× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিনোদন
17 year old girl dont give interview if you dont ask Runa Laila
hear-news
player
google_news print-icon

১৭ বছরের তরুণী না বললে ইন্টারভিউ দেব না, যাও...: রুনা লায়লা

১৭-বছরের-তরুণী-না-বললে-ইন্টারভিউ-দেব-না-যাও-রুনা-লায়লা
কিংবদন্তি সংগীতশিল্পী রুনা লায়লা। ছবি: সংগৃহীত
বৃহস্পতিবার দিনটির শেষ প্রান্তে আর কোনো আয়োজন আছে কি না, জানতে চাইলে রুনা লায়লা বলেন, ‘এখন বাড়িতে গিয়ে ঘুম দেব।’

প্রশ্নকর্তা: ৭০তম জন্মদিনে…

কথা থামিয়ে দিয়ে রুনা লায়লা বললেন, ‘৭০ বছর কে বলল?’

প্রশ্নকর্তা: আচ্ছা ৭০ বছরের তরুণী

রুনা লায়লা: ১৭ বছরের তরুণী বলবে। না হলে ইন্টারভিউ দেব না, যাও...।

হাসির রোল পড়ল রুনা লায়লা, প্রশ্নকর্তা এবং পাশেই থাকা আরও কয়েকজন গুণী মানুষের মধ্যে।

রুনা লায়লা মজা করতে পছন্দ করেন। নিজেই জানালেন, বাড়িতে তিনি একরকম। যখন বাইরে বের হন তখন তিনি সেইরকম, যেমনটা মানুষের মধ্যে তার ইমেজ বা মানুষ তাকে দেখতে চায়।

যেখানে যেমনই থাকুন না কেন, রুনা লায়লা নিজেকে ডিসিপ্লিনড বলে দাবি করেন। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শিল্পীর জন্য ডিসিপ্লিন জরুরি। জীবনে একটা রুটিনের মধ্যে থাকা; সেটা মেইনটেইন করা, একাগ্রতা না থাকলে তো হবে না। আমি টাইমিংয়ের ব্যাপারে খুবই সচেতন। আমাকে ৪টায় আসতে বললে আমি সাড়ে ৩টায় চলে আসার চেষ্টা করি।’

কিংবদন্তি এ শিল্পী এটাও মনে করেন যে জীবন নিয়ে একেকজনের একেক ধারণা। সেসব দিয়ে দিয়ে নিজেকে যাচাই তিনি করেন না।

‘আমরা ছোটবেলা থেকেই বাড়িতে একটা ডিসিপ্লিনের মধ্যে থেকেছি। গুড ম্যানার্স, গুড ডিসিপ্লিন শিখেছি। যেটাই করেছি, আমাদের কখনও ফোর্স করা হয়নি।’ বলেন রুনা লায়লা।

গুণী এই শিল্পী তার বর্ণাঢ্য জীবনকে ‘ফুল অফ জয়’ বলে দাবি করেছেন। তিনি বলেন, ‘স্যাডনেস তো থাকেই সবার জীবনে। আমার বড় বোনকে হারালাম যখন ওনার বয়স ২৭ বছর। পাঁচ বছরের ছেলে রেখে চলে গেলেন। তার তিন বছর পর বাবা চলে গেলেন। মা মারা গেলেন ২০১৪ তে। দুঃখ তো থাকে সবার জীবনে। ওটাকে পেরিয়ে উঠতে হবে। এগুলো ছাড়া জীবনটা ফুল অফ জয় হিসেবে বলা যায়।’

ফেলে আসা জীবন ফিরে দেখার প্রয়োজন হয় না রুনার। যদি কখনও দেখেই ফেলেন, সে সময় নিজের গানটাকেই খোঁজেন। বলেন, ‘নিজের গাওয়া গান যখন শুনি, তখন মনে হয় যে এটা যদি আরেকবার গাইতে পারতাম, তাহলে হয়তো একটু বেটার হতো। এ ছাড়া পেছনে আর তাকানোর প্রয়োজন নাই। সৃষ্টিকর্তার রহমতে অনেক কিছু পেয়েছি, অনেক কিছু পাচ্ছি।’

মাঝে মাঝেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা ছবিতে রুনা লায়লার সঙ্গে দেখা যায় তরুণ শিল্পীদের। কী কথা হয় তাদের সঙ্গে, জানতে চাইলে শিল্পী বলেন, ‘আমি ওদের সাপোর্ট করি। ওদের বলি, যদি কিছুর দরকার হয় তাহলে অবশ্যই যেন আমার সঙ্গে যোগাযোগ করে। কেউ ভালো একটা অনুষ্ঠান করলে, ভালো একটা গান গাইলে, আমিই ওদের ফোন করি। ওদের উৎসাহ দেয়ার চেষ্টা করি।’

কিছুটা স্মৃতিচারণার মুডে গিয়ে রুনা লায়লা বলেন, ‘এখন গাওয়া তো অনেক সহজ হয়ে গেছে। কম্পিউটার অনেক কিছু করে দেয়। আমরা যে সময় গান শুরু করেছি, তখন সব লাইভ হতো। একবার ভুল হলে আবার প্রথম থেকে শুরু করতে হতো। ওই পরিশ্রমটা আমাকে অনেক হেল্প করেছে।

‘১২ বছর বয়সে প্রফেশনালি গান শুরু আমার। তখন তো স্কুলেও যেতে হতো। ভোরে স্কুল শেষ করে রেকর্ডিংয়ে যেতাম, সন্ধ্যায় রেওয়াজ করতাম। এক সপ্তাহে ৩০টা গানও করেছি, তা-ও আবার লাইভ। ইট ওয়াজ টাফ বাট আই লার্ন এ লট।

‘আমি এখন গান করতে গেলে মনে হয়, এক্সপ্রেশনগুলো ঠিক হচ্ছে না। লাইভ গাওয়ার মধ্যে মজা থাকে। কাট পেস্ট করে সেটা হয় না; ওটা আমি পছন্দও করি না। আমার মনে হয়, যদি লাইভ গাওয়া যেত বা ডুয়েট হলে একসঙ্গে গাইতাম। কিন্তু সেটা আর হয় না।

‘পুরোটা না হলো কিছুটাও যদি লাইভ করা যেত, খুব ভালো হতো। এখন তো সেটে গিয়ে অনেক কিছু হয়। আমি এখনও ইনসিস্ট করি, যদি আমার মনে হয় কোথাও ভালো লাগছে না, সেটা আমি আবার করতে চাই। কিন্তু সেই সময়টাই নেই কারও। ওরা বলে, কাট পেস্ট করে লাগিয়ে নেব।’

গাওয়ার পাশাপাশি গানে সুর দেন রুনা লায়লা। সে রকম একটি প্রজেক্ট করার ইচ্ছে আছে। কিন্তু প্রযোজনার জন্য নাকি হচ্ছে না কাজটি।

রুনা লায়লা একটি কাজ করবেন আর সেখানে প্রযোজক পাওয়া যাবে না, এটা বিশ্বাস করতে কষ্ট হয় যেন। তিনি বললেন, ‘ওখানেই সমস্যা হচ্ছে।’

আরেকটু বাড়িয়ে বলেন, ‘আমি অনেকদিন ধরেই চেষ্টা করছি একটা কাজ করব। অনেকেই এগিয়ে আসে আবার পিছিয়ে যায়। আরও কিছু বাংলা গান করার প্ল্যান আছে, কথা হচ্ছে কিছু শিল্পীর সঙ্গে। অন্য দেশে যেমন একটা গানের পেছনে অনেক খরচ করে। আমাদের এখানে সে রকম হয় না।’

রুনা লায়লা এসব কথা যখন বলছেন তখন দুপুর হয়ে গেছে। তার মধ্যাহ্নভোজও শেষ। বৃহস্পতিবার তার ৭০তম জন্মদিন উপলক্ষে রাত থেকেই চলছে নানা আয়োজন। দুপুরে তিনি অংশ নিয়েছিলেন একটি টিভি অনুষ্ঠানে। সেখানেই তার সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার।

বৃহস্পতিবার দিনটির শেষ প্রান্তে আর কোনা আয়োজন আছে কি না, জানতে চাইলে রুনা লায়লা বলেন, ‘এখন বাড়িতে গিয়ে ঘুম দেব।’

আরও পড়ুন:
রুনা লায়লার ৭০
গানই তার পরিচয়
জন্মদিনে শুভেচ্ছায় সিক্ত রুনা লায়লা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিনোদন
Concert for female audience

নারী দর্শক-শ্রোতাদের জন্য কনসার্ট

নারী দর্শক-শ্রোতাদের জন্য কনসার্ট ফিমেল অনলি কনসার্টে গাইবেন দেশের জনপ্রিয় শিল্পীরা। ছবি: সংগৃহীত
কনসার্টে পারফর্ম করবেন তাহসান খান, প্রীতম হাসান, সন্ধি, হাসিব, আনিকা ও ব্যান্ড নেমেসিস। পাশাপাশি আরও থাকছে ফ্যাশন শো। যেখানে ৩০ জনেরও বেশি মডেল পারফর্ম করবেন।

দেশের বিউটি অ্যান্ড পারসোনাল কেয়ার ই-কমার্স সাজগোজ আয়োজন করছে ফিমেল ফেস্ট। দুই দিনব্যাপী এ ফেস্ট শুরু হয়েছে বৃহস্পতিবার।

ইন্টরন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টার বসুন্ধরার হল ৪ এ আয়োজিত এ অনুষ্ঠানের প্রথম দিন ছিল দেশি-বিদেশি নমকরা ব্র্যান্ডের পণ্য প্রদর্শনী।

আকর্ষণীয় আয়োজনটি হতে যাচ্ছে শুক্রবার। এদিন সকাল থেকেই থাকছে নানা আয়োজন। আয়োজকরা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন, শুক্রবার সকাল ১০টা থেকেই গেট খোলা থাকবে আয়োজনের।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, শুক্রবার সন্ধ্যায় ফিমেল ওনলি কনসার্টের আয়োজন থাকছে, যেখানে ৫ হাজার নারী অতিথি (সাজগোজের কাস্টোমার) উপস্থিত থাকবেন।

কনসার্টে পারফর্ম করবেন তাহসান খান, প্রীতম হাসান, সন্ধি, হাসিব, আনিকা ও ব্যান্ড নেমেসিস। পাশাপাশি আরও থাকছে ফ্যাশন শো। যেখানে ৩০ জনেরও বেশি মডেল পারফর্ম করবেন।

নারীদের জন্য আয়োজনে তাহসান, প্রীতম বা নেমেসিস কেন, জানতে চাইলে সাজগোজের হেড অফ বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ফারহানা প্রীতি বলেন, ‘মূলত সাজগোজের গ্রাহকদের পছন্দের কথা মাথায় রেখেই এ আয়োজন সাজানো হয়েছে। মেয়েরা নিজেদের মতো করে আনন্দে উল্লাসে পছন্দের শিল্পীর গান যেন শুনতে পারেন এটাই আমাদের উদ্দেশ্য।’

সাজগোজ তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে জানিয়েছে, কনসার্টের এন্ট্রি পাস ই-মেইল করা হয়েছে। সবাইকে এন্ট্রি পাস এর প্রিন্টেড কপি সঙ্গে আনার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। এন্ট্রি পাস ছাড়া আমাদের পক্ষে কাউকে মেইন ভেন্যুতে প্রবেশ করানো সম্ভব হবে না।

সাজগোজের সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং সিসিও সিনথিয়া শারমিন ইসলাম বলেন, ‘আমরা চাই আমাদের সম্মানিত ফিমেল কাস্টমাররা যেন স্বাচ্ছন্দ্যে নিজেদের মতো করে দারুণ এই ফেস্টটি উপভোগ করতে পারে। অনেক নারীর জীবনে এটা হয়তো প্রথম কনসার্ট, আমরা এই দারুণ ঘটনাটির সাক্ষী হয়ে থাকতে চাই।’

আরও পড়ুন:
‘ব্যান্ড মিউজিক ডে’র উদ্বোধন, শুক্রবার বড় কনসার্ট
আইয়ুব বাচ্চুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে ‘বামবা-চ্যানেল আই’ কনসার্ট
দেশসেরা ব্যান্ড নিয়ে বামবা’র কনসার্ট ডিসেম্বরে
নভেম্বর রেইন কনসার্ট ১২ তারিখে
২৩ সেপ্টেম্বর আসছে ‘নদী রক্স কনসার্ট’

মন্তব্য

বিনোদন
The band music was inaugurated with a big concert on Friday

‘ব্যান্ড মিউজিক ডে’র উদ্বোধন, শুক্রবার বড় কনসার্ট

‘ব্যান্ড মিউজিক ডে’র উদ্বোধন, শুক্রবার বড় কনসার্ট ব্যান্ড মিউজিক ডের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে দেশেন ব্যান্ড মিউজিশিয়ানরা। ছবি: সংগৃহীত
চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর জানান, ভবিষ্যতে এ স্বপ্ন আরও বড় হবে। বামবার সভাপতি হামিন আহমেদ বলেন, 'আইয়ুব বাচ্চু নেই, ওনার স্বপ্ন আছে। তার সেই স্বপ্নটিকে আরও বৃহৎ পরিসরে আমরা নিয়ে যেতে চলেছি কাল শুক্রবার আর্মি স্টেডিয়ামে।'

বিজয়ের মাসের প্রথম দিনকে ব্যান্ড মিউজিক ডে হিসেবে পালন ও উদযাপন করার সিদ্ধান্ত নিয়ছে বাংলাদেশ ব্যান্ড মিউজিক অ্যাসোসিয়েশন (বামবা) ও চ্যানেল আই।

প্রায় ৯ বছর আগে দেশের ব্যান্ড লেজেন্ড প্রয়াত আইয়ুব বাচ্চুর পরিকল্পনায় চ্যানেল আই প্রঙ্গণে শুরু হয় ব্যান্ড ফেস্ট। সেটি এখনও চলছে। আয়োজনটি হয় ১ ডিসেম্বর।

আইয়ুব বাচ্চু এখন আর নেই, কিন্তু তার প্রেরণা, সাহস রয়ে গছে। তার প্রতি সম্মান জানাতে ১ ডিসেম্বরকে ব্যান্ড মিউজিক ডে হিসেবে পালন করতে চান আইয়ুব বাচ্চুর সহকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার সকালে চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে উদ্বোধন করা হয় ব্যান্ড মিউজিক ডের। আয়োজনটি উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর। উপস্থিত ছিলেন বামবার সদস্যরা।

চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর জানান, ভবিষ্যতে এ স্বপ্ন আরও বড় হবে। বামবার সভাপতি হামিন আহমেদ বলেন, 'আইয়ুব বাচ্চু নেই, ওনার স্বপ্ন আছে। তার সেই স্বপ্নটিকে আরও বৃহৎ পরিসরে আমরা নিয়ে যেতে চলেছি কাল শুক্রবার আর্মি স্টেডিয়ামে।’

আবেগজড়িত কণ্ঠে আইয়ুব বাচ্চুর স্ত্রী বলেন, ‘বাচ্চুর স্বপ্ন ছিল এই ব্যান্ড ফেস্টটিকে বড় পরিসরে করার জন্য। আজ বাচ্চু নেই, তবে বাচ্চুর কাজটা তার সঙ্গীরা এতদূর নিয়ে এসেছে, আর্মি স্টেডিয়াম পর্যন্ত। সে জন্য তার সহশিল্পীদের সালাম জানাই।’

গান বাংলা টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কৌশিক হোসেন তাপস বলেন, ‘আয়োজকরা যদি আমাদের রাখে, তাহলে যতদিন ব্যান্ড ফেস্ট হবে, ততদিন গান বাংলা থাকবে।’

আলোচনা শেষে শুরু হয় সংগীত পরিবেশন পর্ব। প্রথমেই আইয়ুব বাচ্চু স্মরণে গাওয়া হয়, ‘সেই তুমি’। গান শেষে ‘লাল সবুজ বেলুন উড়িয়ে ব্যান্ড ফেস্টের উদ্বোধন করা হয়।

আয়োজন থেকে আরেকটি বিষয়ে নেয়া হয়েছে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত। ডিসেম্বরের প্রথম শুক্রবার হবে বড় কনসার্ট। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) বড় পরিসরে কনসার্ট হতে যাচ্ছে রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করবে ব্র্যান্ডমিথ কমিউনিকেশন।

আয়োজকরা জানান, দেশের সবচেয়ে বড় কনসার্ট উপভোগ করতে প্রবেশে মূল্য রাখা হয়েছে ৫০০ টাকা। আগ্রহীরা www.getsetrock.com-এর ওয়েবসাইটে লগইন করে টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। ‘উল্লাসে, উচ্ছ্বাসে, তারুণ্যে’ স্লোগানে অনুষ্ঠিত হওয়া কনসার্টে অংশ নেবে ১৬টি ব্যান্ড।

ব্যান্ডগুলো হলো নগর বাউল, মাইলস, ওয়ারফেইজ, সোলস, রেঁনেসা, ফিডব্যাক, অর্থহীন, মাকসুদ ও ঢাকা, অবসকিউর, দলছুট, আর্টসেল, শিরোনামহীন, ভাইকিং, ক্রিপটিক, ফেইট, পেন্টাগন এবং পাওয়ারসার্জ।

আরও পড়ুন:
একসঙ্গে ফিরবে বিটিএস?
ধোবাউড়ায় নকল ব্যান্ডরোলযুক্ত বিড়ি জব্দ
জেমস-হাসান-টুটুলের কনসার্ট বাতিল
বছর শেষে ঢাকা রক ফেস্ট ২.০
যুক্তরাষ্ট্রে কনসার্টে পদদলিত হয়ে নিহত ৮

মন্তব্য

বিনোদন
After 15 years the band is returning to the concert in Dhaka

১৫ বছর পূর্তিতে ঢাকায় কনসার্টে ফিরছে ব্যান্ড শূন্য

১৫ বছর পূর্তিতে ঢাকায় কনসার্টে ফিরছে ব্যান্ড শূন্য সংবাদ সম্মেলনে ব্যান্ড শূন্য ও অতিথিরা। ছবি: সংগৃহীত
ব্যান্ড শূন্য তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে বুধবার জানিয়েছে, প্রায় ৩ বছর পর তারা ঢাকায় কনসার্টে ফিরছে।

১৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে নতুন বছরে কনসার্টে ফিরছে ব্যান্ড শূন্য। ‘ফিফটিন ইয়ারস অব শূন্য’ শিরোনামের কনসার্টটি হবে ২৬ জানুয়ারি। ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা, হল-৪-এ সন্ধ্যা ৬টায় হবে এই আয়োজন।

কনসার্টে শূন্য ব্যান্ড ছাড়াও মঞ্চে থাকবে আর‌ও নামকরা ব্যান্ডদল। এটি আয়োজন করছে ড্রিমকাস্ট মার্কেটিং অ্যান্ড কমিউনিকেশন।

আয়োজন সম্পর্কে জানাতে ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় প্রেস কনফারেন্স। এতে উপস্থিত ছিলেন শূন্য ব্যান্ডের ড্রামার রাফাতুল বারি লাবিব, গিটারিস্ট ইশ্মামুল ফরহাদ এলিন। কনসার্টের পিআর পার্টনার হিসেবে আছেন স্টোরিটেলার পিআর।

ব্যান্ড শূন্য তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে বুধবার জানিয়েছে, প্রায় তিন বছর পর তারা ঢাকায় কনসার্টে ফিরছে।

ব্যান্ডটি লিখেছে, ‘আমাদের ১৫ বছরের লম্বা সফর এবং স্মৃতি আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করতে চাই। সঙ্গে থাকবে আমাদের দেশের কিছু অসাধারণ সংগীতশিল্পী। দেশের স্বনামধন্য কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে বেশ কিছু পরিকল্পনা করা হয়েছে।’

কনসার্টের বিস্তারিত তথ্য শূন্য ব্যান্ডের অফিশিয়াল পেইজের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে বলে জানিয়েছে ব্যান্ডটি।

আরও পড়ুন:
জেমস-হাসান-টুটুলের কনসার্ট বাতিল
বছর শেষে ঢাকা রক ফেস্ট ২.০
বাংলাদেশ থেকে ব্যান্ডউইডথ ও ট্রেইনার নেবে ভুটান
আসছে ব্যান্ড অ্যাডভার্ব এর নতুন গান
ব্যান্ড কাকতাল: জেলখানায় জন্ম যার

মন্তব্য

বিনোদন
Serakantha season 7 starts in December

ডিসেম্বরে শুরু হচ্ছে ‘সেরাকণ্ঠ’ সিজন-৭

ডিসেম্বরে শুরু হচ্ছে ‘সেরাকণ্ঠ’ সিজন-৭ সেরাকণ্ঠের দুই বিচারক রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা (বাঁয়ে) এবং রুনা লায়লা। ছবি: সংগৃহীত
৯ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে রিয়েলিটি শো’টির বিভাগীয় পর্যায়ে প্রাথমিক অডিশন রাউন্ড। এবার কোনো বয়স লিমিট থাকছে না আয়োজনে। ছোট থেকে বড়, সবাই অংশ নিতে পারবেন অডিশনে।

শুরু হচ্ছে সংগীত নিয়ে প্রতিযোগিতামূলক রিয়েলিটি শো সেরাকণ্ঠ। সপ্তমবারের মতো এটি আয়োজন করছে চ্যানেল আই এবং শো’টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক ঐক্য ডটকম ডট বিডি।

৯ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে রিয়েলিটি শো’টির বিভাগীয় পর্যায়ে প্রাথমিক অডিশন রাউন্ড। এবার কোনো বয়স লিমিট থাকছে না আয়োজনে। ছোট থেকে বড়, সবাই অংশ নিতে পারবেন অডিশনে। পাশাপাশি নর্থ আমেরিকাতেও হবে রিয়েলিটি শো’টির অডিশন রাউন্ড।

মঙ্গলবার দুপুরে চ্যানেলটির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

সেখানে আরও জানানো হয়, বিচারক প্যানেলে থাকছেন তিন গুণী শিল্পী রুনা লায়লা, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা ও সামিনা চৌধুরী।

কবে, কোথায়, কোন আয়োজনটি হবে, সেগুলো জানানো হবে চ্যানেল আইয়ের পর্দায়। বিভাগীয় পর্যায়ে অডিশন শেষে যখন গ্র্যান্ড অডিশন শুরু হবে, তখন প্রতিযোগীদের মূল্যায়ন করবেন রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা এবং সামিনা চৌধুরী।

সেরা ১৬ নির্বাচিত হওয়ার পর বিচারক হিসেবে যুক্ত হবেন রুনা লায়না। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আয়োজনটি নিয়ে ৪০টি পর্ব নির্মাণ করবে চ্যানেলটি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চ্যানেল আইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, সভাপতি উদ্যোক্তা উন্নয়ন উইং ঐক্য ফাউন্ডেশন মিসেস শাহীন আকতার রেনী, দুই বিচারক রুনা লায়লা ও রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা।

আরও উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ইকবাল সোবহান চৌধুরী। আরেক বিচারক সামিনা চৌধুরী বিশেষ কাজে ব্যস্ত থাকায় সংবাদ সম্মেলনে আসতে পারেননি।

সংবাদ সম্মেলনে ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, ‘বিরতির পর অনেক অনেক চমক নিয়ে আসছে সেরাকণ্ঠ। এর সঙ্গে যারা যুক্ত তাদের প্রতি জানাই আন্তরিক অভিনন্দন এবং যারা আগামী সেরাকণ্ঠের এই প্ল্যাটফর্মে যুক্ত হবে তাদের জন্যও আগাম অভিনন্দন।’

শাহীন আকতার রেনী বলেন, ‘এই ধরনের একটি বৃহত্তর অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে আমরা ঐক্য ফাউন্ডেশন নিজেদের অনেক বেশি সম্মানিত মনে করছি। আশা করছি আমাদের এ বন্ধন আরও দৃঢ় হবে।’

রুনা লায়লা বলেন, ‘যারা এই অনুষ্ঠানে প্রতিযোগী হিসেবে অংশগ্রহণ করতে চায় তাদের অবশ্যই ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়ে আসতে হবে। আশা করি এবারের সেরাকণ্ঠটি হবে বেশ চমকপ্রদ।’

রেজওয়ানা চৌধুরী বলেন, ‘সেরাকণ্ঠের এই অনুষ্ঠানটির মাধ্যমে যারা এবার বেরিয়ে আসবে আশা করছি তারা হবে দেশসেরা শিল্পী। এই অনুষ্ঠানের বিচারক প্যানেলে আমার নাম থাকায় আমি সম্মানিত বোধ করছি।’

ঐক্য ডটকম ডট বিডি-চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ সিজন-৭-এর প্রকল্প পরিচালক ইজাজ খান স্বপন। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করবেন মারিয়া নূর।

মন্তব্য

বিনোদন
This time Hero Alam will entertain Brazil fans

এবার ব্রাজিল-ভক্তদের মাতাবেন হিরো আলম

এবার ব্রাজিল-ভক্তদের মাতাবেন হিরো আলম মেসির পর এবার নেইমারকে নিয়ে গান গাইলেন হিরো আলম। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
হিরো আলম নিউজবাংলাকে বলেন, “আর্জেন্টিনা-মেসিকে নিয়ে গান প্রকাশের পর অনেক অনুরোধ এসেছিল, ‘ভাই ব্রাজিলের জন্য একটা গান করেন।’ তখনই কথা দিয়েছিলাম, তাদেরকে নিয়েও একটা গান করব। সেই গানের রেকর্ডিং শেষ হয়েছে। আজকে বিকেলে বা সন্ধ্যার দিকে ছাড়ব।”

ফুটবল বিশ্বকাপ ঘিরে এ দেশের দর্শকদের উন্মাদনার অন্ত নেই। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ভক্তদের মধ্যে এ উন্মাদনা সবচেয়ে বেশি।

বাড়িঘর, দোকানপাটে পছন্দের দলের পতাকার রং করানো, ছাদে-রাস্তাঘাটে পতাকা টাঙানোসহ অনেক কিছু করছেন সমর্থকরা।

সেই উন্মাদনার পারদ আরেকটু বাড়াতে কয়েক দিন আগে আর্জেন্টাইন ভক্তদের জন্য গান করেছিলেন আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিরো আলম। শনিবার রাতে আর্জেন্টিনা-মেক্সিকো ম্যাচের আগেও ‘উই লাভ ইউ মেসি’ শিরোনামে আরেকটি গান প্রকাশ করেন তিনি।

এবার ব্রাজিল-ভক্তদের জন্য গান নিয়ে আসছেন আর্জেন্টাইন সমর্থক হিরো আলম। আরবি, ইংরেজি ও বাংলা মিলিয়ে গাওয়া সেই গানটির শিরোনাম ‘উই লাভ ইউ নেইমার’।

এ নিয়ে রোববার দুপুরে নিউজবাংলাকে হিরো আলম বলেন, ‘আর্জেন্টিনা-মেসিকে নিয়ে গান প্রকাশের পর অনেক অনুরোধ এসেছিল, ‘ভাই ব্রাজিলের জন্য একটা গান করেন।’ তখনই কথা দিয়েছিলাম তাদেরকে নিয়েও একটা গান করব। সেই গানের রেকর্ডিং শেষ হয়েছে, আজকে বিকেলে বা সন্ধ্যার দিকে ছাড়ব।”

‘উই লাভ ইউ নেইমার’ গানটি তিন ভাষায় গাওয়ার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন হিরো আলম।

তিনি বলেন, ‘যেহেতু কাতারে হচ্ছে, ইন্টারন্যাশনাল ব্যাপার। আর আমরা তো বাঙালি। এইসব ভেবে করেছি আর কী।’

কাতারের লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে শনিবার রাতে মেক্সিকোকে হারিয়ে ফিফা বিশ্বকাপের এবারের আসরে প্রথম জয় পেয়েছে আর্জেন্টিনা।

সোমবার রাত ১০টায় সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে এই আসরের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে ব্রাজিল।

আরও পড়ুন:
রবীন্দ্রসংগীত না গাইতে হিরো আলমের মুচলেকা
হিরো আলমকে আইনি নোটিশ
সাড়ে ৪ লাখে ‘হিরো আলমের’ কোরবানি
রবীন্দ্রসংগীত গেয়ে অনুতপ্ত হিরো আলম চান ক্ষমা
হিরো আলম ও ভুবন বাদ্যকরের ‘হাউ ফানি’

মন্তব্য

বিনোদন
Messi is chasing Neymar

মুহিন-ঝিলিকের ‘ছুটছে মেসি ছুটছে নেইমার’

মুহিন-ঝিলিকের ‘ছুটছে মেসি ছুটছে নেইমার’ ছুটছে মেসি ছুটছে নেইমার গানের পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত
সংগীতশিল্পী মুহিন ও ঝিলিকের কণ্ঠে প্রকাশ হয়েছে ‘ছুটছে মেসি ছুটছে নেইমার’ শিরোনামের একটি গান। জামাল হোসেনের কথায় গানটির সুর-সংগীত করেছেন মুহিন নিজেই।

কাতারে শুরু হওয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে সারা বিশ্বে। বাংলাদেশেও পছন্দের দল ও খেলোয়াড়দের নিয়ে রয়েছে উত্তেজনা।

কেউ সমর্থন করছেন আর্জেন্টিনা আবার কেউ ব্রাজিল। পিছিয়ে নেই দেশের শিল্পীরাও। সমর্থনের পাশাপাশি সংগীতশিল্পীরাও তাদের পছন্দের দল ও খেলোয়াড়দের নিয়ে গান বাঁধছেন।

তারই ধারাবাহিকতায় সংগীতশিল্পী মুহিন ও ঝিলিকের কণ্ঠে প্রকাশ হয়েছে ‘ছুটছে মেসি ছুটছে নেইমার’ শিরোনামের একটি গান। জামাল হোসেনের কথায় গানটির সুর-সংগীত করেছেন মুহিন নিজেই।

গানটি প্রসঙ্গে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মুহিন ও ঝিলিক বলেন, ‘ফুটবলপ্রেমীদের জন্য বিশ্বকাপ উপলক্ষে আমাদের এই গান। গানের কথাগুলো দারুণ। যারা ফুটবল খেলাকে উপভোগ করেন তাদের ভালো লাগবে।’

গানটির গীতিকার জামাল হোসেন বলেন, ‘সারা বিশ্ব এখন বিশ্বকাপ উন্মাদনায় ভাসছে। আমরাও এর বাইরে নই। আমাদের প্রত্যেকের পছন্দের দল ও খেলোয়াড় আছে। বিশ্বকাপের উত্তেজনাকে আরও রঙিন করে তুলতে আমাদের এই প্রয়াস।’

রঙ্গন মিউজিকের ব্যানারে নির্মিত গানটির জন্য ভিডিও পরিচালনা সৈকত রেজা। আর এটি মুক্ত হয়েছে রঙ্গন মিউজিকের অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেল থেকে।

আরও পড়ুন:
দুটি গান ‘রিপিট মোডে’ শুনছেন ফারুকী
লুইপা-পাপনের ‘হারিয়ে গেলাম’ গানে নুসরাত-যশ
ইমরান-টিনার ‘‌ইচ্ছে হলেই দিও’
তমালের ‌নতুন গান ‘নজর’
জয়-নচি’র গানের হ্যাট্রিক

মন্তব্য

বিনোদন
Lyricist Moniruzzaman stole 3 trophies of National Film Award

গীতিকবি মনিরুজ্জামানের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের ৩ ট্রফি চুরি

গীতিকবি মনিরুজ্জামানের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের ৩ ট্রফি চুরি গীতিকার মনিরুজ্জামান মনির। ছবি: সংগৃহীত
মনিরুজ্জামানের বরাত দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ৩ নভেম্বর রাতে তার বাসার জানালা ভেঙে মোট পাঁচটি পুরস্কারের ট্রফি নিয়ে যায় অজ্ঞাতনামারা। বিষয়টি সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর টের পান তিনি। এরপর সেগুলো উদ্ধারের লক্ষ্যে ৫ নভেম্বর বাড্ডা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। ডায়েরি নম্বর ৩৬১।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পাওয়া গীতিকার মনিরুজ্জামান মনিরের বাসা থেকে চুরি হয়েছে ৫টি পুরস্কার। যার মধ্যে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ৩টি ।

৩ নভেম্বর রাতে গীতিকারের পশ্চিম মেরুল বাড্ডার বাসার জানালা ভেঙে চুরি হয় ট্রফিগুলো।

বৃহস্পতিবার গীতিকবি সংঘ থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। একই সঙ্গে নিন্দা প্রকাশ এবং অবিলম্বে ট্রফিগুলো উদ্ধারের দাবিও জানানো হয় বিজ্ঞপ্তিতে।

গীতিকবি সংঘের দাবি, চুরির ঘটনার পর যথাযথ প্রক্রিয়ায় পুলিশি সহায়তা চেয়েছেন মনিরুজ্জামান মনির। কিন্তু ২১ দিনেও (২৪ নভেম্বর পর্যন্ত) ট্রফিগুলো উদ্ধার হয়নি কিংবা কারা চুরি করেছে সেটিও চিহ্নিত করা হয়নি। যা হতাশার বলে উল্লেখ করেছে গীতিকারদের এ সংগঠন।

সংগঠনটি দাবি জানিয়ে বলেছে, ‘দেশের নন্দিত এই অগ্রজ গীতিকবির চুরি হওয়া সম্মান পুনরুদ্ধারের জোর দাবি জানাই পুলিশ প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি। আমরা চাই অবিলম্বে ট্রফিগুলো উদ্ধার এবং দোষীদের শনাক্ত করে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।’

মনিরুজ্জামানের বরাত দিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, ৩ নভেম্বর রাতে তার বাসার জানালা ভেঙে মোট পাঁচটি পুরস্কারের ট্রফি নিয়ে যায় অজ্ঞাতনামারা। বিষয়টি সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর টের পান তিনি। এরপর সেগুলো উদ্ধারের লক্ষ্যে ৫ নভেম্বর বাড্ডা থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। ডায়েরি নম্বর ৩৬১। পুলিশ তার বাসা পরিদর্শন করে উদ্ধারের আশ্বাস দিয়ে যান।

১৯৮৮ সালে মুক্তি পাওয়া দুই জীবন সিনেমার ‘তুমি ছাড়া আমি একা পৃথিবীটা মেঘে ঢাকা’, ১৯৮৯ সালের চেতনা সিনেমায় ‘এই হাত করে নাও হাতিয়ার’ এবং ১৯৯০ সালের দোলনা চলচ্চিত্রের ‘তুমি আমার কত চেনা’ গানগুলোর জন্য পাওয়া জাতীয় পুরস্কারগুলো রয়েছে চুরি যাওয়া ট্রফির তালিকায়।

বাংলা চলচ্চিত্রের অন্যতম সফল এবং খ্যাতিমান গীতিকবি মনিরুজ্জামান মনির। আশির দশকের শেষভাগ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত একটানা গান রচনা করেছেন তিনি। এর মধ্যে জনপ্রিয় কয়েকটি গান হলো, ‘বুকে আছে মন, মনে আছে আশা’, ‘কী জাদু করিলা পিরিতি শিখাইলা’, ‘তুমি যেখানে আমি সেখানে’, ‘আমি একদিন তোমায় না দেখিলে’, ‘কী দিয়া মন কাড়িলা’, ‘তোমাকে চাই আমি আরও কাছে’, ‘জীবনের গল্প আছে বাকি অল্প’, ‘ও আমার বন্ধু গো চির সাথি পথচলার’, ‘আমি চিরকাল প্রেমেরও কাঙাল’।

সিনেমায় তার লেখা সর্বশেষ জনপ্রিয় গান ‘এক বিন্দু ভালোবাসা দাও, আমি এক সিন্ধু হৃদয় দেবো’।

সিনেমা ছাড়াও মনিরুজ্জামানের রয়েছে ‘যে ছিল দৃষ্টির সীমানায়’, ‘নাই টেলিফোন নাইরে পিয়ন’, ‘সূর্যোদয়ে তুমি সূর্যাস্তেও তুমি’র মতো বিখ্যাত সব গান।

মন্তব্য

p
উপরে