সাভারের ‘রানি’ এখন বিশ্ব মিডিয়ায়

player
সাভারের ‘রানি’ এখন বিশ্ব মিডিয়ায়

দেশের গন্ডি পেরিয়ে ‘রানিকে’ নিয়ে আলোচনা হচ্ছে বিশ্ব মিডিয়ায়ও। ছবি: নিউজবাংলা

গরুটি নিয়ে বেশির ভাগ সংবাদমাধ্যমেই একই শিরোনাম দেখা গেছে- ‘থাউজ্যান্ডস ফ্লক টু সি ডুয়ার্ফ কাউ ইন বাংলাদেশ’। অর্থাৎ বাংলাদেশে বামন গরু দেখতে ভিড় জমাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ।

গিনেস বুকে নাম ওঠার আগেই বিশ্ব মিডিয়ায় ঝড় তুলেছে ঢাকার সাভারের একটি খামারে বেড়ে ওঠা ২০ ইঞ্চি উচ্চতার গরু ‘রানি’। দুই বছর বয়সী গরুটি নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছে এএফপি, বিবিসি, অস্ট্রেলিয়ার এবিসি, ফ্রান্সের ফ্রান্স টোয়েন্টিফোর, সংযুক্ত আরব আমিরাতের গালফ নিউজসহ অনেক সংবাদমাধ্যম।

গরুটি নিয়ে বেশির ভাগ সংবাদমাধ্যমেই একই শিরোনাম দেখা গেছে- ‘থাউজ্যান্ডস ফ্লক টু সি ডুয়ার্ফ কাউ ইন বাংলাদেশ’। অর্থাৎ বাংলাদেশে বামন গরু দেখতে ভিড় জমাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ।

বার্তা সংস্থা এএফপি গরুটিকে নিয়ে ৩৪৪ শব্দের একটি প্রতিবেদন প্রকাশের পাশাপাশি ৪ মিনিট ৪১ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ছেড়েছে। এএফপির বরাতে গরুটি নিয়ে সংবাদ ছেপেছে ফ্রান্স টোয়েন্টিফোরসহ আরও অনেক সংবাদমাধ্যম।

রানিকে নিয়ে বিবিসি শিরোনাম দিয়েছে ‘ডুয়ার্ফ কাউ রানি ফাইন্ডস ফেম ইন বাংলাদেশ’। অর্থাৎ বাংলাদেশে বামন গরু রানি বিখ্যাত হয়ে উঠছে।

রানিকে নিয়ে ফলাও করে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে টাইমস অফ ইন্ডিয়া, হিন্দুস্তান টাইমস, এনডিটিভিসহ ভারতের অনেক সংবাদমাধ্যম। সংবাদ প্রকাশ করেছে পাকিস্তানের জিও টিভিও।

সংযুক্ত আরব আমিরাতভিত্তিক গালফ নিউজ রানিকে নিয়ে প্রতিবেদন ছাপিয়েই থামেনি। একটি ফটো স্টোরিও প্রকাশ করেছে।

অস্ট্রেলিয়ার এবিসি ডটনেট লিখেছে, বাংলাদেশে ক্ষুদ্রকায় একটি গরু দেখতে করোনার মধ্যেও ভিড় জমাচ্ছে অনেক মানুষ।

সাভারের ‘রানি’ এখন বিশ্ব মিডিয়ায়

সাভার উপজেলার পাথালিয়া ইউনিয়নের শিকড় অ্যাগ্রো ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড নামে খামারে বেড়ে উঠেছে রানি। ধারণা করা হচ্ছে, এটি বিশ্বের সবচেয়ে খর্বাকায় গরু। রানির নাম গিনেস রেকর্ড বুকে তুলতে এরই মধ্যে আবেদন করেছে খামার কর্তৃপক্ষ।

গিনেস বুকে খর্বাকৃতির গরু হিসেবে বর্তমানে যে গরুটি আছে সেটির উচ্চতা ২৪.৭ ইঞ্চি। ২০১৪ সালের ২১ জুন খর্বাকৃতির গরু হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়া ভারতের কেরালা রাজ্যে মানিকিয়াম জাতের গরুটির ওজন ৪০ কেজি।

শিকড় অ্যাগ্রো কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ভুট্টি জাতের গরু রানির উচ্চতা ২০ ইঞ্চি, দৈর্ঘ্য ২৬ ইঞ্চি এবং ওজন ২৬ কেজি। ১১ মাস আগে নওগাঁর প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে রানিকে আনা হয় এই খামারে। এরপর থেকেই লালন-পালন করছেন তারা।

খামারটির ব্যবস্থাপক তানভির হাসান বলেন, ‘আমরা গিনেস বুকে রানিকে ছোট গরু হিসেবে রেকর্ডের জন্য মেইল পাঠিয়েছি। রানির ছবি, ফুটেজসহ সব তথ্য পাঠানো হয়েছে।

‘অনেক দিন ধরে আমরা রানিকে অবজার্ভ করছিলাম বাড়ে কি না। রানির বয়স এখন দুই বছর। দুই দাঁত হয়ে গেছে। এরপরই ভেটেরিনারি ডাক্তার কনফার্ম করেছেন, এটা পরিপূর্ণ। দুই দাঁত হয়ে গেলে বাড়ার আর সুযোগ থাকে না। এটা আর বাড়বে না।’

তানভির জানান, গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের কাছে গত ২ জুলাই আনুষ্ঠানিক মেইল পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে ফিরতি মেইল দেয়া হয়েছে। তারা গিনেস বুকের ফরম পূরণ করে দিয়েছেন। তিন মাসের মধ্যেই গিনেস থেকে দল আসবে বলে জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ইন্দোনেশিয়ার বারে সংঘর্ষ, নিহত ১৯

ইন্দোনেশিয়ার বারে সংঘর্ষ, নিহত ১৯

সংঘর্ষে জড়ানো প্রতিদ্বন্দ্বী গ্যাংগুলো পার্শ্ববর্তী দ্বীপ মালুকো থেকে এসেছিল। ছবি: সংগৃহীত

পুলিশের মুখপাত্র অ্যাডাম ইরউয়িনি বলেন, বিভিন্ন শহরে তরুণদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা স্বাভাবিক। তবে সংঘর্ষকে কেন্দ্র করে এত প্রাণহানির ঘটনা এবারই প্রথম।

ইন্দোনেশিয়ার একটি বারে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী গ্যাং-এর সংঘর্ষে ১৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মঙ্গলবার দেশটির ওয়েস্ট পাপুয়াতে একটি কারাওকে বারে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রুপের সংঘাত চলার সময় এক ব্যক্তিকে ছুরি দিয়ে আঘাত করলে তার মৃত্যু হয়। এরপর বারটিতে আগুন ধরিয়ে দিলে ভেতরে আটকা পড়ে ১৮ জন মারা যান।

ওয়েস্ট পাপুয়ার সোরং পুলিশ, বারে নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

পুলিশের মুখপাত্র অ্যাডাম ইরউয়িনি বলেন, বিভিন্ন শহরে তরুণদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা স্বাভাবিক। তবে সংঘর্ষকে কেন্দ্র করে এত প্রাণহানির ঘটনা এবারই প্রথম।

অ্যাডাম আরও জানিয়েছেন, ঘটনাটির এখনও তদন্ত চলছে।

এদিকে ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় পুলিশের মুখপাত্র দেদি প্রেসতিও জানিয়েছেন, আজ সংঘর্ষে জড়ানো প্রতিদ্বন্দ্বী গ্যাংগুলো পার্শ্ববর্তী দ্বীপ মালুকো থেকে এসেছিল।

শেয়ার করুন

যে কারণে দাম হারাচ্ছে বিটকয়েন

যে কারণে দাম হারাচ্ছে বিটকয়েন

বিটকয়েনের দরপতনের আঘাত লেগেছে বাকি ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোতেও। ছবি: সংগৃহীত

ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ বিবেচনায় ক্রমাগত দাম হারাচ্ছে বিটকয়েন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় বিটকয়েনের দাম কমেছে ৮.৮ শতাংশ। বর্তমানে কারেন্সিটির দাম ৩৩ হাজার ডলার। অথচ গত নভেম্বরেও এর দাম ছিল ৬৯ হাজার ডলার।

ইউক্রেন সীমান্তে সেনা জড়ো করেছে রাশিয়া। যে কোনো সময় ইউক্রেনে আক্রমণ করে বসতে পারে দেশটি- এমন আশঙ্কার কথা ব্যক্ত করছে খোদ ইউক্রেন। আর ইউরোপে নতুন করে যুদ্ধের আশঙ্কা করছে পোল্যান্ড।

এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেনে সৃষ্ট অস্থিরতা ও যুদ্ধের আশঙ্কা প্রভাব ফেলেছে ক্রিপ্টোকারেন্সির দামে। হু হু করে দাম হারাচ্ছে কারেন্সিগুলো।

রাশিয়ার সঙ্গে উত্তেজনা যুদ্ধের মোড় নিতে পারে। পশ্চিমাদের সঙ্গে দুই ধাপে আলোচনা করার পরও কোনো সমাধান আসেনি।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর রোববার বলেছে, কূটনীতিকদের পরিবারের সদস্যদের ইউক্রেন ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে দেশটি। দূতাবাসের অনেক কর্মীকে সরিয়ে নিচ্ছে যুক্তরাজ্যও। ন্যাটোর ধারণা, যে কোনো সময় আক্রমণ করতে পারে রাশিয়া।

এমন পরিস্থিতিতে দাম বেড়েছে তেল ও ডলারের। কমেছে ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদের দাম। তাই বিশ্বব্যাপী শেয়ারবাজারে দরপতন ঘটছে।

ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ বিবেচনায় ক্রমাগত দাম হারাচ্ছে বিটকয়েন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় বিটকয়েনের দাম কমেছে ৮.৮ শতাংশ। বর্তমানে কারেন্সিটির দাম ৩৩ হাজার ডলার। অথচ গত নভেম্বরেও এর দাম ছিল ৬৯ হাজার ডলার।

বিটকয়েনের দরপতনের আঘাত লেগেছে বাকি ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোতেও। ক্রমাগত দাম হারাচ্ছে প্রতিষ্ঠিত কারেন্সিগুলো।

দ্বিতীয়-বৃহৎ ক্রিপ্টোকারেন্সি ইথারিয়ামের দাম ১৩ শতাংশ কমে ২ হাজার ২০২ ডলারে দাঁড়িয়েছে, যা ২৭ জুলাইয়ের পর সর্বনিম্ন। বাইনান্স কয়েনের দাম কমেছে ১২ শতাংশ।

ডজকয়েন, শিবা ইনু, ফ্লোকি ইনু, আকিতা ইনুর মতো মিম কয়েনগুলোও ক্রমাগত দাম হারাচ্ছে। ডজকয়েন, ফ্লোকি ইনু নিয়ে ইলন মাস্কের টুইটেও দামের খুব একটা হেরফের হয়নি।

ক্রিপ্টোকারেন্সি ও সাইড চেইনের প্ল্যাটফর্ম হরাইজনের প্রধান মার্ক এলেনোভিটস বলেন, ‘সামষ্টিক অর্থনীতির পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত বিটকয়েনের অবস্থার কোনো পরিবর্তন হবে না।’

তাই ইউক্রেন পরিস্থিতি শিগগিরই স্বাভাবিক না হলে বিটকয়েনসহ ক্রিপ্টোকারেন্সির দাম ঊর্ধ্বমুখী হওয়ার সম্ভাবনা কম।

শেয়ার করুন

যুক্তরাষ্ট্রের পঞ্চম প্রজন্মের বিমান দুর্ঘটনায়

যুক্তরাষ্ট্রের পঞ্চম প্রজন্মের বিমান দুর্ঘটনায়

দুর্ঘটনার শিকার এফ-৩৫-এর অবস্থা ও ইউএসএস কার্ল ভিনসনের ক্ষয়ক্ষতির বিষয়েও কিছু জানা যায়নি। ছবি: সংগৃহীত

ইউএস প্যাসিফিক কমান্ডের অধীন পারমাণবিক শক্তিচালিত বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস কার্ল ভিনসন দক্ষিণ চীন সাগরে মোতায়েন রয়েছে। দুর্ঘটনা ঘটার সময় এফ-৩৫সি লাইটিং টু বিমানটি রুটিন ফ্লাইট পরিচালনা করছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের পঞ্চম প্রজন্মের যুদ্ধবিমান এফ-৩৫ অবতরণের সময় দুর্ঘটনায় পড়েছে। এ সময় অবতরণের কাজে যুক্ত থাকা ৭ জন নাবিকও আহত হয়েছেন।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, দক্ষিণ চীন সাগরে বিমানবাহী রণতরীর ডেকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

ইউএস প্যাসিফিক কমান্ডের অধীন পারমাণবিক শক্তিচালিত বিমানবাহী রণতরী ইউএসএস কার্ল ভিনসন দক্ষিণ চীন সাগরে মোতায়েন রয়েছে। দুর্ঘটনা ঘটার সময় এফ-৩৫সি লাইটিং টু বিমানটি রুটিন ফ্লাইট পরিচালনা করছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী জানিয়েছে, পাইলট নিরাপদে বিমান থেকে বেরিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন।

আহত ৭ নাবিকের মধ্যে ৩ জনকে ম্যানিলার মেডিক্যাল ফ্যাসিলিটিজে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তবে ঠিক কী কারণে তাদের ম্যানিলায় সরানো হলো তা জানানো হয়নি। তাদের অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানানো হয়েছে।

বাকি ৪ জন ইউএসএস কার্ল ভিনসনেই চিকিৎসা নিয়েছেন। এর মধ্যে ৩ জনকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তবে যিনি চিকিৎসাধীন আছেন, বিবৃতিতে তার অবস্থা জানানো হয়নি।

যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী জানিয়েছে, দুর্ঘটনার কারণ তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

এ ছাড়া দুর্ঘটনার শিকার এফ-৩৫-এর অবস্থা ও ইউএসএস কার্ল ভিনসনের ক্ষয়ক্ষতির বিষয়েও কিছু জানা যায়নি।

শেয়ার করুন

স্টেডিয়ামে পদদলিত হয়ে নিহত ৮

স্টেডিয়ামে পদদলিত হয়ে নিহত ৮

ইয়াউন্ডের ফুটবল স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা ৬০ হাজার। ছবি: সংগৃহীত

ক্যামেরুনের মধ্যাঞ্চলের গভর্নর নাসেরি পল বিয়ার জানিয়েছেন, ‘নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। আমরা মোট নিহতের সংখ্যা এখন জানাতে পারছি না।’

আফ্রিকান নেশন্স কাপের ম্যাচকে কেন্দ্র করে ক্যামেরুনের রাজধানী ইয়াউন্ডেতে পদদলিত হয়ে ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অনেকে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্টেডিয়ামে স্বাগতিক দেশের খেলা দেখতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

ইয়াউন্ডের ফুটবল স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণক্ষমতা ছিল ৬০ হাজার। কিন্তু কোভিড মহামারির কারণে স্টেডিয়ামের ধারণক্ষমতা অনুযায়ী ফুটবলভক্তদের ঢুকতে দেয়া হয়নি।

ফলে প্রায় ৫০ হাজার দর্শক স্টেডিয়ামে ঢোকার চেষ্টা করছিল। এ সময়ই এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাটি ঘটে।

ক্যামেরুনের মধ্যাঞ্চলের গভর্নর নাসেরি পল বিয়ার জানিয়েছেন, ‘নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। আমরা মোট নিহতের সংখ্যা এখন জানাতে পারছি না।’

স্থানীয় হাসপাতালের নার্স অলিঙ্গা প্রুডেন্স অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে জানিয়েছেন, কয়েকজন আহত ব্যক্তি খুবই বাজে অবস্থায় আছে।

আফ্রিকান ফুটবল কনফেডারেশন (সিএএফ) জানিয়েছে, তারা পরিস্থিতি তদন্ত করে দেখছে এবং বিস্তারিত জানার চেষ্টা করছে।

তবে এত বড় দুর্ঘটনার পরও ক্যামেরুন ও কমোরসের ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়। ম্যাচটিতে স্বাগতিক ক্যামেরুন ২-১ গোলে জয় পায়।

শেয়ার করুন

পূর্ব ইউরোপে সামরিক শক্তি বাড়াচ্ছে ন্যাটো

পূর্ব ইউরোপে সামরিক শক্তি বাড়াচ্ছে ন্যাটো

ন্যাটো জানিয়েছে, রাশিয়াকে মোকাবেলায় তাদের বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

ন্যাটোর সেক্রেটারি জেনারেল জেন্স স্টোলেনবার্গ সোমবার বলেছেন, ন্যাটো সব ধরনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। এমনকি ইউরোপের দক্ষিণ-পশ্চিমেও যুদ্ধসেনা মোতায়েন করার বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে। 

রাশিয়ার সঙ্গে পশ্চিমাদের চলমান উত্তেজনার জেরে পূর্ব ইউরোপে সামরিক শক্তি বাড়াচ্ছে ন্যাটো। পশ্চিমা নীতিনির্ধারকদের ধারণা যে কোনো সময় ইউক্রেনে হামলা চালাতে পারে রাশিয়া।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ন্যাটো জানিয়েছে তারা তাদের বাহিনীকে প্রস্তুত রেখেছে এবং পূর্ব ইউরোপে বাড়তি যুদ্ধজাহাজ ও যুদ্ধবিমান মোতায়েন করেছে। ইউরোপের দক্ষিণ-পূর্ব দিকে বাড়তি সেনাও মোতায়েন করা হয়েছে।

ন্যাটোর সেক্রেটারি জেনারেল জেন্স স্টোলেনবার্গ সোমবার বলেছেন, ন্যাটো সব ধরনের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। এমনকি ইউরোপের দক্ষিণ-পশ্চিমেও যুদ্ধসেনা মোতায়েন করার বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে।

পশ্চিমাদের সঙ্গে রাশিয়ার কয়েক দফা আলোচনা ব্যর্থ হওয়ার পর এখন ইউক্রেন সীমান্তে যুদ্ধের আশঙ্কা করা হচ্ছে। রাশিয়া ইতিমধ্যে দেশটির সীমান্তে প্রায় ১ লাখ সেনা মোতায়েন করেছে।

ইউক্রেন সেনাদের প্রতিরক্ষামূলক অস্ত্র সরবরাহ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য। যদিও যুক্তরাজ্য ইউক্রেন রক্ষায় সেনা পাঠানোর সম্ভাবনা নাকোচ করে দিয়েছে।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের দাবি, গোয়েন্দা তথ্যে নিশ্চিত রাশিয়ার যোদ্ধাদের ৬০টি দল ইউক্রেন সীমান্তে জড়ো হয়েছে। যদিও রাশিয়া আগ্রাসনের সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছে।

এদিকে এই মুহূর্তে দেশটিতে প্রয়োজনীয় নয়, এমন কর্মীদের ইউক্রেন ত্যাগের নির্দেশনা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। একই সঙ্গে সেখানে বসবাসরত তাদের নাগরিকদের দেশ ত্যাগের বিষয়টি বিবেচনারও পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার সেনাবাহিনীর পদক্ষেপ গ্রহণের খবর পাওয়া গেছে। এমন পরিস্থিতিতে সতর্কতা অবলম্বনের জন্য বলা হচ্ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘দূতাবাস খোলা থাকবে। হোয়াইট হাউস থেকে বারবার সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে। যে কোনো সময় হামলা হতে পারে।’

তারা বলছেন, এমন পরিস্থিতি হলে যুক্তরাষ্ট্রের সরকারের পক্ষে দেশটির নাগরিকদের সরিয়ে নেওয়ার মতো অবস্থা থাকবে না।

ইউক্রেন ইস্যুতে সম্প্রতি দুই পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার উত্তেজনা বাড়ছে। সীমান্তে রুশ সেনা জমায়াতের জবাবে হুঁশিয়ারি নয়, চলতি সপ্তাহে সরাসরি ইউক্রেনে অস্ত্র পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

২০১৪ সালে ইউক্রেনের ক্রিমিয়ান উপত্যকা দখলে নেয় রাশিয়া। শুরু হয় ইউক্রেন সেনাবাহিনীর সঙ্গে মস্কো মদদপুষ্ট ইউক্রেনিয়ান বিদ্রোহীদের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। এতে কমপক্ষে ১৪ হাজার মানুষ নিহত হন। দেশ ছেড়ে পালিয়ে যান অন্তত ২০ লাখ নাগরিক।

শেয়ার করুন

জার্মানিতে হামলার পর বন্দুকধারীর ‘আত্মহনন’

জার্মানিতে হামলার পর বন্দুকধারীর ‘আত্মহনন’

জার্মানির দক্ষিণ-পশ্চিমের হাইডেলবার্গ একটি বিশ্ববিদ্যালয় শহর। ছবি: সংগৃহীত

পুলিশের পক্ষ থেকে জনগণকে হামলার শিকার এলাকা এড়িয়ে চলতে বলা হয়েছে, যাতে উদ্ধার অভিযানে কোনো বিঘ্ন সৃষ্টি না হয়।

জার্মানির হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে লেকচার হল অডিটোরিয়ামে এক বন্দুকধারী হামলা চালিয়ে চারজনকে আহত করে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জার্মান পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনায় বন্দুকধারীও প্রাণ হারিয়েছে।

জরুরি বিভাগের কর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কাজ করছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, বন্দুকধারীর হামলায় আহত চারজনের মধ্যে দু-একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

পুলিশের পক্ষ থেকে জনগণকে হামলার শিকার এলাকা এড়িয়ে চলতে বলা হয়েছে, যাতে উদ্ধার অভিযানে কোনো বিঘ্ন সৃষ্টি না হয়।

বেশ কয়েক বছর ধরে জার্মানি বেশ কয়েকটি উগ্রবাদী হামলার শিকার হয়েছে। তবে দেশটিতে অস্ত্রসংক্রান্ত আইন বেশ কঠিন এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বন্দুকধারীর হামলা হয় না বললেই চলে।

জার্মান সংবাদপত্র বিল্ডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বন্দুকধারী লেকচার হলেই গুলি ছুড়তে শুরু করে। তিনি নিজেকে নিজেই গুলি করে আত্মহত্যা করেন।

হামলা চালানো বন্দুকধারী হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়েরই ছাত্র।

শেয়ার করুন

ভারতের পুঁজিবাজারে ধস, উধাও ৮ লাখ কোটি রুপি

ভারতের পুঁজিবাজারে ধস, উধাও ৮ লাখ কোটি রুপি

ভারতের শেয়ারবাজারে টানা পঞ্চম দিনের মতো ধস নামল।

সোমবার সপ্তাহের প্রথম দিনেই ভারতের শেয়ারবাজার থেকে মুছে গেছে লগ্নিকারীদের ৮ লাখ কোটি রুপির শেয়ারসম্পদ। গত শুক্রবার বাজার মূলধন ছিল ২৭০ লাখ কোটি রুপি, যা সোমবার ২৬২ লাখ কোটি রুপিতে নেমে এসেছে।

কয়েক দিন ধরেই ওঠানামা চলছিল ভারতের শেয়ারবাজার। তবে সোমবার বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জ (বিএসই) সূচক সেনসেক্স ও ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জ (এনএসই) সূচক নিফটিতে বড় ধরনের ধস নামে।

সোমবার বাজার খোলার সময় সেনসেক্স ৫৮ হাজার ৬১৯ পয়েন্টে ছিল। পরে পয়েন্ট হারিয়ে সূচক নেমে আসে ৫৭ হাজার ৮৪২-তে। অন্যদিকে নিফটি ৩৫৩ পয়েন্ট হারায়। এটি নেমে আসে ১৭ হাজার ২৫০ পয়েন্টে।

গত সপ্তাহের শেষে বাজার বন্ধের সময় সেনসেক্স ৪২৭ পয়েন্ট নেমে ৫৯ হাজার ৩৭-তে পৌঁছেছিল। ১৩৯ পয়েন্ট পতনের পর নিফটি ছিল ১৭ হাজার ৬১৭ পয়েন্টে।

সপ্তাহের প্রথম দিনেই ভারতের শেয়ারবাজার থেকে মুছে গেছে লগ্নিকারীদের ৮ লাখ কোটি রুপির শেয়ারসম্পদ। গত শুক্রবারে বাজার মূলধন ছিল ২৭০ লাখ কোটি রুপি, যা সোমবার ২৬২ লাখ কোটি রুপিতে নেমে এসেছে।

আন্তর্জাতিক শেয়ারবাজার কয়েক দিন ধরেই দুর্বল। এর প্রভাবেই ভারতের শেয়ারবাজারে এ নিয়ে পঞ্চম দিনের মতো ধস নামল। এশিয়ার শেয়ারবাজারও পতনের দিকে।

বিকেল পর্যন্ত রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজ (আরআইএল), ইনফোসিস, এইচডিএফসি ব্যাংক, বাজাজ ফাইন্যান্স, কোটাক মাহিন্দ্রা ব্যাংক এবং টাটা কনসালট্যান্সি সার্ভিসেস (টিসিএস) সেনসেক্সের সব শেয়ারবাজারে লাল চিহ্নে লেনদেন করছিল।

ছোট এবং মাঝারি সংস্থাগুলোর পাশাপাশি বড় কোম্পানিগুলোর শেয়ারেরও পতন হয়েছে সোমবার। প্রায় সব ধরনের শেয়ারের দামই পড়েছে।

বোম্বে স্টক এক্সচেঞ্জে এদিন মাত্র ৪৫৬টি শেয়ার ছিল ঊর্ধ্বমুখী ও ৩ হাজার ৬৯টি নিম্নমুখী।

সেক্টরাল সূচকগুলোর মধ্যে নিফটি মেটাল সূচক হিন্দুস্তান কপার এবং জিন্দাল স্টিল অ্যান্ড পাওয়ার ৪ দশমিক ৫ শতাংশ কমেছে। তবে এদিন সবচেয়ে বড় ক্ষতি হয়েছে প্রযুক্তি খাতে। নিফটির আইটি সূচক ২ দশমিক ২২ শতাংশেরও বেশি নিচে নেমেছে।

জোমাটো, পেটিএম ও নিয়ের মতো প্রযুক্তি কোম্পানির ট্রেডিং সেশনে ক্ষতি হয়েছে।

বিনিয়োগকারীরা এক্সিস ব্যাংক ও এইচডিএফসি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির তৃতীয় ত্রৈমাসিকের রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছে ৷

যদিও বিশেষজ্ঞরা বিনিয়োগকারীদের সতর্কতার সঙ্গে লেনদেন করতে ও কোম্পানির মুনাফা দেখে শেয়ার বেচাকেনা করতে নিষেধ করেছেন।

কারণ ২০২২-২৩-এর কেন্দ্রীয় বাজেটের আগে বাজারগুলোয় আরও পতনের আশঙ্কা রয়েছে।

শেয়ার করুন