× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
বেসিক ব্যাংকে শুধুই দীর্ঘশ্বাস
hear-news
player
google_news print-icon

বেসিক ব্যাংকে শুধুই দীর্ঘশ্বাস

বেসিক-ব্যাংকে-শুধুই-দীর্ঘশ্বাস
লোকসানের কারণে ব্যয় কমানোর অংশ হিসেবে ২০১৯ সালের ১১ ডিসেম্বর সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর বেতন কমানোর সিদ্ধান্ত নেয় বেসিক ব্যাংক। সংকটাপন্ন ব্যাংকটিকে উদ্ধারে কোনো উদ্যোগ কাজে লাগেনি।

‘বেতন কি কখনও কমে?’- রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের বেসিক ব্যাংকের কর্মীদের বেতন কমিয়ে দেয়ার পর আক্ষেপের সুরে এমন মন্তব্য ছুঁড়ে দিয়েছেন এক কর্মকর্তা। বলেছেন, ‘অলাভজনক প্রতিষ্ঠানকে কীভাবে লাভে আনা যায় তার নানাবিধ পন্থা আছে, তাই বলে কি বেতন কমিয়ে তা করতে হবে?’

দুর্নীতির মাধ্যমে হাজার হাজার কোটি টাকা লুট হয়ে যাওয়া এই ব্যাংকটিকে বাঁচাতে কর্মীদের বেতন কমানোকে শেষ আশ্রয় হিসেবে ব্যবহার করেছে সরকার। নতুন বেতন কাঠামো কার্যকর করার ফলে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন ৩০ থেকে ৭০ শতাংশ কমে গেছে। সংকুচিত হয়েছে বাড়ি ভাড়া ও গ্রাচ্যুইটি সুবিধাও। যাদের গৃহঋণ নেয়া আছে, তারা বেকায়দায় পড়েছেন।

বিশেষায়িত ব্যাংক হিসেবে প্রতিষ্ঠার পর ১৯৮৯ সালের ২১ জানুয়ারি থেকে বেসিক ব্যাংক লিমিটেড স্বতন্ত্র বেতন স্কেল পেয়ে আসা একটি ব্যাংক। এর এতদিনের বেতন কাঠামো রাষ্ট্রায়ত্ত অন্যান্য ব্যাংকের তুলনায় অনেক বেশি।

বেতন কর্তনের সিদ্ধান্তের পর দুই হাজার কর্মীর বুকে এখন দীর্ঘশ্বাস।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক কর্মকর্তা মন্তব্য করেন, ‘ব্যাংকের সবাইতো দুর্নীতিগ্রস্ত না। অথচ সবাকেই শাস্তি পেতে হচ্ছে। বেতন কমিয়ে দেয়ার ফলে ব্যাংকটি উন্নতির চেয়ে কর্মীদের মনোবল ভেঙে গেছে।’

তাদের প্রশ্ন: মুনাফা না হওয়ার কারণে কোনো রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান তার কর্মীদের বেতন কমিয়ে দিয়েছে, এমন নজির নেই।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. সালেহউদ্দিন আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্যাংককে এখন দীর্ঘমেয়াদী ঋণ বিতরণ থেকে স্বল্প মেয়াদি ঋণ বেশি বিতরণ করতে হবে। তবে ঋণ দেয়ার আগে কোন প্রকল্পে কাকে দেয়া হচ্ছে, সে বিষয়টি ভালোভাবে খোঁজ করতে হবে।

‘ব্যাংকের জনবল আরও কমিয়ে আনতে হবে। কম জনবল দিয়ে কীভাবে ভালো কাজ করা যায় সে বিষয়ে নজর দিতে হবে। পরিচালনা পর্ষদের কার্যক্রম আরও বাড়াতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের কাছ থেকে মূলধন ঘাটতি বাবদ অর্থ বা বাজেটে তাদের জন্য বরাদ্দের আবেদন করতে পারে।

বেসিক ব্যাংকে শুধুই দীর্ঘশ্বাস
বেসিক ব্যাংকের এমডি আনিসুর রহমান



‘একসময় এসএমই (ক্ষুদ্র ও মাঝারী শিল্প উদ্যোক্তা) খাতে বেসিক ব্যাংকের অনেক অবদান ছিল। এ জন্য ক্ষুদ্র ঋণের কিছু অর্থ এ ব্যাংকের মাধ্যমে বিতরণ করতে হবে। পাশাপাশি বাংলাদেশ ব্যাংকের পুনঃঅর্থায়ন তহবিল থেকে ক্ষুদ্র, মাঝারি ও কুটির শিল্পে বেসিকের মাধ্যমে ঋণ বিতরণ করতে হবে।

‘বাংলাদেশ ব্যাংক অনেক সময় বিভিন্ন ব্যাংককে সিআরআর (নগদ জমার হার) বা এসএলআর (সহজে বিনিময়যোগ্য সম্পদ) সংরক্ষণের বাধ্যবাধকতা থেকে অব্যাহতিসহ বিভিন্ন সুবিধা দেয়। বেসিক ব্যাংককেও এ ধরনের সুবিধা দিতে পারে।’

ব্যাংক খাত কাঁপানো অনিয়ম

২০০৯ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে বেসিক ব্যাংকের গুলশান, দিলকুশা ও শান্তিনগর শাখা থেকে অনিয়মের মাধ্যমে মোট সাড়ে ৪ হাজার কোটি টাকা ঋণ বিতরণের অভিযোগ ওঠার পর অনুসন্ধানে মাঠে নামে দুদক। ঋণপত্র যাচাই না করে জামানত ছাড়া, জাল দলিলে ভুয়া ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ঋণদানসহ নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে বিধিবহির্ভূতভাবে ঋণ অনুমোদনের প্রমাণ মেলে।

বাংলাদেশ ব্যাংক ও বেসিক ব্যাংকের নিয়োগ করা নিরীক্ষকের প্রতিবেদনে অনিয়মিত ঋণ মঞ্জুর, নিয়োগ ও পদোন্নতিতে পরিচালনা পর্ষদের তৎকালীন চেয়ারম্যান আব্দুল হাই বাচ্চুর সংশ্লিষ্টতা ছিল বলে প্রমাণ মেলে।

এরপর থেকে সবল ব্যাংকটি দুর্বল হতে থাকে। সে দুর্বলতা এখনও ব্যাংকটি কাটিয়ে উঠতে পারেনি। দুর্বলতা কাটাতে বেসিক ব্যাংককে সরকার থেকে ৩ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা দেয়া হয়েছে। তাতেও দুর্বলতা কাটেনি।

তিন বছর ধরে ব্যাংকটিকে কোনো মূলধনের জোগান দেয়া হচ্ছে না। সরকার এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছে আর কোনো মূলধন পাবে না বেসিক ব্যাংক। নিজস্ব উদ্যোগে টিকে থাকতে হবে। কিন্তু টিকে থাকতে নানামুখী পরিকল্পনা করেও উন্নতি নেই।

অবস্থার পরিবর্তন নেই

পরিস্থিতির তেমন পরিবর্তন নেই, একই চক্করে থমকে আছে বেসিক ব্যাংক। অন্যান্য রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে খেলাপি আদায় কিছুটা বাড়লেও ব্যতিক্রম শুধু রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের এই ব্যাংক। নানামুখী কৌশল হাতে নিয়েও পাল্টাচ্ছে না পরিস্থিতি।

ব্যাংকটির মোট ঋণের অর্ধেকের বেশি খেলাপি। অনিয়মের মাধ্যমে এ ব্যাংক থেকে বেরিয়ে গেছে হাজার হাজার কোটি টাকা।

খাদের কিনার থেকে টেনে তুলে ব্যাংকটিকে মূলধন যোগান দেয় সরকার। পরিচালনা পর্ষদ পরিবর্তনসহ গ্রহণ করা হয় নানা কৌশল। কিন্তু মাসের পর মাস কেটে গেলেও কমছে না খেলাপির পরিমাণ।

বাড়ছে খেলাপি ঋণ

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২০ সাল শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংকের ঋণস্থিতি ১৪ হাজার ৬৭৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি হয়ে পড়েছে ৭ হাজার ৫০৩ কোটি টাকা, যা বিতরণ করা ঋণের ৫১ দশমিক ১৩ শতাংশ। শুধু তাই নয়, ব্যাংকটির নিরাপত্তা সঞ্চিতি বা প্রভিশন সংরক্ষণেও ঘাটতি রয়েছে ৩ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা।

ব্যাংকের মূলধন ঘাটতিও ১ হাজার ৪৯২ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। ফলে সংকটে নিমজ্জিত হয়ে রয়েছে বেসিক ব্যাংক।

ক্রমান্বয়ে বাড়ছে লোকসান

বেসিক ব্যাংকের আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা যায়, ২০০৯ সালেও রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকটি প্রায় ৬৫ কোটি টাকা নিট মুনাফা করে। পরবর্তী সময়ে তা কমে ২০১২ সালে ২ কোটি ৭৮ লাখ টাকায় দাঁড়ায়।

এরপর থেকে ধারাবাহিকভাব লোকসানে পড়তে থাকে ব্যাংকটি। ২০১৩ সালে ৫৩ কোটি টাকা লোকসান করে। ২০১৪ সালে লোকসানের পরিমাণ বেড়ে দাঁড়ায় ১১১ কোটি টাকা। ২০১৫ সালে ব্যাংকটির লোকসান বেড়ে হয় ৩১৮ কোটি টাকা।

অতীতের অনিয়ম জালিয়াতির চূড়ান্ত ধাক্কা লাগে ২০১৬ সালের নিট মুনাফায়। ওই বছর ব্যাংকটির লোকসান দাঁড়ায় ১ হাজার ৪৯৩ কোটি টাকায়।

এরপর ২০১৭ সালে ৬৮৪ কোটি টাকা এবং ২০১৮ সালেও ৩৫৪ কোটি টাকা লোকসান দিয়েছে ব্যাংকটি।

২০১৯ সালে ৩২৭ কোটি টাকা নিট লোকসান গোনার পর ২০২০ সালেও প্রায় ৪০০ কোটি টাকা লোকসান হয়েছে বেসিক ব্যাংকের।

কমেছে বেতন

লোকসানের কারণে ব্যয় কমানোর অংশ হিসেবে ২০১৯ সালের ১১ ডিসেম্বর ব্যাংকের ৪৮৭তম পর্ষদ সভায় বেসিক ব্যাংকের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীর বেতন কমানোর সিদ্ধান্ত হয়।

২২ ডিসেম্বর এক প্রজ্ঞাপন জারি করে ওইদিন থেকেই এটা কার্যকর বলে জানায় বেসিক ব্যাংক কর্তৃপক্ষ।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়: ‘সাত বছর ধরে ব্যাংকের ক্রমাগত লোকসান হচ্ছে। ফলে অতিরিক্ত বেতন-ভাতা ব্যাংকের পক্ষে বহন করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। এ জন্য ব্যাংকের বর্তমান বেতন কাঠামো ও অন্যান্য সুবিধা বাতিল করে অর্থ মন্ত্রণালয়ের “চাকরি (ব্যাংক, বীমা, আর্থিক প্রতিষ্ঠান) (বেতন ও ভাতাদি) আদেশ ২০১৫”-এর অনুরূপ বেতন কাঠামো নির্ধারণ করা হলো। তবে ব্যাংকের বেতন কাঠামোর বাইরে অন্যান্য সুবিধা পর্ষদের অনুমোদন সাপেক্ষে দেয়া হবে।’

ব্যাংকের কর্মকর্তা ও কর্মীরা বেতনের বাইরে লাঞ্চ-ভাতা, গাড়ির ঋণ, অতিরিক্ত বোনাস ইত্যাদি সুবিধা পেয়ে থাকেন।

২০১৪ সালে ব্যাংকটি বিশেষায়িত থেকে পুরোপুরি বাণিজ্যিক ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু করে।

বেসিক ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালকের মূল বেতন স্কেল দেড় লাখ টাকা। অন্যদিকে, রাষ্ট্রায়ত্ত অন্য ব্যাংকে একই পদের মূল বেতন স্কেল ৬৬ হাজার টাকা।

বেসিকে জিএম পর্যায়ে মূল বেতন এক লাখ টাকা, ডিজিএমদের ৬৬ হাজার টাকা, এক্সিকিউটিভ অফিসারদের (প্রিন্সিপাল অফিসার সমমান) ৩৭ হাজার টাকা, সিনিয়র অফিসারদের ২৫ হাজার টাকা ও অফিসারদের ২০ হাজার টাকা।

অন্যদিকে, অন্যান্য রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকে যথাক্রমে জিএমদের মূল বেতন ৫৬ হাজার ৫০০ টাকা, ডিজিএমদের ৫০ হাজার টাকা, প্রিন্সিপাল অফিসারদের সাড়ে ৩৫ হাজার টাকা, সিনিয়র অফিসারদের ২০ হাজার টাকা ও অফিসারদের বেতন ১৬ হাজার টাকা।

অর্থাৎ অন্যান্য রাষ্ট্রীয় ব্যাংকের বেতন কাঠামোর চেয়ে বেসিক ব্যাংকের কর্মীদের বেতন বেশি ছিল।

বেতনে কতো সাশ্রয়

নতুন বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের ফলে এই খাতে ব্যয় কমেছে প্রায় ৩ কোটি টাকা। দীর্ঘ দিন ধরে ব্যাংকের কর্মীরা সুবিধাবঞ্চিত।

সারা দেশে ৭২টি শাখা ও ২ হাজার ১০০ জনবল নিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করছে বেসিক ব্যাংক।

২০১৪ সালের পর থেকে ব্যাংকের কর্মীদের কোনো প্রণোদনামূলক বোনাস দেয়া হয়নি। এমনকি চাকরি বিধিমালায় থাকা সত্ত্বেও ২০১৮ ও ২০১৯ সালে ব্যাংকে কোনো পদোন্নতি দেয়া হয়নি।

একজন কর্মকর্তা জানান, প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় অংশ নিয়ে চাকরি পেয়েও এখন হতাশা আর দীর্ঘশ্বাস ছাড়া কিছুই অবশিষ্ট নেই।

বেসিক ব্যাংকে যোগদান করা নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক আনিসুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি মাত্র যোগদান করেছি। সবার সঙ্গে কথা হয়েছে। ব্যাংকের উন্নতির জন্য সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
বেসিক ব্যাংকের নতুন এমডি আনিসুর রহমান

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
5 out of 8 people have died due to Nipah virus this season

চলতি শীতে নিপা ভাইরাসে ৮ জনের মধ্যে ৫ জনই মারা গেছেন

চলতি শীতে নিপা ভাইরাসে ৮ জনের মধ্যে ৫ জনই মারা গেছেন খেজুরগাছ থেকে রস সংগ্রহ শুরু করেছেন গাছি। ছবি: নিউজবাংলা
খেজুরের রস খাওয়ার ব্যাপারে জনগণকে আরও বেশি সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, ‘‌দেশে নিপা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে। দেশে চলতি শীত মৌসুমে আটজন ব্যক্তি নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এরমধ্যে পাঁচজনই মারা গেছেন।’

বাদুড় থেকে সংক্রমিত নিপা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেশে বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, চলতি শীত মৌসুমে এ ভাইরাসে আক্রান্ত আটজনের মধ্যে পাঁচজনই মারা গেছেন।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে রোববার একটি পর্যালোচনা সভায় অংশ নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

খেজুরের রস খাওয়ার ব্যাপারে জনগণকে আরও বেশি সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, ‘‌দেশে নিপা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পাচ্ছে। দেশে চলতি শীত মৌসুমে আটজন ব্যক্তি নিপা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এরমধ্যে পাঁচজনই মারা গেছেন।’

চলতি শীতে নিপা ভাইরাসে ৮ জনের মধ্যে ৫ জনই মারা গেছেন

বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ভোগান্তি নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‌বেসরকারি হাসপাতালের বেড সংখ্যা, যন্ত্রপাতি, অবস্থান, লোকবল, সুযোগ-সুবিধা ভেদে এগুলোকে এ,বি, সি, ডি ক্যাটাগরিতে ভাগ করে দেয়া হবে। ক্যাটাগরি ভেদে হাসপাতালগুলোতে সরকার কর্তৃক নির্দিষ্ট ফি নির্ধারণ করা থাকবে। এতে মানুষ আগে থেকেই জানতে পারবে কোন হাসপাতালে গেলে কি কি সুবিধা পাওয়া যাবে ও চিকিৎসায় কত ব্যয় হবে।’

তিনি বলেন, ' সারাদেশে অলিতে-গলিতে ক্লিনিক হয়ে গেছে। কিছু ক্লিনিক মান-সম্মত হলেও অধিকাংশেরই সেবার মান ভালো না। ‘ফি’-ও নেয়া হয় ইচ্ছে মতো। এগুলোতে নিয়ম অনুযায়ী যন্ত্রপাতি নেই, কিছু মেশিন আছে যেগুলো সেগুলোও ঠিক মতো কাজ করে না। এসব অনিয়ম আর চলতে পারবে না।'

সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন (বিএমএ)-এর সভাপতি মোস্তাফা জালাল মহিউদ্দিন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এ বি এম খুরশীদ আলম, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিব) সভাপতি অধ্যাপক জামাল উদ্দিন চৌধুরী, মহাসচিব অধ্যাপক কামরুল হাসান মিলন, বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের সভাপতি মুবিন খান, মহাসচিব ও সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খানসহ আরও অনেকে।

আরও পড়ুন:
আওয়ামী লীগকে ক্ষমতা থেকে সরাতে নির্বাচনে আসুন: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
চোখ বন্ধ করে রাখলে উন্নয়ন দেখতে পারবেন না: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
রোগী হাসপাতালে দেরিতে আসায় ডেঙ্গুতে মৃত্যু বেশি: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
চিকিৎসকদের নিরাপত্তার বিষয়টি অর্জন করতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
করোনা জয় সদ্য মাতৃত্বের সুখের মতো: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
AKKS received the honor of Prothom Alo Bandhu Sabha

প্রথম আলো বন্ধুসভার সম্মাননা পেল একেকেএস

প্রথম আলো বন্ধুসভার সম্মাননা পেল একেকেএস ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে শনিবার একেকেএসকে সম্মাননা দেয় প্রথম আলো বন্ধুসভা। ছবি: সংগৃহীত
শনিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলে প্রথম আলো বন্ধুসভা আয়োজিত কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সেই অনুষ্ঠানে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সামাজিক কর্মকাণ্ডে বিশেষ অবদান রাখায় একেকেএসকে সম্মাননা স্মারক দেয়া হয়।

সমাজসেবায় বিশেষ অবদান রাখায় সম্মাননা স্মারক পেয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়াভিত্তিক আবুল খায়ের কল্যাণ সংস্থা (একেকেএস)।

জেলার অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে শনিবার প্রথম আলো বন্ধুসভা এ সম্মাননা দেয়।

ওই সময় এক হাজার ৩৫৭ শিক্ষার্থীর সামনে সম্মাননাটি গ্রহণ করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ওয়াসে শিতাব।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলে প্রথম আলো বন্ধুসভা আয়োজিত কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সেই অনুষ্ঠানে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সামাজিক কর্মকাণ্ডে বিশেষ অবদান রাখায় একেকেএসকে সম্মাননা স্মারক দেয়া হয়।

অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরিদা নাজনীন, প্রথম আলোর পলিটিক্যাল এডিটর কাদির কল্লোল সম্মাননা স্মারকটি হাতে তুলে দেন।

আবুল খায়ের কল্যাণ সংস্থার যাত্রা শুরু হয় এক কক্ষের টিনের ঘরে। নবীনগর ‍উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের থানাকান্দি গ্রামের গরিব ও সাধারণ মানুষকে স্বাস্থ্যসেবা দেয়া ছিল এর প্রধান লক্ষ্য।

বিগত আড়াই বছর ধরে প্রতি রোববার সংগঠনের পক্ষ থেকে দুজন এমবিবিএস চিকিৎসক বিনা মূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ বিতরণ করে আসছেন। পাশাপাশি কম্বল বিতরণ, কৃতী শিক্ষার্থীদের আর্থিক সহযোগিতা এবং ফ্রি কম্পিউটার ট্রেনিং দেয়াসহ নানা সেবামূলক কর্মকাণ্ড করে আসছে সংগঠনটি।

নবীনগর উপজেলার কৃষ্ণনগর ইউনিয়নের থানাকান্দি গ্রামের যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী ব্যবসায়ী মঈদুল হোসাইন মার্শাল সংগঠনটির উদ্যোক্তা।

আরও পড়ুন:
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিচারক বদলির আল্টিমেটামের সময় বাড়ালেন আইনজীবীরা
আশুগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৩০
বিচারককে গালির ঘটনায় জড়িতদের শাস্তি দাবি নারী বিচারকদের
‘অন্নদা উৎসবে’ অংশ নেবে ২ হাজার সাবেক ছাত্র
পার্চিংয়ে কমছে খরচ, বাড়ছে ফলন

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
BNP announced the next time and place of the movement

আন্দোলনের পরবর্তী সময় ও স্থান জানাল বিএনপি

আন্দোলনের পরবর্তী সময় ও স্থান জানাল বিএনপি বিএনপির পদযাত্রা। ছবি: নিউজবাংলা
বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, রোববার দুপুর ২টায় যাত্রাবাড়ী থেকে পদযাত্রা শুরু হবে, যাতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ক্ষমতাসীন সরকারের পদত্যাগ, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচনসহ ১০ দফা দাবিতে বিএনপির চলমান পদযাত্রার পরবর্তী সময় ও স্থান চূড়ান্ত করেছে দলটি।

বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, রোববার দুপুর ২টায় যাত্রাবাড়ী থেকে পদযাত্রা শুরু হবে, যাতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটি সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। সভাপতিত্ব করবেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আহবায়ক আব্দুস সালাম। সঞ্চালনায় থাকবেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনু।

পরদিন সোমবার দুপুর ২টায় গাবতলী বাসস্ট্যান্ড থেকে শুরু হবে পদযাত্রা, যাতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটি সদস্য নজরুল ইসলাম খান। সভাপতিত্ব করবেন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান। সঞ্চালনায় থাকবেন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি সদস্য সচিব আমিনুল হক।

মঙ্গলবার দুপুর ২টায় মুগদা স্টেডিয়াম থেকে পদযাত্রা শুরু করবে বিএনপি, এতে প্রধান অতিথি হিসেবে থাকবেন দলটির স্থায়ী কমিটি সদস্য মির্জা আব্বাস। সভাপতিত্ব করবেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আহ্বায়ক আব্দুস সালাম। সঞ্চালনায় থাকবেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনু।

এর আগে গতকাল শনিবার রাজধানীতে পদযাত্রা করে বিএনপি। বাড্ডার সুবাস্তু টাওয়ারের সামনে থেকে শুরু হয়ে মালিবাগ চৌধুরীপাড়ার আবুল হোটেলের সামনে গিয়ে এটি শেষ হয়।

আরও পড়ুন:
বিএনপির পদযাত্রা দুপুরে
বিএনপি নেতা খোকনের বাড়িতে আগুন দেয়ার অভিযোগ
প্রধানমন্ত্রীর জনসভা ঘিরে হয়রানির অভিযোগ রাজশাহী বিএনপির
যুগপৎ আন্দোলনের লিয়াজোঁ কমিটির সঙ্গে ফখরুলের বৈঠক শুক্রবার
চার দিন দুপুর ২টা থেকে ঢাকায় পদযাত্রা করবে বিএনপি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
I want the promise of voting by boat Sheikh Hasina

নৌকায় ভোটের ওয়াদা চাই: শেখ হাসিনা

নৌকায় ভোটের ওয়াদা চাই: শেখ হাসিনা জনসভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
শেখ হাসিনা বলেন, ‘ভোট হবে এ বছরের শেষে বা আগামী বছরের শুরুতে। নৌকায় ভোট দেবেন কি না ওয়াদা চাই। ২৯৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদশে যেন করতে পারি আপনার এ জন্য নৌকায় ভোট দেবেন।’

আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে জয় লাভ করে আবারও সরকার গঠন করতে রাজশাহীবাসীর কাছে ভোট চাইলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে আওয়ামী লীগের জনসভায় রোববার বিকেলে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ভোট হবে এ বছরের শেষে বা আগামী বছরের শুরুতে। নৌকায় ভোট দেবেন কি না ওয়াদা চাই। ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদশে যেন করতে পারি, আপনার এ জন্য নৌকায় ভোট দেবেন।’

এ সময় জনসভাস্থলে উপস্থিত জনতা প্রধানমন্ত্রীকে লক্ষ্য করে হাত তুলে হ্যাঁ সূচক মাথা নাড়েন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই আজ দেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। একদিনে ১০০ সেতু, ১০০ সড়ক কোনো সরকার করতে পেরেছে? আওয়ামী লীগ পেরেছে।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল বলে বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন দিয়েছি। কে দিয়েছে? এই বাংলাদেশ, আওয়ামী লীগ সরকার। উন্নত দেশও পারে নাই।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপির ক্ষমতায় এসে খুন, হত্যা, ধর্ষণ এগুলো হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নৌকায় ভোট না দিলে দেশ স্বাধীন হতো না। তোদের নেতা জিয়াউর রহমান মেজর থেকে মেজর জেনারেল হতে পারতো না। খালেদা জিয়াও প্রধানমন্ত্রী হতে পারতো না। ’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘এখন ইউক্রেন যুদ্ধ, বিশ্বক্যাপী মুদ্রাস্ফীতি। আমরা ১ কোটি মানুষের জন্য টিসিবির কার্ড করে দিয়েছি। হতদরিদ্ররা বিনা পয়সায় চাল পাচ্ছে।মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের কাজ করে যাচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা মানুষের জন্য কাজ করি। বিএনপি কি করে; মানুষ হত্যা, সন্ত্রাস। তারা আন্দোলনের নামে বহু অফিস পুড়িয়েছে। কোনো মানুষ জীবন্ত মানুষকে পুরিয়ে মারতে পারে? তারা মেরেছেন।

‘তারা উসকানি দেয়। বাংলাদশের মানুষের ভালো তারা সহ্য করতে পারেনা। যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে, জনগণের ভোট চুরি করে বিএনপি তাদের পার্লামেন্টে বাসায়।’

আরও পড়ুন:
নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই দেশ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী
বিএনপির পদযাত্রার অনেক মানে জানালেন কাদের
রাজশাহীর জনসভাস্থলে প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The country is self sufficient today because they voted by boat Prime Minister

নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই দেশ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী

নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই দেশ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী জনসভায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই আজ দেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। একদিনে ১০০ সেতু, ১০০ সড়ক কোনো সরকার করতে পেরেছে? আওয়ামী লীগ পেরেছে।’

নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে জনগণ আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় বসিয়েছে বলেই দেশ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে আওয়ামী লীগের জনসভায় রোববার বিকেলে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই আজ দেশ স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে। একদিনে ১০০ সেতু, ১০০ সড়ক কোনো সরকার করতে পেরেছে? আওয়ামী লীগ পেরেছে।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল বলে বিনা পয়সায় ভ্যাকসিন দিয়েছি। কে দিয়েছে? এই বাংলাদেশ, আওয়ামী লীগ সরকার। উন্নত দেশও পারে নাই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নৌকায় ভোট না দিলে দেশ স্বাধীন হতো না। তোদের নেতা জিয়াউর রহমান মেজর থেকে মেজর জেনারেল হতে পারতো না। খালেদা জিয়াও প্রধানমন্ত্রী হতে পারতো না। ’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘এখন ইউক্রেন যুদ্ধ, বিশ্বক্যাপী মুদ্রাস্ফীতি। আমরা ১ কোটি মানুষের জন্য টিসিবির কার্ড করে দিয়েছি। হতদরিদ্ররা বিনা পয়সায় চাল পাচ্ছে।মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের কাজ করে যাচ্ছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা মানুষের জন্য কাজ করি। বিএনপি কি করে; মানুষ হত্যা, সন্ত্রাস। তারা আন্দোলনের নামে বহু অফিস পুড়িয়েছে। কোনো মানুষ জীবন্ত মানুষকে পুরিয়ে মারতে পারে? তারা মেরেছেন।

‘তারা উসকানি দেয়। বাংলাদশের মানুষের ভালো তারা সহ্য করতে পারেনা। যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে, জনগণের ভোট চুরি করে বিএনপি তাদের পার্লামেন্টে বাসায়।’

এ সময় আগামী নির্বাচনে ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে রাজশাহীবাসীর প্রতি আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘ভোট হবে এ বছরের শেষে বা আগামী বছরের শুরুতে। নৌকায় ভোট দেবেন কি না ওয়াদা চাই। ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদশে যেন করতে পারি, আপনার এ জন্য নৌকায় ভোট দেবেন।’

জনসভাস্থলে উপস্থিত জনতা প্রধানমন্ত্রীকে লক্ষ্য করে হাত তুলে হ্যাঁ সূচক মাথা নাড়েন।

আরও পড়ুন:
বিএনপির পদযাত্রার অনেক মানে জানালেন কাদের
রাজশাহীর জনসভাস্থলে প্রধানমন্ত্রী
কানায় কানায় পূর্ণ প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থল

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Kader said many things about BNPs march

বিএনপির পদযাত্রার অনেক মানে জানালেন কাদের

বিএনপির পদযাত্রার অনেক মানে জানালেন কাদের রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে রোববার আওয়ামী লীগের জনসভায় বক্তব্য দেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ছবি: সংগৃহীত
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপির এখন পদযাত্রা…পদযাত্রা মানে শেষ যাত্রা, পদমযাত্রা মানে অন্তিম যাত্রা, পদযাত্রা মানে পেছন যাত্রা, পদযাত্রা মানে মরণযাত্রা। মরণযাত্রা শুনেছেন না? ওই মরণযাত্রা হচ্ছে বিএনপির।’

‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার’ ও ১০ দফা দাবি আদায়ে বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচির বেশ কিছু অর্থ দাঁড় করিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

রাজশাহীর ঐতিহাসিক মাদ্রাসা মাঠে রোববার বিকেলে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় দেয়া বক্তব্যে তিনি এসব মানে দাঁড় করান।

বক্তব্যের শুরুতে রাজশাহী নগরীতে জনতার ঢল নেমেছে মন্তব্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, জনসভাস্থলের ধারণক্ষমতার ১০ গুণ বেশি মানুষ বাইরে বসে আছেন।

ওই সময় তিনি বিএনপির রাজশাহীর সমাবেশে উপস্থিতির সঙ্গে আজকের জনসমাগমের তুলনা করেন।

বিএনপির সমালোচনা করে ক্ষমতাসীন দলের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নেতা বলেন, বিএনপি ১০ ডিসেম্বর, ৩০ ডিসেম্বর ও ১১ জানুয়ারি সরকারের পতন ঘটাতে চেয়ে ব্যর্থ হয়েছে।

ওই সময় বিএনপির পদযাত্রার বেশ কিছু অর্থ করেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘বিএনপির এখন পদযাত্রা…পদযাত্রা মানে শেষ যাত্রা, পদমযাত্রা মানে অন্তিম যাত্রা, পদযাত্রা মানে পেছন যাত্রা, পদযাত্রা মানে মরণযাত্রা। মরণযাত্রা শুনেছেন না? ওই মরণযাত্রা হচ্ছে বিএনপির।’

রাজধানীর বাড্ডা থেকে শনিবার পদযাত্রা শুরুর আগে দেয়া বক্তব্যে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারকে সরে দাঁড়ানোর আহ্বান জানিয়ে বলেন, তা না হলে ক্ষমতাসীনদের পালিয়ে যেতে হবে।

ওই বক্তব্যের সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ পালিয়ে যায় না। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানই রাজনীতি না করার মুচলেকা দিয়ে বিদেশ পালিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থলে জড়ো হচ্ছেন আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা
প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় রাজশাহী
শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় পুলিশ নিরলস কাজ করছে: প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রীর জনসভা ঘিরে রাজশাহীতে বিশেষ ট্রেন
১৩১৬ কোটি টাকার প্রকল্প উদ্বোধন করতে রাজশাহী যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Accused arrested after 16 years of life sentence

১৬ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার  

১৬ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার   ১৬ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আব্দুল কুদ্দুস গ্রেপ্তার। ছবি: নিউজবাংলা
ময়মনসিংহ র‌্যাব-১৪ সদর দপ্তরের অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান জানান, গ্রেপ্তার আব্দুল কুদ্দুসকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া থেকে শহিদুল আলম নামে এক ব্যক্তির মাথা বিচ্ছিন্ন দেহ ও টাঙ্গাইলের নাগরপুর থেকে খণ্ডিত মাথা উদ্ধারের ঘটনায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি আব্দুল কুদ্দুসকে ১৬ বছর পর গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

গাজীপুরের শ্রীপুর থানাধীন বহেরার চালা এলাকা থেকে শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার ৪১ বছর বয়সী আব্দুল কুদ্দুস টাঙ্গাইলের নাগরপুর থানাধীন ভাবনাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

রোববার দুপুরে ময়মনসিংহ র‌্যাব-১৪ সদর দপ্তরের অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান জানান, ২০০৪ সালে ধামরাই থানাধীন গোয়াড়ীপাড়ায় একটি অফিস ভাড়া নিয়ে বাংলা সমাজ উন্নয়ন সংস্থা নামক একটি সঞ্চয় ও ক্ষুদ্র ঋণদান সংস্থা প্রতিষ্ঠা করেন ৩৪ বছর বয়সী শহিদুল আলম ও তার বন্ধু আব্দুল কুদ্দুসসহ কয়েকজন।

সঞ্চয়, ঋণদান ও ফিক্সড ডিপোজিট কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছিল তারা। প্রতিষ্ঠানে লাভের পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ায় একসময় তাদের অ্যাকাউন্টে সদস্যদের সঞ্চয়ের বেশকিছু টাকা জমা হয়। সেই টাকা ও প্রতিষ্ঠানটির লোভে শহিদুলকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়।

তিনি আরও জানান, পরিকল্পনা অনুযায়ী টাঙ্গাইলের সন্ত্রাসী রাজা মিয়াকে নিয়ে শহিদুলকে হত্যার পূর্ণ ছক আঁকে আব্দুল কুদ্দুস। ২০০৬ সালের ২০ মে শাহিন নামের একজনের জন্য পাত্রী দেখতে যাওয়ার কথা বলে বন্ধু শহিদুলকে মাইক্রোবাসে তুলা হয়। মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া থানাধীন বেতুলিয়া গ্রামে নিয়ে সন্ত্রাসী রাজা মিয়াসহ সাহেদ, আব্দুল কুদ্দুস ও বিষ্ণু সুইপার গলায় রশি পেচিয়ে, রুমাল দিয়ে মুখ চেপে ধরে শহিদুলকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। নিহত ব্যক্তির পরিচয় গোপন করার উদ্দেশে গলা কেটে নিথর দেহ থেকে শহিদুলের মাথা আলাদা করে ফেলা হয়। পরে সাটুরিয়ায় মাথা বিচ্ছিন্ন দেহ ও টাঙ্গাইলের নাগরপুরে খণ্ডিত মাথা ফেলে দেয়া হয়।

এ ঘটনার পরদিন সাটুরিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. আ. জলিল অজ্ঞাতনামা আসামিদের নামে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলার তদন্ত শেষে তদন্তকারী কর্মকর্তা সাতজনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

তিনি আরও জানান, এ মামলায় ২০২১ সালের ৫ ডিসেম্বর মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আব্দুল কুদ্দুসকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও দুই মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত করেন।

অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান জানান, মামলা হওয়ার পর থেকেই হত্যায় জড়িত আব্দুল কুদ্দুস পলাতক ছিল। সে গ্রেপ্তার এড়ানোর জন্য নিজের নাম, বাবার নাম, মায়ের নাম ও ঠিকানা পরিবর্তন করে আপন মামাতো ভাইয়ের নাম, বাবার নাম ও মায়ের নাম ব্যবহার করে জাতীয় পরিচয়পত্র তৈরি করে দীর্ঘদিন যাবত গাজীপুরের শ্রীপুর এলাকায় আত্মগোপনে ছিল। সেখানে আব্দুল কুদ্দুস তার মামাতো ভাইয়ের সার্টিফিকেট ব্যবহার করে একটি গার্মেন্টস কারখানায় চাকুরি গ্রহণ করে বসবাস করে আসছিল। সে তার বাবার নাম রহম আলী বলে পরিচয় দিত।

তিনি আরও জানান, গ্রেপ্তার আব্দুল কুদ্দুসকে সংশ্লিষ্ট থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

আরও পড়ুন:
লেগুনার হেলপার থেকে গ্যাং লিডার
প্রাইমারি স্কুলে চাকরি পাইয়ে দেয়ার নামে প্রতারণা  
বরিশালে হাত-পায়ে ইট বেঁধে হত্যার রহস্য উদঘাটন
মাদ্রাসার দারোয়ান থেকে জঙ্গি নেতা
গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় ইউপি সদস‌্য কারাগারে 

মন্তব্য

p
উপরে