ব্যাংকে পতন, বিমায় উত্থান

ব্যাংকে পতন, বিমায় উত্থান

বিমা খাতের কোম্পানির শেয়ারদর বাড়লেও কমেছে ব্যাংকের শেয়ারদর। ছবি: সাইফুল ইসলাম

চার মাস ধরে বিমা খাতের প্রতি বিনিয়োগকারীদের যে আগ্রহ তৈরি হয়েছিল, তা এখনও প্রমাণ দিচ্ছে পুঁজিবাজারে। ঈদের ছুটির আগে দুদিন ধারাবাহিকভাবে কমেছিল বিমা খাতের শেয়ারের দর। ঈদের ছুটি শেষে লেনদেন শুরু হওয়ার পরও পতন ছিল বিমা খাতের। কিন্তু সেই পতন দীর্ঘ হয়নি। আবারও দর বৃদ্ধিতে ঘুরে দাঁড়িয়ে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের জানান দিল এ খাত।

ঘুরেফিরে চমক শুধু বিমা খাতে। ঈদের ছু্টির পর প্রথম লেনদেনে এ খাতের পতন দেখা গেলেও এখন শুধুই উত্থান। আগ্রহের খাত হিসেবে ব্যাংকের শেয়ারের দর কয়েক দিন বাড়লেও তা টেকেনি।

তবে এ খাতের দর বৃদ্ধিতে এখনও এগিয়ে দেড় মাস আগে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়া এনআরবিসি ব্যাংক। রোববার লেনদেনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত হল্ট্রেড ছিল ব্যাংকটির শেয়ারের দর।

ব্যাংকের পাশাপাশি শেয়ারের দরপতন হয়েছে বস্ত্র খাত, নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান আর মিউচ্যুয়াল ফান্ডের।

রোববার লেনদেন শেষে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো কমেছে সূচক। আগের দিনের তুলনায় কমেছে লেনদেন।

বিমা খাতের সিংহভাগ কোম্পানি এরই মধ্যে তাদের লভ্যাংশ ঘোষণাসহ প্রথম প্রান্তিক প্রকাশ করেছে। যেখানে বিমা কোম্পানিগুলোর শেয়ার দরের যে উল্লম্ফন, সে অনুপাতে আয় বাড়েনি।

গত জানুয়ারি থেকে মূলত বিমা শেয়ারের দর বাড়ছে ক্রমাগত। সে সময় আলোচনায় আসে পদ্মা সেতু, মেট্রোরেলের মতো বড় বড় প্রকল্প বিমার আওতায় আসছে। এগুলোর ঝুঁকি একেবারেই কম; কোম্পানির লাভ হবে ভালো।

পরে জানানো হয়, মেট্রোরেল সরকারি সাধারণ বিমা করপোরেশনের আওতায় থাকবে। এটি পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত নয়।

আবার ১০ বছর আগে করা একটি বিধান সামনে আনা হয় তখনই। যেখানে বলা ছিল, কোম্পানির পরিশোধিত মূলধনের ৬০ শতাংশ থাকতে হবে উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে। এমনটি হলে বিমা কোম্পানির শেয়ারমালিকদের নিজেদেরই সেই কোম্পানির শেয়ার কিনতে হবে।

এক যুগ আগের এমন একটি নিদের্শনাকে নতুন করে আবারও পাঠানো হয় নন-লাইফ ও লাইফ বিমা কোম্পানিগুলোর কাছে। সেখান থেকেই শুরু হয় বিমার এই উত্থান। যা এখনও থেমে থেমে অব্যাহত আছে।

বাজার বিশ্লেষকরা শুরু থেকেই বলে আসাছেন, বিমা খাতের শেয়ারের যে উত্থান, তাতে কারসাজি আছে। কিন্তু বরাবরের মতো এ খাতের শেয়ারের কোনো কারসাজি হচ্ছে না বলে জানিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি।

তারা বলছে, নিয়ম অনুযায়ীই এ খাতের লেনদেন হচ্ছে। কোনো অনিয়ম হলেই তা সার্ভিল্যান্সে ধরা পড়বে। সে রকম কিছু পাওয়া গেলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিমায় বিনিয়োগে আগ্রহী বিনিয়োগকারীরা

চার মাস ধরে বিমা খাতের প্রতি বিনিয়োগকারীদের যে আগ্রহ তৈরি হয়েছিল, তা এখনও প্রমাণ দিচ্ছে পুঁজিবাজারে। ঈদের ছুটির আগে দুদিন ধারাবাহিকভাবে কমেছিল বিমা খাতের শেয়ারের দর। ঈদের ছুটি শেষে লেনদেন শুরু হওয়ার পরও পতন ছিল বিমা খাতের।

কিন্তু সেই পতন দীর্ঘ হয়নি। আবারও দর বাড়ায় ঘুরে দাঁড়িয়ে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের জানান দিল এ খাত।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ৫০টি বিমা কোম্পানির মধ্যে ২৩টি কোম্পানি লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে, তাদের মধ্যে ১৮টির আয় বেড়েছে, পাঁচটির কমেছে।

প্রথম প্রান্তিকে আয় বেড়েছে ১৪টির, কমেছে তিনটির, একটির আয় গত বছরের প্রথম প্রান্তিকের সমান।

লভ্যাংশ ঘোষণা করা কোম্পানির মধ্যে এখনও প্রথম প্রান্তিক ঘোষণা করেনি পাঁচটি। আর চলতি বছরের ঘোষিত লভ্যাংশও সেভাবে আকর্ষণীয় ছিল না।

গত চার মাস আগে বিমা খাতের উন্নয়নের নামে বিভিন্ন বিষয়গুলো সামনে এনে এ খাতের শেয়ারের দর বাড়ানো হলেও তার কোনো প্রভাব নেই কোম্পানিগুলোর লভ্যাংশ আর আয়ে।

এ খাতের আবারও দর বৃদ্ধি প্রসঙ্গে পুঁজিবাজার বিশ্লেষক আবু আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মার্জিন ঋণের রেশিও বাড়ানো হয়েছে, বিনিয়োগকারীরা এখন মার্জিন ঋণ নিয়ে ঢালাওভাবে বিমায় বিনিয়োগ করছেন।’

তিনি বলেন, বিমা খাতের যে আয় তা কোথা থেকে হয়, কীভাবে হয় তার সম্পর্কে বিনিয়োগকারীদের কোনো ধারণাই নেই। বরং তারা স্বল্প সময়ে লাভ পাচ্ছে, এ জন্য এ খাতের বিনিয়োগ করছে। ব্যাংকের শেয়ারের দরও কিছুদিন বেড়েছিল, তবে তা বিমার শেয়ারের মতো এতটা অতিমূল্যায়িত হয়নি।

রোববার মূল্য বৃদ্ধিতে এগিয়ে ছিল প্যারামউন্ট ইন্স্যুরেন্স, যার শেয়ার দর ৮১ টাকা ১০ পয়সা থেকে ৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ৮৯ দশমিক ২০ পয়সা।

পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর ১০৯ টাকা ৪০ পয়সা থেকে ৮ দশমিক ৯৫ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ১১৯ দশমিক ২০ পয়সা।

প্রগতি ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর বেড়েছে ৮ দশমিক ৩৩ শতাংশ। স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর বেড়েছে ৭ দশমিক ৯৮ শতাংশ। বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর বেড়েছে ৭ দশমিক ৭৭ শতাংশ। ঢাকা ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার দর বেড়েছে ৬ দশমিক ৬২ শতাংশ।

এ দিন পুঁজিবাজারে লেনদেন হওয়া ৫০টি বিমা কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ৩৭টির; দর পাল্টায়নি পাঁচটির; দর কমেছে আটটির।

ব্যাংকের পতনে এগিয়ে এনআরবিসি

নতুন তালিকাভুক্ত কোম্পানির শেয়ার দর বাড়বে প্রথম দুদিন ৫০ শতাংশ করে, তারপর ১০ শতাংশ করে। এমন নিয়মের মধ্যে এক যুগ পরে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় এনআরবিসি ব্যাংক। ১০ টাকার শেয়ারের দর প্রথম দুদিন বৃদ্ধি তো দূরে থাক, তৃতীয় দিনেই নেমে আসে প্রায় ১০ টাকার কাছাকাছি।

যদিও এখন নতুন কোম্পানির দর বাড়ার এই নিয়ম পরিবর্তন করে প্রথম দিন থেকেই ১০ শতাংশ করে বাড়বে, এমন নির্দেশনা দিয়েছে বিএসইসি।

সেই ব্যাংকের শেয়ার দর এখন বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। পুরো ব্যাংক খাতের শেয়ারের দর পতন হলেও উত্থানে থাকে এই ব্যাংকের শেয়ার দর।

এনআরবিসি ব্যাংকটির শেয়ার দরের উত্থান শুরু হয়েছে মূলত ২৭ এপ্রিল থেকে, যখন শেয়ারপ্রতি দর ছিল ১১ টাকা ৬০ পয়সা। এর পর থেকে থেমে থেমে হয় দিনের সর্বোচ্চ না হয় কাছাকাছি দরে লেনদেন হয়েছে ব্যাংকটির।

রোববার ব্যাংকটির প্রতিটি শেয়ারের দর দিনের সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ বেড়ে লেনদেন হয়েছে ৩০ টাকা ৮০ পয়সায়। এই সময়ে মাত্র ১৭ কার্যদিবসে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি দর বেড়েছে ১৬৫ শতাংশ।

এরই মধ্যে ব্যাংকটি তার লভ্যাংশ ঘোষণা-পরবর্তী প্রথম প্রান্তিক প্রকাশ করেছে। সেখানে শেয়ার দরের এমন উত্থানের সঙ্গে ব্যাংকটির আয়ের কোনো সংগতি নেই।

গত জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত ব্যাংকটি শেয়ারপ্রতি আয় করেছে ৪৪ পয়সা। এটি গত বছরের একই সময়ের ‍তুলনায় দেড় গুণ সত্য, তবে এর চেয়ে অনেক বেশি আয় করা ব্যাংকের শেয়ার দর এই ব্যাংকের অর্ধেকের কাছাকাছি।

রোববার লেনদেন হওয়া ব্যাংকের মধ্যে দর বেড়েছে পাঁচটির; দর পাল্টায়নি ২টির এবং ৩১টির তালিকাভুক্ত ব্যাংকের মধ্যে এদিন দর কমেছে ২৪টির।

সূচক ও লেনদেন

রোববার ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ২৫ দশমিক ৪৭ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৭৮৭ পয়েন্টে। শরিয়াহভিত্তিক কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসইএস ৯ দশমিক ১৬ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ২৬৩ পয়েন্টে। বাছাই করা কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএস-৩০ সূচক কমেছে ১৬ পয়েন্ট।

লেনদেন হয়েছে মোট ১ হাজার ৪৮৫ কোটি টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয়েছিল ১ হাজার ৬৫২ কোটি টাকা। ফলে আগের কার্যদিবসের তুলনায় রোববার লেনদেন কমেছে ১৬৭ কোটি টাকা।

চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ৭৯ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৬ হাজার ৭৫৭ পয়েন্টে। লেনদেন হয়েছে মোট ৯১ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন:
প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের বন্ডে বিনিয়োগ করতেই হবে
মন্দাতেও সফল মিউচ্যুয়াল ফান্ড, ভালো লভ্যাংশের আভাস
এনআরবিসি উড়ছে, প্রাইমের পালেও হাওয়া
নয় দিন পর সংশোধনে লেনদেনে জোয়ার
চাঙা পুঁজিবাজারে উড়ছেই ব্যাংক, ঘুরল বিমাও

শেয়ার করুন

মন্তব্য