ব্যবসায় দরকার উন্নত ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার

ব্যবসায় দরকার উন্নত ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার

বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ একটি উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হলে শ্রম ব্যয় বেড়ে যাবে। যেখানে সস্তায় পণ্য তৈরি হবে, ক্রেতারা যেখানেই চলে যাবে। এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে হলে উন্নত ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

উন্নত ডিজিটাল প্রযুক্তির এই যুগে বাংলাদেশে এখনও ১০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে চারটির বেশি প্রতিষ্ঠান হাতে লেখা ডকুমেন্ট ব্যবহার করে। আর তিন-চতুর্থাংশ প্রতিষ্ঠান এখনও হাতে-কলমে পণ্যের গুণগত মান পরীক্ষা করে থাকে।

বাংলাদেশকে নিয়ে বিশ্বব্যাংকের ‘গিয়ারিং আপ ফর দি ফিউচার অফ ম্যানুফ্যাকচারিং ইন বাংলাদেশ’ প্রতিবেদনে এ হতাশাজনক তথ্য বের হয়ে এসেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত দুই দশকে অর্থনৈকি উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছে বাংলাদেশ। এ সাফল্যের পেছনে তৈরি পোশাক খাতের বড় অবদান রয়েছে। দেশটির মোট রপ্তানি আয়ের ৮৪ শতাংশই আসে এই শিল্প থেকে। ৪০ লাখ শস্তা শ্রমিকের কারণে এই খাত সারা বিশ্বে প্রতিযোগিতামূলক হতে সক্ষম হয়েছে।

তবে অগ্রগতির এই চিত্র চিরকাল টিকে থাকবে এমনটি বলা যায় না। বাংলাদেশ একটি উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হলে শ্রম ব্যয় বেড়ে যাবে। যেখানে শস্তায় পণ্য তৈরি হবে, ক্রেতারা যেখানেই চলে যাবে।

এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে হলে উন্নত ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। তা না হলে বিশ্ববাজারে প্রতিযোগিতা থেকে ছিটকে পড়তে পারে দেশটি। মোট কথা, উন্নত ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার না করলে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা ব্যহত হবে।

‘বিশেষ করে করোনাভাইরাস মহামারির এই সঙ্কটকালে বাংলাদেশের অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধারে সহায়তার জন্য উৎপাদন খাতের উৎপাদনশীলতা বাড়তেই হবে। আর এ জন্য বর্তমান বিশ্ব পেক্ষাপটে উন্নত ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই’ – বলা হয় প্রতিবেদনে।

প্রতিবেদনে রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক শিল্প নিয়ে আরও বলা হয়, দক্ষ ম্যানেজার, ডিজাইনার ও অন্যান্য কারিগরি বিশেষজ্ঞের অভাব বাংলাদেশের আবেদনকে আরও সীমিত করে তুলবে। কোভিড-১৯ এই চিত্রকে আরও নাজুক করে তুলেছে।

‘তাহলে অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে বাংলাদেশ কী করতে পারে’- এমন প্রশ্ন রেখে প্রতিবেদনে প্রতিবেদনে কিছু পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। কম পারিশ্রমিকে প্রতিযোগিতা অংশগ্রহণের পরিবর্তে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির মাধ্যমে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের প্রতি দৃষ্টি দিতে হবে। সমগ্র উৎপাদন খাতে প্রযুক্তির ব্যবহারকে উন্নত করতে হবে। এ ক্ষেত্রে আরও জ্বালানি সাশ্রয়ী মেশিন ব্যবাহরসহ উন্নত শিল্পপ্রযুক্তি ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ হবে।

তবে শুধু এটুকুই যথেষ্ট নয়। ব্যবসায় পরিচালনায় মান বাড়াতে হলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে অবশ্যই উন্নত ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে। এখনও দেশের ১০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৪টির বেশি প্রতিষ্ঠান হাতে লেখা ডকুমেন্ট ব্যবহার করে। তিন-চতুর্থাংশ প্রতিষ্ঠান এখনো হাতে কলমে গুণগতমান পরীক্ষা করে থাকে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলোকে অবশ্যই আরও উন্নত ব্যবস্থাপনা প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে। যেমন, আরও ভালো পরিকল্পনা ও কর্মদক্ষতা মূল্যায়ন করা এবং প্রণোদনা ব্যবহার করা। কিন্ত অনেক প্রতিষ্ঠানই মনে করে না যে, তাদের উন্নয়নের দরকার আছে। অন্যরা জানেই না কিভাবে উন্নত করতে হবে। এ ক্ষেত্রে সরকার সহায়তা করতে পারে। নতুন নীতিমালা তিনটি ‘স’কে উন্নত করতে পারে- সামর্থ্য, সংযোগ এবং সম্পূরক বাজার।

ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামর্থ্য

বাংলাদেশে ম্যানেজারদের স্নাতক ডিগ্রি থাকলে প্রযুক্তি ব্যবহার ১০ শতাংশ বেড়ে যেতে পারে। কিন্তু যারা ব্যবসায় চালাচ্ছেন, তাদের অর্ধেকেরই স্নাতক ডিগ্রি নেই। নীতিমালায় অবশ্যই শিক্ষা এবং দক্ষতা বৃদ্ধির প্রতি সমর্থন থাকতে হবে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে অবশ্যই সাশ্রয়ী পরামর্শ সেবা পেতে এবং প্রাপ্ত সাধ্য প্রযুক্তি সম্পর্কে সচেতন হতে সরকারকে সাহায্য করতে হবে।

আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে সংযোগ

যেসব প্রতিষ্ঠান বহুজাতিক সংস্থার সাথে কাজ করে, তারা স্থানীয় প্রর্যায়ের প্রতিষ্ঠানের তুলনায় বেশি প্রযুক্তি ব্যবহার করে। প্রতিযোগিতার কারণেই নতুন হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার কিনে থাকে। আন্তর্জাতিক বাণিজ্য এবং সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগের উপর বিধিনিষেধ অবশ্যই কমিয়ে আনতে হবে। তৈরি পোশাকের বাইরে অন্যান্য ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকেও অবশ্যই শুল্কমুক্ত কাঁচামাল আমদানির অনুমতি দিতে হবে। আমদানি প্রতিযোগিতা থেকে লাভবান হতে স্পেশাল বন্ডেড ওয়্যার হাউজ ব্যবহারের সুবিধা দিতে হবে, যা বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের সহায়ক ভূমিকা রাখবে।

সম্পূরক বাজার

প্রযুক্তি ব্যবহারে প্রধান বাধা হিসাবে ছোট এবং মাঝারি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের অর্ধেকই অর্থায়নের অভাবকে দায়ি করে থাকে। নিয়মকানুন বিধিমালা মেনে চলার খরচ সম্পর্কেও তারা চিন্তিত। প্রতিষ্ঠানগুলো যাতে সহজে তাদের প্রযুক্তিগত চাহিদা পূরণের জন্য ঋণ পেতে পারে সে জন্য সরকারকে আর্থিক খাতকে শক্তিশালী করতে হবে। ব্যবসা সংক্রান্ত বিধি-নিয়মের অপ্রয়োজীয়ন খরচ কমাতে হবে।

এই তিনটি ‘স’ বাস্তবায়ন হলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো সাশ্রয়ী এবং স্থানীয়ভাবে উপযোগী প্রযুক্তি ব্যবহার করা শুরু করবে। তারা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রতিযোগিতায় ভালো করতে পারবে। বাংলাদেশের উৎপাদন খাত ভবিষ্যতের জন্য প্রস্তুত থাকবে।

প্রতিবেদনে বিশ্ব ব্যাংক ঢাকা অফিসের আবাসিক প্রতিনিধি মার্সি টেম্বন বলেন, ‘বাংলাদেশের পোশাক খাত ৪০ লাখ মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করেছে। এই খাত দেশটির অর্থনৈতিক উন্নয়নে বড় অবদান রাখছে। তবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অটোমেশনের কারণে এ খাতে কর্মসংস্থান হ্রাস পেয়েছে। মহামারি পরবর্তী মহাবিশ্বে এই প্রবণতা আরও ত্বরান্বিত হবে।

‘এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের ব্যবসায়ী-শিল্পপতিদের সস্তা শ্রমিকনির্ভর উৎপাদনশীলতার প্রতিযোগিতা থেকে উচ্চ উৎপাদনশীলতার প্রতিযোগিতা করার জন্য জরুরিভিত্তিতে পদক্ষেপ নিতে হবে। আর এ জন্য সবাইকে সবক্ষেত্রে আরও উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে।’

বিশ্বব্যাংকের জ্যেষ্ঠ অর্থনীতিবিদ এবং এই প্রতিবেদনের সহ-সমন্বয়ক সিদ্ধার্থ শর্মা বলেন, ‘বাংলাদেশের আরও উন্নয়নের জন্য আরও বেশি কর্মসংস্থানের দিকে সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দেওয়া উচিৎ। সে কারণে তৈরি পোশাকসহ উৎপাদন প্রক্রিয়ার সব ক্ষেত্রেই আরও উন্নত প্রযুক্তি গ্রহণ করতে হবে। টেকসই এবং আরও ভাল বেতনের কর্মসংস্থান তৈরি হবে। একই সঙ্গে দেশটিকে রপ্তানি পণ্যের বহুমুখীকরণ করতে হবে। তাহলে বাংলাদেশের ভবিষৎ উজ্জ্বল হবে।

আরও পড়ুন:
জীবিকার জন্য বিশ্বব্যাংক দিচ্ছে ৫ হাজার কোটি টাকা
কর্মজীবীদের বেতন দিতে বিশ্বব্যাংকের ২ হাজার কোটি টাকা
টিকার কারণে অর্থনীতি পুনরুদ্ধার হচ্ছে: বিশ্বব্যাংক
প্রবৃদ্ধি: বাংলাদেশকে এগিয়ে রাখল বিশ্বব্যাংক
কর্মসংস্থানে ২ হাজার ১২৫ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে বিশ্বব্যাংক

শেয়ার করুন

মন্তব্য