20201002104319.jpg
রেমিট্যান্স আসবে কার্ডে

রেমিট্যান্স আসবে কার্ডে

একজন রেমিট্যান্স প্রেরণকারী একটি কার্ড থেকে একবারে ২ হাজার ৫০০ ডলার পাঠাতে পারবেন। প্রতি কার্ডে প্রতি মাসে একইরকম পাঁচটি এবং বছরে ৩০টি লেনদেন করা যাবে।

ব্যাংকের ডেবিট কার্ডধারীদেরকে সরাসরি রেমিট্যান্স পাঠাতে পারবেন প্রবাসে থাকা বাংলাদেশিরা। দেশে এ ধরনের সেবা প্রথম চালু করল বেসরকারি খাতের ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড।

এতোদিন কেবল ব্যাংক হিসাবে রেমিট্যান্স পাঠানোর সুযোগ ছিল। নতুন এই সেবা চালুর ফলে রেমিট্যান্স সরাসরি কার্ডে এসে যোগ হবে।

ইস্টার্ন ব্যাংকের মতো ব্র্যাক ব্যাংক এবং ইসলামি ব্যাংককেও এই সেবা চালুর অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে ব্যাংক দুটি এখনো এই সেবা চালু করতে পারেনি।

মঙ্গলবার একটি ভার্চুয়াল কনফারেন্সের মাধ্যমে নতুন সেবাটির উদ্বোধন করে ইস্টার্ন ব্যাংক।

জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে কেবল ভিসা কার্ডধারীদেরকে সুবিধাটি দিচ্ছে ব্যাংকটি। তবে দ্রুত মাস্টারকার্ডধারীদেরকেও একই ধরনের সেবা দেবে বলে জানান ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলী রেজা ইফতেখার।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, 'আপাতত সিঙ্গারপুর ও মালয়েশিয়া থেকে এ ধরনের রেমিট্যান্স পাঠানো যাবে। তবে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো থেকে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স আসে। এ কারণে তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে ওই অঞ্চলের দেশগুলো থেকেও সরাসরি কার্ডে রেমিট্যান্স পাঠানোর সেবা চালু করবেন।'

আলী রেজা ইফতেখার জানান, এই মুহূর্তে সেবাটি পেতে হলে ইবিএল গ্রাহকদের ডুয়াল কারেন্সি বা দ্বৈত মুদ্রার ভিসা কার্ড থাকতে হবে। খুব শিগগিরই ব্যাংকের অন্যান্য ধরনের কার্ডেও সেবাটি অন্তর্ভুক্ত হবে।

একজন রেমিট্যান্স প্রেরণকারী একটি কার্ড থেকে একবারে ২ হাজার ৫০০ ডলার পাঠাতে পারবেন। প্রতি কার্ডে প্রতি মাসে একইরকম পাঁচটি এবং বছরে ৩০টি লেনদেন করা যাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংক ফরেন এক্সচেঞ্জ পলিসি বিভাগের নির্বাহী পরিচালক মো. হুমায়ুন কবির বলেন, 'রেমিট্যান্স প্রেরণ ও গ্রহণকারী উভয়ের জীবনকে আরও সহজ করবে ইস্টার্ন ব্যাংকের এই রেমিট্যান্স সেবা। এতে বৈধপথে রেমিট্যান্স পাঠাতেও উৎসাহ পাবেন প্রবাসীরা।'

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) ৬৭১ কোটি ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এই রেমিট্যান্স এর আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ৪৮ দশমিক ৫৪ শতাংশ বেশি।

গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে রেমিট্যান্স এসেছিলো এক হাজার ৮২০ কোটি ডলার, যা এর আগের অর্থবছরের তুলনায় ১০ দশমিক ৮৭ শতাংশ বেশি।

শেয়ার করুন

মন্তব্য