× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিনোদন
Piracy tunnels appear online
google_news print-icon

পাইরেসির শিকার 'সুড়ঙ্গ'

পাইরেসির-শিকার-সুড়ঙ্গ
‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমার পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত
সুড়ঙ্গ সিনেমার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান চরকির এক কর্মকতা জানান, এখন পর্যন্ত ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমা আমাদের এখানে আসেনি। পাইরেসির খবর শোনার পর আমরা ইউটিউব ও ফেসবুকে ৪০০ থেক ৫০০ ভিডিও নামিয়ে ফেলেছি।

এবার ঈদে মুক্তি পাওয়া ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমা রাজত্ব করছে সিনেমাহলে। মুক্তির চতুর্থ সপ্তাহেও উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে সিনেমাহলে। দেশ ছাড়িয়ে ছবিটি এখন প্রদর্শিত হচ্ছে কলকাতা, আমেরিকায়। সেখানেও দারুণ সাড়া ফেলেছে।

তবে পাইরেসির শিকার হয়েছে আফরান নিশো অভিনীত ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমাটি।

অনলাইনে সিনেমা ফাঁস হয়ে যাওয়ার প্রবণতা রীতিমত আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এবারের ঈদের সিনেমা মুক্তির পর সিনেমার ছোট ছোট কিছু ভিডিও ফাঁস হয়েছিল। সেগুলো নিয়েও আপত্তি জানিয়েছিলেন সিনেমা সংশ্লিষ্টরা। তবে এবার পুরো সিনেমাই ফাঁস হলো অনলাইনে। অনলাইনে দেখা যাচ্ছে সিনেমাটি। একাধিক সাইটে পুরো সিনেমাটির হল প্রিন্ট দেখা যাচ্ছে বিনামূল্যে।

এ প্রসঙ্গে সুড়ঙ্গের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান চরকির এক কর্মকতা বলেন, ‘‘এখন পর্যন্ত ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমা আমাদের এখানে আসেনি। পাইরেসির খবর শোনার পর আমরা ইউটিউব ও ফেসবুকের ৪০০ থেক ৫০০ ভিডিও নামিয়ে ফেলেছি। আরও কিছু বাকি আছে। অন্য মাধ্যমগুলো থেকে সিনেমার ভিডিও নামানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।’’

রায়হান রাফি পরিচালিত ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমায় জুটি বেঁধে অভিনয় করেছেন আফরান নিশো ও তমা মির্জা। এ সিনেমার মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মত বড় পর্দায় অভিষেক ঘটেছে নিশোর।

আরও পড়ুন:
নিউইয়র্কের টাইমস স্কয়ারে ‘সুড়ঙ্গ’
কাদা ছোড়াছুড়ি বন্ধের আহ্বান ফারুকীর
সৌদিতে যাচ্ছে ‘সুড়ঙ্গ’, থাকছে আরবি সাবটাইটেল
বড় পর্দায় আসছেন নিশো, পরিচালক রাফি
ভারতের জঙ্গলে সুড়ঙ্গ, ২২ যুবক উদ্ধারে অভিযান

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিনোদন
The drug case against Parimoni will continue

পরীমনির বিরুদ্ধে মাদকের মামলা চলবে

পরীমনির বিরুদ্ধে মাদকের মামলা চলবে চিত্রনায়িকা পরীমনি। ফাইল ছবি
২০২২ সালের ৫ জানুয়ারি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০-এর বিচারক নজরুল ইসলাম পরীমনিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আদেশ দেন। পরে মামলা বাতিলে হাইকোর্টে আবেদন করেন পরীমনি।

চিত্রনায়িকা পরীমনি ওরফে শামসুন্নাহার স্মৃতির বিরুদ্ধে করা মাদক মামলা বাতিল প্রশ্নে জারি করা রুল পর্যবেক্ষণসহ নিষ্পত্তি করে দিয়েছে হাইকোর্ট। এর ফলে পরীমনির বিরুদ্ধে বিচারিক আদালতে মামলা চলতে বাধা নেই বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা। খবর বাসস

বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মো. আমিনুল ইসলামের নেতৃত্বে গঠিত একটি হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ রায় দেয়।

আদালতে পরীমনির পক্ষে শুনানি করেন সিনিয়র অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্না ও শাহ মনজুরুল হক।

পরীমনির বাসা থেকে এলএসডিসহ নানা ধরনের মাদক জব্দ করা হয়েছিল, পাওয়া যায় অ্যালকোহলও। তবে অ্যালকোহল সেবনের লাইসেন্স ছিল এই চিত্রনায়িকার।

বৃহস্পতিবারের রায়ে বলা হয়েছে, এলএসডিসহ জব্দ অন্য মাদকের বিচার চলবে। আর অ্যালকোহল সম্পর্কে মামলার পূর্ণাঙ্গ রায়ে উল্লেখ করা হবে।

আদালত জানায়, তার ঘর থেকেই এই মাদক উদ্ধার করা হয়েছে বলে প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণিত হয়েছে।

এ বিষয়ে পরীমনির আইনজীবী বলেন, ‘মামলা বাতিল প্রশ্নে জারিকৃত রুল পর্যবেক্ষণসহকারে নিষ্পত্তি করে এ রায় দিয়েছে উচ্চ আদালত। পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হলে বিস্তারিত বোঝা যাবে।’

২০২১ সালের ৪ আগস্ট বিকেলে রাজধানীর বনানীর ১২ নম্বর সড়কে পরীমনির বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় ওই বাসা থেকে বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় আনা মামলায় কারাবরণ করে জামিনে মুক্তি পান এই নায়িকা। মামলায় অপর দুই আসামি হলেন-পরীমনির সহযোগী আশরাফুল ইসলাম দিপু ও মো. কবীর হাওলাদার।

একই বছরের ৪ অক্টোবর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের পরিদর্শক কাজী গোলাম মোস্তফা পরীমনিসহ তিনজনের নামে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের সংশ্লিষ্ট থানার জিআর শাখায় চার্জশিট জমা দেন। মামলাটি বিচারের জন্য প্রস্তুত হওয়ায় ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে পাঠানো হয়।

২০২২ সালের ৫ জানুয়ারি ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০-এর বিচারক নজরুল ইসলাম তিনজনের অভিযোগ গঠন করে আদেশ দেন। পরে মামলা বাতিলে হাইকোর্টে আবেদন করেন পরীমনি।

গত বছরের ১ মার্চ আবেদনের শুনানি নিয়ে মামলা কেন বাতিল করা হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে হাইকোর্ট। পাশাপাশি মামলার কার্যক্রমের ওপর স্থগিতাদেশ দেয় উচ্চ আদালত।

আরও পড়ুন:
এর চেয়ে বড় শোক আর আসবে না: পরীমনি
দোয়া চেয়েছেন পরীমনি
পরীমনি অভিনীত ‘পাফ ড্যাডি’ বন্ধে আইনি নোটিশ 
যে ৪ কারণে রাজকে ডিভোর্স দিলেন পরীমনি

মন্তব্য

বিনোদন
Kabir Suman wants to spend the rest of his life in Bangladesh

জীবনের বাকিটা বাংলাদেশে কাটাতে চান কবীর সুমন

জীবনের বাকিটা বাংলাদেশে কাটাতে চান কবীর সুমন কবীর সুমন। ছবি: সংগৃহীত
তিনি লিখেছেন, ‘এমন নয় যে সনাতনধর্মীয় নামধারী কোনো বঙ্গজ আমায় সম্মান করেন না। মুষ্টিমেয় কিছু বঙ্গজ করেন, কিন্তু বড্ড বেশি সংখ্যক সনাতনধর্মীয় বঙ্গজ আমায় ঢাক পিটিয়ে ঘৃণা করেন, এবং তা জাহির করে সনাতনী সুখ পান।’

পশ্চিমবঙ্গে বাস করলেও দুই বাংলাতেই তার ব্যাপক জনপ্রিয় বাংলা গানের কিংবদন্তী শিল্পী কবীর সুমন। তবে নিজের মাতৃভূমিতে না কি ভালো নেই তিনি। আবেগঘন এক পোস্টে এমন কথা জানিয়ে দেশ ছেড়ে জীবনের বাকি অংশ বাংলাদেশে এসে থাকার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন কিংবদন্তী এ শিল্পী।

সোমবার দুপুরের দিকে নিজের ফেসবুক আইডিতে দীর্ঘ পোস্ট দিয়ে এ ইচ্ছার কথা জানান সুমন।

ওই পোস্টে তিনি লেখেন, ‘এই কথা আমি আগেও অনেকবার বলেছি। তাও ফের বলছি, কারণ আমার কথায় কোনো কাজ হচ্ছে না।

‘এমন নয় যে সনাতনধর্মীয় নামধারী কোনো বঙ্গজ আমায় সম্মান করেন না। মুষ্টিমেয় কিছু বঙ্গজ করেন, কিন্তু বড্ড বেশি সংখ্যক সনাতনধর্মীয় বঙ্গজ আমায় ঢাক পিটিয়ে ঘৃণা করেন, এবং তা জাহির করে সনাতনী সুখ পান।’

তিনি বলেন, “আর এক শ্রেণির সনাতন-বঙ্গজ আছে, যারা আমায় কবীর নামে ডাকতে চায় না। এরা, যা দেখেছি ‘বামপন্থী’। ২০০০ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে আমার নাম ভারতের সংবিধান মোতাবেক, ঘোষিতভাবে কবীর সুমন। ফার্স্ট নেম কবীর। সার্নেম সুমন।

“আমার আয়কর ফাইল, র‍্যাশন কার্ড, পাসপোর্ট, ভোটার আইডি, আধার কার্ড- সর্বত্র এই নামটাই আছে। এই নামে আমি ২০০৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের টিকিটে লড়ে মাননীয় সিপিআইএম সদস্য ডক্টর সুজন চক্রবর্তীকে হারিয়ে দিয়ে লোকসভার সাংসদ হয়েছিলাম। ভারতের অন্তর্ভুক্ত পশ্চিম বাংলায় তা সকলের জানার কথা। তা সত্ত্বেও সিপিআইএম করা বঙ্গজরা আমায় আমার বর্জিত নামে ডাকেন। শুধরে দিলেও শুধরে নেন না। আর নকশালপন্থী দলের বঙ্গজ নেতাও (নামে সনাতনধর্মীয়) আমায় ভুলেও কবীর সুমন বলেন না, কবীর তো নয়ই। তিনি অবিরাম সুমন সুমন করে যান। এদিকে সকলেই নাগরিকের গণতান্ত্রিক অধিকার, ব্যক্তিগত অধিকার বলতে গদগদ।

“আর একদল আছে, যারা আমায় গানওলা বলে ডাকে। কী বলি।”

এ শিল্পী বলেন, “যা বুঝেছি, আমায় নির্দ্বিধায় সম্মান করেন যারা, প্রাপ্য সম্মানটুকু দেন যারা তারা সদলবলে বাঙলাদেশের নাগরিক। পশ্চিমবঙ্গের সনাতনধর্মীয় বঙ্গজদের মতো বাংলাদেশের কেউ আমায় সমানে, যে কোনো উপায়ে অপমান করে যান না।

“আর মাসখানেক পরে আমি ৭৫ পুরো করে ৭৬-এ পড়ব। কলকাতা আমার প্রথম প্রেম। কলকাতা নামটা আমার গানে যতবার এসেছে আর কারুর কবিতায় গানে তা আসেনি। আমায় যাঁরা বাঁচিয়ে রেখেছেন তাঁরা সকলেই কলকাতার সনাতনধর্মীয় বঙ্গজ। তাঁদের ছেড়ে থাকতে পারব না। কিন্তু, কারুর কোনো ক্ষতি না করা সত্ত্বেও সমানে অপমানিত হতে হতে এবারে আমি চাইছি- এই দেশটা, মায় এই শহরটাও ছেড়ে চলে যেতে। এখানকার সনাতনধর্মীয় বঙ্গজদের মধ্যে অন্তত দুজন ফেসবুকে ঘোষণাও করেছেন ‘হাসপাতাল থেকে ফিরে না এলেই ভালো হতো।’ তার বিরুদ্ধে কেউ কিছু লেখেনি।

“আমার শেষ জীবন আমি যদি বাংলাদেশে থেকে আমার মাভাষার সেবা করতে পারতাম, বাংলা খেয়াল শেখাতে পারতাম, আমার আজকের স্বাস্থ্য যতটা অনুমতি দেবে ততটা অন্তত।”

তিনি বলেন, “আমি agnostic। মরে যাবার পর কোনো ধর্মীয় শেষকৃত্যের প্রশ্নই উঠবে না। আমার দেহ দান করা আছে। বাংলাদেশে মরলে সেখানকার কোনো হাসপাতালে আমার শরীর কাজে লাগানো যেতে পারে।

“আজও আমি ফেসবুকে আমার সম্পর্কে সনাতনধর্মীয় বঙ্গজদের খিস্তি পড়েছি। এতে আমার মধ্যে কোনো উত্তেজনা জাগেনি, জাগছে এই ‘বিদেশটা’ ত্যাগ করে ভাষা মতিনের দেশে গিয়ে আশ্রয় নেওয়া, সেই দেশের কাজে লাগার ইচ্ছে।”

পোস্টে তিনি আরও লেখেন, ‘প্রকাশ্যে সাহায্য ও আশ্রয় চাইছি। এই রাজ্যের মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী আমার আবেদনে সাড়া দিয়ে বাংলা খেয়ালকে স্বীকৃতি দিয়েছেন, রাজ্য ক্লাসিকাল মিউজিক কনফারেন্সে আমায় বাংলা খেয়াল গাইতে দিয়েছেন। এ রাজ্যের একজন শিল্পীও কিন্তু সংহতি জানাননি আমার সঙ্গে। যতদিন বেঁচে থাকব শ্রীমতি মমতা বন্দ্যোধ্যায়ের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকব, তাঁর পক্ষে থাকব।

‘কেউ যদি পারেন আমায় সাহায্য করুন।

‘জয় বাংলা

জয় বাংলা খেয়াল!

কবীর সুমন

১৯ ২ ২৪’’

সংগীতশিল্পী কবীর সুমনের জন্ম ১৯৪৮ সালের ১৬ মার্চ ১৯৪৯। তিনি একাধারে গায়ক গীতিকার। পাশাপাশি কিছুদিন সাংবাদিকতা ও অভিনয়ও করেছেন, ছিলেন সংসদ সদস্যও। ২০০০ সালে ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়ে তিনি তার পুরনো নাম ত্যাগ করেন।

১৯৯২ সালে ‘তোমাকে চাই’ অ্যালবামের মাধ্যমে তিনি বাংলা গানে এক নতুন ধারার প্রবর্তন করেন। তার রচিত গানের অ্যালবামের সংখ্যা পনেরো। দুই বাংলার তরুণদের কাছে দারুণ জন্মপ্রিয় এই শিল্পী।

২০২৩ সালের নভেম্বরে শেষবার ঢাকায় এসেছিলেন কবীর সুমন। তখন চার দিনের বাংলা খেয়াল কর্মশালার জন্য ঢাকায় আসেন তিনি। এর আগে তিনি ২০২২ সালের অক্টোবরে ঢাকায় এসেছিলেন।

বাংলা গানের গতিপথ বদলে দেয়া এই অ্যালবাম প্রকাশের ৩০ বছর পূর্ণ হয় ২০২২ সালে। এ উপলক্ষে ঢাকায় ‘তোমাকে চাই-এর ৩০ বছর উদযাপন’ শিরোনামে গানের অনুষ্ঠানে অংশ নেন এই গায়ক।

ওই অনুষ্ঠানে নিজের অসুস্থতার কথা জানিয়ে কবীর সুমন বলেছিলেন, ‘আমার একটা অসুখ হয়েছে। এই অসুখের কারণে আমি যেমন হাতে লিখতে পারি না, তেমনই গিটারও বাজাতে পারি না। আর কোনোদিন পারব না।

‘একটানা বসে থাকলেও সমস্যা হয়। মাঝে মাঝে মনে হয়, শুয়ে শুয়ে গান গাই! তবে এ জন্য আমার আলাদা কোনো দুঃখ নেই। গুরুদের কৃপায় আমি এখনও একটু একটু গান গাইতে পারি- এটাই আনন্দ।’

মন্তব্য

বিনোদন
Nakul Kumar fell from the roof to the hospital

ছাদ থেকে পড়ে হাসপাতালে নকুল কুমার

ছাদ থেকে পড়ে হাসপাতালে নকুল কুমার কণ্ঠশিল্পী নকুল কুমার বিশ্বাস। ফাইল ছবি
মাদারীপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের কলাগাছিয়া গ্রামে নিজ বাড়িতে শিমুল গাছের ডাল কাটতে বাড়ির দোতলার ছাদে ওঠেন নকুল কুমার। এ সময় অসাবধানবশত রেলিংয়ের পাশ থেকে নিচে পড়ে যান তিনি।

মাদারীপুরে গ্রামের বাড়িতে ছাদ থেকে পড়ে আহত হয়েছেন গীতিকার, গায়ক ও সংগীত পরিচালক নকুল কুমার বিশ্বাস। তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তির পর অবস্থার উন্নতি না হলে তাকে রাজধানীর পপুলার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে মাদারীপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের কলাগাছিয়া গ্রামের নিজ বাড়িতে শিমুল গাছের ডাল কাটতে নিজ বাড়ির দোতলার ছাদে ওঠেন নকুল কুমার। এ সময় অসাবধানবশত রেলিংয়ের পাশ থেকে নিচে পড়ে যান তিনি।

রোববার সন্ধ্যায় নিজের ফেসবুক একাউন্টে একটি ভিডিও পোস্ট করে খবরটি নিশ্চিত করেছেন নকুল কুমার।

ভিডিওতে নকুল কুমার বলেন, ‘গ্রামের বাড়ির দোতলা ভবনের চারপাশ শিমুল গাছের ডালে ছেয়ে গেছে। সেই ডাল কাটতে গিয়েই এ দুর্ঘটনা ঘটেছে। অন্যের সাহায্য ছাড়া এখন চলতে পারছি না। পপুলার হাসপাতালে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। রিপোর্ট হাতে পেলে চিকিৎসকের পরামর্শে পরবর্তী স্বাস্থ্যসেবা নেব। আমার জন্য সবাই দোয়া করবেন।’

মাদারীপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. আবু সফর হাওলাদার সংবাদমাধ্যমকে বলেন, কণ্ঠশিল্পী নকুল কুমার বিশ্বাস হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। তবে তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। শরীরের বিভিন্ন স্থানে ব্যথা পেয়েছেন। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসা নিতে তাকে মেডিক্যাল কলেজে যাওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
বরিশালে নকুল বিশ্বাসের বাড়ির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন বঙ্গবীরের
মাদারীপুর বরিশালে গামছার প্রার্থী নকুল কুমার বিশ্বাস
ডিবিতে অভিযোগ দিয়ে যা বললেন অপু

মন্তব্য

বিনোদন
Kanchan and Srimayi got married

বিয়ে করেছেন কাঞ্চন আর শ্রীময়ী

বিয়ে করেছেন কাঞ্চন আর শ্রীময়ী কাঞ্চন মল্লিক এবং অভিনেত্রী শ্রীময়ী চট্টরাজের বিয়ের এই ছবি প্রকাশ্যে এসেছে
তাদের সম্পর্ক নিয়ে জল্পনার অবসান হয়েছিল আগেই, কিন্তু বিয়ে নিয়ে ছিল নানা গুজব। এরই মধ্যে এবার প্রকাশ্যে এসেছে তাদের বিয়ের ছবি।

কানাঘুষা শোনা যাচ্ছিল বেশ কয়েক দিন ধরে। অবশেষে এলো সেই খবরটা। সাতপাকে বাঁধা পড়লেন ভারতীয় অভিনেতা কাঞ্চন মল্লিক এবং অভিনেত্রী শ্রীময়ী চট্টরাজ।

তাদের সম্পর্ক নিয়ে জল্পনার অবসান হয়েছিল আগেই, কিন্তু বিয়ে নিয়ে ছিল নানা গুজব। এরই মধ্যে এবার প্রকাশ্যে এসেছে তাদের বিয়ের ছবি।

শ্রীময়ী আনন্দবাজার অনলাইনকে জানান, গত ১৪ ফেব্রুয়ারি অর্থাৎ ‘ভ্যালেনটাইনস্‌ ডে’-র দিন আইনি মতে বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে দুজনের।

বিয়ে করে কেমন অনুভূতি হচ্ছে? সেই প্রশ্নের উত্তরে শ্রীময়ী বলেন, “এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না যে, ‘মিস’ থেকে ‘মিসেস’ হয়ে গিয়েছি। একটা মিশ্র অনুভূতি কাজ করছে। দুজনে মিলে সামনের দিনগুলো ভালভাবে কাটানোর কথা ভাবছি।”

শ্রীময়ী আরও জানান, আগামী ৬ মার্চ ঘরোয়া ভবে একটি অনুষ্ঠান করা হবে। কোথায় অনুষ্ঠানটি হবে সে সব এখনও নির্ধারণ করা হয়ে ওঠেনি। আমন্ত্রিতদের তালিকাও প্রাথমিক ভাবে একটি তৈরি করা হয়েছে।

এক সঙ্গে থাকার প্রসঙ্গে শ্রীময়ী বলেন, “আপাতত এখন মায়ের কাছে রয়েছি। ৬ মার্চের পর থেকে দুজনে এক সঙ্গে থাকা শুরু করব।”

কাঞ্চন যে শ্রীময়ীকে বিয়ে করতে পারেন, সেই কথা শোনা যাচ্ছিল অনেক দিন ধরেই। দুজনের সম্পর্কেও কোনো রাখঢাক ছিল না। বাধা ছিল পিঙ্কি বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কাঞ্চনের বিয়ের আইনি বিচ্ছেদ।

গত ১০ জানুয়ারি তাদের আইনি বিচ্ছেদ সম্পন্ন হয়েছে। তার পরই আর কোনো বাধা ছিল না দুজনের সামনে। অবশেষে একে অপরের হলেন দুজনে।

আরও পড়ুন:
‘শেষ চিঠি’ আসছে ২০ ফেব্রুয়ারি
আর নাচতে চাইছেন না নোরা
মানুষের হৃদয়ে থেকে যাব: মিমি

মন্তব্য

বিনোদন
Last letter The last letter is coming on 20 February

‘শেষ চিঠি’ আসছে ২০ ফেব্রুয়ারি

‘শেষ চিঠি’ আসছে ২০ ফেব্রুয়ারি
২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭টায় গানটি রিলিজ হবে বলে জানিয়েছেন গানটির শিল্পী তাপস ইকবাল।

দেশখ্যাত ইউটিউব চ্যানেল জি-সিরিজের ব্যানারে রিলিজ পেতে যাচ্ছে কাহিনীভিত্তিক গানচিত্র ‘শেষ চিঠি’।

২০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যা ৭টায় গানটি রিলিজ হবে বলে জানিয়েছেন গানটির শিল্পী তাপস ইকবাল।

‘শেষ চিঠি’তে পুরোনো দিনের চিঠি আদান-প্রদানের সময়কে ঘিরে একটি প্রেম-বিরহের আবহে রূপ দেয়া হয়েছে। গতানুগতিক ধারা থেকে বেরিয়ে এটি একটি ব্যতিক্রমধর্মী মিউজিক ভিডিও। তাই নাম দেয়া হয়েছে গানচিত্র।

এতে সাংবাদিক, লেখিকা, উপস্থাপক ও মডেল এমি জান্নাতের বিপরীতে অভিনয় করেছেন জিসান আফ্রিদি। ডাকপিয়নের চরিত্রে মোকতার হোসেন।

গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন তাপস ইকবাল, গীতিকার ওয়াসিম হক, সুরকার তানিম হায়াত খান রাজিত, সঙ্গীত আয়োজক সজীব দাস। সিনেমাটোগ্রাফি মো. সুমন,
মেক-আপ আর্টিস্ট আল আমিন রাফি, এডিট ও কালার গ্রেডিং করেছেন হাবিবুর রহমান হাবিব। পরিচালনায় ছিলেন নাট্যনির্মাতা ও সীমান্ত সজল। সহকারী পরিচালক মো. সজীব মিয়া। টেকনিক্যাল সাপোর্ট দিয়েছে হাভানা স্টুডিও।

মন্তব্য

বিনোদন
Mahiya Mahir got divorced

রাকিবের সঙ্গে বিচ্ছেদ হচ্ছে, জানালেন মাহি

রাকিবের সঙ্গে বিচ্ছেদ হচ্ছে, জানালেন মাহি রাকিব ও মাহি
মাহি ভিডিওতে বলেন, ‘আজকে এ রকম একটা ভিডিও করতে হবে সেটা ভাবিনি। এ রকম আমাদের নিজেদের জন্য এটা বলাটা উচিত। সবার জানা উচিত। আমি আর রকিব আমরা আসলে খুব আন্ডারস্টান্ডিং থেকে বিয়ের সিদ্ধান্তে এসেছিলম। একটা পর্যায়ে মনে হয়েছে দুজন দুজনের জন্য না।’

চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহির ঘর ভাঙল ফের। রাকিব সরকারের সঙ্গে বিয়ে বিচ্ছেদ হচ্ছে বলে ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার রাতে একটি ভিডিও বার্তা দিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মাহি।

কদিন ধরেই গুঞ্জন ছড়িয়েছে বিয়েবিচ্ছেদ হয়ে যাচ্ছে ঢাকাই নায়িকা মাহির, এবার এর সত্যতা মিলল।

মাহি ভিডিওতে বলেন, ‘আজকে এ রকম একটা ভিডিও করতে হবে সেটা ভাবিনি। এ রকম আমাদের নিজেদের জন্য এটা বলাটা উচিত। সবার জানা উচিত। আমি আর রকিব আমরা আসলে খুব আন্ডারস্টান্ডিং থেকে বিয়ের সিদ্ধান্তে এসেছিলম। একটা পর্যায়ে মনে হয়েছে দুজন দুজনের জন্য না।’

তিনি বলেন, ‘একটা ছাদের নিচে দুটি মানুষ কেন ভালো নেই, সেটা তারাই ভালো জানে। এটা বাইরের থেকে বোঝা যাবে না।’

মাহি বলেন, ‘আমরা দুজন মিলেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমাদের মধ্যে কিছু বিষয় নিয়ে সমস্যা রয়েছে। তবে রকিব খুব ভালো মানুষ। তাকে আমি সম্মান করি। অনেক কেয়ারিং সে। খুব দ্রুতই আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে সেপারেশনে যাচ্ছি, সেপারেশনে অআছি। সেপারেশন কবে আর কীভাবে হবে সেটিও দুজন মিলেই ঠিক করব।’

২০১৬ সালে সিলেটের ব্যবসায়ী পারভেজ মাহমুদ অপুকে বিয়ে করেছিলেন মাহি। ২০২১ সালের ২২ মে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়। এরপর ২০২১ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রাকিবকে বিয়ে করেন মাহি। তাদের একটি ছেলে রয়েছে। গাজীপুরের ব্যবসায়ী রাকিবেরও এটি দ্বিতীয় বিয়ে।

মন্তব্য

বিনোদন
10 crores in Amitabh Jayar Bank the owner of 16 cars

১৬ গাড়ির মালিক অমিতাভ, জয়ার ব্যাংকে ১০ কোটি রুপি

১৬ গাড়ির মালিক অমিতাভ, জয়ার ব্যাংকে ১০ কোটি রুপি
২০০৪ সালে সমাজবাদী পার্টির সদস্যপদ গ্রহণ করেন জয়া। রাজ্যসভার সদস্য হিসেবে দলের পক্ষে তার নাম প্রকাশের পর জয়া ঘোষণা করেছেন, অমিতাভ এবং তার সম্মিলিত সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ১ হাজার ৫৭৮ কোটি রুপি।

বলিউডের তারকাদের সম্পদের পরিমাণ কত তা বোঝা যায় মাঝেমধ্যেই। চলাফেরা-লাইফস্টাইলই এ সম্পর্কে ধারণা দেয়। অবশ্য একটি সিনেমা মুক্তি পেলেই যেখানে বড় ব্যবসা হয় সেখানে এমন ব্যাপার খুব স্বাভাবিক।

প্রথম সারির তারকাদের নিয়ে অনুরাগীদের আগ্রহ থাকাটা স্বাভাবিক। অমিতাভ বচ্চন ও জয়া বচ্চন সেই তালিকায় অন্যতম নাম।

আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, সম্প্রতি সমাজবাদী পার্টির সদস্য হিসেবে পঞ্চম বার রাজ্যসভার টিকিট পেয়েছেন জয়া বচ্চন। মঙ্গলবার তার মনোনয়পত্র জয়া দিয়েছেন অমিতাভ-ঘরনি। বর্ষীয়ান অভিনেত্রী স্বামীর সঙ্গে তার যৌথ সম্পত্তির পরিমাণও ঘোষণা করেছেন, যা জানলে অনেকেই চমকে যেতে পারেন।

২০০৪ সালে সমাজবাদী পার্টির সদস্যপদ গ্রহণ করেন জয়া। রাজ্যসভার সদস্য হিসেবে দলের পক্ষে তার নাম প্রকাশের পর জয়া ঘোষণা করেছেন, অমিতাভ এবং তার সম্মিলিত সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ১ হাজার ৫৭৮ কোটি রুপি।

হলফনামা অনুসারে, অমিতাভ ও জয়া, দুজনের স্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ৮৫০ কোটি রুপি। অন্যদিকে, তাদের অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ ৭২৯ কোটি ৭৭ লক্ষ রুপির। জয়ার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে জমা রয়েছে ১০ কোটি রুপির বেশি অর্থ। অমিতাভের ক্ষেত্রে সেই অর্থের পরিমাণ ১২০ কোটি ৪৫ লাখ ৬২ হাজার ৮৩ রুপি।

বচ্চন পরিবারের জাঁকজমকপূর্ণ জীবনযাত্রা কারও অজানা নয়। সেখানে অন্য একটি হিসাবও পাওয়া যাচ্ছে। জয়া বচ্চনের ব্যক্তিগত গহনার মূল্য ৪০ কোটি ৯৭ লাখ রুপি। এ ছাড়াও তার একটি ৯ লাখ ৮২ হাজার টাকা দামের গাড়ি রয়েছে। অন্যদিকে, অমিতাভের অলঙ্কারের মোট মূল্য ৫৪ কোটি ৭৭ লাখ রুপি। এই সঙ্গে অমিতাভের ব্যক্তিগত সংগ্রহে মোট ১৬টি গাড়ি রয়েছে। এর মধ্যে দুটি মার্সেডিজ ও একটি রোলস রয়েস গাড়ির মোট বাজারদর ১৭ কোটি ৬৬ লাখ রুপি।

আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি রাজ্যসভার ভোট। যেখানে ১৫টি রাজ্যের জন্য বরাদ্দ রয়েছে ৫৬টি আসন। জয়া বচ্চন ছাড়াও দলের পক্ষে রাজ্যসভার নির্বাচনের জন্য সাবেক সাংসদ রামজিলাল সুমন ও অবসরপ্রাপ্ত আইএএস অফিসার অলোক রঞ্জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সংরক্ষিত আসনের এমপি হতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম কিনলেন সাবা
মোবাইল ফোন নিয়ে শহীদ-মিরার ঘরে অশান্তি
প্রতারণার শিকার সালমান খান

মন্তব্য

p
উপরে