বিমার পর এবার বস্ত্র নিয়ে উদ্বেগ

বিমার পর এবার বস্ত্র নিয়ে উদ্বেগ

ফাইল ছবি

চলতি সপ্তাহের শুরু থেকে বস্ত্র খাতের দাপটও অনেকটা ম্লান হয়েছে। ফলে বিমার পর যারা বস্ত্র খাতের প্রতি বেশি আগ্রহী হয়েছিলেন, তারা এখন উদ্বেগে বিনিয়োগ ফিরে পাওয়া নিয়ে।

গত দুই মাসে বস্ত্র খাতের যে উত্থান দেখা গিয়েছিল, তার কিছুটা গতি হারিয়ে এখন উদ্বেগের জায়গায় যেতে শুরু করেছে। গত সপ্তাহের মাঝামাঝি সময় থেকে বিমার শেয়ারের যে দাপট ছিল, সেটি বস্ত্র খাতের দখলে যেতে দেখা গেছে। কিন্তু চলতি সপ্তাহের শুরু থেকে বস্ত্র খাতের সেই দাপটও অনেকটা ম্লান।

ফলে বিমার পর যারা বস্ত্র খাতের প্রতি বেশি আগ্রহী হয়েছিলেন, তারা এখন উদ্বেগে বিনিয়োগ ফিরে পাওয়া নিয়ে।

মঙ্গলবার দিন শেষে বস্ত্র খাতের মোট লেনদেন হয়েছে ২০৯ কোটি টাকা। যেখানে গত ২৪ জুন লেনদেন হয়েছিল এই সময়ে সবচেয়ে ৪৩৯ কোটি টাকা।

বিপরীত অবস্থায় বিমা খাতের মঙ্গলবার লেনদেন হয়েছে ১৬৩ কোটি টাকা। আর ২৪ জুন এ খাতের লেনদেন ছিল ১৮৯ কোটি টাকা।

লেনদেন হওয়া ৫০টি বিমা কোম্পানির মধ্যে দর কমেছে ২৮টির। বেড়েছে ২০টির। দুটির দর পাল্টায়নি।

বিপরীত অবস্থায় বস্ত্র খাতের ৫৮টি কোম্পানির মধ্যে মাত্র ১৩টির শেয়ার দর বেড়েছে। বাকি ৪৫টি কোম্পানির শেয়ার দর কমেছে।

বস্ত্র খাতের কোম্পানিগুলোর অর্থবছর শেষ হচ্ছে জুনে। দু-তিন মাসের মধ্যে পর্যায়ক্রমে এ খাতের কোম্পানিগুলো লভ্যাংশ ঘোষণা করবে। ফলে এ খাতের প্রতি মার্চের শেষ থেকেই বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ দেখা গেছে। কিন্তু জুনের শেষে এসে এ খাতের হঠাৎ দরপতন নতুন উদ্বেগ তৈরি করেছে।

শাটডাউন নামে পরিচিতি পাওয়া কঠোর লকডাউন শুরু হওয়ার কথা ছিল সোমবার থেকে। পরে তা পিছিয়ে বৃহস্পতিবার করা হয়। তবে সরকারের পক্ষ থেকে এরই মধ্যে লকডাউনের বিধিনিষেধের কারণে গণপরিবহন, শপিংমল বন্ধ রয়েছে। তবে বৃহস্পতিবার থেকে সাত দিনের কঠোর শাটডাউনে যাচ্ছে সরকার।

এ সময় জনগণের চলাচলে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে, যা বুধবার আরও স্পষ্ট করা হবে। তবে শাটডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেন চলবে কি না, তা বুধবার জানা যাবে। এরই মধ্যে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এ সময়ে ব্যাংকের কার্যক্রম চালু থাকলে পুঁজিবাজারের লেনদেনও চলবে।

লেনদেন সম্পর্কে পুঁজিবাজার বিশ্লেষক আবু আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, বিমা খাতের শেয়ার নিয়ে অনেক আলোচনা হয়েছে, সমালোচনা হয়েছে। তারপরও অনেক বিনিয়োগকারী অতিমূল্যায়িত শেয়ারে বিনিয়োগ করেছেন। তারা মুনাফা পেলে ভালো, তবে অতিমূল্যায়িত শেয়ারে বিনিয়োগ না করে এখনও ফান্ডামেন্টাল যেসব কোম্পানির শেয়ার দর বাড়েনি, সেগুলোতে বিনিয়োগ করা যেতে পারে।

তিনি বলেন, বস্ত্র খাতের শেয়ার দরে উত্থান-পতন আছে। সেটি ভালো। তবে এ খাতেরও অনেক শেয়ারের ফান্ডামেন্টাল ভালো না। সেগুলোর প্রতিও সতর্ক থাকা উচিত।

বিমা বস্ত্রে পতনের ছাপ

গত কয়েক সপ্তাহে দর বৃদ্ধির তালিকায় স্থান করে নেয়া বস্ত্র খাতের বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ার দর গত কয়েকদিন ধরে কমছে। দর পতন হওয়া শীর্ষ ১২টি কোম্পানির মধ্যে ৯টি ছিল বস্ত্র খাতের।

সোনাগাঁও টেক্সটাইলের শেয়ার দর ২৮ জুন ছিল ২৮ টাকা। একদিনের ব্যবধানে বুধবার শেয়ার প্রতি ২ টাকা কমে হয়েছে ২৬ টাকা। মঙ্গলবার দর পতন হওয়া শীর্ষ দর কোম্পানির মধ্যে এটি ছিল দ্বিতীয় স্থানে। এদিন কোম্পানিটির শেয়ার দর কমেছে ৭.১৪ শতাংশ।

ম্যাকশন স্পিনিংয়ের শেয়ার দর কমেছে ৬.২৭ শতাংশ। কুইন সাউথ টেক্সটাইল মিলসের শেয়ার দর কমেছে ৫.১৩ শতাংশ।

মতিন স্পিনিং মিলসের শেয়ার দর কমেছে ৪.৯৫ শতাংশ। এস্কোয়ার নিট কম্পোজিট লিমিটেডের শেয়ার গত ২৭ জুন ছিল ৪৩ টাকা ২০ পয়সা। মঙ্গলবার তা কমে হয়েছে ৩৯ টাকা ৫০ পয়সা। এদিন কোম্পানিটির শেয়ার দর কমেছে ৪.৮২ শতাংশ।

প্রাইম টেক্সটাইল স্পিনিং মিলস লিমিটেডের শেয়ার দর ২৭ জুন ছিল ২৩ টাকা ৭০ পয়সা। মঙ্গলবার লেনদেন শেষে হয়েছে ২১ টাকা ২০ পয়সা। এদিন কোম্পানিটির শেয়ার দর কমেছে ৪.৫০ শতাংশ।

মেট্টো স্পিনিংয়ের শেয়ার দর কমেছে ৩.৮৫ শতাংশ। সিমটেক্স ইন্ডাস্ট্রিসের শেয়ার দর কমেছে ৩.৭৮ শতাংশ।

ড্রাগন সোয়েটার অ্যান্ড স্পিনং লিমিটেডে শেয়ার দর গত দুই দিনে কমেছে ১৯ টাকা ১০ পয়সা শেয়ার নেমে এসেছে ১৮ টাকা ২০ পয়সায়।

আলিফ ইন্ডাস্ট্রি লিমিটেডের শেয়ার দর বুধবার ছিল ৩৮ টাকা ১০ পয়সা। গত ২২ জুন শেয়ার প্রতি দর ছিল ৪৩ টাকা ৮০ পয়সা। এই সময়ের পর ক্রমাগত দর কমেছে কোম্পানিটির।

একই সঙ্গে বিমা খাতের শেয়ারের দরও কমেছে মঙ্গলবার। দিনের সবচেয়ে বেশি দর পতন হওয়া কোম্পানির তালিকায় ছিল বিমা খাতের প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৯.৫৩ শতাংশ। এ ছাড়া, পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর কমেছে ৫.৭৩ শতাংশ।

বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির শেয়ার দরও কমেছে মঙ্গলবার। এদিন কোম্পানিটির ৩.৭২ শতাংশ শেয়ার দর কমেছে।

ফারইস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর কমেছে ৩.৬০ শতাংশ। মেঘনা লাইফ, এশিয়া ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর কমেছে সাড়ে তিন শতাংশ পর্যন্ত।

সূচক ও লেনদেন

ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১৫ দশমিক ৮৪ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৪২ পয়েন্টে।

শরিয়াহভিত্তিক কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসইএস ৩ দশমিক ৫৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২৯৮ পয়েন্টে।

বাছাই করা কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএস-৩০ সূচক আগের দিনের তুলনায় ৯ দশমিক ১৮ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ১৮৫ পয়েন্টে।

এদিন মোট লেনদেন হয়েছে ১ হাজার ১৪৮ কোটি টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৩২৮ কোটি টাকা।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ৩৩ দশমিক ৭৬ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৪৭৩ পয়েন্টে। লেনদেন হয়েছে ৫৪ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন:
আতঙ্কে পতনের পর লকডাউনের দিন এবারও উত্থান
লকডাউন আতঙ্কে শেয়ার বেচে এখন কিনছে বিনিয়োগকারীরা
লকডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেনেও নেই পরিবর্তন
লকডাউনে লাভবান, তবু শাটডাউন নিয়ে আতঙ্ক
পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বর্ষায় জমেনি নৌকা কেনাবেচা

বর্ষায় জমেনি নৌকা কেনাবেচা

মানিকগঞ্জের ঘিওরের ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাটে এ বছর বেচা-কেনা কম হচ্ছে। ছবি: নিউজবাংলা

নৌকা বিক্রেতা কৃষ্ণ রায় বলেন, ‘গত বছর যে নৌকা বিক্রি করছি সাড়ে ৪ হাজার টাকায়, এ বছর সেই নৌকা সাড়ে ৩ হাজার টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। শুধু পানি না হওয়ায় প্রতিটা নৌকায় ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা ধরা।’

মানিকগঞ্জের ঘিওরে ধলেশ্বরী নদীর পাশে মাঠজুড়ে দেখা মিলবে বিভিন্ন আকারের শ শ বাহারি কাঠের নৌকা। প্রতিবছর বর্ষায় এখানে বসে ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাট।

ঘিওর সরকারি কলেজ ও ঈদগাঁর মাঠে বর্ষাজুড়ে প্রতি বুধবার বসে এই হাট।

সেখানে মানিকগঞ্জ ছাড়াও আশপাশের জেলার মানুষ আসেন পছন্দের নৌকা কিনতে। বরাবরই জমজমাট থাকে এই হাট; বেচাকেনা হয় শ শ নৌকা।

হাটের পাশেই ধলেশ্বরী নদী থাকায় নৌকা কিনে সেই নৌকায় করেই বাড়ি ফেরেন ক্রেতারা। তবে এ বছর বেচাকেনা একেবারে কম বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

এর কারণ হিসেবে তারা বলছেন, বর্ষায় পানি কম হওয়ায় ঘোড়ার গাড়ি ও ভ্যানে করে নৌকা বাড়িতে নিতে হচ্ছে। পরিবহন ব্যয় বেশি হওয়ায় নৌকার ক্রেতা কমেছে।

শিবালয়ের শাহিলী এলাকার নৌকা ক্রেতা মোসলেম উদ্দিন বলেন, ‘শাহিলী এলাকা অনেক নিচা। টানা কয়েক দিন বৃষ্টি হইলেই পানি হইয়্যা যায়। আর বর্ষাকালে নৌকা ছাড়া বাড়ি থেকে বাইর হওয়া যায় না। এই কারণে হাটে আইস্যা ১৭০০ টাকা দিয়্যা ১১ হাতের একটা নৌকা কিনলাম।’

বর্ষায় জমেনি নৌকা কেনাবেচা

দৌলতপুরের আরেক ক্রেতা আজিজুল রহমান বলেন, ‘আমাগো বারোমাসই নৌকা লাগে। বিশেষ কইর‌্যা বর্ষাকালে নৌকা ছাড়া কোথাও যাওয়া যায় না। রাস্তাঘাট পানির তলায় থাকে। এইবার পানি না হওয়ায় নৌকার দাম একবারে সস্তা। আরেকটু সস্তায় পাইলে কয়েকটা কিনুম।’

হরিরামপুরের তবিজ উদ্দিন বলেন, বন্যা আইতেছে। তাই আগেই সস্তায় ভালো নৌকা কিনা রাখলাম। বন্যার সময় পানি বেশি হইলেই দাম বাড়ায় নৌকার কারিগররা।

নৌকা বিক্রেতা ঘিওরের কুস্তার ইকবাল হোসেন বলেন, ‘সাভার থেকে পাইকারি দরে নৌকা কিনে ঘিওরের হাটে বিক্রি করি। ঘিওর হাটে নৌকার অনেক চাহিদা। এই হাটে মানিকগঞ্জ ছাড়াও টাঙ্গাইল, নাগরপুর, সাভার, ধামরাইয়ের লোকজন নৌকা কিনতে আসেন। প্রতি হাটে শ শ নৌকা বেচাকেনা হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘পানির সঙ্গে নৌকার দামের একটা সম্পর্ক আছে। পানি হলে ভালো দাম পাই। আর না হলে মোটামুটি দামে বেচতে হয়। অনেক সময় লসও হয়।’

বর্ষায় জমেনি নৌকা কেনাবেচা

দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে নৌকা বিক্রেতা কৃষ্ণ রায় ঘিওর হাটে নৌকা বিক্রি করে আসছেন। তিনি এই হাটে চাম্বুল, স্টিলবডি, আকাশমনি, আম, জাম, কাঁঠাল গাছের কাঠ দিয়ে তৈরি বিভিন্ন আকারের বাহারি নৌকা বিক্রি করেছেন।

তিনি বলেন, ‘গত বছর যে নৌকা বিক্রি করছি সাড়ে ৪ হাজার টাকায়, এ বছর সেই নৌকা সাড়ে ৩ হাজার টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। শুধু পানি না হওয়ায় প্রতিটা নৌকায় ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা ধরা।’

ঘিওর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, ‘ঘিওরের ঐতিহ্যবাহী নৌকার হাটে প্রচুর নৌকা ওঠে। বিশেষ করে বন্যার আগে ও বন্যার মধ্যে হাটে ক্রেতা-বিক্রেতার ভিড় দেখা যায় সবচেয়ে বেশি। নদীতে বর্ষার পানি ঢুকলেই মানিকগঞ্জের দৌলতপুর, শিবালয় ও হরিরামপুরসহ উপজেলার নিম্নাঞ্চল তলিয়ে যায়। যার ফলে বর্ষা মৌসুমে এসব এলাকার মানুষের একমাত্র ভরসা ডিঙি নৌকা।’

এই হাটে আসা ক্রেতা-বিক্রেতাদের যেকোনো সমস্যায় সার্বিক সহযোগিতা করা হয় বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
আতঙ্কে পতনের পর লকডাউনের দিন এবারও উত্থান
লকডাউন আতঙ্কে শেয়ার বেচে এখন কিনছে বিনিয়োগকারীরা
লকডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেনেও নেই পরিবর্তন
লকডাউনে লাভবান, তবু শাটডাউন নিয়ে আতঙ্ক
পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

শেয়ার করুন

ব্যাংকে রাখলে টাকা কমে?

ব্যাংকে রাখলে টাকা কমে?

ব্যাংক খাতে আমানতের সুদ হার নিয়ে বাড়ছে হতাশা। ফাইল ছবি

বর্তমানে ব্যাংকের সুদহার এত কমে গেছে যে, টাকা রেখে যে সুদ আসছে, তা দিয়ে মূল্যস্ফীতির ঘাটতিই মেটানো সম্ভব হচ্ছে না। বর্তমানে আমানতের সুদহার সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ বেঁধে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এর ওপর বিভিন্ন মাশুল কাটার পর গড় সুদহার দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ১৩ শতাংশ।

অল্প দিন হলো বিয়ে করেছেন আরিফ ও সুস্মিতা। দুজনই চাকরিজীবী। আগামীর নিরাপত্তায় সংসারের শুরু থেকে সঞ্চয় করতে আগ্রহী এই দম্পতি, কিন্তু সঞ্চয়ের জন্য উপযুক্ত মাধ্যম কোনটি? ব্যাংক এবং সঞ্চয়পত্রের স্কিম যাচাই-বাছাই নিয়ে তৈরি হয়েছে দ্বিধাদ্বন্দ্ব।

তারা বলেন, প্রতি মাসে নির্ধারিত হারে অর্থ জমা করতে চান তারা। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকে নিরাপত্তা আছে, কিন্তু মুনাফার হার খুবই কম। আর জমানো কিছু টাকা আছে, সেটা রাখার ক্ষেত্রে সঞ্চয়পত্রে তুলনামূলকভাবে মুনাফার হার বেশি, তবে টিআইএনসহ নানা ক্ষেত্রে ঝক্কিঝামেলার শেষ নেই।

আরিফ এবং সুস্মিতার মতোই সিদ্ধান্তহীনতায় বেসরকারি চাকরিজীবী আনিসুর রহমান। নতুন চাকরি তার। এ জন্য মাসে যে বেতন পান, তা থেকে সঞ্চয় করতে চান কিছু টাকা। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকই তার কাছে ভরসার জায়গা। কিন্তু মুনাফার হার খুবই কম। তিনি বলেন, কয়েক বছর ধরে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিনিয়োগ করে পাঁচ বছর পর যে মুনাফা পাওয়া যাবে, তা আকাঙ্ক্ষার চেয়ে খুবই কম। অথচ কয়েক বছর আগেও মুনাফার হার ছিল বেশি, যা বিপদ-আপদে নিশ্চিত করত জীবনের নিরাপত্তা।

ব্যাংক খাতে আমানতের সুদহার নিয়ে বাড়ছে হতাশা।

বর্তমানে ব্যাংকের সুদহার এত কমে গেছে যে, টাকা রেখে যে সুদ আসছে, তা দিয়ে মূল্যস্ফীতির ঘাটতিই মেটানো সম্ভব হচ্ছে না। বর্তমানে আমানতের সুদহার সর্বোচ্চ ৬ শতাংশ বেঁধে দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এর ওপর বিভিন্ন মাশুল কাটার পর চলতি বছরের জুন শেষে ব্যাংক খাতে আমানতের গড় সুদ হার দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ১৩ শতাংশ। অবশ্য ব্যাংকভেদে এর চেয়ে সামান্য বেশি সুদ পাওয়া যায়। অথচ পাঁচ বছর আগেও সুদহার ছিল ৬ দশমিক ৮০ শতাংশ।

দেশে গত জুন শেষে গড় মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

এর অর্থ হলো, ব্যাংকে টাকা রাখলে তা কমে যায়।

ধরুন, ব্যাংকে কেউ ১০০ টাকা জমা রেখেছেন। সুদের হার ছয় ভাগ হলে বছর শেষে তিনি ১০৬ টাকা পাবেন। কিন্তু মূল্যস্ফীতির হারও যদি ছয় ভাগ হয়, তাহলে ১০০ টাকায় এখন যে পণ্য বা সেবা পাওয়া যায়, বছর শেষে তার জন্য ১০৬ টাকা খরচ করতে হবে। সে ক্ষেত্রে ব্যাংকে টাকা জমা রেখে সেই টাকা থেকে প্রকৃতপক্ষে কোনো আয় হবে না আমানতকারীদের।

আর সুদের হার ছয়ের নিচে নামা মানেই মূল্যস্ফীতি ও টাকার ক্রয়ক্ষমতা বিবেচনায় বছর শেষে মূল টাকা কমে যাচ্ছে।

ব্যাংকসংশ্লিষ্টরা জানান, কয়েক বছর আগেও ব্যাংকে মেয়াদি আমানত রেখে ৯ থেকে ১২ শতাংশ সুদ পাওয়া যেত। তবে ব্যাংকগুলোর কাছে প্রচুর অলস অর্থের কারণে হাতে গোনা দু-একটি ব্যাংক ছাড়া ৫ থেকে ৬ শতাংশের বেশি সুদ মিলছে না।

ব্যাংকভেদে বর্তমানে ৫ লাখ টাকায় বছরে ব্যাংক সুদ দেয় ৩০ থেকে ৩২ হাজার টাকা। এর মধ্যে কর শনাক্তকরণ (টিআইএন) নম্বর থাকলে কেটে নেয়া হয় ৩ হাজার টাকা। টিআইএন না থাকলে কাটা হয় সাড়ে ৪ হাজার টাকা। আর বছরে হিসাব পরিচালনার জন্য কাটা হয় ২৫০ টাকা। চেক বইয়ের জন্য আরও ৩০০ টাকা। এর ওপর কাটা রয়েছে ১৫ শতাংশ কর, যা ৮২ টাকা ৫০ পয়সা। আর প্রতিবছর সরকার আবগারি শুল্ক কেটে নেয় ৫০০ টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সুদহার নির্দিষ্ট করে দেয়ার কারণে ক্ষুদ্র আমানতকারীরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। দরিদ্র, মধ্যবিত্তদের মূল সম্পদ হচ্ছে টাকা। সামান্য টাকা তারা নিরাপদ বিনিয়োগ হিসেবে ব্যাংকে রাখেন। কিন্তু সুদ এত কম যে, তাদের টাকা কমে যাচ্ছে। ফলে সঞ্চয়ের অভ্যাস কমে যাবে।’

ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) আরফান আলী বলেন, ‘বর্তমানে আমানতে যে সুদ দেয়া হচ্ছে, তা মূল্যস্ফীতির চেয়ে কম। এর চেয়ে বেশি সুদ দেয়ার সুযোগও নেই। যারা আমানতের সুদের ওপর নির্ভরশীল, তাদের চলা আসলেই কঠিন হয়ে পড়েছে।’

মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের এমডি সৈয়দ মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘ঋণের সুদহার নির্দিষ্ট করে দেয়ায় ব্যাংকগুলো আমানতে বেশি সুদ দিতে পারছে না। এ জন্য যারা সুদের ওপর নির্ভরশীল, তাদের সমস্যা হচ্ছে। অনেকেই অন্যত্র চলে যাচ্ছেন। সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ করছেন। কিন্তু ব্যাংকে টাকা রাখা যত সহজ, সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ তত সহজ নয়। ফলে মানুষ ঘুরেফিরে ব্যাংকেই ফিরে আসছেন।’

ব্যাংকে রাখলে টাকা কমে?

কোন ব্যাংকে কত সুদ

জুন শেষে রাষ্ট্রীয় মালিকানার সোনালী, জনতা, অগ্রণী, রূপালী, বেসিক ও বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের গড় সুদহার ৪ দশমিক ৩৫ শতাংশ। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সুদ বেসিক ব্যাংকে ৬ দশমিক ১০ শতাংশ।

বিশেষায়িত কৃষি, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ও প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের গড় সুদহার ৫ দশমিক ৭৩ শতাংশ। এর মধ্যে রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক আমানতে ৭ দশমিক ৭০ শতাংশ সুদ দিচ্ছে।

বেসরকারি ব্যাংকগুলোর গড় সুদহার ৪ দশমিক ১৯ শতাংশ। এসব ব্যাংকের মধ্যে আমানতকারীদের বেশি সুদ দিচ্ছে পদ্মা ব্যাংক ৭ দশমিক ৬৮ শতাংশ, গ্লোবাল ইসলামী ব্যাংক ৭ দশমিক ১০ শতাংশ ও ন্যাশনাল ব্যাংক ৭ শতাংশ।

এ ছাড়া ইউনিয়ন ব্যাংক ৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ, বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক ৫ দশমিক ৮৮ শতাংশ , সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক ৫ দশমিক ৮৪, মেঘনা ৫ দশমিক ৫৯, এনআরবি ৫ দশমিক ৩৩, মধুমতি ব্যাংক ৫ দশমিক ২৪ ও মার্কেন্টাইল ব্যাংক ৫ দশমিক ০৯ শতাংশ আমানতে সুদ দিচ্ছে।

বিদেশি মালিকানার নয়টি ব্যাংকের আমানতে গড় সুদহার মাত্র দশমিক ৯৩ শতাংশ।

ব্যাংকে রাখলে টাকা কমে?

সুফল নেই সঞ্চয়ে

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, সব মিলিয়ে দেশে ব্যাংক খাতে আমানতের বিপরীতে গড় সুদহার ৪ দশমিক ১৩ ভাগ। অন্যদিকে একই মাসে সার্বিক মূল্যস্ফীতির হারও দাঁড়িয়েছে সাড়ে পাঁচ ভাগের বেশি। সুদহার যতটুকু, তার সবটাই আবার হাতে আসে না। কেটে রাখা হয় ব্যাংকের চার্জ ও সরকারের শুল্ক। এর মানে টাকার মূল্যমানের অবচয় বিবেচনায় আমানতকারী যে পরিমাণ টাকা রাখছেন, বছর শেষে পাচ্ছেন তার চেয়ে কম।

এ কারণে ব্যাংকে টাকা রেখে সঞ্চয়কারীরা এখন আর প্রকৃত অর্থে লাভবান হতে পারছেন না। বরং তাদের জমা করা টাকার মূল্যমান বা আয় কমে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

ব্যাংকের সুদহারের সাথে বড় ধরনের তফাতে গত কয়েক বছরে সাধারণ মানুষের টাকা জমা রাখার নির্ভরযোগ্য মাধ্যম হয়ে উঠেছিল সঞ্চয়পত্র। ব্যাংকের বাইরে এখন সঞ্চয়পত্রে টাকা রাখতে বেশি আগ্রহী আমানতকারীরা। তবে এখানে বিনিয়োগে নানা সীমাবদ্ধতা রয়েছে। বিশেষ করে কেউ সঞ্চয়পত্র কেনার পর এক বছরের মধ্যে ভাঙালে কোনো সুদ পান না। তবে সুদহার বেশি হওয়ার কারণে গত কয়েকটি অর্থবছরে এর বিক্রি সরকারের বাজেটে ধরা লক্ষ্যমাত্রাকে ছাড়িয়ে যেতে থাকে। ফলে বাড়তে থাকে সরকারের সুদব্যয়।

এমন অবস্থায় সঞ্চয়পত্র বিক্রির রাশ টানতে গত বছরের জুলাই থেকে সঞ্চয়পত্র কেনার ক্ষেত্রে টিআইএন ও ব্যাংক হিসাব বাধ্যতামূলক করে দেয় সরকার। অনলাইনে আবেদনের পাশাপাশি উৎসে করের হার পাঁচ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হয়।

ব্যাংক ও সঞ্চয়পত্রের বাইরে বিনিয়োগের একটি বড় জায়গা সরকারের বিল ও বন্ড। তবে এখানে টাকা রেখে গত জুনে শূন্য দশমিক ৬৫ শতাংশ থেকে ২ দশমিক ৪৪ শতাংশ সুদ মিলেছে। এখানে বিনিয়োগ সুবিধার বিষয়ে সাধারণ মানুষের বেশির ভাগই জানেন না।

আর ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠানে এখনও ৮ থেকে ১১ শতাংশ পর্যন্ত সুদ পাওয়া গেলেও কিছু প্রতিষ্ঠানের অবস্থা রুগ্ণ হওয়ায় এ ধরনের প্রতিষ্ঠানে সঞ্চয়ের প্রবণতা কম।

পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ সবার জন্য উন্মুক্ত থাকলেও পুঁজি হারানোর ভয়ে সেখানে যান না অনেকে।

সুদ যত কমই হোক, এই মুহূর্তে ব্যাংকে টাকা রাখা ছাড়া মানুষের সামনে আর কোনো সুযোগ নেই বলে মনে করেন সালেহউদ্দিন আহমেদ৷ তিনি বলেন, ‘মানুষ তো ঘরে টাকা ফেলে রাখবেন না। বিকল্প সঞ্চয়ের মাধ্যমও তেমন নেই। একটি অংশ বেশি লাভের আশায় এমএলএম কোম্পানি, কো-অপারেটিভসহ এ ধরনের প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করে পুরো টাকা খোয়ানোর ঝুঁকিতে পড়েছেন। ফলে ঘুরেফিরে ব্যাংকই সাধারণ মানুষের ভরসা। ব্যাংকে টাকা রেখে তাৎক্ষণিক তোলার সুযোগ, জমানো টাকা অনলাইন ও কার্ডে ব্যবহার, ফেরত পাওয়ার নিশ্চয়তাসহ বিভিন্ন কারণে ব্যাংকেই টাকা রাখতে বেশি আগ্রহী মানুষ’।

আরও পড়ুন:
আতঙ্কে পতনের পর লকডাউনের দিন এবারও উত্থান
লকডাউন আতঙ্কে শেয়ার বেচে এখন কিনছে বিনিয়োগকারীরা
লকডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেনেও নেই পরিবর্তন
লকডাউনে লাভবান, তবু শাটডাউন নিয়ে আতঙ্ক
পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

শেয়ার করুন

‘অর্থ আত্মসাত’: ব্যাংক কর্মকর্তাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

‘অর্থ আত্মসাত’: ব্যাংক কর্মকর্তাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

এজাহারে বলা হয়েছে, ব্যাংকের দুই কর্মকর্তা ও তিন ব্যবসায়ী জালিয়াতির মাধ্যমে ১১ কোটি ৯৩ লাখ ৫ হাজার ৪২১ টাকা আত্মসাৎ করেন। তারা ব্যাংকের প্রকৃত বেনিফিশিয়ারির অ্যাকাউন্টে এই টাকা পাঠাননি। ২০১৯ সালের জুন থেকে ২০২১ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ১২২টি লেনদেনের মাধ্যমে ওই টাকা আত্মসাৎ করা হয়। 

১১ কোটি ৯৩ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে চট্টগ্রামে ব্যাংক এশিয়ার দুই কর্মকর্তাসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-১ এর সহকারী পরিচালক মো. ফজলুল বারী বুধবার বিকেল ৪টার দিকে মামলাটি করেন।

দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-১ এর উপ পরিচালক লুৎফুল কবির চন্দন নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার আসামিরা হলেন ব্যাংক এশিয়া চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ শাখার ফাস্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভিপি ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ, সিনিয়র অফিসার এহতেশাম উদ্দিন জাহান আনসারী, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পিঅ্যান্ড আর ট্রেডার্সের মালিক জাহান আনসারী, রিটজ মেরিন এন্টারপ্রাইজের মালিক এমদাদুল হাসান ও সেভেন সিজ বিডির মালিক তারেজকুজ্জামান।

এজাহারে বলা হয়েছে, ব্যাংকের দুই কর্মকর্তা ও তিন ব্যবসায়ী জালিয়াতির মাধ্যমে ১১ কোটি ৯৩ লাখ ৫ হাজার ৪২১ টাকা আত্মসাৎ করেন। তারা ব্যাংকের প্রকৃত বেনিফিশিয়ারির অ্যাকাউন্টে এই টাকা পাঠাননি। ২০১৯ সালের জুন থেকে ২০২১ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ১২২টি লেনদেনের মাধ্যমে ওই টাকা আত্মসাৎ করা হয়।

ক্ষমতার অপব্যবহার করে স্থানান্তর ও হস্তান্তরের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ করায় তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইন ২০১২ এর ৪(২) এবং দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/৪৬৭/৪৬৮/১০৯ ধারাসহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় মামলা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
আতঙ্কে পতনের পর লকডাউনের দিন এবারও উত্থান
লকডাউন আতঙ্কে শেয়ার বেচে এখন কিনছে বিনিয়োগকারীরা
লকডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেনেও নেই পরিবর্তন
লকডাউনে লাভবান, তবু শাটডাউন নিয়ে আতঙ্ক
পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

শেয়ার করুন

শাহজালাল সার কারখানায় ৩৮ কোটি টাকা ‘আত্মসাৎ’

শাহজালাল সার কারখানায় ৩৮ কোটি টাকা ‘আত্মসাৎ’

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে শাহজালাল সার কারখানা। ছবি: সংগৃহীত

মামলাগুলোর এজাহারে বলা হয়েছে, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণা এবং জালিয়াতির মাধ্যমে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ভুয়া বিল ও ভাউচার তৈরিসহ প্রকল্পের ৩৮ কোটি ৭১ লাখ ২৪ হাজার ৯০২ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের শাহজালাল সার কারখানা প্রকল্পের ৩৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ১০ জনের বিরুদ্ধে ১৫টি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মঙ্গলবার দুদকের সমন্বিত সিলেট জেলা কার্যালয়ে এসব মামলা করেন কমিশনের উপপরিচালক নূর ই আলম।

বুধবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদকের উপপরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ আরিফ সাদেক।

তিনি জানান, মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে শাহজালাল ফার্টিলাইজার প্রকল্পের হিসাব বিভাগীয় প্রধান (বরখাস্ত) খোন্দকার মুহাম্মদ ইকবাল এবং প্রকল্পের সাবেক রসায়নবিদ (বরখাস্ত) নেছার উদ্দিন আহমদ।

অন্য আসামিরা হলেন খোন্দকার মুহাম্মদ ইকবালের স্ত্রী মেসার্স টিআই ইন্টারন্যাশনালের মালিক হালিমা আক্তার, মেসার্স রাফী এন্টারপ্রাইজের মালিক নূরুল হোসেন, ফালগুনী ট্রেডার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এএসএম ইসমাইল খান, মেসার্স আয়মান এন্টারপ্রাইজের মালিক সাইফুল হক, মেসার্স এন আহমদ অ্যান্ড সন্সের মালিক নাজির আহমদ, মেসার্স মা এন্টারপ্রাইজের মালিক হেলাল উদ্দিন, মেসার্স ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনালের মালিক জামশেদুর রহমান খন্দকার এবং মেসার্স সাকিব ট্রেডার্সের মালিক আহসান উল্লাহ চৌধুরী।

মামলাগুলোর এজাহারে বলা হয়েছে, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণা এবং জালিয়াতির মাধ্যমে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ভুয়া বিল ও ভাউচার তৈরিসহ প্রকল্পের ৩৮ কোটি ৭১ লাখ ২৪ হাজার ৯০২ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

অভিযোগের প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া আসামিদের বিরুদ্ধে এসব মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুদক কর্মকর্তা আরিফ।

মামলার বিষয়ে শাহজালাল সার কারখানার কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে কারখানার একটি সূত্র জানিয়েছে, অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ ওঠার পরই দুই কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে জরাজীর্ণ হয়ে পড়া প্রাকৃতিক গ্যাস সার কারখানা (এনজিএলএফ) দীর্ঘ দিন লোকসান গোনায় ওই কারখানার পাশেই প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে শাহজালাল সার কারখানা নির্মাণ করা হয়।

২০১৭ সালে প্রথম বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করে কারখানাটি। তবে নানা কারণেই উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ব্যর্থ হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

আরও পড়ুন:
আতঙ্কে পতনের পর লকডাউনের দিন এবারও উত্থান
লকডাউন আতঙ্কে শেয়ার বেচে এখন কিনছে বিনিয়োগকারীরা
লকডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেনেও নেই পরিবর্তন
লকডাউনে লাভবান, তবু শাটডাউন নিয়ে আতঙ্ক
পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

শেয়ার করুন

করোনা মোকাবিলায় ব্র্যাকের সঙ্গে ৯ ব্যাংক

করোনা মোকাবিলায় ব্র্যাকের সঙ্গে ৯ ব্যাংক

‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ প্রকল্পের অধীনে ১৮ লাখ মানুষকে মাস্ক এবং করোনাভাইরাস প্রতিরোধসামগ্রী বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে। ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ব্র্যাকের উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত ৯টি ব্যাংক হলো ব্র্যাক, ইস্টার্ন, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড, ঢাকা, ব্যাংক এশিয়া, মার্কেন্টাইল, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ও ডাচ বাংলা ব্যাংক। ব্যাংকগুলোর এই অনুদান করোনার উচ্চঝুঁকিপূর্ণ ২০ জেলা, বিশেষত রাজশাহী এবং খুলনা বিভাগের জেলাগুলোতে ব্যয় করা হবে। ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, ‘অনুদানের অর্থ ব্র্যাকের করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নেয়া দুটি উদ্যোগ- ‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ এবং ‘ডাকছে আবার দেশ’ এর কাজে ব্যয় হবে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা বাড়ানো, সংক্রমণ প্রতিরোধ এবং ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় জনগোষ্ঠীকে জরুরি সহায়তা দিতে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে দেশের ৯টি ব্যাংক।

বেসরকারি ৯টি ব্যাংক এ বাবদ ১৫ কোটি ৯১ লাখ ৯৩ হাজার ৭২৮ টাকা অনুদান দিয়েছে। অনুদানের এ টাকা ব্যয় হবে ঝুঁকিপূর্ণ ২০ জেলায়।

৯টি ব্যাংক হলো ব্র্যাক, ইস্টার্ন, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড, ঢাকা, ব্যাংক এশিয়া, মার্কেন্টাইল, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ও ডাচ বাংলা ব্যাংক।

ব্যাংকগুলোর এই অনুদান করোনার উচ্চঝুঁকিপূর্ণ ২০ জেলা, বিশেষত রাজশাহী এবং খুলনা বিভাগের জেলাগুলোতে ব্যয় করা হবে। ৯টি ব্যাংকের মধ্যে ব্যাংক এশিয়া এবং ঢাকা ব্যাংকের সাথে চুক্তি সই প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, ‘অনুদানের অর্থ ব্র্যাকের করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নেয়া দুটি উদ্যোগ- ‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ এবং ‘ডাকছে আবার দেশ’ এর কাজে লাগানো হবে।

উদ্যোগ দুটির মূল কার্যক্রম হলো- মাস্ক বিতরণ এবং মেডিক্যাল সহায়তার মাধ্যমে কমিউনিটিতে রিসিলিয়েন্স গঠন এবং লকডাউনের কারণে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানে থাকা পরিবারগুলোতে জরুরি আর্থিক সহায়তা দেয়া’।

বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি এই মহামারির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীকে প্রয়োজনীয় সহায়তার মাধ্যমে সামাজিক দায়বদ্ধতা পালনের উদ্দেশে ব্যাংকগুলোকে বিশেষ ‘করপোরেট সোশাল রেসপন্সিবিলিটি’ (সিএসআর) কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছে। এ কার্যক্রমের আওতায় ব্যাংকগুলো ব্র্যাকের ‘ডাকছে আবার দেশ’ এবং ‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ দুইটি কার্যক্রমে অর্থায়ন করেছে।

এ ৯টি ব্যাংকের প্রতিশ্রুত টাকা থেকে ‘ডাকছে আবার দেশ’ উদ্যোগের অধীনে ব্যয় হবে ১৩ কোটি ৫৭ লাখ ৪০ হাজার ৫০০ টাকা। যা দিয়ে ৭২ হাজার ১৬০টি পরিবারকে নগদ অর্থ সহায়তা দেয়া হবে।

বাকি অর্থ দিয়ে ‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ প্রকল্পের অধীনে ১৮ লাখ মানুষকে মাস্ক এবং অন্যান্য করোনাভাইরাস প্রতিরোধসামগ্রী বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে। পাশাপাশি এই রোগের উপসর্গযুক্ত ১০ হাজার মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হবে।

করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ ৩৫টি জেলায় কমিউনিটিকে সংযুক্তিকরণ এবং স্থানীয় পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা খাতকে শক্তিশালী করা হচ্ছে। মাস্ক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ গুরুত্ব আরোপ করার পাশাপাশি নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, হাঁচি-কাশি দেয়ার সময় যথাযথ সতর্কতা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার প্রচারণা এবং ভ্যাকসিন রেজিস্ট্রেশনের সচেতনতামূলক কর্মসূচি, ভুল তথ্য ও গুজব নিরসনেরও উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে ।

‘ডাকছে আবার দেশ’ উদ্যোগটির মাধ্যমে প্রথম দফায় করোনার উচ্চঝুঁকিতে থাকা ১৯টি জেলায় ৫০ হাজার পরিবারে জরুরি খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। প্রাথমিক সহায়তার এই তহবিল গঠিত হয়েছে ব্র্যাকের কর্মীদের একদিনের বেতন এবং এর সঙ্গে ব্র্যাকের সমপরিমাণ অর্থের অনুদান মিলিয়ে।

আরও পড়ুন:
আতঙ্কে পতনের পর লকডাউনের দিন এবারও উত্থান
লকডাউন আতঙ্কে শেয়ার বেচে এখন কিনছে বিনিয়োগকারীরা
লকডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেনেও নেই পরিবর্তন
লকডাউনে লাভবান, তবু শাটডাউন নিয়ে আতঙ্ক
পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

শেয়ার করুন

করোনা মোকাবিলায় সারা দেশে ৩০ অক্সিজেন প্ল্যান্ট  

করোনা মোকাবিলায় সারা দেশে ৩০ অক্সিজেন প্ল্যান্ট  

দেশে এখন দিনে ২০০ টন অক্সিজেনের চাহিদা রয়েছে। ছবি: সাইফুল ইসলাম

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সামসুল আরেফিন বলেন, ‘স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে ৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট স্থাপন করার জন্য। বৈঠকে এ সংক্রান্ত  প্রস্তাবের নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এডিবি প্রকল্পে অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।’

করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে সারাদেশে ৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট বসাবে সরকার। বুধবার অর্থনৈতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এদিন বৈঠক শেষে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অর্থমন্ত্রী আহ ম মুস্তফা কামাল ।

তবে এতে কত টাকা ব্যয় হবে, কবে কাজ শুরু হবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি অর্থমন্ত্রী। স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সঙ্গে কথা বলে পরের বৈঠকে এর ব্যাখ্যা দেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

করোনা মহামারির মধ্যে বাংলাদেশের হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেন সংকট দেখা দিয়েছে। রাজধানী ঢাকার সব হাসপাতালেই অক্সিজেন সংকট চলছে। জেলা পর্যায়েও একই পরিস্থিতি।

স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশে এখন দিনে ২০০ টন অক্সিজেনের চাহিদা রয়েছে। জনস্বাস্থ্যবিদদের মতে, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হলে এই চাহিদা ৩০০ টনে পৌঁছাবে।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সামসুল আরেফিন বলেন, ‘স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে ৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট স্থাপন করার জন্য। বৈঠকে এ সংক্রান্ত প্রস্তাবের নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।‘

তিনি জানান, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) এ প্রকল্পে অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

রেমিট্যান্সে বাড়তি প্রণোদনার প্রস্তাব নাকচ অর্থমন্ত্রীর

বৈধ পথ বা ব্যাকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স পাঠাতে উৎসাহিত করতে এর ওপর বর্তমানে ২ শতাংশ প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে। রেমিট্যান্সে রেকর্ড প্রবৃদ্ধির পেছনে এটি অন্যতম কারণ বলে বিবেচনা করা হয়।

এ খাতে অতিরিক্ত আরও ১ শতাংশ প্রণোদনা দেয়া হতে পারে এমন গুঞ্জন নাকচ করে দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

ইতোমধ্যে যে প্রণোদনা দেয়া হয়েছে সেটি যথেষ্ঠ বলেও দাবি করেন আ হ ম মুস্তফা কামাল।

চলতি অর্থ বছরের প্রথম মাসে রেমিট্যান্স কিছুটা কমে যাওয়ার কারণ জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘শাটডাউনের কারণে এর ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। গণটিকা দান কর্মসূচি আবার শুরু হচ্ছে। এতে পরিস্থিতির উন্নতি হবে এবং জনগণের মধ্যে আস্থা বাড়বে। এর ফলে আগামীতে রেমিট্যান্সের তেজি ভাব অব্যাহত থাকবে।’

মন্ত্রিসভা বৈঠকে ১ হাজার ১৯৪ কোটি টাকা ব্যয়ে দশটি দরপ্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে একটি অর্থনেতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটিতে, বাকি নয়টি ক্রয় সংক্রান্ত কমিটিতে অনুমোদন পেয়েছে।

আরও পড়ুন:
আতঙ্কে পতনের পর লকডাউনের দিন এবারও উত্থান
লকডাউন আতঙ্কে শেয়ার বেচে এখন কিনছে বিনিয়োগকারীরা
লকডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেনেও নেই পরিবর্তন
লকডাউনে লাভবান, তবু শাটডাউন নিয়ে আতঙ্ক
পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

শেয়ার করুন

সিএসআরের টাকা বিতরণের সময় বাড়ল

সিএসআরের টাকা বিতরণের সময় বাড়ল

সিএসআরের টাকা বিতরণের সময় বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ফাইল ছবি

বাংলাদেশ ব্যাংক বুধবার এ বিষয়ে একটি সার্কুলার জারি করে বলছে, ‘১৪ জুলাই পর্যন্ত ব্যাংকগুলো জেলা প্রশাসক বা এনজিও বা এমএফআই এবং নিজস্ব ব্যবস্থাপনা কিংবা সেনা কল্যাণ সংস্থার মাধ্যমে বিশেষ সিএসআর কাজের অগ্রগতি আশানুরূপ নয়।’

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় জনগোষ্ঠীকে সহায়তার জন্য ব্যাংকগুলো সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচির (সিএসআর) টাকা বিতরণের সময় বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ খাতে নির্দিষ্ট থাকা অর্থ বিতরণের সময় ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বুধবার এ বিষয়ে একটি সার্কুলার জারি করে বলছে, ‘১৪ জুলাই পর্যন্ত ব্যাংকগুলো জেলা প্রশাসক বা এনজিও বা এমএফআই এবং নিজস্ব ব্যবস্থাপনা কিংবা সেনা কল্যাণ সংস্থার মাধ্যমে বিশেষ সিএসআর কাজের অগ্রগতি আশানুরূপ নয়।’

বিশেষ এ কার্যক্রমের আওতায় তৃণমূল পর্যায়ে হত-দরিদ্র, সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মধ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী ও স্বাস্থ্যসেবা প্রদান বা পৌঁছানো নিশ্চিত করতে সক্রিয় ভূমিকা রেখে এ বিশেষ কাজকে বেগবান করার পরামর্শ দিয়েছে সেই সার্কুলারে।

সার্কুলারে বলা হয়, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফলপ্রসূ বাস্তবায়ন তদারকি নিশ্চিতের লক্ষ্যে অগ্রগতি প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ লক্ষ্যে জুনের বিতরণের প্রথম প্রতিবেদন ১০ আগস্টের মধ্যে দিতে হবে।

অন্য পাক্ষিক প্রতিবেদন (প্রতি মাসের ১৫ ও ৩০ তারিখ ভিত্তিক) প্রতি পক্ষকাল শেষ হওয়ার পর তিন কর্মদিবসের মধ্যে সাসটেইনেবল ফাইন্যান্স বিভাগের মহাব্যবস্থাপকের কাছে জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
আতঙ্কে পতনের পর লকডাউনের দিন এবারও উত্থান
লকডাউন আতঙ্কে শেয়ার বেচে এখন কিনছে বিনিয়োগকারীরা
লকডাউনে পুঁজিবাজারে লেনদেনেও নেই পরিবর্তন
লকডাউনে লাভবান, তবু শাটডাউন নিয়ে আতঙ্ক
পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

শেয়ার করুন