কোরবানির চামড়া: আগের দাম চান সংশ্লিষ্টরা, বৈঠক আজ

কোরবানির চামড়া: আগের দাম চান সংশ্লিষ্টরা, বৈঠক আজ

প্রতি বছরই কমছে কোরবানির চামড়ার দাম। ছবি: সংগৃহীত

প্রতি বর্গফুট লবণজাত চামড়ার এ বছর যে দাম নির্ধারণ হয়, পরের বছর তা ১০ থেকে ২৯ শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়। ২০১৩ সালে দেশে লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়ার দাম ছিল ৮৫ থেকে ৯০ টাকা এবং ছাগলের চামড়া ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। ২০২০ সালে সেই গরুর চামড়ার দাম নির্ধারিত হয় ঢাকায় ৩৫ থেকে ৪০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ২৮ থেকে ৩২ টাকা। এভাবে গত সাত বছরে প্রতি বর্গফুটে মূল্য নির্ধারণের স্তর বিবেচনায় গরুর চামড়া ছাগলের চামড়ায় পরিণত হয়েছে।

দেশে সব কিছুর দাম বাড়ে। অথচ চামড়ার দাম কমে ধারাবাহিকভাবে। প্রতি বর্গফুট লবণজাত চামড়ার এ বছর যে দাম নির্ধারণ হয়, পরের বছর তা ১০ থেকে ২৯ শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়।

২০১৩ সালে দেশে লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়ার দাম ছিল ৮৫ থেকে ৯০ টাকা এবং ছাগলের চামড়া ৫০ থেকে ৫৫ টাকা। ২০২০ সালে সেই গরুর চামড়ার দাম নির্ধারিত হয় ঢাকায় ৩৫ থেকে ৪০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ২৮ থেকে ৩২ টাকা। এভাবে গত সাত বছরে প্রতি বর্গফুটে মূল্য নির্ধারণের স্তর বিবেচনায় গরুর চামড়া ছাগলের চামড়ায় পরিণত হয়েছে।

পর্যালোচনায় দেখা গেছে, এই সময়ে গরুর চামড়া দাম কমেছে ৫৮ দশমিক ৮২ শতাংশ এবং ছাগলের চামড়ার দাম কমেছে ৭৪ শতাংশ। এর ফলাফলও পেয়েছে দেশ। ক্ষুব্ধ কোরবানিদাতাদের অনেকে পানির দরে বিক্রি না করে সেই চামড়া মাটিচাপা দিয়েছেন। কেউ ভাসিয়েছেন নদীর জলে।

তবে এবার চামড়ার মূল্য নির্ধারণ নিয়ে এমন পরিস্থিতি আর দেখতে চান না পণ্যটির সংগ্রাহক, প্রক্রিয়াজাত ও রপ্তানিখাত সংশ্লিষ্টরা। আবার আন্তর্জাতিক বাজারে এবার চামড়ার দর গতবারের চেয়ে কিছুটা ঊর্ধমুখী হওয়ায় এ বছর দাম বাড়ুক তাও চান না তারা। বরং তারা চান, সরকার বা বাণিজ্য মন্ত্রণালয় গত বছরের নির্ধারিত মূল্যই বহাল রাখুক।

এই যখন পরিস্থিতি, তখন আসন্ন ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে কাঁচা চামড়ার মূল্য নির্ধারণ, সুষ্ঠুভাবে সংগ্রহসহ অন্যান্য ব্যবস্থাপনার বিষয়ে করণীয় নির্ধারণে মঙ্গলবার দুপুর ২টায় খাতসংশ্লিষ্টদের নিয়ে বৈঠকে বসতে যাচ্ছে সরকার।

সূত্র জানিয়েছে, বৈঠকে ট্যারিফ কমিশন বৈশ্বিক চাহিদা ও বাজার পরিস্থিতি তুলে ধরে কোনস্তরে এবার চামড়ার দর নির্ধারণ করা যায় তার একটি সুপারিশ দেবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে। অনলাইন প্লাটফর্মে বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই বৈঠকে খাতসংশ্লিষ্ট উদ্যোক্তা ছাড়াও মৎস্য ও প্রানী সম্পদ মন্ত্রণালয়, শিল্প মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক, বিসিক, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোসহ চামড়া সংগ্রহ, ক্রয় ও ব্যবস্থানা কাজে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ও বিভাগের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন।

গত বছর কোরবানির ঈদটি কেটেছে বৈশ্বিক করোনার প্রকোপে। এর নেতিবাচক প্রভাব চামড়ার আন্তর্জাতিক ভোগ ও বাজার দাম—দুইটিতেই ধস নামায়। দেশের বাজারেও এর প্রভাব পড়ে। ২০২০ সালে ঢাকায় প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয় ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। আর ঢাকার বাইরে প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার দর ২৮ থেকে ৩২ টাকা। ২০১৯ সালে ঢাকায় এই দাম ছিল ৪৫-৫০ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৩৫-৪০ টাকা। সে তুলনায় ২০২০ সালে ঢাকায় চামড়ার দাম কমানো হয় প্রায় ২৯ শতাংশ এবং বাইরে প্রায় ২০ শতাংশ।

একইভাবে ২০২০ সালে ছাগলের চামড়ার দর নির্ধারণ করা হয় ১৩-১৫ টাকা এবং বকরির চামড়া ১০ থেকে ১২ টাকা। ২০১৯ সালে এই দাম ছিল ১৮ থেকে ২০ টাকা। অর্থাৎ ওই সময়ে আগের বছরের তুলনায় ছাগলের চামড়ার দাম কমে প্রায় ২৭ শতাংশ।

বাংলাদেশে সারা বছর যে পরিমাণ পশু জবাই হয়, তার ৬০ শতাংশই হয় এই কোরবানির মৌসুমে। কোরবানি যারা দেন, তাদের কাছ থেকে কাঁচা চামড়া কিনে মৌসুমি ব্যবসায়ীরা বিক্রি করেন পাইকার বা আড়তদারদের কাছে। তারা সেই চামড়ায় লবণ দিয়ে সংরক্ষণের প্রাথমিক কাজটি সেরে বিক্রি করেন ট্যানারিতে। আর ট্যানারি কেমন দামে চামড়া কিনবে, তা প্রতিবছর নির্ধারণ করে দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

গত বছর এই হ্রাসকৃত দাম নির্ধারণের ক্ষেত্রে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বিবেচনায় রাখে আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার মূল্য, আন্তর্জাতিক বাজারে বাংলাদেশি চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের চাহিদা, করোনা পরিস্থিতিতে সেই চাহিদা সঙ্কোচনের পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার আশঙ্কা, বাংলাদেশের চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের গুণগত মান এবং দেশে তখনকার চামড়ার মজুদ পরিস্থিতি।

তবে এবার পরিস্থিতি ভিন্ন। করোনার প্রকোপ কাটিয়ে গত বছর ডিসেম্বর থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার ভোগ সূচক এবং উৎপাদকের নির্ধারিত মূল্য সূচক বাড়তে থাকে। এ বিষয়ে আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ফ্রেড-এর ইকনোমিক ডাটার চামড়া সংক্রান্ত তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে পণ্যটির উৎপাদক মূল্য সূচক ছিল ১৫৫.১-তে। সেটি চলতি বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের মে মাসে দাঁড়ায় ২০৬. ৩-তে। এর মানে হচ্ছে আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার ব্যবহার বাড়তে শুরু করেছে এবং উৎপাদকরা দামও পেতে শুরু করেছেন।

অন্যদিকে ওয়ার্ল্ড ওয়াইব অনলাইন প্ল্যাটফর্ম চীনের আলিবাবা এবং ভারতের ইন্ডিয়ান মুন্ডিতে প্রতিবর্গফুট প্রক্রিয়াজাত চামড়ার আন্তর্জাতিক বাজার দর দেখা গেছে সর্বনিম্ন ১ ডলার ১০ সেন্ট থেকে মান ও গ্রেড অনুযায়ী ৬ ডলারের মধ্যে। অর্থাৎ আন্তর্জাতিক বাজারে চামড়ার মূল্য মন্দ নয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) মো. হাফিজুর রহমান নিউজবাংলাকে জানান, বৈঠকে এবার কোরবানির পশুর চামড়ার মূল্য কোন স্তরে নির্ধারণ করা যায়, তার একটা কাঠামো ঠিক করা হবে। তবে তা এখনই ঘোষণা দেয়া হবে না। ঈদের তিন-চার দিন আগে চামড়া মূল্য নির্ধারণের ঘোষণা দেয়া হবে।

তিনি জানান, চামড়ার মূল্য নির্ধারণই এই বৈঠকের একমাত্র এজেন্ডা নয়। কারা কোন প্রক্রিয়ায় চামড়া কিনবেন, লবণ পরিস্থিতি কী অবস্থায় রয়েছে, ট্যানারি মালিকরা চামড়া কেনায় ব্যাংক কেমন ঋণ দিতে পারবে, আইন-শৃংখলা পরিস্থতিসহ বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা হবে।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘উৎপাদন ও রপ্তানি করতে না পারায় সাভারের চামড়া শিল্প নগরীর ট্যানারিগুলোতে তাদের বর্তমানে ৪৫ শতাংশ চামড়া জমা আছে। আবার ব্যাংকঋণের বিষয় আছে। আবার আন্তর্জাতিক বাজারও খুব একটা ভাল না। এমন পরিস্থিতিতে এবার কোরবানির চামড়ার দর বাড়ানো যৌক্তিক হবে না। উল্টো কমালেই ভাল। কিন্তু আমরা চামড়ার দাম কমাতেও বলবো না। আমরা চাই কোরবানির চামড়া সুষ্ঠুভাবে সংগ্রহ করার স্বার্থে সেটি যেন গত বছরের দামেই বহাল থাকে।’

বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব টিপু সুলতান নিউজবাংলাকে জানান, ‘চামড়ার দাম আর কমানোর পক্ষে নই আমরা। তবে এটাও মনে রাখতে হবে করোনা পরিস্থিতিতে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারও ভাল নেই। তাই দাম বাড়ানোটাও ঠিক হবে না। আমার মনে হয় সরকার সার্বিক দিক বিবেচনা করে গতবারের দামটা বহাল রাখলেই ভাল হয়।’

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্রমতে, ২০১৭, ২০১৮ ও ২০১৯ সালে টানা তিনবছর প্রতি বর্গফুট গরু চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করা হয় ৪৫ থেকে ৫০ টাকা অপরিবর্তিত ছিল। তবে ২০১৭ সালে ছাগলের প্রতিবর্গফুট চামড়া ২০ থেকে ২২ টাকায় নির্ধারণ করা হলেও ২০১৮ ও ২০১৯ সালে তা আরও কমিয়ে ১৮ থেকে ২০ টাকা করা হয়।

অন্যদিকে দাম কমিয়ে ২০১৪ সালে গরুর চামড়া ৭০ থেকে ৭৫ টাকা এবং ছাগলের চামড়া ৪০ থেকে ৪৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। ২০১৫ ও ২০১৬ সালে পরপর দুই বছর প্রতি বর্গফুট গরুর কাঁচা চামড়া ৫০ থেকে ৫৫ টাকা এবং ছাগলের চামড়া ২০ থেকে ২৫ টাকায় অপরিবর্তিত থাকে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য