে পারেন।’

নতুন আইন ও নিয়ন্ত্রক সংস্থায় ‌না

ওয়েবিনারে খাত সংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তা এবং এ বিষয়ক বিশেষজ্ঞরা দাবি করেন, দেশে প্রচলিত বিভিন্ন আইনেই ই-কমার্স খাতে সৃষ্ট সমস্যার সমাধান করা যায়। তাই ই-কমার্স নিয়ন্ত্রণে আলাদা কোনো নিয়ন্ত্রক সংস্থা ও স্বতন্ত্র আইন প্রণয়নের প্রয়োজন নেই। এখন সরকারের উচিত প্রচলিত আইন বাস্তবায়নে নজর দেয়ার পাশাপাশি এ সংক্রান্ত দায়িত্বশীল বিভিন্ন সংস্থাগুলোর সঙ্গে সমন্বয় করে কর্মপরিকল্পনা এগিয়ে নেয়া।

ওয়েবিনারের শুরুতে চালডাল ডটকমের সিইও ওয়াসিম আলিম বলেন, ‘আলাদা আইন ও নিয়ন্ত্রক সংস্থা হলে ই-কমার্স খাতের ভবিষ্যৎ আরও কঠিন হয়ে পড়বে। যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশেও এ খাত পরিচালনায় আলাদা কোনো সংস্থা নেই।’

বিডি জবসের সিইও ফাহিম মাশরুর বলেন, ‘ই–কমার্সে শৃঙ্খলা আনতে হলে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরকে আরও কার্যকর করতে হবে। প্রতিষ্ঠানটিকে জবাবদিহি করা এখন সময়ের দাবি। প্রয়োজনে তাদের শক্তিশালী করতে হবে। কিন্তু দেশে নতুন করে নিয়ন্ত্রক সংস্থা চাই না।’

শপআপের চিফ অব স্টাফ জিয়াউল হক বলেন, ই–কমার্সকে যদি নজরদারি করা হয়, তাহলে নতুন আইনের প্রয়োজন হবে না।

তানজীব উল আলম বলেন, ‘যখন সংকট হয়, তখন কাউকে না কাউকে দোষ দেয়া হয়। সাথে বলা হয় আইন নেই। নিয়ন্ত্রক সংস্থা নেই। তখন সরকার সেদিকেই নজর দেয়। আমার বক্তব্য হচ্ছে আইন করে যদি প্রয়োগ করা না যায়, তাহলে সে আইন দিয়ে কী হবে?

‘আমার বক্তব্য স্পষ্ট। প্রচলিত আইনেই ই-কমার্স খাতে সৃষ্ট ঘটনার সমাধান রয়েছে। নতুন আইনের দরকার নেই।’

আবদুল ওয়াহিদ বলেন, ‘ই-কমার্স খাতে সৃষ্ট ঘটনায় দায়িত্বশীল বাংলাদেশ ব্যাংক, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কিংবা প্রতিযোগিতা কমিশন এদের সবারই কিছু না কিছু দায় আছে। কারণ এদের প্রত্যেকের মধ্যেই সমন্বয়হীনতা রয়েছে। এখন আগের জমানা নেই। যখন যেটা ঘটে, তখন সেটার পুনরাবৃত্তি রোধে তাৎক্ষণিক সাড়া দিতে হয়।

‌‘দায়িত্বশীল সংস্থাগুলোকে ঘটনার কার্যকর রেন্সপন্স দেখাতে হয়। ই–কমার্সে যে স্বচ্ছতা নেই, ইভ্যালিসহ অন্যদের বিজনেস মডেল নিয়ে অনেক সমস্যা আছে, এ ধরনের একটা জটিলতা তৈরি হতে পারে, সরকারকে আমরা তা তিন বছর আগেই বলেছিলাম। কিন্তু তখন কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।’

প্রতারণা ও অর্থ আত্মসাতের নতুন মামলায় ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রাসেলকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এর আগে ধানমন্ডি থানার করা ওই মামলাটিতে রিমান্ড ও জামিন নাকচ করে দেন আদালত।

ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম মো. হাসিবুল হকের আদালতে বৃহস্পতিবার বিকেলে মামলাটির শুনানি হয়।

ধানমন্ডি থানায় করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আবুল কালাম আজাদ আসামিকে গ্রেপ্তারের আবেদনসহ ৫ দিনের রিমান্ড নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করেন। অন্যদিকে আসামিপক্ষে ব্যারিস্টার এম মনিরুজ্জামান আসাদ রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে তার বিরোধিতা করেন সিএমএম আদালতের বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটর আজাদ রহমান।

উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত রিমান্ড ও জামিন আবেদন নাকচ করে আসামিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে এক দিন জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেয়।

আরও পড়ুন:
মুদ্রানীতি জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সহায়ক নয় : সিপিডি
প্রণোদনার ঋণ কোথায় গেল, জানতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ নেই
প্রণোদনা: যারা ঋণ পেয়েছেন তাদের আর নয়
প্রণোদনার টাকা আ. লীগ নেতারা নিয়ে যাচ্ছে: ফখরুল

শেয়ার করুন

করোনার ক্ষতি কাটাতে ২ হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে এডিবি

করোনার ক্ষতি কাটাতে ২ হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে এডিবি

করোনা মহামারির ক্ষতি দ্রুত কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে এ সহায়তা দেয়া হচ্ছে। চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেট সহায়তা হিসেবে বাংলাদেশ সরকারকে এ অর্থ দেবে এডিবি। টেকসই অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কর্মসূচির উদ্দেশ্য হলো মহামারির ক্ষতি যত দ্রুত সম্ভব কাটিয়ে ওঠা।

করোনাভাইরাস মহামারির ধাক্কা দ্রুত কাটিয়ে উঠতে বাংলাদেশকে ২৫ কোটি ডলার ঋণ-সহায়তা অনুমোদন দিয়েছে ম্যানিলাভিত্তিক উন্নয়ন সংস্থা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। বর্তমান বিনিময়মূল্য হিসাবে (প্রতি ডলার ৮৫ টাকা ৩০ পয়সা) টাকার অংকে এই অর্থের পরিমাণ ২ হাজার ১৩২ কোটি টাকা।

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেট সহায়তা হিসেবে বাংলাদেশ সরকারকে এই অর্থ দেবে এডিবি।

ফিলিপাইনের রাজধানী ম্যানিলায় অবস্থিত সংস্থাটির সদরদপ্তর থেকে শনিবার এই অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে সংস্থাটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

টেকসই অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কর্মসূচির আওতায় এডিবি বাংলাদেশকে মোট ৫০ কোটি ডলার ঋণ-সহায়তা দেবে। এর প্রথম কিস্তির ২৫ কোটি ডলার শনিবার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

বাকি ২৫ কোটি ডলার আগামী বছরের প্রথম দিকে অনুমোদন করা হবে বলে এডিবি ঢাকা কার্যালয়ের বহিঃসম্পর্ক বিভাগের প্রধান গোবিন্দ বর নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করেনা মহামারির ক্ষতি দ্রুত কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতেই এই সহায়তা দেয়া হচ্ছে। টেকসই অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কর্মসূচির উদ্দেশ্য হলো মহামারির ক্ষতি যত দ্রুত সম্ভব কাটিয়ে ওঠা। এতে বলা হয়, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং ক্ষুদ্র-উদ্যোক্তা এবং ক্ষুদ্র ব্যবসার জন্য অর্থনৈতিক কার্যক্রম সম্প্রসারণ করার মাধ্যমেই অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার করতে হবে। তাহলেই টেকসই পুনরুদ্ধার নিশ্চিত হবে।

এডিবি বলেছে, ‘এই কর্মসূচি এমনভাবে পরিচালিত হবে, যাতে বাংলাদেশের মানুষের ব্যয় বৃদ্ধির ক্ষমতা বাড়ে। ক্ষুদ্র, কুটির এবং মাঝারি শিল্পখাতে (সিএমএসএমই) করোনার যে ক্ষতি হয়েছে তা দ্রুত পুনরুদ্ধার হয়।’

সংস্থাটি বলেছে, এ সহায়তা শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সামাজিক সুরক্ষা এবং অবকাঠামো খাতে সরকারের বিনিয়োগ বাড়াবে এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে গতি আনবে। সর্বোপরি অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কার্যক্রম বেগবান করতে সহায়তা করবে।

এডিবির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘এ সহায়তার আওতায় যেসব কর্মসূচি বাস্তবায়ন হবে, তা সরকারের অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার মূল লক্ষ্যগুলোর সাথেও সম্পর্কিত। সরকার ২০৩১ সালের মধ্যে উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হওয়ার যে আকাঙ্ক্ষা করছে, তা পূরণেও সহায়তা করবে।’

এডিবির প্রিন্সিপাল ফাইন্যান্সিয়াল ম্যানেজমেন্ট স্পেশালিস্ট শ্রীনিবাসন জনার্দনম বলেন, ‘এ কর্মসূচি আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো খাতে সরকারের ব্যয় বাড়াবে।বিনিয়োগ বাড়াতে অবদান রাখবে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের সহজ শর্তে ঋণ পেতে সহায়তা করবে।’

এডিবি আগামী ৫ বছরে (২০২১-২০২৫) বাংলাদেশকে ১ হাজার ২০০ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা দেবে। বর্তমান বিনিময় মূল্য হিসাবে টাকার অঙ্কে এ অর্থের পরিমাণ ১ লাখ ২ হাজার ৩২৪ কোটি টাকা। গত মঙ্গলবার নতুন এই কান্ট্রি পার্টনারশিপ স্ট্যাটেজি (সিপিএস) ঘোষণা করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাসের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে যে ঋণ সহায়তা দেয়া হচ্ছে তা নতুন সিপিএসের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই দেয়া হচ্ছে।

এ ​নিয়ে এডিবি ঢাকা কার্যালয়ের বহিঃসম্পর্ক বিভাগের প্রধান গোবিন্দ বর বলেন, গত বছরের মার্চে বাংলাদেশে করোনার প্রাদুর্ভাব দেখা দেওয়ার পর থেকেই এডিবি সার্বিক পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। স্বাস্থ্য ও সামাজিক সুরক্ষা, খাদ্য নিরাপত্তা, দক্ষতা উন্নয়ন, গ্রামীণ উন্নয়ন, পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন এবং আর্থিক খাতসহ অন্যান্য চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তা করতে এডিবি তার কর্মসূচির অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সমন্বয় করেছে।

তিনি আরও বলেন, চলতি বছরের জুনে সামাজিক সুরক্ষার জন্য ২৫ কোটি ডলার ঋণ দেয় এডিবি। সম্প্রতি করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা কিনতে দেয়া হয় ৯৪ কোটি ডলার। এ ছাড়া করোনা মোকাবিলার জন্য আরও কয়েকটি প্রকল্পে এডিবি ঋণ সহায়তা দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
মুদ্রানীতি জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সহায়ক নয় : সিপিডি
প্রণোদনার ঋণ কোথায় গেল, জানতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ নেই
প্রণোদনা: যারা ঋণ পেয়েছেন তাদের আর নয়
প্রণোদনার টাকা আ. লীগ নেতারা নিয়ে যাচ্ছে: ফখরুল

শেয়ার করুন

ব্রিকসের নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সদস্য হলো বাংলাদেশ

ব্রিকসের নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সদস্য হলো বাংলাদেশ

অর্থ মন্ত্রণালয়ের শনিবারের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট মার্কোস ট্রয়ো এক বার্তায় সদস্য হওয়ার বিষয়টি বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালকে অবহিত করেন। পাশাপাশি অর্থমন্ত্রীকে উষ্ণ অভিনন্দন জানান ট্রয়ো।

ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন ও দক্ষিণ আফ্রিকার সমন্বয়ে গঠিত জোট ব্রিকসের নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সদস্য হয়েছে বাংলাদেশ।

গত ২০ আগস্ট ব্যাংকের বোর্ড অব গভর্নরসের সভায় এ বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের শনিবারের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আনুষ্ঠানিকভাবে বিষয়টি জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট মার্কোস ট্রয়ো এক বার্তায় বিষয়টি অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালকে অবহিত করেন। পাশাপাশি অর্থমন্ত্রীকে উষ্ণ অভিনন্দন জানান ট্রয়ো।

বাংলাদেশের যোগ দেয়া নিশ্চিত হওয়ার মধ্য দিয়ে ২০১৫ সালে স্থাপিত বহুজাতিক ব্যাংকে ব্রিকস সদস্যের বাইরে এবারই প্রথম কোনো দেশ সদস্যপদ পেল।

এ বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়নের সাথে সাথে বৈদেশিক সহায়তার চাহিদাও বাড়ছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকে বাংলাদেশের যোগদানের বিষয়টি উভয়ের জন্য লাভজনক হবে।’

উন্নয়নকে টেকসই করতে এবং বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে একটি সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করতে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের অর্থায়ন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক এ পর্যন্ত সদস্য রাষ্ট্রগুলোর ভৌত ও সামাজিক অবকাঠামো এবং নগর উন্নয়ন সংক্রান্ত ৮০টি প্রকল্পে প্রায় ৩০ বিলিয়ন বা তিন হাজার কোটি ডলার ঋণ সহায়তা দিয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নিউ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের সহায়তা বাংলাদেশের টেকসই উন্নয়নে সহায়ক হবে।

আরও পড়ুন:
মুদ্রানীতি জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে সহায়ক নয় : সিপিডি
প্রণোদনার ঋণ কোথায় গেল, জানতে চায় কেন্দ্রীয় ব্যাংক
প্রণোদনার টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ নেই
প্রণোদনা: যারা ঋণ পেয়েছেন তাদের আর নয়
প্রণোদনার টাকা আ. লীগ নেতারা নিয়ে যাচ্ছে: ফখরুল

শেয়ার করুন