খরচে লাগাম, ধীর হবে উন্নয়ন প্রকল্প

খরচে লাগাম, ধীর হবে উন্নয়ন প্রকল্প

দেশের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন প্রকল্প পদ্মা সেতুর কাজ চলছে জোরেশোরে। ফাইল ছবি

উন্নয়নকাজে টাকা খরচে কৃচ্ছ্রসাধনের আরেকটি উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। প্রকল্পের সরকারি অংশের ১৫ শতাংশ অর্থ রেখে বাকি ৮৫ শতাংশ খরচ করতে বলা হয়েছে।

করোনার সময় অর্থ ব্যয়ে লাগাম টানতে চাইছে সরকার। এ জন্য বিভিন্ন খাতের কম গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে খরচ কমানোর পাশাপাশি উন্নয়ন প্রকল্পের একটা অংশও সংরক্ষণ করতে বলা হয়েছে। এতে এডিপি থেকে প্রায় ১৯ হাজার কোটি টাকা অব্যয়িত থাকবে, যা খরচ করা যাবে না।

গত মার্চে অর্থ বিভাগের এক নির্দেশনায় বলা হয়, উন্নয়ন প্রকল্পের সরকারি অংশের ১৫ শতাংশ অব্যয়িত রেখে বাকি ৮৫ শতাংশ খরচ করা যাবে। এতে কোনো অনুমতির প্রয়োজন হবে না। তবে স্বাস্থ্য ও কৃষি খাতের জন্য তা প্রযোজ্য হবে না। এর আগে উন্নয়ন ও অনুন্নয়ন খাতে গাড়ি কেনা স্থগিত করা হয় আগামী জুন পর্যন্ত।

ফেব্রুয়ারিতে কাটছাঁটের পর ২ লাখ ৯ হাজার ২৭২ কোটি টাকার সংশোধিত এডিপিতে সরকারি অংশ দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকা। এখন তাতে স্বাস্থ্য খাতের ৫ হাজার ৫৩১ কোটি টাকা এবং কৃষি খাতের ১ হাজার ৯৬৫ কোটি টাকা বাদ দিলে সরকারের অংশ দাঁড়ায় ১ লাখ ২৭ হাজার ১৪৭ কোটি টাকা। এ অংশ থেকে ১৫ শতাংশ সংরক্ষণ করা হলে তার পরিমাণ দাঁড়ায় ১৯ হাজার কোটি টাকার বেশি। এতে এডিপিতে কার্যত সরকারি অংশ দাঁড়াচ্ছে ১ লাখ ১৫ হাজার কোটি টাকার মতো। সংশোধিত এডিপিতে মোট প্রকল্প রয়েছে ১ হাজার ৯৪৩টি।

চলতি অর্থবছরের জন্য ২ লাখ ১৪ হাজার ৬১১ কোটি টাকার এডিপি প্রণয়ন করা হয়েছিল।

দেখা যায়, সাধারণত এডিপিতে বৈদেশিক সহায়তার অংশ কম খরচ হয়। সরকারি অংশ খরচে মন্ত্রণালয়গুলো বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে। এখন সরকারি অংশের অর্থ ব্যয়ে লাগাম পড়লে তা বছর শেষে উন্নয়ন বাজেট বাস্তবায়নে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এমনিতেই করোনার কারণে এডিপি বাস্তবায়ন বেশ পিছিয়ে রয়েছে।

এবারের সংশোধিত এডিপিতে সরকারি অংশের বাইরেও প্রকল্প সাহায্য ৬৩ হাজার কোটি টাকা এবং বিভিন্ন সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন রয়েছে ১১ হাজার ৬২৯ কোটি টাকা। তবে উন্নয়ন বাজেটের সার্বিক গতি সন্তোষজনক নয়। অর্থবছরের ৯ মাসে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ দেশীয় বা সরকারি অর্থ ৫৫ হাজার ৭৭৫ কোটি টাকা, প্রকল্প সাহায্য অংশে ২৯ হাজার ২৮৫ কোটি টাকা এবং সংস্থাগুলোর নিজস্ব অর্থ থেকে ২ হাজার ৪৬৫ কোটি টাকা খরচ হয়েছে। অর্থবছরের তিন প্রান্তিক পার হলেও এডিপির বাস্তবায়ন হয়েছে মাত্র ৪২ শতাংশ।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান নিউজবাংলাকে বলেন, অর্থ সংরক্ষণের এ বিষয়টি পুরোপুরি অর্থ মন্ত্রণালয়ের। তবে আমি নীতিগতভাবে মনে করি, কোথায় অর্থ দিতে হবে, কোথায় কাটতে হবে, তা যারা প্রজেক্ট চালায় তাদের বিচারবুদ্ধির ওপর ছেড়ে দেয়া উচিত। কিছু কিছু প্রকল্প আছে, যাদের আউটপুট ভালো, অগ্রগতি ভালো, বেশ গুরুত্বপূর্ণ, তাদের টাকা দেয়া উচিত। যেগুলা ভালো করছে না, খরচ করতে পারছে না বলে মনে হয়, তাদেরটা না হয় কেটে দিলাম। এটাই হওয়া উচিত।

তবে একদিক থেকে দেখলে এডিপির অর্থ ব্যয়ে সরকার আগের চেয়ে কিছুটা ছাড় দিয়েছে। এর আগে গত ডিসেম্বরে করোনাভাইরাস মহামারিতে কৃচ্ছ্রসাধন নীতিতে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) সরকারি অংশ থেকে ২৫ শতাংশ অর্থ আটকে রাখার বাধ্যবাধকতা আরোপ করেছিল অর্থ মন্ত্রণালয়। তখন সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি নীতিমালায় বলা হয়েছিল, দেশের সামষ্টিক অর্থনৈতিক অবস্থা বিবেচনায় মন্ত্রণালয়/বিভাগের মোট এডিপি বরাদ্দের জিওবি অংশের (নতুন প্রকল্পের জন্য সংরক্ষিত থোক ব্যতীত) ৭৫ শতাংশ ব্যয় করা যাবে। বাকি ২৫ শতাংশ সংরক্ষিত রাখতে হবে। ২৫ শতাংশ সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রকল্পের বরাদ্দের বিপরীতে ব্যয় কমিয়ে সমন্বয় করতে হবে। তবে বৈদেশিক সাহায্যের সম্পূর্ণ অর্থ ব্যয় করা যাবে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ও কৃষি মন্ত্রণালয় এর আওতাভুক্ত হবে না।

সে হিসাবে জিওবির প্রায় ৩৪ হাজার কোটি টাকা খরচে মানা ছিল। তবে নতুন নির্দেশনায় খরচে বিধিনিষেধ কিছুটা নমনীয় করা হয়েছে। এতে উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ ত্বরান্বিত করতে ২৫ শতাংশের স্থলে ১৫ শতাংশ সংরক্ষণ করতে বলা হয়েছে। মূলত মন্ত্রণালয় এবং বিভাগগুলোর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে অর্থপ্রবাহ কিছুটা বাড়ানো হয়েছে।

তবে, সরকারি অংশ খরচের বিধিনিষেধ আরোপ বছর শেষে এডিপি বাস্তবায়নকে পিছিয়ে দেবে বলেই মনে করেন পরিকল্পনা কমিশনের কর্মকর্তারা। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, অর্থ মন্ত্রণালয় সংশোধিত এডিপি পাসের আগেই খরচ কমিয়ে আনতে বলেছিল। কিন্তু সংশোধিত এডিপিতে তার প্রভাব দেখা যায়নি। বরং জিওবি অংশ অপরিবর্তিত রেখে বৈদেশিক সহায়তার অংশ কমানো হয়েছে। আগে থেকেই জিওবি অংশে বিধিনিষেধের আলোকে তা সংশোধিত এডিপিতে কমিয়ে আনা হলে মন্ত্রণালয়গুলোর সামনে নিজেদের সামর্থ্য ও হাতে থাকা অর্থ বিচেনায় নিয়ে উন্নয়ন প্রকল্পে খরচের সংস্থান করা সহজ হতো। এতে প্রকল্পের গতিও ভালো থাকত।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্র জানিয়েছে, চলতি অর্থবছরের সংশোধিত এডিপিতে অর্থ বরাদ্দে কোভিড-১৯ মোকাবিলায় চলমান প্রকল্পগুলোকে বিশেষ অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। নতুন প্রকল্প অনুমোদনের ক্ষেত্রেও সরাসরি করোনা মোকাবেলা ও করোনার কাজেও গতি আসত। আঘাত থেকে অর্থনীতিকে পুনরুদ্ধারের উদ্দেশ্যে প্রস্তাবিত প্রকল্পগুলোকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি কৃষি, কৃষিভিত্তিক শিল্প, আইসিটি শিক্ষার উন্নয়ন, দারিদ্র্য কমানো এবং প্রকৃতিক দুর্যোগের ক্ষয়ক্ষতি কমানোর লক্ষ্যে নেয়া প্রকল্পগুলো পর্যাপ্ত অর্থ পেয়েছে। এমনকি বাস্তবায়নে ধীরগতি রয়েছে এমন প্রকল্পের বরাদ্দ কেটে নিয়ে দ্রুতগতির প্রকল্পে বাড়তি বরাদ্দও নিশ্চিত করা হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেন, করোনার কারণে এ বছর সরকার কম গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পে খরচ নিরুৎসাহিত করছে। সেটা এক দিক দিয়ে ভালো। কিন্তু এ বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশনা থাকতে হবে। আগেভাগেই ঠিক করে দিতে হবে মন্ত্রণালয়ের হাতে কতো টাকা আছে আর কত টাকা খরচ করতে পারবে তারা।

যদি তাদের খরচের লাগামই টানতে হয় তাহলে সংশোধিত উন্নয়ন বাজেটে তা কমিয়ে ধরা হয়নি কেন? সংশোধিত এডিপিতে মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ নির্দিষ্ট করে দিয়ে তাদের হাত খুলে দেয়া এবং আবার তাতে লাগাম টানায় খরচের সীমা নিয়ে সংশয় তৈরি হবে। একই সঙ্গে কর্মপরিকল্পনায়ও সমস্যা হতে পারে।

তিনি আরও বলেন, এখনই এডিপির বাস্তবায়নে যে অবস্থা, তাতে বরাদ্দে লাগাম টেনে ধরলেও কী হবে। অনেক মন্ত্রণালয়ই বছর শেষে পুরো অর্থ খরচ করতে পারবে না। তবে যাদের কাজের গতি ভালো, তাদের জন্য একটু সমস্যা হবে।

এতে অবশ্য মন্ত্রণালয়গুলোর জন্য সুবিধা। বছর শেষে কাজ মোটামুটি শেষ করতে পারলে বলবে, আমাদের যা সাধ্য ছিল তাই খরচ করেছি। যদি বছর শেষে কাঙ্ক্ষিত বাস্তবায়ন হয়, তাহলে মন্ত্রণালয়গুলো বলবে, আমাদের খরচের সীমা কম ছিল তাই কাজ করতে পারিনি। তাদের একটু অজুহাত দেখানোর সুযোগ হল।

অর্থ বিভাগের শীর্ষস্থানীয় এক কর্মকর্তা জানান, করোনার কারণে বছরের মাঝামাঝিতে অর্থ ব্যয়ে কিছুটা লাগাম টানা হয়েছিল। কিন্তু বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের চাহিদার কারণে এডিপির অংক কমিয়ে দেয়া হয়নি। মার্চে নতুন নির্দেশনা দিয়ে এডিপির আরো ১০ ভাগ অর্থ ব্যয় করার স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত যে অবস্থা, ৮৫ শতাংশ অর্থই ব্যয় হয় কিনা সেটাও দেখার বিষয়। কারও বিশেষ প্রয়োজন হলে তাদের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ের বিশেষ বিবেচনাও থাকবে।

আরও পড়ুন:
অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ খুঁজবে এডিবি সম্মেলন
আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা
বাণিজ্য উন্নয়নে বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডলার দেবে এডিবি
টিকা: উন্নয়নশীল দেশকে ৯০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি
ক্ষুদ্রশিল্পে ৪২৫ কোটি টাকা দেবে এডিবি

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শিক্ষিকাকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’, কারাগারে ২

শিক্ষিকাকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’, কারাগারে ২

পুলিশ জানায়, সোমবার এক শিক্ষিকা হেঁটে নিজ কর্মস্থলে যাওয়ার পথে দুজন পথরোধ করে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে পালিয়ে যান। বিষয়টি জানাজানি হলে বুধবার রাতে এলাকাবাসী ওই দুজনকে আটক করে বোচাগঞ্জ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

দিনাজপুরের বোচাগঞ্জে এক শিক্ষিকাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে মামলায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে তাদেরকে দিনাজপুরের আমলি আদালতে (বোচাগঞ্জ) নেয় পুলিশ। আসামিরা ওই শিক্ষিকাকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে যান বলে সন্ধ্যায় আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। পরে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

বোচাগঞ্জ থানার ওসি মাহমুদুল হাসান নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ওসি জানান, শিক্ষিকার করা মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার করে আদালতে নেয়া হয়। সেখানে আসামিরা শিক্ষিকাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। তবে ধর্ষণের কথা তারা স্বীকার করেননি, মেডিক্যাল রিপোর্ট এলে বিষয়টি পরিষ্কার হবে।

সাজা পাওয়া আসামিরা হলেন উপজেলার সুলতানপুর আবাসনের মামুনুর রশিদ ও সেনিহারী গ্রামের সুজন আলী। তাদের বয়স ২৫-২৬ বছর।

পুলিশ জানায়, সোমবার এক শিক্ষিকা হেঁটে নিজ কর্মস্থলে যাওয়ার পথে ওই দুজন পথরোধ করে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে পালিয়ে যান। বিষয়টি জানাজানি হলে বুধবার রাতে এলাকাবাসী ওই দুজনকে আটক করে বোচাগঞ্জ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

ওই শিক্ষিকা বুধবার রাতে দুজনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

ওসি মাহমুদুল হাসান জানান, ওই মামলায় আসামিদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে দুপুরে আদালতে নেয়া হয়। সন্ধ্যায় তারা নিজেদের দোষ স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মাহবুবুর রহমান সরকার জানান, ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ওই নারীকে বিকেলে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ খুঁজবে এডিবি সম্মেলন
আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা
বাণিজ্য উন্নয়নে বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডলার দেবে এডিবি
টিকা: উন্নয়নশীল দেশকে ৯০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি
ক্ষুদ্রশিল্পে ৪২৫ কোটি টাকা দেবে এডিবি

শেয়ার করুন

শিক্ষার্থীকে মারধর, তিন আনসার সদস্য বরখাস্ত

শিক্ষার্থীকে মারধর, তিন আনসার সদস্য বরখাস্ত

মারধরের শিকার জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর ঐশ্বর্য সরকার। ছবি: নিউজবাংলা

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ জুলহাস উদ্দিন বলেন, ‘ঐশ্বর্য তীব্র মাথাব্যথা নিয়ে হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসেন। টিকিট সংগ্রহের লাইনে দাঁড়ানো নিয়ে এক ব্যক্তির সঙ্গে তার বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে আনসার সদস্য মাসুদ ও শরীফ ছুটে আসেন এবং তারাও তর্কে জড়িয়ে পড়েন। পরে অসুস্থ শিক্ষার্থীকে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে গিয়ে লাঠি দিয়ে মারধর করেন তারা।’

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা এক শিক্ষার্থীকে মারধরের ঘটনায় তিন সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী। তিন সদস্যের তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের টিকিট কাউন্টারের সামনে দুপুর ১২টার দিকে মারধরের ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার শিক্ষার্থীর নাম ঐশ্বর্য সরকার। তিনি জাতীয় কবি কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

বরখাস্ত হওয়া তিন আনসার সদস্য হলেন মো. মাসুদ, মো. শরীফ ও মো. শফিকুল। তারা ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ছিলেন।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এর আগে দুপুর ২টার দিকে মাসুদ ও শরীফকে মেডিক্যাল কলেজ থেকে সরিয়ে দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পরে তাদের ময়মনসিংহের আনসার ক্যাম্পে পাঠানো হয়।

এসব তথ্য নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ জুলহাস উদ্দিন।

মারধরের শিকার শিক্ষার্থী ঐশ্বর্য সরকারের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, ‘ঐশ্বর্য তীব্র মাথাব্যথা নিয়ে হাসপাতালের বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসেন। টিকিট সংগ্রহের লাইনে দাঁড়ানো নিয়ে এক ব্যক্তির সঙ্গে তার বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে আনসার সদস্য মাসুদ ও শরীফ ছুটে আসেন এবং তারাও তর্কে জড়িয়ে পড়েন। পরে অসুস্থ শিক্ষার্থীকে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে গিয়ে লাঠি দিয়ে মারধর করেন তারা।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ঘটনাটি জানতে পেরে দ্রুত ওই শিক্ষার্থীকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করি এবং ঘটনাটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানাই। ঐশ্বর্য তার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আসাদুজ্জামান নিউটনকে জানালে তিনি হাসপাতালে আসেন। তাকে আমরা হাসপাতালের উপপরিচালকের কাছে নিয়ে যাই।’

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক ওয়ায়েজ উদ্দিন ফরাজি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দুপুর দুইটার দিকে হাসপাতালের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে শিক্ষার্থীকে মারধরের সত্যতা পাওয়া যায়। তখনই দুই আনসার সদস্যকে ময়মনসিংহের আনসার ক্যাম্পে পাঠানো হয়েছে।

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী ময়মনসিংহ রেঞ্জের উপমহাপরিচালক নূরে আলম সিদ্দিকী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আনসার সদস্য মাসুদ ও শরীফের সঙ্গে শফিকুলকেও সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। কারণ ঘটনার সময় শফিকুল ওই দুই আনসার সদস্যকে না ফিরিয়ে পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তাদেরকে আনসার ক্যাম্প থেকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটির প্রধান সহকারী জেলা কমান্ডেন্ট সোহাগ পারভেজ। অন্য সদস্যরা হলেন জেলা সার্কেল অ্যাডজুটেন্ট ওসমান গণি ও উপজেলা আনসার কমান্ডার রমজান মিয়া। আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে তারা তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবেন।’

প্রতিবেদন পেলে ওই তিন আনসার সদস্যকে চাকরিচ্যুতসহ কালোতালিকাভুক্ত করা হবে বলেও জানান নূরে আলম।

আরও পড়ুন:
অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ খুঁজবে এডিবি সম্মেলন
আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা
বাণিজ্য উন্নয়নে বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডলার দেবে এডিবি
টিকা: উন্নয়নশীল দেশকে ৯০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি
ক্ষুদ্রশিল্পে ৪২৫ কোটি টাকা দেবে এডিবি

শেয়ার করুন

চাঁদপুরে সহিংসতা: আদালতে জামায়াত নেতার স্বীকারোক্তি

চাঁদপুরে সহিংসতা: আদালতে জামায়াত নেতার স্বীকারোক্তি

তৌহিদী জনতার ব্যানারে মিছিল নিয়ে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার বিভিন্ন মণ্ডপে হামলা চালানো হয়। ফাইল ছবি

হাজীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশিদ বলেন, ‘ঘটনা সময়ের বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজে যাচাই-বাছাই করে এবং গ্রেপ্তারদের জিজ্ঞাসাবাদে আরও অনেক অভিযুক্তের নাম পাওয়া গেছে। আমাদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে মন্দিরে হামলা ও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন জামায়াতে ইসলামের নেতা ও হাজীগঞ্জ উপজেলা ছাত্র শিবিরের সাবেক সভাপতি মো. কামাল উদ্দিন আব্বাসী।

চাঁদপুর বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক কামাল উদ্দিনের কাছে বৃহস্পতিবার বিকেলে জবানবন্দি দেন তিনি। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশ সুপার (এসপি) মিলন মাহমুদ।

এর আগে বুধবার রাতে কামালকে হাজীগঞ্জ থেকে আটকের পর পুলিশের মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

এসপি মিলন মাহমুদ নিউজবাংলাকে জানান, হাজীগঞ্জে পূজা মণ্ডপে ভাঙচুর ও পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় ১০টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ দুটি মামলা করেছে। বাকি আটটি মামলা করেছে ক্ষতিগ্রস্ত পূজামণ্ডপ কর্তৃপক্ষ। এসব মামলায় এজারনামীয় ৭ জনসহ আসামি করা হয়েছে অজ্ঞাতপরিচয় প্রায় পাঁচ হাজার জনকে।

ওই ঘটনায় বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মোট ২৯ জনকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উসকানিমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এসপি আরও জানান, ঘটনার সময় বিভিন্ন স্থানে থাকা ক্লোজ সার্কিট টেলিভিশন (সিসিটিভি) ক্যামেরার ফুটেজ পর্যালোচনা করে জড়িতদের গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

হাজীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুনুর রশিদ বলেন, ‘ঘটনা সময়ের বিভিন্ন ভিডিও ফুটেজে যাচাই-বাছাই করে এবং গ্রেপ্তারদের জিজ্ঞাসাবাদে আরও অনেক অভিযুক্তের নাম পাওয়া গেছে। আমাদের গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’

গত ১৩ অক্টোবর রাত সাড়ে ৮টার দিকে কুমিল্লার ঘটনায় তৌহিদী জনতার ব্যানারে হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার একটি মিছিল বের করা হয়। সেই মিছিল থেকে মন্দিরে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে পুলিশের সঙ্গে মিছিলকারীদের সংঘর্ষ হয়।

ওই সময় হাজীগঞ্জ পৌর এলাকার লক্ষ্মী নারায়ণ জিউর আখড়া (ত্রিনয়নী), দি বিবেকানন্দ বিদ্যাপীঠ মন্দির, পৌর মহাশ্মশান, জমিদার বাড়িসহ কয়েকটি পূজা মণ্ডপে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি চালালে পাঁচজন নিহত হন।

আরও পড়ুন:
অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ খুঁজবে এডিবি সম্মেলন
আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা
বাণিজ্য উন্নয়নে বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডলার দেবে এডিবি
টিকা: উন্নয়নশীল দেশকে ৯০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি
ক্ষুদ্রশিল্পে ৪২৫ কোটি টাকা দেবে এডিবি

শেয়ার করুন

যুবলীগের চিঠি সংকলন ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ প্রকাশ

যুবলীগের চিঠি সংকলন ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ প্রকাশ

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ বইয়ের প্রচ্ছদ।

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ চিঠি সংকলন গ্রন্থের সম্পাদক ও প্রকাশক যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও নির্বাহী সম্পাদক যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল। গ্রন্থটির মুখবন্ধ লিখেছেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম ও প্রচ্ছদ করেছেন ইন্দ্রনীল চট্টোপাধ্যায়।

বঙ্গবন্ধুর উদ্দেশে লেখা প্রতীকী চিঠি নিয়ে গ্রন্থ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের সম্পাদনায় রচিত গ্রন্থটির নাম রাখা হয়েছে ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’।

১৭ অক্টোবর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। তারই অংশ ছিল এই চিঠি লেখা কর্মসূচি। সারাদেশ থেকে আসা শতাধিক চিঠি থেকে বাছাইকৃত চিঠি নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে গ্রন্থটি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে ১৭ অক্টোবর আইইবি মিলনায়তনে যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আশ্রয় কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের মাননীয় চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন এমপি, সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি, বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান এমপি, যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত নেতারা ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন।

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ চিঠি সংকলন গ্রন্থের সম্পাদক ও প্রকাশক যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও নির্বাহী সম্পাদক যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল। গ্রন্থটির মুখবন্ধ লিখেছেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম ও প্রচ্ছদ করেছেন ইন্দ্রনীল চট্টোপাধ্যায়।

সম্পাদনা সহযোগী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. রফিকুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম মিল্টন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিপ্লব মোস্তাফিজ, উপ গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেখ নবীরুজ্জামান বাবু এবং উপ প্রচার সম্পাদক আদিত্য নন্দী।

গ্রন্থটির সম্পাদক শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে প্রজন্মের ভাবনা, আবেগ, ভালোবাসা প্রকাশিত হোক- এমন ইতিবাচক উদ্দেশে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ আয়োজন করে বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রতীকী চিঠি লেখা কর্মসূচি। সারাদেশ থেকে প্রাপ্ত বঙ্গবন্ধুকে লেখা চিঠিগুলো থেকে বাছাইকৃত চিঠি নিয়ে প্রকাশিত হলো চিঠি সংকলন গ্রন্থ ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’।’

প্রিয় বঙ্গবন্ধু গ্রন্থটি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও শাহাবাগের পাঠক সমাবেশে পাওয়া যাবেও বলে জানান তিনি। এর শুভেচ্ছা মূল্য ধরা হয়েছে ৩২০ টাকা।

আরও পড়ুন:
অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ খুঁজবে এডিবি সম্মেলন
আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা
বাণিজ্য উন্নয়নে বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডলার দেবে এডিবি
টিকা: উন্নয়নশীল দেশকে ৯০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি
ক্ষুদ্রশিল্পে ৪২৫ কোটি টাকা দেবে এডিবি

শেয়ার করুন

বসতবাড়িতে গোখরার ৮ বাচ্চা, বনে অবমুক্ত 

বসতবাড়িতে গোখরার ৮ বাচ্চা, বনে অবমুক্ত 

উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের সরকার হাট এলাকার এক ইউপি সদস্যের বাড়ি থেকে বুধবার রাতে সাপের বাচ্চাগুলো উদ্ধার করা হয় বলে জানান বন কর্মকর্তা মো. ফজলুল কাদের চৌধুরী।

চট্টগ্রামের হাটহাজারীর একটি বসতবাড়ি থেকে উদ্ধার গোখরা সাপের ৮টি বাচ্চাকে অবমুক্ত করেছে বন বিভাগ।

উপজেলার পশ্চিমে পাহাড়ি বনে বৃহস্পতিবার দুপুর দুইটার দিকে বাচ্চাগুলোকে অবমুক্ত করা হয়।

উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের সরকার হাট এলাকার এক ইউপি সদস্যের বাড়ি থেকে বুধবার রাতে সাপের বাচ্চাগুলোকে উদ্ধার করা হয় বলে জানান বন কর্মকর্তা মো. ফজলুল কাদের চৌধুরী।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘বুধবার রাতে হাটহাজারীর সরকার হাটের বালুরটাল নামক এলাকার একটি বাসা থেকে গোখরা সাপের বাচ্চাগুলো উদ্ধার করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে হাটহাজারী পৌরসভার পশ্চিমে বন বিভাগের সংরক্ষিত বনে বাচ্চাগুলো অবমুক্ত করা হয়।’

আরও পড়ুন:
অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ খুঁজবে এডিবি সম্মেলন
আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা
বাণিজ্য উন্নয়নে বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডলার দেবে এডিবি
টিকা: উন্নয়নশীল দেশকে ৯০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি
ক্ষুদ্রশিল্পে ৪২৫ কোটি টাকা দেবে এডিবি

শেয়ার করুন

আয় বাড়াল ইসলামী ব্যাংকও

আয় বাড়াল ইসলামী ব্যাংকও

গত বছর করোনার বছরে আগের বছরের চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এবারও জুন পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত আয়ে চমক দেখায়। দ্বিগুণ, তিন গুণ এমনকি তার চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এখন তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ইসলামী ব্যাংকও আগের বছরের চেয়ে চলতি বছর বেশি আয় করতে পারছে।

গত জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নয় মাসে কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি আয় করতে পেরেছে ২ টাকা ৬৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে আয় ছিল (ইপিএস) ২ টাকা ৩০পয়সা। আয় বেড়েছে ৩৭ পয়সা বা ১৬ শতাংশ।

এর আগে এনসিসি ব্যাংকের আর্থিক প্রতিবেদনেও আয় বাড়ার বিষয়টি উঠে আসে। এই ব্যাংকটি চলতি বছর তিন প্রান্তিক মিলিয়ে আগের বছর একই সময়ের তুলনায় ২৩ শতাংশ বেশি আয় করেছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলো নিয়ে নানা রকম আলোচনা থাকলেও বেশিরভাগ কোম্পানির আয় এবং লভ্যাংশ প্রতি বছরই চমকপ্রদ।

গত বছর করোনার বছরে আগের বছরের চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এবারও জুন পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত আয়ে চমক দেখায়। দ্বিগুণ, তিন গুণ এমনকি তার চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এখন তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করছে।

ইসলামী ব্যাংক জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন মাসে শেয়ার প্রতি আয় করেছে ৫৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে এই আয় ছিল ৩৬ পয়সা।

আয়ের পাশাপাশি কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্যও বাড়ছে। ৩০ সেপ্টেম্বর শেয়ার প্রতি সম্পদ হয়েছে ৪০ টাকা ৫৯ পয়সা। গত ৩০ ডিসেম্বরে এই সম্পদ ছিল ৩৮ টাকা ৮৯ পয়সা।

কোম্পানিটির শেয়ারদর বর্তমানে তার সম্পদের চেয়ে কম। আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের দিন ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩০ টাকায়।

বেসরকারি ব্যাংকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আমানত ও ঋণদানকারী এই ব্যাংকটির শেয়ার মূল্য গত এক বছর ধরেই স্থিতিশীল। এই সময়ে শেয়ারের সর্বনিম্ন মূল্য ছিল ২৫ টাকা ৪০ পয়সা, আর সর্বোচ্চ মূল্য ছিল ৩২ টাকা।

কোম্পানিটি প্রতি বছরই বেশ ভালো আয় করলেও লভ্যাংশের ইতিহাস খুব একটি ভালো নয়। ২০১৬ সাল থেকে টানা ৫ বছর শেয়ার প্রতি ১ টাকা করে লভ্যাংশ পেয়েছেন বিনিয়োগকারীরা।

আরও পড়ুন:
অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ খুঁজবে এডিবি সম্মেলন
আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা
বাণিজ্য উন্নয়নে বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডলার দেবে এডিবি
টিকা: উন্নয়নশীল দেশকে ৯০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি
ক্ষুদ্রশিল্পে ৪২৫ কোটি টাকা দেবে এডিবি

শেয়ার করুন

মণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবাল কক্সবাজারে গ্রেপ্তার

মণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবাল কক্সবাজারে গ্রেপ্তার

মসজিদ থেকে কোরআন নিয়ে মণ্ডপে রাখায় প্রধান অভিযুক্ত ইকবাল। ছবি: নিউজবাংলা

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) রফিকুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা মোটামুটি নিশ্চিত সঠিক ব্যক্তিকেই ধরেছি। তাকে কক্সবাজারের সুগন্ধা বিচ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নিজ নাম ইকবাল বলে জানিয়েছেন। কুমিল্লা থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।’ 

কুমিল্লার নানুয়ার দিঘির পাড়ের অস্থায়ী পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ রাখার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত ইকবাল হোসেনকে কক্সবাজার থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) আনোয়ার হোসেন বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ৩৫ মিনিটে নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘কক্সবাজারে আটক ইকবালই কুমিল্লার ইকবাল।’

এর আগে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান রাত সাড়ে ১০টার দিকে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা কক্সবাজার শহর থেকে ইকবাল নামে একজনকে গ্রেপ্তার করেছি। সেই কুমিল্লার ঘটনায় জড়িত ইকবাল কি না তা কুমিল্লা পুলিশ যাচাই করে কনফার্ম করবে। তাকে কুমিল্লায় পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।’

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) রফিকুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা মোটামুটি নিশ্চিত সঠিক ব্যক্তিকেই ধরেছি। তাকে কক্সবাজারের সুগন্ধা বিচ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নিজ নাম ইকবাল বলে জানিয়েছেন। কুমিল্লা থেকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।’

অন্যদিকে কুমিল্লার এসপি ফারুক আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ইকবালকে কক্সবাজার থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে আমাদের কাছে তথ্য এসেছে। বিষয়টি বিস্তারিতভাবে যাচাই করা হচ্ছে। তাকে কুমিল্লায় আনার পর পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

মণ্ডপে কোরআন রাখা ইকবাল কক্সবাজারে গ্রেপ্তার
কক্সবাজারের সুগন্ধা বিচ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার ইকবাল

কক্সবাজার থানা হেফাজতে থাকা ইকবালের ছবি সংগ্রহ করে তার মা আমেনা বেগমকে দেখিয়েছেন নিউজবাংলার কুমিল্লা প্রতিনিধি।

এই ছবি দেখে তিনি নিশ্চিত করেন ছবির ব্যক্তিই তার ছেলে ইকবাল হোসেন।

বিস্তারিত আসছে…

আরও পড়ুন:
অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের পথ খুঁজবে এডিবি সম্মেলন
আরও বেশি ঋণ পাবে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা
বাণিজ্য উন্নয়নে বাংলাদেশকে ৫ লাখ ডলার দেবে এডিবি
টিকা: উন্নয়নশীল দেশকে ৯০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি
ক্ষুদ্রশিল্পে ৪২৫ কোটি টাকা দেবে এডিবি

শেয়ার করুন