× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

অর্থ-বাণিজ্য
তৈরি পোশাক খাত আবার অনিশ্চয়তায়
google_news print-icon

‘তৈরি পোশাক খাত আবার অনিশ্চয়তায়’

তৈরি-পোশাক-খাত-আবার-অনিশ্চয়তায়
বিকেএমইএ এর প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, ‘গ্রীষ্মের নতুন আদেশ নিয়ে আমরা নতুন বছরের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারির দিকে ঘুরে দাঁড়ানোর আশায় ছিলাম। কিন্তু দ্বিতীয় দফার ধাক্কা আবার শঙ্কার মধ্যে ফেলেছে। এর বাইরে আরেকটি বড় শঙ্কার কারণ হচ্ছে সুতার বিশ্ববাজারে মাফিয়াচক্রের দৌরাত্ম্য।’

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে দেশের রপ্তানি আয়ের সবচেয়ে বড় খাত তৈরি পোশাক আবার অনিশ্চয়তায় পড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ নিটওয়্যার ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিকেএমইএ) প্রথম সহসভাপতি মোহাম্মদ হাতেম।

তিনি বলেন, করোনার প্রথম দফার ধাক্কা সামলে পোশাক খাত ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টার পর ক্রেতারা আদেশ দিতে শুরু করে। কিন্তু দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে ওই সব আদেশ স্থগিত করা হয়। ফলে স্থানীয় পোশাক মালিকদের মধ্যে আবার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

রপ্তানি আয় বাড়াতে তিনি পণ্যের বহুমুখীকরণের ওপর জোর দেন। করোনার কারণে খুব বেশি শ্রমিক চাকরি হারায়নি বলে দাবি করেন এমবি নিট ফ্যাশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ হাতেম।

পোশাক শিল্পের বর্তমান অবস্থা, প্রণোদনা প্যাকেজ, পণ্যের বহুমুখীকরণসহ অর্থনীতির নানা বিষয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলেন তিনি। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আবু কাওসারশাহ আলম খান

প্রশ্ন: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে দেশের তৈরি পোশাক খাতে নতুন করে বিপর্যয়ের আশঙ্কা রয়েছে কি না?

ইউরোপের বিভিন্ন দেশ আবারও লকডাউনে চলে গেছে। বাংলাদেশের পোশাক রপ্তানির ৭০ শতাংশ যায় এ বাজারে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর বিভিন্ন ব্র্যান্ড ও ক্রেতারা আমাদের পোশাকের চেইন স্টোরগুলো বন্ধ করে দিয়েছে।

প্রথম দফা ধাক্কা সামলে ঘুরে দাঁড়ানোর পর নতুন করে ক্রেতারা রপ্তানি আদেশ দেয়ার যে প্রবণতা শুরু করেছিল, দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে সেটাও আবার স্থগিত হয়ে গেছে।

‘তৈরি পোশাক খাত আবার অনিশ্চয়তায়’

গ্রীষ্মের নতুন আদেশ নিয়ে আমরা নতুন বছরের জানুয়ারি-ফেব্রুয়ারির দিকে ঘুরে দাঁড়ানোর আশায় ছিলাম। কিন্তু দ্বিতীয় দফার ধাক্কা আবার শঙ্কার মধ্যে ফেলেছে। এর বাইরে আরেকটি বড় শঙ্কার কারণ হচ্ছে সুতার বিশ্ববাজারে মাফিয়াচক্রের দৌরাত্ম্য। এই চক্রটি কৃত্রিম সংকট তৈরি করে বাজারকে অস্থিতিশীলতার দিকে ঠেলে দিয়েছে।

ফলে মাত্রাতিরিক্ত বেড়ে গেছে সুতার দাম। আগে যে আদেশগুলো পাওয়া গিয়েছিল, সেগুলো সময়মতো শিপমেন্ট করা কঠিন হয়ে পড়েছে। কারণ প্রতি কেজি ২ ডলার ৯০ সেন্টে যে সুতার দাম ঠিক করা হয়, এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০-৫০ সেন্টে। এ পরিস্থিতিতে আমরা শঙ্কিত চুক্তির বাইরে বাড়তি খরচ কিভাবে পোষাব।

প্রথম যখন করোনা শুরু হয়েছিল, তখনও শঙ্কা ছিল। যথাসময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণার পর এপ্রিলে কারখানাগুলো খুলে দেয়া হলো। এর সুফল আসে রফতানি খাতে। আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে রপ্তানি ঘুরে দাঁড়ায়। কিন্তু করোনার দ্বিতীয় টেউয়ের কারণে আবার ঋণাত্মক প্রবৃদ্ধির দিকে যাচ্ছি আমরা।

প্রশ্ন: কত সময় পর্যন্ত করোনা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে?

এটা বলা অসম্ভব। কোনোভাবোই অনুমান করতে পারছি না আগামী চার-পাঁচ মাসের মধ্যে শেষ হবে। তাই কোনো ভবিষ্যদ্‌বাণী করতে পারছি না।

প্রথম ভেবেছিলাম, জানুয়ারি থেকে হয়তো ভাল অবস্থানে যেতে পারব। সেই আশা তিরোহিত হয়ে গেছে। কার্যকর ভ্যাকসিন আসছে। কিন্তু এর সুফল মানুষ কত দ্রুত পাবে, বিশ্ব পোশাকের বাজার কবে স্বাভাবিক হবে, ইউরোপ ও আমেরিকায় চলমান লকডাউন প্রত্যাহার হবে কি না, এসবের সুনির্দিষ্ট উত্তর কারো কাছে নেই। ফলে একটা অনিশ্চয়তা থেকেই যাচ্ছে এবং সেটা আগামী ছয় মাস থেকে এক বছর পর্যন্ত স্থায়ী থাকতে পারে।

‘তৈরি পোশাক খাত আবার অনিশ্চয়তায়’

প্রশ্ন: অভিযোগ উঠেছে, আগের দেয়া প্রণোদনা প্যাকেজের বেশিরভাগ সুবিধাই পেয়েছেন পোশাক মালিকেরা প্রেক্ষাপটে নতুন প্রণোদনার দাবি কতটা যুক্তিসঙ্গত বলে আপনি মনে করেন?

প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী যে পদক্ষেপ নিয়েছিলেন, সেটা ছিল খুবই সময়োপযোগী। সেটি কিন্তু আমাদের চাইতে হয়নি। প্রধানমন্ত্রী দেশের ১৭ কোটি মানুষের অভিভাবক, ব্যবসায়ীদের অভিভাবক। পোশাক খাতেরও একজন অভিভাবক তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুঝতে পেরেছিলেন, করোনা মোকাবিলায় প্রণোদনা প্রয়োজন। আর প্রয়োজন ছিল বলেই তিনি আমাদের চাওয়ার আগেই ঘোষণা দেন। এর সুফল দেশের মানুষ এবং রপ্তানি খাত ভালোভাবেই পাচ্ছে।

দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে আবারও প্রণোদনা প্রয়োজন কি না সেটা প্রধানমন্ত্রীই ভাল জানেন। করোনার প্রথম ঢেউয়ের তুলনায় দ্বিতীয় ঢেউ আরও কঠিনভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। এ পরিস্থিতিতে প্রণোদনার আরও প্রয়োজন রয়েছে কি না, তা ভাবতে হবে সরকারকেই।

বেশির ভাগ সুবিধা পোশাকখাত পেয়েছে এটা খুবই স্বাভাবিক। কারণ রপ্তানি আয়ের ৮৪ শতাংশ যে খাতটির অবদান, ৪৪ লাখ শ্রমিক যেখাতে কাজ করছে, সেখানে সুবিধা বেশি যাবেই। এটা দোষের কিছু নেই।

তারপরও বলছি, পোশাক খাতের সব উদ্যোক্তা প্রণোদনার ঋণ সুবিধা পায়নি। বাংলাদেশ ব্যাংক যে নিয়মনীতি বেঁধে দিয়েছে, তাতে অনেকের পক্ষে ঋণ নেয়া সম্ভব হয়নি।

বিকেএমইএ এর সাড়ে ৮শ সদস্যের মধ্যে ৫১৯ সদস্য ঋণ পেতে আবেদন করেছিল। এর মধ্যে ৪২০টি প্রতিষ্ঠান সুবিধা পেয়েছে। বাকিরা পায়নি।

প্রশ্ন: দেশের রপ্তানিখাত এখনও তৈরি পোশাকসহ গুটিকয়েক পণ্যের ওপর নির্ভরশীল সরকার দীর্ঘ সময় ধরে চেষ্টা করেও পণ্যের বৈচিত্র্য আনতে পারেনি। এই ব্যর্থতার কারণ কী - সরকারের নীতি সহায়তার অভাব নাকি বেসরকারি খাতের অদক্ষতা?

এটা ঠিক, একটি খাতের ওপর নির্ভরতা থাকলে যেকোনো সময় প্রতিকূল বা ভঙ্গুর অবস্থার মধ্যে পড়তে হতে পারে। ফলে পুরো রপ্তানিখাতে বিপর্যয়ের আশঙ্কা থাকে। তাই রপ্তানি বাড়াতে পণ্যের বহুমুখীকরণ জরুরি।

সরকার রপ্তানি বহুমুখীকরণে বিভিন্ন নীতি-সহায়তা দিয়ে আসছে। বেসরকারি পর্যায়ে পোশাক রপ্তানিকারকরাও পণ্যের বহুমুখীকরণের উদ্যোগ নিয়েছে।

এরপরও প্রত্যাশিত উন্নতি হয়নি। কারণ খাতভিত্তিক অবস্থানের অসমতা। পোশাকখাতের রপ্তানি বছরে ৩৪ বিলিয়ন ডলারের। অথচ চামড়া ও চামড়াজাত পণ্যের মাত্র মাত্র ১ বিলিয়নের। বিশাল অসমতার কারণে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে।

‘তৈরি পোশাক খাত আবার অনিশ্চয়তায়’

প্রশ্ন: করোনায় পোশাকখাতে কী পরিমাণ শ্রমিক চাকরি হারিয়েছে? এদের সবাই কি চাকরি ফিরে পেয়েছে?

খুব বেশি চাকরিচ্যুত হয়নি। করোনার কারণে যেসব প্রতিষ্ঠান সাময়িকভাবে বন্ধ হয়েছে, ওইসব প্রতিষ্ঠানের কিছু সংখ্যক শ্রমিক কাজ হারিয়েছে। তবে তারা আবার চাকরি পাওয়ায় কেউ এখন বেকার নেই। এক জায়গায় চাকরি হারালে আরেক জায়গায় কাজ পেয়েছে। কেউ আবার এলাকায় গিয়ে ভিন্ন খাতে কাজ নিয়েছে। বেশির ভাগ কারখানার গেটে এখনও নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি সাঁটানো আছে। তার মানে হচ্ছে শ্রমিক নিয়োগ হচ্ছে এবং তার প্রয়োজনীয়তাও রয়েছে।

শ্রমিক নেতারা অভিযোগ করেন, লাখ লাখ শ্রমিক চাকরিচ্যুত হয়েছে। তাদের বলা হয়েছে, কত শ্রমিক বেকার হয়েছে তালিকা দেন। তারা এখনও তালিকা দিতে পারেনি।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জার্মান সরকার পোশাকখাতে চাকরিচ্যুতদের জন্য একটা তহবিল গঠন করে। এ তহবিল থেকে ১০ লাখ শ্রমিককে তিন থেকে ছয় মাস পর্যন্ত আর্থিক সুবিধা দেয়া হবে।

বিজিএমইএ এবং বিকেএমইএ এর বাইরে আরও দুটি খাতের শ্রমিকদের ওই তহবিল থেকে সুবিধা দেয়ার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু তালিকার অভাবে তহবিলের অর্থ ছাড় হচ্ছে না। তাই প্রচুর শ্রমিক চাকরি হারিয়েছে, এটা গ্রহণযোগ্য নয়।

‘তৈরি পোশাক খাত আবার অনিশ্চয়তায়’

প্রশ্ন: ৫০ বিলিয়ন ডলারের রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সরকারের করণীয় কী?

সরকার এ বিষয়ে নীতিগত সব ধরনের সহায়তা দিতে আন্তরিক। কিন্তু দুভার্গ্যজনক হলেও সত্যি, উদ্যোগগুলো যারা বাস্তবায়ন করবে, তাদের মধ্যে অদক্ষতা, দূরদর্শিতার অভাব, দুর্নীতি ও আমলাতান্ত্রিক জটিলতা রয়েছে। এসব বাধা দূর হলে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছানো যাবে।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

অর্থ-বাণিজ্য
Infinix budget phone Smart 8 Pro is available all over the country

সারা দেশে মিলছে ইনফিনিক্সের বাজেট ফোন স্মার্ট ৮ প্রো

সারা দেশে মিলছে ইনফিনিক্সের বাজেট ফোন স্মার্ট ৮ প্রো ইনফিনিক্সের নতুন স্মার্টফোন ‘স্মার্ট ৮ প্রো’। ছবি: ইনফিনিক্স
প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়, ইনফিনিক্স স্মার্ট ৮ প্রো ডিভাইসটিতে আছে ৫০০০ এমএএইচের দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারি ও টাইপ-সি চার্জিং সাপোর্ট। এ ব্যাটারি সাপোর্ট লম্বা সময় ধরে স্বাচ্ছন্দ্যময় পারফরম্যান্স নিশ্চিত করে।

বাংলাদেশের বাজারে সম্প্রতি এসেছে ইনফিনিক্সের নতুন স্মার্টফোন ‘স্মার্ট ৮ প্রো’।

ব্র্যান্ডটির স্মার্ট সিরিজের নতুন সংযোজন এ বাজেট ফোন।

সাশ্রয়ী মূল্য ও উদ্ভাবনের সমন্বয়ে এটি তরুণদের চাহিদার শীর্ষে রয়েছে বলে জানিয়েছে ইনফিনিক্স।

প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়, ইনফিনিক্স স্মার্ট ৮ প্রো ডিভাইসটিতে আছে ৫০০০ এমএএইচের দীর্ঘস্থায়ী ব্যাটারি ও টাইপ-সি চার্জিং সাপোর্ট। এ ব্যাটারি সাপোর্ট লম্বা সময় ধরে স্বাচ্ছন্দ্যময় পারফরম্যান্স নিশ্চিত করে। ১০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জারের সাহায্যে ডিভাইসটি দ্রুত চার্জ করা যায়। বারবার চার্জ দেয়ারও প্রয়োজন হয় না। একবার সম্পূর্ণ চার্জে ব্যবহারকারীরা টানা ৩৬ ঘণ্টা পর্যন্ত ভিডিও দেখতে পারবেন।

এন্ট্রি-লেভেলের স্মার্টফোন হিসেবে এর ব্যাটারি ব্যাকআপ দুর্দান্ত বলে দাবি করেছে ইনফিনিক্স।

কোম্পানিটি জানায়, ব্যবহারকারীদের দুশ্চিন্তা কমাতে এ ডিভাইসে আরও আছে ইনফিনিক্স পাওয়ার ম্যারাথন সমাধান। আল্ট্রা-পাওয়ার-সেভিং মোড ব্যবহার করে মাত্র ৫ শতাংশ চার্জেও অনায়েসেই দুই ঘণ্টা কথা বলা যায়।

ইনফিনিক্স স্মার্ট ৮ প্রোতে আছে উন্নত অক্টা-কোর মিডিয়াটেক হেলিও জি৩৬ চিপসেট। এটি নিরবচ্ছিন্ন মাল্টিটাস্কিং, গেমিং ও স্ট্রিমিং নিশ্চিত করে। ডিভাইসটিতে আছে ৪ জিবি র‍্যাম, যা ১৬ জিবি পর্যন্ত বৃদ্ধি করা যায়।

পছন্দের অ্যাপ, ছবি, ভিডিওসহ নানা কিছু সহজেই সংরক্ষণ করতে এতে আছে ১২৮ জিবি স্টোরেজ। পাশাপাশি মাইক্রোএসডির সাহায্যে এর ধারণক্ষমতা ২ টেরাবাইট পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।

স্মার্ট ৮ প্রোতে আছে ম্যাজিক রিংযুক্ত ৬.৬ ইঞ্চি এইচডি+ পাঞ্চ-হোল ডিসপ্লে। এ ম্যাজিক রিংয়ের মাধ্যমে চার্জিং স্ট্যাটাস এবং অন্যান্য নোটিফিকেশন নির্বিঘ্নে দেখা যায়।

৯০ হার্টজের রিফ্রেশ রেটের কারণে ব্রাউজিংয়ের সময় পাওয়া যাবে না কোনো ল্যাগ, যা ব্যবহারকারীদের স্বাচ্ছন্দ্যময় টাচের অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করবে।

ডিভাইসটির রিং ফ্ল্যাশলাইটযুক্ত ৫০ মেগাপিক্সেলের ডুয়েল এআই ক্যামেরার সাহায্যে স্বল্প আলোতেও সুন্দর ছবি তোলা যায়। ৮ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরার মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করার জন্য চমৎকার সেলফি তুলতে পারবেন।

তরুণদের পছন্দের কথা মাথায় রেখে ডিজাইন করা হয় ইনফিনিক্স স্মার্ট ৮ প্রো। টিম্বার ব্ল্যাক, শাইনি গোল্ড ও রেইনবো ব্লু—এ তিন ট্রেন্ডি রঙে পাওয়া যাচ্ছে ফোনটি।

সারা দেশের ইনফিনিক্স অফিশিয়াল রিটেইল স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে ইনফিনিক্স স্মার্ট ৮ প্রো। ফোনটির দাম ১১ হাজার ৪৯৯ টাকা।

আরও পড়ুন:
ইনফিনিক্স ইনবুক ওয়াইটু প্লাস: নিত্যদিনের ব্যবহারের জন্য সাশ্রয়ী পাওয়ারহাউজ
২ বছরের সফটওয়্যার আপডেটসহ দেশজুড়ে মিলছে ইনফিনিক্স নোট ৪০ সিরিজ
ম্যাগচার্জ প্রযুক্তি নিয়ে দেশের বাজারে ইনফিনিক্সের নোট ৪০ সিরিজ
অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনে ম্যাগনেটিক চার্জিং প্রযুক্তি আনল ইনফিনিক্স
যে তিন কারণে আলাদা ইনফিনিক্স ল্যাপটপ

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The price of gold rose to an all time high of Tk 119544

স্বর্ণের দাম এ যাবতকালের সর্বোচ্চ, ভরি ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৪৪ টাকা

স্বর্ণের দাম এ যাবতকালের সর্বোচ্চ, ভরি ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৪৪ টাকা
নতুন নির্ধারিত দাম অনুযায়ী, ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণ ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৪৪ টাকা, ২১ ক্যারেটের ভরি ১ লাখ ১৪ হাজার ১০৯ টাকা, ১৮ ক্যারেট ৯৭ হাজার ৮০৩ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণ ৮০ হাজার ৮৬৬ টাকায় বিক্রি করা হবে।

দেশের বাজারে আবারও ষষ্ঠবারের মতো বাড়ানো হয়েছে স্বর্ণের দাম। এই দফায় সবচেয়ে ভালো মানের (২২ ক্যারেট) এক ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম ৯৮৪ টাকা বাড়িয়ে নতুন মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৪৪ টাকা। দেশের বাজারে স্বর্ণের এই দাম এযাবৎকালের সর্বোচ্চ।

রোববার বাংলাদেশ জুয়েলার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বাজুস) মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমানের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

তাতে বলা হয়, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের দাম বেড়েছে। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়েছে। সোমবার থেকে নতুন এই দর কার্যকর হবে।

নতুন নির্ধারিত দাম অনুযায়ী, ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণ ১ লাখ ১৯ হাজার ৫৪৪ টাকা, ২১ ক্যারেটের ভরি ১ লাখ ১৪ হাজার ১০৯ টাকা, ১৮ ক্যারেট ৯৭ হাজার ৮০৩ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণ ৮০ হাজার ৮৬৬ টাকায় বিক্রি করা হবে।

এর আগে ১৯, ১২, ৮, ৬ ও ৫ মে পাঁচ দাফায় স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়। ১৯ মে প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ১৭৮ টাকা, ১২ মে ১ হাজার ৮৩২ টাকা, ৮ মে ৪ হাজার ৫০২ টাকা, ৬ মে ৭৩৫ টাকা এবং ৫ মে প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৫০ টাকা বাড়ানো হয়। রোববার আবার দাম বাড়ানোর ফলে ছয় দফায় ভরিতে স্বর্ণের দাম বাড়লো মোট ১০ হাজার ৩৮১ টাকা।

স্বর্ণের দাম দাম বাড়ানো হ‌লেও অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে রুপার দাম। ক্যাটাগরি অনুযায়ী বর্তমানে ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি রুপার দাম দুই হাজার ১০০ টাকা, ২১ ক্যারেট ২ হাজার ৬ টাকা, ১৮ ক্যারেট ১৭১৫ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির রুপার ভরি ১ হাজার ২৮৩ টাকা।

আরও পড়ুন:
টানা ছয় দফায় কমল স্বর্ণের দাম
পঞ্চম দফায় দেশে স্বর্ণের দাম ভরিতে কমল ৩১৫ টাকা
পাঁচ দিনে চতুর্থবারের মতো কমল স্বর্ণের দাম, ভরি ১১২৯৩১ টাকা
টানা তৃতীয় দিনের মতো কমেছে স্বর্ণের দাম
দেশে স্বর্ণের দাম আরেক দফা কমে ভরি ১১৪১৫১ টাকা

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Bangladesh Bank clarified the issue of journalist entry

সাংবাদিক প্রবেশের বিষয়টি স্পষ্ট করল বাংলাদেশ ব্যাংক

সাংবাদিক প্রবেশের বিষয়টি স্পষ্ট করল বাংলাদেশ ব্যাংক
জাতীয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশ ব্যাংক দেশের জনগণের কাছে প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহের বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে বলে এক স্পষ্টীকরণ বার্তায় জানায় সংস্থাটি।

সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার ও তথ্য সংগ্রহের বিষয়ে অবস্থান স্পষ্ট করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

গত বুধবার সংস্থাটি এক স্পষ্টীকরণ বার্তায় জানায়, সাংবাদিকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা মর্মে গণমাধ্যমে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রকাশিত হচ্ছে।

জাতীয় প্রতিষ্ঠান হিসেবে দেশের জনগণের কাছে প্রয়োজনীয় তথ্য সরবরাহের বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে বলে ওই বার্তায় জানায় তারা। খবর বাসস

ওই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বাংলাদেশ ব্যাংক গণমাধ্যমকর্মীদের মাধ্যমে দেশের জনসাধারণের নিকট সকল প্রদানযোগ্য তথ্য প্রদানে বদ্ধপরিকর। তাই গণমাধ্যমকর্মীদের প্রয়োজনীয় প্রদানযোগ্য সকল তথ্য সংগ্রহ ও পরিবেশেনে কতিপয় পদ্ধতি অনুসরণ করছে তারা। যেমন: বাংলাদেশ ব্যাংক সম্পর্কিত গণমাধ্যমে প্রদানযোগ্য তথ্য প্রদান, তার ব্যাখ্যা ও সম্পূরক তথ্যাদি প্রদানে নির্বাহী পরিচালক পর্যায়ের একজন কর্মকর্তা মুখপাত্র হিসেবে ও পরিচালক পর্যায়ের দুইজন কর্মকর্তা সহকারী মুখপাত্র হিসেবে নিয়োজিত রয়েছেন। যেকোনো সংবাদকর্মী অফিস চলাকালে বাংলাদেশ ব্যাংকের মূল ভবনে প্রবেশ করে এই কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তথ্য সংগ্রহ ও বক্তব্য গ্রহণ করতে পারেন।

এছাড়া কোনো বিশেষ প্রয়োজনে কোনো নির্দিষ্ট কর্মকর্তার কাছ থেকে প্রবেশ পাস গ্রহণ করে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার নিকট সংবাদকর্মীরা প্রয়োজনীয় তথ্যাদির ব্যাখ্যা গ্রহণ করতে পারেন বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

বিজ্ঞিপ্তিতে আরও জানানো হয়, বাংলাদেশ ব্যাংক সময়ে সময়ে প্রেস কনফারেন্স, প্রেস রিলিজ ও অন্যান্য মাধ্যমে সংবাদকর্মীদের প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করছে।

এ ছাড়াও অবাধ তথ্যপ্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ ব্যাংক তার সংরক্ষিত সকল অর্থনৈতিক তথ্য ও উপাত্ত ওয়েবসাইটে নিয়মিতভাবে প্রকাশ করে আসছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশ ব্যাংক মেরুদণ্ড সোজা রেখে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারছে না: সিপিডি
পঞ্চগড়ে যা বললেন ডেপুটি গভর্নর খুরশিদ আলম
সাংবাদিক প্রবেশে কড়াকড়ি ইস্যুতে যা জানাল কেন্দ্রীয় ব্যাংক
বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশাধিকার নিশ্চিতের দাবি

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The price of gold increased by 1 thousand 178 taka for the fifth round

স্বর্ণের দাম পঞ্চম দফায় ভরিতে বাড়ল এক হাজার ১৭৮ টাকা

স্বর্ণের দাম পঞ্চম দফায় ভরিতে বাড়ল এক হাজার ১৭৮ টাকা ফাইল ছবি।
টানা পঞ্চম দফায় ২২ ক্যারেট স্বর্ণের ভরি নির্ধারণ করা হয়েছে এক লাখ ১৮ হাজার ৪৬০ টাকা। আর এর মধ্য দিয়ে দেশের বাজারে স্বর্ণের অলঙ্কারের দাম অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেল।

দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম টানা পঞ্চমবারের মতো বাড়ানো হয়েছে। সবচেয়ে ভালো মানের (২২ ক্যারেট) স্বর্ণের দাম ভরিতে (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) এক হাজার ১৭৮ টাকা বাড়িয়ে এক লাখ ১৮ হাজার ৪৬০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্য দিয়ে দেশের বাজারে স্বর্ণের অলঙ্কারের দাম অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেল।

তবে এক ভরি স্বর্ণের অলঙ্কার কিনতে ক্রেতাদের গুনতে হবে এক লাখ ৩১ হাজার টাকার বেশি, যা দেশের বাজারে এযাবৎকালের সর্বোচ্চ। স্থানীয় বাজারে এর আগে কখনোই স্বর্ণালঙ্কারের দাম এতটা উচ্চতায় ওঠেনি।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বর্ণের দাম বৃদ্ধির এই ঘোষণা দিয়েছে। বলা হয়েছে, স্থানীয় বাজারে তেজাবি স্বর্ণের (পাকা স্বর্ণ) দাম বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। নতুন নির্ধারিত এই দাম রোববার থেকে কার্যকর হবে।

বাজুস স্ট্যান্ডিং কমিটি অন প্রাইসিং অ্যান্ড প্রাইস মনিটরিং কমিটি বৈঠকে নতুন করে দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরবর্তীতে কমিটির চেয়ারম্যান মাসুদুর রহমানের সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বাজুস এর আগে চলতি মে মাসের ৫, ৬, ৮ ও ১২ তারিখ চার দফায় স্বর্ণের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয়। এর মধ্যে ভরিপ্রতি ৫ মে এক হাজার ৫০ টাকা, ৬ মে ৭৩৫ টাকা, ৮ মে ৪ হাজার ৫০২ টাকা ও সবশেষ ১২ মে ১ হাজার ৮৩২ টাকা বাড়ানো হয়। শনিবার দাম বৃদ্ধির মধ্য দিয়ে পাঁচ দফায় ২২ ক্যারেট স্বর্ণের দাম ভরিতে বাড়ল মোট ৯ হাজার ২৯৭ টাকা।

টানা পাঁচ দফা স্বর্ণের দাম বৃদ্ধির আগে আট দফায় ভরিতে মোট ১০ হাজার ২৬২ টাকা কমানো হয়।

নতুন মূল্য অনুযায়ী, ২২ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে এক লাখ ১৮ হাজার ৪৬০ টাকা। ‌আর ২১ ক্যারেটের দাম ভরিতে এক হাজার ১৩১ টাকা বাড়িয়ে এক লাখ ১৩ হাজার ৮২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এছাড়া ১৮ ক্যারেটের ভরি ৯৫৬ টাকা বাড়িয়ে ৯৬ হাজার ৯১৬ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির এক ভরি স্বর্ণের দাম ৭৯৩ টাকা বাড়িয়ে ৮০ হাজার ১৩২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

অবশ্য স্বর্ণের গহনা কিনতে ক্রেতাদের এরচেয়ে বেশি অর্থ গুনতে হবে। কারণ বাজুস নির্ধারণ করা দামের ওপর ৫ শতাংশ ভ্যাট যোগ করে স্বর্ণের গহনা বিক্রি করা হয়। সেসঙ্গে ভরি প্রতি মজুরি ধরা হবে ন্যূনতম ৬ শতাংশ। ফলে রোববার থেকে ২২ ক্যারেটের এক ভরি স্বর্ণালঙ্কার কিনতে ক্রেতাদের ব্যয় হবে এক লাখ ৩১ হাজার ৪৯১ টাকা। এতো বেশি দামে এর আগে দেশের বাজারে স্বর্ণালঙ্কার বিক্রি হয়নি।

স্বর্ণালঙ্কারের দামে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি হলেও দেশের বাজারে এরচেয়েও বেশি দামে স্বর্ণ বিক্রির রেকর্ড রয়েছে। ১৮ এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টা থেকে ২০ এপ্রিল বিকেল ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত দেশের ইতিহাসে এক ভরি স্বর্ণ সর্বোচ্চ এক লাখ ১৯ হাজার ৬৩৮ টাকায় বিক্রি হয়েছে। সে সময় এক ভরি স্বর্ণালঙ্কারের সর্বনিম্ন দাম এক লাখ ২৯ হাজার ১১৯ টাকা নির্ধারিত ছিল।

স্বর্ণের অলঙ্কারের দামে সর্বোচ্চ রেকর্ড সৃষ্টির কারণ মজুরি। আগে ভরিপ্রতি মজুরি ধরা হতো ন্যূনতম ৩ হাজার ৪৯৯ টাকা। কিন্তু এ নিয়ম পরিবর্তন করে ১৪ মে ভরিপ্রতি ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করা হয়েছে ৬ শতাংশ। এতেই নতুন দামে স্বর্ণালঙ্কারের ক্ষেত্রে ভরিপ্রতি ন্যূনতম মজুরি দিতে হবে সাত হাজার ১০৮ টাকা।

এদিকে বাজুস স্বর্ণের দাম বাড়ালেও দেশের বাজারে রুপার দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। বর্তমানে ২২ ক্যারেটের এক ভরি রুপার দাম দুই হাজার ১০০ টাকা, ২১ ক্যারেটের ভরি দুই হাজার ৬ টাকা, ১৮ ক্যারেটের ভরি এক হাজার ৭১৫ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির এক ভরি রুপার দাম এক হাজার ২৮৩ টাকা নির্ধারণ করা আছে।

আরও পড়ুন:
ভরিতে সাড়ে ৪ হাজার টাকা বাড়ল স্বর্ণের দাম
স্বর্ণের দাম এক দিনের ব্যবধানে ফের বাড়ল
টানা অষ্টমবারের মতো কমল স্বর্ণের দাম, ভরি ১০৯১৬৩ টাকা
স্বর্ণের দাম আরও কমেছে
টানা ছয় দফায় কমল স্বর্ণের দাম

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
What Deputy Governor Khurshid Alam said in Panchagarh

পঞ্চগড়ে যা বললেন ডেপুটি গভর্নর খুরশিদ আলম

পঞ্চগড়ে যা বললেন ডেপুটি গভর্নর খুরশিদ আলম বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর খুরশিদ আলম শনিবার রংপুর বিভাগে গ্রাহক সচেতনতা সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। ছবি: নিউজবাংলা
ডেপুটি গভর্নর বলেন, ‘বলা হচ্ছে যে বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিক প্রবেশ নিষেধ। অথচ বাংলাদেশ ব্যাংকে তথ্য দেয়ার জন্য তিন-তিনজন মুখপাত্র নিয়োগ দিয়েছি। তারা যদি সেটিসফাই না করতে পারে আমরা চারজন ডেপুটি গভর্নর আছি। আমরা আপনাকে উত্তর দেব। কিন্তু আপনি রাষ্ট্রীয় সিক্রেসির তথ্য চাইবেন সেটা তো পারমিট করে না কেউ।’

‘এবার আট লাখ কোটি টাকার বাজেট হচ্ছে। বাজেট তো আর এমনই এমনই হয় না। মেগা প্রজেক্ট হচ্ছে। পদ্মা সেতু করেছি আমরা। রেমিটেন্স আবার বাড়ছে। যারা অপপ্রচার চালাচ্ছে তাদের দ্বারা বিভ্রান্ত হবেন না। অপপ্রচারকে পাত্তা দেবেন না। খেলাপি ঋণের ব্যাপারে আমরা চেষ্টা করছি।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর খুরশিদ আলম শনিবার রংপুর বিভাগে গ্রাহক সচেতনতা সপ্তাহ-২০২৪ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

গ্রাহকদের ব্যাংকিং বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে পঞ্চগড়ের চেম্বার ভবন মিলনায়তনে এই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

খুরশিদ আলম বলেন, ‘আমাদের কোনো সমস্যা নেই। তবে উদীয়মান অর্থনীতির নানা চ্যালেঞ্জ থাকে। এটা অবশ্যই স্বীকার করতে হবে। শ্রীলঙ্কা কোথায় গিয়েছিল? আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে। সিঙ্গাপুরের চেয়ে পাঁচ গুণ বড় আমাদের অর্থনীতি, নেপালের থেকে সাত গুণ বড়, ভুটানের চেয়েও বড়। আমরা দীর্ঘ পদক্ষেপ নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।’

ডেপুটি গভর্নর বলেন, ‘বলা হচ্ছে যে বাংলাদেশ ব্যাংকে সাংবাদিকদের প্রবেশ নিষেধ। কে বললো ভাই। বাংলাদেশ ব্যাংকে তথ্য দেয়ার জন্য তিন-তিনজন মুখপাত্র নিয়োগ দিয়েছি। আপনার তো তথ্যের দরকার। তারা যদি আপনাকে সেটিসফাই না করতে পারে আমরা চারজন ডেপুটি গভর্নর আছি। আমরা আপনাকে উত্তর দেব। কিন্তু আপনি রাষ্ট্রীয় সিক্রেসির তথ্য চাইবেন সেটা তো পারমিট করে না কেউ।’

সাংবাদিকদের উদ্দেশ করে খুরশিদ আলম বলেন, ‘আল্টিমেটলি আপনার উদ্দেশ্য দেশটার মঙ্গল। আমাদেরও তাই। দেশটা হলো সবার। বঙ্গবন্ধু এটাই বলেছিলেন। এদেশের মেহনতী মানুষের মুক্তি। সেজন্য প্রধানমন্ত্রীকে দেখুন। আমি ১৭টা ডিপার্টমেন্ট চালাইতে হিমশিম খাই। আর প্রধানমন্ত্রী দেশ-বিদেশ সামলাচ্ছেন। কী পরিমাণ পরিশ্রম করছেন তিনি ভাবতে পারেন?’

ডেপুটি গভর্নর বলেন, ‘আমরা ব্যাংকের ম্যানেজার পোস্টিং দিয়ে বসে আছি। সে কী করছে না করছে আমরা সুপারভাইজ করছি না। এটা চলবে না। এ ব্যাপারে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। ব্যবহারে সফট কিন্তু নিজেকে কঠোর করতে হবে। এটা সেন্ট্রাল ব্যাংকের মেসেজ।

‘বাংলাদেশ এখন অনেক দেশের কাছে রোল মডেল হিসেবে দাঁড়িয়েছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। পেছনে তাকানোর সময় নেই। মানুষের আয় বেড়েছে। অনেকে না জেনে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়িয়ে দিচ্ছে।’

বাংলাদেশ ব্যাংকের এই কর্মসূচিকে সার্বিক সহযোগিতা দিচ্ছে ব্যাংক এশিয়া পিএলসি।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক নূরুল আমিন ও রুহুল আমিন, ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটি অ্যান্ড কাস্টমার সার্ভিসেস ডিপার্টমেন্টের পরিচালক লিজা ফাহমিদা ও শায়েমা ইসলাম এবং ব্যাংক এশিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাফিউজ্জামান।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন এফআইসিএসডি স্ট্রাটেজিক কম্যুনিকেশন টিমের প্রধান অতিরিক্ত পরিচালক মাহেনুর আলম।

এই আয়োজনে অতিথিদের বক্তব্যের পাশাপাশি ব্যাংকিং সেবার বিভিন্ন প্রেজেন্টেশন দেখানো হয়। রংপুর বিভাগের শতাধিক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। এই কর্মসূচি চলবে ২৪ মে পর্যন্ত।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশ ব্যাংকের নতুন ডেপুটি গভর্নর খুরশীদ ও হাবিব
বাণিজ্যিক ব্যাংকের সঙ্গে টাকা-ডলার বিনিময় চালু করল কেন্দ্রীয় ব্যাংক
ঋণখেলাপিরা জমি, বাড়ি-গাড়ি কেনা ও ব্যবসা খোলায় অযোগ্য
সব পণ্যের রপ্তা‌নি‌তে নগদ সহায়তা কমিয়েছে সরকার
নীতি সুদহার ২৫ পয়েন্ট বাড়িয়ে মুদ্রানীতি ঘোষণা

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
The high price of daily products is increasing the sweat of the consumer Dozen 160 eggs
বাজার দর

নিত্যপণ্যের উচ্চ মূল্যে ভোক্তার ঘাম বাড়ছে, ডিমের ডজন ১৬০

নিত্যপণ্যের উচ্চ মূল্যে ভোক্তার ঘাম বাড়ছে, ডিমের ডজন ১৬০
বেসরকারি চাকুরে আবুল হোসেন বলেন, ডলারের বিপরীতে টাকার মান ৮৪ থেকে ১১৭ টাকায় দাঁড়িয়েছে, যা ভোক্তদের ওপর মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পাশাপাশি জ্বালানির দামও বেড়েছে, বেড়েছে সুদ হার। এসবের প্রভাব পড়েছে ভোক্তা বাজারে।

উচ্চ সুদ হারের মধ্যে দ্রব্যমূল্য বাড়তে থাকায় মূল্যস্ফীতির প্রভাবে হিমশিম খাচ্ছেন রাজধানী ঢাকার বাসিন্দারা।

গত এক দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ বেড়েছে মাছ, ডিম, শাকসবজিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসহ প্রায় সব ভোগ্যপণ্যের দাম। বিশেষ করে ডিমের বাজারে ভয়াবহ অস্থিরতা। ডজনে দাম বেড়েছে ২৫ টাকা।

শাকসবজি, মাংস, মুরগি ও মাছের দাম অপরিবর্তিত থাকলেও চড়া দাম রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন পেশার একাধিক ক্রেতা।

ইউএনবির সঙ্গে আলাপকালে তারা বলেন, প্রায় সব ধরনের শাকসবজি, মাছ, মুরগি, মাংসসহ অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম অনেক বেড়েছে।

একটি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের মধ্যম পর্যায়ের কর্মকর্তা আবুল হোসেন বলেন, ডলারের বিপরীতে টাকার মান ৮৪ থেকে ১১৭ টাকায় দাঁড়িয়েছে, যা ভোক্তদের ওপর মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের পাশাপাশি জ্বালানির দামও বেড়েছে, বেড়েছে সুদ হার। এসবের প্রভাব পড়েছে ভোক্তা বাজারে।

আবুল হোসেনের মতো একই কথা জানালেন আরও অনেকে।

গত ১০ দিন ধরে ডিমের দাম বেড়েই চলেছে। শুক্রবার রাজধানীতে প্রতি ডজন ডিম ১৬০ টাকায় বিক্রি হতে দেখা গেছে। সে হিসাবে গত দুই সপ্তাহে দাম বেড়েছে ২৫ টাকা।

কারওয়ান বাজার, মোহাম্মদপুর, মহাখালী, মালিবাগসহ বিভিন্ন কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি ডজন ডিম বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়।

ব্রয়লার মুরগি ও পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত সোনালি মুরগির দাম গত দুই সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে ১০ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে। আকার ও মান ভেদে প্রতি কেজি ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ২৩৫ টাকায়। সোনালি মুরগি আকার ও মান ভেদে কেজিপ্রতি ৩৪৫ থেকে ৩৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে প্রতি কেজি কক মুরগি ৩৭০ থেকে ৩৯০ টাকা, লেয়ার মুরগি ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা, ও দেশি মুরগি প্রতি কেজি ৬৭০ থেকে ৭৬৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট খাতের ব্যবসায়ীরা জানান, মুরগির খাবার ও ব্রয়লার মুরগির বাচ্চার দাম বাড়ায় বাজারে এর প্রভাব পড়েছে।

শুক্রবার মান ভেদে প্রতি কেজি গরুর মাংস বিক্রি হয়েছে ৭৫০ থেকে ৭৮০ টাকায়, যা সপ্তাহের অন্যান্য দিনের চেয়ে কেজিতে ৩০ টাকা বেশি।

মান ভেদে খাসির মাংস প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে এক হাজার থেকে ১ হাজার ১৮০ টাকায়। সে হিসাবে কেজিতে ৫০ টাকা বেড়েছে।

শুক্রবার কারওয়ান বাজার মাছের বাজারে ৪৫০ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৬৫০ টাকা এবং এক কেজি ওজনের ইলিশ এক হাজার ৮০০ থেকে দুই হাজার টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়। ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হয় ৯০০ থেকে এক হাজার টাকায়।

রুই ও কার্প জাতীয় মাছ কেজি হিসেবে ও মান অনুযায়ী ৩০০ থেকে ৪৫০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। নদীর ছোট মাছসহ অন্যান্য মাছ বিক্রি হচ্ছে ৪০০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি দরে।

বিগত বছরগুলোর তুলনায় সবজির দাম এখনও চড়াই রয়েছে। অন্যদিকে দাম বাড়ার জন্য মূল্যস্ফীতিকে দায়ী করেছেন ব্যবসায়ীরা।

শুক্রবার প্রতি কেজি বেগুন, ঢেঁড়স, সজনে, শিম, করলাসহ সবজি ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। গোল বেগুন বিক্রি হয়েছে ৮০ টাকা কেজি।

অন্যদিকে মৌসুম শেষ হওয়ায় বেড়েছে টমেটোর দাম। ভালো মানের টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা কেজি দরে।

অন্যান্য সবজি প্রতি কেজি ৫০ থেকে ৬০ টাকা এবং লাউ, চালকুমড়া ও ফুলকপি ৫০ থেকে ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মানভেদে দেশি পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৮০ টাকা, রসুন ১৮০ থেকে ২৫০ টাকা ও আদা ২০০ থেকে ২৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

চাল, গম, আটা, দুধ, সয়াবিন, সুগন্ধি চালসহ অন্যান্য নিত্যপণ্যের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

আরও পড়ুন:
মেহেরপুরে গরুর মাংস ৭৩০, পেঁয়াজের সেঞ্চুরি
পেঁয়াজ: রোববার কোন জেলায় কত ছিল দাম
দেশজুড়ে পেঁয়াজের বাজারে নৈরাজ্য চলছে
আলু পেঁয়াজ ডিমের দাম কঠোরভাবে তদারকি হচ্ছে: বাণিজ্যমন্ত্রী
বাজারে আগুন, ডিম-সবজি-মাছের দাম বাড়ছেই

মন্তব্য

অর্থ-বাণিজ্য
Before Eid Waltons new model of energy saving products is in the market

ঈদের আগে ওয়ালটনের নতুন মডেলের বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী পণ্য বাজারে

ঈদের আগে ওয়ালটনের নতুন মডেলের বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী পণ্য বাজারে ঈদ উপলক্ষে ওয়ালটনের নতুন মডেলের পণ্য উন্মোচন করছেন ওয়ালটনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ। ছবি: ওয়ালটন

আসছে ঈদুল আজহা। এ উপলক্ষে ক্রেতাদের জন্য বিশেষ চমক হিসেবে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ও ফিচার সমৃদ্ধ ব্যাপক বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী নতুন মডেলের পণ্য উন্মোচন করেছে ওয়ালটন।

নতুন মডেলের পণ্যের মধ্যে রয়েছে ইনভার্টার প্রযুক্তির মাল্টি কালার ডিজাইনের সাইড বাই সাইড রেফ্রিজারেটর, ইউরোপিয়ান ডিজাইনের কম্বি মডেলের রেফ্রিজারেটর, ভার্টিকাল ফ্রিজার, চকোলেট কুলারসহ মোট ৭টি মডেলের ফ্রিজ।

এ ছাড়াও আছে সোলার হাইব্রিড প্রযুক্তির স্প্লিট টাইপ এসি, ৪ ও ৫ টনের সিলিং এবং ক্যাসেট টাইপ লাইট কমার্শিয়াল এসি, ৬৫ ইঞ্চির ওএলইডি টিভি, ওয়াশিং মেশিন ও বিএলডিসি ফ্যান।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর বসুন্ধরায় ওয়ালটন করপোরেট অফিসের কনফারেন্স হলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে নতুন মডেলের প্রোডাক্ট উন্মোচন করেন ওয়ালটন প্লাজার ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ রায়হান।

অনুষ্ঠানে সারা দেশে একযোগে চলমান ডিজিটাল ক্যাম্পেইন সিজন-২০ এর ‘ননস্টপ মিলিয়নিয়ার’ অফারের বর্ণাঢ্য র‌্যালিও উদ্বোধন করা হয়।

নতুন মডেলের পণ্য উন্মোচন অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন হাই-টেকের অ্যাডিশনাল ম্যানেজিং ডিরেক্টর মেজর জেনারেল (অব.) ইবনে ফজল শায়েখুজ্জামান, ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর মো. ইউসুফ আলী, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর দিদারুল আলম খান (চিফ মার্কেটিং অফিসার), মফিজুর রহমান, ফিরোজ আলম, মো. তানভীর রহমান, তাহসিনুল হক, সোহেল রানা, মোস্তফা কামাল প্রমুখ।

এছাড়া ভার্চুয়াল মাধ্যমে সারা দেশ থেকে ওয়ালটন প্লাজার ম্যানেজার ও পরিবেশকগণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চলনা করেন জনপ্রিয় চিত্রনায়ক ও ওয়ালটনের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর আমিন খান।

আরও পড়ুন:
ওয়ালটন-বিএসপিএ স্পোর্টস কার্নিভাল শুরু মঙ্গলবার
ওয়ালটন ফ্রিজ কিনে লাখ টাকার ভাউচার জিতলেন শিক্ষক এনামুল
ওয়ালটন ‘ননস্টপ মিলিয়নিয়ার’ ক্যাম্পেইনের মেয়াদ বাড়ল ২ মাস

মন্তব্য

p
উপরে