সাহসী নারীরাই সফল উদ্যোক্তা: রেজবিন হাফিজ

player
সাহসী নারীরাই সফল উদ্যোক্তা: রেজবিন হাফিজ

উদ্যোক্তা মানে যোদ্ধা। সাহসী না হলে উদ্যোক্তা হওয়া যায় না। ব্যবসা শুরুর ক্ষেত্রে অর্থায়ন বড় বাধা। এ জন্য ঋণ প্রয়োজন, কিন্তু ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে গেলে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। বলা হয়, ব্যাংকের ঋণ পাওয়া অনেক সহজ, কিন্তু ঋণ নিতে গেলে দেখা যায় নানা ভোগান্তি।

ব্যবসা করতে হলে নারীদের সাহসী হতে হবে। তা না হলে সফল উদ্যোক্তা হওয়া যায় না বলে মনে করেন পিপলস ফুটওয়্যার অ্যান্ড লেদার গুডসের স্বত্বাধিকারী রেজবিন হাফিজ।

তিনি বলছেন, অর্থায়নই নারীদের ব্যবসার বড় বাধা। ব্যাংকগুলো সহজে ঋণ দেয় না, এ কারণে নানা ভোগান্তি পোহাতে হয় নারী উদ্যোক্তাদের।

ঋণপ্রাপ্তি সহজ ও নারীদের জন্য বেশি সুযোগ-সুবিধা দেয়ার আহ্বান জানিয়ে রেজবিন হাফিজ বলেন, ‘এটি নিশ্চিত করতে পারলে ব্যবসা–বাণিজ্যে উৎসাহিত হবেন নারী উদ্যোক্তারা।’

দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি, উদ্যোক্তাদের সমস্যাসহ ব্যবসায়িক নানা বিষয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলেছেন এসএমই পণ্যমেলা ২০২০-এর বর্ষসেরা এই নারী উদ্যোক্তা।

করোনা-পরবর্তী অর্থনীতি সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন কী?

করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরুর দিকে ব্যবসা-বাণিজ্য স্থবির হয়ে পড়ে। পরে ক্ষতি কাটিয়ে উঠে দেশের অর্থনীতি ক্রমেই ভালোর দিক যাচ্ছে। বিশেষ করে কৃষি, রেমিট্যান্স, রপ্তানি আয় ইতিবাচক ধারায় ফিরে এসেছে। অর্থনীতির বাকি সূচকগুলোও ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। আশা করছি, চলতি বছরেই আগের চেহারায় ফিরে যাবে অর্থনীতি।

করোনার কারণে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তারা সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জে পড়েন। তাদের পক্ষে টিকে থাকা কঠিন। ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য বিভিন্ন মেলার আয়োজন করছে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক)। আবার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের নিয়ে কাজ করছে। ছোট-বড় মার্কেট, শপিং মল খুলে দেয়ায় ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডে গতি বাড়ছে। উদ্যোক্তারা যেসব পণ্য উৎপাদন করেন সেগুলো যদি ঠিকমতো বাজারজাত করা যায়, তাহলে অচিরেই প্রাণ ফিরে পাবে অর্থনীতি।

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে অর্জন আপনি কীভাবে দেখছেন?

করোনার মধ্যেও প্রবাসীরা রেকর্ড রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন। আমদানি-ব্যয়ও আগের তুলনায় কমে গেছে। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে। করোনা মহামারির মধ্যে রেমিট্যান্স ৪৪ বিলিয়ন ডলারের মাইলফলক অর্জন করে। এটা অবশ্যই অর্থনীতির জন্য সুখবর।

সাহসী নারীরাই সফল উদ্যোক্তা: রেজবিন হাফিজ
করোনাভাইরাস সংকটে ক্ষতিগ্রস্ত উদ্যোক্তাদের জন্য আর্থিক প্রণোদনা দিয়েছে সরকার। ছবি: নিউজবাংলা

অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজ কি যথেষ্ট?

প্রণোদনার অর্থ যদি ক্ষতিগ্রস্ত উদ্যোক্তাদের মাঝে সঠিকভাবে বিতরণ করা হয়, তাহলে সরকার যে পরিমাণ সহায়তা ঘোষণা করেছে সেটা যথেষ্ট। তবে আরও সহায়তা পেলে ভালো হতো। ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের ঋণ বিতরণে স্বচ্ছতা থাকতে হবে। যারা খুব সামান্য পুঁজি নিয়ে ব্যবসা করেন, তারা যেন এ অর্থ পান সেটা নিশ্চিত করতে হবে।

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ সুবিধার বিষয়ে আপনার মত কী?

প্রণোদনা প্যাকেজে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ বরাদ্দ দেয়া উচিত। কারণ, এখন নারীরা ব্যবসায় বেশ ভালো করছেন। তারা ব্যবসায় এগিয়ে আসছেন। সেক্ষেত্রে নারীদের অগ্রাধিকার দেয়া খুবই জরুরি।

নারী উদ্যোক্তাদের ব্যবসা করার ক্ষেত্রে প্রধান বাধা কী?

নারী উদ্যোক্তাদের কয়েকটি বাধা রয়েছে। প্রশিক্ষণ অন্যতম সমস্যা। তাদের হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ প্রয়োজন। এটা না হলে ব্যবসা শুরুর পর নানা ধরনের সমস্যায় পড়তে হয়।

এর সঙ্গে আছে সামাজিক বাধা, যদিও এটা আগের চেয়ে অনেক কমেছে। পারিবারিক ও সামাজিকভাবে দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন হয়েছে। তবে একজন নারী ব্যবসা করতে পারবে কি না, সে বিষয়ে পরিবার ও সমাজের সহযোগিতা আরও বেশি প্রয়োজন।

অর্থায়ন নারীর ব্যবসার ক্ষেত্রে বড় বাধা। অবশ্য বর্তমান সরকার উদ্যোক্তাবান্ধব হওয়ায় এ সমস্যার কিছুটা লাঘব হয়েছে। নারীদের এগিয়ে নিতে অনেক কাজ করছে সরকার। তরুণ ও নারী উদ্যোক্তারা যাতে সহজে ঋণ পেতে পারেন, সেজন্য বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে বিসিক, এসএমই ফাউন্ডেশনসহ অন্য ঋণদানকারী সংস্থা। তবে ব্যাংক থেকে ঋণ পাওয়ার প্রক্রিয়া আরও সহজ করা দরকার।

সাহসী নারীরাই সফল উদ্যোক্তা: রেজবিন হাফিজ
রেজবিন হাফিজের ভাষায়, উদ্যোক্তা মানে যোদ্ধা, সাহসী না হলে উদ্যোক্তা হওয়া যায় না।

বাংলাদেশে ব্যবসা শুরুর ক্ষেত্রে পদে পদে বাধার অভিযোগ রয়েছে আপনি কী মনে করেন?

ব্যবসার জন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিস খুব জরুরি। দ্রুত এটা চালু হলে উদ্যোক্তারা সুফল পাবেন। কারণ, এক জায়গায় সব সেবা পাওয়া গেলে সহজে শুরু করা যায়।

গ্রাম পর্যায়ে প্রশিক্ষণ বাড়াতে হবে। আমাদের কাজের সুযোগ আছে, অনেকে উদ্যোক্তা হতে চান, কিন্তু প্রশিক্ষণের অভাবে সেটা হতে পারেন না। সরকারি বিভিন্ন সংস্থা, বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ছাড়াও প্রত্যেককে নিজের জায়গা থেকে উদ্যোক্তা তৈরি করতে হবে। একজন উদ্যোক্তা হয়ে উঠলে অনেকের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হয়।

করোনার প্রভাবে অনেক কারখানা বন্ধ হয়ে যায়। ফলে উদ্যোক্তারা অনেক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন। বিসিক, এসএমই ফাউন্ডেশনসহ প্রতিষ্ঠানগুলোকে উদ্যোক্তাদের সহযোগিতা দিতে হবে।

উদ্যোক্তা মানে যোদ্ধা। সাহসী না হলে উদ্যোক্তা হওয়া যায় না। ব্যবসা শুরুর ক্ষেত্রে অর্থায়ন বড় বাধা। এ জন্য ঋণ প্রয়োজন, কিন্তু ব্যাংক থেকে ঋণ নিতে গেলে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। বলা হয়, ব্যাংকের ঋণ পাওয়া অনেক সহজ, কিন্তু ঋণ নিতে গেলে দেখা যায় নানা ভোগান্তি।

জামানত ছাড়া নারীদের কিছু খাতে ঋণ দেয়া হয়। এর পরিধি আরও বাড়াতে হবে। উদ্যোক্তা উৎসাহিত করতে ঋণ পাওয়া আরও সহজ করতে হবে।

করোনার প্রাদুর্ভাবে দেশের চামড়াশিল্পে কী প্রভাব পড়েছে?

অন্যান্য ব্যবসা-বাণিজ্যের মতো চামড়াশিল্পেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এ খাতে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার ক্রয় আদেশ বাতিল হয়। এখন খাতটি ধীরে ধীরে ক্ষতি কাটিয়ে উঠছে। করোনা যে এত দীর্ঘ হবে, তা কেউ ভাবেনি।

সরকারের প্রণোদনা প্যাকেজের কারণে এসব শিল্প ঘুরে দাঁড়িয়েছে। চামড়া রপ্তানি আয়ের অন্যতম খাত। বিশেষ সুবিধা দিলে আরও ভালো করতে পারবে এ শিল্প।

সাহসী নারীরাই সফল উদ্যোক্তা: রেজবিন হাফিজ
করোনার কারণে অন্যান্য শিল্পের মতো চামড়াশিল্পেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে নারীরা কতটুকু এগিয়েছেন?

গত ১০ বছরের চিত্র দেখলে বোঝা যায় নারীরা কীভাবে সাফল্য অর্জন করেছেন। ২০১২ সালে যখন উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ শুরু করি, তখনকার পরিবেশ আর এখনকার পরিবেশ আলাদা।

বর্তমানে অনেক সংগঠন নারী উদ্যোক্তাদের জন্য কাজ করছে। বর্তমান সরকার নারীবান্ধব অনেক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। ডিজিটালাইজেশনের কারণে সারা বিশ্ব হাতের মুঠোয় চলে এসেছে।

এখন ইচ্ছা করলে অনলাইনে পেজ খুলে ব্যবসা করা যায়। কয়েক বছর আগেও এটা সম্ভব ছিল না। আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির প্রসারের কারণে এটা সম্ভব হয়েছে। নারীরা এখন ঘরে বসে ফেসবুকে পেজ খুলে পোশাক, প্রসাধনী থেকে শুরু করে গৃহস্থালিসহ সব কিছুর ব্যবসা করতে পারছেন। ফলে অর্থনীতিতে নারীর সম্পৃক্ততা দিন দিন বাড়ছে।

একজন সফল নারী উদ্যোক্তা হতে হলে কী করতে হবে?

আত্মবিশ্বাসী হতে হবে। অদম্য মনোবল থাকতে হবে। যে ধরনের উদ্যোক্তা নারী হতে চান, সে বিষয়ে ধারণা থাকতে হবে। ঝুঁকি নিয়ে কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে। ধৈর্য, আত্মবিশ্বাস, মনোবল থাকলে যেকোনো কাজে সফলতা আসবে।

সাহসী নারীরাই সফল উদ্যোক্তা: রেজবিন হাফিজ
আগামী বাজেটে কর্মসংস্থানে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়ার আহ্বান রেজবিন হাফিজের।

আগামী বাজেটে কোন বিষয়ে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া উচিত?

করোনা মহামারির কারণে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের উদ্যোক্তা, হোটেল, রেস্তোরাঁ, পরিবহনশ্রমিক, রিকশাচালক, দিনমজুরসহ বিভিন্ন অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের অনেকেই কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। এ জন্য কর্মসংস্থানে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিতে হবে। সামাজিক নিরাপত্তা খাতে আগের তুলনায় বরাদ্দ আরও বাড়াতে হবে।

নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বিশেষ সুবিধা দিতে হবে। তাহলে নারীরা ব্যবসা-বাণিজ্যে আরও উৎসাহিত হবেন। এ ছাড়া উচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জনে কৃষি, শিল্প, সেবা খাতকে অগ্রাধিকার দিতে হবে।

আরও পড়ুন:
ব্যবসা শুরু যার ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

মন্তব্য

আম্পায়ারিং শুধরাতে প্রশিক্ষণ ও মনিটরিংয়ের বিকল্প নেই: মিঠু

আম্পায়ারিং শুধরাতে প্রশিক্ষণ ও মনিটরিংয়ের বিকল্প নেই: মিঠু

বিসিবির আম্পায়ার্স কমিটির চেয়ারম্যান ইফতেখার রহমান মিঠু। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

দেশের আম্পায়ারিংয়ের সমস্যা ও এর সমাধানের খুঁটিনাটি নিয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে আলোচনা করেছেন আম্পায়ার্স কমিটির প্রধান ইফতেখার রহমান মিঠু। জানিয়েছেন বিতর্কের জায়গা থেকে ক্রিকেটের গুরুত্বপূর্ণ এই বিভাগকে সরিয়ে আনতে যথাযথ ট্রেনিং ও কঠোর মনিটরিংয়ের বিকল্প নেই।

পরোক্ষভাবে দুই যুগের বেশি সময় ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকার পর এবারই প্রথম সরাসরি বোর্ডের স্ট্যান্ডিং কমিটিতে দায়িত্ব পেয়েছেন বোর্ড পরিচালক ইফতেখার রহমান মিঠু। নতুন দায়িত্ব নেয়া বোর্ডের পরিচালনা পর্ষদে আম্পায়ার্স কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে তাকে।

লম্বা সময় ধরে দেশের আম্পায়ারিং প্রশ্নবিদ্ধ। সেই প্রশ্নবিদ্ধ শাখার দায়িত্বভার তুলে দেয়া হয়েছে সফল এই ক্রীড়া সংগঠকের হাতে।

দায়িত্ব বুঝে নিয়ে আম্পায়ারিং বিতর্কের সঙ্গে জড়িতদের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মিঠু। শক্তহাতে আম্পায়ারিংকে বিতর্কের জায়গা থেকে বের করে আনতে চান স্বচ্ছতার জায়গায়।

দেশের আম্পায়ারিংয়ের সমস্যা ও এর সমাধানের খুঁটিনাটি নিয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে আলোচনা করেছেন তিনি। জানিয়েছেন বিতর্কের জায়গা থেকে ক্রিকেটের গুরুত্বপূর্ণ এই বিভাগকে সরিয়ে আনতে যথাযথ ট্রেনিং ও কঠোর মনিটরিংয়ের বিকল্প নেই।

নিউজবাংলার পাঠকদের জন্য তার সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো।

প্রথমবার বোর্ডে আসলেন, আর এসেই দায়িত্ব পেলেন, কেমন লাগছে?

প্রথমবার বোর্ড ডিরেক্টর হতে পারি কিন্তু ক্রিকেটের সঙ্গে আমি গত ২৫ বছর ধরে আছি। সুতরাং আমার কাছে নতুন না। ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গেও জড়িত ছিলাম। মাঝে ৬-৭ বছর ছিলাম না। তবে বোর্ডে আসায় নিশ্চিতভাবে আনন্দবোধ করছি। নতুন একটা দায়িত্ব দিয়েছে। সেটায় আমার শতভাগ দেয়ার চেষ্টা করব।



আম্পায়ারদের চাপ নেয়ার কিছু নেই। যদি নিতে হয় সেটা আমি নেব। তবে যদি ইচ্ছাকৃতভাবে করে তবে সেটা বন্ধ করার সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে। সেটা কখনোই গ্রহণযোগ্য নয়।

নতুন কমিটিতে এসে কঠিন একটা বিভাগের দায়িত্ব পাওয়াটা কতটা চ্যালেঞ্জিং?

নিশ্চিতভাবে চ্যালেঞ্জিং। কারণ আপনাদের মাধ্যমে শুনেছি গত কয়েক বছর এই জায়গাটা নিচের দিকে নেমে গেছে। বিষয়টা এতদিন শুনে এসেছি, সবার থেকে শুনেছি। তেমনটা যদি হয়ে থাকে, এটার জন্য কাজ করতে হবে।


ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রায় সময় পক্ষপাতমূলক আম্পায়ারিংয়ের অভিযোগ পাওয়া যায়, এখানে কীভাবে স্বচ্ছতা ফেরাবেন?

শোনেন, পক্ষপাতমূলক হতে পারে দুটো জিনিসের জন্য। একটা হচ্ছে চাপের কারণে একটা ভুল করে ফেলে। আরেকটা হচ্ছে ইচ্ছাকৃত। চাপের কারণে যেটা হয়, সেটা বিভিন্ন কোর্স করিয়ে কিংবা অনুশীলনের মাধ্যমে উন্নতি করানো সম্ভব। এই বিভাগের চেয়ারম্যান হিসেবে আমি সবার সঙ্গে আছি।

অন্য কোনো চাপ আসলে আমি নিশ্চিতভাবে মোকাবিলা করব। আমি যে বার্তা দিতে চাই তা হলো, আম্পায়ারদের চাপ নেয়ার কিছু নেই। যদি নিতে হয় সেটা আমি নেব। তবে যদি ইচ্ছাকৃতভাবে করে তবে সেটা বন্ধ করার সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে। সেটা কখনোই গ্রহণযোগ্য নয়।


দ্বিতীয় ও তৃতীয় বিভাগের রেলিগেশন জোনে আম্পায়ারিংয়ের স্বচ্ছতা ফেরানো কতটা চ্যালেঞ্জিং?

আপনি কোন মানের আম্পায়ার বা আপনার অ্যাসেসমেন্টটা যদি ঠিকমতো না হয় তাহলে এমনটা ঘটে। যদি দেখি আপনি দিনের পর দিন ইচ্ছাকৃতভাবে কারও পক্ষ নিয়ে আম্পায়ারিং করছেন, ইচ্ছাকৃত সিদ্ধান্ত দিচ্ছেন, তাহলে এটা থামানোর দুটো উপায় আছে; এক হচ্ছে ট্রেনিং। দুই তাদের সতর্ক করা যে ভবিষ্যতে যদি প্রমাণ পাই তোমরা ইচ্ছাকৃতভাবে করছ, তাহলে আমরা যা করার করব।


বাংলাদেশ থেকে আইসিসির এলিট প্যানেলে আম্পয়ার না থাকার কারণ কী দেখছেন?

আমি দুই সপ্তাহ হলো দায়িত্ব পেয়েছি। সবকিছু জানতে হলে কিছু সময় দিতে হবে। আমার প্রথম কাজ হলো যেকোনো পরিবর্তন আনার জন্য লোকজনের সঙ্গে কথা বলা। সিনিয়র আম্পায়ার, ক্রিকেট প্লেয়ার, সিনিয়র ক্রিকেটার, সাংবাদিক কিংবা আমাদের যে কমিটি আছে সবার সঙ্গে আলাপ করে সমস্যাটা কোথায় সেটা বের করা।

যদি দেখি যে আমাদের অ্যাপ্রোচ ঠিক নাই আইসিসিতে, তাহলে সেটা ঠিক করব। এমনও হতে পারে যে আমাদের আইসিসির স্ট্যান্ডার্ড ঠিক না বলে অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যন্ত দিচ্ছে। তেমনটা হলে আমাদের আম্পায়ারদের আরও অনুশীলন করাতে হবে। যদি আমাদের তদবির ঠিক না হয়, সেখানেও উন্নতির চেষ্টা করব।


আম্পায়ারিংয়ে স্বচ্ছতা ফেরাতে কোন সিদ্ধান্তগুলো দ্রুত সময়ের মধ্যে নেয়া উচিত বলে মনে করেন?

সবাই আমাকে একটা কথাই বলেছে যে গত কয়েক বছরে আম্পায়ারিংয়ের মানটা নিচের দিকে। এর মানে তারা সঠিক সিদ্ধান্ত দিতে পারছে না। এর একটা কারণ ফিজিক্যাল ফিটনেস হতে পারে। স্বাস্থ্যগত সমস্যা হতে পারে। এগুলো আমাদের খুঁটিয়ে দেখা দরকার। স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো দরকার। কারোর যদি ডায়াবেটিক সমস্যা থাকে এবং সেদিন সারা দিন ধরে আম্পায়ারিং করেন, তাহলে দিনের শেষে তিনি ক্লান্ত হতে পারেন।

এমনও হতে পারে কেউ স্বাভাবিকভাবেই ভালো আম্পায়ার। আবার কেউ হয়তো তা নয়। তাদের রিডিং ও শারীরিক ফিটনেস বাড়াতে হবে।


ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলীর সঙ্গে আপনার বন্ধুত্ব, তাদের সঙ্গে কি এ বিষয়গুলো নিয়ে কথা হয়েছে?

শুধু উনিই আমার বন্ধু না। বিশ্বের বিভিন্ন ক্রিকেট বোর্ডেই আমার বন্ধু আছেন। সবার কাছ থেকে সহযোগিতা চাই। এখানে আমি তো একমাত্র এক্সপার্ট না। সাংবাদিক, ক্রিকেটার কিংবা বিদেশি বিশেষজ্ঞরা মিলে মূলত সমাধানের পথ খুঁজতে হবে। এতে করে আমরা আমাদের মানে উন্নতি আনতে পারব। এটা নিশ্চয়তা দিতে পারি যে সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে। এটা বলতে পারবেন না যে আমি চেয়ারম্যান হিসেবে সময় দিইনি বা আমার ইচ্ছে ছিল না।

এমনও হতে পারে কেউ স্বাভাবিকভাবেই ভালো আম্পায়ার। আবার কেউ হয়তো তা নয়। তাদের রিডিং ও শারীরিক ফিটনেস বাড়াতে হবে।


আম্পায়ারিং উন্নতিতে দেশের বাইরে থেকে প্রশিক্ষক আনানো যায় কি না?

এটাও ভাবছি। একটা এজেন্ডা তৈরি করব। প্লেয়ার কিংবা পুরোনোদের সঙ্গে আলোচনা করে তাদের মতামত নেব। স্থানীয় প্রশিক্ষক বানাতে হবে। প্রতি মাসে অন্তত পাঁচজন করে হলেও অনুশীলন করাতে হবে। মনে করেন, একজন প্রশিক্ষিত বিমানের পাইলটকেও কিন্তু নির্দিষ্ট সময় পরপর অনুশীলন করতে হয়।

এখন প্রযুক্তিও এসেছে। চেষ্টা করব ধাপে ধাপে কাজ করতে। আপাতত আমি তথ্য সংগ্রহ করছি। এমনকি আম্পায়ারিং খারাপের জন্য যদি তাদের বাসে যাতায়াত সমস্যা হয়ে থাকে, তবে সেটাও সমাধানের নতুন পথ খুঁজব।

আমি শুনেছি সাভার আসতে-যেতে ছয় ঘণ্টার মতো লাগে। তাহলে চিন্তা করে দেখেন একজন আম্পায়ার ভোরবেলায় ঘুম থেকে উঠে গিয়ে খেলা পরিচালনা করলে তার মানসিক সমস্যা হতে পারে। এটাও আমরা দেখব। দরকার হলে আমরা তাকে এক দিন আগেই সেখানে পাঠিয়ে দেব যেন পরদিন ম্যাচ পরিচালনা করতে পারি।

দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণির ক্রিকেটে ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস) কি আনা যায়?

ডিআরএস সিস্টেমটা আসলে একটু কঠিন। এটি ছাড়াও রেকর্ডিং, মনিটরিং এগুলো করা যায়। এগুলো করাটা সহজ। ডিআরএস সিস্টেমটা আসলে শীর্ষ পর্যায়ের ম্যাচের জন্য করা হয়। এটা করাও খরচের ব্যাপার।

আমরা যেটা করতে পারি সেটা হলো সিদ্ধান্ত ও আপিলগুলো রেকর্ড করে পর্যালোচনা করতে পারি। আম্পায়ারিংয়ের মান বাড়াতে একজন আম্পায়ার কীভাবে আম্পায়ারিং করছে সেটা বিচার করতে হবে। সেটি পরীক্ষার জন্য আমি হয়তো ১০ দিন মাঠে থাকতে পারি। সে ১০ দিন হয়তো ভালো করবে। বা সাংবাদিক আছে বলে ভালো করল, মনোযোগ দিয়ে আম্পায়ারিং করল। কিন্তু তারপর? সুতরাং আমাদের রেকর্ডিংয়ের একটা সিস্টেম করতে হবে।

এই রেকর্ডিংয়ের সিস্টেমটা আগে থেকে কেন করা হয়নি?

দেখেন আমি আবারও বলছি, আগে কী হয়েছে বা হয়নি সেসবের ভেতর যাচ্ছি না। আমি মনে করি ট্রেনিং ও মনিটরিং বাড়ালে তাদের উন্নতি হবে। এতেও যদি ঠিক না হয়, আরও নতুন আম্পায়ার নিতে হবে। ক্রিকেটারদের আম্পায়ার হিসেবে নিতে হবে। আমরা যেটা শুনেছি যে ক্রিকেটাররা আম্পায়ার হিসেবে ভালো সিদ্ধান্ত দেন। তাই সাবেক ক্রিকেটার যারা আছেন, ক্রিকেট থেকে নতুন করে যারা অবসরে যাচ্ছেন, তাদের পাইপলাইনে আনতে হবে।

আমাদের দেশে আম্পায়ারিংকে প্রধান পেশা হিসেবে খুব একটা দেখা যায় না। পেশা হিসেবে এটিকে দাঁড় করানোর জন্য কোনো উদ্যোগ নেয়া যায় কি না?

এটা নিয়ে আমি সভাপতির সঙ্গে আলোচনা করব। বোর্ডের উচিত বিষয়টাকে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়ে ভালোভাবে তদন্ত করা। এটা আসলে হার্টের মতো। আপনি যদি হার্ট ঠিক না করেন, আপনার চলাচল, পারফরম্যান্স কিন্তু ভালো হবে না। তাই এই জায়গাটাতে আমাদের আরও বেশি সিরিয়াস হতে হবে।

ধরেন একটা খেলোয়াড় পাঁচটা সিদ্ধান্ত পক্ষে পেয়ে ৫০০ রান করল, আর একজন খেলোয়াড় কোনো সিদ্ধান্ত পক্ষে না পেয়ে ৭০ রান করল এক মৌসুমে। সেই ৫০০-এর চেয়ে ৭০ রান কিন্তু বেশি কার্যকরী। বাংলাদেশের ক্রিকেটকে পরবর্তী পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে নিতে হবে।

অনেকেই বলেন আম্পায়ারিং পেশা হিসেবে ঝুঁকিপূর্ণ ও বোর্ডের দেয়া বেতন-ভাতায় তাদের দিন যাপন কষ্টসাধ্য হয়ে যায়। এই বিষয়টির কোনো সমাধান ভেবেছেন?

আমি তো নিজে কোনো দিন আম্পায়ার ছিলাম না। আমি ক্রিকেটার ছিলাম। আমি কোনো দিন এই কমিটিও পাইনি। এখন নানা দেশের সঙ্গে আলাপ করব। ভারতের কাছে জিজ্ঞেস করব, তাদের সিস্টেম কেমন। তারা কি হাফ প্রফেশনাল না ফুল প্রফেশনাল? যদি ফুল প্রফেশনাল হলে ভালো কিছু পাওয়া যায় তখন আমাকে ফুল প্রফেশনাল হতে হবে। বোর্ডের কাছে প্রস্তাব রাখতে হবে।

এটা তো আমার সিদ্ধান্ত না। হয়তো মোট ১৫টা বিষয় আছে এ সংক্রান্ত। এর ৭-৮টা হয়তো আমি নিজে সমাধান করে দেব। আর্থিক বিষয়গুলো তো আমার হাতে নেই। আগে যে ৭-৮টা সমাধানের উপায় রয়েছে সেগুলো সমাধান করে দেখি। এরপর ধীরে ধীরে বাকিগুলোতে যাব।

আমরা যেটা শুনেছি যে ক্রিকেটাররা আম্পায়ার হিসেবে ভালো সিদ্ধান্ত দেন। তাই সাবেক ক্রিকেটার যারা আছেন, ক্রিকেট থেকে নতুন করে যারা অবসরে যাচ্ছেন, তাদের পাইপলাইনে আনতে হবে।




আপনার মালিকানায় থাকা দল ফেয়ার ফাইটার্সকে ২০১৭ সালে আম্পায়ারিং ইস্যুতে নিষিদ্ধ করা হয়। প্রায় সময় দেখা যায় আম্পায়ারিং ইস্যুতে দলগুলোকে দায়ী করা হচ্ছে। ক্লাবের সঙ্গে কথা বলা বা পরামর্শ নেয়ার বিষয়টি নিয়ে কিছু ভাবছেন কি না?

আমাদের পুরো ক্রিকেটে আম্পায়াররা অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশ। এরপর আছেন ক্লাব অফিশিয়ালরা। যারা এটার সাথে জড়িত, আমি সকলের সঙ্গে কথা বলব।

যেমন, আমার ফেয়ার ফাইটার্সের সমস্যা হয়েছে। যদি বেনিফিট অফ ডাউট আম্পায়ারদের দিই, যে তাদের ভুলেই হয়েছে এমনটা। সে ক্ষেত্রে ভুলগুলো যেন আর না হয় সে জন্য দ্রুত আম্পায়ারদের গ্রুপে ভাগ করে একটা কোর্স করালে ও পরীক্ষা নিলে তাদের মান বোঝা যাবে।

এটা প্রথম কথা। দ্বিতীয়ত, এখন সব টিভি ক্যামেরা চলে যাচ্ছে মাঠে। আমরা সেগুলো দেখে ১০ দিনের একটা রিভিউ করব যে কী রকম সিদ্ধান্ত দিচ্ছে। সেগুলো দেখলেই তো বুঝতে পারব। কেউ যদি একই বিষয়ে বারবার ভুল করে যেমন এলবিডব্লিউ, তখন তাকে ওইটাতে ট্রেনিং দেয়া লাগবে।

আবার ধরেন দুপুরে লাঞ্চের পর ঘুম ঘুম ভাব আসল, তখন তাদের ডায়েট চার্ট বদলে দেয়া হবে। ছোট ছোট জিনিসগুলো আগে খুঁজে বের করতে হবে। চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

আরও পড়ুন:
ব্যবসা শুরু যার ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

বিকিনিতে স্টেজে পারফর্ম করা ছিল চ্যালেঞ্জিং: বডিবিল্ডার মৌ

বিকিনিতে স্টেজে পারফর্ম করা ছিল চ্যালেঞ্জিং: বডিবিল্ডার মৌ

বডিবিল্ডার মাকসুদা আক্তার মৌ। ছবি: সংগৃহীত

মুম্বাইয়ের সফর শেষে অভিজ্ঞতা, নতুনত্ব, চ্যালেঞ্জ ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন মাকসুদা আক্তার মৌ। দেশে ফেরার সময় নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলেন মৌ।

ভারতের মুম্বাইয়ে আইএইচএফএফ অলিম্পিয়া অ্যামেচার বডিবিল্ডিংয়ে প্রথমবার অংশ নিয়ে পদক জেতেন বাংলাদেশের মাকসুদা আক্তার মৌ। দেশের বাইরে গিয়ে বিশ্বের অন্যতম সেরা ৩০ বডিবিল্ডারদের মধ্যে পারফর্ম করাটা বেশ চ্যালেঞ্জিং ছিল বলে জানান তিনি।

দেশের গণ্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে নিজেকে মেলে ধরা কঠিন মনে হয়েছে তার। সব বাধা পেরিয়ে নজর কেড়েছেন। আসরের বিচারকদেরও প্রশংসা পেয়েছেন।

মুম্বাইয়ের সফর শেষে অভিজ্ঞতা, নতুনত্ব, চ্যালেঞ্জ ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন মাকসুদা আক্তার মৌ। দেশে ফেরার সময় নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলেন মৌ। তার সাক্ষাৎকারটি তুলে ধরা হলো পাঠকদের জন্য।

প্রথমবার কোনো আন্তর্জাতিক ট্যুরে গেলেন? কেমন হলো মুম্বাই সফর?

একটা সলো ট্যুর ছিল। একাই আসছি। অনেক কিছু শিখলাম। অনেক দেশের বডিবিল্ডার এসেছিল। জ্ঞান হলো, অভিজ্ঞতা হলো। পরবর্তী প্রতিযোগিতায় এসব সাহায্য করবে।

আমাদের দেশে ওভাবে আসলে কোনো বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতা হয় না বা এক্সপো হয় না। এটা আসলে একটা হেল্থ ও ফিটনেস এক্সপো বলতে পারেন। বিশ্বের আনাচ-কানাচে থেকে প্রতিযোগী আসছে। এখানে অনেক ধরনের ব্র্যান্ড ছিল যেগুলো আমাদের দেশে নাই। এটা আমার জন্য ভালো অভিজ্ঞতা ছিল।

মুম্বাইয়ের অ্যামেচার বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতা থেকে কীভাবে অনুপ্রাণিত হলেন?

এখানে যারা বিচারক ছিলেন, প্রতিযোগিতার শেষে তারা আমার সঙ্গে কথা বলেছেন। তারা এটাই বললেন যে, বাংলাদেশেও যে বডিবিল্ডার নারী আছে বা ওখানেও যে বডিবিল্ডিং হয়, তাতে ওরা অবাক হয়েছে। এমন ফিজিক্যাল কন্ডিশন নিয়ে আসছে কোন নারী।

আমি যাদের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করি তারা মূলত ৩৭-৩৮ বছর বয়সী বডিবিল্ডার। ওরা ১৬-১৭ বছর ধরে প্রতিযোগিতা করে। যেখানে আমি ২০১৯ সাল থেকে শুরু করি। নিজেকে প্রস্তুত করি। আমার পিঠে অনেক ইনজুরি ছিল। সেখান থেকে সেরে উঠে প্রস্তুতিতে নামি।

বিকিনিতে স্টেজে পারফর্ম করা ছিল চ্যালেঞ্জিং: বডিবিল্ডার মৌ
মাকসুদা আক্তার মৌয়ের পদক ও পোজ। ছবি: সংগৃহীত

মুম্বাইয়ে বডিবিল্ডিং নিয়ে নতুন কী শিখলেন?

এখানে প্রশংসা বেশি পেয়েছি। আমার কিছু দুর্বলতা ছিল, যা বের করার চেষ্টা করেছি। যারা প্রথম বা দ্বিতীয় হয়েছে ওদের অবস্থা কী বা আমার উন্নতি করতে হবে কোথায়, সেগুলো বের করার চেষ্টা করছি। ওরা অনেক বছর ধরে করছে তাই তাদের পেশি বেশি পরিপক্ব। বিচারকরা বললেন, আমার কন্ডিশনিংটা ভালো। আমি যেহেতু কম দিনে প্রস্তুত করেছি নিজেকে, তাই পেশিগুলো কম পরিপক্ব হয়েছে। আমি যদি আরও কয়েক বছর ধরে চালিয়ে যাই, তাহলে আরও ভালো করব।

ওনারা যেভাবে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন যে যদি আরও দু-তিন বছর লেগে থাকি তাহলে বড় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারব। ওই অনুপ্রেরণা আসলেই ভালো ছিল।

দেশের বাইরে গিয়ে বড় কোনো টুর্নামেন্টে নেমে প্রথমবারই পদক পাবেন বলে আশা করেছিলেন?

না। সত্যিকার অর্থে ২০২০ সালে যখন বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতায় নামি, তখনই বলছি পরের বছরে আমি প্রতিযোগিতা করব। আমার লক্ষ্য ছিল এখানে আসা। পুরো বছর প্রস্তুতি নিয়েছি। চোটের পর বিশ্রামেও ছিলাম অনেক দিন। ফিজিও নিয়ে ঠিক হয়েছি।

বাংলাদেশে আপনি জানেন যে, আমরা নারীরা হাফ স্লিভ বা প্যান্ট পরে প্রতিযোগিতায় অংশ নিই। আর এখানে বিকিনি পরে স্টেজে উঠতে হয়েছে। পারফর্ম করতে হয়েছে। বিষয়টা চ্যালেঞ্জিং ছিল। ওখানে ছোট ছোট ভুলগুলো অনেক বড় করে দেখা হয়।

আমার কোচ ছিলেন বাংলাদেশ থেকে। আমি গর্ব বোধ করি যে বাংলাদেশে এই কন্ডিশনিংয়ের ওপরে কোচ আছেন।

২০১৯ সালের আগে সেভাবে বডিবিল্ডিংয়ের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না। কী কাজ করেছে মূলত এই খেলায় আসার ব্যাপারে?

বডিবিল্ডিংয়ের প্রক্রিয়া একেবারে আলাদা। ডায়েটিং থেকে শুরু করে অনেক কিছু নিয়ন্ত্রণ ও মেনে চলতে হয়। ২০১৯ সালে যখন ‍শুরু করি তখন একটা টুর্নামেন্টে দ্বিতীয় হই। তখন ভেবেছি যদি একটু ভালো কন্ডিশনিং নিয়ে আসি তাহলে আরও ভালো করব।

বিকিনিতে স্টেজে পারফর্ম করা ছিল চ্যালেঞ্জিং: বডিবিল্ডার মৌ
কঠোর পরিশ্রমে দুই বছরে যে শারীরিক পরিবর্তন এনেছেন মৌ। ছবি: সংগৃহীত

পুরো বিষয়টা তো অনেক পরিশ্রমের। পরিবার-আত্মীয়স্বজন নিয়ে কীভাবে প্রস্তুতি নিলেন?

সবশেষ চার মাস আমার কোনো পারিবারিক জীবন ছিল না। একা ছিলাম প্রায় সময়। শুধু প্রস্তুতিতে মনোযোগ দিয়েছি। এটা কঠিন ছিল।

ফিটনেস ঠিক রাখার জন্য জিম করা আর বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতার জন্য প্রস্তুত হওয়া দুটি ভিন্ন বিষয়। ফিটনেস থেকে এই খেলায় আসার মানসিক প্রস্তুতি কীভাবে নিয়েছিলেন?

ঢাকায় আমার যারা ট্রেইনার ছিলেন তারা মূলত দারুণভাবে অনুপ্রাণিত করেছেন। ফিটনেস থেকে বডিবিল্ডিংয়ে প্রবেশ করাটা আমার জন্য সমস্যা ছিল না। সারা দিন আমাকে যদি কেউ ফোন দেয় তাহলে আমাকে জিমেই পাবে। আমি নিজেও যেহেতু ট্রেইনার, তাই সেভাবে মানিয়ে চলি। মানসিকতা ঠিক থাকলে কঠিন মনে হবে না।

এই খেলায় দেশের নারীদের জন্য আইডলে পরিণত হয়েছেন। দেশে বডিবিল্ডিংয়ে নারীদের খুব একটা উৎসাহিত করা হয় না। কীভাবে তাদের অনুপ্রাণিত করবেন?

প্রথমত বিষয়টা পরিবার থেকে আসে। আমার পরিবারের কেউ বলেনি তুমি জিমে যাও। আমাদের সমাজে গতানুগতিক চিন্তা করে মানুষ। একটা সন্তান হলে সর্বোচ্চ নাচ-গান করার অনুমতি পাওয়া যায়। তবে জিমের ক্ষেত্রে মেয়েদের ওভাবে বলে না। এখনও সমাজব্যবস্থায় ওভাবে চিন্তাটা আসেনি।

কারও যদি ইচ্ছা থাকে আমি বলব পেশাদারভাবে নেয়ার বিষয়টি। দুদিন আসলাম খেললাম! এমনভাবে হয় না। তাকে আসতে হলে চিন্তা করতে হবে যে সে পারবে কী না। মানসিকভাবে শক্তিশালী হতে হবে। চিন্তা করতে হবে আমি যেতে পারব কী না।

এই পেশাটা আসলেই প্রগতিশীল। ফিটনেস বা বডিবিল্ডিংয়ের এতো ক্রেজ! ভারতের দিকে তাকান। আমাদের দেশের মানুষ সাপ্লিমেন্ট পায় না। ওখানে এক্সপোতে ফ্রিতে দেয়া হয়। আমাদের দেশে সাপ্লিমেন্টের দাম ৮-১০ হাজার টাকা। ওখানে ফ্রি! ফ্রিতে প্রোটিন দিচ্ছে। এখান থেকে বোঝা যায় যে তাদের ক্রেজ কত বেশি। এগুলো আসলে আমার ক্ষেত্রে বেশি কাজ করেছে যে বাইরের দেশ যদি পারে তাহলে আমি নই কেন?

ভবিষ্যতে দেশের নারীদের নিয়ে আলাদা কোনো উদ্যোগ নেয়ার পরিকল্পনা আছে?

চিন্তা আছে। আমি যখন চট্টগ্রামে শুরু করি আমি অনেক নারীকে নিয়ে কাজ করতাম। কাপ্তাই থেকে শুরু করে অনেক ছোট ছোট জিমে গিয়েছি। ওখানে নারীরা আসতেন। বোরকা পরেও অনেকে আসতেন। তাদের সম্ভাবনা থাকলেও কেউ মানসিকভাবে শক্ত ছিল না। বাসায় কী বলবে, সমাজ কী বলবে এসব চিন্তা করে অনেকে আসে না। এখানে কাজ করতে হবে। এখন অনেকেই কাজ করছে।

ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে কেমন পার্থক্য দেখলেন?

আপনি দেখবেন ফিটনেস আর ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি আলাদা। আমাদের দেশে ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি আছে কিন্তু ফিটনেস ইন্ডাস্ট্রি নাই। কোনো অভিনেতা-অভিনেত্রী আছে যাদের সিক্স প্যাক আছে? আরিফিন শুভ আসে আমাদের জিমে। এছাড়া আসলে কেউই আসে না। আমি বলব না এটা ওদের দোষ। মূলত ওভাবে গাইডলাইনটা পায় না।

পরবর্তী লক্ষ্য কী?

এরপরে আমি ফ্রান্সে যাচ্ছি। বডিবিল্ডিং চ্যাম্পিয়নশিপের প্রাক-বাছাইয়ে অংশ নেব। ১৫ ডিসেম্বর রওনা দেব। আমার অভিজ্ঞতাও হবে। জানি না ফল কী হবে। কিন্তু আমি চালিয়ে যাব। দেশে ৮ তারিখ এসে ভিসার কাজটা শুরু করব। তারপর নিজেকে প্রস্তুত করব। যেহেতু এখন কন্ডিশনিং আছে শরীরের। তাই খুব একটা সমস্যা হবে না। আরও কন্ডিশনিং হবে। দোয়া করবেন।

নিউজবাংলাকে সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

নিউজবাংলাকেও ধন্যবাদ

আরও পড়ুন:
ব্যবসা শুরু যার ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

আগে শনাক্ত হলে লিভার সিরোসিসের চিকিৎসা সম্ভব

আগে শনাক্ত হলে লিভার সিরোসিসের চিকিৎসা সম্ভব

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. রোকসানা বেগম জানান, লিভার সিরোসিসের প্রধান কারণ ক্রনিক হেপাটাইটিস বি ভাইরাস। এ ভাইরাস কারও কারও শরীরে ১০-১৫ বছর অবস্থান করে। এই দীর্ঘদিন অবস্থানের কারণে লিভার সিরোসিস দেখা দেয়। ফ্যাটি লিভারের কারণেও এই লিভার সিরোসিস হয়।

লিভার সিরোসিস লিভার বা যকৃতের ক্রনিক রোগ। এতে লিভারের সেলে দীর্ঘস্থায়ী ক্ষত দেখা দেয়। ‘হেপাটাইটিস সি’ ভাইরাস শরীরে দীর্ঘদিন অবস্থানের কারণে যকৃতের কোষগুলোর কার্যক্ষমতা নষ্ট হয়ে রোগীর মৃত্যু ঘটাতে পারে।

প্রাথমিক পর্যায়ে এ রোগ শনাক্ত হলে চিকিৎসা সম্ভব। তাই অবহেলা না করে যথাযথ চিকিৎসা নেওয়ার পরামর্শ দিলেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজের হেপাটোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. রোকসানা বেগম। সম্প্রতি নিউজবাংলাকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি এসব কথা বলেন।

ডা. রোকসানা বেগম বলেন, লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত রোগী দীর্ঘদিন কোনো উপসর্গ ছাড়া স্বাভাবিক চলাফেলা করেন। প্রাথমিক পর্যায়ে কম্পেনসেটেড সিরোসিসে আক্রান্ত ব্যক্তির তেমন কোনো লক্ষণ প্রকাশ পায় না। তবে কিছু অভিন্ন লক্ষণ থাকে; যেমন- শারীরিক দুর্বলতা, মাড়ি বা নাক থেকে রক্ত পড়া, ওজন কমে যাওয়া, চামড়া ত্বক ও চোখ হলুদ হওয়া, বমি বমি ভাব। এসব লক্ষণ দেখা দিলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে পরীক্ষা করাতে হবে।

প্রশ্ন: লিভার সিরোসিস বলতে আমরা কী বুঝি?

ডা. রোকসানা বেগম: শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে বর্তমানে আসা রোগীদের একটি বড় অংশ লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত। রোগের ক্ষেত্রে এর পরেই লিভার ক্যান্সারের অবস্থান। লিভার বা যকৃতের যে কোনো ক্রনিক রোগের কারণে লিভারের সেলগুলো নষ্ট হয়ে যায়, লিভারের সেলগুলো ঠিকমতো কাজ করে না। তখন যে অবস্থা তৈরি হয়, তাকে মূলত লিভার সিরোসিস বলা হয়।

প্রশ্ন: লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হওয়ার কারণ কী?

ডা. রোকসানা বেগম: প্রধান কারণ ক্রনিক হেপাটাইটিস বি ভাইরাস। এ ভাইরাস কারও কারও শরীরে ১০-১৫ বছর অবস্থান করে। এই দীর্ঘদিন অবস্থানের কারণে লিভার সিরোসিস দেখা দেয়। ফ্যাটি লিভারের কারণেও এই লিভার সিরোসিস দেখা দেয়। এখন এটি অনেক কমন হয়ে দেখা দিয়েছে। আল্ট্রাসনোগ্রাফি করলেই একটা বড় অংশের ফ্যাটি লিভার ধরে পড়ে। ‘হেপাটাইটিস সি’ ভাইরাসের কারণে লিভার সিরোসিস দেখা দেয়। এ ছাড়া জেনেটিক কারণও লিভার সিরোসিসের জন্য দায়ী। অ্যালকোহলও অনেক ক্ষেত্রে লিভার সিরোসিসের জন্য দায়ী।

আগে শনাক্ত হলে লিভার সিরোসিসের চিকিৎসা সম্ভব
শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের হেপাটোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. রোকসানা বেগম

মানুষের শরীরে দীর্ঘদিন হেপাটাইটিস সি, হেপাটাইটিস বি’র অবস্থান, অ্যালকোহলিজম, ফ্যাটি লিভার, জেনেটিক ডিজিজ এগুলোর কারণে লিভারের কোষগুলোয় এক ধরনের উপদাহ সৃষ্টি হয়। উপদাহ হতে হতে একসময় কোষগুলো কর্মক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। তখন লিভার ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। এ ক্ষেত্রে লিভার প্রতিস্থাপন ছাড়া আর কিছু করার থাকে না।

প্রশ্ন: কীভাবে বুঝবেন আপনি লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত?

ডা. রোকসানা বেগম: লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হয়েছেন কি না দুইভাবে জানা যাবে। লিভার সিরোসিসের দুটি পর্যায় থাকে। একটি হচ্ছে কম্পেনসেটেড সিরোসিস। আর একটি হচ্ছে ডি-কম্পেনসেটেড সিরোসিস। কম্পেনসেটেডকে প্রাথমিক পর্যায় বলা হয়। এ সময় কোনো লক্ষণ প্রকাশ পায় না। সাধারণত এ সময় রোগীর শরীরিক দুর্বলতা দেখা যায়। এ ছাড়া লিভার যেখানে থাকে, পেটের ডান পাশে ওপরের দিকে, সেখানে ব্যথা থাকে। অন্য কোনো রোগ শনাক্ত করতে যে পরীক্ষা দেওয়া হয়, তাতে অনেক সময় বি ভাইরাস, সি ভাইরাস বা লিভারের কোনো সেল নষ্ট পাওয়া যায়। এ সময় সাধারণত সঠিক চিকিৎসা নিলে এটি নিরাময় সম্ভব। তবে তখন এই লিভার সিরোসিসের কোনো লক্ষণ প্রকাশ পায় না।

প্রশ্ন: রোগীরা হাসপাতালে কোন ধরনের জটিলতা নিয়ে আসেন?

ডা. রোকসানা বেগম: যেহেতু লিভার নিয়ে কাজ করি, তাই আমরা সব ধরনের রোগী পেয়ে থাকি। অবস্থা যখন বেশি গুরুতর, তখন রোগীরা আমাদের কাছে আসেন। পেটে বা পায়ে পানি দেখা দিলে, জন্ডিস, হেপাটাইটিস বি, হেপাটাইটিস সি এসব সমস্যা নিয়ে আমাদের কাছে বেশি আসেন। তখন আমরা তাদের লিভার সিরোসিস পরীক্ষা করি। অন্যান্য পরীক্ষার মধ্যেই লিভার সিরোসিস আছে কি না পরীক্ষা করি।

প্রশ্ন: লিভার সিরোসিসের চিকিৎসা কী?

ডা. রোকসানা বেগম: লিভার সিরোসিস চিকিৎসার বিষয়ে কিছু কিছু জিনিস আমাদের লক্ষ্য রাখতে হবে। প্রথমে দেখতে হবে রোগীর লিভার সিরোসিস কোন পর্যায়ে আছে। পূর্ণাঙ্গ লিভার সিরোসিস নিরাময় সম্ভব নয়। তাই যে রোগের কারণে লিভার সিরোসিস হয়েছে, আমরা সেই রোগ নিরাময় করার চেষ্টা করি। একজন যদি সম্পূর্ণভাবে এই রোগে আক্রান্ত হন, তা হলে লিভার প্রতিস্থাপন করা ছাড়া নিরাময় করা সম্ভব নয়। এটি শুধু বাংলাদেশে নয়, সব দেশেই এই অবস্থা। যখন কোনো রোগী লিভার প্রতিস্থাপন করতে পারেন না, তখন আমরা সাইড সিম্পটমগুলোর চিকিৎসা করার চেষ্টা করি। যেমন লিভার সিরোসিসের সঙ্গে যাদের জন্ডিস রয়েছে, তাদের জন্ডিসের চিকিৎসা দিই। যার পেটে পানি দেখা দেয়, তার পেটের পানি কমানোর চিকিৎসা দিই। রোগীদের রক্তবমি ও কালো পায়খানা হয়। এটি নিয়ন্ত্রণে আমরা চিকিৎসা দিই। আমরা সেটি কমানোর চেষ্টা করি। রোগী যাতে অজ্ঞান না হয়ে যান, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। শরীরের লবণের মাত্রা কমে যাচ্ছে কি না, নতুন করে কোনো ইনফেকশন দেখা দিচ্ছে কি না- এগুলো লক্ষ্য রাখা হয়।

লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হওয়ার প্রধান কারণ হেপাটাইটিস সি এবং বি ভাইরাস। এ দুটি ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে মুখের খাওয়ার ওষুধ পাওয়া যায়। এ ওষুধ বাংলাদেশে কম মূল্যে পাওয়া যায়। তাই আমরা যখন কোনো রোগীর শরীরে হেপাটাইটিস সি ও বি ভাইরাস দেখি, তা প্রতিরোধে ওষুধ দিয়ে থাকি। আগে থেকে এই দুই ভাইরাসের চিকিৎসা দিলে লিভার সিরোসিসের পর্যায়ে যাওয়ার আশঙ্কা খুবই কম থাকে। ফ্যাটি লিভার থাকলে সেটির চিকিৎসা দিয়ে থাকি।

গুরুতর রোগীকে প্রতিনিয়ত ফলোআপে রাখা হয়। নতুন কোনো সাইড সিম্পটম দেখা দিচ্ছে কি না, সেটি আমরা লক্ষ্য রাখি। সেখান থেকে ক্যান্সারের দিকে ধাবিত হচ্ছে কি না, সেদিকে লক্ষ্য রাখা হয়। এ ধরনের রোগীকে নির্দিষ্ট সময় পরপর ফলোআপে রাখা হয়। এটিও আসলে চিকিৎসার অংশ।

প্রশ্ন: লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত রোগীর কি সার্জারির প্রয়োজন হয়?

ডা. রোকসানা বেগম: লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত ব্যক্তির সম্পূর্ণ চিকিৎসা লিভার প্রতিস্থাপন। তবে লিভার প্রতিস্থাপন দেশের সব হাসপাতালে এখনও সব জায়গায় শুরু হয়নি। শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে লিভার প্রতিস্থাপন করা হচ্ছে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত ও সিঙ্গাপুর থেকে বেশ কয়েকটি দেশে লিভার প্রতিস্থাপনে চিকিৎসা দেয়া হয়। সবচেয়ে কম খরচের কথা যদি বলতে চান, তা হলে অবশ্যই ভারতে চিকিৎসার কথা বলতে হবে। দেশে থেকে চিকিৎসা নিলে ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা খরচ হয়ে থাকে। এটি মূলত লিভার প্রতিস্থাপনের খরচ।

আগে শনাক্ত হলে লিভার সিরোসিসের চিকিৎসা সম্ভব

লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হলে অনেক সময় রক্তবমি হয়ে থাকে। এটি বন্ধে ব্যান্ড পরানো হয়। এর পেছনে খরচ হয়ে থাকে। এই চিকিৎসার জন্য খরচ হয় ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা।

এ ছাড়া স্টেম সেল থেরাপি নামে একটি চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা আছে। যারা লিভার প্রতিস্থাপন করতে পারে না, তাদের জন্য স্টেম সেল থেরাপির একটি ট্রিটমেন্ট ব্যবস্থাপনা রয়েছে। স্টেম সেল থেরাপির মাধ্যমে রোগীকে অনেক দিন বাঁচিয়ে রাখা সম্ভব। অনেক দিন ধরেই বাংলাদেশে এ চিকিৎসা হচ্ছে। দেশে অল্প খরচে এটি সম্ভব হচ্ছে। মাত্র দেড় থেকে ২ লাখ টাকার মধ্যে এই চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব। অন্যান্য দেশে ১৫-২০ লাখ টাকা খরচ হয়। এই চিকিৎসা আমরা লিভার সিরোসিস রোগীদের ক্ষেত্রে নিতে পারি। তবে এটি লিভার প্রতিস্থাপনের বিকল্প নয়। সুযোগ থাকলে লিভার প্রতিস্থাপন করতে হবে।

লিভার সিরোসিসে আক্রান্তদের একটি বড় অংশের পেটে পানি জমে। সেই পানি বের করার জন্য আমরা এক ধরনের ইনজেকশন ব্যবহার করি। এই ইনজেকশনের মাধ্যমে পেট থেকে পানি বের করা হয়। এই চিকিৎসা আমরা সরকারিভাবেও দিয়ে থাকি, বিভিন্ন হাসপাতালের বহির্বিভাগে এ সেবা দেয়া হচ্ছে।

প্রশ্ন: কোন ধরনের জীবনাভ্যাস লিভার সিরোসিসের জন্য দায়ী?

ডা. রোকসানা বেগম: লিভার সিরোসিসের মূল কারণ হেপাটাইটিস বি ভাইরাস ও হেপাটাইটিস সি ভাইরাস। তবে অতিরিক্ত অ্যালকোহল গ্রহণের কারণেও এ রোগে কেউ আক্রান্ত হতে পারেন। এ ছাড়া জেনেটিক কারণ ও লিভারে চর্বির কারণে লিভার সিরোসিস হয়। আমরা যদি একটু সচেতন হই, তা হলে অবশ্যই এটি প্রতিরোধ করতে পারি। কোনো ব্যক্তি হেপাটাইটিস বি ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন বলে সন্দেহ হলে তারা সহজে পরীক্ষা করতে পারেন। মাত্র দুটি টেস্ট করলেই হেপাটাইটিস বি ও হেপাটাইটিস সি ভাইরাস আছে কি না তা জানা সম্ভব। এই হেপাটাইটিস বি ভাইরাসের যদি ট্রিটমেন্ট করা যায়, তা হলে লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেকাংশে কমে যাবে।

প্রশ্ন: লিভার সিরোসিস রুখতে করণীয় কী?

ডা. রোকসানা বেগম: ফ্যাটি লিভারের কারণেও যেহেতু লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে, সে জন্য আমরা যদি নিয়মতান্ত্রিক জীবনযাপন করতে পারি, তা হলে ফ্যাটি লিভার থেকে মুক্ত থাকা যায়। জীবনযাপনের বিষয়টি সম্পূর্ণ আমাদের হাতে। আমরা চাইলেই ফাস্টফুড ত্যাগ করতে পারি, গরুর মাংস, খাসির মাংস, চর্বিযুক্ত খাবার নিয়মতান্ত্রিকভাবে খেতে পারি। নিয়মিত শরীরচর্চা করা উচিত। লিভারে চর্বি জমা না হলে লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমে যাবে। আমরা সুরক্ষিত থাকব। নিয়মতান্ত্রিকভাবে অ্যালকোহল গ্রহণ করতে হবে। হেপাটাইটিস ভাইরাস প্রতিরোধে অবশ্যই আমরা টিকা গ্রহণ করব। অনেক সময় দেখা যায় হেপাটাইটিস সি ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে গর্ভবতী মা। তখন সন্তান প্রসব করলে শিশু হেপাটাইটিস বি আক্রান্ত হয়েছে কি না তা পরীক্ষা করতে হবে। একই সঙ্গে গর্ভবতী মা যদি হেপাটাইটিস বি-তে আক্রান্ত হয়ে থাকেন, তা হলে সন্তান প্রসবের সঙ্গে সঙ্গে সেই সন্তানকে দুটি টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

আরও পড়ুন:
ব্যবসা শুরু যার ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের ছাত্র মেফতাউল আলম সিয়াম তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় তিন ইউনিট ও বিভাগে প্রথম হন। ছবি: নিউজবাংলা

বুয়েটের ইইইতে ভর্তি কেন হতে চান জানতে চাইলে সিয়াম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি একজন রিসার্চার হতে চাই। ইইইতে রিসার্চের ফিল্ডটা বেশি।’

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) স্নাতকের ভর্তি পরীক্ষায় প্রকৌশল এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা (ইউআরপি) বিভাগে প্রথম হয়েছেন বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের ছাত্র মেফতাউল আলম সিয়াম।

এর আগে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা এবং গাজীপুরের ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজির (আইইউটি) ভর্তি পরীক্ষায়ও প্রথম হন।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষায় সিয়ামের অবস্থান ছিল ৫৯তম। এ ছাড়া তিন প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় তৃতীয় হন তিনি।

ধারাবাহিক এ সাফল্যের কারণ, অনুপ্রেরণাসহ প্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে সিয়ামের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার।

নিউজবাংলা: আইইউটি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিট, বুয়েটের একটি বিভাগে আপনি প্রথম হয়েছেন। এ সাফল্যের মূল কারণ কী বলে মনে করেন?

সিয়াম: এইচএসসি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার পড়ালেখায় রেগুলার ছিলাম। বেশ কিছু রাইটারের বই ফলো করেছি। এইচএসসি থেকেই বিগত বছরের ভর্তি পরীক্ষায় আসা প্রশ্ন সলভ করার প্র্যাকটিস ছিল, যার কারণে ভর্তি পরীক্ষার পূর্ব সময়ে প্রস্তুতি নিতে অসুবিধা হয়নি।

আগে থেকে বিশ্ববিদ্যালয় লেভেলে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন নিয়ে ধারণা ছিল। আমি এইচএসসি ফার্স্ট ইয়ার থেকেই নিয়মিত পড়াশোনা করেছি। নিয়মিত পরিশ্রম করাটা এ ক্ষেত্রে কাজে লেগেছে।

নিউজবাংলা: আপনার সাফল্যের পেছনে সবচেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা কার?

সিয়াম: অবশ্যই মায়ের ভূমিকা বেশি। ছোটবেলা থেকে অনুপ্রেরণা জোগাত। সে-ই পাশে ছিল। বাবার ভূমিকাও কম নয়।

আব্বু অবসরপ্রাপ্ত এনজিও কর্মকর্তা। আম্মু গ্র্যাজুয়েশন করা। আম্মু প্রাইমারি পর্যন্ত আমাকে গাইড করেছেন। পরবর্তী সময়ে আমি নিজেই নিজেকে সামলে নিয়েছি।

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

নিউজবাংলা: কোনো পরীক্ষা দেয়ার আগে প্রথম হওয়ার লক্ষ্য ছিল কী?

সিয়াম: পরীক্ষার হলে ও রকম টার্গেট ছিল না। নিজের বেস্ট আউটপুটটা দেয়ার চেষ্টা করছি। হয়তো আশা ছিল ভালো কিছু করব। আমি ফার্স্ট হব, সে রকম কোনো টার্গেট ছিল না।

নিউজবাংলা: আপনার সামনে অনেকগুলো অপশন। কোথায় ভর্তি হবেন?

সিয়াম: বুয়েটের ইইইতে (ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ)।

নিউজবাংলা: কেন?

সিয়াম: আমি একজন রিসার্চার হতে চাই। ইইইতে রিসার্চের ফিল্ডটা বেশি।

নিউজবাংলা: এসএসসি থেকেই কি এমন স্বপ্ন ছিল?

সিয়াম: এসএসসি পর্যন্ত আমার লক্ষ্য ছিল চিকিৎসক হওয়ার। আমার আম্মুও চেয়েছিলেন আমি চিকিৎসক হই, কিন্তু এইচএসসিতে এসে লক্ষ্য পাল্টে যায় একজন স্যারের কাছ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে। আমি একজন সফল গবেষক হয়ে দেশ ও জাতির প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতে চাই।

নিউজবাংলা: আপনার সাফল্যে বন্ধু-বান্ধব কিংবা বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের শিক্ষকদের প্রতিক্রিয়া কী?

সিয়াম: কলেজের শিক্ষকগণ অনেক খুশি। বন্ধুরা অনেক খুশি; তাদের ফ্রেন্ড ফার্স্ট হয়েছে। কলেজের অধ্যক্ষ স্যার আমাকে ডেকে নিয়ে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

নিউজবাংলা: অনেকে বলে থাকেন তুখোড় মেধাবীরাও একসময় অতীতের সাফল্য ভুলে স্রোতে গা ভাসান। আপনি এ ব্যাপারে কতটা সতর্ক?

সিয়াম: আমরা যখন এসএসসি বা এইচএসসি লেভেলে পড়ি, তখন মা-বাবার গাইডলাইনে থাকি। বিশ্ববিদ্যালয়ে সে গাইডলাইন থাকে না। ফলে আমাদের ম্যাচিউরিটির অভাবে বা নতুন জীবনযাপনের সম্পর্কে ধারণা না থাকায় এমনটা হয়ে থাকে। অনেকে খাপ-খাইয়ে নিতে পারে না।

আমি মনে করি এ জায়গাগুলো বুঝে চললে কোনো সমস্যা হবে না।

নিউজবাংলা: আপনার জীবনের চূড়ান্ত লক্ষ্য কী?

সিয়াম: একজন গবেষক হয়ে কাজ করা। ভালো কিছু করা, যা দেশের জন্য গর্বের হয়।

নিউজবাংলা: বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুদের জন্য আপনার কোনো পরামর্শ আছে?

সিয়াম: পড়াশোনায় সবসময় রেগুলার থাকতে হবে। রেগুলার পড়ব। বুঝে পড়ার চেষ্টা করব। পাশাপাশি বিনোদনও থাকবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যেন প্রয়োজনের অতিরিক্ত সময় ব্যয় না হয়, সেটা খেয়াল রাখব। পড়াশোনায় যেন কোনো ব্যাঘাত না ঘটে, সেটা সবসময় খেয়াল রাখতে হবে।

নিউজবাংলা: আমাদের সময় দেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

সিয়াম: আপনাকেও ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন:
ব্যবসা শুরু যার ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

মঞ্চে ফেরা আনন্দের: আফজাল

মঞ্চে ফেরা আনন্দের: আফজাল

ছোট ও বড় পর্দার তুমুল জনপ্রিয় অভিনেতা আফজাল হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

সবশেষ প্রায় ২৪ বছর আগে ‘কেরামত মঙ্গল’ নামে একটি মঞ্চ নাটকে অভিনয় করেন তিনি। ওই নাটকের নির্দেশনাও দিয়েছিলেন বাচ্চু। এরপর পেশাগত ব্যস্ততা ও ভালো গল্পের অভাবে আর মঞ্চ নাটকে অভিনয় করা হয়ে উঠেনি।

নির্মাতা, ছোট ও বড় পর্দার তুমুল জনপ্রিয় মুখ আফজাল হোসেন। প্রায় দুই যুগ পর তিনি ফিরছেন মঞ্চে। পেন্ডুলাম নামের নতুন এক নাটক দিয়ে মঞ্চে ফেরা হচ্ছে তার।

নাটকটির রচয়িতা নাট্যকার মাসুম রেজা। নির্দেশনা দিচ্ছেন খ্যাতিমান নাট্যব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু।

৪৭ বছর আগে ঢাকা থিয়েটারের নাটক ‘বিদায় মোনালিসা’ দিয়ে মঞ্চে যাত্রা শুরু আফজাল হোসেনের। এরপর টানা অভিনয় করেছেন মঞ্চে।

সবশেষ প্রায় ২৪ বছর আগে ‘কেরামত মঙ্গল’ নামে একটি মঞ্চ নাটকে অভিনয় করেন তিনি। ওই নাটকের নির্দেশনাও দিয়েছিলেন বাচ্চু। এরপর পেশাগত ব্যস্ততা ও ভালো গল্পের অভাবে আর মঞ্চ নাটকে অভিনয় করা হয়ে উঠেনি।

দীর্ঘ প্রায় ২৪ পর মঞ্চে ফেরা নিয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলেছেন আফজাল।

তিনি বলেন, ‘একটা সময় নিয়মিত মঞ্চে অভিনয় করতাম। এরপর পেশাগত কারণে আর ওইভাবে সময় দেয়া হতো না; যেতেও না। কারণ মঞ্চে অভিনয়ের জন্য তো প্রচুর সময় লাগে।

‌‘আমার প্রধান দুর্বলতম বিষয় ছিল অভিনয় এবং মঞ্চের জন্য আলাদা একটা টান তো ছিলই। কারণ মঞ্চই তো আমার আলাদা একটা পরিচয় তৈরি করে দিয়েছিল।’

অনেক বছর ধরেই মঞ্চে অভিনয়ের পরিকল্পনা ছিল জানিয়ে আফজাল হোসেন বলেন, ‘অনেক বছর ধরেই পরিকল্পনা ছিল আবার মঞ্চে অভিনয় করব, কিন্তু প্রোপার ক্রিপ্ট ও সে রকম কোনো কিছু হয়তো মেলে নাই। অনেক দিন পর একটা ভালো স্ক্রিপ্ট ও স্পেশাল কিছুর জন্য নাটকটি করা।

‘স্পেশাল বলতে ঢাকা থিয়েটার এবং দেশ নাটক দুটি দল একসঙ্গে নাটকটি প্রযোজনা করছে। সব মিলিয়ে ইন্টারেস্টিং একটা বিষয়। সেই কারণেই আবার মঞ্চে অভিনয় করা হচ্ছে। একই সঙ্গে যাকে আমরা নাট্যগুরু ভাবি, নাসির উদ্দিন ইউসুফ, তিনি এই নাটকের ডিরেকশন দিচ্ছেন। সব মিলিয়ে আমার জন্য আনন্দের বিষয়; ভালো লাগার বিষয়।’

মঞ্চে ফেরা আনন্দের: আফজাল
‘পেন্ডুলাম’ নাটকের মহড়ায় বাঁ থেকে নাজনীন চুমকি, নাসির উদ্দীন ইউসুফ বাচ্চু (মাঝে) ও আফজাল হোসেন (ডানে)। ছবি: সংগৃহীত

পেন্ডুলাম নাটকটির গল্প নিয়ে আফজাল হোসেন বলেন, ‘এটা মূলত আমাদের যে শহরে সোসাইটি...আমরা তো প্রত্যেকেই মফস্বল থেকে আসি। এরপর জীবনে প্রতিষ্ঠার জন্য আমরা তো বহু কিছু করি। তারপর কী হয়? একটা সময় বহু কিছুতে আমাদের সব পাওয়া পূর্ণ হয় বলে মনে করি। আমরা যখন একদম একটা মানুষ পরিচয়হীন অবস্থায় পরিচয়ের সন্ধানে শহরে আসি, তারপর নানা কিছু করি, একটা পরিচয় তৈরি করার চেষ্টা করি।

‌‘অনেক কিছু করি; এটায় আমার সাফল্য আসবে, ওইটায় আমার সাফল্য আসবে। সব পাওয়া হয়, তারপর শেষমেশ কি মনে হয় সব পাওয়া হলো? এটা এমন কোনো অসাধারণ বিষয় না; যেকোনো মানুষের গল্প। গল্পটা হচ্ছে এই, আমরা যে জীবনটা যাপন করি স্বার্থসিদ্ধির জন্য, ভালোর জন্য, জীবন উপভোগের জন্য, এগুলো একটা সময় যে কী হয়ে ফেরত আসে, সেই চিত্রটা দেখানো হবে।’

মঞ্চে ফেরা আনন্দের: আফজাল
‘পেন্ডুলাম’ নাটকের মহড়ায় আফজাল হোসেন ও নাজনীন চুমকি। ছবি: সংগৃহীত

নাটকটি ডিসেম্বরের শেষে মঞ্চে আসবে বলে জানালেন নাট্যকার মাসুম রেজা।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা নিয়মিত শিল্পকলা একাডেমিতে নাটকটির মহড়া করছি। আগামী ডিসেম্বরে নাটকটি মঞ্চস্থ হবে। তবে হল বুকিংয়ের আগে তারিখ ঘোষণা করতে পারছি এখন।’

নাটকে আরও অভিনয় করছেন নাজনীন চুমকি, কামাল আহমেদসহ অনেকে।

আরও পড়ুন:
ব্যবসা শুরু যার ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

ইচ্ছাকৃত ঋণ খেলাপিই বেশি: আরফান আলী

ইচ্ছাকৃত ঋণ খেলাপিই বেশি: আরফান আলী

যেকোনো উন্নয়নশীল অর্থনীতিতে খেলাপি ঋণ বাড়ার সম্ভাবনা থাকে। নতুন বিনিয়োগ করলে কোনো কারণে ব্যবসা যদি লোকসান করে, তখন তারা খেলাপি হয়ে যায়। তবে আমাদের দেশে ইচ্ছাকৃত খেলাপির সংখ্যা বেশি। কারণ, আমাদের আইনি কাঠামো থেকে শুরু করে ব্যাংকিং কাঠামোতে দেখা যায়, ভালো ঋণগ্রহীতার চেয়ে খেলাপি গ্রাহকের দিকে সবার মনযোগ বেশি থাকে।

ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে পাহাড়সম যে খেলাপি ঋণ, তার পেছনে উদ্যোক্তাদের টাকা ফেরত না দেয়ার ইচ্ছাকেই দায়ী করেছেন ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরফান আলী। তার মতে, খেলাপি ঋণদাতাদের মধ্যে ইচ্ছাকৃত খেলাপিই বেশি।

তিনি এও মনে করেন যে, করোনাকালে বিনিয়োগের যে খরা তৈরি হয়েছে, সেটি কেটে যাবে সহসাই।

করোনার ধাক্কার পর বিশ্ব অর্থনীতির মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিও গভীর সংকটে পড়ে গত বছরের শুরুর দিকে। সেই ধাক্কা সামলে অর্থনীতিকে ঘুরে দাঁড় করাতে সোয়া লাখ কোটি টাকার ২৩টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করে সরকার। বর্তমানে সেই প্রণোদনার অঙ্ক বেড়ে ১ লাখ ৪০ হাজার কোটি টাকায় ঠেকেছে।

এই প্রণোদনা ঋণের পুরোটাই বিতরণ করছে ব্যাংকগুলো। গত বছর প্রণোদনা ছাড়া ঋণ বিতরণ খুব একটা ছিল না। তবে এখন মহামারির ধকল কমতে শুরু করেছে। মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা কমতির দিকে। ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে দেশের অর্থনীতি। ঋণ বিতরণও বেড়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে ‘কেমন চলছে ব্যাংক খাত’ এ শিরোনামে নিউজবাংলার ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করছে। সাক্ষাৎকারভিত্তিক এই প্রতিবেদনের দ্বিতীয় পর্বে দেশের ব্যাংকিং খাতের হালচাল নিয়ে কথা বলেছেন ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরফান আলী।

খেলাপি ঋণ দেশের ব্যাংক খাতের এখনও অন্যতম সমস্যা। এ সমস্যা থেকে বের হতে কী করা দরকার?

যেকোনো উন্নয়নশীল অর্থনীতিতে খেলাপি ঋণ বাড়ার আশঙ্কা থাকে। নতুন বিনিয়োগ করলে কোনো কারণে ব্যবসায় লোকসান করে, তখন খেলাপি হয়ে যায়। এটা হতেই পারে।

তবে আমাদের দেশে ইচ্ছাকৃত খেলাপির সংখ্যা বেশি। কারণ, আমাদের আইনি কাঠামো থেকে শুরু করে ব্যাংকিং কাঠামোতেও দেখা যায়, ভালো ঋণগ্রহীতার চেয়ে খেলাপি গ্রাহকের দিকে সবার মনযোগ বেশি থাকে।

যারা ভালো ঋণগ্রহীতা তাদের দিকে বেশি খেয়াল রাখা হয় না। যারা নিয়মিত ঋণ শোধ করেন তাদের কিছু সুবিধা দেয়া উচিত। কিন্তু এখানে হয়েছে উল্টো। যারা টাকা-পয়সা আটকে রাখে তাদের এক সময় ডিসকাউন্ট দেয়া হয়, ছাড় দেয়া হয়। কিন্তু তাদের সুযোগ-সুবিধাগুলো কমিয়ে দেয়া উচিত। প্রকাশ্যে ঘোষণা দেয়া উচিত যে, তারা ঋণ শোধ করছে না।

ঋণ নিয়ে এক হিসেব থেকে অন্য হিসেবে ব্যবহার করার প্রবণতা রয়েছে। দীর্ঘমেয়াদে সম্পদ দীর্ঘমেয়াদে দায় দিয়ে ব্যবস্থাপনা করতে হবে। ওয়ার্কিং ক্যাপিটাল (চলতি মূলধন) দিয়ে অনেকে দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগে চলে গেছে। ফলে খেলাপি ঋণের পরিমাণ বাড়ছে।

তাহলে বিষয়টি কি এমন যে, খেলাপিদের প্রশয় দেয়া হয়, ভালো ঋণগ্রহীতাদের বঞ্চিত করা হয়?

অনেকটা সেরকমই। আমার কাছে মনে হয়েছে ভালো ঋণগ্রহীতার চেয়ে খেলাপিদের প্রভাবটা বেশি। অনেক করপোরেট হাউজ আছে যারা নিয়মিত ঋণ পরিশোধ করছেন, ব্যাংকের শর্ত সব পূরণ করছেন। তাদের জন্য বিশেষ সুযোগ সুবিধা থাকা দরকার। তাদের জন্য আরও বেশি সুযোগ তৈরি করা উচিত বলে আমি মনে করি।

করোনার ধাক্কায় যেখানে সবদিক দিয়েই স্থবিরতা তৈরি হয়েছে, সেখানে তথ্য বলছে, ব্যাংকগুলো ভালো পরিচালন মুনাফা করেছে। কীভাবে এটা সম্ভব হয়েছে?

২০২০ সালের ডিসেম্বরে ব্যালেন্স শিটে সব ব্যাংকের পরিচালন মুনাফা কম ছিল। ঋণের সর্বোচ্চ ৯ শতাংশের সুদহারের সুফল কিন্তু ওই বছর পাওয়া যায়নি।

চলতি বছর আমানতের সুদহার যখন সমন্বয় করতে পারলাম তখন সুদের আয়টা একটু বেশি ছিল। খেলাপি ঋণেরও ছাড় দেয়া হয়েছে। ফলে ব্যাংকগুলো সঞ্চিতিতে কিছুটা ছাড় পেয়েছে। এ কারণেও মুনাফা হয়েছে বেশি। চলতি ডিসেম্বরে যখন সুবিধাগুলো আরও কমে যাবে তখন ব্যাংকের প্রকৃত মুনাফা বোঝা যাবে।

বর্তমানে ব্যাংক খাতে আলোচিত বিষয় আমানতের সুদহার। আমানতের সুদ হার বিষয়ে নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। বলেছে, সুদহার মূল্যস্ফীতির চেয়ে কম হতে পারবে না। এতে আপনাদের আপত্তি আছে, যা গভর্নরের সঙ্গে বৈঠকে স্পষ্ট করেছেন। এই নির্দেশনা পরিপালনে ব্যাংক খাতের চ্যালেঞ্জ কী?

চাহিদা ও যোগানের উপর ভিত্তি করে ব্যাংকিং পরিচালনা করা হয়। এখন ঋণে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ সুদ বাস্তবায়ন করা হয়েছে। কিন্তু সেটা ৯ শতাংশেরও নিচে চলে এসেছে। ৭ থেকে ৮ শতাংশ সুদেও ঋণ বিতরণ করা হচ্ছে। করপোরেট ঋণে কোনো কোনো ঋণে সেটা আরও কম।

ঋণ ও আমানতে সুদহারের যে ব্যবধান (স্প্রেড) থাকে ব্যাংক সেটা দিয়ে ব্যাংক চলে। সুতরাং ঋণে সুদ বাড়ানোর যেহেতু কোনো সুযোগ নেই, ব্যাংক গ্রাহকের সঙ্গে এটা সমন্বয় করে ফেলছে।

তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের এ নির্দেশনার ফলে ব্যক্তি আমানতকারীদের সুবিধা হবে। তাদের টাকার মান যেন নষ্ট না করে, বিনিয়োগ যেন নিরাপদ থাকে এ কারণে মূল্যস্ফীতির কম সুদ না দেয়ার বিষয়ের নির্দেশনা সঠিকভাবে পরিপালন করা হবে। এর ফলে টাকার মান নষ্ট হচ্ছে না। কারণ, সঞ্চয় বিষয়টা খুব গুরুত্বপূর্ণ। ব্যক্তি বিশেষ সঞ্চয় না করলে বড় বড় করপোরেটরা এত টাকা ঋণ পাবে না।

মহামারি করোনাভাইরাসের ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বড় ভূমিকা রাখছে ব্যাংক খাত। জরুরি সেবার আওতায় লকডাউনের মধ্যেও বন্ধ থাকেনি এ খাতের সেবা। সেই ব্যাংক খাতের সার্বিক অবস্থা এখন কেমন?

করোনার মধ্যে ব্যাংকিং সেবা নিশ্চিত করতে নিজেদের প্রস্তুত করেছি। কারণ ব্যক্তি থেকে শুরু করে করপোরেট, সবারই আর্থিক খাতের সেবা দরকার পড়ে। আমাদের দেশে অনলাইন ও ডিজিটাল ব্যাংকিং এখনও সেভাবে প্রসার লাভ করেনি। সে কারণে ব্যাংকের শাখা বা এজেন্ট বুথে এসে গ্রাহদের সেবা নেয়ার প্রবণতা এখনও আছে। আমরা করোনার সময়েও সীমিত পরিসরে সব খোলা রেখে গ্রাহকদের সেবা দেয়ার সর্বোত্তম চেষ্টা করেছি।

বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সরকারের ভাতাসহ সব ধরনের সেবা দেয়ার জন্য নিজেদের সেভাবে তৈরি রেখেছি।

ক্ষতি পোষাতে বিশাল অংকের প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে সরকার। কিন্তু অভিযোগ আছে বড় বড় ব্যবসায়ীদেরই প্রণোদনার অর্থ দেয়া হচ্ছে, বঞ্চিত হচ্ছে ক্ষুদ্র এবং মাঝারি শিল্প। প্রকৃত চিত্র কী?

ছোটরা বঞ্চিত হচ্ছে বিষয়টি তেমন নয়। কর্মাশিয়াল কোনো ব্যাংকের হেড অফিস কিন্তু গ্রামাঞ্চলে নেই। শহরভিত্তিক কার্যক্রম বেশি করা হয়। ব্যাংকগুলো প্রত্যন্ত অঞ্চলে এ ধরনের সেবার জন্য তেমন প্রস্তুত ছিল না। এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের কারণে ওইসব জায়গায় সেবা দেয়ার পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। সব ব্যাংক এখন চেষ্টা করছে।

প্রণোদনার ক্ষুদ্র ঋণ দেরি হয়েছে। কিন্তু এরপরেও অনেকাংশে ঋণ বিতরণ হয়েছে। করপোরেট ঋণগুলো ঢাকা, চট্রগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, সিলেটসহ এমন কিছু শহরে ছিল। কিন্তু ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের কাজ তো পুরো দেশজুড়ে ছড়িয়ে আছে। সেজন্য সময় বেশি লেগেছে।

ব্যাংক ঋণের সুদের সর্বোচ্চ হার এখন ৯ শতাংশ। যখন এই সুদ হার কার্যকর হয়, তারপরই হানা দেয় করোনা। সুবিধা দেয়ার পরও দিন দিন কমছে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ। তাহলে কি বিনিয়োগ বাড়ার ক্ষেত্রে কম সুদ কোনো ভূমিকা রাখে না?

ঋণের ক্ষেত্রে ডিমান্ড-সাপ্লাই এর একটা বিষয় আছে। ঋণের সুদ ৯ শতাংশ হলেই যে সব ধরনের ঋণ বিতরণ হবে বিষয়টি তেমন না।

করোনাকালে বেসরকারি ঋণ প্রবৃদ্ধি লক্ষ্যমাত্রার অনেক নিচে। কারণ, উদ্যোক্তারা নতুন বিনেয়াগের ব্যাপারে খুব একটা সাহসী ছিল না। করোনা পরিস্থিতিতে অনেকের জন্য নতুন বিনিয়োগ করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া কস্টকর ছিল। বিনিয়োগে করলে রিটার্ন কেমন পাবে বা পরিস্থিতি কেমন হবে-এসব কারণে তাদের মধ্যে ‘ওয়েট অ্যান্ড সি’ পলিসি কাজ করেছে। সে কারণে নতুন কোনো প্রজেক্ট আমরা তেমন দেখতে পাইনি।

তবে আশার কথা হলো, এখন আবার পুরোদমে কাজ শুরু হয়েছে। অনেকে নতুন নতুন প্রকল্প নিয়ে আমাদের সামনে আসছেন। সুতরাং, এতদিন যে স্থবিরতা গেছে, এখন সেটা কেটে যেতে শুরু করেছে। বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ বাড়বে। বিনিয়োগে স্থবিরতা কেটে যাবে।

করোনাকে সঙ্গে নিয়েই বিশ্ব পরিস্থিতি পাল্টাতে শুরু করেছে। সবকিছু স্বাভাবিক হচ্ছে। মহামারির এই ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ব্যাংক খাত কী ধরনের কর্মপরিকল্পনা নিতে পারে?

যারা ক্ষতিগ্রস্ত উদ্যোক্তা তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। তারা আমাদের চালিকাশক্তি। বিশেষ করে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তা দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। করোনার মধ্যে এসব শিল্পে কাজ চলমান ছিল। ব্যাংকারদের এসব উদ্যোক্তার পাশে দাঁড়াতে হবে। ঋণ প্রবৃদ্ধি যেন বাড়ে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

আগে আমাদের ব্যাংকগুলো শহরভিত্তিক ছিল। কিন্তু এখন প্রত্যন্ত অঞ্চলেও ব্যংকের সেবা পৌঁছে গেছে। এটা আরও ছড়িয়ে দিতে হবে। করোনার সময়েও অনেক ব্যবসা চালু ছিল। কাজ চালু রাখার কারণে অর্থনীতিতে তেমন নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি।

করোনা পরবর্তী ব্যাংক খাত আরও ভালো করবে বলে আমি আশা করি। সম্পদের সমৃদ্ধি আরও ভালো হবে। ক্যারিয়ার ব্যাংকিংও ভালো হবে। ব্যাংক খাতে কাজ করার সক্ষমতা আরও বাড়বে।

আরও পড়ুন:
ব্যবসা শুরু যার ২০ টাকায়

শেয়ার করুন

‘শুধু সংখ্যা দিয়ে জোট করলে হবে না’

‘শুধু সংখ্যা দিয়ে জোট করলে হবে না’

নিউজবাংলার সঙ্গে আলাপে বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বীরপ্রতীক।

সাম্প্রতিক রাজনীতি নিয়ে নিউজবাংলার মুখোমুখি হয়েছেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক। ২০-দলীয় জোট নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা চাই কোনো দল কিংবা নেতা কী অবদান রাখতে পারবে বা পেরেছে, সেটার ওপর ভিত্তি করে তার ভূমিকা স্থির করতে হবে। শুধু সভায় গেলাম আর বের হলাম, শুধু শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে বসলাম আর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বের হলাম, এটা হয় না। আর যেহেতু দেশনেত্রী (খালেদা জিয়া) নাই, সরকার এখন কোনো প্রকারের বড় জনসমাবেশ অ্যালাও করছে না, সুতরাং তার রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাও ভিন্ন হবে।’

মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান। তার দল বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের শরিক হলেও সম্প্রতি তার কথাবার্তায় জোট ত্যাগের ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে জোট ও সরকারবিরোধী আন্দোলন নিয়ে নিউজবাংলা কথা বলে তার সঙ্গে।

প্রশ্ন: আপনি কি ২০-দলীয় জোট ছেড়ে যাচ্ছেন?

জেনারেল ইবরাহিম: না না, ২০ দল ছেড়ে যাব কেন? সেদিন এমন কোনো কথা বলিনি। আমরা অনেক দিন যাবৎ আবেদন করছি, অনুভূতি প্রকাশ করছি, প্রধান শরিক বিএনপির সঙ্গে চলতে আমরা আনন্দিত। কিন্তু তাদের কাছে আবেদন, আপনারা আত্মসমালোচনামূলক একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ২০ দলকে পুনর্গঠিত করুন। ২০ দল, ১৮ দল, ১০ দল, ২২ দল করেন, কিন্তু আত্মসমালোচনার প্রক্রিয়া নেয়া প্রয়োজন। কারণ গত আট-নয় বছরে আমরা অনেক ভুল করেছি, ভালো কাজও করেছি, সুতরাং এই আত্মসমালোচনা প্রয়োজন। যদি একান্তই আমাদের প্রধান শরিকের পক্ষে সম্ভব না হয়, তাহলে আমরা নিশ্চয়ই নিজেদের কর্মপন্থা স্থির করব।

প্রশ্ন: বিষয়টি কি এমন যে আপনি বিএনপির কাছে মূল্যায়ন চান? মূল্যায়ন পাচ্ছেন না বলেই কি এমন কথা বলছেন?

জেনারেল ইবরাহিম: অবশ্যই মূল্যায়ন আত্মসমালোচনার একটা অংশ।

প্রশ্ন: কী ধরনের মূল্যায়ন আসলে চান?

জেনারেল ইবরাহিম: আমরা চাই, কোন দল কিংবা নেতা কী অবদান রাখতে পারবে বা পেরেছে, সেটার ওপর ভিত্তি করে তার ভূমিকা স্থির করতে হবে। শুধু সভায় গেলাম আর বের হলাম, শুধু শীর্ষ নেতাদের বৈঠকে বসলাম আর শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বের হলাম, এটা হয় না। আর যেহেতু দেশনেত্রী (খালেদা জিয়া) নাই, সরকার এখন কোনো প্রকারের বড় জনসমাবেশ অ্যালাও করছে না, সুতরাং তার রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাও তো ভিন্ন হবে। এখন থেকে চার-পাঁচ বছর আগে দেশনেত্রী, আমরা রোডমার্চ করেছি, বিভিন্ন জেলায় বিভাগীয় শহরে, বড় শহরে জনসভা হয়েছে। সেটা এখন সম্ভব না, যেহেতু সরকার এখন বৈরী পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। তাহলে এ প্রেক্ষাপটে আমাদের করণীয় কী হতে পারে, সেটা আমাদের স্থির করতে হবে, শুধু সংখ্যা দিয়ে তো আর জোট করলে হবে না, সারবস্তু চাই।

এখন আমরা চরম সংকটে আছি। রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য এই সংকট সৃষ্টি করেছে সরকার, সরকারবিরোধী শিবিরের রাজনৈতিক দলগুলোর জন্য অস্তিত্বের সংকট সৃষ্টি করেছে, কর্মযজ্ঞের সংকট সৃষ্টি করেছে। সমগ্র দেশের রাজনীতিকে সংকটাপন্ন অবস্থায় নিয়ে গেছে, বিরাজনীতিকরণ প্রক্রিয়া প্রায় চূড়ান্ত করে ফেলেছে। সুতরাং এখানে গভীর বিশ্লেষণের মাধ্যমে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে যে, গণতন্ত্রকে কেমন করে পুনরায় ফেরত আনা যায়।

প্রশ্ন: মূল্যায়নটা পাচ্ছেন না কেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি তো বলি নাই মূল্যায়ন পাচ্ছি না। বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রক্রিয়াটাই এমন। আমি একটা কঠিন শব্দ ব্যবহার করতে চাই, আশা করি আপনারা এটা গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করবেন। সেটা হলো, আমরা শুধু শাসনকারী রাজনৈতিক দলের পরিবর্তন চাই না। শাসনকারী যেই হোক না কেন, কল্যাণ পার্টি অবশ্যই তার মধ্যে গুণগত পরিবর্তন চায়, তার অতীতের কর্মকাণ্ডের প্রেক্ষাপটে আগামীতে তার গুণগত পরিবর্তন চায়। যিনি হবেন হন। কারণ শুধু শাসক পরিবর্তন করলেই তো বাংলাদেশে সমস্যার সমাধান হবে না। দেশের সমস্যাগুলো অনুধাবনে যদি সেই গুণগত পরিবর্তন না থাকে, তাহলে তো হবে না।

প্রশ্ন: ২০-দলীয় জোটের পাশাপাশি আপনারা একটি উপজোটের মতো করেছিলেন ‘জাতীয় মুক্তি মঞ্চ’। সেটা কেন করেছিলেন? আর সেটা গতিই-বা পেল না কেন?

জেনারেল ইবরাহিম: ওটা আমি করি নাই। সুস্পষ্টভাবে আপনাকে জানাই, ওটা করেছিলেন এলডিপির সভাপতি কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম। তিনি দাওয়াত দিয়েছিলেন মুক্তি মঞ্চের কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে এবং সেখানে দেশনেত্রীর (খালেদা জিয়া) মুক্তিই ছিল প্রধান বক্তব্য। ওনার মুক্তির জন্য যে যা বলুক, আমরা সবখানেই ঝাঁপিয়ে পড়েছি। এখন আহ্বায়ক যিনি, উনিই যদি এটা নিয়ে না আগান, তাহলে তো আমাদের কোনো জায়গা থাকে না। আমি সেটার নীতিনির্ধারক ছিলাম না, নাইও। তবে দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য আপনি আমাকে সবখানে পাবেন।

প্রশ্ন: আমরা তো বিএনপিকে তাদের দলের চেয়ারপারসনের মুক্তি নিয়ে খুব বেশি কথা বলতে দেখছি না। আপনি যতটুকু বলেন, এটা তো ওনাদের বলতে দেখিনি। আপনি কেন এই দাবি করেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি ব্যক্তিগতভাবে যেমন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অসীম শ্রদ্ধা করি, তেমনি জিয়াউর রহমানকেও অজস্র শ্রদ্ধা করি। একজন বঙ্গবন্ধু, তিনি তুলনাবিহীন। তার আঙ্গিকে এবং একজন জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতা ঘোষণা দিয়েছিলেন। তিনি তুলনাবিহীন তার আঙ্গিকে। উভয়ের রাজনৈতিক দল রয়েছে। উভয়ই ভালো কাজ করতে চেষ্টা করেছিলেন। তাদের লক্ষ্য ভালো ছিল। দেশনেত্রী বেগম জিয়া আশির দশকে অনেক পরিশ্রম করেছেন গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য। এ জন্য তার প্রতি আমার সম্মান ও মায়া রয়ে গেছে। ওনাকে বন্দি করেছে, এটা আমার পছন্দ হচ্ছে না। সে জন্য আমি বলতেই থাকি যে, ওনার মুক্তি চাই, ওনার সুস্থতা যেন আল্লাহ দেন। আমার দাবি, বাংলাদেশ নিয়ে আমরা চিন্তায়-চেতনায় কোনো বিভাজন চাই না। বাংলাদেশের নিরাপত্তা, অগ্রগতি, উন্নতি এসব নিয়ে। রাজনৈতিকভাবে মতবিরোধের জায়গা আমরা কমিয়ে আনতে চাই।

প্রশ্ন: সেটায় কতটুকু সফল হলেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, আগামী নির্বাচনে এটা সুস্পষ্টভাবে দেখা যাবে যে, বঙ্গবন্ধুকে মান্য করেই, জিয়াউর রহমানকে মান্য করেই গণতন্ত্রের চর্চা করা যায়, যুগপৎ দুজনকে মান্য করেই। আজকের তরুণ প্রজন্ম, বিভাজনকে স্বাগত জানায় না।

প্রশ্ন: ২০-দলীয় জোট নিয়ে আপনি বলেছিলেন, জোট আছে এটাও সঠিক, নেই এটাও সঠিক। এরপর কি বিএনপি থেকে আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল?

জেনারেল ইবরাহিম: না। আমরা বন্ধুপ্রতিম বড় দল-ছোট দল।

প্রশ্ন: তাহলে আপনার বক্তব্যকে তারা পাত্তাই দিল না, বিষয়টা কি এমন?

জেনারেল ইবরাহিম: এটা আমি কোনোমতেই বলতে পারব না। এটা আমার বুদ্ধিতে-জ্ঞানে আসবে না।

প্রশ্ন: বিএনপি জোটে যদি না থাকেন, তাহলে কী করবেন?

জেনারেল ইবরাহিম: সেটা অত্যন্ত বাস্তবসম্মত প্রশ্ন। তখন আমরা নিজে নিজে চলতে চেষ্টা করব। আমাদের মতো আরও যদি দল থাকে, তাদের বলব, চলো একসঙ্গে বসব, একসঙ্গে চলব। যদি সম্মত হয় কেউ, তখন আমরা চলব। আমরা তো আর বিএনপিকে বাধ্য করতে পারব না যে আমাদের নিয়ে জোট করেন। সুতরাং আমাদের নিজেদের অবস্থা বের করে নিতে হবে। তবে এটা অগ্রিম বলা খুব কঠিন। আমরা বিএনপির দিকে তাকিয়ে আছি, আমরা প্রধান শরিককে সম্মান জানাই, আমরা প্রধান শরিকের প্রতি আহ্বান রাখছি, যে প্রধান শরিক যতদিন একটা বাস্তবসম্মত চূড়ান্ত ফয়সালা না দিচ্ছেন, ততদিন আমরা অস্থির হব না।

প্রশ্ন: তাহলে কি বলা যায়, আপনারা বিএনপির বাইরে কোনো অবস্থান তৈরি করতে পারেননি?

জেনারেল ইবরাহিম: তৈরি করতে পেরেছি কি পারি নাই, এটা নিজেরা বলা সমীচীন মোটেই না। এটা পর্যবেক্ষকরা বলবেন।

প্রশ্ন: ইদানীং আপনাকে জোটের বাইরেও অনেক রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে দেখা যায়। নতুন কোনো রাজনৈতিক সমীকরণ কি হচ্ছে?

জেনারেল ইবরাহিম: রাজনীতিতে অনেক রকমের পথ নিয়ে মানুষ চলে এবং একটা পর্যায়ে গিয়ে একটা পথ বেছে নেয়। জোটের বাইরেও তো অনেক রাজনৈতিক দল সক্রিয় আছে। যিনি কাজ করতে চান, তিনি তো কাজের জন্যই ছুটবেন। আমি ও আমার দল কাজ করতে চাই। আমি কাজ চাই, তরুণদের নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই।

প্রশ্ন: এক-এগারোর প্রেক্ষাপটে যে কিংস পার্টি হয়েছিল, সেখানে আপনার দল ছিল। এ বিষয়ে কী বললেন?

জেনারেল ইবরাহিম: আপনার রাজনৈতিক জ্ঞান অতি সীমিত, দুর্বল। কিংস পার্টি তাকেই বলে যাহা কিং বানায়। প্রতীকী অর্থে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় যারা রাজনৈতিক দল তৈরি করে। ১/১১ এসেছিল ২০০৭ সালের জানুয়ারি মাসের ১১ তারিখ। কিংস পার্টির সঙ্গে আমার কোনো যোগাযোগ ছিল না। তবে কল্যাণ পার্টির জন্ম ২০০৭ সালের ডিসেম্বরের ৭ তারিখ। এর সঙ্গে তৎকালীন সরকারি কর্তৃপক্ষ ও গোয়েন্দাদের ন্যূনতম সম্পর্কও নেই। কিন্তু সৌভাগ্য বলেন, আর দুর্ভাগ্য বলেন, ১/১১ নামক যন্ত্রণার যে জন্ম হয়েছিল, সে সময় সেনাবাহিনী ক্ষমতায় ছিল। আর আমি একজন সাবেক সৈনিক। অনেকে দুই আর দুই মিলাইয়া চার করে, জোর করে হোক আর যেভাবেই হোক। আমি অতি বিনয়ের সঙ্গে বলছি, আমাদের সঙ্গে সেই কর্তৃপক্ষের কোনো সম্পর্ক নাই।

প্রশ্ন: গত জাতীয় নির্বাচন নিয়ে আপনাদের বিস্তর অভিযোগ। কিন্তু এমনটা কী করে হলো? আপনাদের ভোটের আগে ক্যাম্পিংয়ে দেখা গেল না, পোস্টারিংও তেমন ছিল না। আপনারা ভোটের পরও কোনো কর্মসূচি দিলেন না। সবই কি সরকারের দোষ?

জেনারেল ইবরাহিম: আমি জোটের কোনো কিছুরই উত্তরও দিতে পারব না। কারণ জোট এ বিষয় নিয়ে সমন্বিত কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। বরং নির্বাচনের আগে সরকারের বিরোধী শিবিরে অসমন্বয়টা ছিল প্রকট। সেই ফাঁকে সরকার তার কাজ করে নিয়েছে। আমি বলব, আমরা যারা সরকারের বিরোধী শিবিরে ছিলাম, সম্মিলিতভাবে সচেতন হতে পারিনি। নিজেদের সমন্বয় পাকাপোক্ত করতে পারিনি। যার কারণে সরকার তাদের অভিপ্রায় পূরণ করেছে। আমাদের ফাঁকি দিয়ে। ভোটের পরও আমরা সমন্বিত কোনো পদক্ষেপ নিতে পারিনি। এর কারণ নির্বাচনের আগে একটা হেলুসিনেশনে ভুগছিল সবাই।

প্রশ্ন: আন্দোলন হচ্ছে না কেন? আপনারা বলছেন, সরকার বাধা দিচ্ছে। সব সরকারই তো বাধা দেয়, তারপরও তো আন্দোলন হয়।

জেনারেল ইবরাহিম: আন্দোলন করতে হবে। বাস্তবতার নিরিখে যদি বিবেচনা করি, বিগত কয়েকটা মেজর আন্দোলন অসফল হয়েছে। আর একবার যে আন্দোলনের ডাক দেবেন, কে কার জন্য প্রাণটা হাতে নিয়ে নামবে? আমরা চাই সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন হোক। আমি একজন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে দলে বা জোটের পক্ষের কর্মীদের কীভাবে আশ্বস্ত করব যে, আপনার প্রাণ নিরাপদ, বাড়িঘর নিরাপদ কিংবা আপনার নামে মামলা হবে না?

বলা খুব সহজ আন্দোলন করব, আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নিন। কিন্তু তার আনুষঙ্গিক বিষয়গুলো যদি আমরা অ্যাড্রেস না করি, তাহলে তো আন্দোলন গড়ে উঠবে না। লাখ লাখ বিএনপি-জামায়াত ২০-দলীয় জোটের কর্মী মামলার ভারে ভারাক্রান্ত। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ছাত্র আন্দোলন করা যাচ্ছে না। সেখানে রাজপথে আন্দোলন করা মারাত্মক চ্যালেঞ্জের একটা কাজ। এটা ৩০ বছর আগেও ছিল না।

আরও পড়ুন:
ব্যবসা শুরু যার ২০ টাকায়

শেয়ার করুন