লকডাউনে সাড়ে ৫ কোটি মানুষের জীবিকার শঙ্কা

লকডাউনে সাড়ে ৫ কোটি মানুষের জীবিকার শঙ্কা

লকডাউনে আবারও অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের সাড়ে ৫ কোটি শ্রমিকের জীবিকা নিয়ে দেখা দিয়েছে শঙ্কা। ফাইল ছবি

লকডাউনে বন্ধ থাকবে শপিং মল, মার্কেট, পর্যটনকেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার, বিনোদনকেন্দ্রসহ প্রায় সবকিছুই। এ সময় এসব খাতের মানুষ থাকবে কাজহীন।  এতে তাদের আয়-রোজগারের খাতাও থাকবে শূন্য।

সরকারঘোষিত লকডাউন বা শাটডাউনে আবারও কাজহীন হয়ে পড়ায় জীবিকার অনিশ্চয়তায় পড়তে যাচ্ছেন দেশের অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের প্রায় সাড়ে ৫ কোটি মানুষ।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত আংশিক ও তার পর সর্বাত্মক শাটডাউন দেয়া হচ্ছে দেশে। এ সময়ে বন্ধ থাকবে শপিং মল, মার্কেট, পর্যটনকেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার, বিনোদনকেন্দ্রসহ প্রায় সবকিছুই।

স্বাভাবিক কারণেই এসব খাতের মানুষ থাকবেন কাজহীন। এতে তাদের আয়-রোজগারের খাতাও থাকবে শূন্য।

আবার শুধু খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরাঁ চালু থাকলেও তাতেও থাকছে সময়ের সীমাবদ্ধতা। লোকজন ঘর থেকে বের হতে না পারলে কিংবা মানুষের আয়ের চাকা বন্ধ থাকলে এসব খাবারের দোকান চলবে কীভাবে, সেটা নিয়েও আছে সংশয়।

অন্যদিকে করোনার প্রকোপে দেশে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে নিত্যপণ্যের দাম ও সার্বিক জীবনযাত্রার ব্যয়।

কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশের (ক্যাব) তথ্য অনুযায়ী, ২০২০ সালে দেশে মানুষের জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে ৬ দশমিক ৮৮ শতাংশ। এই সময় বিভিন্ন পণ্য ও সেবা-সার্ভিসের মূল্য বেড়েছে ৬ দশমিক ৩১ শতাংশ। ফলে আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের সমন্বয় ও ব্যয় বৃদ্ধিজনিত বাড়তি খরচের চাপে এসব মানুষ জীবিকার প্রশ্নে চোখে শুধুই অনিশ্চয়তাই দেখছেন।

বাংলাদেশ দোকানমালিক সমিতির তথ্য বলছে, দেশে দোকান বা ছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ৫৪ লাখ (৫৩ লাখ ৭২ হাজার ৭১৬টি)। এসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন ২ কোটি ১৪ লাখ শ্রমিক-কর্মচারী।

ঘোষিত শাটডাউনে এ পরিমাণ দোকান-কর্মচারী আয়হীন হয়ে পড়বেন। আবার খাত হিসাবে এক দিন বন্ধ থাকলে তাদের ক্ষতি গড়ে ১ হাজার ১০০ কোটি টাকা।

এ প্রসঙ্গে হতাশা ব্যক্ত করে বাংলাদেশ দোকানমালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কোথাও লকডাউন, কোথাও নেই। কখনো শিথিল, আবার কঠিন। কারা এর মধ্যে পড়বে এইগুলোর সংজ্ঞা আমরা এখন আর বুঝি না।

‘এখন আমাদের আর কিছু করার নাই। রাষ্ট্রের সিদ্ধান্ত মেনেই চলতে হবে। যদিও তাতে মানুষের ক্ষোভ বাড়ছে। মানুষ একসময় অসহিষ্ণু হয়ে পড়বে। এটাই সত্য।’

তিনি বলেন, ‘এখন আমরা খুব খারাপ সময় অতিক্রম করছি। দরকার সবাই মিলে এটা মোকাবিলা করার। কিন্তু কেউ মোকাবিলা করবেন, কেউ করবেন না, এটা হতে পারে না।’

তিনি বড় ও রপ্তানিমুখী শিল্প-প্রতিষ্ঠানগুলো খোলা থাকার বিষয়ে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘সবচেয়ে ছোট ব্যবসায়ী, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, দরিদ্র ব্যবসায়ীদের সব সময় সবকিছুতে কেন সবার আগে স্যাক্রিফাইস করতে হয়। এটা কতটুকু যৌক্তিক আমি জানি না।’

হতাশ হেলাল উদ্দিন লকডাউন-শাটডাউনে বিরক্তি প্রকাশ করে খাতসংশ্লিষ্টদের জন্য প্রণোদনা চাইবেন বলেও জানান।

তিনি দাবি করেন, এই প্রণোদনা চেয়েও কোনো লাভ হবে না।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির তথ্য বলছে, পরিবহন খাতে কাজ করেন অন্তত ৪০ লাখ শ্রমিক। দেশে এক দিন পরিবহন বন্ধ থাকলে এই খাতের দৈনিক ক্ষতি হয় প্রায় ৫০০ কোটি টাকা।

গত বছরের ২৬ মার্চ থেকে ৩১ মে পর্যন্ত ৬৬ দিনে পরিবহন খাতের ক্ষতি হয় ৩৩ হাজার কোটি টাকা। এই শাটডাউন যতদিন চলবে খাতসংশ্লিষ্টরা অনুরূপ ক্ষতির মুখে পড়বেন।

বাংলাদেশ পর্যটন শিল্পসংশ্লিষ্ট সংগঠন ট্যুর অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ (টোয়াব) বলছে, পর্যটন খাতে কাজ করেন ৪০ লাখ মানুষ। পর্যটক না থাকলে তাদের ব্যবসাও থাকে না। ফলে খাতসংশ্লিষ্ট মালিক-কর্মচারী ও গাইডরা এই সময়ে মানবেতর জীবনযাপন করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত বছর করোনায় পর্যটকশূন্যতায় তাদের ব্যবসায়িক ক্ষতি হয়েছে ৫ হাজার ৭০০ কোটি টাকা।

এ ছাড়া কমিউনিটি সেন্টার, ডেকোরেটর, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্টসহ অন্যান্য খাতেও সরাসরি কাজ করেন প্রায় ৫ লাখ মানুষ। এর বাইরে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ফটোগ্রাফি, সাজসজ্জা, লজিস্টিক সেবা, ফুল সরবরাহ, বোর্ড মিস্ত্রি, ডেকোরেশন ও ক্লিনিং কাজসহ বিভিন্ন কর্ম করে জীবিকা নির্বাহ করেন প্রায় ২০ লাখ মানুষ।

শাটডাউনে সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে। ফলে আয়হীন হয়ে পড়বেন বিপুলসংখ্যক মানুষ।

বাংলাদেশ কমিউনিটি সেন্টার কনভেনশন হল ও ক্যাটারিং অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, সারা দেশে এই সেবা প্রদানকারী শুধু তাদের সদস্যভুক্ত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাই চার হাজার। এক দিন বন্ধ থাকলে তাদের ক্ষতি হয় প্রায় শত কোটি টাকা।

এদিকে দেশের শিল্পপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৭৮ লাখ ১৩ হাজারের বেশি। এদের শতকরা ৯৯ ভাগের বেশি হচ্ছে কটেজ, মাইক্রো, ক্ষুদ্র ও মাঝারি বা সিএমএসএমই খাতের। সেখানে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে ২ কোটি মানুষের।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় কর্মীদের আনা-নেয়া করবে। কিন্তু এই খাতের ৯০ ভাগ উদ্যোক্তারই নেই সে সক্ষমতা। আবার কেউ প্রতিষ্ঠান চালু রাখলেও তার পণ্যের সঠিক সরবরাহ ও মূল্য পাওয়ার অনিশ্চয়তা তো আছেই।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) ২০১৬-১৭ সালের জরিপ অনুযায়ী, দেশে মোট শ্রমশক্তি ৬ কোটি ৮ লাখ। এর মধ্যে প্রাতিষ্ঠানিক খাতে (শ্রম আইনের সুবিধা পান এমন) কর্মরত জনশক্তি মাত্র ১৪ দশমিক ৯ শতাংশ। আর সবচেয়ে বড় অংশ ৮৫ দশমিক ১ শতাংশ অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে কর্মরত।

এসব শ্রমিকের হিসাব করলে দেখা যায়, প্রায় সাড়ে ৫ কোটি মানুষ অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে দিনমজুরের মতো কাজ করেন। যাদের শ্রম আইন-২০০৬ প্রদত্ত নিয়োগপত্র, কর্মঘণ্টা, ঝুঁকিভাতা, চিকিৎসাভাতা, বাড়িভাড়াসহ বেশির ভাগ অধিকারই নিশ্চিত নয়।

তারা দৈনিক কাজের ভিত্তিতেই সাধারণত মজুরি পান। ফলে এই শাটডাউনে বন্ধ থাকা সংখ্যাগরিষ্ঠ প্রতিষ্ঠান এসব কর্মজীবীকে মজুরি দেবে না বলেই আশঙ্কা শ্রমিক-কর্মচারীদের।

অর্থনীতিবিদ ও শ্রম খাতসংশ্লিষ্টদের আশঙ্কা, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ধাক্কা ও তৃতীয় দফার দেশব্যাপী এই শাটডাউনে কাজহীন থাকা এসব মানুষের জীবিকার বিষয়টি চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়বে। এতে দেশের ক্রমবর্ধমান দারিদ্র্যের হার আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনার প্রকোপ ও দফায় দফায় লকডাউনের প্রভাবে মানুষের হাতে এখন সঞ্চয় কম। বিশেষ করে স্বল্প আয়ের মানুষ সঞ্চয়শূন্য।

‘তাই এই দফার লকডাউনে সরকারকে অনেক বেশিসংখ্যক মানুষকে সাহায্য করতে হবে। প্রায় ৫ কোটি দরিদ্র মানুষের খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।’

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সভাপতি জসিম উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যেসব খাত বা যারা শাটডাউন পরিস্থিতিতে যাবে, তাদের জন্য সরকারকে প্রণোদনার ব্যবস্থা রাখতে হবে।

‘বিশেষ করে দিন আনে দিন খায়সহ স্বল্প আয়ের মানুষদের সামাজিক নিরাপত্তার আওতায় এনে আর্থিক সহায়তা কার্যক্রম জোরদারের মাধ্যমে জীবিকা সচল রাখতে হবে।’

আরও পড়ুন:
‘পেডের জ্বালাই মেঘের মধ্যেও রিকশা চালাই’
ঢাকা ছাড়তে তাদের ভরসা ট্রাক
চা-দোকানির ছেলে যখন প্রকৌশলী, বিসিএস কর্মকর্তা

শেয়ার করুন

মন্তব্য