× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিনোদন
Sanjay said that he is still in great financial trouble
google_news print-icon

এখনও অর্থকষ্টে আছেন, জানালেন সঞ্জয়

এখনও-অর্থকষ্টে-আছেন-জানালেন-সঞ্জয়
সঞ্জয় গান্ধী
সম্প্রতি তিনি জানিয়েছেন, অতিমারির সময় থেকে তার আর্থিক পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে বাড়িভাড়া মেটানোর সামর্থ্য পর্যন্ত তার নেই। এমনকি মরিয়া হয়ে তিনি তার মিরা রোডের একটি ফ্ল্যাট বন্ধক রাখার কথাও ভেবেছেন।

রুপালি পর্দার মানুষগুলোর জীবন যতখানি রঙিন, বোধ হয় তার উল্টো দিকে অপেক্ষা করে থাকে ততখানিই অন্ধকার। গত কয়েক বছরের অতিমারি পরিস্থিতি সেই দিকটি আরও বেশি করে তুলে ধরেছে।

সম্প্রতি অভিনেতা সঞ্জয় গান্ধী তার জীবনের এক ভয়াবহ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরলেন। হিনা খানের ‘ইয়ে রিশ্তা ক্যা কহলাতা হ্যায়’ ধারাবাহিকে দাদাজির ভূমিকায় অভিনয় করে সবচেয়ে বেশি পরিচিতি পেয়েছিলেন সঞ্জয় গান্ধী।

সম্প্রতি তিনি জানিয়েছেন, অতিমারির সময় থেকে তার আর্থিক পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে বাড়িভাড়া মেটানোর সামর্থ্য পর্যন্ত তার নেই। এমনকি মরিয়া হয়ে তিনি তার মিরা রোডের একটি ফ্ল্যাট বন্ধক রাখার কথাও ভেবেছেন।

আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, আসলে অতিমারি পরিস্থিতি সবাইকে দেখিয়ে দিয়েছে বাস্তবটা ঠিক কতটা কঠিন। যারা পরিস্থিতিটা বুঝতে পারেন না, তাদের জানানোর জন্যই সঞ্জয় তুলে ধরেছেন তার ২০২১ সালের জুন মাসের অভিজ্ঞতা। প্রবীণ এই অভিনেতা জানিয়েছেন, সেই সময় হাতে কাজ ছিল না। রোজের খরচ চালানোও মুশকিল হয়ে গিয়েছিল।

একটি সাক্ষাৎকারে সঞ্জয় বলেন, এমনিতে অভিনেতাদের জীবন রঙিন, যত ক্ষণ তারা কাজ করেন। এক বার হাতে কাজের অভাব হলেই মুশকিল, যে কোনও সময় পতন হতে পারে।

তবে তিনি জানিয়েছেন, ‘ঝনক’ শুরু হওয়ার পর তার জীবন খানিকটা স্বাভাবিক খাতে বইছে। তিনি জানান, অভিনয় করার জন্য মুম্বাইতে থাকা প্রয়োজন, আর সেটা খুবই খরচসাপেক্ষ। এ দিকে অভিনয় করা ছাড়া অন্য কোনও আয়ের উৎসও থাকে না। ফলে সমস্যায় পড়েন অভিনেতারা।

তিনি আরও বলেন, অনেক অভিনেতা অতিমারির সময় কষ্টে ছিলেন। আমারও সমস্ত সঞ্চয় শেষ হয়ে যায় ওই সময়। আন্ধেরিতে বাড়ি ভাড়া করে থাকি। ভাড়া মেটানোর জন্য বন্ধুদের কাছ থেকে টাকা ধার করতে হয়েছে। সেই সব মেটাতে আমাকে আমার বাড়ি বন্ধক রাখতে হবে। কারণ এখনও দারুণ অর্থকষ্টে আছি। নতুন কিছু কাজের কথাও ভাবতে হচ্ছে।

সঞ্জয়কে দেখা গিয়েছে ‘নাগিন’ এবং ‘ইয়ে রিশ্তা ক্যা কহলাতা হ্যায়’-সহ বেশ কয়েকটি ধারাবাহিকে।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিনোদন
Chhatra League Student Clash in Chittagong Death toll rises to 3
কোটা সংস্কার আন্দোলন

চট্টগ্রামে ছাত্রলীগ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ৩

চট্টগ্রামে ছাত্রলীগ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষে নিহত বেড়ে ৩ মঙ্গলবার চট্টগ্রাম নগরীর ষোলশহর থেকে মুরাদপুর এলাকার মধ্যে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ হয়। কোলাজ: সংগৃহীত
নিহতদের মধ্যে ওয়াসিম আকরাম চট্টগ্রাম কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের স্নাতক তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। তার বাড়ি কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলায়। অপরজন ফয়সাল আহমদ শান্ত ওমরগণি এমইএস কলেজের ছাত্র। আর নিহত পথচারী ফারুক পেশায় রডমিস্ত্রি।

চট্টগ্রামে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অনেকে। মঙ্গলবার নগরীর ষোলশহর থেকে মুরাদপুর এলাকার মধ্যে এই ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার সাইফুল ইসলাম বলেছেন, নিহতদের মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (জনসংযোগ) কাজী মো. তারেক আজিজ বলেন, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তিনজনের মরদেহ গেছে। তাদের মধ্যে দুজন শিক্ষার্থী, অন্যজন পথচারী। দুজনের মরদেহ মুরাদপুর ও ষোলশহর এলাকা থেকে আনা হয়েছে। নিহত পথচারীর শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

নিহত দুই শিক্ষার্থীর মধ্যে ওয়াসিম আকরাম চট্টগ্রাম কলেজের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের স্নাতক তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। তার বাড়ি কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলায়।

আকরাম চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক বলে দাবি করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির দপ্তর সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা ইদ্রিস আলী।

নিহত পথচারীর নাম ফারুক। ৩২ বছর বয়সী এই যুবক রড-আয়রনের মিস্ত্রি বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।

নিহত তৃতীয় জন ফয়সাল আহমদ শান্ত (২০) ওমরগণি এমইএস কলেজের ছাত্র বলে জানিয়েছেন চমেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল তসলিম উদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘বিকেল ৪টা থেকে সাড়ে ৪টার মধ্যে এই তিনজনের মরদেহ হাসপাতালে আনা হয়। তাদের মধ্যে দুজনের মৃত্যু হয়েছে বুলেট ইনজুরিতে। আরেকজনের শরীরে ফিজিক্যাল অ্যাসল্টের চিহ্ন রয়েছে।’

সংঘর্ষের মধ্যে অন্তত ৪০ জনকে আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়েছে বলে জানান মেডিক্যাল পুলিশ ফাঁড়ির এসআই আলাউদ্দিন তালুকদার।

বন্দর নগরীতে দ্বিতীয় দিনের মতো মঙ্গলবার বিকেল ৪টার দিকে সংঘর্ষ শুরু হয়। পুরো ষোলশহর ২ নম্বর গেট থেকে মুরাপুর পর্যন্ত ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষ চলে।

এর আগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনে বিকেল ৩টা থেকে ষোলশহর স্টেশনে জড়ো হওয়া শুরু করেন। এরপ সেখান থেকে তারা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে অগ্রসর হন।

অপরদিকে চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনির নেতৃত্বে ছাত্রলীগের একটি অংশ মিছিল নিয়ে দুই নম্বর গেট থেকে মুরাদপুরের দিকে অগ্রসর হতে থাকে।

বিকেল ৪টার দিকে ছাত্রলীগ-যুবলীগের সঙ্গে বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষ শুরু হয়। এ সময় উভয় পক্ষের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনায় পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এরই মধ্যে থেমে থেমে ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। কারও কারও হাতে অস্ত্রও দেখা যায়।

তবে ঘটনাস্থলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের অবস্থান চোখে পড়েনি। নগরীর কেজিডিসিএল কার্যালয়ের সামনে পুলিশ সদস্যরা অবস্থান করে থাকেন।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলছেন, তারা মুরাদপুর হয়ে অবস্থান কর্মসূচি সফল করতে ষোলশহর এলাকায় যাওয়ার পথে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা তাদের ওপর হামলা চালান। এরপর তারা আত্মরক্ষার্থে পাল্টা হামলা চালান।

এ সময় তাদের দুজন নিহত ও বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে জানান আন্দোলনকারীরা।

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে পুলিশ-আন্দোলনকারী সংঘর্ষ গুলি, আহত ১৫
জবি শিক্ষার্থীদের সংযত থাকার আহ্বান
জাবিতে রাতভর তাণ্ডব: ঘটনা তদন্তে কমিটি, বহিরাগত প্রবেশ নিষিদ্ধ
পুরান ঢাকায় জবির চার শিক্ষার্থীসহ গুলিবিদ্ধ ৫
চানখাঁরপুলে সংঘর্ষ, তিন শিক্ষার্থী গুলিবিদ্ধ

মন্তব্য

বিনোদন
Toffee has ten original web series remaining

টফিতে অরিজিনাল ওয়েব সিরিজ ‘রইল বাকি দশ’

টফিতে অরিজিনাল ওয়েব সিরিজ ‘রইল বাকি দশ’ টফির অরিজিনাল ওয়েব সিরিজ ‘রইল বাকি দশ’-এর পোস্টার। ছবি: টফি
টফির ভাষ্য, দর্শকদের পর্দায় আটকে রাখার মতো রোমাঞ্চকর খুন-রহস্যের গল্প নিয়ে হাজির হওয়া ওয়েব সিরিজটিতে অভিনয় করেছেন একঝাঁক তারকা। এর গল্প দর্শকদের দারুণ নাটকীয়তার মুখোমুখি করবে।

দেশের শীর্ষস্থানীয় ডিজিটাল বিনোদন প্ল্যাটফর্ম টফিতে অরিজিনাল ওয়েব সিরিজ ‘রইল বাকি দশ’-এর প্রিমিয়ার হয়েছে।

টফির ভাষ্য, দর্শকদের পর্দায় আটকে রাখার মতো রোমাঞ্চকর খুন-রহস্যের গল্প নিয়ে হাজির হওয়া ওয়েব সিরিজটিতে অভিনয় করেছেন একঝাঁক তারকা। এর গল্প দর্শকদের দারুণ নাটকীয়তার মুখোমুখি করবে।

শাহাজাদা শহিদের লেখা ওয়েব সিরিজটি পরিচালনা করেছেন মাসুদ জাকারিয়া সাবিন। ১০ পর্বের এ সিরিজে অভিনয় করেছেন এফএস নাঈম, অর্চিতা স্পর্শিয়া, জিয়াউল রোশান ও শতাব্দী ওয়াদুদ।

টফির মার্কেটিং ডেপুটি ডিরেক্টর মুহাম্মদ আবুল খায়ের চৌধুরী বলেন, ‘রইল বাকি দশের টানটান উত্তেজনার গল্প দর্শকদের নড়েচড়ে বসতে বাধ্য করবে। সাশ্রয়ী প্যাকেজের মাধ্যমে দর্শকরা ওয়েব সিরিজটি উপভোগ করার সময় সর্বোচ্চ মানের স্ট্রিমিং অভিজ্ঞতা পাবেন বলে আশা করছি।

‘টফি তার দর্শকদের জন্য নিয়মিত ও মানসম্পন্ন বিনোদনমূলক কন্টেন্ট উপহার দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করা এফএস নাঈম বলেন, “মাসুদ জাকারিয়া সাবিনের পরিচালনায় এত গুণী সব অভিনয়শিল্পীর কাজ করার অভিজ্ঞতাটা দারুণ ছিল। আমি আশাবাদী যে খুন-রহস্যে মোড়া টানটান উত্তেজনার গল্পের ‘রইল বাকি দশ’ সবাই দারুণভাবে উপভোগ করবেন।”

যেকোনো মোবাইল নেটওয়ার্ক থেকে টফির প্রিমিয়াম ক্যাটাগরির ওয়েব সিরিজটি ২০ টাকায় উপভোগ করা যাবে। ১৫ দিন মেয়াদি এ প্যাকেজের অধীনে মোবাইল নেটওয়ার্ক নির্বিশেষে বাংলাদেশের যেকোনো প্রান্ত থেকে দর্শকরা ‘রইল বাকি দশ’ উপভোগ করতে পারবেন।

ডাউনলোড করবেন যেভাবে

অ্যান্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা গুগল প্লে-স্টোর থেকে, আইওএস ব্যবহারকারীরা অ্যাপ-স্টোর থেকে এবং স্যামসাং টিভি ব্যবহারকারীরা টিজেন অ্যাপ স্টোর থেকে সহজেই টফি ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

আরও পড়ুন:
‘হাউজ অফ দ্য ড্রাগন’ দ্বিতীয় সিজনের ট্রেলার প্রকাশ, মুক্তি জুনে
সহিংসতা ও গুজব মোকাবিলায় আন্তর্জাতিক মিত্রদের বাংলাদেশের পাশে থাকার আহ্বান
পরীমনি অভিনীত ‘পাফ ড্যাডি’ বন্ধে আইনি নোটিশ 
দেশজুড়ে ব্রেস্টফিডিং কর্নার স্থাপনের নির্দেশ
'আমাজন প্রাইম ভিডিও বাংলাদেশ' যাত্রা করছে ৫ কনটেন্টে

মন্তব্য

বিনোদন
Khosru president and Sujan general secretary re elected
মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশন

খসরু সভাপতি ও সুজন সাধারণ সম্পাদক পুনর্নির্বাচিত

খসরু সভাপতি ও সুজন সাধারণ সম্পাদক পুনর্নির্বাচিত কাজী মানছুরুল হক খসরুক ও মুস্তফা মনওয়ার সুজন। ছবি: সংগৃহীত
নবনির্বাচিত সাত জন নির্বাহী পর্ষদ পরিচালক হলেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সাজ্জাদ আলম খান তপু, যুক্তরাজ্যের সৌধের পরিচালক টি এম আহমেদ কায়সার, অধ্যাপক শিরিন আক্তার, অধ্যাপক ইমাম হাসান মুক্তি, স্কুলশিক্ষক রেহানা আক্তার, সাউথ এশিয়া ইনস্যুরেন্সের ব্যবস্থাপক আহসানুল কবির সিদ্দিক ও সাংবাদিক আপন অপু।

মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের ১৭ সদস্যের নতুন ত্রি-বার্ষিক কার্যনির্বাহী পর্ষদ গঠন করা হয়েছে। এতে অ্যাডভোকেট কাজী মানছুরুল হক খসরুকে সভাপতি ও সাংবাদিক মুস্তফা মনওয়ার সুজনকে পুনরায় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদীর দত্তের হাটে বুধবার হাসু ভিলায় সংগঠনের বার্ষিক সাধারণ সভায় এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। সাধারণ সম্পাদক মুস্তফা মনওয়ার সুজন সভা পরিচালনা করেন।

নতুন কার্যনির্বাহী পর্ষদের অন্য কর্মকর্তারা হলেন, সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য সংগীত শিল্পী মো. কামাল উদ্দিন ও সিনিয়র সাংবাদিক ফিরোজ আলম মিলন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুল আউয়াল চঞ্চল, কোষাধ্যক্ষ উন্নয়নকর্মী রাবেয়া আক্তার আঁখি, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাহাদাত আলম কাব্য, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সাংবাদিক সানজিদা সুলতানা, অনুষ্ঠান সংগঠক সংগীত শিল্পী রায়হান কায়সার শাওন, প্রশিক্ষণ ও গবেষণা সম্পাদক সংগীত শিল্পী ফাতেমা তুজ জহুরা।

নবনির্বাচিত সাত জন নির্বাহী পর্ষদ পরিচালক হলেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি সাজ্জাদ আলম খান তপু, যুক্তরাজ্যের সৌধের পরিচালক টি এম আহমেদ কায়সার, অধ্যাপক শিরিন আক্তার, অধ্যাপক ইমাম হাসান মুক্তি, স্কুলশিক্ষক রেহানা আক্তার, সাউথ এশিয়া ইনস্যুরেন্সের ব্যবস্থাপক আহসানুল কবির সিদ্দিক ও সাংবাদিক আপন অপু।

সাধারণ সভা শেষে জমকালো আয়োজনে ঈদ পুনর্মিলনীতে অংশ নেন মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশনের সদস্যসহ শিল্পী হাশেমের ভক্তরা।

বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের বিশেষ শ্রেণিভুক্ত গীতিকার, সুরকার ও শিল্পী অধ্যাপক মোহাম্মদ হাশেমের লেখা গান চর্চা ও সংরক্ষণের লক্ষ্যে ২০২০ সালে যাত্রা শুরু করে মোহাম্মদ হাশেম ফাউন্ডেশন।

আরও পড়ুন:
ঢাকায় মঞ্চ মাতালেন আতিফ আসলাম
ঢাকায় আসছেন আতিফ আসলাম
কোক স্টুডিও বাংলা বিলবোর্ড ফ্যান আর্ট প্রতিযোগিতায় ৬০ শিল্পকর্ম
আমি গোপনে বিয়ে করার মতো মানুষ নই: লিজা
ইন্ডাস্ট্রির অন্যদের মতো রাফসানও আমার বন্ধু: জেফার

মন্তব্য

বিনোদন
Priyankas restaurant is closing

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে প্রিয়াঙ্কার রেস্তোরাঁ

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে প্রিয়াঙ্কার রেস্তোরাঁ প্রিয়াঙ্কা চোপড়া
২০২১ সালে নিউ ইয়র্কে মনীশ গোয়েলের সঙ্গে রেস্তোরাঁর ব্যবসা শুরু করেছিলেন প্রিয়াঙ্কা। এর আগেও প্রিয়াঙ্কা জানিয়েছিলেন, যেকোনো ব্যবসা শুরু করাই ক্যারিয়ারে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ তথা গর্বেরও।

সাধ করে বিদেশের মাটিতে ভারতীয় খাবারের রেস্তোরাঁ বানিয়েছিলেন বলিউড তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। বর নিক জোনাসের আবদারে তার নাম দিয়েছিলেন সোনা। সেই সাধের রেস্তোরাঁই এবার বন্ধ করতে চলেছেন প্রিয়াঙ্কা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রিয়াঙ্কা নিজেই সে খবর জানালেন। তিনি জানালেন, আগামী ৩০ জুনই বন্ধ হবে ‘সোনা’।

যুক্তরাষ্ট্রে পায়ের তলার মাটি ইতোমধ্যেই শক্ত করে ফেলেছেন। পশ্চিমী গ্ল্যামারজগতে নামডাকের পাশাপাশি এক রেস্তোরাঁর মালকিনও হিসেবেও প্রসিদ্ধি লাভ করেছিলেন প্রিয়াঙ্কা। বিদেশে দেশি হেঁশেলের স্বাদ পৌঁছে দিতে এক বন্ধুর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে খুলে ফেলেছিলেন রেস্তোরাঁ।

২০২১ সালে নিউ ইয়র্কে মনীশ গোয়েলের সঙ্গে রেস্তোরাঁর ব্যবসা শুরু করেছিলেন প্রিয়াঙ্কা। এর আগেও প্রিয়াঙ্কা জানিয়েছিলেন, যেকোনো ব্যবসা শুরু করাই ক্যারিয়ারে ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ তথা গর্বেরও।

সোনার পথ চলার ক্ষেত্রে প্রিয়াঙ্কার অবদানও ঠিক সেরকমই। দেশি হেঁশেলের রান্নার গল্প তার গল্প বলার মধ্য দিয়ে একাধিকবার ফুটে উঠেছে।

জানা গেছে, এই ব্যবসায় প্রিয়াঙ্কার সঙ্গে অংশীদার ছিলেন মণীশ গোয়েল নামে এক ব্যবসায়ী। আচমকাই তিনি অংশীদারত্ব ছেড়ে চলে যাওয়ায় প্রিয়াঙ্কাও এবার বন্ধ করে দিতে চাইছেন তার রেস্তোরাঁ। সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

মন্তব্য

বিনোদন
Alka Yagnik is losing her hearing

শ্রবণশক্তি হারাচ্ছেন অলকা ইয়াগনিক

শ্রবণশক্তি হারাচ্ছেন অলকা ইয়াগনিক জনপ্রিয় প্লেব্যাকশিল্পী অলকা ইয়াগনিক। ফাইল ছবি
ইনস্টাগ্রামে এক পোস্টে অলকা ইয়াগনিক জানান, কয়েক সপ্তাহ আগে বিমানবন্দর থেকে বেরুনোর সময় হঠাৎ করেই কোনো কিছু শুনতে পাচ্ছিলেন না তিনি। সেই থেকেই সমস্যার শুরু। তবে চিকিৎসা শুরু হয়েছে।

বিরল এক স্নায়বিক রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় প্লেব্যাক শিল্পী অলকা ইয়াগনিক। এর ফলে ধীরে ধীরে তিনি শ্রবণশক্তি হারিয়ে ফেলছেন।

ইনস্টাগ্রামে এক পোস্টে অলকা ইয়াগনিক জানান, কয়েক সপ্তাহ আগে বিমানবন্দর থেকে বেরুনোর সময় হঠাৎ করেই কোনো কিছু শুনতে পাচ্ছিলেন না তিনি। সেই থেকেই সমস্যার শুরু। তবে চিকিৎসা শুরু হয়েছে। এরপরই ভক্ত ও সহকর্মীদের কাছে উচ্চমাত্রার শব্দ থেকে যথাসম্ভব দূরে থাকার অনুরোধ করেছেন তিনি। আর অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে হেডফোন ব্যবহার করতে বলেছেন।

অলকা ইয়াগনিকের এই পোস্টে অনুরাগীদের পাশাপাশি উদ্বিগ্ন সনু নিগম, ইলা অরুণের মতো শিল্পীরা। সনু নিগম লিখেছেন, ‘আমার মনেই হয়েছিল, সব ঠিক নেই। ফিরেই তোমার সঙ্গে দেখা করব। দ্রুত সেরে ওঠো।’

ছয় বছর বয়সে কলকাতায় আকাশবাণী রেডিওতে গান করেন অলকা ইয়াগনিক। এরপর মাত্র ১০ বছর বয়সে চলে যান মুম্বাইয়ে।

১৯৮০ সালে ‘পায়েল কি ঝংকার’ ছবিতে প্রথম প্লেব্যাক করেন অলকা। ১৯৮৮ সালে ‘তেজাব’ ছবির ‘এক দো তিন’ গানে প্লেব্যাক করে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পান। এরপর একে একে তিন দশকের বেশি সময় অসংখ্য শ্রোতাপ্রিয় গানে কণ্ঠ দিয়েছেন অলকা ইয়াগনিক।

চার দশকের দীর্ঘ ক্যারিয়ারে এক হাজারের বেশি ছবিতে গান গেয়েছেন অলকা ইয়াগনিক। ২৫টি আলাদা আলাদা ভাষায় তার মোট গানের সংখ্যা ২১ হাজারের বেশি।

বিবিসির করা সেরা ৪০টি হিন্দি গানের তালিকায় অলকা ইয়াগনিকের গানই আছে ২০টি।

২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসে ইউটিউব মিউজিক চার্টস অ্যান্ড ইনসাইটস লিস্টের শীর্ষ গায়িকা হন অলকা।

মন্তব্য

বিনোদন
This time again Mim offered the sacrifice and wished Eid

এবারও কোরবানি দিলেন মিম, জানালেন ঈদের শুভেচ্ছা

এবারও কোরবানি দিলেন মিম, জানালেন ঈদের শুভেচ্ছা স্বামী সনি পোদ্দারের সঙ্গে কিছু ছবি শেয়ার করেন বিদ্যা সিনহা মিম। কোলাজ: নিউজবাংলা
মিম বলনে, ‘ঈদ মানে আনন্দ। আর কোরবানি ঈদ হলো ত্যাগের মাধ্যমে সেই আনন্দের ভাগাভাগি। প্রতিবারের মত এবারও আমার পরিবারে যারা আমার কাজে সহায়তা করে, আমার জন্য কষ্ট করে তাদের জন্য এবারও থাকছে ঈদের আয়োজন। ঈদের আনন্দ মিস করেছি এমনটা কখনও হয়নি, এই আনন্দ ছড়িয়ে পড়ুক সবার মাঝে। সবাইকে ঈদ মোবারক।’

সনাতন ধর্মের অনুসারী চিত্রনায়িকা বিদ্যা সিনহা মিম বরাবরের মতো এবারের ঈদুল আজহায়ও পশু কোরবানি দিয়েছেন। সেইসঙ্গে ঈদের দিন সকালে সামাজিক মাধ্যমে ঈদ শুভেচ্ছা জানান তিনি।

সোমবার সকালে ফেসবুকে স্বামী সনি পোদ্দারের সঙ্গে কিছু ছবি শেয়ার করেন বিদ্যা সিনহা। ছবিতে হালকা বেগুনি রঙের পোশাকে দেখা যায় এ জুটিকে। ঈদ শুভেচ্ছা জানিয়ে ক্যাপশনে মিম লেখেন ‘ঈদ মুবারক’।

এদিকে ঈদের আগের দিন রাতে এক ফেসবুক পোস্টে হাতে মেহেদি দিয়ে ছবি দেন মিম। এ ছাড়াও তিনি এবার একটি ছাগল কোরবানি দিয়েছেন বলেও জানান।

তিনি বলনে, ‘ঈদ মানে আনন্দ। আর কোরবানি ঈদ হলো ত্যাগের মাধ্যমে সেই আনন্দের ভাগাভাগি। প্রতিবারের মত এবারও আমার পরিবারে যারা আমার কাজে সহায়তা করে, আমার জন্য কষ্ট করে তাদের জন্য এবারও থাকছে ঈদের আয়োজন। ঈদের আনন্দ মিস করেছি এমনটা কখনও হয়নি, এই আনন্দ ছড়িয়ে পড়ুক সবার মাঝে। সবাইকে ঈদ মোবারক।’

বেশ কয়েক বছর ধরেই কোরবানি দিচ্ছেন বলে জানান মিম।

আরও পড়ুন:
তামিমের সঙ্গে সাকিব কথা বললেই বিষয়টি চাপা পড়ে যেত
পাঁচ ম্যাচ খেলব বলিনি: তামিম
‘তামিম পাঁচটির বেশি ম্যাচ খেলবেন না’ ছড়িয়েছে কারা, তদন্ত চান পাইলট
তামিমকে মিডল অর্ডারে খেলার প্রস্তাবে কি দোষের কিছু আছে: সাকিব
কোনো সময় বলিনি ৫ ম্যাচের বেশি খেলতে পারব না: তামিম

মন্তব্য

বিনোদন
Finally Mehzabeen in Eid drama

অবশেষে ঈদের নাটকে মেহজাবীন

অবশেষে ঈদের নাটকে মেহজাবীন মেহজাবীন। ছবি: সংগৃহীত
দুই বছর ধরে টিভি নাটকে অভিনয় না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মেহজাবিন। এক প্রকার ঘোষণা দিয়েই এই লাক্সকন্যা বলেছিলেন, ‘টিভি নাটকের গল্প ও চরিত্র প্রায় একই ধরনের। এ কারণে টিভি নাটকে কাজ করতে একঘেয়েমি চলে এসেছে।’

তারকা মডেল-অভিনেত্রী মেহজাবীনের পক্ষ থেকে ভক্ত-দর্শকদের জন্য সুখবর! জানিয়েছেন, এবারের ঈদে তাকে চ্যানেল আইতে একটি নাটকে অভিনয়ে দেখা যাবে। নাটকের নাম ‘তিথিডোর’। নাটকটি রচনা করেছেন জাহান সুলতানা এবং পরিচালনা করেছেন ভিকি জাহেদ।

দুই বছর ধরে টিভি নাটকে অভিনয় না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মেহজাবিন। এক প্রকার ঘোষণা দিয়েই এই লাক্সকন্যা বলেছিলেন, ‘টিভি নাটকের গল্প ও চরিত্র প্রায় একই ধরনের। এ কারণে টিভি নাটকে কাজ করতে এক ধরনের একঘেয়েমি চলে এসেছে। বরং এখন ওটিটিতে ভালো ভালো কন্টেন্ট ও ব্যতিক্রমী চরিত্র থাকছে। সেগুলোতে কাজ করার যেমন অবাধ সুযোগ থাকছে, তেমনি এসব চরিত্রে কাজ করতেও ভালো লাগছে। দর্শকও এসব সিরিজগুলো বেশ সানন্দে উপভোগ করছেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখন ওটিটিতে কাজ করছি বলে টিভি নাটকে কাজ করব না, এমন নয়। ছোটপর্দাই আমাকে আজকের এ অবস্থানে নিয়ে এসেছে। আমাকে মেহজাবীন বানিয়েছে। ভালো কিছু ও মনের মতো কোনো গল্প, চরিত্র ও নির্মাতা পেলে অবশ্যই কাজ করব।’

অবশেষে ঈদের নাটকে অভিনয় করা প্রসঙ্গে মেহজাবীন বলেন, ‘তিথিডোর নাটকটি মূলত একটি চরিত্রকে ঘিরে। আত্মহত্যার প্রবণতায় ভুগছেন এমন একজন মানুষ নিশাতকে ঘিরেই এই নাটকের গল্প। গল্পটা এ সময়ের জন্য উপযোগী একটি গল্প।

‘দেখা যায় যে আমাদের সমাজে এমন অনেক মেয়েই আছে দেখতে বেশ হাসি-খুশি। কিন্তু ভেতরে ভেতরে সে যে কী এক যন্ত্রণায় সময় পার করছে তা বাইরে থেকে কেউই অনুধাবন করতে পারবে না।

‘আমার কাছে মনে হয়েছে এ ধরনের গল্প এই সময়েই বলা উচিত। আমি নাটক এখন খুবই কম করি। কিন্তু তারপরও এ ধরনের গল্প সমাজের মানুষের কাছে তুলে ধরার জন্য শিল্পী হিসেবে আমার দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে এ নাটকে অভিনয় করা।’

আরও পড়ুন:
ঈদুল আজহায় জারসনের ‘তবুও জীবন’
ইশরাত নিশাত ‘বিশেষ স্বীকৃতি’ পেল এক্টোম্যানিয়া
আইইউবিতে পালা নাটক ‘দেওয়ানা মদিনা’ মঞ্চস্থ
শিল্পকলার মঞ্চে আসছে ‘দ্য মাউসট্র‍্যাপ’
কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে নাটক ‘স্বপ্নবাসবদত্তা’ মঞ্চস্থ

মন্তব্য

p
উপরে