কালো টাকা সাদার সুযোগ ‘দুর্নীতিবাজের প্রণোদনা’

কালো টাকা সাদার সুযোগ ‘দুর্নীতিবাজের প্রণোদনা’

‘সাময়িকভাবে এমন সুযোগ থেকে সরকার কিছুটা রাজস্ব পেলেও ধীরে ধীরে তা বড় সংখ্যক করদাতাদের খেলাপি হতে উৎসাহিত করবে, যা দীর্ঘমেয়াদে রাজস্ব ক্ষতির মাত্রাকে বাড়িয়ে দেবে এবং কর খেলাপির নতুন এক সংস্কৃতির প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ করবে।’

অপ্রদর্শিত আয় বা কালো টাকা সাদা করার সুযোগকে ‍দুর্নীতিবাজদের জন্য করোনাকালীন সময়ে নতুন প্রণোদনা হিসেবে দেখছে দুর্নীতিবিরোধী আন্তর্জাতিক সংস্থার বাংলাদেশ শাখা টিআইবি।

‘দেশের অর্থনীতিতে যতদিন অপ্রদর্শিত অর্থ থাকবে, ততদিন তা ঘোষণার সুযোগ থাকবে...’ বলে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় সংস্থাটি বলেছে, ‘এমন সুবিধা সৎ ও বৈধ আয়ের ব্যক্তি করদাতাকে নিরুৎসাহিত করার মাধ্যমে কর ব্যবস্থায় খেলাপির সংস্কৃতি প্রাতিষ্ঠানিকীকরণের ঝুঁকি তৈরি করবে।’

দুর্নীতির মহোৎসবের হ্রাস টেনে ধরতে কালো টাকার মালিকদের সম্পদের উৎস অনুসন্ধানের মাধ্যমে কার্যকর জবাবদিহিমূলক পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বানও জানিয়েছে টিআইবি।

শনিবার সংস্থাটির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা জানানো হয়।

টিআইবি বলছে, ‘মাত্র ১০ ভাগ কর দিয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ থাকলে সৎ করদাতারা কেন সর্বোচ্চ ২৫ থেকে ৩০ ভাগ কর দেবেন?

‘সাময়িকভাবে এমন সুযোগ থেকে সরকার কিছুটা রাজস্ব পেলেও ধীরে ধীরে তা বড় সংখ্যক করদাতাদের খেলাপি হতে উৎসাহিত করবে, যা দীর্ঘমেয়াদে রাজস্ব ক্ষতির মাত্রাকে বাড়িয়ে দেবে এবং কর খেলাপির নতুন এক সংস্কৃতির প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ করবে।’

বাংলাদেশে প্রতি বাজেটেই অপ্রদর্শিত আয় ১০ শতাংশ কর দিয়ে কর ফাইলে নিয়ে আসার সুযোগ দেয়া হয়। সাধারণভাবে এই অপ্রদর্শিত আয়কে কালো টাকা বলা হয়।

প্রতি বছর যেমন কালো টাকারে সাদা করার সুযোগ দেয়া হয়, তেমনি এর সমালোচনাও করে থাকে টিআইবি।

কালো টাকা সাদার সুযোগ ‘দুর্নীতিবাজের প্রণোদনা’
টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান

টিআইবি বলছে, আয়ের উৎস নিয়ে প্রশ্ন করার সুযোগ না রাখায় দেশে দুর্নীতিসহায়ক একটি উদার পরিস্থিতি তৈরি হবে, যা সরকারের দুর্নীতিবিরোধী অবস্থানকে দুর্বল করার মাধ্যমে আইনের শাসন ও সুশাসন প্রতিষ্ঠার যে কোনো চেষ্টাকে চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলবে।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘চলতি বাজেটে অর্থের উৎস নিয়ে যে কোনো ধরনের প্রশ্ন করার বিধান উঠিয়ে দিয়ে বৈধ উপায়ে অর্জিত অপ্রদর্শিত অর্থ এবং অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জিত কালো টাকার মধ্যকার ফারাক একাকার করে দেয়া হয়েছে।’

অনির্দিষ্ট মেয়াদে এই সুযোগ রাখার পরিকল্পনা দেশের কর ব্যবস্থায় ন্যায় ও ন্যায্যতার প্রশ্নকে প্রকট করে তুলবে বলেও মনে করে টিআইবি। বলা হয়, ‘এ সুযোগ দুর্নীতিবাজদের জন্য করোনাকালীন সময়ে নতুন প্রণোদনা হিসেবে বিবেচিত হবে। তাই এমন অপরিণামদর্শী ও আত্মঘাতী পরিকল্পনা থেকে সরকার সরে আসবে সেটিই প্রত্যাশিত।’

টিআইবি বলছে, ‘চলতি অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে রেকর্ড ১৪ হাজার কোটি টাকার বেশি অর্থ বৈধ হবার খবরে নীত-নির্ধারক মহলে যে সন্তুষ্টির বাতাবরণ তৈরি হয়েছে, সেটি সরকারের দুর্নীতিবিরোধী অবস্থানের প্রতি এক রকম উপহাসই বলা চলে।

‘কেননা অতিমারির মাঝেও বিপুল অর্থ সাদা করার প্রবণতাই বলে দেয়, দেশে একটি দুর্নীতিসহায়ক ব্যবস্থা বিদ্যমান আছে। এটি যে কোনো পরিস্থিতিকেই নিজেদের স্বার্থ সিদ্ধির জন্য কাজে লাগাতে প্রস্তুত দুর্নীতিগ্রস্তরা।’

আরও পড়ুন:
আগামী বাজেটেও কালো টাকা সাদা করার সুযোগ
কালো টাকা সাদার সুযোগ স্বাস্থ্য ও শিক্ষায় দেয়া উচিত
কালো টাকা সাদার সুযোগ লাভের চেয়ে ক্ষতি বেশি
কালো টাকা সাদা করার সময়-সুযোগ কেন দীর্ঘ হবে?
টাকা সাদা হওয়ায় অর্থনীতিতে চাঞ্চল্য এসেছে: অর্থমন্ত্রী

শেয়ার করুন

মন্তব্য