× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিনোদন
A 3 day music festival in Shilpakala on the anniversary of Rabirshmi
hear-news
player
google_news print-icon

রবিরশ্মির বর্ষপূর্তিতে শিল্পকলায় ৩ দিনব্যাপী সংগীত উৎসব

রবিরশ্মির-বর্ষপূর্তিতে-শিল্পকলায়-৩-দিনব্যাপী-সংগীত-উৎসব
শিল্পকলা একাডেমিতে ‘রবিরশ্মি’র আয়োজনে সংগীত উৎসবের উদ্বোধনী দিনে গাইছেন শিল্পীরা। ছবি: নিউজবাংলা
বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া অনুষ্ঠান চলবে শনিবার পর্যন্ত। অনুষ্ঠান শুরুর সময় সন্ধ্যা ৬টা।

২৪তম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ‘জোয়ার ভাঁটায় ভুবন দোলে’ শিরোনামে তিন দিনব্যাপী উৎসবের আয়োজন করেছে সংগীত সংগঠন ‘রবিরশ্মি’।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় সংগীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া অনুষ্ঠান চলবে শনিবার পর্যন্ত। অনুষ্ঠান শুরুর সময় সন্ধ্যা ৬টা।

উদ্বোধনী দিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। বিশেষ অতিথি জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক মানবিক দূত ও ওয়ার্ল্ড বুদ্ধিস্ট অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশের সভাপতি লায়ন রিংকু কুমার বড়ুয়া।

অনুষ্ঠানে বরিরশ্মির পক্ষ থেকে শিল্পী শীলা মোমেনকে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

প্রথম দিন

অনুষ্ঠানের প্রথম দিন রূপা চক্রবর্তীর উপস্থাপনায় গীতি আলেখ্য ‘জাগো আমার গান’ শীর্ষক সমবেত সংগীত পরিবেশ করেন ররিরশ্মির শিল্পীরা। নৃত্য পরিবেশন করেন শর্মিলা বন্দোপাধ্যায় পরিচালিত নৃত্য সংগঠন নৃত্য নন্দনের শিল্পীরা।

ওই দিন আরও দুটি সংগঠন দলীয় গান পরিবেশন করে।

শিল্পী মনসুরা বেগম পরিচালিত সংগঠন ‘প্রতীতি’ দুটি গান পরিবেশন করে। শিল্পী স্বাতী সরকারের পরিচালনায় সংগীত সংগঠন ‘সুরের ধারা’ও দুটি গান পরিবেশন করে।

প্রথম দিন একক গান পরিবেশন করেন সংবর্ধিত শিল্পী শীলা মোমেন। এ ছাড়া রবিরশ্মির পক্ষ থেকে একক গান পরিবেশন করেন শিল্পী রুমা সাহা, দিলীপ কুমার দাস, জয়া গাঙ্গুলি, আশরাফুল করিম চৌধুরী আরিফ। অতিথি শিল্পী হিসেবে গান শোনান স্বাতী সরকার, মিজানুর রহমান ও মনসুরা বেগম।

দ্বিতীয় দিন

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিন শাহাদাৎ হোসেন নিপুর উপস্থাপনায় সমবেত সংগীত পরিবেশন করবেন রবিরশ্মির শিল্পীরা। দলীয় গান পরিবেশন করবে শিল্পী সালমা আকবর পরিচালিত সংগীত সংগঠন ‘গীতাঞ্জলি’ এবং শিল্পী শ্রাবণী সাহা টুসি পরিচালিত সংগঠন ‘সুরতীর্থ’।

দুটি গানের সঙ্গে আলাদা আলাদা নৃত্য পরিবেশন করবেন শিল্পী সুলতানা রাজিয়া ও শিল্পী চশ্রী মণ্ডল লোপা।

অনুষ্ঠানে অতিথি শিল্পী হিসেবে গান করবেন বিশিষ্ট রবীন্দ্র সংগীতশিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, সাজেদা আকবর, সালমা আকবর, শ্রাবণী সাহা টুসি, নির্মল কুমার দে, নজিবুল হক নজিব ও রানা সিনহা।

অনুষ্ঠানে রবিরশ্মির পক্ষ থেকে একক সংগীত পরিবেশন করবেন শিল্পী অর্চনা রায়, বনশ্রী পাল, কংকন চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা বিষ্ণুপদ দাস, মিথিলা ঘোষ, সাঈদ মাহমুদ, সাইফুল আলম শুভ, ইফতেখার উদ্দিন, শিউলী ভৌমিক, স্বপন কুমার চক্রবর্তী, এজাজ হোসেন খান, সুকুমার চক্রবর্তী, সুস্মিতা হোসেন, মাহমুদা আপন ও সানজানা বানু ঋসভা।

আবৃত্তি পরিবেশন করবেন বিশিষ্ট বাচিক শিল্পী শাহাদাৎ হোসে নিপু ও মাসুদুজ্জামান।

তৃতীয় দিন

অনুষ্ঠানের তৃতীয় দিন শাশ্বতী মাথিনের উপস্থাপনায় ‘কী হাওয়ায় মাতালো’ শীর্ষক সমবেত সংগীত পরিবেশন করবেন রবিরশ্মির শিল্পীরা। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেবেন অ্যাডভেঞ্চার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান নব বিক্রম ত্রিপুরা। সমবেত সংগীত পরিবেশন করবেন বিশিষ্ট শিল্পী লিলি ইসলাম পরিচালিত সংগীত সংগঠন ‘উত্তরণ’ ও শিল্পী রিতা মজুমদার পরিচালিত সংগঠন ‘বিচিত্রিতা’।

অতিথি শিল্পী হিসেবে সংগীত পরিবেশন করবেন শিল্পী সোহেলা হোসেন, লিলি ইসলাম, অনামিকা ত্রিপুরা, রীতা মজুমদার, রোকাইয়া হাসিনা ও শ্রেয়সী রায়।

রবিরশ্মির পক্ষ থেকে একক সংগীত পরিবেশন করবেন শিল্পী মহাদেব ঘোষ, অরুণা সরকার, সঞ্জীব সরকার, শাশ্বতী মাথিন, মাকসুদা খানম তুলি, শামীমা আরা বেগম, পারমিনা তোড়া দাস, খান মো. রেজাউল করিম, হাসিনা সুলতানা লিরা, মনামী চক্রবর্তী ও আহমেদ মায়া আখতারী।

শিল্পী কবিরুল ইসলাম রতনের পরিচালনায় নৃত্য পরিবেশন করবে নৃত্যলোক কালচারাল সেন্টার। এস. এইচ. লিমন ও সাইফুর রহমান জুয়েলের পরিচালনায় নৃত্যে থাকবে বুলবুল ললিতকলা একাডেমি। অনুষ্ঠানটির সার্বিক পরিচালনায় থাকবেন রবিরশ্মির পরিচালক শিল্পী মহাদেব ঘোষ।

আরও পড়ুন:
রবীন্দ্রসংগীতে মাতালেন আফ্রিকান দিয়াতা
উর্দু সিরিয়াল, বাঙালির গান, মারাঠি গায়িকা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিনোদন
Hasan Rajas centenary death anniversary ​​No event

হাসন রাজার শততম মৃত্যুবার্ষিকী: নেই আয়োজন‍‍

হাসন রাজার শততম মৃত্যুবার্ষিকী: নেই আয়োজন‍‍ আজ হাসন রাজার শততম মৃত্যুবার্ষিকী। ছবি: সংগৃহীত
সুনামগঞ্জের লক্ষ্মণশ্রী পরগনায় ১৮৫৪ সালের ২১ ডিসেম্বর জন্ম নেয়া হাসন রাজা ১৯২২ খ্রিস্টাব্দের ৬ ডিসেম্বর মারা যান। হাসন রাজার শততম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাকে পারিবারিক ও প্রশাসনিকভাবে স্মরণের কোনো উদ্যোগ নেই।

জীবন ও জগতের নিগূঢ় তত্ত্বকে আঞ্চলিক শব্দের দ্যোতনায় সহজিয়া ভাষায় প্রকাশ করে অমর হয়ে আছেন মরমী সংগীত মহাজন দেওয়ান হাসন রাজা চৌধুরী। আভিজাত্যের গৈরিক পোশাকের সঙ্গে পৈতৃক নাম দেওয়ান হাসন রাজা চৌধুরী বদলে দিয়ে কেবল ‘হাসন রাজা’ নামেই তিনি সংগীতে মহান হয়ে আছেন। জমিদারি বাদ দিয়ে বৈরাগ্যের বেশে এ নাম নিয়েই সংগীত সাধনা করেছেন আমৃত্যু। তার রচিত গানের সংখ্যা প্রায় হাজারের অধিক।

আজ এই মরমী মহাজনের শততম মৃত্যুবার্ষিকী। সুনামগঞ্জের লক্ষণশ্রী পরগনায় ১৮৫৪ সালের ২১ ডিসেম্বর জন্ম নেয়া হাসন রাজা ১৯২২ খ্রিস্টাব্দের ৬ ডিসেম্বর মারা যান। হাসন রাজার শততম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাকে পারিবারিক ও প্রশাসনিকভাবে স্মরণের কোনো উদ্যোগ নেই। বরং তার শততম মৃত্যুবার্ষিকীর বছরে তিলে তিলে গড়ে ওঠা পারিবারিক মিউজিয়ামটিও স্বজনদের দ্বন্দ্বে চিরতরে বন্ধ হয়ে গেছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সংস্কৃতিকর্মীসহ হাসন রাজার গানের অনুরাগীরা। বিশেষ করে তার প্রতি পরিবারের উদাসীনতায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকে। এ ছাড়া যেসব শিল্পী তার গান গেয়ে পরিচিতি পেয়েছেন, তার শততম মৃত্যুবার্ষিকীতে তাদের নীরবতায়ও অনেকে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

হাসন রাজার সংগীতানুরাগী ও গবেষকরা জানান, হাসন রাজার বাবা দেওয়ান আলী রাজা চৌধুরী সিলেটের রামপাশা থেকে সুনামগঞ্জের লক্ষণশ্রীতে এসে বসবাস শুরু করেন। এখানেই হুরমত জাহান চৌধুরীর গর্ভে জন্ম নেন হাসন রাজা চৌধুরী। তার কবিত্ব লক্ষণশ্রীর পরিবেশেই বিকশিত হয়। ঘোড়া, কোড়া পাখি, নৌকায় হাসন রাজা বজরা ভাসিয়ে আনন্দে মাততেন। সৃষ্টির উন্মাদনায় বিভোর থাকতেন। কোড়া পাখি শিকার ছিল তার নেশা। বিষয়াসক্তহীন হাসন রাজা বৈরাগ্যের বেশে থাকতেই পছন্দ করতেন এবং এই পরিবেশেই সংগীত রচনা করতেন।

জেলার একাধিক গবেষকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর মরমী কবি হাসন রাজাকে বলেছেন ‘গ্রাম্যকবি’ ও ‘সাধক কবি’। ১৯২৫ সালে কংগ্রেসের সভায় এবং পরবর্তী সময়ে ১৯৩০ সালে লন্ডনে হিবার্ট বক্তৃতায় হাসন রাজার গানে মানবদর্শন নিয়ে আলোচনা করেন রবীন্দ্রনাথ। ওই বক্তব্যে তিনি বলেছিলেন, ‘পূর্ববঙ্গের এক গ্রাম্য কবির গানে দর্শনের একটি বড় তত্ত্ব পাই। সেটি এই যে, ব্যক্তিস্বরূপের সহিত সম্বন্ধ সূত্রেই বিশ্বসত্য।’

জমিদার হয়েও বিষয়-আশয়ের প্রতি নিরাসক্ত হাসন রাজা গানে গানে মানবতাবাদের কথা বলেছেন। জীবনের কামনা, বাসনা এবং জগৎসৌন্দর্য ও জিজ্ঞাসার বর্ণনা রয়েছে তার গানে। তার গানে তুমুল আত্মজিজ্ঞাসা বিদ্যমান। সামাজিক অসঙ্গতি, ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধেও তার বাণী শাণিত হয়েছে। সব ধর্মের সমন্বয়ের কথা রয়েছে তার গানের ছত্রে। এখনো তার গানগুলো প্রাসঙ্গিক ও জনপ্রিয়। জাতীয়, স্থানীয় ও আন্তর্জাতিকভাবেও বাঙালিরা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তার গান পরিবেশন করেন থাকেন। তা ছাড়া অবিভক্ত ভারতের গোহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ে একসময় হাসন রাজার গান পাঠ্য ছিল।

মরমী কবি হাসনরাজাকে নিয়ে সর্ব প্রথম মুরারি চাঁদ কলেজ (এমসি কলেজ) বার্ষিকীতে এই অঞ্চলের আরেক প্রতিভাধর ব্যক্তি প্রভাত কুমার শর্মা আলোচনা করেন। ‘হাছন উদাস’ গ্রন্থের দ্বিতীয় সংস্করণেও ভূমিকা লেখেন তিনি। হাসন রাজার গান শান্তিনিকেতনে নিজে গিয়ে রবীন্দ্রনাথের হাতে তুলে দিয়েছিলেন প্রভাত কুমার শর্মা। হাসন রাজার বৈশ্বিক পরিচিতি ও সৃষ্টি সারা বিশ্বে পৌঁছে দিতে দূতের কাজ করেছিলেন তিনি। পরে নিখিল ভারতের বিখ্যাত সংগীত মহাজন নির্মলেন্দু চৌধুরী হাসন রাজার গান পরিবেশন করেন। তারপর দুই বঙ্গের বিখ্যাত সংগীত মহাজনরা হাসন রাজার গান পরিবেশন করেন।

সুনামগঞ্জে প্রয়াত সাহিত্যিক আব্দুল হাই হাসন রাজাকে নিয়ে গত শতাব্দীতে লিখেছেন। সংগীতশিল্পী আব্দুল লতিফ ও সাব্বির আহমদ মিনুসহ স্থানীয় শিল্পীরা হাসন রাজার গান গেয়ে খ্যাতি পেয়েছেন। অমর কথাকার ও নাট্যকার হুমায়ূন আহমেদ তার একাধিক নাটকে হাসন রাজার গান ব্যবহার করেন। আশির দশক থেকে বিখ্যাত শিল্পী সেলিম চৌধুরী হাসন রাজার গান গেয়ে জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। এখনো এই প্রজন্মের অনেক শিল্পী হাসন রাজার গান গেয়ে নিজেদের পরিচিতি পেয়েছেন। কিন্তু হাসন রাজার গানের দর্শন ছড়িয়ে দিতে নীরব বলে মনে করেন অনেকে।

হাসন রাজার সৃষ্টি ও স্মৃতিকে ধরে রাখতে তার প্রপৌত্র দেওয়ান সামারিন রাজা চৌধুরী পারিবারিক মিউজিয়ামটিকে সমৃদ্ধ করায় হাত দেন এক দশক আগে। হাসন রাজার সৃষ্টি ও স্মৃতি তিনি জড়ো করেন। এতে দেশ-বিদেশের গুণীজনরা এসে মিউজিয়াম দেখে হাসন রাজার সৃষ্টির সান্নিধ্য লাভ করেন।

চলতি বছরের জুন মাসে পারিবারিক বিবাদের কারণে হাসন রাজার বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে সেই মিউজিয়াম। যার ফলে এখন দেশ-বিদেশ থেকে আগত সুধীজন মিউজিয়াম থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। তারা হাসন রাজার স্মৃতি দর্শন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এ ছাড়া হাসন রাজা একাডেমি কাম শিল্পকলা একাডেমি নামে ২০০৮ সালে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় একটি ভবনের নামকরণ করলেও পরবর্তী সময়ে হাসন রাজা একাডেমি বাদ দিয়ে শুধু শিল্পকলা একাডেমি নামে প্রতিষ্ঠানটি গড়ে তোলা হয়। এর মিলনায়তনের নামকরণ করা হয় হাসন রাজা মিলনায়তন।

হাসন রাজার প্রপৌত্র ও হাসন রাজা মিউজিয়ামের পরিচালক দেওয়ান সামারিন রাজা চৌধুরী বলেন, অনেক কষ্ট করে মিউজিয়ামটি সমৃদ্ধ করেছিলাম। কিন্তু হাসন রাজার বিশাল জমিদারির মধ্যে সেই মিউজিয়ামের জায়গা হয়নি। তার স্মৃতি ও সৃষ্টিকে আমাদের স্বজনরাই উপেক্ষা করছেন। তিলে তিলে গড়ে তোলা মিউজিয়ামটি উচ্ছেদ করে দিয়েছেন। এ ছাড়া সরকার হাসন রাজা একাডেমি নামে ভবন অনুমোদন দিলেও সেটিও প্রতিহিংসাবশত বাদ দিয়ে শিল্পকলা একাডেমি ভবন নামে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এভাবে এখনো হাসন রাজার প্রতি উদাসীনতা দেখা যায়। অথচ তার গান বাংলার সীমানা ছাড়িয়ে বৈশ্বিক হয়ে উঠেছে বহু আগেই।

গবেষক ইকবাল কাগজী বলেন, হাসন রাজা যুগসচেতন মরমী সাধক ছিলেন। সামাজিক ও ধর্মীয় অসঙ্গতির বিরুদ্ধে তিনি সব ধর্মের মিলনের গান গেয়েছেন। তার সেসব গান বাদ দিয়ে শিল্পীরা শুধু জনপ্রিয় কিছু গান পরিবেশন করেন। তার গানে মানবতাবাদের যে অমর সুর রয়েছে, সেটি ছড়িয়ে দিতে পারলে আমাদের প্রজন্ম উপকৃত হবে। তাই এই কাজ হাসন রাজার গানের শিল্পীরা করতে পারেন। কিন্তু শিল্পীরা নীরব।

অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ও বিশিষ্ট লেখক সৈয়দ মহিবুল ইসলাম বলেন, তার স্বজনরা হাসন রাজার পরিচয় দেন গর্ব ভরে। কিন্তু হাসন রাজার সৃষ্টি, জীবনদর্শন ও স্মৃতির সঙ্গে মানুষের পরিচিত করিয়ে দিতে উদাসীন তারা। তিনি হাসন গবেষক ও শিল্পীদের হাসন রাজাকে নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার আহ্বান জানান।

সুনামগঞ্জ জেলা কালচারাল অফিসার আহমেদ মঞ্জুরুল হক চৌধুরী পাভেল বলেন, হাসন রাজার মৃত্যু দিবসে এবার কোনো কর্মসূচি নেই। আমি ঢাকায় অফিসের কাজে থাকায় কোনো কর্মসূচি হচ্ছে না। তবে হাসন রাজার সম্মানে জেলা শিল্পকলা ভবনের একটি কক্ষের নামকরণ এবং শিল্পকলা একাডেমির প্রবেশপথে আমরা তার ভাস্কর্য গড়েছি।

আরও পড়ুন:
হাসন রাজারে বাউলা কে বানাইলো রে...
হাসন রাজার গান চর্চার আয়োজন করবেন মাহফুজুর রহমান

মন্তব্য

বিনোদন
Zubin was seriously injured in the accident and was admitted to Natial Hospital

দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত জুবিন নটিয়াল, হাসপাতালে ভর্তি

দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত জুবিন নটিয়াল, হাসপাতালে ভর্তি বলিউডের তুমুল জনপ্রিয় গায়ক জুবিন নটিয়াল। ছবি: সংগৃহীত
জুবিনকে মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আপাতত তাকে ডান হাত নড়াচড়া না করানোর পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন বলিউডের তুমুল জনপ্রিয় গায়ক জুবিন নটিয়াল।

একটি ভবনের সিড়ি থেকে পড়ে তার হাতের কনুই ভেঙে গেছে, পাঁজর ও মাথায় আঘাত পেয়েছেন তিনি।

সূত্রের বরাত দিয়ে ইন্ডিয়া টিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ভোরে এই দুর্ঘটনার সম্মুখীন হন জুবিন। তাকে মুম্বাইয়ের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আপাতত তাকে ডান হাত নড়াচড়া না করানোর পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

এদিকে গত সপ্তাহে দুবাইয়ে একটি লাইভ কনসার্টে পারফর্ম করেছিলেন জুবিন।

আরও পড়ুন:
বিয়ে করছেন জুবিন, পাত্রী কে এই নিকিতা

মন্তব্য

বিনোদন
Concert for female audience

নারী দর্শক-শ্রোতাদের জন্য কনসার্ট

নারী দর্শক-শ্রোতাদের জন্য কনসার্ট ফিমেল অনলি কনসার্টে গাইবেন দেশের জনপ্রিয় শিল্পীরা। ছবি: সংগৃহীত
কনসার্টে পারফর্ম করবেন তাহসান খান, প্রীতম হাসান, সন্ধি, হাসিব, আনিকা ও ব্যান্ড নেমেসিস। পাশাপাশি আরও থাকছে ফ্যাশন শো। যেখানে ৩০ জনেরও বেশি মডেল পারফর্ম করবেন।

দেশের বিউটি অ্যান্ড পারসোনাল কেয়ার ই-কমার্স সাজগোজ আয়োজন করছে ফিমেল ফেস্ট। দুই দিনব্যাপী এ ফেস্ট শুরু হয়েছে বৃহস্পতিবার।

ইন্টরন্যাশনাল কনভেনশন সেন্টার বসুন্ধরার হল ৪ এ আয়োজিত এ অনুষ্ঠানের প্রথম দিন ছিল দেশি-বিদেশি নমকরা ব্র্যান্ডের পণ্য প্রদর্শনী।

আকর্ষণীয় আয়োজনটি হতে যাচ্ছে শুক্রবার। এদিন সকাল থেকেই থাকছে নানা আয়োজন। আয়োজকরা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছেন, শুক্রবার সকাল ১০টা থেকেই গেট খোলা থাকবে আয়োজনের।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, শুক্রবার সন্ধ্যায় ফিমেল ওনলি কনসার্টের আয়োজন থাকছে, যেখানে ৫ হাজার নারী অতিথি (সাজগোজের কাস্টোমার) উপস্থিত থাকবেন।

কনসার্টে পারফর্ম করবেন তাহসান খান, প্রীতম হাসান, সন্ধি, হাসিব, আনিকা ও ব্যান্ড নেমেসিস। পাশাপাশি আরও থাকছে ফ্যাশন শো। যেখানে ৩০ জনেরও বেশি মডেল পারফর্ম করবেন।

নারীদের জন্য আয়োজনে তাহসান, প্রীতম বা নেমেসিস কেন, জানতে চাইলে সাজগোজের হেড অফ বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ফারহানা প্রীতি বলেন, ‘মূলত সাজগোজের গ্রাহকদের পছন্দের কথা মাথায় রেখেই এ আয়োজন সাজানো হয়েছে। মেয়েরা নিজেদের মতো করে আনন্দে উল্লাসে পছন্দের শিল্পীর গান যেন শুনতে পারেন এটাই আমাদের উদ্দেশ্য।’

সাজগোজ তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে জানিয়েছে, কনসার্টের এন্ট্রি পাস ই-মেইল করা হয়েছে। সবাইকে এন্ট্রি পাস এর প্রিন্টেড কপি সঙ্গে আনার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। এন্ট্রি পাস ছাড়া আমাদের পক্ষে কাউকে মেইন ভেন্যুতে প্রবেশ করানো সম্ভব হবে না।

সাজগোজের সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং সিসিও সিনথিয়া শারমিন ইসলাম বলেন, ‘আমরা চাই আমাদের সম্মানিত ফিমেল কাস্টমাররা যেন স্বাচ্ছন্দ্যে নিজেদের মতো করে দারুণ এই ফেস্টটি উপভোগ করতে পারে। অনেক নারীর জীবনে এটা হয়তো প্রথম কনসার্ট, আমরা এই দারুণ ঘটনাটির সাক্ষী হয়ে থাকতে চাই।’

আরও পড়ুন:
‘ব্যান্ড মিউজিক ডে’র উদ্বোধন, শুক্রবার বড় কনসার্ট
আইয়ুব বাচ্চুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে ‘বামবা-চ্যানেল আই’ কনসার্ট
দেশসেরা ব্যান্ড নিয়ে বামবা’র কনসার্ট ডিসেম্বরে
নভেম্বর রেইন কনসার্ট ১২ তারিখে
২৩ সেপ্টেম্বর আসছে ‘নদী রক্স কনসার্ট’

মন্তব্য

বিনোদন
The band music was inaugurated with a big concert on Friday

‘ব্যান্ড মিউজিক ডে’র উদ্বোধন, শুক্রবার বড় কনসার্ট

‘ব্যান্ড মিউজিক ডে’র উদ্বোধন, শুক্রবার বড় কনসার্ট ব্যান্ড মিউজিক ডের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে দেশেন ব্যান্ড মিউজিশিয়ানরা। ছবি: সংগৃহীত
চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর জানান, ভবিষ্যতে এ স্বপ্ন আরও বড় হবে। বামবার সভাপতি হামিন আহমেদ বলেন, 'আইয়ুব বাচ্চু নেই, ওনার স্বপ্ন আছে। তার সেই স্বপ্নটিকে আরও বৃহৎ পরিসরে আমরা নিয়ে যেতে চলেছি কাল শুক্রবার আর্মি স্টেডিয়ামে।'

বিজয়ের মাসের প্রথম দিনকে ব্যান্ড মিউজিক ডে হিসেবে পালন ও উদযাপন করার সিদ্ধান্ত নিয়ছে বাংলাদেশ ব্যান্ড মিউজিক অ্যাসোসিয়েশন (বামবা) ও চ্যানেল আই।

প্রায় ৯ বছর আগে দেশের ব্যান্ড লেজেন্ড প্রয়াত আইয়ুব বাচ্চুর পরিকল্পনায় চ্যানেল আই প্রঙ্গণে শুরু হয় ব্যান্ড ফেস্ট। সেটি এখনও চলছে। আয়োজনটি হয় ১ ডিসেম্বর।

আইয়ুব বাচ্চু এখন আর নেই, কিন্তু তার প্রেরণা, সাহস রয়ে গছে। তার প্রতি সম্মান জানাতে ১ ডিসেম্বরকে ব্যান্ড মিউজিক ডে হিসেবে পালন করতে চান আইয়ুব বাচ্চুর সহকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার সকালে চ্যানেল আই প্রাঙ্গণে উদ্বোধন করা হয় ব্যান্ড মিউজিক ডের। আয়োজনটি উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ ও চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর। উপস্থিত ছিলেন বামবার সদস্যরা।

চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর জানান, ভবিষ্যতে এ স্বপ্ন আরও বড় হবে। বামবার সভাপতি হামিন আহমেদ বলেন, 'আইয়ুব বাচ্চু নেই, ওনার স্বপ্ন আছে। তার সেই স্বপ্নটিকে আরও বৃহৎ পরিসরে আমরা নিয়ে যেতে চলেছি কাল শুক্রবার আর্মি স্টেডিয়ামে।’

আবেগজড়িত কণ্ঠে আইয়ুব বাচ্চুর স্ত্রী বলেন, ‘বাচ্চুর স্বপ্ন ছিল এই ব্যান্ড ফেস্টটিকে বড় পরিসরে করার জন্য। আজ বাচ্চু নেই, তবে বাচ্চুর কাজটা তার সঙ্গীরা এতদূর নিয়ে এসেছে, আর্মি স্টেডিয়াম পর্যন্ত। সে জন্য তার সহশিল্পীদের সালাম জানাই।’

গান বাংলা টেলিভিশনের প্রধান নির্বাহী কৌশিক হোসেন তাপস বলেন, ‘আয়োজকরা যদি আমাদের রাখে, তাহলে যতদিন ব্যান্ড ফেস্ট হবে, ততদিন গান বাংলা থাকবে।’

আলোচনা শেষে শুরু হয় সংগীত পরিবেশন পর্ব। প্রথমেই আইয়ুব বাচ্চু স্মরণে গাওয়া হয়, ‘সেই তুমি’। গান শেষে ‘লাল সবুজ বেলুন উড়িয়ে ব্যান্ড ফেস্টের উদ্বোধন করা হয়।

আয়োজন থেকে আরেকটি বিষয়ে নেয়া হয়েছে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত। ডিসেম্বরের প্রথম শুক্রবার হবে বড় কনসার্ট। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) বড় পরিসরে কনসার্ট হতে যাচ্ছে রাজধানীর আর্মি স্টেডিয়ামে। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করবে ব্র্যান্ডমিথ কমিউনিকেশন।

আয়োজকরা জানান, দেশের সবচেয়ে বড় কনসার্ট উপভোগ করতে প্রবেশে মূল্য রাখা হয়েছে ৫০০ টাকা। আগ্রহীরা www.getsetrock.com-এর ওয়েবসাইটে লগইন করে টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। ‘উল্লাসে, উচ্ছ্বাসে, তারুণ্যে’ স্লোগানে অনুষ্ঠিত হওয়া কনসার্টে অংশ নেবে ১৬টি ব্যান্ড।

ব্যান্ডগুলো হলো নগর বাউল, মাইলস, ওয়ারফেইজ, সোলস, রেঁনেসা, ফিডব্যাক, অর্থহীন, মাকসুদ ও ঢাকা, অবসকিউর, দলছুট, আর্টসেল, শিরোনামহীন, ভাইকিং, ক্রিপটিক, ফেইট, পেন্টাগন এবং পাওয়ারসার্জ।

আরও পড়ুন:
একসঙ্গে ফিরবে বিটিএস?
ধোবাউড়ায় নকল ব্যান্ডরোলযুক্ত বিড়ি জব্দ
জেমস-হাসান-টুটুলের কনসার্ট বাতিল
বছর শেষে ঢাকা রক ফেস্ট ২.০
যুক্তরাষ্ট্রে কনসার্টে পদদলিত হয়ে নিহত ৮

মন্তব্য

বিনোদন
After 15 years the band is returning to the concert in Dhaka

১৫ বছর পূর্তিতে ঢাকায় কনসার্টে ফিরছে ব্যান্ড শূন্য

১৫ বছর পূর্তিতে ঢাকায় কনসার্টে ফিরছে ব্যান্ড শূন্য সংবাদ সম্মেলনে ব্যান্ড শূন্য ও অতিথিরা। ছবি: সংগৃহীত
ব্যান্ড শূন্য তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে বুধবার জানিয়েছে, প্রায় ৩ বছর পর তারা ঢাকায় কনসার্টে ফিরছে।

১৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে নতুন বছরে কনসার্টে ফিরছে ব্যান্ড শূন্য। ‘ফিফটিন ইয়ারস অব শূন্য’ শিরোনামের কনসার্টটি হবে ২৬ জানুয়ারি। ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরা, হল-৪-এ সন্ধ্যা ৬টায় হবে এই আয়োজন।

কনসার্টে শূন্য ব্যান্ড ছাড়াও মঞ্চে থাকবে আর‌ও নামকরা ব্যান্ডদল। এটি আয়োজন করছে ড্রিমকাস্ট মার্কেটিং অ্যান্ড কমিউনিকেশন।

আয়োজন সম্পর্কে জানাতে ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয় প্রেস কনফারেন্স। এতে উপস্থিত ছিলেন শূন্য ব্যান্ডের ড্রামার রাফাতুল বারি লাবিব, গিটারিস্ট ইশ্মামুল ফরহাদ এলিন। কনসার্টের পিআর পার্টনার হিসেবে আছেন স্টোরিটেলার পিআর।

ব্যান্ড শূন্য তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে বুধবার জানিয়েছে, প্রায় তিন বছর পর তারা ঢাকায় কনসার্টে ফিরছে।

ব্যান্ডটি লিখেছে, ‘আমাদের ১৫ বছরের লম্বা সফর এবং স্মৃতি আপনাদের সঙ্গে শেয়ার করতে চাই। সঙ্গে থাকবে আমাদের দেশের কিছু অসাধারণ সংগীতশিল্পী। দেশের স্বনামধন্য কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে বেশ কিছু পরিকল্পনা করা হয়েছে।’

কনসার্টের বিস্তারিত তথ্য শূন্য ব্যান্ডের অফিশিয়াল পেইজের মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে বলে জানিয়েছে ব্যান্ডটি।

আরও পড়ুন:
জেমস-হাসান-টুটুলের কনসার্ট বাতিল
বছর শেষে ঢাকা রক ফেস্ট ২.০
বাংলাদেশ থেকে ব্যান্ডউইডথ ও ট্রেইনার নেবে ভুটান
আসছে ব্যান্ড অ্যাডভার্ব এর নতুন গান
ব্যান্ড কাকতাল: জেলখানায় জন্ম যার

মন্তব্য

বিনোদন
Serakantha season 7 starts in December

ডিসেম্বরে শুরু হচ্ছে ‘সেরাকণ্ঠ’ সিজন-৭

ডিসেম্বরে শুরু হচ্ছে ‘সেরাকণ্ঠ’ সিজন-৭ সেরাকণ্ঠের দুই বিচারক রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা (বাঁয়ে) এবং রুনা লায়লা। ছবি: সংগৃহীত
৯ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে রিয়েলিটি শো’টির বিভাগীয় পর্যায়ে প্রাথমিক অডিশন রাউন্ড। এবার কোনো বয়স লিমিট থাকছে না আয়োজনে। ছোট থেকে বড়, সবাই অংশ নিতে পারবেন অডিশনে।

শুরু হচ্ছে সংগীত নিয়ে প্রতিযোগিতামূলক রিয়েলিটি শো সেরাকণ্ঠ। সপ্তমবারের মতো এটি আয়োজন করছে চ্যানেল আই এবং শো’টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক ঐক্য ডটকম ডট বিডি।

৯ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে রিয়েলিটি শো’টির বিভাগীয় পর্যায়ে প্রাথমিক অডিশন রাউন্ড। এবার কোনো বয়স লিমিট থাকছে না আয়োজনে। ছোট থেকে বড়, সবাই অংশ নিতে পারবেন অডিশনে। পাশাপাশি নর্থ আমেরিকাতেও হবে রিয়েলিটি শো’টির অডিশন রাউন্ড।

মঙ্গলবার দুপুরে চ্যানেলটির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানানো হয়।

সেখানে আরও জানানো হয়, বিচারক প্যানেলে থাকছেন তিন গুণী শিল্পী রুনা লায়লা, রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা ও সামিনা চৌধুরী।

কবে, কোথায়, কোন আয়োজনটি হবে, সেগুলো জানানো হবে চ্যানেল আইয়ের পর্দায়। বিভাগীয় পর্যায়ে অডিশন শেষে যখন গ্র্যান্ড অডিশন শুরু হবে, তখন প্রতিযোগীদের মূল্যায়ন করবেন রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা এবং সামিনা চৌধুরী।

সেরা ১৬ নির্বাচিত হওয়ার পর বিচারক হিসেবে যুক্ত হবেন রুনা লায়না। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, আয়োজনটি নিয়ে ৪০টি পর্ব নির্মাণ করবে চ্যানেলটি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চ্যানেল আইর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, সভাপতি উদ্যোক্তা উন্নয়ন উইং ঐক্য ফাউন্ডেশন মিসেস শাহীন আকতার রেনী, দুই বিচারক রুনা লায়লা ও রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা।

আরও উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ইকবাল সোবহান চৌধুরী। আরেক বিচারক সামিনা চৌধুরী বিশেষ কাজে ব্যস্ত থাকায় সংবাদ সম্মেলনে আসতে পারেননি।

সংবাদ সম্মেলনে ফরিদুর রেজা সাগর বলেন, ‘বিরতির পর অনেক অনেক চমক নিয়ে আসছে সেরাকণ্ঠ। এর সঙ্গে যারা যুক্ত তাদের প্রতি জানাই আন্তরিক অভিনন্দন এবং যারা আগামী সেরাকণ্ঠের এই প্ল্যাটফর্মে যুক্ত হবে তাদের জন্যও আগাম অভিনন্দন।’

শাহীন আকতার রেনী বলেন, ‘এই ধরনের একটি বৃহত্তর অনুষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে আমরা ঐক্য ফাউন্ডেশন নিজেদের অনেক বেশি সম্মানিত মনে করছি। আশা করছি আমাদের এ বন্ধন আরও দৃঢ় হবে।’

রুনা লায়লা বলেন, ‘যারা এই অনুষ্ঠানে প্রতিযোগী হিসেবে অংশগ্রহণ করতে চায় তাদের অবশ্যই ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়ে আসতে হবে। আশা করি এবারের সেরাকণ্ঠটি হবে বেশ চমকপ্রদ।’

রেজওয়ানা চৌধুরী বলেন, ‘সেরাকণ্ঠের এই অনুষ্ঠানটির মাধ্যমে যারা এবার বেরিয়ে আসবে আশা করছি তারা হবে দেশসেরা শিল্পী। এই অনুষ্ঠানের বিচারক প্যানেলে আমার নাম থাকায় আমি সম্মানিত বোধ করছি।’

ঐক্য ডটকম ডট বিডি-চ্যানেল আই সেরাকণ্ঠ সিজন-৭-এর প্রকল্প পরিচালক ইজাজ খান স্বপন। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনা করবেন মারিয়া নূর।

মন্তব্য

বিনোদন
This time Hero Alam will entertain Brazil fans

এবার ব্রাজিল-ভক্তদের মাতাবেন হিরো আলম

এবার ব্রাজিল-ভক্তদের মাতাবেন হিরো আলম মেসির পর এবার নেইমারকে নিয়ে গান গাইলেন হিরো আলম। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
হিরো আলম নিউজবাংলাকে বলেন, “আর্জেন্টিনা-মেসিকে নিয়ে গান প্রকাশের পর অনেক অনুরোধ এসেছিল, ‘ভাই ব্রাজিলের জন্য একটা গান করেন।’ তখনই কথা দিয়েছিলাম, তাদেরকে নিয়েও একটা গান করব। সেই গানের রেকর্ডিং শেষ হয়েছে। আজকে বিকেলে বা সন্ধ্যার দিকে ছাড়ব।”

ফুটবল বিশ্বকাপ ঘিরে এ দেশের দর্শকদের উন্মাদনার অন্ত নেই। ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ভক্তদের মধ্যে এ উন্মাদনা সবচেয়ে বেশি।

বাড়িঘর, দোকানপাটে পছন্দের দলের পতাকার রং করানো, ছাদে-রাস্তাঘাটে পতাকা টাঙানোসহ অনেক কিছু করছেন সমর্থকরা।

সেই উন্মাদনার পারদ আরেকটু বাড়াতে কয়েক দিন আগে আর্জেন্টাইন ভক্তদের জন্য গান করেছিলেন আলোচিত কনটেন্ট ক্রিয়েটর হিরো আলম। শনিবার রাতে আর্জেন্টিনা-মেক্সিকো ম্যাচের আগেও ‘উই লাভ ইউ মেসি’ শিরোনামে আরেকটি গান প্রকাশ করেন তিনি।

এবার ব্রাজিল-ভক্তদের জন্য গান নিয়ে আসছেন আর্জেন্টাইন সমর্থক হিরো আলম। আরবি, ইংরেজি ও বাংলা মিলিয়ে গাওয়া সেই গানটির শিরোনাম ‘উই লাভ ইউ নেইমার’।

এ নিয়ে রোববার দুপুরে নিউজবাংলাকে হিরো আলম বলেন, ‘আর্জেন্টিনা-মেসিকে নিয়ে গান প্রকাশের পর অনেক অনুরোধ এসেছিল, ‘ভাই ব্রাজিলের জন্য একটা গান করেন।’ তখনই কথা দিয়েছিলাম তাদেরকে নিয়েও একটা গান করব। সেই গানের রেকর্ডিং শেষ হয়েছে, আজকে বিকেলে বা সন্ধ্যার দিকে ছাড়ব।”

‘উই লাভ ইউ নেইমার’ গানটি তিন ভাষায় গাওয়ার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন হিরো আলম।

তিনি বলেন, ‘যেহেতু কাতারে হচ্ছে, ইন্টারন্যাশনাল ব্যাপার। আর আমরা তো বাঙালি। এইসব ভেবে করেছি আর কী।’

কাতারের লুসাইল আইকনিক স্টেডিয়ামে শনিবার রাতে মেক্সিকোকে হারিয়ে ফিফা বিশ্বকাপের এবারের আসরে প্রথম জয় পেয়েছে আর্জেন্টিনা।

সোমবার রাত ১০টায় সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে এই আসরের দ্বিতীয় ম্যাচ খেলবে ব্রাজিল।

আরও পড়ুন:
রবীন্দ্রসংগীত না গাইতে হিরো আলমের মুচলেকা
হিরো আলমকে আইনি নোটিশ
সাড়ে ৪ লাখে ‘হিরো আলমের’ কোরবানি
রবীন্দ্রসংগীত গেয়ে অনুতপ্ত হিরো আলম চান ক্ষমা
হিরো আলম ও ভুবন বাদ্যকরের ‘হাউ ফানি’

মন্তব্য

p
উপরে