পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

পুরোদমে চালু হচ্ছে রিং সাইন, শেয়ার কমছে ৫৪%

পরিচালনা পর্ষদের সদস্য অধ্যাপক সগির হোসাইন খন্দকার বলেছেন, জুন থেকে পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা কোম্পানিটিকে পুরোদমে চালু করার সব প্রস্তুতি চূড়ান্ত হয়েছে। বিএসইসি মুখপাত্র রেজাউল করিম জানিয়েছেন, টাকা না নিয়ে প্লেসমেন্টের মাধ্যমে যে ২৭ কোটি ৫১ লাখ শেয়ার ইস্যু করা হয়েছিল, সেগুলো পরিশোধিত মূলধন থেকে বাদ দেয়া হচ্ছে। ফলে কোম্পানির শেয়ার সংখ্যা অর্ধেকের বেশি কমে আসবে।

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির উদ্যোগে তালিকাভুক্তির পর বন্ধ হয়ে যাওয়া রিং সাইন টেক্সটাইলে প্রাণ ফেরানো এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

এরই মধ্যে পরীক্ষামূলক উৎপাদনে থাকা কোম্পানিটিকে পুরোদনে উৎপাদনে আনতে প্রস্তুতি চূড়ান্ত বলে জানিয়েছেন নতুন বোর্ডের একজন সদস্য। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিএসইসির মুখপাত্র রেজাউল করিমও।

কোম্পানিটি তালিকাভুক্তির আগে টাকা ছাড়াই প্রাইভেট প্লেসমেন্টের মাধ্যমে যে ২৭ কোটির বেশি শেয়ার ইস্যু করা হয়েছিল, সেগুলোও পরিশোধিত মূলধন থেকে বাদ দেয়া হচ্ছে। ফলে পরিশোধিত মূলধন ৫০০ কোটি টাকা থেকে কমে ২২৫ কোটি টাকার মতো হবে।

শেয়ার সংখ্যা অর্ধেকেরও বেশি কমে যাওয়ায় কোম্পানিটি মুনাফা করলে শেয়ার প্রতি আয় বেড়ে যাবে। সে ক্ষেত্রে লভ্যাংশ বিতরণের সক্ষমতা বাড়বে।

২০১৯ সালে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটি পরের বছর বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিনিয়োগকারীরা তাদের টাকা ফিরে পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় পড়ে। এই পরিস্থিতিতে বিএসইসি গত ২৭ জানুয়ারি কোম্পানিটির বোর্ড পুনর্গঠন করে আগের পরিচালকদেরকে বাদ দিয়ে দেয়।

এভাবে বোর্ড পুনর্গঠন করে আলহাজ্ব টেক্সটাইলকে উৎপাদনে নিয়ে আসা হয়েছে। রিং সাইনের ক্ষেত্রে নতুন বোর্ডের আরেকটু সুবিধাজনক অবস্থায় আছে এ কারণে যে, আইপিওর মাধ্যমে কোম্পানিটি যে ১৫০ কোটি টাকা তুলেছিল, তার পুরোটাই ব্যাংকে রক্ষিত আছে।

এর মধ্যে বিএসইসির অনুমতি পেয়ে ৪০ কোটি টাকায় দায় দেনা পরিশোধ হয়েছে। আর জুনের শুরুতে শুরু হয় পরীক্ষামূলক উৎপাদন।

নতুন পর্ষদের সদস্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের অধ্যাপক সগির হোসাইন খন্দকার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ফ্যাক্টরি পুরোদমে চালু করে ভালো জায়গায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। পাবলিক যে উদ্দেশ্যে এখানে বিনিয়োগ করেছিল তার সুরক্ষা দেয়ার চেষ্টা অব্যাহত আছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা কোম্পানিটির সুনির্দিষ্ট কিছু উদ্দেশ্যে ৪০ কোটি টাকা চেয়েছিলাম। সেটি ব্যয়ের খাত নির্ধারণ করে ছাড় করা হয়েছে। সদ্বব্যবহার নিশ্চিত করার পর আমরা বাকিগুলোর জন্য চেষ্টা করব।’

অধ্যাপক সগির জানান, একটি স্পেশাল ইউনিটি চালুর জন্য ৬০ কোটি টাকা প্রয়োজন। ৪০ কোটি টাকার সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করে এই টাকা চাইবেন তারা। বলেনম ‘তার আগে কোম্পানিকে দৃশ্যমান ভালো অবস্থায় নিয়ে আসতে হবে। তাহলেই আমরা বাকি টাকাগুলোও ব্যবহার করতে পারব। সেভাবেই আমরা কাজ করছি।

ব্যাংকে কোম্পানিটির এখনও ১১০ কোটি টাকা আছে। এই টাকা কবে ব্যবহার করা হবে-এমন প্রশ্নে পর্ষদ সদস্য সগির বলেন, ‘চাইলেই আমরা টাকা ব্যবহারের জন্য চাইতে পারি না। এটির আইন কানুন আছে। নিয়ম নীতির মধ্য দিয়ে চাইতে হবে। আমরা চেষ্টা করছি।’

বাতিল হচ্ছে প্লেসমেন্টের ২৭ কোটি ৫১ লাখ শেয়ার

রিং সাইনকে উৎপাদনে নিয়ে আসার চেষ্টার পাশাপাশি আইপিওতে আসার আগে টাকা ছাড়া প্লেসমেন্ট শেয়ার ইস্যু নিয়ে যে অনিয়ম হয়েছিল, সেটি উদঘাটনের কথা গত বৃহস্পতিবারই জানিয়েছে বিএসইসি।

এক বিজ্ঞপ্তিতে সেদিন সংস্থাটি জানায়, আইপিওতে আসার আগে কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ছিল ৯ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। উদ্যোক্তা বা পরিচালক ও ৭৩ জন সাধারণ শেয়ারধারীদের কাছে ২৭৫ কোটি ১০ লাখ টাকার প্লেসমেন্ট শেয়ার বিক্রির মাধ্যমে এই পরিশোধিত মূলধন ২৮৫ কোটি পাঁচ লাখ টাকা করা হয়। এর বিপরীতে কোনো টাকা পরিশোধ করা হয়নি।

২৭৫ কোটি ১০ লাখ টাকার বিপরীতে যে ২৭ কোটি ৫১ লাখ শেয়ার ইস্যু করা হয়েছিল, সেগুলো যে বাতিল হবে, সেটি গত ২০ মে বিএসইসির আদেশেই স্পষ্ট ছিল। সেদিনই বলা হয়, টাকা না নিয়ে যে প্লেসমেন্ট শেয়ার ইস্যু করা হয়েছে, সেগুলো বাদ দেয়া হবে।

তবে প্লেসমেন্ট শেয়ার নিয়ে অনিয়মের বিস্তারিত জানানো হলেও এই শেয়ার বাতিলের বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি বৃহস্পতিবারের বিজ্ঞপ্তিতে।

জানতে চাইলে বিএসইসির মুখপাত্র রেজাউল করিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্লেসমেন্টে যে শেয়ারের বিপরীতে কোনো টাকা দেয়া হয়নি, সেগুলো অবশ্যই বাতিল হবে।’

এই বিষয়ে এতদিন পর কেন তদন্ত- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমরা যে প্রোডাকশনে যাচ্ছি, তার আছে সেখানে স্বচ্ছতার জন্যই এই তদন্ত করা হয়েছে।’

২৭ কোটি ৫১ লাখ শেয়ার বাতিল হলে কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন হবে ২২৫ কোটি ২১ লাখ ৩০ হাজার টাকা। শেয়ার সংখ্যা হবে ২২ কোটি ৫২ লাখ ১৩ হাজার ৪৩টি।

অর্থাৎ বর্তমানে কোম্পানিটির যে শেয়ার দেখানো হচ্ছে, তার ৫৪ শতাংশই কমে যাচ্ছে।

বিনিয়োগকারীরে স্বপ্ন যাদের হাতে

বর্তমানে সাতজন স্বতন্ত্র পরিচালক কোম্পানিটি চালাচ্ছেন, যার চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মেজবাহ উদ্দিন।

সগির হোসাইন খন্দকার ছাড়া পর্ষদের অন্য সদস্যরা হলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অব লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের অধ্যাপক মিজানুর রহমান, একই বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড সিস্টেমস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, জনতা ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফিরোজ আলী, পাওয়ার গ্রিডের স্বতন্ত্র পরিচালক ইসতাক আহমেদ শিমুল এবং অ্যাভিয়েশন ম্যানেজমেন্ট সার্ভিসেসের সাবেক মহা ব্যবস্থাপক আব্দুর রাজ্জাক।

তালিকাভুক্তির পরই ভেঙে পরে কোম্পানিটি

প্রাথমিক গণপ্রস্তাব বা আইপিওর মাধ্যমে তোলা টাকায় যন্ত্রপাতি ক্রয়, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিওর খরচ মেটানোর কথা ছিল। তবে সেই টাকা তারা ব্যবহার করার আগেই হস্তক্ষেপ করে বিএসইসি।

কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে লেনদেন শুরু করার আগেই ২০১৯ সালের জন্য ১৫ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করে। লভ্যাংশ ঘোষণার পরবর্তী লেনদেনে সার্কিট ব্রেকার থাকবে কি থাকবে না এমন অবস্থায় কোম্পানিটি নিয়ে তৈরি হয় জটিলতা। ১২ ডিসেম্বর কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে লেনদেন শুরু করে।

পরের বছরের জন্য কোম্পানিটি ১ শতাংশ করে নগদ ও বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ হিসেবে ঘোষণা করে কিন্তু বার্ষিক সাধারণ সভা আর হয়নি।

যদিও কোম্পানিটি বিশেষ সাধারণ সভার তারিখ ঘোষণা করে যার উদ্দেশ্য ছিল প্রাথমিক গণপ্রস্তাব বা আইপিও থেকে তোলা টাকার ব্যবহারের খাত পরিবর্তন।

তখন অভিযোগ উঠে, কোম্পানিটির বিদেশি পরিচালকেরা আইপিওর মাধ্যমে তোলা টাকা নিয়ে নিজ দেশে চলে গেছেন। তখন বিএসইসির অনুরোধে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে কোম্পানির ব্যাংক হিসাব বন্ধ করে রাখে বাংলাদেশ ব্যাংক।

যেভাবে বিপাকে

ঢাকা রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলে (ডিইপিজেড) তাইওয়ানের মালিকানাধীন বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান রিং সাইন একটি শক্তিশালী কোম্পানি হিসেবেই পরিচিত ছিল। এর শ্রমিকসংখ্যা পাঁচ হাজারের বেশি ছিল।

১৯৯৬ সালে ডিইপিজেডে তাইওয়ানের নাগরিক মি সাও সোয়েটার কারখানাটি চালু করেন। ব্যবসায়িক সাফল্যে একে একে তিনি গড়ে তোলেন অ্যাভাস গার্ড লিমিটেড, সাইন ফ্যাশন লিমিটেড ও ইন্টার লগ লিমিটেড। এসব কারখানায় শ্রমিক ছিল আরও অন্তত সাত হাজার।

সমস্যার শুরু পাঁচ বছর আগে। বার্ধক্যজনিত কারণে মি সাও মারা গেলে তার ছেলে মি উইং থিং ও মেয়ে অ্যাঞ্জেলা কারখানাটির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। কিন্তু শ্রমিক ফেডারেশন নেতা ও কারখানার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে তারা পেরে ওঠেননি।

মালিকদের অভিযোগ, শুল্কমুক্ত সুবিধা নিয়ে আমদানি করা সুতাসহ নানা উপকরণ পাচার করে দিচ্ছিলেন শ্রমিক ফেডারেশন নেতা ও কারখানার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

মি সাওয়ের মতো তার সন্তানরা ব্যবসা অতটা ভালো বুঝতেন না। আর এই সুযোগে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একটি অংশ বেপরোয়া হয়ে ওঠে বলেও তথ্য আছে। একপর্যায়ে মি সাওয়ের দুই সন্তান কাউকে না বলে বাংলাদেশ থেকে চলে যান।

আরও পড়ুন:
ব্যাংক খুললে শাটডাউনেও চলবে পুঁজিবাজার
ওটিসি থেকে ফিরেই ধামাকা, পরে হতাশা
ব্যাংক, বিমা, বস্ত্রের সম্মিলিত উত্থানে ফিরল স্বস্তি
পুঁজিবাজারে ‘৬ হাজারের লড়াইয়ে’ ব্যাংকের হাত ধরে ‘জয়’
আতঙ্ক কাটিয়ে পুঁজিবাজারে স্বস্তি

শেয়ার করুন

মন্তব্য