বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ তলানিতে

বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ তলানিতে

মে মাসে বেসরকারি খাতের ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ দশমিক ৫৫ শতাংশ, যা বাংলাদেশের ইতিহাসেই সর্বনিম্ন; মুদ্রানীতিতে বাংলাদেশ ব্যাংক যে লক্ষ্য ধরেছিল তার অর্ধেক।

বিনিয়োগ বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান নিয়ামক বেসরকারি খাতের ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি একেবারে তলানিতে নেমে এসেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বৃহস্পতিবার সর্বশেষ যে হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, মে মাসে বেসরকারি খাতের ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৭ দশমিক ৫৫ শতাংশ, যা বাংলাদেশের ইতিহাসেই সর্বনিম্ন; মুদ্রানীতিতে বাংলাদেশ ব্যাংক যে লক্ষ্য ধরেছিল তার অর্ধেক।

বাংলাদেশের উন্নয়নে সবচেয়ে বড় অবদান রাখছে যে বেসরকারি খাত, সেই খাতে এতো কম ঋণপ্রবৃদ্ধি আগে কখনই দেখা যায়নি।

এপ্রিল মাসে বেসরকারি খাতের ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ৮ দশমিক ২৯ শতাংশ। তার আগের মাস মার্চে ছিল ৮ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

২০১৭-১৮ অর্থবছরে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহে ১৬ দশমিক ৯৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল। আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি ছিল ১১ দশমিক ৩২ শতাংশ।

৩০ জুন শেষ হওয়া ২০২০-২১ অর্থবছরের শেষের মাসের আগে মাস মে মাস শেষে বেসরকারি খাতে ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৭১ হাজার ৮০৯ কোটি টাকা। আগের অর্থবছরের মে শেষে এর পরিমাণ ছিল ১০ লাখ ৮৯ হাজার ৫৫৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

মহামারির ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে সরকার ১ লাখ ২৮ হাজার কোটি টাকার যে প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছিল, তার ওপর ভর করে জুলাই-সেপ্টেম্বরে দেশে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধিতে গতি এসেছিল। কিন্তু অক্টোবর থেকে তা আবার কমতে শুরু করে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, মহামারির ধাক্কায় গত ২০১৯-২০ অর্থবছরের শেষ মাস জুনে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি কমে ৮ দশমিক ৬১ শতাংশে নেমে আসে। এরপর সরকারের প্রণোদনা ঋণে ভর করে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে এই প্রবৃদ্ধি বেড়ে ৯ দশমিক ২০ শতাংশ হয়। আগস্টে তা আরও বেড়ে ৯ দশমিক ৩৬ শতাংশে এবং সেপ্টেম্বরে ৯ দশমিক ৪৮ শতাংশে ওঠে।

কিন্তু অক্টোবরে এই প্রবৃদ্ধি কমে ৮ দশমিক ৬১ শতাংশে নেমে আসে। নভেম্বরে তা আরও কমে ৮ দশমিক ২১ শতাংশ হয়। ডিসেম্বরে সামান্য বেড়ে ৮ দশমিক ৩৭ শতাংশ হয়।

২০২১ সালের প্রথম মাস জানুয়ারিতে এই প্রবৃদ্ধি ছিল ৮ দশমিক ৪৬ শতাংশ। ফেব্রুয়ারি ও মার্চে ছিল যথাক্রমে ৮ দশমিক ৫১ ও ৮ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

একই হাল সরকারি ঋণপ্রবাহেও

প্রবৃদ্ধি কমেছে সরকারি খাতের ঋণপ্রবাহেও। মে শেষে সরকারি খাতে ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৯৭ হাজার ৪৭৮ কোটি ৮০ টাকা, যা গত বছরের মে মাসের চেয়ে ২১ দশমিক ৫১ শতাংশ বেশি।

আগের মাস এপ্রিলে এই ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি ছিল ১১ দশমিক ১৬ শতাংশ। মার্চে প্রবৃদ্ধি হয়েছিল ৩৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

গত ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে সরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি ছিল প্রায় ৬০ শতাংশ। ২০১৮-১৯ অর্থবছর শেষে ছিল ১৯ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

২০২০-২১ অর্থবছরের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরের মুদ্রানীতিতেও এই একই লক্ষ্য ধরা ছিল, বিপরীতে ঋণ বেড়েছিল ৮ দশমিক ৬১ শতাংশ।

ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর নিউজবাংলাকে বলেন, মহামারির এক বছরেরও বেশি সময় ধরে প্রণোদনার ঋণ ছাড়া ব্যাংকগুলো অন্য কোনো ঋণ বিতরণ করেনি। এখন সে ঋণ বিতরণও শেষের দিকে। সে কারণেই বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবৃদ্ধি তলানিতে নেমে এসেছে।

তিনি বলেন, ‘মাঝে প্রণোদনার ঋণের কারণে কয়েক মাস বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি কিছুটা বাড়লেও এখন তা আবার কমে এসেছে। এখন সেটা আরও কত কমবে; সেটাই উদ্বেগের বিষয়।

‘তার চেয়েও বড় উদ্বেগের হচ্ছে, এই বিশাল অঙ্কের প্রণোদনার ঋণ ব্যাংকগুলো দিলো, তা যদি ঠিকমতো আদায় না হয়, তাহলে গোটা ব্যাংকিং খাতে বিপর্যয় নেমে আসবে।’

আহসান মনসুর বলেন, ‘এমনিতেই ব্যাংকগুলো খেলাপি ঋণের ভারে জর্জরিত। তারপর প্রণোদনার ঋণও যদি আদায় না হয়, সেটা সর্বনাশ ডেকে আনবে।’

এখনই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে ব্যাংক ও সরকারকে সতর্ক করে দেন তিনি।

গত বছরের ২৯ জুলাই বাংলাদেশ ব্যাংক ২০২০-২১ অর্থবছরের যে মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছিল, তাতে মোট অভ্যন্তরীণ ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা ছিল ১৯ দশমিক ৩ শতাংশ; যার মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য হচ্ছে যথাক্রমে ৪৪ দশমিক ৪ শতাংশ ও ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক বৃহস্পতিবার যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে মে মাস শেষে দেশে মোট অভ্যন্তরীণ ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ ৬৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা। এর মধ্যে বেসরকারি খাতে বিতরণ করা ঋণ ১১ লাখ ৭১ হাজার ৮০৮ কোটি ৯০ লাখ টাকা। সরকার নিয়েছে ১ লাখ ৯৭ হাজার ৪৭৮ কোটি ৮০ লাখ টাকা।

গত বছরের মে শেষে মোট অভ্যন্তরীণ ঋণের পরিমাণ ছিল ১২ লাখ ৮১ হাজার ৯২৭ কোটি ৩০ লাখ টাকা। যার মধ্যে বেসরকারি খাতে ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ছিল ১০ লাখ ৮৯ হাজার ৫৫৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা। আর সরকারের ঋণ ছিল ১ লাখ ৬২ হাজার ৫১৮ কোটি টাকা।

এ হিসাবেই মে শেষে অভ্যন্তরীণ ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৯ দশমিক ২২ শতাংশ। সরকারি ঋণের ২১ দশমিক ৫১ শতাংশ; আর বেসরকারি খাতে ৭ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

২০০৭-০৮ মেয়াদে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করা মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটা খুবই উদ্বেগের যে, বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি সর্বনিম্ন পর্যায়ে নেমে এসেছে। কোভিড-১৯ মহামারি কবে স্বাভাবিক হবে, তা কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছে না। এই অবস্থায় বেসরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি কোথায় নেমে আসবে সেটাই চিন্তার বিষয়।’

তিনি বলেন, বিনিয়োগ বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান নিয়ামক হচ্ছে বেসরকারি ঋণ। সেই ঋণ যদি না বাড়ে, তাহলে দেশে বিনিয়োগ বাড়বে না। দেশি বিনিয়োগ না হলে, বিদেশি বিনিয়োগও আসবে না। আর বিনিয়োগ না বাড়লে কর্মসংস্থান হবে না। অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার হবে না। কাঙ্ক্ষিত জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে না।

বেসরকারি মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের (এমটিবি) ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মাহবুবুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আসলে এখন ঋণের চাহিদাই নেই। সাম্প্রতিককালে যেসব খাতে ভালো ঋণ প্রবৃদ্ধি হয়েছে, সেখানে নতুন বিনিয়োগ হচ্ছে না। করোনা পরিস্থিতি শেষ অবধি কোথায় গিয়ে ঠেকে, কবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে- সে জন্য উদ্যোক্তারা অপেক্ষা করছেন।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য