সোনার মজুত বাড়ানোর মরিয়া চেষ্টায় লাগামহীন দাম

সোনার মজুত বাড়ানোর মরিয়া চেষ্টায় লাগামহীন দাম

‘জেনারেল কনজিউমারদের পার্টিসিপেশন এই বাজারে মুখ্য নয়। বিশ্বে বিভিন্ন দেশের দায়িত্বশীল এজেন্ট ও বায়াররাই সোনার বাজারের মূল নিয়ন্ত্রক। যখনই বিশ্ব সংকটের মুখোমুখি হয় তখন নিজ নিজ দেশের অর্থনীতি স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং অনুমোদিত লোকাল এজেন্টরা ক্রেতা সেজে হাজার হাজার কেজি সোনা কিনে মজুদ রাখে।’

করোনাভাইরাস মহামারিতে বিশ্বজুড়ে চলছে অর্থনৈতিক মহামন্দা। দেশে দেশে অসংখ্য মানুষ কর্মসংস্থান হারিয়ে নিয়মিত আয় থেকে ছিটকে পড়েছেন। অনেকে নতুন করে দরিদ্র্য পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছেন। তবে এর মধ্যেও বেড়ে চলেছে স্বর্ণের দাম।

বাজার বিশ্লেষকেরা বলছেন, অতি দামি বলে স্বর্ণ বা স্বর্ণালঙ্কার হচ্ছে বিলাসী পণ্য। বিশ্বের সংখ্যাগরিষ্ঠ সাধারণ ভোক্তাই এই বিলাসী পণ্যের ক্রেতা হতে পারেন না। করোনা পরিস্থিতিতে স্থানীয় বাজারে সোনার কেনার ক্রেতা এখন স্মরণকালের মধ্যে সর্বনিম্ন। তবে তাতে স্বর্ণের দামে লাগাম পড়েনি।

ওয়ার্ল্ড গোল্ড কাউন্সিলের তথ্য অনুযায়ী, সাধারণ ভোক্তাপর্যায়ে সোনার কেনাকাটা হয় গহনাসামগ্রীতে। এই শ্রেণির ক্রেতার কাছে গহনাসামগ্রীর চাহিদা গত বছরের তুলনায় চলতি বছর কমেছে ১০ শতাংশেরও বেশি। অন্যদিকে, বৈশ্বিকভাবে সোনার সরবরাহ কমেছে ৩ শতাংশের মতো।

তবে এর পরেও আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের চাহিদা যেমন বেশি, তেমনি বিক্রি হার এবং আউন্সপ্রতি দামও বেড়েছে।

গত শনিবার আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি আউন্স সোনার দর ওঠে ১৮৮২ আমেরিকান ডলার। রোববার বিকাল সোয়া ৫টায় দাম আরও বেড়ে একই পরিমাণ সোনার দর পৌঁছায় ১৮৮৭ ডলারে। অবশ্য সন্ধ্যা ৭টায় তা কমে শনিবারের নির্ধারিত সীমায় ফিরে আসে। তবে সোমবার দিনভর সোনার দাম ফের বেড়ে ১৮৮৪ ডলার থেকে ১৮৮৬ ডলারে ওঠানামা করেছে। সন্ধ্যায় তা আবার ১৮৮২ ডলারের কাছাকাছি অবস্থান করে।

গত দেড় বছর ধরে সোনার দাম ওঠানামায় অস্বাভাবিকতা অব্যাহত রয়েছে। চলতি বছর ২১ মে পর্যন্ত গত ১৭ মাসে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি আউন্স সোনার দর ১১ বার বেড়েছে এবং ৯ বার কমেছে। তবে যে হারে বেড়েছে, কমেছে তার চেয়ে অনেক কম। ফলে সাধারণের ক্রয় সক্ষমতা এবং নাগালের বাইরে রয়েছে সোনার দাম।

ধাতু পণ্যের স্বীকৃতি সংস্থা গোল্ডম্যান সাকস বলছে, ২০২০ সালের তুলনায় এ বছর সোনার দাম বাড়বে ২২ শতাংশ পর্যন্ত। এতে আন্তর্জাতিক বাজারে এক আউন্স সোনার দর চলতি বছরের মধ্যে বেড়ে ২ হাজার ৩০০ ডলারে পৌঁছাতে পারে।

গোল্ডম্যান সাকস এই প্রক্ষেপন, স্বর্ণের মাত্রাতিরিক্ত দামের কারণ জানার চেষ্টা করেছে নিউজবাংলা। এতে দেখা গেছে সংখ্যাগরিষ্ঠ সাধারণ ক্রেতা স্থানীয় বাজারে স্বর্ণ কিনতে পারছে না। তবে এর পরেও বিশেষ কিছু কারণে আন্তর্জাতিক বাজারে স্বর্ণের চাহিদা কয়েক গুণ বেড়েছে।

দেশে এ খাতের শীর্ষ ব্যবসায়ী ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের স্বত্বাধিকারী এবং বাংলাদেশ জুয়েলারি সমিতির (বাজুস) সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা নিউজবাংলাকে জানান, সোনার বাজারটি অন্যসব পণ্যের মতো নয়। এখানে ভোক্তার আচরণও অস্বাভাবিক রকমের হয়।

তিনি বলেন, ‘জেনারেল কনজিউমারদের পার্টিসিপেশন এই বাজারে মুখ্য নয়। বিশ্বে বিভিন্ন দেশের দায়িত্বশীল এজেন্ট ও বায়াররাই সোনার বাজারের মূল নিয়ন্ত্রক। বিশ্ব যখন স্থিতিশীল থাকে তখন সোনা কেনার প্রতি এদের চাহিদা কম থাকে। যখনই বিশ্ব সংকটের মুখোমুখি হয় তখন নিজ নিজ দেশের অর্থনীতি স্থিতিশীল রাখার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং অনুমোদিত লোকাল এজেন্টরা ক্রেতা সেজে হাজার হাজার কেজি সোনা কিনে মজুদ রাখে। এভাবে সব দেশ যখন এক সঙ্গে বিপুল পরিমাণ সোনা কেনার তৎপরতা চালায়, তখন চাহিদা ও যোগানের ফর্মূলা অনুযায়ীই সোনার দাম বাড়তে থাকে।’

সংকটকালে কেন সোনা মজুদের প্রবণতা তৈরি হয়, জানতে চাইলে, আগারওয়ালা বলেন, কোনো যুদ্ধ পরিস্থিতি তৈরি হলে, পরাক্রমশালী দেশ বা অর্থনীতির কোনো কারণে ঝুঁকির আশংকা থাকলে বা বিশ্ব প্রাকৃতিক দুর্যোগের শিকার হলে আর্থিক মন্দা বা মহামন্দা দেখা দেয়। তখন দেশে দেশে উদ্যোক্তার সক্ষমতা এবং ভোক্তার ক্রয়ক্ষমতা বাড়াতে নানা ধরনের আর্থিক প্রণোদনা ঘোষণা ও বাস্তবায়ন করা হয়। এতে খোলাবাজারে নগদ অর্থের আধিক্য বাড়ে এবং এর প্রভাবে মূল্যস্ফীতি বাড়ার আশঙ্কাও থাকে; যার দরুণ আর্থিক খাতকেন্দ্রিক নানা সমস্যা তৈরি হয়।

‘এ ধরনের পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে ডলারের সঞ্চিত রিজার্ভ এবং সোনার মজুদ দেশকে নিরাপদ রাখে। ফলে এই ভয়-আতঙ্ক সামাল দিতেই যে কোনো সংকটে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের একটি অংশ সংরক্ষণ করে বলে সার্বিকভাবে সোনা কেনার প্রবণতা বাড়ে। আবার যাদের মজুদ বেশি আছে তারা এই সময়ে বাড়তি দামে বিক্রিও করে। দীর্ঘমেয়াদি করোনা পরিস্থিতিতেও এখন তাই ঘটতে দেখা যাচ্ছে। যার প্রভাব দেশেও পড়েছে।’

জানা গেছে, অর্থনৈতিক সংকট দীর্ঘ হলে এবং এর থেকে মূল্যস্ফীতি বাড়ার ভয় তীব্র হলে সংশ্লিষ্ট দেশের অর্থনীতি স্বাভাবিক রাখতে আর্থিক কর্তৃপক্ষের কাছে অর্থের চেয়ে ক্ষয়হীন সোনার মজুদের প্রতি ঝোঁক বাড়ে। কারণ, অর্থের (টাকা বা ডলার) মান যে কোনো সময় অবনমন হতে পারে, কিন্তু সেই অর্থে মজুদ সোনার কোনো ক্ষয় হয় না।

অর্থনীতিবিদেরা বলছেন, সংকটকালে সোনার মজুদ বাড়াতে পারলে সংশ্লিষ্ট দেশ অর্থনৈতিকভাবেও অন্যের চেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে থাকে। কেননা, পরে দাম বেশি পেলে ওই সোনা বিক্রি করেও আর্থিকভাবে লাভবান হওয়া যায়। তবে কোন কোন কেন্দ্রীয় ব্যাংক কী পরিমাণ সোনা কিনছে বা বিক্রি করছে তা খুব একটা বাইরে প্রকাশ পায় না।

অর্থনীতিবিদদের দাবি, স্বর্ণ কিনে কারও লোকসান হয়েছে বা কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, এমন নজির বিশ্বে নেই। একই কথা সাধারণ ভোক্তার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। এ কারণে করোনা মহামারিতে মানুষের আয় ও স্বাভাবিক বিনিয়োগ কমে গেলেও সামর্থ্যবানেরা স্বর্ণ বা স্বর্ণালঙ্কার মজুদে বিনিয়োগ করছেন। শুধু বাংলাদেশে নয়, প্রায় সব দেশে বহু কাল ধরেই মানুষ নিরাপদ ভেবে স্বর্ণে বিনিয়োগ করছে।

স্বর্ণমান ও ভোক্তার আচরণ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দুজন অর্থনীতিবিদ গবেষণা করেছেন। ‘গোল্ডেন ডিলেমা’ নামে ওই গবেষণায়ও দাবি করা হয়, সংকটকালে সোনার দাম বাড়ে। ভয় বা আতঙ্কের কারণেই এটা হয়, যা ১৯৩০ সালের মহামন্দার পর থেকে দৃশ্যমান হতে দেখা গেছে।

বাজার পর্যবেক্ষকেরা জানান, স্বর্ণের কেনাকাটায় স্থানীয় বাজারে নিয়ন্ত্রণ খুব একটা না থাকলেও আন্তর্জাতিক বাজারে যাতে কোনো ‘বাবল’ তৈরি হতে না পারে সেজন্য সিলিং বেঁধে দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে ১৯৯৯ সালে ওয়াশিংটন চুক্তি নামে একটি আন্তর্জাতিক চুক্তিও রয়েছে। এই চুক্তি অনুযায়ী, কোনো কেন্দ্রীয় ব্যাংক এক বছরে ৪০০ টন বা ৪০০০ কেজির বেশি স্বর্ণ বিক্রি করতে পারবে না।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বাংলাদেশের ইলিশে খুশির জোয়ার পশ্চিমবঙ্গে

বাংলাদেশের ইলিশে খুশির জোয়ার পশ্চিমবঙ্গে

পদ্মার ইলিশ

খুচরা বাজারে দাম কত হবে, প্রাথমিকভাবে না জানা গেলেও ব্যবসায়ীরা অনুমান করছেন, প্রতি কেজি ইলিশ ১২০০ থেকে ১৩০০ ভারতীয় মুদ্রায় বিক্রি হতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাঠানো উপহার পদ্মার ইলিশ হাওড়া বাজারে ঢুকতেই খুশির জোয়ার বয়ে গেছে গোটা পশ্চিমবঙ্গে।

বুধবার বিকেল পাঁচটায় বেনাপোল-পেট্রাপোল সীমান্ত দিয়ে কাস্টমস ও অন্যান্য আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রথম দফায় ৮০ মেট্রিক টন ইলিশভর্তি ট্রাক ভারতে প্রবেশ করে। পরে রাতেই এসব ইলিশ হাওড়া পাইকারি বাজারে যায়। ইলিশের আশায় অনেক রাত পর্যন্ত জেগেছিলেন এই বাজারের ব্যবসায়ীরা।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই শুরু হয়ে যায় হাওড়া বাজারে পদ্মার ইলিশের নিলাম। এখান থেকেই পরে ছড়িয়ে পড়ে পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন বাজারে। ইলিশ কেনার আশায় এদিন প্রস্তুতি নিয়েই বাড়ি থেকে বের হন অনেক ক্রেতা।

আশ্বাস দেয়া বাকি দুই হাজার মেট্রিক টন ইলিশ আগামী ১০ অক্টোবরের মধ্যে ভারতে ধাপে ধাপে প্রবেশ করবে।

খুচরা বাজারে দাম কত হবে, প্রাথমিকভাবে না জানা গেলেও ব্যবসায়ীরা অনুমান করছেন, প্রতি কেজি ইলিশ ১২০০ থেকে ১৩০০ ভারতীয় মুদ্রায় বিক্রি হতে পারে।

২০১২ সাল থেকে বাংলাদেশ ভারতে ইলিশ রপ্তানির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। কিন্তু এবার নিয়ে গত তিন বছর ধরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে বাংলাদেশ সরকার পূজার আগে ভারতে ইলিশ রপ্তানি করছে।

বেশ কয়েক বছর ধরেই পশ্চিমবঙ্গের বাজারে ইলিশের খরা চলছে। এ অবস্থায় বাংলাদেশের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের ছাড়পত্র নিয়ে প্রথম দফার ইলিশ বাজারে পৌঁছায় খুশি রাজ্যটির ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা।

শেয়ার করুন

গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা

গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা

প্রতীকী ছবি

সিলেট অঞ্চলের ক্ষেত্রগুলোতে খনন করা হচ্ছে নতুন নতুন কূপ। একই সঙ্গে বন্ধ হয়ে যাওয়া ক্ষেত্র ও কূপগুলোয় আরও গভীরে গ্যাস অনুসন্ধানের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। তবে এ জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত।

দেশে চলমান গ্যাস সংকটে স্থবির হয়ে পড়েছে উৎপাদন ব্যবস্থা। র‌্যাশনিং করা হচ্ছে সিএনজি স্টেশনগুলোতে। আমদানি করা এলএনজিতে মিটছে না চাহিদা।

এ অবস্থায় দেশের প্রচলিত গ্যাসক্ষেত্রগুলোর উৎপাদন বাড়াতে চায় সরকার। এর অংশ হিসেবে সিলেট অঞ্চলের ক্ষেত্রগুলোতে খনন করা হচ্ছে নতুন নতুন কূপ। একই সঙ্গে বন্ধ হয়ে যাওয়া ক্ষেত্র ও কূপগুলোয় আরও গভীরে গ্যাস অনুসন্ধানের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। এ কাজে দেশীয় প্রতিষ্ঠান বাপেক্সকে কাজে লাগাতে চায় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় জানায়, যেসব উদ্যোগ নেয়া হয়েছে, সেগুলো শেষ হলে দেশে গ্যাসের উৎপাদন বাড়বে। এতে সংকট কিছুটা হলেও কমবে। তবে যতক্ষণ তা না হচ্ছে, ততক্ষণ ব্যাকআপ হিসেবে থাকবে এলএনজি আমদানি ও তার ব্যবহার।

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জ্বালানি নিরাপত্তা রক্ষা করতে যা যা করা দরকার, সরকার সেটা করছে। আগামীতে জ্বালানি নিরাপত্তা আরও সংহত করতে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০৪১ এর যে উন্নত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেন, সেখানে জ্বালানি নিরাপত্তা একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। এই নিরাপত্তার জন্য স্বল্পমেয়াদি, মধ্যমেয়াদি ও দীর্ঘমেয়াদি নানা প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। আশা করি, সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সব ধরনের সংকট দূর করা সম্ভব হবে।’

তেল-গ্যাস অনুসন্ধান ও উত্তোলনের দেশীয় প্রতিষ্ঠান বাপেক্সের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মাদ আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দেশে গ্যাস উত্তোলনে সরকার সর্বশক্তি নিয়োগ করতে চায়। এজন্য বাপেক্সও নিজেকে প্রস্তুত করেছে। সরকারও আমাদের সব ধরনের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত। আমরা সহযোগিতা পাচ্ছি।’

জ্বালানি বিভাগের দেয়া তথ্য মতে, সরকার তার নিয়মিত গ্যাসক্ষেত্র থেকে উৎপাদন বাড়াতে চাইছে। এরই অংশ হিসেবে চলমান কূপের পাশাপাশি ওয়ার্কওভার (নতুন ও গভীর) কূপ খনন করা হচ্ছে।

এর বেশির ভাগই সিলেট বিভাগে। বাপেক্সের নতুন তিনটি কূপ থেকে গ্যাসের উৎপাদন বাড়বে ২০ মিলিয়ন ঘনফুট। তবে এ জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত। এ ছাড়া, আরও কয়েকটি কূপ খননের কাজ চলমান আছে। এই সব প্রকল্প শেষ হলে দেশে ক্রমশ বাড়তে থাকা গ্যাসের ঘাটতি কিছুটা কমবে।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় জানায়, বর্তমানে গ্যাসের উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হচ্ছে। এতে খরচ ধরা হয়েছে ১৬৩ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

এর আওতায় সিলেটের জৈন্তাপুর, বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ গ্যাস ক্ষেত্রে তিনটি নতুন কূপ খনন বা ওয়ার্কওভার করা হচ্ছে। এগুলো হলো সিলেট গ্যাস ক্ষেত্র, কৈলাসটিলা গ্যাস ক্ষেত্র ও বিয়ানীবাজার গ্যাসক্ষেত্র।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শে রূপকল্প-২ এর আওতায় এই নতুন গ্যাসকূপ খননের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এটা বাস্তবায়ন করছে সরকারি কোম্পানি বাপেক্স।

সূত্র জানায়, এর মধ্যে সিলেট গ্যাস ক্ষেত্রের ৮ নম্বর কূপের খননকাজ শেষ হবে আগামী বছরের জানুয়ারি মাসে। কৈলাসটিলা গ্যাস ক্ষেত্রের ৭ নম্বর কূপের খনন শেষ হবে ২০২২ সালের এপ্রিলে ও বিয়ানীবাজার-১ কূপের খনন শেষ হবে আগামী বছরের মাঝামাঝি বা জুন নাগাদ।

বাপেক্স সূত্র বলছে, নির্ধারিত সময়ের ছয় মাস আগেই তাদের প্রকল্প শেষ হবে। ফলে গ্যাসের যে সংকট চলমান আছে, তা অনেকাংশে কমে আসবে।

মন্ত্রণালয় জানায়, এরই মধ্যে ওয়ার্কওভার অপারেশনের কাজ এবং বাপেক্সের সঙ্গে চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। শেষ হয়েছে দরপত্র ও মালামাল সংগ্রহের কাজ। এখন চলছে দরপত্র মূল্যায়ন, যা প্রায় শেষ পর্যায়ে। শেষ হয়েছে বিদেশি পরামর্শক নিয়োগের কাজও। পরিবেশগত ছাড়পত্রের জন্য আবেদন করা হয়েছে পরিবেশ অধিদপ্তরে। বর্তমানে সিলেট-৮ নম্বর কূপের (জৈন্তাপুর এলাকায়) রিগ ফাউন্ডেশন মডিফিকেশন কাজ চলমান আছে। এই কূপের লোকেশেন শ্রীকাইল-৪ কূপ খনন শেষে বিজয়-১৮ রিগ মবিলাইজেশন শুরু হয়েছে।

মন্ত্রণালয় জানায়, গ্যাস সংকট থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে সিলেট জেলার জকিগঞ্জ উপজেলায় রূপকল্প-২ খনন প্রকল্পের আওতায় জকিগঞ্জ-১ অনুসন্ধান কূপ খনন এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি খননের কাজ শুরু হয়। খননের সময়সীমা ঠিক করা হয়েছিল ৩০ সেপ্টেম্বর। কিন্তু এর আগেই এই কূপটির সফল খনন শেষ করে বাপেক্স। এতে ব্যয় হয় ৮৭ কোটি ২২ লাখ টাকা।

এদিকে এরই মধ্যে জকিগঞ্জ-১ কূপে ২ হাজার ৯৮১ মিটার খনন সম্পন্ন করে ৪টি জোনে ডিএসটি সম্পন্ন করেছে বাপেক্স। কূপটির ২ হাজার ৮৭০ মিটার গভীরে ৬৮ বিসিএফ বা বিলিয়ন ঘনফুট বাণিজ্যিক গ্যাসের মজুদ পাওয়া গেছে।

এ পরিপ্রেক্ষিতে গত ৯ আগস্ট জ্বালানি নিরাপত্তা দিবসে জকিগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রকে দেশের ২৮তম গ্যাসক্ষেত্র হিসেবে ঘোষণা করে সরকার।

বর্তমানে জকিগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্র এলাকায় জকিগঞ্জ-১ কূপের বিজয়-১২ রিগ ডাউন করে মেইন্যানটেনেন্সের কাজ চলমান আছে এবং এই কাজ শেষে সালদা নদী-২ ওয়ার্কওভারের উদ্দেশ্যে মবিলাইজেশন শুরু হবে।

অন্যদিকে মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া ও রাজনগর উপজেলায় অবস্থিত ফেঞ্চুগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রেটির দুইটি কূপ খননের কাজ চলমান আছে বলে জানিয়েছে মন্ত্রণালয়।

এই কূপ খননে বাপেক্সের নিজস্ব অর্থায়নে ফেঞ্চুগঞ্জ-৩ কূপ এবং ফেঞ্চুগঞ্জ-৪ কূপ ওয়ার্কওভার কার্যক্রম চলছে।

ফেঞ্চুগঞ্জ গ্যাসক্ষেত্রে বিজয়-১০ রিগের মাধ্যমে ফেঞ্চুগঞ্জ-৪ কূপ ওয়ার্কওভার সম্পন্ন করা হয়েছে এবং জাতীয় গ্রিডে দৈনিক ১০-১২ এমএমসিএফ হারে গ্যাস সরবরাহ হচ্ছে।

বর্তমানে একই রিগ ফেঞ্চুগঞ্জ-৩ কূপ ওয়ার্ক ওয়ার্কওভারের লক্ষ্যে মবিলাইজেশন সম্পন্ন করে ওয়ার্কওভার কাজ শুরু করা হয়েছে।

এছাড়া সিলেট গ্যাস ফিল্ডস লিমিটেড (এসজিএফএল)-এর হরিপুর স্ট্রাকচারে সরকারি অর্থায়নে ডিসেম্বর ২০১৩ থেকে ডিসেম্বর ২০২১ মেয়াদকালে ১৭১ কোটি ২৭ লাখ টাকা ব্যয়ে সিলেট-৯ নম্বর কূপ খনন হচ্ছে।

এরই মধ্যে সিলেট-৯ নম্বর কূপটির খনন শেষে গ্যাস গ্যাদারিং পাইপলাইন নির্মাণ করে চলতি মাসের ৩ তারিখ থেকে দিনে ৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস জালালাবাদ গ্যাস সরবরাহ এলাকায় সরবরাহ করা হচ্ছে।

গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
সম্প্রতি সিলেটের হরিপুর গ্যাস ক্ষেত্রে চারটি স্তরে গ্যাসের অবস্থান চিহ্নিত করেছে বাপেক্স

আরও যা ভাবা হচ্ছে

দেশের চলমান গ্যাস সংকট মোকাবিলা ও ক্রমবর্ধমান চাহিদা পূরণে আরও কিছু পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার। এর মধ্যে রয়েছে বন্ধ হয়ে যাওয়া খনি ও কূপগুলোর আরও গভীরে অনুসন্ধান। একই সঙ্গে উন্নত প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে দেশের হাইপ্রেশার জোনগুলোতে অনুসন্ধান ও উত্তোলন কূপ খনন করা। এইসব কাজে দেশীয় প্রতিষ্ঠানকে শক্তিশালী ও কার্যকর করে তোলা হবে।

গ্যাস সংকটের কারণ

বর্তমানে দেশে গ্যাসের দৈনিক চাহিদা ৪৩০ কোটি ঘনফুট। গত ১৪ সেপ্টেম্বর পেট্রোবাংলা মোট সরবরাহ করে ৩১০ কোটি ঘনফুট গ্যাস। এর মধ্যে দেশের গ্যাসক্ষেত্রগুলো থেকে ২৪২ কোটি ঘনফুট গ্যাস পাওয়া গেছে। চাহিদা ও সরবরাহে ঘাটতি ছিল ১২০ কোটি ঘনফুট।

গত দশকের প্রথম দিকে সরকারের নানা কার্যক্রমে দেশের দৈনিক গ্যাস উৎপাদন বেড়ে ২৭০ কোটি ঘনফুটে পৌঁছেছিল। বর্তমানে তা কমে ২৪০ কোটি ঘনফুটে নেমে এসেছে।

কমছে দেশীয় গ্যাসের উৎপাদন

বর্তমানে দেশের গ্যাসক্ষেত্রগুলো থেকে দিনে ২৪০ কোটি ঘনফুট গ্যাস মিলছে। জ্বালানি বিভাগের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি বছর গ্যাসের দৈনিক উৎপাদন ২৩০ কোটি ঘনফুটে নেমে আসতে পারে।

নতুন বড় কোনো গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কৃত না হলে ২০২২-২৩ সালে দেশের ক্ষেত্রগুলো থেকে দিনে গ্যাস উৎপাদন ১৮ দশমিক ৪ কোটি ঘনফুট কমতে পারে। ২০২৩-২৪ সালে দৈনিক উৎপাদন ৪৩ দশমিক ৫ কোটি ঘনফুট কমে যেতে পারে। এ সময় শেভরনের অধিকাংশ গ্যাসক্ষেত্রের উৎপাদন বন্ধ হতে পারে। বিকল্প হিসেবে সরকার এলএনজির আমদানি বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে।

২০২৪-২৫ অর্থবছরের দিকে এলএনজি থেকে আমদানি করে দৈনিক ২০০ থেকে ২৫০ কোটি ঘনফুট গ্যাস চাহিদা মেটানো হবে বলে সরকারের ধারণা।

দেশে গ্যাসের যত ব্যবহার

সরকারের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের জ্বালানি বিভাগ এবং বাংলাদেশ তেল-গ্যাস ও খনিজ সম্পদ করপোরেশন (পেট্রোবাংলা) থেকে পাওয়া তথ্যমতে, প্রতি বছর দেশে গ্যাস ব্যবহার হয় গড়ে ১ ট্রিলিয়ন ঘনফুট (টিসিএফ) বা ১০০ বিলিয়ন ঘনফুট (বিসিএফ) থেকে ১ দশমিক ১ টিসিএফ। এর মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদনে ৪৩ দশমিক ২৮ শতাংশ, শিল্প কারখানায় ১৫ দশমিক ৭৯ শতাংশ, বাসাবাড়িতে ১৫ দশমিক ২৫ শতাংশ, শিল্পকারখানার নিজস্ব বিদ্যুৎকেন্দ্রে (ক্যাপটিভ পাওয়ার) ১৫ দশমিক ১২ শতাংশ, সার উৎপাদনে ৫ দশমিক ৫৪ শতাংশ, সিএনজি স্টেশনে ৪ দশমিক ১৬ শতাংশ, বাণিজ্যিক দশমিক ৭৬ শতাংশ ও চা-বাগানে দশমিক ১০ শতাংশ ব্যবহার হয়।

এ মুহূর্তে গ্যাসের অভাবে প্রায় ২ হাজার ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাচ্ছে না। প্রতি ইউনিট গ্যাসে বিদ্যুৎ উৎপাদন খরচ গড়ে ৩ টাকা, কয়লায় সাড়ে ৮ টাকা, তেলে (ফার্নেস) ১৪ টাকা ও তেলে (ডিজেল) ২৪ টাকা। সে কারণে বিদ্যুৎ বিভাগ লোকসান কমানোর জন্য গ্যাস দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে চায়।

গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
গ্যাস সংকটের কারণে মাঝেমধ্যে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার বাসাবাড়িতে জ্বলে না গ্যাসের চুলা

দরকার গভীর ও নতুন এলাকায় খনন

বাংলাদেশে যেসব স্থানে গ্যাস পাওয়া গেছে, তা গড়ে ৫ হাজার মিটার গভীরতায়। বিজিএফসিএলের পাঁচটি গ্যাসক্ষেত্রেও এই স্তর থেকে গ্যাস মিলেছে। এই স্তরের আরও নিচে গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এ জন্য প্রয়োজন ডিপ ড্রিলিং বা মাটির আরও গভীরে খনন।

বাংলাদেশের সরকারি সংস্থা বাপেক্সসহ বিদেশি যেসব কোম্পানি রয়েছে, তাদের রিগগুলো গড়ে ৫ হাজার মিটার খনন করার ক্ষমতা রয়েছে। ৭ হাজার মিটারের বেশি গভীরতায় খনন করতে হলে নতুন রিগ কিনতে হবে বাপেক্সের জন্য। এ ছাড়া রিগ ভাড়া করে ও ঠিকাদার দিয়েও বেশি গভীরতায় খনন করা গেলে গ্যাসের নতুন মজুদের সন্ধান মিলবে বলে অনেকে মনে করেন।

দেশে একমাত্র ভোলায় দুটি গ্যাসক্ষেত্র ছাড়া আবিষ্কৃত সব ক্ষেত্রের ভূ-কাঠামোগত বৈশিষ্ট্য হলো ‘অ্যান্টি ক্লেইন স্ট্রাকচার। ভোলায় আবিষ্কৃত দুটি ক্ষেত্র নতুন বৈশিষ্ট্যের স্ট্র্যাটিগ্রাফিক ভূ-কাঠামোর।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, ভোলা, বরিশাল হয়ে খুলনা এমনকি রাজশাহী পর্যন্ত এই স্ট্র্যাটিগ্রাফিক স্ট্রাকচারে গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। পাবনার মোবারকপুর স্ট্র্যাটিগ্রাফিক স্ট্রাকচারে দেশের ২৭তম গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কৃত হয়েছে।

ভোলা ও পাবনার মোবারকপুর হলো বেঙ্গল বেসিনভুক্ত এলাকা। এসব এলাকার বিশেষ বৈশিষ্ট্য হলো দেশের প্রধান নদীগুলোর অববাহিকায় মিলছে গ্যাস। অথচ এসব স্থানে অনুসন্ধান ও উত্তোলন কূপ খননের দৃশ্যমান কোনো কর্মসূচি নেই সরকারের।

ভারতের সরকারি প্রতিষ্ঠান ওএনজিসিও একই ধরনের ভূকাঠামোয় গ্যাস ও তেল পেয়েছে। এটি মোবারকপুর থেকে ১০০ কিলোমিটার দূরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের স্ট্র্যাটিগ্রাফিক স্ট্রাকচারে ইছাপুরে। এই ভূকাঠামো গোটা উত্তরবঙ্গে রয়েছে। সেখানেও গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে দেশীয় গ্যাস উৎপাদন বাড়াতে যে পরিমাণ কূপ নতুন নতুন এলাকায় খনন করা দরকার, পেট্রোবাংলা তা করছে না।

প্রস্তুত বাপেক্স

দেশের একমাত্র রাষ্ট্রীয় তেল ও গ্যাস অনুসন্ধান এবং উত্তোলনকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন অ্যান্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড বা বাপেক্স। অনেক সময় প্রতিষ্ঠানটি বেশির ভাগ ক্ষেত্র আবিষ্কার করেও উত্তোলন ও ব্যবস্থাপনার সুযোগ পায় না। এক অজানা কারণে বাপেক্সের আবিষ্কৃত ক্ষেগুলোয় কূপ খনন, উত্তোলন ও ব্যবস্থাপনার কাজ দেয়া হয় বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোতে। প্রশ্ন আছে বাপেক্সের সক্ষমতারও।

তবে বাপেক্সের এমডি মোহাম্মদ আলী নিউজবাংলাকে বলেন, বাপেক্স এখন ৫ হাজার মিটারের বেশি ৭ হাজার মিটার সক্ষমতার রিগ কেনার উদ্যোগ নিয়েছে। সরকারও এ জন্য সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে। এ ছাড়া বাপেক্স সব ধরনের বিশেষজ্ঞ নিয়োগের কাজ শেষ করেছে।

বিদেশি প্রতিষ্ঠানে কাজ করা অভিজ্ঞ কর্মীদের নিয়োগ দিয়েছে বাপেক্স। একই সঙ্গে অবসরে চলে যাওয়া অভিজ্ঞ বাপেক্স কর্মীদেরও চুক্তিভিত্তিক নিয়োগের মাধ্যমে ধরে রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘সরকার চায়, বাপেক্সকে শক্তিশালী করে দেশের গ্যাস সংকট মোকাবেলা করতে। আমরা সেই চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত। এ জন্য সরকারেরও সব ধরনের সহযোগিতা পাচ্ছি।’

শেয়ার করুন

দূরের বস্তু দেখার ক্ষমতা হারাচ্ছে শিশুরা

দূরের বস্তু দেখার ক্ষমতা হারাচ্ছে শিশুরা

মোবাইল ও কম্পিউটার ডিভাইস মাত্রাতিরিক্ত আসক্তিতে বাড়ছে শিশুদের ক্ষীণ দৃষ্টিজনিত রোগ মায়োপিয়া। ছবি: নিউজবাংলা

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন ঘরবন্দি থাকায় বাচ্চাদের হাতে উঠেছে মোবাইল কিংবা ল্যাপটপ, নোটবুক। যারা আগে এসব ডিভাইস থেকে দূরে ছিল তারাও হয়েছে আসক্ত। খেলার সময়, খাওয়ার আগে, অনলাইন ক্লাস, ঘুমের সময় ক্ষণে ক্ষণে চাই মোবাইল। আর এতে করে শিশুদের মাঝে ‘মায়োপিয়া’ বা চোখের ক্ষীণ দৃষ্টিজনিত রোগ বাড়ছে।

রাজধানীর একটি ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থী আরিশা। বয়স ১১ বছর। চোখের ক্ষীণ দৃষ্টিজনিত রোগের কারণে চিকিৎসকের পরামর্শে গেল তিন বছর ধরে চশমা ব্যবহার করছেন। ছয় মাস পর পর চশমার পাওয়ার পরিবর্তন করা লাগে। সবশেষ জুনে চশমার পাওয়ার পরিবর্তন করা হয়েছে।

আরিশার মা ফামিদা তারিন জানান, এটা জন্মগত কোনো সমস্যা নয়। পড়াশোনা ও অধিক সময় মোবাইল ব্যবহারের কারণে কমে এসেছে দূরের দৃষ্টি শক্তি। করোনার কারণে মোবাইল নির্ভরতা আরও অনেক বেড়েছে। করোনার মধ্যে রুটিনের বাইরে চলে গেছে মোবাইল ব্যবহারের পরিমাণ।

ফামিদা বলেন, ‘মাঝে মাঝে মাথা ব্যথা ও চোখ ব্যথায় ভোগে আরিশা। এখন রাতে ঘুমায় দেরি করে, সকালে ওঠে দেরি করে। উঠেই মোবাইল খোঁজে। কিছু বললে বলে মোবাইলে পড়ালেখা করবে। আর আমরা সাংসারিক কাজে ব্যস্ত থাকায় মনিটরিংও করতে পারছি না।’

আরিশার মতো হাজার শিশু এখন এই সমস্যায় ভুগছে।

করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘদিন ঘরবন্দি থাকায় বাচ্চাদের হাতে উঠেছে মোবাইল কিংবা ল্যাপটপ, নোটবুক। যারা আগে এসব ডিভাইস থেকে দূরে ছিল তারাও হয়েছে আসক্ত। খেলার সময়, খাওয়ার আগে, অনলাইন ক্লাস, ঘুমের সময় ক্ষণে ক্ষণে চাই মোবাইল। আর এতে করে শিশুদের মাঝে ‘মায়োপিয়া’ বা চোখের ক্ষীণ দৃষ্টিজনিত রোগ বাড়ছে।

করোনার সময়ে মাইওপিয়ায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

দূরের বস্তু দেখার ক্ষমতা হারাচ্ছে শিশুরা

কী পরিমাণ এমন রোগী রয়েছে তার পরিসংখ্যান না থাকলেও দেশের সবচেয়ে বড় জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের বহির্বিভাগের পরিসংখ্যান উদ্বেগজনক। গেল দুই বছরে এই হাসপাতাল থেকে সেবা নেওয়া মায়োপিয়া রোগী বেড়েছে ১১ শতাংশ।

হাসপাতালের পরিসংখ্যান বলছে, করোনার আগে এই হাসপাতালে সেবা নেয়া রোগীর ২২ শতাংশ মাইয়োপিয়া আক্রান্ত রোগী পাওয়া যেতে। করোনা কারণে ঘরবন্দি থাকায় শিশুদের মধ্যে বেড়েছে এ রোগ। এখন বেড়ে ৩৩ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

দূরের বস্তু দেখার ক্ষমতা হারাচ্ছে শিশুরা

চিকিৎসকরা বলছেন, প্রায় দুই বছর শিশুরা ঘরবন্দি। কাজ না থাকায় সারাক্ষণ স্ক্রিনে; দূরের জিনিস দেখেনি। ফলে তাদের দূরের দৃষ্টিশক্তি ঠিকমতো তৈরিই হচ্ছে না। আটবছর পর্যন্ত শিশুদের চোখের গঠনগত পরিবর্তন হতে থাকে। এই বয়সের শিশুরা যদি দূরের জিনিস না দেখে তাহলে আস্তে আস্তে দূরের দৃষ্টিশক্তিই হারিয়ে ফেলবে। বড় হওয়ার পরেও তাদের এই সমস্যা কাটবে না।

এ বিষয়ে জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিউটের অধ্যাপক ডা. খায়ের আহমেদ চৌধুরী জানান, করোনার কারণে মায়োপিয়া রোগীর সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে। সরকারের দেয়া বিধিনিষেধ স্বাভাবিক হওয়ার পর হাসপাতালে রোগী অনেকগুণ বেড়েছে।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘লকডাউনের মধ্যে আমাদের হাসপাতালে দৈনিক ৪০ থেকে ৫০ জন রোগী দেখলেও এখন এই সংখ্যা বেড়ে ৩০০ খেকে ৪০০ হয়েছে। এদের মধ্যে ৩৩ শতাংশই দূরে দেখার দৃষ্টিতে সমস্যা নিয়ে আসে। তার একটি বড় অংশ শিশুরা।’

খায়ের আহমেদ জানান, করোনার আগে ২০১৯ সাল ও ২০২০ সালে ২০ থেকে ২২ শতাংশ ছিল মায়োপিয়া। করোনার মধ্যে এ জাতীয় রোগীর হার বেড়েছে ১১ শতাংশ। এর অন্যতম কারণ করোনা মধ্যে শিশুদের ডিভাইসে আশক্তি।

শিশুরা এখন অধিকাংশ সময় এখন অনলাইনে কাটায়। করোনা সংক্রমণের আগে বাচ্চারা বাবা-মায়ের সঙ্গে বিভিন্ন স্থানের ঘুরতে যেতে পারত, এখন সেটাও করতে পারেনা। ঘরবন্দি বাচ্চারা সময় কাঁটতে মোবাইলকে বেছে নিচ্ছে। ঘুমের সময় ছাড়া বাকি সময় কাটছে মোবাইলের মাধ্যমে।

করণীয় কী

করোনার কারণে এতদিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। ধীরে ধীরে প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হচ্ছে। শিশুদেরকে মোবাইল, ল্যাপটপ জাতীয় ডিভাইস থেকে ফেরাতে তাদের হাতে তুলে দেয়া যেতে পারে গল্পের বই। সেই সঙ্গে শিশুদের সঙ্গে বাবা-মায়েরা গল্প করতে পারে। পরিবারের সবাই মিলে মিলে মাঝে মাঝে আড্ডার ব্যবস্থা করতে পারে।

সবাই মিলে চেষ্টা করলে এই সমস্যা কাটিয়ে তোলা যেতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের পরামর্শ, শিক্ষকরা অনলাইনে ক্লাস নিলে যেন বিরতি নেয়। ৩০ মিনিট পর পর গ্যাপ দিলে বেশি ভালো হয়।

এ সমস্যা কাটাতে আরও কিছু পরামর্শ দিয়েছেন শিশু বিশেষজ্ঞরা। এর মধ্যে খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তনের কথা বলেছেন তারা। শাক-সবজি বেশি করে খেতে হবে। শহর এলাকার বাচ্চাদের বেশির ভাগ ফাস্ট ফুডের ওপর নির্ভরশীল। এই খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করতে হবে।

দূরের বস্তু দেখার ক্ষমতা হারাচ্ছে শিশুরা

ডিভাইসগুলো অবশ্যই সীমিত পরিসরে ব্যবহার করতে হবে। অল্প আলোতে লেখাপড়া যাতে না করে সেটাও লক্ষ্যে রাখতে হবে। বাড়ির কাজ করলে বিরতি দিয়ে দিয়ে করতে হবে। গল্পের বই একটানা যেন দীর্ঘ সময় ধরে না পড়ে। এক্ষেত্রে শুধু অভিভাবকরা নয়, চিকিৎসক ও শিক্ষকদেরও ভূমিকা রাখতে হবে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের চক্ষু বিজ্ঞানের বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাজনীন খান নিউজবাংলাকে বলেন, চোখের ক্ষীণ দৃষ্টিজনিত সমস্যা দূর করতে কোনোভাবে যেন একনাগাড়ে কম্পিউটারের সামনে বা কোনো ডিভাইসের সামনে না থাকে সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

তার ভাষ্য, শিশুদের চোখের সমস্যা স্থায়ী হয়ে যাওয়ার কারণ সঠিক সময়ে তাদের চোখ বা দৃষ্টিশক্তি পরীক্ষা করা হয় না। শিশুদের দৃষ্টিশক্তি কম থাকলেও অনেক ক্ষেত্রে যতক্ষণ তারা কথা না বলে বোঝাতে পারছে ততক্ষণ তাদের অভিভাবকরা বুঝতেই পারেন না তার শিশুর চোখের দৃষ্টিশক্তি কত।

দেশের বাইরেও পরিস্থিতি আশঙ্কাজনক

করোনাভাইরাস মহামারিতে ঘরে আটকে থাকা শিশুদের দৃষ্টিশক্তি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার তথ্য বেরিয়ে এসেছে চীন ও হংকংয়ে পরিচালিত কয়েকটি গবেষণাতেও।

আরও পড়ুন: ঘরবন্দি শিশুদের দূরের বস্তু দেখার ক্ষমতা কমছে

হংকংয়ের দ্য চায়নিজ ইউনিভার্সিটি অফ হংকং-এর একদল গবেষক দেড় বছরের বেশি সময় গবেষণা চালানোর পর বলছেন, দূরের বস্তু পরিষ্কার দেখতে পাওয়ার ক্ষমতা হারাচ্ছে অনেক শিশু। তাদের নিবন্ধটি ব্রিটিশ জার্নাল অফ অফথমলজিতে সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষকরা গত বছর ৬ থেকে ৮ বছর বয়সী ৭০৯ শিশুকে পর্যবেক্ষণ করে অনেকের মধ্যেই হ্রস্বদৃষ্টি বা মায়োপিয়ার লক্ষণ দেখতে পান। এ ধরনের শিশুরা কাছের বস্তুকে ভালোভাবে দেখতে পেলেও দূরের বস্তু ছিল ঘোলাটে। গবেষণায় দেখা গেছে, ২০১৯ সালের তুলনায় করোনার প্রথম বছরে শিশুদের মায়োপিয়ায় আক্রান্তের হার বেড়েছে ১০ শতাংশ।

গবেষকরা বলছেন, মহামারির সময়ে শিশুদের জীবনযাপনে পরিবর্তন আসায় মায়োপিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। তারা বাড়ির বাইরে যেতে পারছে না। পাশাপাশি দিনভর ঘরের ভেতরে ডিজিটাল মাধ্যমে আসক্তি, আঁকাআঁকি, বই পড়ার মতো কাজ করায় ‘হ্রস্বদৃষ্টি’ তৈরি হচ্ছে।

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, মায়োপিয়ার ক্ষেত্রে জিনগত কারণের চেয়ে বেশি দায়ী ঘরের বাইরে না যাওয়া। ঘরের মধ্যে দীর্ঘদিন আটকে থাকলে মানুষের চোখ দূরের বস্তুকে দেখার জন্য প্রয়োজনীয় অভিযোজন ক্ষমতা হারাতে থাকে।

হংকংয়ের গবেষকরা তাদের নিবন্ধে লিখেছেন, ‘মহামারির বিস্তার ঠেকাতে ঘরে থাকার বাধ্যবাধকতা এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখার মতো ব্যবস্থা চিরদিন থাকবে না, তবে এই সময়ে ডিজিটাল ডিভাইসে আসক্তিসহ মানুষের জীবনযাপনে যে পরিবর্তন ঘটছে, তার দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব সবার জীবনে, বিশেষ করে শিশুদের ওপর থাকবে।’

আধুনিক জীবনে বিভিন্ন দেশেই মায়োপিয়া উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। চীনের ৯০ শতাংশের মতো মানুষ হ্রস্বদৃষ্টির সমস্যায় আক্রান্ত, এ কারণে দেশটিতে মায়োপিয়াকে মহামারি হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে, চীনে ২০২০ সালে ৬ বছর বয়সী শিশুদের মায়োপিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা আগের বছরের চেয়ে তিন গুণ বেড়েছে। চলতি বছরের শুরুর দিকে প্রকাশিত ওই গবেষণায় চীনে মায়োপিয়া বাড়ার কারণ হিসেবেও লকডাউনকে দায়ী করা হয়েছে।

আক্রান্তের লক্ষণ কী কী

ঘরে থাকা শিশু বারবার মোবাইল বা টেলিভিশন দেখার ইচ্ছা প্রকাশ করলে, বারবার চোখের পাতা বন্ধ করে খুলতে থাকলে মাওপিয়া আক্রান্ত হতে পারে। মাঝে মাঝে মাথা ও চোখব্যথা হতে পারে।

অনেক সময় দৃষ্টিত্রুটির কারণে চোখ বাঁকা হতে পারে। আবার চোখ বাঁকা হওয়ার কারণে দৃষ্টিতে ত্রুটি হতে পারে। কিছু পড়তে গেলে শিশু চোখ কুঁচকে দেখার চেষ্টা করছে কি না, সেটাও খেয়াল রাখতে হবে।

লক্ষণগুলো দেখা দিলে অভিভাবকদের উচিত দ্রুত সময়ের মধ্যে শিশুকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া।

জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ডা. খায়ের আহমেদ চৌধুরী বলেন, ‘এখন আবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দিয়েছে। আক্রান্ত শিশুরা যখন স্কুলে গিয়ে ক্লাস করবে, তাদের ব্ল্যাকবোর্ডে লেখা দেখতে অসুবিধা হবে।

‘তারা (আক্রান্ত শিশু) ব্ল্যাকবোর্ডের লেখা খাতাতে তুলতে পারে না। এ কারণে পাশের বাচ্চা থেকে লেখা কপি করে।’

চিকিৎসা কী

এ রোগের প্রধান কারণ মোবাইল ফোন অথবা অন্য কোনো ডিভাইসের প্রতি নির্ভরতা। কম্পিউটার বা মোবাইল থেকে এক ধরনের নীল আলোর বিচ্ছুরণ ঘটে। নিয়মিত দীর্ঘসময় ধরে নীল উজ্জ্বল আলো চোখের ওপর চাপ সৃষ্টি করে, যা দীর্ঘমেয়াদে অঙ্গটির ক্ষতি করে। করোনাভাইরাসের কারণে এ সমস্যা বেড়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ রোগ থেকে বাঁচতে অভিভাবকদের সচেতনতা সবচেয়ে জরুরি।

জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক ডা. খায়ের আহমেদ চৌধুরী বলেন, ‘আমরা যারা চক্ষু বিশেষজ্ঞ, তাদের যেমন ভূমিকা রয়েছে, একই সঙ্গে এখানে অন্য চিকিৎসক ও অভিভাবকদের তেমন ভূমিকা রয়েছে। এ ক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করতে পারে শিশু চিকিৎসকরা। শিশুদের কোনো সমস্যা দেখা দিলে অভিভাবকরা দ্রুত তাদের কাছে নিয়ে আসেন। তারা অন্যান্য পরীক্ষার সঙ্গে চোখের পরীক্ষা করানোর পরামর্শ দিতে পারেন।

‘এসব সমস্যা দেখা দিলে হয়তো চশমা দিয়ে সমাধান করা যাবে। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা ও সচেতনতায় এই রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।’

শেয়ার করুন

দেশে পেট্রল পাম্প হবে ইউরোপ-আমেরিকার আদলে

দেশে পেট্রল পাম্প হবে ইউরোপ-আমেরিকার আদলে

দেশের পেট্রল পাম্পগুলো ইউরোপ-আমেরিকার আদলে নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ছবি: সংগৃহীত

প্রস্তাবিত মডেল পাম্পের জন্য জমির প্রয়োজন হবে সোয়া দুই একর থেকে আড়াই একর। সেখানে থাকবে রেস্টুরেন্ট যার আয়তন হবে ২৭০ বর্গমিটার বা দুই হাজার ৯০৬ বর্গফুট। শিশুদের খেলার স্থান থাকবে ১৫০ বর্গফুটের। বেবি ফিডিং এরিয়া থাকবে ১০০ বর্গফুটের। টয়লেট জোন হবে এক হাজার ১৫৫ বর্গফুটের।

মহাসড়কের পাশে পেট্রল পাম্পে উন্নত বিশ্বের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করতে চাইছে সরকার। এসব পাম্পে থাকবে রেস্টুরেন্ট, এটিএম বুথ, ওষুধের দোকান, টয়লেট, চালকদের গোসলের ব্যবস্থা, বিশ্রামাগার।

আরও থাকবে শিশুদের খেলার স্থান, বাচ্চাদের বুকের দুধ খাওয়ানোর আলাদা স্থাপনা। থাকবে শপিং ও গিফট কর্নারও।

একই স্টেশনে জ্বালানি তেল ও গ্যাসের পাশাপাশি থাকবে বৈদ্যুতিক গাড়ি চার্জের ব্যবস্থাও, থাকবে সৌর বিদ্যুতের মাধ্যমে চার্জের সুযোগ। ব্যাটারি পরিবর্তন, পাম্পিংসহ গাড়ির টুকিটাকি কাজও সেরে নেয়া যাবে এসব পাম্পে।

সরকার এগুলোকে বলছে ‘হাইওয়ে মডেল ফিলিং স্টেশন’। এর একেকটির আয়তন হবে আড়াই একর।

এসব উদ্যোগ পাম্প মালিকের খরচ প্রাথমিকভাবে বাড়ালেও তার আয় বাড়বে বহুগুণ। কারণ, প্রতিটি সেবার বিপরীতে তারা টাকা নিতে পারবে।

প্রাথমিকভাবে যে হিসাব করা হয়েছে, তাতে ধারণা করা হচ্ছে, একেকটি পাম্প স্থাপনে খরচ হবে ১২ থেকে ১৫ কোটি টাকা।

একেবারেই প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে এই পরিকল্পনা, যা বিভিন্ন অংশীদারদের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে এগিয়ে নেয়া হবে।

প্রথমে তিনটি থেকে ছয়টি পাম্প স্থাপন করবে সরকারি তিনটি তেল বিপণনকারী কোম্পানি পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা অয়েল। পরে বেসরকারি খাতে করা হবে আরও।

সরকার বলছে দীর্ঘদিন ধরেই প্রচলিত পেট্রোল পাম্পগুলোর বিরুদ্ধে ভেজাল তেল বিক্রি, ওজনে কম দেয়াসহ নানা অভিযোগ রয়েছে। সেই সঙ্গে পাম্পগুলোর পরিবেশও উন্নত বিশ্ব তো দূরে থাকুক, এশিয়ার মানেরও নয়। তাই সরকার এইসব মাথায় রেখেই একটি সমন্বিত উদ্যোগ নেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।

মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী পালনের বছরকে তাই এ প্রকল্প গ্রহণের বছর হিসেবে নেয়া হয়ছে।

দেশে পেট্রল পাম্প হবে ইউরোপ-আমেরিকার আদলে
প্রস্তাবিত পেট্রল পাম্পগুলোর মডেল

যেমন হবে মডেল পাম্প

প্রস্তাবিত মডেল পাম্পের জন্য জমির প্রয়োজন হবে সোয়া দুই একর থেকে আড়াই একর। এর মধ্যে হাইওয়ে ব্যবহারকারীদের সুযোগ সুবিধার জন্য বরাদ্দ থাকবে ৯৫৩ বর্গ কিলোমিটার বা ১০ হাজার ২৫৮ বর্গফুট জায়গা।

সেখানে থাকবে রেস্টুরেন্ট যার আয়তন হবে ২৭০ বর্গমিটার বা ২ হাজার ৯০৬ বর্গফুট। ৮২ জন এই রেস্টুরেন্টে একসঙ্গে খাবার গ্রহণ করতে পারবেন। শিশুদের খেলার স্থান থাকবে ১৫০ বর্গফুটের। বেবি ফিডিং এরিয়া থাকবে ১০০ বর্গফুটের। নামাজের স্থান থাকবে ২৪০ বর্গফুট। রান্নাঘরের আয়তন হবে এক হাজার ৪৮৫ বর্গফুট।

পাম্প মালিকের কেবিন থাকবে ৩০০ বর্গফুটের। প্রক্ষালন (ওয়াশরুম) কক্ষের আয়তন হবে ৬৫ বর্গফুট। এটিএম বুথের জন্য থাকবে ২২৫ বর্গফুট।

টয়লেট জোন হবে ১ হাজার ১৫৫ বর্গফুটের। এর মধ্যে পুরুষ টয়লেট ৫৪৮ বর্গফুট (একসঙ্গে ২০ জনের ব্যবহার যোগ্য), নারীদের টয়লেট হবে ২৭০ বর্গফুটের (একসঙ্গে ৯ জন ব্যবহার যোগ্য)। প্রতিবন্ধীদের জন্য থাকছে ৬৭ বর্গফুট এলাকা।

পাম্পের কাউন্টার এবং লুব্রিকেন্ট স্টোরেজের জন্য বরাদ্দ থাকবে ৩১২ বর্গফুট জায়গা। আট জনের অফিস কক্ষের জন্য থাকছে ৪১৫ বর্গ ফুট, স্টাফ বিশ্রামের জন্য থাকছে ৪৬২ বর্গফুট।

এই পাম্প ব্যবহারকারীদের জন্য থাকছে মোবাইল ফোন চার্জিং পয়েন্ট। ওয়াটার বডি থাকছে ১ হাজার ৪০০ বর্গফুটের। থাকছে মেডিক্যাল ইউনিট।

পাম্প শেডের আয়তন হবে প্রায় ১০ হাজার বর্গফুটের। এতে একসঙ্গে ২২টি গাড়ি তেল ও গ্যাস নিতে পারবে। থাকবে রেস্টুরেন্টের মধ্যে ৫৫ বর্গফুটের খোলা স্থান।

সার্ভিস এরিয়া

সার্ভিস এরিয়ায় থাকবে বাস ও গাড়ি ওয়াশিং জোন। এর মধ্যে টুলস রুম থাকবে ২২৬ বর্গফুটের। সেখানে ব্যাটারি পরিবর্তন-চার্জিং ও টায়ার পাম্পিং সুবিধা থাকবে। থাকবে অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থাও।

ড্রাইভার জোনের আয়তন হবে ২ হাজার ২৫৩ বর্গফুট। সেখানে ৯৪৩ বর্গফুটের রেস্টুরেন্ট, ৪৯০ বর্গফুটের কিচেন, ৩৮০ বর্গফুটের টয়লেট থাকছে। থাকছে চালকদের গোসলের ব্যবস্থা।

ট্যাংক স্টোরেজ ও পার্কিং ক্যাপাসিটি

হাইওয়ে মডেল পাম্পে অকটেন স্টোরেজ ক্যাপাসিটি থাকবে ১৮ হাজার লিটার। পেট্রোল স্টোরেজ ক্যাপসিটি থাকবে ১৩ হাজার লিটার। দুইটি হাইস্পিড ডিজেল স্টোরেজ ট্যাংকের মোট স্টোরেজ ক্যাপসিটি থাকবে ৬০ হাজার লিটার। অটো গ্যাস (এলপিজি) ক্যাপাসিটি হবে ২০ হাজার লিটার।

এই পাম্পে ১৩ টি ব্যক্তিগত গাড়ি, ২০টি বাস ও ট্রাক পার্কিং ব্যবস্থা থাকবে। ফুয়েল আনলোডিং ক্যাপাসিটি থাকবে একটি। একই সঙ্গে চারটি ব্যাটারিচালিত গাড়ি চার্জের ব্যবস্থাও থাকছে।

কেন এই উদ্যোগ?

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব (অপারেশন) ড. মহ. শের আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পেট্রল পাম্প নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা ও অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা একটি জরিপ চালিয়েছিলাম। এই জরিপে মারাত্মক ও চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসে। এতে দেখা যায় দেশের প্রচলিত পাম্পগুলোর ৬২ ভাগই তেল বিক্রি করে লাভ করতে তো পারেই না, উল্টো লোকসানে থাকে।

‘তারা ভেজাল তেল বিক্রি করে ও ওজনে কম দিয়ে ব্যবসা টিকিয়ে রাখে বা সামান্য লাভও করে। এতে দেশের পাম্পগুলোর সেচ্ছ্বাচারিতা ও গ্রাহক ভোগান্তির এক করুণ চিত্র ফুটে ওঠে।’

নতুন ধরনের পাম্পে ভেজাল তেল বিক্রি বন্ধ হবে-এমন নিশ্চয়তা কী, এমন প্রশ্নে যুগ্মসচিব বলেন, ‘এসব পাম্পে ভেজাল বা ওজন কম দেয়ার প্রয়োজন পড়বে না। কারণ, তেল বেচে যদি লাভ নাও হয়, তাহলেও অন্যান্য যে সেবা থাকবে, তাতে মালিকের মুনাফা হবে অনেক বেশি।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশের পেট্রল পাম্পগুলোর ফ্রেশ রুমগুলো অত্যন্ত নোংরা। নেই কোনো রিফ্রেসমেন্ট ব্যবস্থাও। এতে নারী, শিশু ও প্রবীণরা ঝামেলায় পড়েন। চালকদের বিশ্রামের ব্যবস্থা না থাকায়, দুর্ঘটনাও ঘটে।

‘এরপরই সরকার প্রতিকারের বিষয়ে চিন্তা করতে থাকে এবং নতুন করে পেট্রল পাম্পের অনুমোদন দেয়া বন্ধ করে দেয়। এরপর আমরা একটি হাইওয়ে মডেল পাম্পের চিন্তা ও পরিকল্পনা করি। সেই মোতাবেকই একটি ডিজাইনও করা হয়।‘

শের আলী বলেন, ‘আমাদের দেশের অর্থনীতির আকার বড় হচ্ছে। মহাসড়কগুলো দুই লেন থেকে চার লেন ও এক্সপ্রেসওয়েতে উন্নত হচ্ছে। দক্ষিণ এশিয়া, এশিয়া ও ট্রান্স এশিয়ান হাইওয়ের যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ভারত, নেপাল, ভুটান ও বাংলাদেশের মধ্যে বিবিআইএন চুক্তি সাক্ষর হয়েছে। তারা চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর ব্যবহার করবে। ফলে আমাদের পাম্প গুলোও আন্তুর্জাতিক মানের হওয়া উচিত। আমরা সে ধরনেরই নকশা করেছি।

‘এই পাম্প বাস্তবায়ন হলে এমনিতেই প্রচলিত পাম্প বন্ধ হয়ে যাবে।’

এ বিষয়ে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু নিউজবাংলাকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যে উন্নত বাংলাদেশের স্বপ্ন, ভিশন-২০৪১; হাইওয়ে মডেল ফিলিং স্টেশন তারই একটা অংশ।

তিনি জানান, দেশের জ্বালানি সক্ষমতা অর্জনের সঙ্গে সঙ্গে, কোয়ালিটি সার্ভিস নিশ্চিতের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এজন্য নেয়া হয়েছে বিশ্বমানের নানা কার্যক্রম ও প্রকল্প।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘উন্নত বিশ্বের আদলে পাম্পগুলো বদলে গেলে প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোতেও পাম্প ঘিরে অর্থনৈতিক কর্মচাঞ্চল্য সৃষ্টি হবে। অন্যদিকে গ্রাহকরা একই স্থানে অনেকগুলো সেবা পাবেন। মোট কথা অকটেন, পেট্রোল, ডিজেল, অটো গ্যাস ও সৌরবিদ্যুৎ চার্জিংয়ের মতো পাঁচটি সেবা, সেই সঙ্গে চাকা ও ব্যাটারি পরিবর্তন ও মেরামতের সুযোগ থাকছে।’

মালিকদের আগ্রহ কম যে কারণে

সরকার উচ্ছ্বসিত হলেও বেসরকারি উদ্যোক্তাদের আগ্রহ এখন পর্যন্ত কম। এর ফলে রাষ্ট্রায়ত্ত পেট্রলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) সারা দেশে মডেল ফিলিং স্টেশন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে।

পেট্রল পাম্প মালিকদের সংগঠন পেট্রল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সৈয়দ সাজ্জাদুল করিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মডেল পেট্রল পাম্প করার প্রথম সমস্যা হচ্ছে এটি করতে প্রায় ১০ বিঘা জমি দরকার, যা ব্যয়বহুল। বিশাল বিনিয়োগ করতে হবে। এটি আমাদের দেশের জন্য উপযোগী নয়।’

তিনি বলেন, ‘অনেক মালিক ঋণ করে পাম্প দেন। সেই ঋণের সুদ দিতেই তাদের গলদঘর্ম হতে হয়। এখন বাড়তি এত কিছুর পেছনে বিনিয়োগ করতে বলাটা অমানবিক বটে।

‘এদিকে নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়েও আমরা ভাবছি। এ রকম সুবিধা থাকলে অনেক লোকই পাম্পে আসবে। পাম্পে নগদ টাকা থাকে। সেটিও বিবেচনা করতে হবে। এ ছাড়া এ কাজের জন্য যে জমির কথা বলা হচ্ছে তা হাইওয়ের পাশে পাওয়া আরও কঠিন। জমির দামও বেশি পড়বে। এখন কারোরই এত বড় জমি নেই।’

এই অবস্থার মধ্যে বিপিসি জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের এক সভায় বলছে, কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ, পদ্মা সেতু এবং মিরেরসরাই বঙ্গবন্ধু অর্থনৈতিক অঞ্চলে মডেল ফিলিং স্টেশন নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। তেল বিপণন কোম্পানি পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা নিজস্ব অর্থায়নে এগুলো বাস্তবায়ন করবে।

জ্বালানি বিভাগের সিনিয়র সচিব আনিছুর রহমান ওই সভায় বিপিসির এই উদ্যোগে সায় দেন এবং এই বিষয়ে কাজ শুরু করতে গুরুত্ব আরোপ করেন।

জ্বালানি সচিব আনিছুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই ধরনের ফিলিং স্টেশন নির্মাণের খরচ বেশি। তাই উদ্যোক্তাদের আগ্রহ কম। এই কারণেই এবার বিপিসির অধীন বিপণন সংস্থাগুলো তাদের নিজস্ব জায়গায় মডেল ফিলিং স্টেশন নির্মাণ করবে। এটা দেখে অন্যরাও উৎসাহিত হবে।’

তিনি বলেন, ‘বিপিসির জমি ছাড়াও পূর্বাচলে কয়েকটি স্টেশন নির্মাণের জন্য আমরা জমি চেয়েছি। পেলে সেখানেও নির্মাণ করা হবে।’

চ্যালেঞ্জটা কী?

জ্বালানি বিভাগ থেকে জানানো হয়, তারা ৯টি মডেল পেট্রোল পাম্প স্থাপনের বিষয়ে অনাপত্তিপত্র দিয়েছে। এর মধ্যে ৩টি তেল বিপণন কোম্পানির অর্থায়নে ৫টি আর ৬টি ডিলারের অর্থায়নে নির্মাণ করা হবে।

এর মধ্যে পদ্মা ও যমুনা অয়েলের মাধ্যমে দুটি করে এবং মেঘনা পেট্রলিয়ামের মাধ্যমে একটি মডেল পাম্প নির্মাণে লেটার অব ইনটেন্ট (এলওআই) বা প্রাথমিক সম্মতিপত্র ইস্যু করা হয়েছে।

তবে বিপিসির চেয়ারম্যান আবু বকর ছিদ্দিক বলেন, ‘যতদূর জানি এ নিয়ে কাজ চলছে। আমি নতুন। তাই বেশি কিছু জানি না। তবে এটা এমন কোনও বড় বিষয় নয়।’

শেয়ার করুন

জবি ছাত্রী হলে ‘গোলকধাঁধায়’ প্রভোস্ট, শিক্ষার্থী উঠবেন কীভাবে?

জবি ছাত্রী হলে ‘গোলকধাঁধায়’ প্রভোস্ট, শিক্ষার্থী উঠবেন কীভাবে?

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একমাত্র আবাসিক হল শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব হল। ছবি: নিউজবাংলা

প্রভোস্ট বলেন, ‘প্রভোস্টের অফিস রুমে বসে কাজ করতে পারছি না। আমাকে ডিপার্টমেন্টের অফিসে থেকেই কাজ করতে হচ্ছে। জনবল না থাকায় ডিপার্টমেন্টের অফিস সহায়ককে দিয়েই হলের কাজগুলো করাতে হচ্ছে। তারপরও চেষ্টা করে যাচ্ছি ঠিকভাবে কাজগুলো শেষ করার।’

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ছাত্রীদের একমাত্র হলের নির্মাণকাজ শেষ হলেও হয়নি হস্তান্তর। এরই মধ্যে ৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮৫তম সিন্ডিকেটে পাস হয়েছে হলের নীতিমালা। বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়ার পরই বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণীর নামে করা বেগম ফজিলাতুন নেছা হলে ছাত্রী তুলতে চলছে আবেদন প্রক্রিয়া শুরুর কাজ।

এমন বাস্তবতায় নিজের কক্ষের সার্বিক কাজ শেষ না হওয়া, জনবলশূন্যতাসহ বিভিন্ন অভিযোগ করেছেন হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. শামীমা বেগম।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের ছাত্রী হলের প্রতি তলাতেই একজন করে হাউস টিউটর দরকার। সেই হিসেবে ১৩ তলায় ১৩ জন হাউস টিউটর প্রয়োজন। কিন্তু এখন পর্যন্ত হলে একজন হাউস টিউটর আছেন। প্রভোস্টের রুমে আমার বসার জন্য টেবিল-চেয়ারসহ অন্যান্য আসবাবপত্র, পর্দা, বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রীর ছবি লাগানোর জন্য চিঠি দিয়েছিলাম গত মার্চের ১৬ তারিখ, যাতে সেখানে বসে ঠিকমতো কাজ করতে পারি।’

তিনি বলেন, “এই যে অফিসের কাজ করতে, টাইপ করতে কম্পিউটার, প্রিন্টারের দরকার হয়, এগুলো করার জন্য অ্যাসিস্ট্যান্টের দরকার। সেখানে বসে কাজ করলে একটা টেলিফোন দরকার। এসব চেয়ে চিঠি দিয়েছিলাম। তৎকালীন উপাচার্য মীজান স্যার স্বাক্ষর করে লিখেও দিয়েছিলেন ‘জরুরি ব্যবস্থা নিন।’ সেটা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দেয়াও হয়েছিল। তবু কাজ হয়নি।”

‘আবেদন জানানোর পরও কিছু পাই নাই’

প্রভোস্ট বলেন, ‘নতুন ভিসি স্যার আসার পর প্রথম মিটিংয়েই আমি আমার বক্তব্যে এসব বলেছি যে, আবেদন জানানোর পরও এখনও কিছু পাই নাই। তারপর তড়িঘড়ি করে কয়েকটা কাজ হয়েছে। এখনও আমাকে কম্পিউটার দেয়া হয় নাই, পর্দা লাগানো হয় নাই। আমার নেমপ্লেটও লাগানো হয় নাই। গত সপ্তাহে টিঅ্যান্ডটির লাইন লাগানো হইছে। এরপর আবার নতুন করে কিছুদিন আগে আলাদা আলাদা চিঠি দিয়েছি। এখনও পর্যন্ত সবকিছু পাইনি। বাকি কাজগুলো কবে হবে, সেটাও বলতে পারছি না।

‘প্রভোস্টের অফিস রুমে বসে কাজ করতে পারছি না। আমাকে ডিপার্টমেন্টের অফিসে থেকেই কাজ করতে হচ্ছে। জনবল না থাকায় ডিপার্টমেন্টের অফিস সহায়ককে দিয়েই হলের কাজগুলো করাতে হচ্ছে। তারপরও চেষ্টা করে যাচ্ছি ঠিকভাবে কাজগুলো শেষ করার।’

হল নির্মাণের কাজ শেষ করতে দীর্ঘ সময় নেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ প্রভোস্টের।

জগন্নাথে কাজ দেরিতে হয় অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই, তিন বছরের মধ্যে ২০-২২ তলা বিল্ডিংয়ের কাজ শেষ হয়ে যায়৷ আমাদের এখানেই শুধু ৮-৯ বছর সময় লাগে। আমাদের নতুন একাডেমিক বিল্ডিংয়েরও একই অবস্থা। এতদিনেও কাজ শেষ হয় না। অন্যান্য জায়গায় এত সময় লাগে না; দ্রুতই বিল্ডিং উঠে যায়।

‘জগন্নাথেই শুধু এতটা সময় কেন লাগে জানি না। ছাত্রী হলের কাজটা আরও আগে শেষ হলে আমাদের ছাত্রীদের জন্য অনেকটাই সুবিধা হতো।’

হলের সিটের জন্য আবেদন প্রক্রিয়ার বিষয় নিয়েও কথা বলেন প্রভোস্ট।

তিনি বলেন, ‘ছাত্রীদের তথ্য আইটি দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে গত ১৪ সেপ্টেম্বর। কাজ চলছে। কাজ শেষ হলেই অনলাইনে আবেদন প্রক্রিয়া শুরু হবে। তিন-চার দিনের মধ্যেই হয়তো কাজ শেষ হয়ে যাবে। ছাত্রীরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবে। ৬২৪ জন ছাত্রী হলে সিট পাবে।

‘আমাদের প্রায় ৬-৭ হাজার ছাত্রী। প্রতিটি সিটের জন্য ১০০ জন দাবিদার। আমাদের চেষ্টা থাকবে দূরত্ব ও মেধা অনুযায়ী সিট বরাদ্দ দেয়া। আমার পছন্দ ছিল যেন প্রতিটি রুমে ব্যাচ অনুযায়ী শিক্ষার্থীদের সিট দিতে পারি। তারা তো নিজেদের সমস্যার কথা ভালো বুঝতে পারবে। কিন্তু অন্য কোথাও তো এমন নিয়ম নেই। তাই সিনিয়র জুনিয়র মিলিয়েই রুমে সিট বরাদ্দ হবে।’

জবির ছাত্রী হলটি নির্মাণের কথা ছিল ২০১১ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৩ সালের জুন পর্যন্ত। এ সময়ে কাজ শেষ না হওয়ায় মেয়াদ বাড়িয়ে ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়। এরপর তৃতীয় দফায় ২০১৮ সালের জুন পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়। পরে ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল।

পুরোপুরি কাজ শেষ না হলেও গত বছরের ২০ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে হলের উদ্বোধন করেন তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। এরপর বাকি থাকা কাজ ২০২১ সালে এসে শেষ হয়।

শেয়ার করুন

এক রেটের ইন্টারনেটে গতির ফাঁকি

এক রেটের ইন্টারনেটে গতির ফাঁকি

প্রতীকী ছবি

আইএসপিএবি-এর সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক বলেন, ‘সরকারের বেঁধে দেয়া দামে বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানই ইন্টারনেট সেবা দিচ্ছে। তবে এখানে কথা আছে, এ ইন্টারনেট কিন্তু ওয়ান বাই এইট শেয়ারিং ব্যান্ডউইথ। তার মানে ৫০০ টাকায় ৫ এমবিপিএস কিন্তু ইন্টারনেট পাবে না, পাবে ৬২৫ কেবিপিএস। এই গতির ইন্টারনেট নিয়ে তারা তেমন কিছুই করতে পাবে না।’

একটি ট্রাভেল এজেন্সিতে এয়ার টিকেটিং অফিসার হিসাবে কাজ করেন আরিফ হোসেন। এয়ার টিকেট বিক্রির নির্দিষ্ট কোনো সময় নেই, তাই অফিসের বাইরেও সারাক্ষণ ইন্টারনেট সংযোগে থাকতে হয়।

মোবাইল ইন্টারনেটে ব্যয় বেশি বলে আরিফ হোসেন বাসায় ব্রডব্যান্ড ইন্টারসংযোগ নিয়েছেন ৫ এমবিপিএস ৫০০ টাকায়। তবে প্রায়ই দেখা যায়, বাসার ইন্টারনেটে ফেসবুক-ইউটিউব চললেও এয়ার টিকেট বুকিং সফটওয়্যার কাজ করে না, তখন মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হয়। বাধ্য হয়ে বাড়তি ৩০০ টাকা দিয়ে সংযোগ ১০ এমবিপিএস করে নিয়েছেন। এতে আগের চেয়ে ইন্টারনেটের গতি কিছুটা বাড়লেও তা মন মতো হচ্ছে না।

আরিফের মতো অনেক গ্রাহকেরই অভিযোগ, সর্বনিম্ন রেটের এ ইন্টারনেট ঠিক মতো কাজ করে না। তারা ইন্টারনেটের সঠিক গতি পাচ্ছেন না। প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে কাজ করতে প্রচুর সময় লাগে।

এক রেটে ইন্টারনেট

চলতি মাস থেকে সারা দেশে এক দাম ও সর্বনিম্ন রেটে ইন্টারনেট পাবার পথ তৈরি হয়েছে। এতে গ্রাম বা শহর সব জায়গাতেই সর্বনিম্ন ৫০০ টাকায় ইন্টারনেট পাবেন গ্রাহকরা। এক রেটে ইন্টারনেট কার্যকার হলেও এই ইন্টারনেটের সত্যিকার গতি কত তা নিয়ে রয়েছে প্রশ্ন।

১ সেপ্টেম্বর থেকে দেশে ‘এক রেটে’ ইন্টারনেট সেবামূল্য (ট্যারিফ) চালু করেছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিটিআরসি)। গত ১২ আগস্ট বিটিআরসিতে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ইন্টারনেটের নতুন এই ট্যারিফ ঘোষণা করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

নতুন দাম হিসাবে খুচরায় ৫ এমবিপিএস ৫০০ টাকা, ১০ এমবিপিএস ৮০০ এবং ২০ এমবিপিএস ১ হাজার ২০০ টাকায় পাবেন গ্রাহক।

এর আগে ৬ জুন ‘এক দেশ এক রেট’ ইন্টারনেট ঘোষণা দেয়ার পরে তা বাস্তবায়নে সমস্যা হচ্ছিল। ইন্টারনেটের একেক পর্যায়ে একক দর ছিল। তাই ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের তিনটি ধাপে খুচরা পর্যায়ে ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান (আইএসপি), বেসরকারি নেশনওয়াইড টেলিকমিউনিকেশন ট্রান্সমিশন নেটওয়ার্ক (এনটিটিএন) ও ইন্টারন্যাশনাল ইন্টারনেট গেটওয়ের (আইআইজি) অভিন্ন ট্যারিফ চালু করা হয়েছে। এতে আইআইজি ও এনটিটিএন চালু হওয়ার ১২ বছর পর এ সেবামূল্য নির্ধারণ করা হলো।

অনুষ্ঠানে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী বলেন, মূল্য নির্ধারণের মধ্যে দিয়ে সারা দেশে ‘এক দেশ এক রেট’ ইন্টারনেট বাস্তবায়ন হবে। এতে গ্রাম বা প্রত্যন্ত অঞ্চলেও মানুষও শহরের মানুষের মতো কম দামে ইন্টারনেট সেবা পাবে। সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোকে এ দর কার্যকর করতেই হবে।

রেট ৫০০ টাকা, কিন্তু গতি আট ভাগের এক ভাগ

আইএসপি প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, সরকারের ঘোষণার পর বেশির ভাগ ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান তাদের প্যাকেজে পরিবর্তন এনেছে। একই প্যাকেজের মূল্য আগে বেশি থাকলেও তা কমিয়েছে কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান। আবার অনেক প্রতিষ্ঠান কয়েক বছর থেকেই ৫০০ টাকায় ৫ এমবিপিএস ব্যান্ডইউথ সেবা দিয়ে আসছে, তবে তা শহরে যেখানে গ্রাহক বেশি সেখানেই সম্ভব ছিল। প্রতিষ্ঠানগুলো বর্তমানে গ্রাহকদের ব্যান্ডইউথ আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

তবে প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, সর্বনিম্ন দরে ইন্টারনেট গ্রাহকরা আরও আগে থেকেই পেয়ে আসছে। কিন্তু এখানে একটি ফাঁক রয়েছে। বিশেষ করে সর্বনিম্ন দরে যে লাইন দেয়া হয়, সেগুলো শেয়ারড লাইন। এখানে গ্রাহক চাইলে তার মনমতো স্পিড পাবে না। কারণ ৫০০ টাকায় যারা প্যাকেজ নিচ্ছে, তাদের এ সংযোগ দেয়া হচ্ছে। এতে এক জনের ইন্টারনেট সংযোগের গতি আট ভাগে ভাগ হয়ে যাচ্ছে। তাই বেশির ভাগ গ্রাহক এতে সন্তুষ্ট নন। তাদের ব্যান্ডউইথ ও স্পিডের চাহিদা আরও অনেক বেশি। বিশেষ করে করপোরেট অফিস শেয়ারড ইন্টারনেট দিয়ে চলে না। তাদের ডেডিকেটেড ব্যান্ডউইথ নিতেই হয়। তবে এ ক্ষেত্রে মাসিক চার্জও বেশি।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারস অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সরকারের বেঁধে দেয়া দামে বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানই ইন্টারনেট সেবা দিচ্ছে। তবে এখানে কথা আছে: এ ইন্টারনেট কিন্তু ওয়ান বাই এইট শেয়ারিং ব্যান্ডউইথ। তার মানে ৫০০ টাকায় ৫ এমবিপিএস কিন্তু ইন্টারনেট পাবে না, পাবে ৬২৫ কেবিপিএস। এই গতির ইন্টারনেট নিয়ে তারা তেমন কিছুই করতে পাবে না। ইউজাররা হ্যাপি থাকবে না। এই খানেই একটু বোঝার ভুল রয়েছে।

‘অনেকে মনে করে ৫০০ টাকায় ৫ এমবিপিএস গতি পাবে। এ ডাটা ৮ জনে শেয়ার করলে তা যে ৬২৫ কেবিপিএস হয়, এ কথা অনেকেই বলে না। মনে করেন কেউ শেয়ারড লাইন নিল। তার বাসায় লোক ৪ জন, তাহলে ৬২৫ কেবিপিএস গতিও চার ভাগ হয়ে যাবে, এ গতি দিয়ে সে কী করতে পারবে? তাই কাজ করতে চাইলে তাকে প্যাকেজে আপডেট করে নিতেই হবে। তখন কিন্তু সর্বনিম্ন দাম থাকবে না।’

সর্বনিম্ন এক রেট কি সম্ভব

আইএসপি প্রতিষ্ঠানগুলো বলছে, সর্বনিম্ন রেটে ইন্টারনেট সংযোগ দেয়া সম্ভব। তবে তা খুব যে কার্যকর হবে তা নয়। কারণ ৫০০ টাকায় শেয়ারড লাইন ছাড়া ইন্টারনেট সংযোগ দেয়া সম্ভব নয়। সর্বনিম্ন প্যাকেজ যদিও ভ্যাটসহ ৫২৫ টাকা খরচ পড়ে, অপারেটররা ৫০০ টাকাই রাখছেন। তবে, গ্রাহকের সুবিধার জন্য কেউবা ১ বনাম ৮ এর জায়গায় ১ বনাম ৩ বা ১ বনাম ৪ করছেন। আবার অনেকে ১ বনাম ৮ শেয়ারিং লাইন দিলেও ৫ এমবিপিএসের জায়গায় ৮ এমনকি ১০ এমবিপিএস স্পিডও দিচ্ছে। টাকাও একটু বেশি নিচ্ছে। কারণ, সব গ্রাহকের এক সঙ্গে একই সময় ইন্টারনেটের প্রয়োজন পড়ে না। ফলে কোনো গ্রাহক ব্যবহার না করলে অন্যরা তখন তুলনামূলক ভালো স্পিড পায়। তবে কেউ বিশেষ কোনো কাজ করতে চাইলে কিংবা বাফারিং (ধীরগতি) মুক্ত নিরবচ্ছিন্ন ইন্টারনেট চাইলে তাকে ডেডিকেটেড লাইন নিতেই হবে। তবে এক্ষেত্রে বেশি খরচ করতেই হবে।’

এমদাদুল হক বলেন, ‘৫ এমবিপিএস ডেডিকেটেড (এক লাইন এক ইউজার) লাইনে অপারেটরের ২০০০ টাকার মতো খরচ পড়ে। তাহলে সে ৫০০ টাকায় ৫ এমবিপিএস দেবে কীভাবে? কোনো প্রতিষ্ঠান হয়তো বা ১০০ টাকা বেশি নিয়ে ৮ জনের ক্ষেত্রে ৪ বা ৫ জনকে একটি শেয়ার লাইন দিচ্ছে। গ্রাহকও একটু ভালো গতির ইন্টারনেট পাচ্ছে।’

শেয়ার করুন

স্তন ক্যানসার রোধে অ্যাস্ট্রাজেনেকার যুগান্তকারী সাফল্য

স্তন ক্যানসার রোধে অ্যাস্ট্রাজেনেকার যুগান্তকারী সাফল্য

অ্যাস্ট্রাজেনেকার এনহার্টু ট্রায়ালে এশিয়া, ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, ওশেনিয়া ও দক্ষিণ আমেরিকার অন্তত ৫০০ রোগীকে পর্যবেক্ষণের আওতায় আনা হয়।

বিশ্বে প্রতি আটজনে অন্তত একজন নারী স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হন। জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউটের হিসাব অনুযায়ী, বাংলাদেশেও প্রতিবছর দেড় লাখের বেশি মানুষ স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হন।

এবার স্তন ক্যানসার প্রতিরোধে সাফল্যের দাবি করেছে গবেষণাভিত্তিক বায়োফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি অ্যাস্ট্রাজেনেকা। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, তাদের আবিষ্কৃত একটি ওষুধ স্তন ক্যানসারে প্রচলিত চিকিৎসা পদ্ধতির চেয়ে ৭২ শতাংশ বেশি কার্যকর। তাদের ওষুধ রোগীর শরীরে প্রয়োগ করলে মৃত্যুর ঝুঁকি এবং রোগটি ছড়িয়ে পড়া অনেকাংশেই কমে যায়।

ব্রিটিশ ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিটি দাবি করছে, স্তন ক্যানসারের ক্ষেত্রে তাদের ‘এনহার্টু’ ট্রায়ালে যুগান্তকারী ফলাফল দেখা গেছে। রোগীকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য এটি শক্তিশালী প্রমাণ দিয়েছে।

গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে জানা গেছে, অ্যাস্ট্রাজেনেকার এই এনহার্টু ট্রায়ালে এশিয়া, ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা, ওশেনিয়া ও দক্ষিণ আমেরিকার অন্তত ৫০০ রোগীকে পর্যবেক্ষণের আওতায় আনা হয়।

ইনডিপেন্ডেন্টের খবর- ট্রায়ালে অংশ নেওয়া রোগীদের মধ্যে ৭৫ শতাংশের শরীরেই স্তন ক্যানসার আর বাড়তে পারেনি। সেই তুলনায় ট্রাস্টুজুমাব এমটানসাইন (টি-ডিএম১) নামে প্রচলিত চিকিৎসা পদ্ধতিতে মাত্র ৩৪.১ শতাংশের শরীরে এমন সাড়া মিলেছে। এনহার্টু পদ্ধতিতে রোগটি না বাড়ার সময়সীমা ৭.২ মাস থেকে ২৫.১ মাসে উন্নীত হয়েছে।

তিন ধাপের এই ট্রায়ালে অংশ নেওয়ার ১২ মাস পর অ্যাস্ট্রাজেনেকার এনহার্টু গ্রহণ করা রোগীদের মধ্যে ৯৪.১ শতাংশ বেঁচে ছিলেন। আর ট্রাস্টুজুমাব এমটানসাইন গ্রহণ করাদের মধ্যে বেঁচেছিলেন ৮৫.৯ শতাংশ।

ট্রায়ালের ফলাফলের কথা জানিয়ে অ্যাস্ট্রাজেনেকার অঙ্কোলজি বিভাগের নির্বাহী উপপ্রধান সুসান গ্যালব্রেইথ বলেছেন, ‘এই ফল যুগান্তকারী।’

শেয়ার করুন