সরকারি কাজে সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করার তাগিদ

সরকারি কাজে সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করার তাগিদ

‘প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ববাণিজ্যে এগিয়ে যাবার জন্য আমাদের সেবার মান আরও বাড়ানো প্রয়োজন। একই সঙ্গে দিন এখন দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাজ করার। ডিজিটাল পদ্ধতি আমাদের সেই কাজ করাকে সহজ করে দিয়েছে। বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির মাধ্যমে কাজ করার দায়বদ্ধতা আরও বেড়ে গেল।’

সরকারি কাজে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। একই সঙ্গে দ্রুতসময়ের মধ্যে দক্ষতা ও সততার সঙ্গে কাজ করারও তাগিদ দেন তিনি।

সোমবার সচিবালয়ে নিজ মন্ত্রণালয় ও অধিনস্থ দপ্তর/সংস্থাসমুহের সঙ্গে ‘বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি স্বাক্ষর এবং শুদ্ধাচার পুরস্কার বিতরণ’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী এই আহ্বান রাখেন।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়।

টিপু মুনশি নিজ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ববাণিজ্যে এগিয়ে যাবার জন্য আমাদের সেবার মান আরও বাড়ানো প্রয়োজন। একই সঙ্গে দিন এখন দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাজ করার। ডিজিটাল পদ্ধতি আমাদের সেই কাজ করাকে সহজ করে দিয়েছে। বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির মাধ্যমে কাজ করার দায়বদ্ধতা আরও বেড়ে গেল। আমি বিশ্বাস করি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং এর অধিনস্থ সব ডিপার্টমেন্ট দক্ষতা ও সুনামের সঙ্গে কাজ করছে।’

আগামী ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়নের মাধ্যমে ২০৪১ সালে বাংলাদেশ একটি উন্নত দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে—উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘সকলকে দায়িত্বশীল হয়ে কাজ করতে হবে। সরকার শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদানের মাধ্যমে কর্মকর্তা-কর্মচারিদের কাজে উৎসাহ প্রদান করছে। এরই ধরাবাহিকতায় আজ যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হলো—এর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আগামী ২০২১-২০২২ অর্থবছরে সফলভাবে কাজ করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার কাজে স্বচ্ছতা ও দায়বদ্ধতা নিশ্চিত করেছে জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘প্রতিটি অফিসে সেবার মান বৃদ্ধির জন্য সরকার নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সরকার প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা উন্নয়নের জন্য কর্মসম্পাদন চুক্তি প্রবর্তন করেছে। এর মাধ্যমে একটি কার্যকর, দক্ষ এবং গতিশীল প্রশাসনিক ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব হবে।’

উল্লেখ্য বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশির উপস্থিতিতে বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষের সঙ্গে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তিতে সই করেন বাংলাদেশ চা বোর্ডের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মো. জহিরুল ইসলাম, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বাবলু কুমার সাহা, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান এ এইচ এম আহসান, যৌথ মূলধন কোম্পানি ও ফার্ম সমুহের পরিদপ্তরে নিবন্ধক শেখ সোয়েবুল আলম, আমদানি ও রপ্তানি প্রধান নিয়ন্ত্রকের দপ্তরের প্রধান নিয়ন্ত্রক সোলায়মান খান, ট্রেডিং করপোরেশন অফ বাংলাদেশের (টিসিবি) চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আরিফুল হাসান।

অনুষ্ঠানে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের শুদ্ধাচার পুরস্কার লাভ করেন ট্রেডিং করপোরেশন অফ বাংলাদেশের (টিসিবি) চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আরিফুল হাসান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব (রপ্তানি) মো. আব্দুর রহিম এবং কম্পিউটার অপারেটর তানজিনা হক। বাণিজ্যমন্ত্রী পুরস্কার হস্তান্তর করেন।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের চেয়ারপারসন মো. মফিজুল ইসলাম।

শেয়ার করুন

মন্তব্য