লেনদেনে ১০ বছরের রেকর্ড ছুঁইছুঁই

লেনদেনে ১০ বছরের রেকর্ড ছুঁইছুঁই

পুঁজিবাজারে উত্থানের কারণে বিনিয়োগকারীদের উপস্থিতি লকডাউনের মধ্যেও বেড়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

২০১০ সালের মহাধসের পর চলতি বছরের আগে দুই হাজার কোটি টাকা লেনদেন হাতে গোণা কয়েকদিন। এর মধ্যে চলতি বছরই চার দিন লেনদেন হলো এই পরিমাণ। যদিও ২০২০ সালের ২৮ জুন দুই হাজার ৫৪৩ কোটি টাকার শেয়ার হাতবদলের ইতিহাস আছে, যদিও সেটি একটি বিশেষ কারণে। সেদিন ব্লক মার্কেটে জেএসকের শেয়ার ইউনিলিভারের কাছে হস্তান্তরের কারণে সেদিন স্ফীত দেখিয়েছিল লেনদেনের চিত্র। এটা বাদ দিলে প্রকৃত লেনদেন ছিল কম।

লকডাউনের শুরু থেকে পুঁজিবাজারে উত্থানের কারণে যে শেয়ার কেনার ধুম তৈরি হয়েছে, তার প্রভাবে এক দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ লেনদেনের রেকর্ড রক্ষা পেল একটুর জন্য।

ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা সক্রিয় হয়ে শেয়ার কেনা বাড়িয়ে দেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার লেনদেন হলো দুই হাজার ৩৬৮ কোটি টাকা। এর আগে চলতি বছর ১৭ জানুয়ারি লেনদেন হয় দুই হাজার ৩৮৪ কোটি টাকা। অর্থাৎ ১৬ কোটি টাকার কারণে এক দশকে রেকর্ডের লেনদেন হলো না।

ওই মাসের ১৪ জানুয়ারি মার্জিন ঋণের সুদহার ১২ শতাংশ বেঁধে দেয়ার পর থেকেই মূলত পুঁজিবাজার দীর্ঘ সংশোধনে যায়, যা চলে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত।

১৪ জানুয়ারি পাঁচ হাজার ৯০৯ পয়েন্ট থেকে সূচক কমে ৪ এপ্রিল হয় পাঁচ হাজার ৮৮ পয়েন্ট। সেই সঙ্গে লেনদেন কমে তিনশ কোটি টাকার নিচে নামে।

তবে লকডাউন আতঙ্ক কাটিয়ে ৫ এপ্রিল থেকে পুঁজিবাজারে চাঙ্গাভাব দেখা দেয়। আর এটি টানা প্রায় দুই মাস ধরে চলমান থাকায় হাত গুটিয়ে থাকা বিনিয়োগকারীরা সক্রিয় হতে শুরু করেন।

প্রথমে বিমা খাতের, পরে মিউচ্যুয়াল ফান্ড, এরপর ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান, সব শেষে বস্ত্র খাতে ব্যাপক উত্থানের কারণে বিনিযোগকারীদের লোকসানি বিও হিসাবগুলোর অনেকগুলো লাভে চলে আসে। মার্জিন ঋণের সুবিধা বাড়ানোর কারণে আরও বেশি বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি হয়।

সেই সঙ্গে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসিও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বাড়ানোর সুযোগ করে দেয়। আর এর প্রভাবে ঈদের আগ থেকে শেয়ার কেনা বাড়িয়ে দেন বিনিয়োগকারীরা।

ঈদের পর আরও বেশি সক্রিয় হতে শুরু করেন ব্যক্তিশ্রেণির পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। ২০১০ সালের মহাধসের পর ঈদ শেষে এত বেশি শেয়ার কেনার ইতিহাস দেখা যায়নি।

এর পর্যায়ে গত ১৯ মে লেনদেন দুই হাজার কোটি টাকা ছাড়ায়। এরপর আবার কয়েকদিন দর সংশোধন হতে থাকলে বিনিয়োগকারীরা শেয়ার বিক্রি কমিয়ে দেন। ফলে কমতে থাকে লেনেদেন। চার কার্যদিবস পর ২৫ মে আবার দুই হাজার কোটি টাকা ছাড়ায় লেনদেন।

পরদিন বৌদ্ধ পূর্ণিমার ছুটি শেষে বৃহস্পতিবার লেনদেন শুরুর সোয়া এক ঘণ্টার মধ্যেই এক হাজার কোটি টাকা লেনদেন হওয়ার সময়ই বোঝা যাচ্ছিল লেনদেন নতুন উচ্চতায় যেতে পারে। তবে দিন শেষে রয়ে গেল ৩০ কোটি টাকার আক্ষেপ।

অবশ্য ২০২০ সালের ২৮ জুন একবার দুই হাজার ৫৪৩ কোটি টাকার শেয়ার হাতবদলের ইতিহাস আছে, যদিও সেটি একটি বিশেষ কারণে।

তবে ওইদিন জেএসকে বিডি লিমিটেডের শেয়ার ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ারের কাছে হাতবদলই ছিল এর বড় কারণ। এটা বাদ দিলে সেদিন সাধারণ লেনদেন এত ছিল না। ফলে তা নিয়ে আলোচনাও হয়নি।

তিন বছর আগে ২০১৭ সালের ১৭ জানুয়ারি দুই হাজার ৬৪ কোটি টাকার লেনদেন হয় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে।

তার আগে সবশেষ এ পরিমাণ লেনদেন হয়েছিল ২০১০ সালের ৭ ডিসেম্বর। মূলত তারপর থেকেই দীর্ঘস্থায়ী মন্দার কবলে পড়ে পুঁজিবাজার।

‘বেড়েছে’ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ

গত জানুয়ারি থেকে পুঁজিবাজারে লেনদেন যখন লেনদেন কমছিল, তখন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বাড়ানোর সুযোগ খুঁজতে মার্চের শেষে বৈঠকে বসে বিএসইসি। মার্চেন্ট ব্যাংক অ্যাসোসিয়েশন এবং ডিএসই ব্রোকারেজ অ্যাসোসিয়েশন, ডিবিএ সেই বৈঠকে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বাড়ানোর বেশ কিছু বাধা দূর করার প্রস্তাব করে।

ডিবিএ সভাপতি শরিফ আনোয়ার হোসেন সে সময় বলে, তারা বলেন, ব্রোকারহাউজগুলো তাদের ডিলার অ্যাকাউন্টে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আইন অনুযায়ী আগে গ্রাহকের অর্ডার বাস্তবায়ন করতে হয়। পরে ডিলার একাউন্ট থেকে ক্রয় আদেশ দিতে হয়। ১৯৮৭ সালে প্রণীত এই আইনের কারণে ডিলারদের বিনিয়োগ ব্যাহত হচ্ছে।

বিএসইসি কমিশনার শামসুদ্দিন আহমেদ সে সময় বলেন, আইনের এই শর্তটি লংঘন করার কারণে এখনও কারও বিরুদ্ধে নন-কমপ্লায়েন্স অভিযোগ আনা হয়নি, এবারও বিষয়টিকে নন-কমপ্লায়েন্স হিসেবে গণ্য করা হবে না।

সেই বৈঠকের পর বিএসইসি মার্জিন ঋণ নেয়ার সুযোগ আরও বাড়ায়।

৪ এপ্রিল বিএসইসি জানায়, পুঁজিবাজারের প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৭ হাজার পয়েন্ট পর্যন্ত ১:০.৮ অনুপাতে ঋণ পাবেন বিনিয়োগকারীরা। অর্থাৎ বিনিয়োগ ১০০ টাকা হলে তাকে শেয়ার কেনার জন্য ৮০ টাকা পর্যন্ত ঋণ দিতে পারবে সংশ্লিষ্ট ব্রোকারেজ হাউজ বা মার্চেন্ট ব্যাংক।

এরপর থেকে লেনদেন ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে। আবার এপ্রিল থেকে বিমার শেয়ারে যারা বিনিয়োগ করেছেন তারা বিপুল মুনাফা করেছেন। ব্যাংক, বস্ত্র ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডও বেশ মুনাফা দিয়েছে। এ কারণে বিও হিসাবগুলো আরও বেশি মার্জিন ঋণ পাওয়ার সুবিধা পেয়েছে।

পাশাপাশি ব্যাংক, বিমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা মার্চেন্ট ব্যাংকগুলো বিনিয়োগ বাড়িয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ছায়দুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পুঁজিবাজারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অবস্থা কখন কী, তা যাচাই করা কঠিন। তবে দুই হাজার কোটি টাকা লেনদেন প্রতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ ছাড়া সম্ভব নয়।’

তিনি বলেন, ‘গত কয়েকমাস ধরে একটি সেক্টরের শেয়ারের দর ক্রমাগত বেড়েছে। এখন সে সেক্টরের শেয়ার দর কমে ব্যাংকের শেয়ারের দর বাড়ছে, নন ব্যাংক খাতের শেয়ারের দর বাড়ছে, মিউচ্যুয়াল ফান্ড, বস্ত্র, প্রকৌশল খাতের শেয়ারের দর বাড়ছে। ফলে বলা যায়, বিনিয়োগকারীরা এখন পুঁজিবাজার থেকে মুনাফা উত্তোলন করে অন্য খাতে বিনিয়োগ করছে।’

সুদহার কমও একটি কারণ বলে মনে করেন ছায়দুর। বলেন, ‘ব্যাংকে এখন টাকা রাখলে সুদের হার কম, সঞ্চয় পত্রের ক্ষেত্রে বিভিন্ন বিধি নিষেধ দিয়ে সে জায়গটিকে ছোট করা হয়েছে। ফলে বিনিয়োগের জন্য ভালো জায়গা হচ্ছে পুঁজিবাজার।’

সেই সঙ্গে অপ্রদর্শিত আয় এখানে বিনিয়োগের সুযোগ আছে। আগামী বাজেটে কী হবে তা স্পষ্ট না হওয়ায় এখন অনেকেই এসব টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করছে বলেও মনে করেন তিনি।

পুঁজিবাজারের এমন উত্থানে ঝুকি আছে কিনা প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘পুজিবাজার বিনিয়োগ মানেই ঝুঁকি। এখানে শেয়ারের দর যেমন বাড়তে পারে তেমনি কমতেও পারে। তবে বিনিয়োগের আগে কোম্পানি সম্পর্কে জেনে বিনিয়োগ করা উচিত, তাহলেও ঝুঁকি থেকে মুক্ত থাকা যাবে।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

‘অর্থ আত্মসাত’: ব্যাংক কর্মকর্তাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

‘অর্থ আত্মসাত’: ব্যাংক কর্মকর্তাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

এজাহারে বলা হয়েছে, ব্যাংকের দুই কর্মকর্তা ও তিন ব্যবসায়ী জালিয়াতির মাধ্যমে ১১ কোটি ৯৩ লাখ ৫ হাজার ৪২১ টাকা আত্মসাৎ করেন। তারা ব্যাংকের প্রকৃত বেনিফিশিয়ারির অ্যাকাউন্টে এই টাকা পাঠাননি। ২০১৯ সালের জুন থেকে ২০২১ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ১২২টি লেনদেনের মাধ্যমে ওই টাকা আত্মসাৎ করা হয়। 

১১ কোটি ৯৩ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে চট্টগ্রামে ব্যাংক এশিয়ার দুই কর্মকর্তাসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-১ এর সহকারী পরিচালক মো. ফজলুল বারী বুধবার বিকেল ৪টার দিকে মামলাটি করেন।

দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয় চট্টগ্রাম-১ এর উপ পরিচালক লুৎফুল কবির চন্দন নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার আসামিরা হলেন ব্যাংক এশিয়া চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ শাখার ফাস্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট ভিপি ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ, সিনিয়র অফিসার এহতেশাম উদ্দিন জাহান আনসারী, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পিঅ্যান্ড আর ট্রেডার্সের মালিক জাহান আনসারী, রিটজ মেরিন এন্টারপ্রাইজের মালিক এমদাদুল হাসান ও সেভেন সিজ বিডির মালিক তারেজকুজ্জামান।

এজাহারে বলা হয়েছে, ব্যাংকের দুই কর্মকর্তা ও তিন ব্যবসায়ী জালিয়াতির মাধ্যমে ১১ কোটি ৯৩ লাখ ৫ হাজার ৪২১ টাকা আত্মসাৎ করেন। তারা ব্যাংকের প্রকৃত বেনিফিশিয়ারির অ্যাকাউন্টে এই টাকা পাঠাননি। ২০১৯ সালের জুন থেকে ২০২১ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ১২২টি লেনদেনের মাধ্যমে ওই টাকা আত্মসাৎ করা হয়।

ক্ষমতার অপব্যবহার করে স্থানান্তর ও হস্তান্তরের মাধ্যমে অর্থ আত্মসাৎ করায় তাদের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং আইন ২০১২ এর ৪(২) এবং দণ্ডবিধির ৪০৯/৪২০/৪৬৭/৪৬৮/১০৯ ধারাসহ ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় মামলা করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

শাহজালাল সার কারখানায় ৩৮ কোটি টাকা ‘আত্মসাত’

শাহজালাল সার কারখানায় ৩৮ কোটি টাকা ‘আত্মসাত’

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে শাহজালাল সার কারখানা। ছবি: সংগৃহীত

মামলাগুলোর এজাহারে বলা হয়েছে, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণা এবং জালিয়াতির মাধ্যমে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ভুয়া বিল ও ভাউচার তৈরিসহ প্রকল্পের ৩৮ কোটি ৭১ লাখ ২৪ হাজার ৯০২ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জের শাহজালাল সার কারখানা প্রকল্পের ৩৮ কোটি ৭১ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ১০ জনের বিরুদ্ধে ১৫টি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মঙ্গলবার দুদকের সমন্বিত সিলেট জেলা কার্যালয়ে এসব মামলা করেন কমিশনের উপপরিচালক নূর ই আলম।

বুধবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদকের উপপরিচালক (জনসংযোগ) মুহাম্মদ আরিফ সাদেক।

তিনি জানান, মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে শাহজালাল ফার্টিলাইজার প্রকল্পের হিসাব বিভাগীয় প্রধান (বরখাস্ত) খোন্দকার মুহাম্মদ ইকবাল এবং প্রকল্পের সাবেক রসায়নবিদ (বরখাস্ত) নেছার উদ্দিন আহমদ।

অন্য আসামিরা হলেন খোন্দকার মুহাম্মদ ইকবালের স্ত্রী মেসার্স টিআই ইন্টারন্যাশনালের মালিক হালিমা আক্তার, মেসার্স রাফী এন্টারপ্রাইজের মালিক নূরুল হোসেন, ফালগুনী ট্রেডার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এএসএম ইসমাইল খান, মেসার্স আয়মান এন্টারপ্রাইজের মালিক সাইফুল হক, মেসার্স এন আহমদ অ্যান্ড সন্সের মালিক নাজির আহমদ, মেসার্স মা এন্টারপ্রাইজের মালিক হেলাল উদ্দিন, মেসার্স ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনালের মালিক জামশেদুর রহমান খন্দকার এবং মেসার্স সাকিব ট্রেডার্সের মালিক আহসান উল্লাহ চৌধুরী।

মামলাগুলোর এজাহারে বলা হয়েছে, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে প্রতারণা এবং জালিয়াতির মাধ্যমে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ভুয়া বিল ও ভাউচার তৈরিসহ প্রকল্পের ৩৮ কোটি ৭১ লাখ ২৪ হাজার ৯০২ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

অভিযোগের প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়া আসামিদের বিরুদ্ধে এসব মামলা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুদক কর্মকর্তা আরিফ।

মামলার বিষয়ে শাহজালাল সার কারখানার কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে কারখানার একটি সূত্র জানিয়েছে, অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ ওঠার পরই দুই কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে জরাজীর্ণ হয়ে পড়া প্রাকৃতিক গ্যাস সার কারখানা (এনজিএলএফ) দীর্ঘ দিন লোকসান গোনায় ওই কারখানার পাশেই প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে শাহজালাল সার কারখানা নির্মাণ করা হয়।

২০১৭ সালে প্রথম বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করে কারখানাটি। তবে নানা কারণেই উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ব্যর্থ হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

শেয়ার করুন

করোনা মোকাবিলায় ব্র্যাকের সঙ্গে ৯ ব্যাংক

করোনা মোকাবিলায় ব্র্যাকের সঙ্গে ৯ ব্যাংক

‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ প্রকল্পের অধীনে ১৮ লাখ মানুষকে মাস্ক এবং করোনাভাইরাস প্রতিরোধসামগ্রী বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে। ছবি: সংগৃহীত

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে ব্র্যাকের উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত ৯টি ব্যাংক হলো ব্র্যাক, ইস্টার্ন, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড, ঢাকা, ব্যাংক এশিয়া, মার্কেন্টাইল, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ও ডাচ বাংলা ব্যাংক। ব্যাংকগুলোর এই অনুদান করোনার উচ্চঝুঁকিপূর্ণ ২০ জেলা, বিশেষত রাজশাহী এবং খুলনা বিভাগের জেলাগুলোতে ব্যয় করা হবে। ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, ‘অনুদানের অর্থ ব্র্যাকের করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নেয়া দুটি উদ্যোগ- ‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ এবং ‘ডাকছে আবার দেশ’ এর কাজে ব্যয় হবে।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতা বাড়ানো, সংক্রমণ প্রতিরোধ এবং ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় জনগোষ্ঠীকে জরুরি সহায়তা দিতে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের উদ্যোগের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে দেশের ৯টি ব্যাংক।

বেসরকারি ৯টি ব্যাংক এ বাবদ ১৫ কোটি ৯১ লাখ ৯৩ হাজার ৭২৮ টাকা অনুদান দিয়েছে। অনুদানের এ টাকা ব্যয় হবে ঝুঁকিপূর্ণ ২০ জেলায়।

৯টি ব্যাংক হলো ব্র্যাক, ইস্টার্ন, মিউচুয়াল ট্রাস্ট, স্ট্যান্ডার্ড, ঢাকা, ব্যাংক এশিয়া, মার্কেন্টাইল, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ও ডাচ বাংলা ব্যাংক।

ব্যাংকগুলোর এই অনুদান করোনার উচ্চঝুঁকিপূর্ণ ২০ জেলা, বিশেষত রাজশাহী এবং খুলনা বিভাগের জেলাগুলোতে ব্যয় করা হবে। ৯টি ব্যাংকের মধ্যে ব্যাংক এশিয়া এবং ঢাকা ব্যাংকের সাথে চুক্তি সই প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, ‘অনুদানের অর্থ ব্র্যাকের করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নেয়া দুটি উদ্যোগ- ‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ এবং ‘ডাকছে আবার দেশ’ এর কাজে লাগানো হবে।

উদ্যোগ দুটির মূল কার্যক্রম হলো- মাস্ক বিতরণ এবং মেডিক্যাল সহায়তার মাধ্যমে কমিউনিটিতে রিসিলিয়েন্স গঠন এবং লকডাউনের কারণে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থানে থাকা পরিবারগুলোতে জরুরি আর্থিক সহায়তা দেয়া’।

বাংলাদেশ ব্যাংক সম্প্রতি এই মহামারির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীকে প্রয়োজনীয় সহায়তার মাধ্যমে সামাজিক দায়বদ্ধতা পালনের উদ্দেশে ব্যাংকগুলোকে বিশেষ ‘করপোরেট সোশাল রেসপন্সিবিলিটি’ (সিএসআর) কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশ দিয়েছে। এ কার্যক্রমের আওতায় ব্যাংকগুলো ব্র্যাকের ‘ডাকছে আবার দেশ’ এবং ‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ দুইটি কার্যক্রমে অর্থায়ন করেছে।

এ ৯টি ব্যাংকের প্রতিশ্রুত টাকা থেকে ‘ডাকছে আবার দেশ’ উদ্যোগের অধীনে ব্যয় হবে ১৩ কোটি ৫৭ লাখ ৪০ হাজার ৫০০ টাকা। যা দিয়ে ৭২ হাজার ১৬০টি পরিবারকে নগদ অর্থ সহায়তা দেয়া হবে।

বাকি অর্থ দিয়ে ‘করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দুর্গ’ প্রকল্পের অধীনে ১৮ লাখ মানুষকে মাস্ক এবং অন্যান্য করোনাভাইরাস প্রতিরোধসামগ্রী বিনামূল্যে বিতরণ করা হবে। পাশাপাশি এই রোগের উপসর্গযুক্ত ১০ হাজার মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া হবে।

করোনা সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ ৩৫টি জেলায় কমিউনিটিকে সংযুক্তিকরণ এবং স্থানীয় পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা খাতকে শক্তিশালী করা হচ্ছে। মাস্ক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ গুরুত্ব আরোপ করার পাশাপাশি নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, হাঁচি-কাশি দেয়ার সময় যথাযথ সতর্কতা, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার প্রচারণা এবং ভ্যাকসিন রেজিস্ট্রেশনের সচেতনতামূলক কর্মসূচি, ভুল তথ্য ও গুজব নিরসনেরও উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে ।

‘ডাকছে আবার দেশ’ উদ্যোগটির মাধ্যমে প্রথম দফায় করোনার উচ্চঝুঁকিতে থাকা ১৯টি জেলায় ৫০ হাজার পরিবারে জরুরি খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। প্রাথমিক সহায়তার এই তহবিল গঠিত হয়েছে ব্র্যাকের কর্মীদের একদিনের বেতন এবং এর সঙ্গে ব্র্যাকের সমপরিমাণ অর্থের অনুদান মিলিয়ে।

শেয়ার করুন

করোনা মোকাবিলায় সারা দেশে ৩০ অক্সিজেন প্ল্যান্ট  

করোনা মোকাবিলায় সারা দেশে ৩০ অক্সিজেন প্ল্যান্ট  

দেশে এখন দিনে ২০০ টন অক্সিজেনের চাহিদা রয়েছে। ছবি: সাইফুল ইসলাম

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সামসুল আরেফিন বলেন, ‘স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে ৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট স্থাপন করার জন্য। বৈঠকে এ সংক্রান্ত  প্রস্তাবের নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এডিবি প্রকল্পে অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।’

করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে সারাদেশে ৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট বসাবে সরকার। বুধবার অর্থনৈতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ বিষয়ে নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এদিন বৈঠক শেষে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অর্থমন্ত্রী আহ ম মুস্তফা কামাল ।

তবে এতে কত টাকা ব্যয় হবে, কবে কাজ শুরু হবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি অর্থমন্ত্রী। স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সঙ্গে কথা বলে পরের বৈঠকে এর ব্যাখ্যা দেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

করোনা মহামারির মধ্যে বাংলাদেশের হাসপাতালগুলোতে অক্সিজেন সংকট দেখা দিয়েছে। রাজধানী ঢাকার সব হাসপাতালেই অক্সিজেন সংকট চলছে। জেলা পর্যায়েও একই পরিস্থিতি।

স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশে এখন দিনে ২০০ টন অক্সিজেনের চাহিদা রয়েছে। জনস্বাস্থ্যবিদদের মতে, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হলে এই চাহিদা ৩০০ টনে পৌঁছাবে।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সামসুল আরেফিন বলেন, ‘স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে ৩০টি অক্সিজেন প্ল্যান্ট স্থাপন করার জন্য। বৈঠকে এ সংক্রান্ত প্রস্তাবের নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।‘

তিনি জানান, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) এ প্রকল্পে অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

রেমিট্যান্সে বাড়তি প্রণোদনার প্রস্তাব নাকচ অর্থমন্ত্রীর

বৈধ পথ বা ব্যাকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স পাঠাতে উৎসাহিত করতে এর ওপর বর্তমানে ২ শতাংশ প্রণোদনা দেয়া হচ্ছে। রেমিট্যান্সে রেকর্ড প্রবৃদ্ধির পেছনে এটি অন্যতম কারণ বলে বিবেচনা করা হয়।

এ খাতে অতিরিক্ত আরও ১ শতাংশ প্রণোদনা দেয়া হতে পারে এমন গুঞ্জন নাকচ করে দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী।

ইতোমধ্যে যে প্রণোদনা দেয়া হয়েছে সেটি যথেষ্ঠ বলেও দাবি করেন আ হ ম মুস্তফা কামাল।

চলতি অর্থ বছরের প্রথম মাসে রেমিট্যান্স কিছুটা কমে যাওয়ার কারণ জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘শাটডাউনের কারণে এর ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। গণটিকা দান কর্মসূচি আবার শুরু হচ্ছে। এতে পরিস্থিতির উন্নতি হবে এবং জনগণের মধ্যে আস্থা বাড়বে। এর ফলে আগামীতে রেমিট্যান্সের তেজি ভাব অব্যাহত থাকবে।’

মন্ত্রিসভা বৈঠকে ১ হাজার ১৯৪ কোটি টাকা ব্যয়ে দশটি দরপ্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে একটি অর্থনেতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটিতে, বাকি নয়টি ক্রয় সংক্রান্ত কমিটিতে অনুমোদন পেয়েছে।

শেয়ার করুন

সিএসআরের টাকা বিতরণের সময় বাড়ল

সিএসআরের টাকা বিতরণের সময় বাড়ল

সিএসআরের টাকা বিতরণের সময় বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ফাইল ছবি

বাংলাদেশ ব্যাংক বুধবার এ বিষয়ে একটি সার্কুলার জারি করে বলছে, ‘১৪ জুলাই পর্যন্ত ব্যাংকগুলো জেলা প্রশাসক বা এনজিও বা এমএফআই এবং নিজস্ব ব্যবস্থাপনা কিংবা সেনা কল্যাণ সংস্থার মাধ্যমে বিশেষ সিএসআর কাজের অগ্রগতি আশানুরূপ নয়।’

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় জনগোষ্ঠীকে সহায়তার জন্য ব্যাংকগুলো সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচির (সিএসআর) টাকা বিতরণের সময় বাড়িয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এ খাতে নির্দিষ্ট থাকা অর্থ বিতরণের সময় ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বুধবার এ বিষয়ে একটি সার্কুলার জারি করে বলছে, ‘১৪ জুলাই পর্যন্ত ব্যাংকগুলো জেলা প্রশাসক বা এনজিও বা এমএফআই এবং নিজস্ব ব্যবস্থাপনা কিংবা সেনা কল্যাণ সংস্থার মাধ্যমে বিশেষ সিএসআর কাজের অগ্রগতি আশানুরূপ নয়।’

বিশেষ এ কার্যক্রমের আওতায় তৃণমূল পর্যায়ে হত-দরিদ্র, সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মধ্যে নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রী ও স্বাস্থ্যসেবা প্রদান বা পৌঁছানো নিশ্চিত করতে সক্রিয় ভূমিকা রেখে এ বিশেষ কাজকে বেগবান করার পরামর্শ দিয়েছে সেই সার্কুলারে।

সার্কুলারে বলা হয়, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফলপ্রসূ বাস্তবায়ন তদারকি নিশ্চিতের লক্ষ্যে অগ্রগতি প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ লক্ষ্যে জুনের বিতরণের প্রথম প্রতিবেদন ১০ আগস্টের মধ্যে দিতে হবে।

অন্য পাক্ষিক প্রতিবেদন (প্রতি মাসের ১৫ ও ৩০ তারিখ ভিত্তিক) প্রতি পক্ষকাল শেষ হওয়ার পর তিন কর্মদিবসের মধ্যে সাসটেইনেবল ফাইন্যান্স বিভাগের মহাব্যবস্থাপকের কাছে জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

টিকা নিশ্চিতের শর্তে ভারতে ফ্লাইট চালুর প্রস্তাব

টিকা নিশ্চিতের শর্তে ভারতে ফ্লাইট চালুর প্রস্তাব

ভারতের সঙ্গে ফ্লাইট চালাতে প্রস্তাব দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ। ফাইল ছবি

বেবিচক চেয়ারম্যান এম মফিদুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভারত এরই মধ্যে আমাদের সাথে ফ্লাইট চলাচলে আগ্রহ দেখিয়েছে। দুই দেশের মধ্যে এয়ার বাবল চুক্তির মাধ্যমে ফ্লাইট শুরু করা যায় কি না তা নিয়ে আমরা আলোচনা করছি।’

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা নিশ্চিতের শর্ত রেখে ভারতের সঙ্গে ফ্লাইট চালুর প্রস্তাব দিয়ে দেশটির কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

এ সংক্রান্ত একটি চিঠি দেশটির কর্তৃপক্ষের কাছে বুধবার পাঠানো হয়েছে।

বেবিচক চেয়ারম্যান এম মফিদুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভারত এরই মধ্যে আমাদের সাথে ফ্লাইট চলাচলে আগ্রহ দেখিয়েছে। দুই দেশের মধ্যে এয়ার বাবল চুক্তির মাধ্যমে ফ্লাইট শুরু করা যায় কি না তা নিয়ে আমরা আলোচনা করছি।’

দেশে দ্বিতীয় পর্যায়ে করোনা সংক্রমণ শুরুর পর গত ১৪ এপ্রিল বন্ধ ঘোষণা করা হয় সব আন্তর্জাতিক ফ্লাইট। ১৬ দিন বন্ধ থাকার পর ১ মে ১২টি ছাড়া সব দেশের সঙ্গেই আকাশপথ খুলে দেয়া হয়। এই ১২টি দেশের মধ্যে ছিল ভারত।

পরে বিভিন্ন সময় নিষেধাজ্ঞায় থাকা দেশের তালিকায় সংযোজন-বিয়োজন হলেও ভারতের সঙ্গে আকাশ পথ বন্ধই রয়েছে।

সবশেষ ৫ জুলাই থেকে ভারতসহ ৮টি দেশের সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে বেবিচক।

এর আগেও গত বছর দেশে করোনা সংক্রমণ শুরু হলে বেশ কয়েকমাস বন্ধ ছিল ভারতের সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগ। পরে গত ২৮ অক্টোবর বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে এয়ার বাবল চুক্তির আওতায় ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়।

সম্প্রতি ভারতে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় বাংলাদেশের সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল শুরু বিষয়ে আগ্রহ দেখায় ভারত। এ অনুযায়ী বাংলাদেশ সরকারকে একটি প্রস্তাবও দেয়া হয় দেশটির তরফ থেকে।

পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন আগস্ট থেকে ফ্লাইট শুরু হতে পারে বলে গত ২৭ জুলাই গণমাধ্যমকে ধারণা দিয়েছিলেন।

তখন তিনি বলেন, ‘আমরা সীমিত আকারে ভারতের সঙ্গে ফ্লাইট চালুর প্রস্তাব দিয়েছি। আগস্টের কোনো একটা সুবিধাজনক সময়ে এটা শুরু করার ব্যাপারে আশা রাখি।

‘আমরা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন দেশের কোভিড সংক্রান্ত পরিসংখ্যান বিচার-বিশ্লেষণ করে থাকি। যেহেতু ভারতের আক্রান্তের সংখ্যা অনেক কমেছে, সে অনুযায়ী আমরা মনে করছি, বিধিনিষেধ কিছুটা শিথিল করতে পারি আমরা।’

ভারতের সঙ্গে ফ্লাইট চালুর বিষয়টি কতদুর এগুলো জানতে চাইলে বেবিচক চেয়ারম্যান এম মফিদুর রহমান বলেন, ‘ফ্লাইট শুরুর বিষয়ে আমরা আমাদের কিছু শর্তের কথা তাদের জানিয়েছি। এর মধ্যে সব যাত্রীর যেন টিকা থাকে সে বিষয়টি জানানো হয়েছে।

‘কোন কোন ক্যাটাগরির যাত্রীদের নিয়ে ফ্লাইট চলাচল করা যাবে সে বিষয়েও তাদের দেয়া চিঠিতে দেয়া হয়েছে। তবে শুরুতে অবশ্যই সীমিত আকারে ফ্লাইট শুরু হবে।’

তিন দেশি এয়ারলাইনস বিমান, নভো এয়ার ও ইউএস বাংলা এয়ার ছাড়াও ভারতের বেশ কয়েকটি বিমান সংস্থা স্বাভাবিক সময়ে বাংলাদেশ থেকে ভারতের বিভিন্ন রুটে ফ্লাইট চালিয়ে থাকে। ভারতের এয়ারলাইনসগুলোর মধ্যে রয়েছে এয়ার ইন্ডিয়া, ইনডিগো, স্পাইসজেট, ভিস্তারা ও গোএয়ার।

শেয়ার করুন

কম সুদে ঋণ পাবেন নারী উদ্যোক্তারা

কম সুদে ঋণ পাবেন নারী উদ্যোক্তারা

নারী উদ্যোক্তাদের কম সুদে ঋণ দিতে বাংলাদেশ ব্যাংক সার্কুলার জারি করেছে। ফাইল ছবি

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ঋণের সুদ কমাতে বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের এসএমই অ্যান্ড স্পেশাল প্রোগ্রাম বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করে সব তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীর কাছে পাঠানো হয়েছে। 

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের নারী উদ্যোক্তাদের কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় ঋণ দিতে সুদ হার কমানোর নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

পুনঃঅর্থায়ন স্কিমের আওতায় ঋণ দেযার ক্ষেত্রে সুদ বা মুনাফার হার ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ এবং গ্রাহক পর্যায়ে সর্বোচ্চ ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে।

বুধবার বাংলাদেশ ব্যাংকের এসএমই অ্যান্ড স্পেশাল প্রোগ্রাম বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত সার্কুলার জারি করে সব তফসিলি ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীর কাছে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, ‘নির্দেশনা অনুযায়ী ২০২৪ সাল শেষে সিএমএসএমই খাতের নিট ঋণ ও অগ্রিম স্থিতির ন্যূনতম ১৫ শতাংশ নারী উদ্যোক্তাদের বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। একই সার্কুলারে নারী উদ্যোক্তাদের ‘স্মল এন্টারপ্রাইজ খাতে পুনঃঅর্থায়ন স্কিম’-এর আওতায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পুনঃঅর্থায়ন সুবিধা প্রদান করা হয়।’

‘পরে, করোনা মহামারির কারণে নারী উদ্যোক্তাদের অনুকূলে ঋণ বা বিনিয়োগ সুবিধা সহজীকরণে সুদ বা মুনাফার হার ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে ৩ শতাংশ এবং গ্রাহক পর্যায়ে সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ পুনঃনির্ধারণ করা হয়।’

সার্কুলারে নারী উদ্যোক্তা পর্যায়ে দেয়া ঋণ বা বিনিয়োগের জন্য নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা ২০২৪ সাল শেষে ১৫ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যে নতুন কিছু নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এর মধ্যে শুধুমাত্র নারী উদ্যোক্তাদের প্রদত্ত ঋণ বা বিনিয়োগের বিপরীতে এ পুনঃঅর্থায়ন সুবিধা প্রদান করতে হবে।

এ স্কিমের আওতায় পুনঃঅর্থায়নের সুদ বা মুনাফার হার ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ এবং গ্রাহক পর্যায়ে সর্বোচ্চ ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হলো।

ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ৪৫ এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইন, ১৯৯৩ এর ১৮ ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ নির্দেশনা জারি করা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

শেয়ার করুন