20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
ক্ষুদ্র শিল্পে প্রণোদনার সব ঋণ বিতরণ এ মাসেই

ক্ষুদ্র শিল্পে প্রণোদনার সব ঋণ বিতরণ এ মাসেই

২০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ হলেও বিতরণ হয়েছে মাত্র ১৬ শতাংশ ঋণ। ঋণ দেওয়ার ক্ষমতা পাচ্ছে শাখা ব্যবস্থাপকরা।

প্রধানমন্ত্রীর প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় গঠিত তহবিল থেকে ক্ষুদ্র, অতিক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের (সিএমএসএমই) জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল ২০ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু এখন পর্যন্ত এ খাতে মাত্র ১৬ দশমিক ৫ শতাংশ ঋণের অর্থ বিতরণ হয়েছে।

আগামী ৩১ অক্টোবরের মধ্যে পুরো ঋণ বিতরণের নির্দেশ দিয়েছে সরকার। এছাড়া এই তহবিলের ঋণ বিতরণের ক্ষমতা মাঠপর্যায়ে ব্যাংক শাখা ব্যবস্থাপকদেরকে দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে এক ভার্চুয়াল বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সিএমএসএমই খাতে ঋণ বিতরণের অগ্রগতি পর্যালোচনা করতে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. আসাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ বৈঠকে রাষ্ট্রায়ত্ত্ব সোনালী, রূপালী, অগ্রণী, জনতা, বেসিক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক ও পিকেএসএসফ প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

বৈঠকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ব্যাংকগুলোর লক্ষ্যমাত্রার ঋণ বিতরণ শেষ করে তা অর্থমন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগকে অবহিত করতে বলা হয়।

অর্থনীতি পুণরুদ্ধারে প্রধানমন্ত্রী আর্থিক খাতের জন্য প্রায় ৮৬ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন। এর মধ্যে সিএমএসএমই খাতের ২০ হাজার কোটি টাকার তহবিল রয়েছে।

অন্যান্য প্যাকেজের অগ্রগতি মোটামুটি সন্তোষজনক হলেও সিএমএসএমই খাতে ঋণ বিতরণ তেমন হয়নি। ছোট ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করছেন, ব্যাংকগুলো তাদের চাহিদা অনুযায়ী ঋণ দিচ্ছে না।

সিএমএসএমই খাতের জন্য তহবিল থেকে শাখা ব্যবস্থাপকরা এখন থেকে সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ দিতে পারবেন। এজন্য সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়কে শাখা ব্যবস্থাপকের অনুকুলে আগাম বরাদ্দ দেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে বৈঠকে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্যানুযায়ী এ তহবিল থেকে ৩০ আগস্ট পর্যন্ত ঋণ বিতরণ হয় ৩ হাজার ৩৩০ কোটি টাকা। তবে গত ১৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আরও ৪ হাজার ৭৯৪টি প্রতিষ্ঠানকে ঋণ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, যার পরিমাণ ৫ হাজার ৪ কোটি টাকা। কিন্তু এ ঋণ এখনও বিতরণ হয়নি।

বৈঠকের সূত্র জানায়, ক্ষুদ্র ব্যবসাযীরা যাতে দ্রুত ঋণ পায়, সে জন্য কৃষিঋণ বিতরণ নীতিমালা অনুসরণ করার জন্য ব্যাংকগুলোর প্রধান নির্বাহীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এ খাতে ঋণ বিতরণে ধীরগতির কারণে অসন্তোষ প্রকাশ করে বৈঠকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সিনিয়র সচিব আসাদুল ইসলাম বলেন, 'এই প্রণোদনা প্যাকেজ স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী নিয়মিত তার অগ্রগতি তদারকি করছেন। ফলে এ খাতে ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে কোনো দুর্বলতার সুযোগ নেই।'

সচিব আরও জানান, মাঠপর্যায়ে ঋণ বিতরণের শেষ হলে তার পূর্ণাঙ্গ চিত্র মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে উপস্থাপন করতে হবে। তাই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অবশ্যই ঋণ বিতরণ করতেই হবে।

বৈঠকে সবকটি ব্যাংক এ খাতে তাদের ঋণ বিতরণের অগ্রগতি প্রতিবেদন উপস্থাপন করে। এতে দেখা যায়, সবচেয়ে বেশি ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ত্ব জনতা ব্যাংকের। ব্যাংকটির ১ হাজার ৩৭ কোটি টাকা ঋণ দেয়ার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে মধ্য সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ২১ জন গ্রাহককে বিতরণ করেছে মাত্র ৮ কোটি ৩১ লাখ টাকা। অর্থাৎ জনতা ব্যাংক তার লক্ষ্যমাত্রার ১ শতাংশও ঋণ দিতে পারেনি।

সোনালী ব্যাংকের ৫৩৭ কোটি টাকা ঋণ বিতরণের কথা থাকলেও বিতরণ করেছে মাত্র ১০ কোটি ৮১ লাখ টাকা। রূপালী ব্যাংক ২৬৩ কোটি টাকার মধ্যে বিতরণ করেছে ৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা। এসএমই খাতে ঋণ বিতরণের উদ্দেশ্যে প্রতিষ্ঠিত বেসিক ব্যাংক ২৭০ কোটি টাকা ঋণ বিতরণের লক্ষমাত্রার বিপরীতে বিতরণ করেছে ৩ কোটি ১২ লাখ টাকা, যা লক্ষমাত্রার ১ দশমিক ১৬ শতাংশ।

রাষ্ট্রায়ত্ব বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঋণ বিতরণ করেছে অগ্রণী ব্যাংক, যার পরিমাণ প্রায় ৬৫ কোটি টাকা। এ তহবিল থেকে ব্যাংকটির ঋণ বিতরণের লক্ষ্য রয়েছে ৮৪৬ কোটি টাকা।

অন্যদিকে ৫৬টি ব্যাংকের মধ্যে ২২টি ব্যাংক লক্ষমাত্রার ১০ শতাংশের বেশি ঋণ বিতরণ করেছে। নয়টি ব্যাংক এক টাকাও ঋণ দিতে পারেনি। এর মধ্যে বিদেশি ব্যাংক রয়েছে সাতটি, বেসরকারি ব্যাংক দুটি। এছাড়া এখনও বেশিরভাগ বিদেশি ব্যাংক ঋণের খাতা খুলতে পারেনি।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের যুগ্ম সচিব মু. শুকুর আলী নিউজবাংলাকে জানান, শিল্পখাতে ৩৩ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা বিতরণ অগ্রগতি সন্তোষজনক। কিন্তু কুটির, মাইক্রো এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে (সিএমএসএমই) ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা ঋণ বিতরণে অগ্রগতি আশানুরূপ নয়। বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকেও আলোচিত হয়। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে অতিসত্বর এই ঋণ বিতরণ প্রক্রিয়া শেষ করে তাদের অবহিত করতে। সেই নির্দেশনা অনুযায়ীই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সিএমএসএমই খাতের ঋণ বিতরণে কেন কৃষিঋণ বিতরণের মডেল অনুসরণ করতে বলা হলো, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মাঠপর্যায়ের কৃষি ঋণ বিতরণে একটি স্বয়ংক্রিয় নীতিমালা আছে। তা বাস্তবায়নে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে স্থানীয়ভাবে একটি কমিটিও আছে। সেই কমিটি কৃষিঋণ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বিতরণ শেষ করতে বরাবরই তৎপর থাকে। এ কারণে সিএমএসএমইখাতে সেই মডেলটি রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংকগুলোকে অনুসরণ করতে বলা হয়েছে, যাতে স্থানীয় প্রশাসনও এটা মনিটরিং করতে পারেন।

শেয়ার করুন