সরকারের খরচ কমাচ্ছে ‘নগদ’

সরকারের খরচ কমাচ্ছে ‘নগদ’

তিন মাসে চার প্রান্তিকের উপবৃত্তি ও শিক্ষা উপকরণ কেনার ভাতা ‘নগদ’এর মাধ্যমে বিতরণ সম্ভব হয়েছে। এছাড়া ৩০০ কারিগরি ও মাদ্রাসা এবং আট হাজার শিক্ষক-কর্মচারী-ছাত্রকে সাড়ে ৫ কোটি টাকার সরকারি সহায়তাও দেয়া হয়েছে ‘নগদ’ এর মাধ্যমে। মাধ্যমিক পর্যায়ের ৪০ লাখ শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি বিতরণ করছে বেসরকারি এমএফএস অপারেটর বিকাশ। নগদ আসার আগে এ ধরনের উপবৃত্তির টাকা পাঠাতে সরকারের খরচ হতো প্রতি হাজারে ২২ টাকা, এখন সেখানে খরচ হচ্ছে মাত্র ৭ টাকা।

শিক্ষার্থীদের জন্য উপবৃত্তি অর্থ প্রদান, শিক্ষা উপকরণ কেনার ভাতা বা সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচি- ভিজিএফ এর মতো জনগুরুত্বপূর্ণ অনেক কার্যক্রম এখন মোবাইল ব্যাংকের মাধ্যমেই পরিচালিত হচ্ছে।

রাষ্ট্রের এ ধরনের জনকল্যাণমুখী আর্থিক সেবা (​এমএফএস) কার্যক্রম ডিজিটালাইজেশনের আওতায় আসায় একদিকে সরকারের ব্যয় সাশ্রয় হচ্ছে, অন্যদিকে সার্বিক কার্যক্রমে লেগেছে স্বচ্ছতার ছোঁয়া। যা আগে ভাবাও যেতো না।

‘ভাতা বিতরণে ডিজিটাল প্রযুক্তি: স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার নিশ্চয়তা’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারের মূল প্রবন্ধ এই দাবি করা হয়েছে।

শনিবার টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ (টিআরএনবি) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

মূল প্রবন্ধে বলা হয়, সরকারের ধরনের অন্তর্ভুক্তিমূলক আর্থিক কর্মকাণ্ডে এখন যুক্ত হয়েছে ডাক বিভাগের সর্বাধুনিক প্রযুক্তির মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস এমএফএস অপারেটর ‘নগদ’। এই সার্ভিসের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় শিক্ষার্থীদের মায়ের মোবাইলে উপবৃত্তির টাকা পাঠানো হয়েছে। এতে প্রাথমিকের ১ কোটি ৪০ লাখ শিক্ষার্থীর মাঝে উপবৃত্তি ও শিক্ষা উপকরণ কেনার ভাতা বিতরণ করা হয়েছে নগদের মাধ্যমে।

এ প্রক্রিয়ায় মাত্র তিন মাসে চার প্রান্তিকের উপবৃত্তি ও শিক্ষা উপকরণ কেনার ভাতা ‘নগদ’এর মাধ্যমে বিতরণ সম্ভব হয়েছে। এছাড়া ৩০০ কারিগরি ও মাদ্রাসা এবং আট হাজার শিক্ষক-কর্মচারী-ছাত্রকে সাড়ে ৫ কোটি টাকার সরকারি সহায়তাও দেয়া হয়েছে ‘নগদ’ এর মাধ্যমে।

মাধ্যমিক পর্যায়ের ৪০ লাখ শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি বিতরণ করছে বেসরকারি এমএফএস অপারেটর বিকাশ।

নগদ আসার আগে এ ধরনের উপবৃত্তির টাকা পাঠাতে সরকারের খরচ হতো প্রতি হাজারে ২২ টাকা, এখন সেখানে খরচ হচ্ছে মাত্র ৭ টাকা।

সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচি- ভিজিএফ বিতরণের পরীক্ষামূলক কার্যক্রমেও যুক্ত হয়েও সরকারকে সফলতার মুখ দেখিয়েছে ‘নগদ’।

উদাহরণ টেনে বলা হয়, গত বছর প্রধানমন্ত্রী ৫০ লাখ পরিবারকে ঈদ উপহার পাঠাতে চাইলেও এই উপকারভোগী পরিবারের সংখ্যা ছিল মাত্র ৩৪ লাখ। এক্ষেত্রে উপহার না পাওয়া অবশিষ্ট ১৬ লাখ মানুষের নাম-ঠিকানার হিসাব পাওয়া গেছে ভুয়া। এতে সরকারের সাশ্রয় হয়েছে ৩৮৫ কোটি টাকা।

সরকারের সেবা কার্যক্রমে ডিজিটালাইজেশনের কারণেই এই ভুয়া হিসাব শনাক্ত এবং সরকারের অর্থ সাশ্রয় করা সম্ভব হয়েছে।

সরকারের খরচ কমাচ্ছে ‘নগদ’
‘ভাতা বিতরণে ডিজিটাল প্রযুক্তি: স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার নিশ্চয়তা’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে বক্তারা

টিআরএনবি সভাপতি রাশেদ মেহেদীর সঞ্চালনায় ওয়েবিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার দে। প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ।

অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন ‘নগদ’ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর, বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির, সমাজসেবা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শেখ রফিকুল ইসলাম, প্রাথমিক শিক্ষার উপবৃত্তি প্রকল্প পরিচালক মো. ইউসুফ আলী, অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকম অপারেটরস অব বাংলাদেশের (অ্যামটব) সাবেক মহাসচিব টিআইএম নুরুল কবীর।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বের কাছে বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল দেশ হিসেবে পরিচিতি পাচ্ছে। এটা সহজ হয়েছে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আর্থিক সেবা (এমএফএস) পৌঁছে দিতে পারার কারণে।

‘এমনকি যারা হতদরিদ্র ও ডিজিটাল শব্দও বুঝে না এমএফএস সেবাদাতারা তাদের কাছেও সেবা পৌঁছানোর ব্যবস্থা করেছে। বিশ্বের অনেক দেশই এই সার্ভিসটিকে এতটা জনপ্রিয় করতে পারেনি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সফল, এখন আমাদের লক্ষ্য হলো পুরো আর্থিক সিস্টেমটাকে ক্যাশলেস সোসাইটির দিকে নিয়ে যাওয়া।

‘মানুষের জীবনকে আরও সহজলভ্য করতে প্রকৃত এমএফএসদের আরও এগিয়ে আসতে হবে। তাদের নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ করতে হবে। এর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সহযোগিতাও দরকার হবে।’

মন্ত্রী উচ্চগতির ইন্টারনেট ব্যবস্থার ওপর জোর দিয়ে বলেন, ‘এমএফএসসহ সেবা সহ সার্বিক আর্থিক কার্যক্রমে ডিজিটালাইজেশন আনতে উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবার দরকার হবে। দেশের প্রতিটি ইউনিয়ন চলতি বছরের মধ্যেই এই উচ্চগতির ইন্টারনেটের আওতায় আসবে।’

সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ডিজিটাল দেশ হিসেবে সারা বিশ্বের কাছে খ্যাতি পেয়েছে বাংলাদেশ। ফলে এই করোনার মধ্যেও ডিজিটালাইজেশনের সুফল পাচ্ছে দেশ।

‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় বয়ষ্কভাতা, বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা ও প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থী উপবৃত্তি প্রদানসহ ডিজিটাল পদ্ধতিতে প্রায় এক কোটি ভাতাভোগীকে ভাতা প্রদানে সক্ষম হয়েছে।’

স্বচ্ছ প্রক্রিয়ায় ভাতা দেয়া হয়েছে জানিয়ে ‘নগদ’ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক বলেন, ‘এমএফএসে ভাতা দেয়ার মাধ্যমে সঠিক ব্যক্তির কাছে ভাতা দেয়া সম্ভব হয়েছে। এর ফলে সরকারের অনেক টাকা সাশ্রয় করা সম্ভব হয়েছে।’

তিনি জানান, গত এক বছরের কিছু বেশি সময়ের মধ্যে ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস অপারেটর ‘নগদ’ সরকারের হয়ে আড়াই কোটিরও বেশি মানুষকে ৭ কোটিবার বিভিন্ন ভাতা ও সহায়তা পৌঁছে দিয়েছে।

এক্ষেত্রে যাদের ভুয়া ঠিকানা ছিল বা এনআইডি ম্যাচ করেনি তারা পায়নি। নগদ প্রতিটি মানুষের ডেটা যাচাই করে সঠিক মানুষকে টাকা পৌঁছে দিয়েছে। এতে প্রকৃত লোক যেমন ভাতা পেয়েছে, একইভাবে এতে সরকারেরও সাশ্রয় হয়েছে বিরাট অঙ্কের টাকা।

বিশ্বের অনেক দেশই ক্যাশলেস সোসাইটিতে পরিণত হয়েছে জানিয়ে বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির বলেন, ‘আমরাও তেমনটিই হতে চাই। এর জন্য দরকার ইন্টার-​অপারেবিলিটি নিশ্চিত করা। এটা করা গেলে বাংলাদেশকেও ডিজিটাল ক্যাশলেস সোসাইটিতে গড়ে তোলা সম্ভব হবে।’

আরও পড়ুন:
‘নগদ’-এ আড়াই কোটি মানুষকে ৭ কোটিবার ভাতা
আরও ৩ মাস সময় পেল নগদ
‘নগদ’-এর লাইসেন্স: আরও সময় চায় ডাক বিভাগ
মোবাইল ব্যাংকিং: আঞ্চলিক রোল মডেল ‘নগদ’
‘নগদ’ এর অভিযোগে তিন ‘প্রতারক’ গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

মন্তব্য