বাংলাদেশি ব্র্যান্ডের গাড়ি আগামী বছর

বাংলাদেশি ব্র্যান্ডের গাড়ি আগামী বছর

‘মেড ইন বাংলাদেশ’ গাড়ি চালু হচ্ছে আগামী বছর। খুব শিগগিরই অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রি ডেভেলপমেন্ট পলিসি চূড়ান্ত করা হবে।

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, বাংলাদেশের নিজস্ব ব্র্যান্ডের গাড়ি তৈরি শুরু হচ্ছে আগামী বছর। জাপানের মিতসুবিশি করপোরেশনের কারিগরি সহায়তায় রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রগতি ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড গাড়ি তৈরি করবে।

ইউএনবিকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে মন্ত্রী এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ গাড়ি চালু হচ্ছে আগামী বছর। খুব শিগগিরই অটোমোবাইল ইন্ডাস্ট্রি ডেভেলপমেন্ট পলিসি চূড়ান্ত করা হবে।

মন্ত্রী জানান, সম্প্রতি বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত নাওকি ইতোর সঙ্গে তার বৈঠক হয়েছে। রাষ্ট্রদূত তাকে বলেছেন, মিতসুবিশি করপোরেশনসহ জাপানের অন্য অটোমোবাইল শিল্প উদ্যোক্তারা বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়াতে আগ্রহী।

নাওকি ইতোর বরাত দিয়ে নূরুল মজিদ বলেন, জাপানের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের নিজস্ব ব্র্যান্ডের মোটরগাড়ি উৎপাদনে কারিগরি সহযোগিতা প্রদান করা হবে।

এ ছাড়া বাংলাদেশে অটোমোবাইল ও লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং শিল্প সম্পর্কিত ভেন্ডর শিল্পের বিকাশ এবং বাংলাদেশে একটি অটোমোবাইল টেস্টিং অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউট স্থাপনে সহায়তা করারও প্রস্তাব দিয়েছে জাপান।

শিল্প মন্ত্রণালয় গাড়িসহ অন্যান্য শিল্প খাতের উন্নয়নে এরই মধ্যে একটি পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে। এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, এ কর্মপরিকল্পনা প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ (এফডিআই) আকর্ষণে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।

দেশীয় গাড়ি উৎপাদনের বিভিন্ন সুবিধা সম্পর্কে মন্ত্রী জানান, আমদানি শুল্কের কারণে বাংলাদেশে বিদেশি গাড়ির দাম বেশি। দেশে গাড়ি তৈরি হলে দাম কমে আসবে; জনগণ সাশ্রয়ী মূল্যে গাড়ি কিনতে পারবে। দেশে নিজস্ব ব্র্যান্ডের গাড়ি উৎপাদন হলে ক্রেতার অভাব হবে না।

শেয়ার করুন

বিশ্বের শীর্ষ ১০০ সবুজ কারখানার ৩৯টি বাংলাদেশে

বিশ্বের শীর্ষ ১০০ সবুজ কারখানার ৩৯টি বাংলাদেশে

ঢাকার সাভারের হেমায়েতপুরের নিজামনগর এলাকায় অবস্থিত পোশাক কারখানা আমান গ্রাফিক্স অ্যান্ড ডিজাইনস লিমিটেড। ছবি: কারখানা কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নেয়া

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সাভারে ধসে পড়েছিল নয়তলা ভবন রানা প্লাজা। এটি ছিল দেশের পোশাক শিল্পে ঘটে যাওয়া সবচেয়ে বড় ট্র্যাজেডি। ভবন ধসে প্রাণ হারান হাজারেরও বেশি মানুষ। যারা প্রাণে বেঁচে গেছেন, তারাও পঙ্গুত্ব নিয়ে কাটাচ্ছেন মানবেতর জীবন। রানা প্লাজা ধসের পর থেকেই পরিবেশবান্ধব কারখানা স্থাপনের বিষয়টি আলোচনায় চলে আসে।

বিশ্বে সবচেয়ে বেশি পরিবেশবান্ধব সবুজ পোশাক কারখানা বাংলাদেশে। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের ১৪৩টি কারখানা পরিবেশবান্ধব সবুজ কারখানার সনদ পেয়েছে। যার মধ্যে ৪১টি প্লাটিনাম কারখানা।

বিশ্বের শীর্ষ ১০০টি কারখানার ৩৯টিই এখন বাংলাদেশের। আরও প্রায় ৫০০টি কারখানা সনদের অপেক্ষায় আছে।

সাভারের রানা প্লাজা ধসের পর পরিবেশবান্ধব কারখানা স্থাপনের দিকে মনোযোগ দেন তৈরি পোশাকশিল্প মালিকরা। এখন সে সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

বাংলাদেশের রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক শিল্পমালিকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএ সভাপতি সভাপতি ফারুক হাসান নিউজবাংলাকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আমাদের উদ্যোক্তাদের দূরদর্শিতা ও প্রবল ইচ্ছা শক্তি ও উদ্যোগের কারণে এটা সম্ভব হয়েছে। সবুজ শিল্পায়নে এই সাফল্যের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ইউএস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল (ইউএসজিবিসি) পৃথিবীর প্রথম ট্রেড অ্যাসোসিয়েশন হিসেবে বিজিএমইএকে ‘২০২১ লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ দিয়েছে।

সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে সবুজ কারখানার খেতাব পাওয়া বাংলাদেশের তিনটি পোশাক কারখানা হচ্ছে রেমি হোল্ডিংস, তারাসিমা অ্যাপারেলস এবং প্লামি ফ্যাশনস।

প্লামি ফ্যাশনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও নিট পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিকেএমইএ’র সাবেক সভাপতি ফজলুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পরিবেশবান্ধব কারখানার সংখ্যার দিক দিয়ে আমাদের ধারেকাছেও নেই কোনো প্রতিযোগী দেশ। সাধারণত অন্যান্য স্থাপনার চেয়ে পরিবেশবান্ধব স্থাপনায় ৫ থেকে ২০ শতাংশ খরচ বেশি হয়। তবে বাড়তি খরচ হলেও দীর্ঘমেয়াদি সুফল পাওয়া যায়। সব মিলিয়ে পরিবেশবান্ধব স্থাপনায় ২৪-৫০ শতাংশ বিদ্যুৎ, ৩৩-৩৯ শতাংশ কার্বন নিঃসরণ ও ৪০ শতাংশ পানির ব্যবহার কমানো সম্ভব।’

পোশাকের দাম বেশি পাচ্ছেন কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘হাঁ, দাম একটু বেশি পাচ্ছি। তবে তা প্রত্যাশার চেয়ে কম।’

বাংলাদেশের পোশাক শিল্প উদ্যোক্তাদের অদম্য মনোবল ও প্রচেষ্টার স্বীকৃতি স্বরূপ তাদের সংগঠন বিজিএমইএকে ইউএসজিবিসি এই পুরস্কার দিয়েছে বলে জানান বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান।

‘পৃথিবীর প্রথম সংগঠন হিসেবে আমরা এই পুরস্কার পেয়ে গর্বিত’-বলেন তিনি।

সারা বিশ্বের বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান পরিবেশবান্ধব স্থাপনার সনদ দিয়ে থাকে। তাদের মধ্যে একটি যুক্তরাষ্ট্রের ইউএস গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল (ইউএসজিবিসি)। তারা ‘লিড’নামে পরিবেশবান্ধব স্থাপনার সনদ দিয়ে থাকে। লিডের পূর্ণাঙ্গ রূপ হলো লিডারশিপ ইন এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল ডিজাইন।

বিশ্বের শীর্ষ ১০০ সবুজ কারখানার ৩৯টি বাংলাদেশে
২০২১ লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে বিজিএমইএ নেতারা

এই সনদ পেতে একটি প্রকল্পকে ইউএসজিবিসির তত্ত্বাবধানে নির্মাণ থেকে উৎপাদন পর্যন্ত বিভিন্ন বিষয়ে সর্বোচ্চ মান রক্ষা করতে হয়। ভবন নির্মাণ শেষ হলে কিংবা পুরোনো ভবন সংস্কার করেও আবেদন করা যায়।

১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ইউএসজিবিসি। সংস্থাটির অধীনে কলকারখানার পাশাপাশি বাণিজ্যিক ভবন, স্কুল, হাসপাতাল, বাড়ি, বিক্রয়কেন্দ্র, প্রার্থনাকেন্দ্র ইত্যাদি পরিবেশবান্ধব স্থাপনা হিসেবে গড়ে তোলা যায়।

গত বছরের ডিসেম্বরে সারা বিশ্বে লিড সনদ পাওয়া বাণিজ্যিক স্থাপনার সংখ্যা এক লাখ ছাড়িয়ে যায়। লিড সনদের জন্য নয়টি শর্ত পরিপালনে মোট ১১০ পয়েন্ট আছে। এর মধ্যে ৮০ পয়েন্টের ওপরে হলে ‘লিড প্লাটিনাম’, ৬০-৭৯ হলে ‘লিড গোল্ড’, ৫০-৫৯ হলে ‘লিড সিলভার এবং ৪০-৪৯ হলে ‘লিড সার্টিফায়েড’ সনদ মেলে।

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সাভারে ধসে পড়েছিল নয়তলা ভবন রানা প্লাজা। এটি ছিল দেশের পোশাক শিল্পে ঘটে যাওয়া সবচেয়ে বড় ট্র্যাজেডি। ভবন ধসে প্রাণ হারান হাজারেরও বেশি মানুষ। যারা প্রাণে বেঁচে গেছেন, তারাও পঙ্গুত্ব নিয়ে কাটাচ্ছেন মানবেতর জীবন।

রানা প্লাজা ধসের পর থেকেই পরিবেশবান্ধব কারখানা স্থাপনের বিষয়টি আলোচনায় চলে আসে।

শনিবার বিজিএমইএ’র এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ইউএসজিবিসি থেকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের ১৪৩টি কারখানা পরিবেশবান্ধব হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। এর মধ্যে ৪১টি পোশাক কারখানা ‘লিড প্লাটিনাম’ সনদ পেয়েছে। এছাড়া ‘লিড গোল্ড’ পেয়েছে ৮৯টি আর ‘লিড সিলভার’ পেয়েছে ১১টি।

বিশ্বের শীর্ষ ১০০ সবুজ কারখানার ৩৯টি বাংলাদেশে
একটি সবুজ কারখানার ছবি

‘সব মিলিয়ে ইন্ডাস্ট্রিয়াল ক্যাটাগরিতে বিশ্বের শীর্ষ ১০০টি কারখানার ৩৯টিই বাংলাদেশে অবস্থিত। আরও প্রায় ৫০০টি কারখানা সনদের অপেক্ষায় আছে।’

বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, ‘পোশাক খাতে কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনার পর আমরা শিল্পটিকে পুনর্গঠনের চ্যালেঞ্জ নেই। গত এক দশকে আমাদের উদ্যোক্তাদের অক্লান্ত পরিশ্রম, নিরাপত্তা খাতে হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয় এবং সরকার-ক্রেতা-উন্নয়ন সহযোগীদের সহায়তায় আজ বাংলাদেশের পোশাকশিল্প একটি নিরাপদ শিল্প হিসেবে বিশ্বে রোল মডেল হিসেবে নিজের অবস্থান তৈরি করেছে।’

তিনি বলেন, ‘পরিবেশ ও শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়টিকে প্রাধান্য দিয়ে আমরা শিল্পে আমূল পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের এই উদ্যোগ ও অর্জন বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে।

‘এ খাতে নিরাপদ, টেকসই ও পরিবেশবান্ধব শিল্পায়নে গর্ব করার মতো অনেক অর্জন আছে’ উল্লেখ করে ফারুক বলেন, হংকংভিত্তিক আন্তর্জাতিক অডিট প্রতিষ্ঠান ‘কিউআইএম‘ এর মতে এথিকাল সোর্সিংয়ের দিক থেকে বাংলাদেশ বিশ্বে দ্বিতীয় শীর্ষস্থানে। মূলত গ্লোবাল সাপ্লাই চেইনের গুণগত মান, কমপ্লায়েন্স, কর্মঘণ্টা ও শ্রম মানের বিভিন্ন দিক মূল্যায়ন করে এই প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে। প্রতিবেদনটি এমন একটি সময়ে এসেছে যখন করোনার মহামারির কারণে এ শিল্পে একটি সংকটময় সময় পার করছে। শত প্রতিকূলতার মধ্যেও এই অর্জন নিঃসন্দেহে আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের বিষয়।’

বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, ‘লিঙ্গ বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রেও এ শিল্পে কাজ করে যাচ্ছে। পাশাপাশি, কমপ্লায়েন্স, কারখানায় পেশাগত নিরাপত্তা বিধানেও বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সাধন করেছে।

‘এসব অর্জনের মাধ্যমে যে বিষয়টি প্রমাণিত হয় তা হলো- আমাদের সহনশীলতা, উদ্যোক্তাদের একনিষ্ঠতা, গতিশীলতা, ত্যাগ ও ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয়। আর এসব অর্জনের মাধ্যমে আমরা আন্তর্জাতিক ক্রেতাদের আস্থা ধরে রাখতে সফল হয়েছি। বিশ্বে বাংলাদেশ তার দ্বিতীয় স্থান ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে।’

তথ্য দিয়ে তিনি বলেন, ‘নানা বাধাবিপত্তি সত্ত্বেও গত ১০ বছরে আমরা আমাদের রপ্তানি দ্বিগুণের বেশি করতে সক্ষম হয়েছি। ২০১১ সালে যেখানে রপ্তানি ছিল ১৪ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার, সেখানে ২০১৯ সালে আমরা ৩৩ দশমিক এক বিলিয়ন ডলারে পৌঁছেছি।

‘২০২০ সালে রপ্তানিতে বৈশ্বিক মহামারির একটি প্রভাবটি খুবই স্পষ্ট। আমরা চেষ্টা করছি, আমাদের সমস্ত শক্তি ও অভিজ্ঞতার মাধ্যমে সকলের সহায়তায় এই বিপর্যয় থেকে ঘুরে দাঁড়াতে। আশা করছি সফল হব।’

‘এই যে আমরা একটা ভালো পুরস্কার পেলাম, সম্মান পেলাম-এটা আমাদের আরও অনুপ্রেরণা দেবে। শক্তি-সাহস জোগাবে। আর এর মধ্য দিয়ে আমরা কোভিড-১৯ মহামারি মোকাবিলা করে মাথা উঁচু করে দাঁড়াব’-বলেন বিজিএমইএ সভাপতি।

শেয়ার করুন

আমরা কি সংসদে আছি শুধু ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ বলার জন্য?

আমরা কি সংসদে আছি শুধু ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ বলার জন্য?

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী। ফাইল ছবি

আমরা কি সংসদে আছি শুধু ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ বলার জন্য? সংসদ তো মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষা তুলে ধরার জন্য। সেসব কথা না বলে সদস্যরা যদি সরকার যা দেবে, তা-ই পাস করে দেয়, তাহলে তো বাজেট অধিবেশনের দরকার নেই। এটা বাজেট প্রক্রিয়ায় একটা ঘাটতি তৈরি করে: সাবের হোসেন চৌধুরী

বাজেট প্রণয়নে সংসদ সদস্যদের কোনো ভূমিকা নেই বলে মন্তব্য করেছেন সরকারি দলের সাংসদ সাবের হোসেন চৌধুরী।

শনিবার প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর এক সংলাপে তিনি বলেন, ‘সরকারি দলের সংসদ সদস্যদেরও এখন জাতীয় বাজেট কিংবা সরকারের অন্যান্য নীতি প্রণয়নের ক্ষেত্রে কোনও ভূমিকা রাখার সুযোগ দেয়া হয় না। সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সময় অন্তত বিভিন্ন সংসদীয় কমিটির প্রধানদের নিয়ে বৈঠক হতো। কিন্তু এখন সেটিও হয় না।’

আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘তাহলে আমরা কি সংসদে আছি শুধু ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ বলার জন্য?’

‘সংসদ তো মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষা তুলে ধরার জন্য। সেসব কথা না বলে সদস্যরা যদি সরকার যা দেবে, তা-ই পাস করে দেয়, তাহলে তো বাজেট অধিবেশনের দরকার নেই। এটা বাজেট প্রক্রিয়ায় একটা ঘাটতি তৈরি করে’- বলেন সাবের চৌধুরী।

বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) ‘বাজেট ডায়লগ-২০২১’ শীর্ষক বাজেট-পরবর্তী ভার্চুয়াল আলোচনা সভার গেস্ট অব অনারের বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

সিপিডির চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহানের সভাপতিত্বে আলোচনায় প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিএনপি নেতা সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও তিনি যুক্ত হননি। তবে বিএনপির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা উপস্থিত ছিলেন।

গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির সম্মানীয় ফেলো অধ্যাপক মোস্তাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় আলোচনায় অন্যদের মধ্যে এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি জসীম উদ্দিন, এমসিসিআইয়ের সভাপতি নিহাদ কবির, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ এবং বেসিসের সভাপতি আলমাস কবির বক্তব্য রাখেন।

পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের শুধু তথ্যে ঘাটতি নয়, তথ্যের অসংগতি রয়েছে। বাজেট উপস্থাপনায় যে তথ্য পাই, বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সম্পূর্ণ ভিন্ন একটা চিত্র আসে।’

করোনাকালে নতুন করে দারিদ্র্যসীমার নিচে নেমে যাওয়া মানুষদের বিষয়ে সরকারের হাতে কোনো পরিসংখ্যান নেই। তবে দুটি এনজিও কেবল বস্তিবাসীর ছয় হাজার লোকের ফোনে সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে দাবি করেছে, দেশে ২ কোটি ৪০ লাখ মানুষ নতুন করে দারিদ্র্যসীমায় নেমে গেছে।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল অবশ্য এই জরিপের ফলাফল স্বীকার করেন না। তিনি মনে করেন, এই জরিপে ভুল আছে।

সরকারের হাতে নতুন দরিদ্রদের হিসাব না থাকায় সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীতে তাদের ঘিরে কোনো পরিকল্পনা নেয়া হয়নি।

সাবের চৌধুরী বলেন, ‘করোনায় নতুন দরিদ্র আছে কি নাই তার জন্য তো এভিডেন্স লাগবে। কিন্তু বিবিএসের তথ্য যদি ২০১৬ সালের হয়, তা দিয়ে তো ২০২১ সালের বাস্তবতা বুঝব না। তাহলে সরকার যেসব সিদ্ধান্ত নিচ্ছে, তা কিসের ভিত্তিতে নিচ্ছে?’

আমরা কি সংসদে আছি শুধু ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ বলার জন্য?

স্বাস্থ্যসেবার অপ্রতুলতা নিয়েও কথা বলেন সাবের চৌধুরী। বলেন, ‘দেশে পাবলিক হেলথ খুবই উপেক্ষিত। কিন্তু সংবিধান অনুসারে রাষ্ট্রের অন্যতম প্রধান দায়িত্ব জনস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা। কিন্তু তার পরও এ খাতে অগ্রাধিকার আমরা পাচ্ছি না। গত বছর অর্থমন্ত্রী বাজেটে বক্তৃতায় বলেছিলেন, কোভিড-১৯ মোকাবিলার অভিজ্ঞতা আমাদের স্বাস্থ্যব্যবস্থার কিছু দুর্বলতা চিহ্নিত করেছে। কিন্তু কী দুর্বলতা এবং কীভাবে দুর্বলতা দূর করা যায়, তার নির্দেশনা দুই বাজেটেই নেই।’

করোনার সময় জিডিপির প্রবৃদ্ধি কত হলো, সেটা গুরুত্বপূর্ণ নয় বলেও মনে করেন সাবের চৌধুরী। বলেন, ‘মানুষ কীভাবে বাঁচল, কীভাবে মানুষের জীবিকা ঠিক রাখা যায়, কর্মসংস্থান ঠিক রাখা যায় তা দেখা উচিত।’

‘রাজস্ব ঘাটতি হতে পারে ৮০ হাজার কোটি টাকা’

সংলাপে মূল প্রবন্ধে সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন বলেন, এপ্রিল পর্যন্ত রাজস্ব আহরণের যে গতি, তাতে এ বছর ঘাটতি দাঁড়াতে পারে ৮০ হাজার কোটি টাকা। তবু আগামী বছর বড় লক্ষ্য ধরা হয়েছে। সরকারি ব্যয়েও দুর্বলতা রয়েছে।

উন্নয়ন বাজেট বাস্তবায়নের হার কম জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এডিপির বাস্তবায়নও বেশ খারাপ, ৪৯ শতাংশ। স্বাস্থ্য খাতে ব্যয় মাত্র ২৫ শতাংশ। এ বছর স্বাস্থ্য, উন্নয়ন, কর্মসংস্থানে বেশি ব্যয় হাওয়ার কথা, উল্টো কমেছে।’

তিনি বলেন, ‘বিদেশে কর্মসংস্থান কমছে, নতুন দরিদ্র বেড়েছে, মূল্যস্ফীতিও বেড়েছে, ব্যক্তিশ্রেণির বিনিয়োগের গতিও মন্থর। নতুন বাজেটে ৭ দশমিক ২ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধির অর্জনের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু এখনো গত বছরের জিডিপি চূড়ান্ত হিসাবই পাওয়া যায়নি। বিদায়ী অর্থবছরের প্রাক্কলনও হয়নি। চলতি বছর তেমন ভালো অবস্থায় না থাকলেও ব্যক্তি খাতে বিনিয়োগ ২৫ শতাংশ এবং ব্যক্তি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধি ১৫ শতাংশের যে কথা বলা হয়েছে, তা কঠিন হবে।’

দারিদ্র্য বেড়েছে, দ্বিমত সংখ্যায়

করোনায় দারিদ্র্য বেড়েছে- এতে দ্বিমত করছেন না পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বলেন, ‘নতুন দরিদ্রের সংখ্যা বেড়েছে, এটা ঠিক। তবে সংখ্যা নিয়ে একটু দ্বিমত রয়েছে। আমার ধারণা, এটা শিফটিং ফিগার, সংখ্যা বাড়ে-কমে। তবে আমি বিআইডিএস ও বিবিএসকে কাজে লাগাব।’

বাজেটে বিদেশি উৎস নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমি বিদেশের চেয়ে দেশে অর্থায়নের উৎসেই ভরসা করি। এখানে (বিদেশ অর্থ) কিছু কিছু দাঁত (বিষয়) আছে, ব্যাপার আছে, যেগুলো গত কয়েক বছর কাজ করে যেগুলো দেখেছি, যা দেশের জন্য মঙ্গলজনক নয়।’

তিনি বলেন, ‘তথ্যদানকারী সংস্থা (বিবিএস) আমার মন্ত্রণালয়ের মধ্যে পড়ে। আমি চাই তারা নিজেরাই, নিজেদের তথ্যগুলোকে ইনটেলেকচুয়েলি জেনারেট করে। শুধু অর্ডার পেয়ে নয়। কারণ অর্ডারের ক্ষেত্রে সমস্যা থাকতে পারে। তাদের নিজেদের যেন শক্তি থাকে। যাতে পিওর, কারেক্ট, রিলায়েবল এবং কন্টিনিউয়াসলি ডিফেন্ডেবল তথ্য পেতে পারি। বিবিএসকে শক্তিশালী করা হচ্ছে।’

কর নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘সবাই কর কমাতে বলছে। আমরা টাকা স্বল্পতায় আছি। সবই ছেড়ে দিলে খাব কী? ভ্যাটে একটা অফুরন্ত সম্ভাবনা ছিল। তবে আমি মনে করি, এ ক্ষেত্রে খাবার একটা স্কোপ ছিল, কিন্তু আমরা ফেল করেছি। আমরা এটি প্রোপারলি হ্যান্ডেল করতে পারিনি।’

অর্থবছরের শেষ সময়ে এসে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে বেশি খরচ প্রসঙ্গে মান্নান বলেন, ‘বছরের শুরুতে কাজ কম হয়। কিন্তু বছরের শেষ দিকে বেশি ব্যয় ও কাজের মান নিয়ে বলেন, এটার সত্যতা আছে। এর মধ্যে দুর্নীতি বসে আছে।’

সংসদের আলোচনা কি ভালো হচ্ছে?

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান ও সাবের হোসেন চৌধুরীর উদ্দেশে সিপিডির চেয়ারম্যান রেহমান সোবহান বলেন, ‘আগের বাজেট বাস্তবায়ন কেমন হয়েছে তা জানা কি সংসদ সদস্যদের উচিত না? কিন্তু সংসদ সদস্যরা সংসদে দাঁড়িয়ে সরকারের প্রশংসায় মেতে ওঠে। এখন সংসদে যে ধরনের আলোচনা হচ্ছে তা কি ভালো হচ্ছে?’

সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘বাজেটে অর্থমন্ত্রী সবকিছু একটু একটু করতে চেয়েছেন। কিন্তু কোনো প্রায়োরিটি নেই। করোনায় মনোযোগ দরকার ছিল পিছিয়ে পড়া মানুষ ও ব্যবসার ক্ষেত্রে। তবে পিছিয়ে পড়া মানুষের দিকে মনোযোগ নেই। সরকারি ব্যয়ের সবচেয়ে বেশি দরকার ছিল তাদের জন্য। প্রবৃদ্ধির সঙ্গে দারিদ্র্য দূর করার সমতা থাকতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বাজেট সংস্কারের কথাও কিছুই নেই। ব্যাংকিং খাত ও পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রণের কথাও বলা হয়নি। নতুন দরিদ্রদের জন্যও কিছু নেই।’

সামাজিক সুরক্ষা দিতে হবে

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘কঠিন এই পরিস্থিতিতে সবাইকে সামাজিক সুরক্ষা দিতে হবে। ইউনিভার্সেল পেনশন স্কিম করতে হবে। সবার কাজের নিশ্চয়তা দিতে হবে। এ জন্য টাকা লাগবে। তাই সরকারি ব্যয় আরও বাড়াতে হবে। সংস্কারে জায়গায় হাত দিতে হবে।

‘আইএমইডিসহ সরকারি ব্যয় নজরদারি করে এমন সংস্থায় বিনিয়োগ করতে হবে। কারণ, এসব সংস্থায় এক টাকা বিনিয়োগ করলে ১০০ টাকার সুফল দেয়।’

প্রণোদনায় ছোটদের নজর দিন

এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, প্রথম প্রণোদনা প্যাকেজের অর্থ বা ঋণ ছোটদের কাছে এখনও পৌঁছেনি। চাকরি হারিয়ে যারা কৃষিতে চলে গেছে, তাদের এবং প্রান্তিক পর্যায়ের ব্যবসায়ীদরে জন্য এককালীন সহায়তা দিতে হবে।

সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা বলেন, ‘এখন প্রায় সাত কোটি মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে রয়েছে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন সংস্থা। কিন্তু সিপিডি, সানেম বা পিপিআরসিসহ অন্য কোনো জরিপ মানেন না অর্থমন্ত্রী। তাহলে নিজেদের সংস্থা বিবিএস বা বিআইডিএস দিয়ে অতিদ্রুত জরিপ করান।’

এমসিসিআইয়ের সভাপতি নিহাদ কবির বলেন, ‘বাজেটে যা-ই বরাদ্দ দেয়া হোক না কেন, বাস্তবায়ন সক্ষমতা ও মানসম্মত ব্যয় না হওয়ায় তার বেনিফিট আমরা যথাযথ পাই না। গত এক দেড় বছরে স্বাস্থ্য খাতের দিকে তাকালেই তা চোখে পড়ে।’

বেসিসের সভাপতি আলমাস কবির বলেন, ‘মেট্রোরেল, নিউকিল্লয়ার প্ল্যান্ট বড় বড় প্রকল্পে হাজার হাজার কোটি টাকার আইটি পণ্য এবং সফটওয়্যারের প্রয়োজন হচ্ছে। কিন্তু স্থনীয় ইন্ডাস্ট্রি এর কিছুই জানে না। এ কাজ ও টাকা যদি বিদেশে চলে যায়, তাহলে তা দেশি আইটিশিল্পের জন্য খারাপ।’

শেয়ার করুন

প্রণোদনার ঋণ ছাড়া অন্য ঋণ নিচ্ছে না কেউ

প্রণোদনার ঋণ ছাড়া অন্য ঋণ নিচ্ছে না কেউ

প্রণোদনার ঋণ ছাড়া অন্য কোনো ঋণ নিতে আগ্রহী হচ্ছেন না উদ্যোক্তারা। ফাইল ছবি

এক বছরের পুরোটা সময় ধরেই ছিল করোনাভাইরাস মহামারির ধকল। সেই ধাক্কায় নতুন ঋণ বিতরণ করতে সাহস পায়নি ব্যাংকগুলো। উদ্যোক্তারাও ঋণ নিতে এগিয়ে আসেননি।

৩০ জুন শেষ হতে যাওয়া ২০২০-২১ অর্থবছরের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা আছে ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ। এপ্রিল মাস শেষে এই প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৮ দশমিক ২৯ শতাংশ। প্রণোদনার ঋণ ছাড়া অন্য কোনো ঋণ নিচ্ছে না কেউ।

দেশে বিনিয়োগ বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান নিয়ামক বেসরকারি খাতের ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মুদ্রানীতির লক্ষ্যের কিনারায় পড়ে আছে।

বছরের শেষ দুই মাস মে ও জুনেও উন্নতি হওয়ার কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। করোনাভাইরাস মহামারি দেখা দেয়ার পর থেকে নতুন ঋণ বিতরণ হচ্ছে না বললেই চলে; সরকারি-বেসরকারি সব ব্যাংকই এখন প্রণোদনার ঋণ বিতরণ করছে। ঋণ বিতরণ যেটা বেড়েছে, সেটা আসলে প্রণোদনার ঋণে ভর করেই বেড়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বৃহস্পতিবার সর্বশেষ যে হালনাগাদ তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে দেখা যায়, এপ্রিল মাসে বেসরকারি খাতের ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৮ দশমিক ২৯ শতাংশ; গত অর্থবছরের এপ্রিলে ছিল ৮ দশমিক ৬১ শতাংশ।

২০২০-২১ অর্থবছরের দশম মাস এপ্রিল শেষে বেসরকারি খাতে ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৬৪ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা। গত বছরের এপ্রিল শেষে এর পরিমাণ ছিল ১০ লাখ ৭৫ হাজার ১৭০ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

এ হিসাবে দেখা যাচ্ছে, এই এক বছরে বেসরকারি খাতে ঋণ বিতরণের পরিমাণ বেড়েছে ৮৯ হাজার ১৬১ কোটি টাকা।

আর এই এক বছরে ৮৩ হাজার ৫৩ কোটি টাকার প্রণোদনার ঋণ বিতরণ করেছে ব্যাংকগুলো। এতেই বোঝা যায়, মহামারিকালে নতুন কোনো ঋণ বিতরণ হয়নি; সামান্য কিছু যা বিতরণ হয়েছে, তা চলমান কিছু ভালো প্রকল্পের ঋণ।

গত ৩১ মে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনাভাইরাসের প্রকোপ মোকাবিলায় সরকার এখন পর্যন্ত ২৩টি প্যাকেজের আওতায় মোট ১ লাখ ২৮ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা প্রণোদনা তহবিল ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে ৮৩ হাজার ৫৩ কোটি টাকার তহবিল ইতিমধ্যে বাস্তবায়িত হয়েছে। বাস্তবায়নের হার মোট প্যাকেজের ৮৩ শতাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, এই এক বছরের পুরোটা সময় ধরেই ছিল করোনাভাইরাস মহামারির ধকল। সেই ধাক্কায় নতুন ঋণ বিতরণ করতে সাহস পায়নি ব্যাংকগুলো। উদ্যোক্তারাও ঋণ নিতে এগিয়ে আসেনি।

তবে প্রণোদনার ঋণ বিতরণ সন্তোষজনক বলে জানান তিনি।।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, মহামারির ধাক্কায় গত ২০১৯-২০ অর্থবছরের শেষ মাস জুনে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি কমে ৮ দশমিক ৬১ শতাংশে নেমে আসে। এরপর সরকারের প্রণোদনা ঋণে ভর করে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে এই প্রবৃদ্ধি বেড়ে ৯ দশমিক ২০ শতাংশ হয়। আগস্টে তা আরও বেড়ে ৯ দশমিক ৩৬ শতাংশে এবং সেপ্টেম্বরে ৯ দশমিক ৪৮ শতাংশে ওঠে।

কিন্তু অক্টোবরে এই প্রবৃদ্ধি কমে ৮ দশমিক ৬১ শতাংশে নেমে আসে। নভেম্বরে তা আরও কমে ৮ দশমিক ২১ শতাংশ হয়। ডিসেম্বরে সামান্য বেড়ে ৮ দশমিক ৩৭ শতাংশ হয়।

২০২১ সালের প্রথম মাস জানুয়ারিতে এই প্রবৃদ্ধি ছিল ৮ দশমিক ৪৬ শতাংশ। ফেব্রুয়ারি ও মার্চে ছিল যথাক্রমে ৮ দশমিক ৫১ ও ৮ দশমিক ৭৯ শতাংশ।

সরকারি ঋণপ্রবাহেও একই হাল

প্রবৃদ্ধি কমেছে সরকারি খাতের ঋণপ্রবাহেও। এপ্রিল শেষে সরকারি খাতে ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা মোট ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৮৭ হাজার ১৭৮ কোটি টাকা। গত বছরের এপ্রিল পর্যন্ত বিতরণ করা ঋণের অঙ্ক ছিল ১ লাখ ৬৮ হাজার ৩৮২ কোটি টাকা।

এ হিসাবে এই এক বছরে সরকারি খাতে ঋণ বেড়েছে ১১ দশমিক ১৬ শতাংশ। আগের মাস মার্চে এই ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি ছিল ৩৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ।

গত ২০১৯-২০ অর্থবছর শেষে সরকারি খাতে ঋণের প্রবৃদ্ধি ছিল প্রায় ৬০ শতাংশ। ২০১৮-১৯ অর্থবছর শেষে ছিল ১৯ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

২০২০-২১ অর্থবছরের মুদ্রানীতিতে বেসরকারি খাতের ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ। ২০১৯-২০ অর্থবছরের মুদ্রানীতিতেও এই একই লক্ষ্য ধরা ছিল, বিপরীতে ঋণ বেড়েছিল ৮ দশমিক ৬১ শতাংশ।

ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর নিউজবাংলাকে বলেন, প্রণোদনার ঋণ ছাড়া ব্যাংকগুলো এখন অন্য কোনো ঋণ বিতরণ করছে না। কোভিড-১৯-এর কারণে বিশেষ ছাড়ে ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত কোনো ঋণের কিস্তিও আদায় করেনি ব্যাংকগুলো। সে কারণে নতুন ঋণ বিতরণের টাকাও নেই অনেক ব্যাংকের।

তিনি বলেন, ‘তাই, মাঝে প্রণোদনার ঋণের কারণে কয়েক মাস বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহের প্রবৃদ্ধি কিছুটা বাড়লেও এখন তা আবার কমে এসেছে। এখন সেটা কতটা কমবে; সেটাই উদ্বেগের বিষয়।’

গত বছরের ২৯ জুলাই বাংলাদেশ ব্যাংক ২০২০-২১ অর্থবছরের যে মুদ্রানীতি ঘোষণা করেছে, তাতে মোট অভ্যন্তরীণ ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৯ দশমিক ৩ শতাংশ; যার মধ্যে সরকারি ও বেসরকারি খাতে ঋণ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য হচ্ছে যথাক্রমে ৪৪ দশমিক ৪ শতাংশ ও ১৪ দশমিক ৮ শতাংশ।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক বৃহস্পতিবার যে তথ্য প্রকাশ করেছে, তাতে এপ্রিল মাস শেষে দেশে মোট অভ্যন্তরীণ ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ৮২ হাজার ৩৩২ কোটি টাকা। এর মধ্যে বেসরকারি খাতে বিতরণ করা ঋণ ১১ লাখ ৬৪ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা। সরকার নিয়েছে ১ লাখ ৮৭ হাজার ১৬৮ কোটি টাকা।

গত বছরের এপ্রিল শেষে মোট অভ্যন্তরীণ ঋণের পরিমাণ ছিল ১২ লাখ ৭৩ হাজার ৪৭২ কোটি টাকা। যার মধ্যে বেসরকারি খাতে ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ছিল ১০ লাখ ৭৫ হাজার ১৭০ কোটি টাকা। আর সরকারের ঋণ ছিল ১ লাখ ৬৮ হাজার ৩৮২ কোটি টাকা।

এ হিসাবেই এপ্রিল শেষে অভ্যন্তরীণ ঋণের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ। সরকারি ঋণের ১১ দশমিক ১৬ শতাংশ; আর বেসরকারি খাতে ৮ দশমিক ২৯ শতাংশ।

বেসরকারি মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের (এমটিবি) ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মাহবুবুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আসলে এখন ঋণের চাহিদাই নেই। সাম্প্রতিককালে যেসব খাতে ভালো ঋণ প্রবৃদ্ধি হয়েছে, সেখানে নতুন বিনিয়োগ হচ্ছে না। করোনা পরিস্থিতি শেষ অবধি কোথায় গিয়ে ঠেকে, কবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে- সে জন্য উদ্যোক্তারা অপেক্ষা করছেন।’

শেয়ার করুন

যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্যের সম্পর্ক অবিনশ্বর: বরিস জনসন

যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্যের সম্পর্ক অবিনশ্বর: বরিস জনসন

জি-সেভেন সম্মেলনের আগে বৃহস্পতিবার বৈঠকে বসেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ছবি: এএফপি

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেন, মানবাধিকার, আন্তর্জাতিক নীতি ও ট্রান্সআটলান্টিক জোটে আস্থা রাখে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। দুই দেশের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। ইউরোপ ও বিশ্বজুড়ে শান্তি ও উন্নতির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে এই সম্পর্ক।’

যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের মধ্যকার মৈত্রীর সম্পর্ক অবিনশ্বর হিসেবে মন্তব্য করেছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার প্রথমবারের মতো যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে বৈঠক শেষে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বিবিসিকে এমনটাই বলেন।

গত বছর করোনাভাইরাস মহামারি আঘাত হানার পর এই প্রথম বিশ্বের শিল্পোন্নত দেশগুলোর জোট জি-সেভেনের নেতারা যুক্তরাজ্যের কর্নওয়াল কাউন্টিতে তিনদিনের সম্মেলনে বসছেন। করোনার টিকা ও জলবায়ু পরিবর্তনের অ্যাজেন্ডা নিয়ে শুক্রবার শুরু হতে যাচ্ছে জি-সেভেন সম্মেলন। চলবে রোববার পর্যন্ত।

সম্মেলনে কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানি, ইতালি, জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের নেতারা উপস্থিত থাকবেন। সম্মেলন উপলক্ষে বৃহস্পতিবার ভোরে কর্নওয়ালে পৌঁছান বাইডেন।

সম্মেলনের আগে বৃহস্পতিবার কর্নওয়ালের কারবিস বে রিসোর্টে বাইডেনের সঙ্গে বৈঠক করেন জনসন।

করোনার টিকা নিয়ে এরই মধ্যে অঙ্গীকার করেছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আগামী বছর দরিদ্র দেশে ১০ কোটির বেশি টিকা দান করবে যুক্তরাজ্য।

অন্যদিকে বিশ্বের ৯২টি নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশসহ আফ্রিকায় ৫০ কোটি ফাইজারের টিকার ডোজ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

করোনাভাইরাসের ইতি টানার উদ্যোগের অংশ হিসেবে ২০২২ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী কোটি কোটি করোনার টিকা সরবরাহে সম্মেলনে জি-সেভেনের নেতারা ঐকমত্যে পৌঁছাবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়ে জনসন বলেন, মানবাধিকার, আন্তর্জাতিক নীতি ও ট্রান্সআটলান্টিক জোটে আস্থা রাখে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য।

তিনি বলেন, ‘দুই দেশের সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। ইউরোপ ও বিশ্বজুড়ে শান্তি ও উন্নতির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে এই সম্পর্ক।’

শেয়ার করুন

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন

গত দুই সপ্তাহে ব্যাংক খাতে সবচেয়ে বেশি দর হারিয়েছে যেসব কোম্পানি

২০১০ সালের মহাধসের পর ২০১২ ও পরে ২০১৭ সালেও এভাবে অল্প সময়ের জন্য এই খাতে চাঙাভাব দেখা দিয়েছিল। কিন্তু পরে তা স্থায়ী হয়নি।

পুঁজিবাজারে ব্যাংক খাত নিয়ে দীর্ঘ যে হতাশা, তা দূর হওয়ার আশা তৈরি হতে না-হতেই আবার আশাহত হতে হচ্ছে বিনিয়োগকারীদের।

অবমূল্যায়িত এই খাত নিয়ে চাঙাভাব এক মাসও স্থায়ী হয়নি। নতুন করে শেয়ার কেনায় আগ্রহও কমেছে।

দুর্দান্ত লভ্যাংশ, আয়ে প্রবৃদ্ধি, তবু ব্যাংক খাত ঝিমিয়ে। অথচ সূচক আর বাজার মূলধনে সবচেয়ে বেশি প্রভাবক এই খাত।

তবে নিয়মিত কমপক্ষে ১০ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়ে আসছে, এমন কোম্পানির শেয়ারের দামও এখন অভিহিত মূল্য ১০ টাকার আশপাশে, এমনকি নিচেও আছে। ১০ থেকে ২০ টাকার মধ্যে এমন সব ব্যাংকের শেয়ার আছে, যেগুলো চলতি বছর ১৫ থেকে ২০ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছে।

ব্যাংকের শেয়ারের দর একটাই কম যে, কোম্পানিগুলো যে হারে নগদ লভ্যাংশ দেয়, অনেক ক্ষেত্রেই ব্যাংকে টাকা রাখার চেয়ে এখন শেয়ার কিনে রাখাই বেশি লাভজনক।

২০১০ সালের মহাধসের পর থেকে এই খাত নিয়ে বিনিয়োগকারীদের হতাশা দূর হবে কি না, এ নিয়ে আলোচনা শুরু গত মে মাসের শুরুতে।

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
মে মাস জুড়ে আলো ছড়িয়েছে ব্যাংক খাত। তবে কোনোটি ২৮, কোনোটি ৩০ মে থেকে যায় সংশোধনে

এরপর প্রায় চার সপ্তাহ চাঙা থাকে এই খাত। দাম বাড়তে থাকায় এই খাতের শেয়ার কেনাও বাড়াতে থাকেন বিনিয়োগকারীরা।

গত এক বছরে বিমা খাতের উত্থান দেখে ব্যাংক খাতের বিনিয়োগকারীরাও আশাবাদী হয়ে উঠেছিলেন।

বিমায় টানা উত্থান দেখা দেয় গত বছরের জুলাই থেকে জানুয়ারি এবং এরপর এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত। এই সময়ে কোনোটির তিন গুণ, কোনোটির চার গুণ, কোনোটির পাঁচ গুণ, এমনকি কোনোটির ১০ গুণ দাম হয়েছে।

এর পরে ব্যাংক খাতেও উত্থান শুরু হওয়ায় এই খাতের বিনিয়োগকারীরাও আশান্বিত হয়ে উঠেছিলেন।

কিন্তু জুন মাসের শুরুতে আবার ছন্দপতন। কারণ ছাড়াই কমছে দাম। সেই সঙ্গে লেনদেনের হিস্যা।

মোট লেনদেনের ২০ থেকে ২৫ শতাংশ থেকে কমতে কমতে বৃহস্পতিবার গিয়ে ঠেকেছে ৭ দশমিক ৪৩ শতাংশে।

আকর্ষণীয় লভ্যাংশে বাড়ে আগ্রহ

অন্যান্য যেকোনো খাতের তুলনায় ব্যাংকের লভ্যাংশে ইতিহাস তুলনামূলক ভালো। মহামারির এই বছরে আগের চেয়ে বেশি, বিশেষ করে নগদ লভ্যাংশ পকেট ভরিয়েছে শেয়ারধারীদের।

অথচ বলাবলি হচ্ছিল, এই খাতে আয় কমে যাবে, লভ্যাংশ নেমে আসবে তলানিতে। আবার বছরের শুরুতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক লভ্যাংশের সীমা বেঁধে দিয়ে তৈরি করে আতঙ্ক।

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
গত ২৭ মে এক দিনে বাড়ে সব কটি ব্যাংকের শেয়ার দর। এর মধ্যে সর্বোচ্চ সীমা বা আশেপাশে লেনদেন হয় ৩১টির মধ্যে ১৪টি

তবে পরে দেখা যায়, বেশির ভাগ কোম্পানি আয় করেছে গত বছরের চেয়ে বেশি। এখন পর্যন্ত লভ্যাংশ ঘোষণা করা ২৯টি ব্যাংক ৪ হাজার ৪০০ কোটি টাকার বেশি নগদে বিতরণের ঘোষণা দিয়েছে, সেই সঙ্গে আসছে কয়েক কোটি বোনাস শেয়ার।

চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকেও ব্যাংকগুলোর মুনাফা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই গত বছরের একই সময়ের চেয়ে বেশি।

এ অবস্থায় ৩ মে থেকেই এই খাতের প্রতি আগ্রহ বাড়ার বিষয়টি স্পষ্ট হয়। এর মধ্যে ২৭ মে সব কটি ব্যাংকের শেয়ারের দাম বৃদ্ধি, সাতটি ব্যাংকের শেয়ারের দাম দিনের সর্বোচ্চ সীমায় পৌঁছায়, আরও সাতটির দর সর্বোচ্চ সীমার কাছাকাছি পৌঁছায় তৈরি হয় ব্যাপক আশা।

স্থায়ী হলো না উত্থান

তবে দুই দিনের সাপ্তাহিক ছুটি শেষে ৩০ মে সংশোধনে যায় এই খাত।

পুঁজিবাজারে কোনো খাত বা কোম্পানির শেয়ার টানা বাড়ে না সাধারণত। আর তিন দিনের সংশোধনের পর ওই সপ্তাহের বুধবার আবার প্রায় সব ব্যাংকের শেয়ারের দাম বাড়ে। কিন্তু এরপর আবার টানা ছয় কার্যদিবস পড়ে যায় দাম।

২৭ মে থেকে একটি ব্যাংক দর হারিয়েছে ২৩ দশমিক ৭৮ শতাংশ, একটি ১৮ শতাংশ, একটি ১৬ শতাংশ, আর বেশ কয়েকটি ১৫ শতাংশ পর্যন্ত। অথচ এই সময়ে পুঁজিবাজারে সূচক বেড়েছে প্রায় ১০০ পয়েন্ট। লেনদেনও বেড়েছে কয়েক শ কোটি টাকা।

২০১০ সালের মহাধসের পর ২০১২ ও পরে ২০১৭ সালেও এভাবে অল্প সময়ের জন্য এই খাতে চাঙাভাব দেখা দিয়েছিল। কিন্তু পরে তা স্থায়ী হয়নি।

কী বলছেন বিশ্লেষক

লভ্যাংশ ঘোষণার বিপরীতে ব্যাংকের শেয়ার দর যেভাবে বৃদ্ধি পাওয়া উচিত ছিল, সেভাবে বৃদ্ধি পায়নি বলে মনে করেন পুঁজিবাজার বিশ্লেষক আবু আহমেদ। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘বিনিয়োগকারীদের হাতে এখন টাকা আছে, তারা যে খাত থেকে মুনাফা পাচ্ছেন, সেখাতেই ঢালাও বিনিয়োগ করছেন। ফান্ডামেন্টাল বা ভালো কোম্পানির যাচাই-বাছাই করছেন না।’

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
অধ্যাপক আবু আহমেদ মনে করেন ব্যাংক খাত অবমূল্যায়িত

তিনি বলেন, ‘এতে পুঁজিবাজারে যেভাবে সূচক ও লেনদেন বৃদ্ধি পাচ্ছে, তার স্থায়িত্ব নিয়ে প্রশ্ন আছে। এই উত্থানে যদি ভালো কোম্পানির শেয়ার দর বাড়ত, তাহলেও হয়তো বর্তমানে যে ঝুঁকি তৈরি হয়েছে তা থাকত না।’

১০ শতাংশের বেশি কমেছে যেগুলোর

গত ২৭ মে থেকে যেসব ব্যাংকের শেয়ার দর ক্রমাগত কমছে, তার মধ্যে শীর্ষে এনসিসি ব্যাংক।

২৭ মে ব্যাংকটির দর ছিল ১৮ টাকা ৫০ পয়সা। বৃহস্পতিবার তা নেমে এসেছে ১৪ টাকা ১০ পয়সায়।

এই সময়ে ব্যাংকটি দর হারিয়েছে ৪ টাকা ৪০ পয়সা বা ২৩ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

অবশ্য এর মধ্যে লভ্যাংশের সাড়ে ৭ শতাংশ বোনাস শেয়ার সমন্বয় হবে। সমন্বয়ের হিসাব করলেও দাম কমেছে ৩ টাকা ১০ পয়সা বা ১৮ শতাংশ।

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
এনসিসি ব্যাংকের শেয়ার দর যতটা বেড়েছিল, কমেছে তার চেয়ে বেশি

ঢাকা ব্যাংকের শেয়ার দর গত ২৭ মে ছিল ১৬ টাকা ৭০ পয়সা। বৃহস্পতিবার দর কমে হয়েছে ১৩ টাকা ৩০ পয়সা।

ব্যাংকটির দর কমেছে ৩ টাকা ৪০ পয়সা বা ২০ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

তবে ৬ শতাংশ বোনাস শেয়ার সমন্বয় হয়েছে এই ব্যাংকটির। আর এই হিসাবে দাম কমেছে ১৫ দশমিক ৯ শতাংশ।

সাউথইস্ট ব্যাংকের দর ২৭ মে ছিল ১৭ টাকা। বৃহস্পতিবার তা কমে হয়েছে ১৩ টাকা ৯০ পয়সা।

ব্যাংকটির দর কমেছে ৩ টাকা ১০ পয়সা বা ১৮ দশমিক ২৩ শতাংশ।

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের দর ৩০ মে ছিল ১০ টাকা ৪০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ৮ টাকা ৭০ পয়সায়।

ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি দর কমেছে ১ টাকা ৭০ পয়সা বা ১৬ দশমিক ৩৪ শতাংশ। আড়াই শতাংশ বোনাস শেয়ার সমন্বয় ধরলে দাম কমেছে ১৩ শতাংশের কিছু বেশি।

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার গত এক মাসে সর্বোচ্চ ছিল ১২ টাকা ৫০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ১০ টাকা ৫০ পয়সায়।

ব্যাংকটির দর কমেছে ২ টাকা বা ১৬ শতাংশ।

এই ব্যাংকের ৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার সমন্বয় হয়েছে ধরলে দাম কমেছে ১২ শতাংশের মতো।

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
ঢাকা ব্যাংকের শেয়ার দরও কমতে কমতে এক মাস আগের অবস্থানে নেমে এসেছে

এবি ব্যাংকের দর ২ জুন ছিল সর্বোচ্চ ১৬ টাকা ৩০ পয়সা। বৃহস্পতিবার তা কমে হয় ১৩ টাকা ৭০ পয়সা।

ব্যাংকটির দর কমেছে ২ টাকা ৬০ পয়সা বা ১৫ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

প্রাইম ব্যাংকের দর ২৭ মে ছিল ২৬ টাকা ১০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ২২ টাকায়।

ব্যাংকটির শেয়ার দর হারিয়েছে ৪ টাকা ১০ পয়সা বা ১৫ দশমিক ৭০ শতাংশ।

এক্সিম ব্যাংকের শেয়ার দর ২৭ মে ছিল ১৩ টাকা ২০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ১১ টাকা ২০ পয়সা।

ব্যাংকটির দর কমেছে ২ টাকা বা ১৫ দশমিক ১৫ শতাংশ। তবে ৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার ধরলে দাম কমে ১১ শতাংশ।

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের দর ২৭ মে ছিল ১৫ টাকা। বৃহস্পতিবার তা নেমে আসে ১২ টাকা ৮০ পয়সায়।

শেয়ারপ্রতি দর কমেছে ২ টাকা ২০ পয়সা বা ১৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ।

ওয়ান ব্যাংকের দর ২ জুন ছিল ১৪ টাকা ৯০ পয়সা। বৃহস্পতিবার তা নেমে আসে ১২ টাকা ৯০ পয়সায়।

ব্যাংকটির দর কমেছে ২ টাকা বা ১৩ দশমিক ৪২ শতাংশ। সাড়ে ৫ শতাংশ বোনাস হিসাব করলে দাম কমেছে ৯ শতাংশের মতো।

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
আশা জাগিয়েও বিনিয়োগকারীদের হতাশ করেছে সাউথ ইস্ট ব্যাংক

২৭ মে ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের দর ছিল ১৮ টাকা ৯০ পয়সা। বৃহস্পতিবার দাম কমে হয় ১৬ টাকা ৮০ পয়সা।

কোম্পানিটির দর কমে হয় ২ টাকা ১০ পয়সা বা ১১ দশমিক ১১ শতাংশ।

মার্কেন্টাইল ব্যাংকের শেয়ার দর ২ জুন ছিল ১৫ টাকা ৪০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ১৩ টাকা ৭০ পয়সায়।

ব্যাংকটির শেয়ার দর হারিয়েছে ১ টাকা ৭০ পয়সা বা ১১ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ।

মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের শেয়ার দর ২৭ মে ছিল ২৩ টাকা ৯০ পয়সা। বৃহস্পতিবার দর কমে হয় ২১ টাকা ৫০ পয়সা।

ব্যাংকটি দর হারিয়েছে ২ টাকা ৪০ পয়সা বা ১০ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ।

৭ শতাংশ পর্যন্ত কমেছে যেগুলোর

যমুনা ব্যাংকের শেয়ার দর ৩০ মে ছিল ২৩ টাকা ৪০ পয়সা। বৃহস্পতিবার দর কমে হয়েছে ২১ টাকা ৩০ পয়সা।

ব্যাংকটি দর হারিয়েছে ২ টাকা ১০ পয়সা বা ৮ দশমিক ৯৭ শতাংশ।

আইএফআইসি ব্যাংকের শেয়ার দর ২৭ মে ছিল ১৩ টাকা ৬০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ১২ টাকা ৪০ পয়সায়।

ব্যাংকটির দর কমেছে ১ টাকা ২০ পয়সা বা ৮ দশমিক ৮২ শতাংশ।

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
ছয় বছরের সর্বোচ্চ দামে পৌঁছেও টিকতে পারেনি চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে আগের বছরের এই সময়ের তিনি তিন গুণ আয় করা প্রাইম

ন্যাশনাল ব্যাংকের শেয়ার দর ৩০ মে ছিল ৮ টাকা ৬০ পয়সা। বৃহস্পতিবার দাম কমে হয় ৭ টাকা ৯০ পয়সা।

লভ্যাংশ ঘোষণার অপেক্ষায় থাকা ব্যাংকটির দর কমেছে ৭০ পয়সা বা ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ।

ইসলামী ব্যাংকের দর ২৭ মে ছিল ৩০ টাকা ১০ পয়সা। বৃহস্পতিবার ব্যাংকটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ২৭ টাকা ৭০ পয়সা।

ব্যাংকটির দর কমেছে ২ টাকা ৪০ পয়সা বা ৭ দশমিক ৯৭ শতাংশ।

পূবালী ব্যাংকের শেয়ার দর ৩০ মে ছিল গত এক মাসের সর্বোচ্চ ২৬ টাকা ৪০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ২৪ টাকা ৩০ পয়সায়।

শেয়ার প্রতি দর কমেছে ২ টাকা ১০ পয়সা বা ৭ দশমিক ৯৫ শতাংশ।

এনআরবিসি ব্যাংকের শেয়ার দর ১ জুন এক মাসের সর্বোচ্চ দর ছিল ৩৮ টাকা ৯০ পয়সা। একপর্যায়ে তা বুধবার উঠে যায় ৪০ টাকায়। তবে বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ৩৬ টাকায়।

ব্যাংকটির দর কমেছে ২ টাকা ৯০ পয়সা বা ৭ দশমিক ৪৫ শতাংশ।

প্রিমিয়ার ব্যাংকের শেয়ার দর ২৭ মে ছিল ১৩ টাকা ৫০ পয়সা। বৃহস্পতিবার শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১২ টাকা ৫০ পয়সায়।

ব্যাংকটির শেয়ার দর কমেছে ১ টাকা বা ৭ দশমিক ৪০ শতাংশ।

শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের ২৭ মে ছিল ২১ টাকা ৪০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ১৯ টাকা ৯০ পয়সায়।

ব্যাংকটি দর হারিয়েছে ১ টাকা ৫০ পয়সা বা ৭ শতাংশ।

৫ শতাংশ পর্যন্ত কমেছে যেগুলোর

উত্তরা ব্যাংকের শেয়ার দর গত এক মাসে সর্বোচ্চ উঠিছিল ৩০ মে ২৫ টাকা। বৃহস্পতিবার তা কমে আসে ২৩ টাকা ৩০ পয়সায়।

ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি দর কমেছে ১ টাকা ৭০ পয়সা বা ৬ দশমিক ৮০ শতাংশ।

গত এক মাসে ব্র্যাক ব্যাংকের শেয়ার দর সর্বোচ্চ ছিল ৩০ মে ৫২ টাকা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ৪৮ টাকা ৬০ পয়সায়।

ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি দর কমেছে ৩ টাকা ৪০ পয়সা বা ৬ দশমিক ৫৩ শতাংশ।

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
তিন বছরের মন্দাভাব কাটিয়ে উত্থানের পর আবার অভিহিত মূল্যের দিকে ছুটছে এবি ব্যাংক

সিটি ব্যাংকের গত এক মাসে সর্বোচ্চ দর ছিল ২৭ টাকা ৭০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ২৫ টাকা ৯০ পয়সা।

ব্যাংকটির শেয়ার দর কমেছে ১ টাকা ৮০ পয়সা বা ৬ দশমিক ৪৯ শতাংশ।

ট্রাস্ট ব্যাংকের শেয়ার গত এক মাসে সর্বোচ্চ উঠে ১৮ টাকা ৯০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ১৬ টাকা ৮০ পয়সায়।

ব্যাংকটির শেয়ার দর হারিয়েছে ২ টাকা ১০ পয়সা বা ৬ দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ।

আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার দর গত এক মাসে সর্বোচ্চ ওঠে ২৫ টাকা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ২৩ টাকা ৬০ পয়সায়।

ব্যাংকটি দর হারিয়েছে ১ টাকা ৪০ পয়সা বা ৫ দশমিক ৬০ শতাংশ।

ইস্টার্ন ব্যাংকের শেয়ার দর গত এক মাসে সর্বোচ্চ ছিল ৩৭ টাকা ৭০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ৩৫ টাকা ৭০ পয়সায়।

ব্যাংকটির দর কমেছে ২ টাকা বা ৫ দশমিক ৩০ শতাংশ।

৫ শতাংশের কম কমেছে যেগুলোর

আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার গত এক মাসে সর্বোচ্চ বেড়েছে ৪ টাকা ১০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ৩ টাকা ৯০ পয়সায়।

ব্যাংকটির শেয়ার দর হারিয়েছে ২০ পয়সা বা ৪ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

ব্যাংক এশিয়ার শেয়ার দর গত এক মাসে সর্বোচ্চ ওঠে ১৯ টাকা ২০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ১৮ টাকা ৩০ পয়সায়।

ব্যাংকটি দর হারিয়েছে ৯০ পয়সা বা ৪ দশমিক ৬৮ শতাংশ।

চুপসে গেছে ব্যাংকের বেলুন
ব্যাংক খাতে উত্থান ধরে রাখতে পেরেছে ডাচবাংলা ব্যাংক

গত এক মাসে রূপালী ব্যাংকের শেয়ার দর সর্বোচ্চ ছিল ৩১ টাকা ৪০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয় ৩০ টাকা ৭০ পয়সায়।

ব্যাংকটির শেয়ার দর কমেছে ৭০ পয়সা বা ২ দশমিক ২২ শতাংশ।

ব্যতিক্রম কেবল ডাচ-বাংলা

গোটা খাতে দর সংশোধনের মধ্যে একমাত্র উজ্জ্বল ছিল ডাচ্-বাংলা ব্যাংক। গত ২৭ মে দাম ছিল ৬৩ টাকা। বৃহস্পতিবার ৩ টাকা ২০ পয়সা হারালেও এর শেয়ারের দাম এখন ৮৬ টাকা ৬০ পয়সা।

অর্থাৎ এক মাসে এই কোম্পানির দামে উল্লম্ফন হয়েছে। বেড়েছে ২৩ টাকা ৬০ পয়সা বা ৩৭ দশমিক ৪৬ শতাংশ।

গত এক মাসে ঠিক উত্থান না হলেও দর ধরে রাখতে পেরেছে রাষ্ট্রায়াত্ব রূপালী ব্যাংক। এই ব্যাংকটি ৩১ টাকা ৪০ পয়সা পর্যন্ত উঠার পর এক পর্যায়ে ২৮ টাকায় নেমে এলেও বৃহস্পতিবার প্রায় ১০ শতাংশ দাম বেড়ে হয় ৩০ টাকা ৭০ পয়সা।

শেয়ার করুন

নতুন বাজেটে বেগবান হবে দেশীয় ব্র্যান্ড: এম এ রাজ্জাক

নতুন বাজেটে বেগবান হবে দেশীয় ব্র্যান্ড: এম এ রাজ্জাক

এফবিসিসিআই-এর সহ-সভাপতি ও মিনিস্টার গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ রাজ্জাক খান রাজ

এফবিসিসিআই-এর সহ সভাপতির মতে, স্থানীয় শিল্পের জন্য বিভিন্ন কাঁচামাল আমদানিতে শুল্ক কমানোয় গৃহস্থালি কাজে ব্যবহৃত ফ্রিজ, এসি, ব্লেন্ডারসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক শিল্পের বিকাশ ঘটবে। সেই সঙ্গে এসব পণ্যের দাম কমার সঙ্গে মানও ভালো হবে।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ২০২১-২২ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট দেশীয় শিল্পের বিকাশ, কর্মসংস্থান ও বাংলাদেশি ব্র্যান্ড তৈরির স্বপ্ন সুসংহত করবে বলে মন্তব্য করেছেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই-এর সহ সভাপতি ও মিনিস্টার গ্রুপের চেয়ারম্যান এম এ রাজ্জাক খান রাজ। বলেছেন, দেশি ব্র্যান্ড তৈরির অগ্রযাত্রার পথে নতুন মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে এবারের বাজেট।

বাজেট প্রতিক্রিয়ায় তিনি বলেন, স্থানীয় শিল্পের জন্য বিভিন্ন কাঁচামাল আমদানিতে শুল্ক কমানোয় গৃহস্থালি কাজে ব্যবহৃত ফ্রিজ, এসি, ব্লেন্ডারসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক শিল্পের বিকাশ ঘটবে। সেই সঙ্গে এসব পণ্যের দাম কমার সঙ্গে মানও ভালো হবে।

ব্যবসায়ীদের এই নেতার মতে, দেশীয় শিল্প বিকাশের জন্য ইলেকট্রনিক্স ও ইলেকট্রিক্যাল পণ্য উৎপাদনকারী শিল্প, ওষুধ শিল্প, কৃষি যন্ত্রপাতি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, কম্পিউটার সামগ্রী উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, খেলনা উৎপাদন, হাঁস-মুরগি মাছের খাবার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান, স্যানিটারি ন্যাপকিন অর্ডার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানসহ নানান শিল্পের জন্য বিভিন্ন ধরনের সুযোগ-সুবিধা বেড়েছে। এতে দেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধির গতিও বাড়বে।

নতুন বাজেট দেশীয় শিল্প ও ব্যবসাবান্ধব হলেও দরকার নীতির ধারাবাহিকতা এবং দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার ওপর জোর দেয়ার পরামর্শ দেন রাজ্জাক।

এবারের বাজেটে শিল্পের ১৯টি খাতে কর অবকাশ সুবিধা থাকছে। তার মধ্যে শিল্পের কাঁচামাল আমদানির ক্ষেত্রে আগাম কর (এআইটি) এক শতাংশ কমিয়ে ৩ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া এলপিজি সিলিন্ডার, ফ্রিজার, রেফ্রিজারেটর ও এর কম্প্রেসারের উৎপাদনের ক্ষেত্রে বিদ্যমান ভ্যাট অব্যাহতি সুবিধা আরও এক বছর বাড়ানো হয়েছে। এয়ারকন্ডিশনার ও এর কম্প্রেসার, মোটর কার ও মোটর ভেহিক্যাল উৎপাদনেও বিদ্যমান সুবিধা বহাল রাখা হয়েছে। তাছাড়া, দেশীয় গৃহস্থালি কাজের জন্য দৈনন্দিন ব্যবহার্য পণ্য বিশেষ করে ব্লেন্ডার, জুসার, মিক্সার, গ্রাইন্ডার, ইলেকট্রনিক কেটলি, রাইস কুকার, মাল্টি কুকার পেসার কুকারে স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে ভ্যাট ছাড় দেয়া হয়েছে। একই সুবিধা দেয়া হয়েছে ওয়াশিং মেশিন, মাইক্রোওয়েভ ওভেন, ইলেকট্রনিক ওভেনের স্থানীয় উৎপাদন পর্যায়ে।

দেখা যায়, ভারতসহ পৃথিবীর অনেক দেশে কর্পোরেট কর হার কম এবং কর কাঠামো সহজ। ভারতে করপোরেট কর হার দুটি। বড় কোম্পানির জন্য ৩০ শতাংশ এবং স্থানীয় কোম্পানির ক্ষেত্রে ২৬ শতাংশ। শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানে কর্পোরেট কর হার যথাক্রমে ২৮ ও ৩০ শতাংশ। সিঙ্গাপুরে একটিমাত্র কর্পোরেট কর হার এবং তা মাত্র ১৩ শতাংশ। এটা বিবেচনা করেই সরকার এবারের বাজেটে ব্যবসায়ীদের সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে বলে ধারণা করছেন অনেকেই।

বর্তমানে দেশের উদীয়মান শিল্প হচ্ছে ইলেক্ট্রনিক শিল্প। এ শিল্প বর্তমানে দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও পণ্য রপ্তানি করছে। ফলে এ শিল্পকে আরও চাঙ্গা রাখতে ফ্রিজ, টেলিভিশন, এয়ারকন্ডিশনসহ এসব পণ্য দেশীয় ইলেক্ট্রনিক্স শিল্প মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট অব্যাহতি সুবিধা দিচ্ছে সরকার। এর ফলে উৎপাদিত পণ্যের বিপরীতে ১৫ শতাংশ ভ্যাট দিতে হবে না। আবার যারা এসব কারখানা স্থানীয়ভাবে স্থাপন করবেন, তাদের জন্য ১০ শতাংশ কর অবকাশ সুবিধা (ট্যাক্স হলিডে) দেয়ার প্রস্তাব রয়েছে এ বাজেটে।

বাজেটে সরকারি তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর কর ২৫ শতাংশ হতে ২২.৫ শতাংশ, নন-তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ৩২.৫ শতাংশ হতে ৩০ শতাংশ এবং মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের কর ব্যাংকের মতো করার মাধ্যমে শিল্প খাতকে আরও সম্প্রসারিত করতে সরকার যে শিল্পবান্ধব বাজেট নিয়ে এসেছে তার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামালকে ধন্যবাদ জানিয়ে জানান রাজ্জাক। তিনি বলেন, অর্থনীতিতে বড় অবদান রাখবে দেশীয় শিল্পখাত। কারণ, দেশীয় শিল্প ঘুরে দাঁড়ালে ব্যাপক অর্থনৈতিক কর্মকা- তৈরি হবে -কর্মসংস্থান বাড়বে-উদ্যোক্তা তৈরি হবে।

এফবিসিসিআই-এর সহ-সভাপতি বলেন, করোনাকালের বাজেট শিল্পবান্ধব হওয়ায় দেশীয় শিল্প খাতের সঙ্গে যারা জড়িত তারা ব্যাপক সুবিধা পাবে এবং মার্কেটেরও প্রসার হবে। কিন্তু এই শিল্পগুলোকে শুধু দেশের ভেতরে না রেখে বিশ্ববাজারে নিয়ে যেতে হবে।

শেয়ার করুন

স্বপ্নে মিলবে যুক্তরাষ্ট্রের ১০০ পণ্য

স্বপ্নে মিলবে যুক্তরাষ্ট্রের ১০০ পণ্য

সুপার শপ স্বপ্নে ‘আমেরিকান শেলফ’ এর উদ্বোধন করেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত আর্থার মিলার। ছবি: নিউজবাংলা

ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে শুক্রবার সকালে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ‘আপনারা কি কখনো আমেরিকার অত্যন্ত সুস্বাদু খাদ্যপণ্যগুলো পরখ করে দেখার ইচ্ছা হয়েছে? এখন আপনি চাইলে সেটা করতে পারবেন।’

সুপার সপ ‘স্বপ্ন’ তাদের ১০টি আউটলেটে আমেরিকান ১০০ পণ্য বিক্রি করবে বলে জানিয়েছে দেশটির ঢাকা দূতাবাস।

ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস থেকে শুক্রবার সকালে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ‘আপনারা কি কখনো আমেরিকার অত্যন্ত সুস্বাদু খাদ্যপণ্যগুলো পরখ করে দেখার ইচ্ছা হয়েছে? এখন আপনি চাইলে সেটা করতে পারবেন।’

এর আগে বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রদূত মিলার বাংলাদেশে স্বপ্নর ১০টি বিক্রয়কেন্দ্রে যুক্তরাষ্ট্রের ১০০টিরও বেশি উচ্চ গুণগত মানসম্পন্ন খাদ্য ও পানীয়সহ শুকনো ফলমূল, গাছের বাদাম, শস্য থেকে তৈরি খাবার সিরিয়েল, চকলেট ও আরও অনেক পণ্য নিয়ে সজ্জিত ‘আমেরিকান শেলফ’ এর উদ্বোধন করেন।

মিলার বলেন, ‘বাংলাদেশে দিনে দিনে আমেরিকার পণ্য বেশি করে পাওয়া যাচ্ছে দেখে আমি খুবই আনন্দিত। আমি জানি, বাংলাদেশের মানুষের কাছে খাবার খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমার বিশ্বাস, ভোক্তাদের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্যপণ্যগুলো খুবই সুস্বাদু ও গুণগত মানসম্পন্ন হবে।

স্বপ্নে মিলবে যুক্তরাষ্ট্রের ১০০ পণ্য

‘আমি প্রত্যাশা করি, যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের মধ্যে কৃষি বাণিজ্য আরও উৎসাহিত হবে। আমি আশা করি, শীঘ্রই আমি বাংলাদেশে বসে আমার নিজ রাজ্য মিশিগান থেকে আসা অসাধারণ পনির, আপেল, চেরি ও অন্যান্য দারুণ সব খাদ্যপণ্য উপভোগ করতে পারব। আমি আরও আশা করি, যুক্তরাষ্ট্রের ভোক্তারাও একদিন যুক্তরাষ্ট্রে বসে বাংলাদেশের আম ও লিচুর মত অসাধারণ ফল ও অন্যান্য খাবার উপভোগ করতে পারবে।’

শেয়ার করুন