× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিচিত্র
Trying to prevent suicide with toilet paper
hear-news
player
google_news print-icon

টয়লেট পেপার দিয়ে আত্মহত্যা ঠেকানোর চেষ্টা!

টয়লেট-পেপার-দিয়ে-আত্মহত্যা-ঠেকানোর-চেষ্টা
প্রতীকী ছবি
জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২০ সালে জাপানে প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের রেকর্ড ৪৯৯ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় জাপানে আত্মহত্যার হার তুলনামূলক বেশি। আর এই প্রবণতা টয়লেট পেপার দিয়ে ঠেকানোর চেষ্টা করছে জাপানের মধ্যাঞ্চলীয় কর্তৃপক্ষ।

বার্তা সংস্থা এএফপির বরাত দিয়ে এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, জাপানে আত্মহত্যা দীর্ঘদিনের সমস্যা। এই প্রবণতা বাড়ছেই।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২০ সালে জাপানে প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের রেকর্ড ৪৯৯ শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছেন ।

আত্মহত্যার এই প্রবণতা কমাতে জাপানের ইয়ামানশি শহরের কর্মকর্তারা একটি ব্যতিক্রমী উপায় খুঁজে বের করেছেন। তারা টয়লেট পেপারের মধ্যে আশ্বস্তমূলক বার্তা এবং আত্মহত্যা-প্রতিরোধ হটলাইন নম্বরগুলো সেখানে লিখে হতাশায় নিমজ্জিত তরুণদের মধ্যে বিলি করছেন।

জাপানের ইয়ামানশি শহরের কর্মকর্তা কেনিচি মিয়াজাওয়া একটি টয়লেট পেপারের বার্তা এএফপিকে পড়ে শোনান। যুবকদের উদ্দেশে ওই টয়লেট পেপারে লেখা হয়,

‘আপনি টয়লেটে একা। আমরা অনুভব করেছি, এটি এমন মুহুর্তে যখন আপনার মাথায় দুশ্চিন্তা বাড়তে পারে।’

আত্মহত্যার ঠেকানোর এই প্রচারণায় ৬ হাজার রোল টয়লেট পেপারে বিভিন্ন ধরনের আশ্বস্তমূলক বার্তা ও ফোন নম্বর দেয়া হয়েছে। গত মাসে এগুলো জাপানের প্রায় ১২টি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিতরণ করা হয়।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিচিত্র
China retreats from strict corona restrictions in the face of protests

বিক্ষোভের মুখে কঠোর করোনাবিধি থেকে সরল চীন

বিক্ষোভের মুখে কঠোর করোনাবিধি থেকে সরল চীন চীনের বিভিন্ন শহরে ‘জিরো করোনা’ নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ হয়। ছবি: এএফপি
চীনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় বলা হয়, এখন থেকে মৃদু বা উপসর্গহীন করোনা রোগীদের সরকারি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে যেতে হবে না। তারা বাড়িতে বসেই করোনা পরীক্ষা করতে পারবেন।

বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভের মুখে করোনাভাইরাস-সংক্রান্ত কঠোর বিধিনিষেধ তুলে দিয়েছে চীন সরকার।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বরাত দিয়ে বিবিসির বুধবারের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

চীনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় বলা হয়, এখন থেকে মৃদু বা উপসর্গহীন করোনা রোগীদের সরকারি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে যেতে হবে না। তারা বাড়িতে বসেই করোনা পরীক্ষা করতে পারবেন।

নির্দেশনা অনুযায়ী, হাসপাতাল এবং স্কুল ছাড়া অন্যান্য জনসমাগমস্থলে করোনার পিসিআর পরীক্ষা ছাড়াই যাওয়া যাবে।

এর আগে চীনে করোনা রোগীদের বাধ্যতামূলক সরকারি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে যেতে হতো। আর জনসমাগমস্থলে যোগ দিতে বাধ্যতামূলক পিসিআর পরীক্ষা করতে হতো।

চীনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আরও জানিয়েছে, লকডাউন আরোপ করতে হবে নির্দিষ্ট ভবনে। একটি ভবনে কেউ আক্রান্ত হলে পুরো এলাকা বা শহরে বিধিনিষেধ আরোপ করা যাবে না। লকডাউনের আওতাধীন এলাকা বা ভবনে যদি নতুন করে কেউ আক্রান্ত না হন, তাহলে পাঁচ দিন পর সেটি তুলে দিতে হবে।

যদি স্কুলে দুই-তিনজন সংক্রমিত হয়, তাহলে শিক্ষা কার্যক্রম চলবে। সংক্রমণ বেশি ছড়িয়ে পড়লে তখন স্কুল বন্ধ করা যেতে পারে।

লকডাউনের আওতাধীন ভবনে জরুরি প্রস্থান ব্যবস্থা নিশ্চিত রাখতে হবে, যেন অগ্নিকাণ্ড বা অন্য কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে মানুষ বের হয়ে যেতে পারেন।

লকডাউনের মধ্যে চীনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল শিনচিয়াংয়ের রাজধানী উরুমকিতে কয়েক দিন আগে ভবনে আগুনে ১০ জনের মৃত্যু হয়। এ ঘটনার পর চীনের বিভিন্ন শহরে ‘জিরো করোনা’ নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ শুরু হয়।

বিক্ষোভকারীরা একপর্যায়ে চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিংয়ের পদত্যাগ দাবি করেন। চীনের ক্ষমতাসীন দল কমিউনিস্ট পার্টি অফ চায়না (সিপিসি) থেকেও তার পদত্যাগ চান বিক্ষোভকারীরা।

মন্তব্য

বিচিত্র
Donald Trumps son is coming to India to increase business

ব্যবসা বাড়াতে ভারতে আসছেন ডনাল্ড ট্রাম্পের ছেলে

ব্যবসা বাড়াতে ভারতে আসছেন ডনাল্ড ট্রাম্পের ছেলে বাবার সঙ্গে ট্রাম্প জুনিয়র। ছবি: সংগৃহীত
ট্রাম্প ফাউডেন্ডশনের এক্সিকিউটিভি ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে আছেন ট্রাম্প জুনিয়র। বাবার ব্যবসা দেখাশুনা করেন তিনি।

ভারতের বাজারে রিয়েল এস্টেট ব্যবসা বাড়ানোর পরিকল্পনা করছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের ছেলে ডনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র। এ উপলক্ষে চলতি মাসেই দেশটিতে ভ্রমণে আসছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করা ভারতীয় প্রতিষ্ঠান ট্রিবেকা ডেভলপারসের বরাতে মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছে এনডিটিভি।

ট্রাম্প ফাউডেন্ডশনের এক্সিকিউটিভি ভাইস প্রেসিডেন্টের দায়িত্বে আছেন ট্রাম্প জুনিয়র। বাবার ব্যবসা দেখাশুনা করেন তিনি।

ট্রাম্প ব্র্যান্ডের অধীনে ভারতের বিলাসবহুল প্রকল্প তৈরি করতে লোধা গ্রুপ সহ স্থানীয় কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করেছে ট্রাম্প জুনিয়রের সংস্থা এবং ট্রিবেকা। এখনও পর্যন্ত চারটি বিলাসবহুল প্রকল্প ঘোষণা করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি ইতিমধ্যেই সম্পূর্ণ হয়েছে পুনেতে৷

ট্রিবেকার বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ট্রিবেকার ১০ বছর পূর্তি উপলক্ষে চলতি মাসে ডনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র ভারতে ভ্রমণ করবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

ট্রাম্প জুনিয়রের ভ্রমণের সময় তিনি ও ট্রিবেকার প্রতিষ্ঠাতা কল্পেশ মেহতা ভারতের রিয়েল এস্টেট ব্যবসা বাড়ানো ঘোষণা দিতে পারেন বলে এতে জানানো হয়।

মেহতা বলেন, ‘ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের সঙ্গে ট্রিকেবার ব্যবসায়িক সম্পর্কের ১০ বছর হয়ে গেছে। এই সময়ে সম্পর্ক শক্তিশালী হয়েছে। ট্রাম্প জুনিয়র ছাড়া আমাদের উদযাপন সম্পূর্ণ হতো না। তিনি আমাদের সঙ্গে যোগ দেবেন, আমি আনন্দিত।’

তিনি বলেন, ‘ট্রাম্প জুনিয়রের এই সফরের সময় আমরা ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের সঙ্গে আমাদের ব্যবসা সম্প্রসারণের পরিকল্পনা এবং অন্য উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি ঘোষণা করার পরিকল্পনা করছি।’

আরও পড়ুন:
চলে গেলেন ট্রাম্পের প্রথম স্ত্রী ইভানা
ফেসবুক-টুইটারের বিকল্প ‘ট্রুথ সোশ্যাল’ আনছেন ট্রাম্প
ভাতিজির বিরুদ্ধে ট্রাম্পের ১০ কোটি ডলারের মামলা

মন্তব্য

বিচিত্র
Sex outside of marriage is prohibited in Indonesia

বিয়েবহির্ভূত যৌন সম্পর্ক নিষিদ্ধ ইন্দোনেশিয়ায়

বিয়েবহির্ভূত যৌন সম্পর্ক নিষিদ্ধ ইন্দোনেশিয়ায় ইন্দোনেশিয়ায় বিয়েবহির্ভূত যৌন সম্পর্ককে অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করার প্রতিবাদে আন্দোলনরতদের একাংশ। ছবি: সিএনএন
ইন্দোনেশিয়ায় বসবাসরত বিদেশি, পর্যটকদের জন্যও নতুন আইন প্রযোজ্য। এ আইন অনুযায়ী, ধর্ম ত্যাগ ছাড়া বিয়ের আগে যৌন সম্পর্ক নিষিদ্ধ।

বিয়েবহির্ভূত যৌন সম্পর্ককে অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করে ইন্দোনেশিয়ায় নতুন আইন পাস করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দেশটির পার্লামেন্টে এ আইন পাস হয়।

সিএনএনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ইন্দোনেশিয়ায় বসবাসরত বিদেশি, পর্যটকদের জন্যও নতুন আইন প্রযোজ্য। এ আইন অনুযায়ী, ধর্ম ত্যাগ ছাড়া বিয়ের আগে যৌন সম্পর্ক নিষিদ্ধ।

প্রেসিডেন্টকে অপমান বা জাতীয় আদর্শের বিপরীত মতামত প্রকাশের জন্য শাস্তির কথাও বলা হয়েছে আইনে।

এ বিষয়ে ইন্দোনেশিয়ার আইন প্রণেতা বামবাং উরিয়ান্তো বলেন, ‘খসড়াকে আইনে পরিণত করতে সবাই রাজি হয়েছে। এর আগের আইনটি ছিল ডাচ আমলের। এটি এখন আর প্রাসঙ্গিক নয়।’

ধর্ম অবমাননাসংক্রান্ত নতুন এ আইনে অভিযুক্তের সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে।

বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক নিয়ে তৈরি এ আইনের খসড়া ইন্দোনেশিয়ার পার্লামেন্টে প্রথম উত্থাপন হয় ২০১৯ সালে। ওই বছর এ নিয়ে দেশজুড়ে বিক্ষোভ হয়।

ইন্দোনেশিয়ার বিরোধী দলগুলো বলছে, আইনটি সমাজকে পিছিয়ে দেয়ার পাশাপাশি বাকস্বাধীনতা নিয়ন্ত্রণ করবে।

মন্তব্য

বিচিত্র
Death penalty record in Iran

ইরানে চলতি বছরে রেকর্ড ফাঁসি কার্যকর

ইরানে চলতি বছরে রেকর্ড ফাঁসি কার্যকর ইরানে এক আসামির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হচ্ছে। ছবি: সংগৃহীত
মানবাধিকার সংস্থা আইএইচআর জানায়, চলতি বছর ইরানে কমপক্ষে ৫০৪ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে, যা গত পাঁচ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। এ বছর আরও কয়েকজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের জন্য কাজ করছে দেশটি।

ইরানে চলতি বছর রেকর্ড পাঁচ শতাধিক মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে বলে জানিয়েছে নরওয়েভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ইরান হিউম্যান রাইটস (আইএইচআর)।

সোমবার আইএইচআর এ তথ্য দিয়েছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি।

সংবাদমাধ্যমটির বরাত দিয়ে এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানানো হয়, চলতি বছর ইরানে কমপক্ষে ৫০৪ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে, যা গত পাঁচ বছরে সবচেয়ে বেশি। এ বছর আরও কয়েকজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের জন্য দেশটি কাজ করছে।

মানবাধিকার সংস্থাটি জানায়, গত বছর ইরানে ৩৩৩ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছিল। এর আগের বছর এ সংখ্যা ছিল ২৬৭।

সঠিকভাবে হিজাব না পরার অভিযোগে ইরানের নৈতিকতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার কুর্দি তরুণী মাহসা আমিনির মৃত্যু হয় গত ১৬ সেপ্টেম্বর। সেদিন থেকেই প্রতিবাদ ছড়িয়ে পড়ে গোটা ইরানে।

বিক্ষোভ থামাতে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে ইরান সরকার ধরপাকড় চালায় বলে অভিযোগ ওঠে। এর মধ্যে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের এ সংখ্যা উদ্বেগ তৈরি করেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে, বিক্ষোভে জড়িতদের ব্যাপকভাবে মৃত্যুদণ্ড দেবে তেহরান।

ইরানে এ পর্যন্ত ছয় বিক্ষোভকারীকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। আইএইচআর জানায়, আইনজীবী ও যথাযথ প্রক্রিয়া ছাড়াই তাদের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়।

আরও ২৬ জনের বিচারপ্রক্রিয়া চলমান রয়েছে, যাদের মৃত্যুদণ্ড দেয়া হতে পারে। এদের মধ্যে তিন শিশু রয়েছে। ইরান সরকার এসব অভিযুক্তকে দাঙ্গাকারী হিসেবে আখ্যা দিয়েছে।

ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদকে সহায়তার অভিযোগে সম্প্রতি ইরানের চারজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়।

আইএইচআর জানায়, গ্রেপ্তারের সাত মাসের মধ্যে ওই সাতজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

এ প্রসঙ্গে আইএইচআর পরিচালক মাহমুদ আমিরি মোঘাদ্দাম এক বিবৃতিতে বলেন, ‘এসব ব্যক্তির সুষ্ঠু বিচার ছাড়াই মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়েছে। এ মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের মাধ্যমে সামাজিক ভীতি তৈরি করতে চায় ইরান সরকার।’

মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের প্রতিবেদনে বলা হয়, গত বছর বিশ্বে সবচেয়ে বেশি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয় ইরানে।

ধারণা করা হয়, ইরানের চেয়েও বেশি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয় চীনে, তবে দেশটির মৃত্যুদণ্ড সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যায় না।

মন্তব্য

বিচিত্র
NASAs Orion is returning to Earth after the lunar mission

চন্দ্রাভিযান শেষে পৃথিবীতে ফিরছে নাসার ওরিয়ন

চন্দ্রাভিযান শেষে পৃথিবীতে ফিরছে নাসার ওরিয়ন চন্দ্রাভিযান শেষে পৃথিবীতে ফিরছে নাসার মহাকাশযান ওরিয়ন। ছবি: বিবিসি
ওরিয়নের চন্দ্রযাত্রাটি ছিল পরীক্ষামূলক। এতে কোনো নভোচারী ছিলেন না, তবে স্পেসক্রাফটে মানবদেহের তিনটি মডেল রাখা ছিল, যেগুলোতে হাজার হাজার সেন্সর যুক্ত ছিল।

চন্দ্রাভিযান শেষে পৃথিবীর দিকে ফিরছে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার মহাকাশযান ওরিয়ন।

নাসা জানিয়েছে, চাঁদের কক্ষপথ ছেড়ে পৃথিবীর কক্ষপথে ফিরে এসেছে ওরিয়ন। রোববার প্রশান্ত মহাসাগরে এসে পড়বে এটি।

ওরিয়নের চন্দ্রযাত্রাটি ছিল পরীক্ষামূলক। এতে কোনো নভোচারী ছিলেন না, তবে স্পেসক্রাফটে মানবদেহের তিনটি মডেল রাখা ছিল, যেগুলোতে হাজার হাজার সেন্সর যুক্ত ছিল।

পুরো যাত্রায় মানব শরীরের ওপর কী ধরনের প্রভাব পড়তে পারে, তা যাচাই করে দেখতে চেয়েছিলেন বিজ্ঞানীরা।

নাসার বরাত দিয়ে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, আর্টেমিস প্রকল্পের অংশ ছিল ওরিয়নের মহাকাশযাত্রা। ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে ১৬ নভেম্বর ওরিয়ন উৎক্ষেপণ করেছিল নাসা। ২০ দিনের মধ্যে চাঁদের যাত্রা শেষ করে এ মহাকাশযান।

নাসা জানায়, আর্টেমিস-১ প্রকল্পের আওতায় নভোচারী ছাড়াই ওরিয়নকে চাঁদে পাঠিয়ে পরীক্ষা করা হয়।

আর্টেমিস-২ প্রকল্পের আওতায় ২০২৪ সালের শেষে নভোচারীসহ মহাকাশযান পাঠানোর পরিকল্পনা করছে নাসা। আর আর্টেমিস-৩ প্রকল্পের মাধ্যমে ৫০ বছর পর মানুষ চাঁদে অবতরণ করবে বলে নাসার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। ওই মহাকাশ যান ২০২৫ অথবা ২০২৬ সালে উৎক্ষেপণ করা হবে।

এসব পরিকল্পনা নির্ভর করছে ওরিয়নের ঠিকঠাকভাবে পৃথিবীতে ফেরার ওপর। এরই মধ্যে ওরিয়ন পৃথিবী থেকে প্রায় ৪ লাখ ৩০ হাজার ওপরে গিয়ে চাঁদের ছবি পাঠিয়েছে। এটি চাঁদের পৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১৩০ কিলোমিটার ওপরে ছিল।

ওরিয়ন ঘণ্টায় প্রায় সাড়ে ৩৯ হাজার কিলোমিটার বেগে পৃথিবীর দিকে ফিরছে, যেটি সাধারণ মহাকাশযানের চেয়ে অনেক বেশি গতির।

ধারণা করা হচ্ছে, ক্যালিফোর্নিয়া উপকূলে স্থানীয় সময় ১১ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৯টায় অবতরণ করবে ওরিয়ন। এর গতি কমাতে ১১টি প্যারাশুট মোতায়েন করা হয়েছে।

মন্তব্য

বিচিত্র
Abandonment of morality police in Iran is uproar

ইরানে নৈতিকতা পুলিশের বিলুপ্তি নিয়ে ধূম্রজাল

ইরানে নৈতিকতা পুলিশের বিলুপ্তি নিয়ে ধূম্রজাল ইরানে ইসলামিক পোশাকবিধি কার্যকর করার দায়িত্ব নৈতিকতা পুলিশের ওপর। ছবি: এএফপি
ইরানের রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং অধিকারকর্মীরা সোমবারের প্রকাশিত খবর নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। কেউ কেউ এটিকে ইরানের জাতীয় ছাত্র দিবস ঘিরে ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচি বানচালে শাসকদের চক্রান্ত বলে বর্ণনা করেছেন। আগামী বুধবার ইরানের জাতীয় ছাত্র দিবস।

ইরানের নৈতিকতা পুলিশের বিলুপ্তি নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশের এই বিভাগের হেফাজতে এক তরুণীর মৃত্যুর পর ইরানজুড়ে যে তীব্র প্রতিবাদ শুরু হয়েছে তা সামলাতে সোমবার নৈতিকতা পুলিশকে বিলুপ্তির কথা জানান দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল।

ইরানে পুলিশের এই বিভাগটি ‘গশত-ই-এরশাদ’ নামে পরিচিত। ইসলামিক শাসনের দেশটিতে বিদ্যমান কঠোর পোশাকবিধি অমান্যকারীদের আটক করে ব্যবস্থা নেয়ার দায়িত্ব এই নৈতিকতা পুলিশের ওপর। ইরানের সাবেক কট্টরপন্থি প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমাদিনেজাদের শাসনামলে বাহিনীটি গঠন করা হয়েছিল।

অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মাদ জাফর মোনতাজেরি বলেছিলেন, গশত-ই-এরশাদ নামে পরিচিত নৈতিকতা পুলিশের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে। পোশাকবিধির বিষয়টি পর্যালোচনা করা হবে।

নৈতিকতা পুলিশ ব্যবস্থা কার্যকর আছে কি না, তা স্পষ্ট হওয়ার জন্য রোববার জানতে চাইলে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোসেইন আমিরাবদুল্লাহিয়ান সরাসরি উত্তর দেননি।

সার্বিয়ার বেলগ্রেডে সফরে থাকা আমিরাবদুল্লাহিয়ান বলেছিলেন, ‘ইরানে গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা নিয়ে কোনো আপস হয় না। এটা নিয়ে সন্দেহের কোনো সুযোগ নেই। সবকিছু খুব ভালোভাবে চলছে।’

সেপ্টেম্বরে ইরানের রাজধানী তেহরানে ২২ বছরের এক তরুণীকে গ্রেপ্তার করে নৈতিকতা পুলিশ। মাহসা আমিনি নামের ওই তরুণীর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি সঠিকভাবে হিজাব করেননি। ১৬ সেপ্টেম্বর হেফাজতে থাকা অবস্থায় মাহসার মৃত্যু হয়। সেদিন সন্ধ্যা থেকে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে ইরানের জনগণ। নারীর পোশাকের স্বাধীনতার দাবিতে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে গোটা ইরানে।

ইরানে নৈতিকতা পুলিশের বিলুপ্তি নিয়ে ধূম্রজাল
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ সেপ্টেম্বর মারা যান মাহসা আমিনি

সোমবার সকাল পর্যন্ত নৈতিকতা পুলিশের দায়িত্বে থাকা ইরানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে কার্যক্রম স্থগিত করার কোনো নিশ্চিতকরণ পাওয়া যায়নি।

ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, নৈতিকতা পুলিশ বাহিনীর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ মনতাজেরি বা সরকারের বিচার বিভাগীয় শাখার নেই।

ইরানের রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং অধিকারকর্মীরা সোমবারের প্রকাশিত খবর নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। কেউ কেউ এটিকে ইরানের জাতীয় ছাত্র দিবস ঘিরে ঘোষিত বিক্ষোভ কর্মসূচি বানচালে শাসকদের চক্রান্ত বলে বর্ণনা করেছেন। আগামী বুধবার ইরানের জাতীয় ছাত্র দিবস।

ইরানে নৈতিকতা পুলিশের বিলুপ্তি নিয়ে ধূম্রজাল
তেহরানে একটি ম্যুরালের পাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন এক নারী

টনি ব্লেয়ার ইনস্টিটিউট ফর গ্লোবাল চেঞ্জের ইরানের প্রোগ্রামের প্রধান কাসরা আরাবি টুইটারে বলেছেন, “ইরানের সর্বোচ্চ নেতা খামেনির শাসন ‘নৈতিকতা পুলিশ’ বিলুপ্ত করেছে এমন প্রতিবেদনগুলো ভুয়া খবর।

“ইরানে আগামীকাল থেকে শুরু হওয়া তিন দিনের বড় বিক্ষোভ থেকে মিডিয়ার মনোযোগকে বিভ্রান্ত করার জন্য এই বিভ্রান্তিমূলক প্রচার চালানো হয়েছে। কেন মূলধারার মিডিয়া এই প্রসঙ্গ উপেক্ষা করল?”

আরব উপদ্বীপের সঙ্গে সম্পর্কের জন্য ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধিদলের চেয়ারওম্যান হান্না নিউম্যান রোববার প্রতিবেদনগুলোকেকে প্রত্যাখ্যান করেছেন।

নিউম্যান টুইটে লেখেন, “ইরান সরকারের ‘নৈতিকতা পুলিশ’-এর বিল্পপতি ঘোষণা করা ছিল একটি জনসংযোগ স্টান্ট। মৃত্যুদণ্ড, নির্বিচারে আটক এবং ধর্ষণ আজও দুঃখজনক বাস্তবতা।"

তেহরান নৈতিকতা পুলিশের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে…এ খবর যেদিন অ্যাটর্নি জেনারেল মনতাজেরি জানিয়েছিলেন, সেদিন পার্লামেন্টে দেখা গেছে ভিন্ন চিত্র। কঠোর পোশাকবিধি শিথিল করতে সংবিধান পরিবর্তনে সংস্কারবাদী এবং বিক্ষোভকারীদের আহ্বান প্রত্যাখ্যান করেন স্পিকার মোহাম্মদ গালিবাফ।

গালিবাফ শনিবার বলেছিলেন, ‘দেশে সংবিধান ছাড়া আমাদের আর কোনো বৈধ দলিল নেই। একটি নতুন শাসনের জন্য আলোচনায় আমাদের ফোকাস সংবিধান বাস্তবায়নের দিকে থাকা উচিত, বিধান পরিবর্তনের দিকে নয়।’

ইরানের সংবিধান সংস্কারের দাবিকে দুই-তৃতীয়াংশ আইনপ্রণেতা সমর্থন করলে অথবা সর্বোচ্চ নেতা খামেনি অনুরোধ করলে, গণভোটের আয়োজন করতে হবে।

রাষ্ট্রীয় ধর্মের মতো ইরানের ‘অ-সংশোধনযোগ্য নীতি’ ছাড়া যেকোনো বিষয়ে গণভোটের সুযোগ হয়েছে ইরানের সংবিধানে।

মন্তব্য

বিচিত্র
Java Volcano 2000 people evacuated

জাভার আগ্নেয়গিরি: সরানো হলো ২ হাজার মানুষ

জাভার আগ্নেয়গিরি: সরানো হলো ২ হাজার মানুষ ইন্দোনেশিয়ার সেমেরু পর্বতে আগ্নেয়গিরির ঘটনায় দুই হাজার বাসিন্দাকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
বিএনপিবির প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা গেছে, লাভার সঙ্গে বের হওয়া ঘন ধূসর ধোঁয়ার কুণ্ডলী ও ছাইয়ে ঢেকে যাচ্ছে একের পর এক গ্রাম। উদগিরণের ছাই থেকে বাসিন্দাদের সুরক্ষা দিতে এরই মধ্যে ২০ হাজারের বেশি ফেসমাস্ক বিতরণ করা হয়েছে।

ইন্দোনেশিয়ার সেমেরু পর্বতে আগ্নেয়গিরি শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যে দুই হাজার বাসিন্দাকে পূর্ব জাভা দ্বীপ থেকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

দেশটির জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্থার (বিএনপিবি) রোববার প্রকাশিত বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এখন পর্যন্ত কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি। তাদের স্কুল, গ্রাম্য কমিউনিটি হলসহ বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে রাখা হয়েছে।

বিএনপিবির প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা গেছে, লাভার সঙ্গে বের হওয়া ঘন ধূসর ধোঁয়ার কুণ্ডলী ও ছাইয়ে ঢেকে যাচ্ছে একের পর এক গ্রাম।

উদগিরণের ছাই-ধোঁয়া থেকে বাসিন্দাদের সুরক্ষা দিতে এরই মধ্যে ২০ হাজারের বেশি ফেস মাস্ক বিতরণ করা হয়েছে।

এর আগে স্থানীয় সময় রোববার রাত ২টা ৪৫ মিনিটে সেমেরু পর্বতের আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়।

জাভার আগ্নেয়গিরি: সরানো হলো ২ হাজার মানুষ

ইন্দোনেশিয়ার জাভা দ্বীপের সেমেরু পর্বতের আগ্নেয়গিরি থেকে উদগীরিত লাভা, ধোঁয়া, ছাইসহ অন্যান্য উপাদান পর্যবেক্ষণ করছেন উদ্ধারকর্মীরা। ছবি: এপি

ওই পার্বত্য এলাকা থেকে সাধারণ মানুষকে দূরে থাকার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এর পরপরই ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে অনেকে বাসিন্দাকে পালাতে দেখা গেছে। তাদের উদ্ধারে কাজ করছে সরকারি সংস্থা।

এদিকে প্রতিবেশী দেশ জাপানের আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, অগ্ন্যুৎপাতের পর আকাশের প্রায় ১৫ কিলোমিটার পর্যন্ত ছাই ও ধোঁয়ার কুণ্ডলী তৈরি হয়। অগ্ন্যুৎপাতের পর সুনামি হতে পারে বলে আশঙ্কার কথাও জানিয়েছে সংস্থাটি।

ইন্দোনেশিয়ার সেন্টার ফর ভলক্যানোলোজি অ্যান্ড জিওলজিক্যাল হ্যাজার্ড মিটিগেশন (পিভিএমজি) একটি বিবৃতিতে জানায়, অগ্ন্যুৎপাতের সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

সেমেরু পর্বত দেশটির রাজধানী জাকার্তা থেকে ৬৪০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত। রোববার রাত ২টা ৪৫ মিনিটে এই অগ্ন্যুৎপাত শুরু হয়।

গত মাসে ইন্দোনেশিয়ায় ভয়াবহ ভূমিকম্পের পরই অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটে। ওই ভূমিকম্পে তিন শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়। বিশ্বে যে কয়েকটি দেশে সক্রিয় আগ্নেয়গিরি আছে ইন্দোনেশিয়া তাদের মধ্যে একটি। এগুলোতে প্রায়ই অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন:
বিশ্বের সবচেয়ে বড় আগ্নেয়গিরিতে বের হচ্ছে লাভা
নজীরবিহীন দুর্যোগে টোঙ্গা
সাগরতলে ১০ লাখ আগ্নেয়গিরি

মন্তব্য

p
উপরে