আরও ৩ মাস সময় পেল নগদ

আরও ৩ মাস সময় পেল নগদ

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘ডাক বিভাগের আবেদন বিচার-বিবেচনা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের আরও ৩ মাস সময় দিয়েছে। এর মধ্যে সব প্রক্রিয়া শেষ করতে হবে। এরপর তারা চূড়ান্ত অনুমোদন পাবে।’

ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস নগদের অন্তবর্তীকালীন অনুমোদনের মেয়াদ আরও তিন মাসের জন্য বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ডাক বিভাগকে চিঠি দিয়ে নগদের অনুমোদনের মেয়াদ ৩০ সেপ্টেম্বের পর্যন্ত বাড়ানোর কথা জানানো হয়। এই সময়ের ভেতর অপারেটরটিকে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে চূড়ান্ত অনুমোদন নিতে হবে।

বিষয় নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘ডাক বিভাগের আবেদন বিচার-বিবেচনা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক তাদের আরও ৩ মাস সময় দিয়েছে। এর মধ্যে সব প্রক্রিয়া শেষ করতে হবে। এরপর তারা চূড়ান্ত অনুমোদন পাবে।’

নগদের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক বলেন, ‘করোনার কারণে দাপ্তরিক অনেক কাজে বিঘ্ন ঘটায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বাংলাদেশ ব্যাংকের চাহিদা অনুসারে সকল দাপ্তরিক কাজ শেষ করতে পারেনি। এরপরও জনগণের সেবা যেন ব্যাহত না হয়, এ কারণে আরও তিন মাস অন্তবর্তীকালীন অনুমোদনের মেয়াদ বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।’

ডাক বিভাগের সাবসিডিয়ারি কোম্পানি হিসেবে নগদকে পরিচালনার জন্য সরকারের দিক থেকে প্রক্রিয়াগত কার্যক্রম চললেও এ ক্ষেত্রে আইন সংশোধনসহ প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের মতো দীর্ঘমেয়াদী বিষয় জড়িত। এ কারণে নগদের সেবা পরিচালনা সংক্রান্ত কেন্দ্রীয় ব্যাংকের অনাপত্তির মেয়াদ ছয় মাস বাড়াতে আবেদন করেছিল ডাক অধিদপ্তর।

এর আগে চলতি মাসের শুরুর দিকে বাংলাদেশ ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে এ সংক্রান্ত একটি বৈঠক করে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ। বিভাগের সচিব মো. আফজাল হোসেনের সভাপতিত্বে ওই বৈঠকেই সময় বাড়ানোর জন্য আবেদন করার সিদ্ধান্ত হয়।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে সরকারি সাধারণ ছুটি থাকা এবং এ কারণে সাবসিডিয়ারি কোম্পানি গঠনের কার্যক্রম শেষ করতে বাড়তি সময় লেগেছে। সাবসিডিয়ারি কোম্পানি গঠনের জন্য এরই মধ্যে মেমরেন্ডাম অফ অ্যাসোশিয়েশন (এওএ), আর্টিকেল অফ অ্যাসোশিয়েশন (এওএ) এবং ভেন্ডর অ্যাগ্রিমেন্টের খসড়া তৈরি হলেও সেটি সরকারের চূড়ান্ত অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ ব্যাংক নগদের পরিচালনার জন্য যে অন্তবর্তীকালীন অনুমোদন দেয় তার মেয়াদ জুনের ৩০ তারিখ শেষ হবে।

সে ক্ষেত্রে নগদের পরিচালন সংক্রান্ত কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখা এবং পাঁচ কোটি গ্রাহকের সেবা অব্যাহত রাখার জন্যই বৈঠক থেকে সকল সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে বর্ধিত সময়ের জন্য আবেদন করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল।

২০১৯ সালের ২৬ মার্চ প্রধানমন্ত্রীর হাত দিয়ে উদ্বোধন হয় ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সেবা নগদ। শুরু থেকেই উদ্ভাবনী ও সাশ্রয়ী সেবা নিয়ে বাজারে যাত্রা করা নগদ মাত্র দুই বছরের কিছু বেশি সময়ের মধ্যে পাঁচ কোটির বেশি গ্রাহক ভিত্তি তৈরি করেছে।

সারাদেশে এক লাখ ৫৫ হাজার এজেন্ট ও দুই লাখ ৩৮ হাজার উদ্যোক্তার মাধ্যমে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের ব্যাংকিং সেবার বাইরে থাকা মানুষকে সেবা দিয়েছে নগদ। এই সফলতার কারণে বিশ্বখ্যাত কোম্পানিগুলো নগদে বিনিয়োগ করতে আগ্রহী বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

বাংলাদেশের আর্থিক খাতে ইলেক্ট্রনিক কেওয়াইসির প্রচলন করা এবং মোবাইল ফোন অপারেটরদের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে যে কোনো মোবাইল ফোন থেকে *১৬৭# ডায়াল করে মুহূর্তেই অ্যাকাউন্ট খোলার পদ্ধতির কারণে দ্রুত জনপ্রিয় হয় সেবাটি।

বর্তমানে এমএফএস অপারেটরটি দৈনিক ৭০০ কোটি টাকার বেশি লেনদেন করছে। এছাড়া কোভিড পরিস্থিতিতে সরকারি সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির ভাতা এবং অন্যান্য সরকারি সহায়তা বিতরণও করা হয় নগদের মাধ্যমে।

আরও পড়ুন:
‘নগদ’-এর লাইসেন্স: আরও সময় চায় ডাক বিভাগ
মোবাইল ব্যাংকিং: আঞ্চলিক রোল মডেল ‘নগদ’
‘নগদ’ এর অভিযোগে তিন ‘প্রতারক’ গ্রেপ্তার
নগদ টাকার বড় চাহিদা
নগদ অ্যাপে মেটলাইফের প্রিমিয়াম জমা  

শেয়ার করুন

মন্তব্য