× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বিনোদন
Sayantan was praised for making a series about marital rape
hear-news
player
print-icon

বৈবাহিক ধর্ষণ নিয়ে সিরিজ বানিয়ে প্রশংসিত সায়ন্তন

বৈবাহিক-ধর্ষণ-নিয়ে-সিরিজ-বানিয়ে-প্রশংসিত-সায়ন্তন
সম্পূর্ণা সিরিজের পোস্টারে রাজনন্দিনী পাল ও সোহিনী। ছবি: সংগৃহীত
৬ পর্বের সিরেজে বের হয়ে আসে সমাজের ভদ্র-নম্র একটি চরিত্রের ভেতরের চেহারা। স্বরলিপি লেখেন, ‘সিরেজে ক্লাইম্যাক্সের জন্য টানটান অপেক্ষা নেই। শেষটাও হয়তো সামান্য প্রেডিক্টেবল। কিন্তু তবুও এই ওয়েব সিরিজ শেষ পর্যন্ত দেখতে ইচ্ছে করবে।’

বিয়ে সব খানে, সব মানুষেরই জীবনে আনন্দের একটি বিষয়। এই আনন্দের বহিঃপ্রকাশে দেখা যায় নজরকাড়া আয়োজন। কিন্তু সেই আনন্দের পর অনেক সময় কষ্ট এসে হানা দেয় সংসারে।

সংসারে স্বামী-স্ত্রীর জীবনে নানা সমস্যা আসে, সেগুলো উতরে ওঠেন অনেকে। তবে কিছু সমস্যা থেকে যায় না বলা। সেগুলোরই একটি বৈবাহিক ধর্ষণ। আর এই ধর্ষণ ঘটনার ধর্ষক প্রায় সব সময় পুরুষ।

বিয়ের পর স্ত্রীর শরীর যেন পুরোপুরি স্বামীর- এমন ধারণায় ঘটতে থাকে বৈবাহিক ধর্ষণ। এমন ঘটনা নিয়ে ওয়েব সিরিজ নির্মাণ করেছেন নির্মাতা সায়ন্তন ঘোষাল।

হইচইতে প্রকাশ পাওয়া সিরিজটির নাম সম্পূর্ণা। এটি নির্মাণ করে প্রশংসা পাচ্ছেন নির্মাতা। কলকাতার সংবাদমাধ্যমে এ নিয়ে লিখছেন অনেকেই।

সিরিজটিতে একটি পরিবারকে দেখান হয়েছে, যেখানে বৈবাহিক ধর্ষণের শিকার বাড়ির ছোট বউয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন রাজনন্দিনী পাল। রাজনন্দিনী পালের স্বামী রুকু বা রক্তিমের চরিত্রে অভিনয় করেছেন অনুভব কাঞ্জিলাল। প্রায় প্রতি রাতেই রাজনন্দিনীকে শারীরিক নির্যাতন করেন অনুভব।

সব জেনে চুপ করে থাকেন রাজনন্দিনীর ভাসুর; এ চরিত্রের অভিনেতা প্রান্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়। শাশুড়ি চরিত্রে লাবণী সরকার, শ্বশুর রজত গঙ্গোপাধ্যায় এবং বাড়ির বড় বউয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন সোহিনী।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, সিরিজে কী ঘটতে যাচ্ছে তা আগে থেকেই বোঝা যাচ্ছিল। সেই অর্থে সিরিজটি হয়ে উঠেছে প্রেডিক্টেবল। কিন্তু সায়ন্তন যে বিষয়টি নির্বাচন করেছেন, সেটি খুবই সময়োপযোগী।

বৈবাহিক ধর্ষণ নিয়ে সিরিজ বানিয়ে প্রশংসিত সায়ন্তন
নির্মাতা সায়ন্তন ঘোষাল। ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিনে প্রকাশিত সম্পূর্ণা সিরিজের রিভিউয়ে আকাশ মিশ্র লিখেছেন, ‘সহজ কথায় বলতে গেলে এই সিরিজ একেবারেই অভিনয়ের জন্য দেখতে পারেন। কারণ সম্পূর্ণা সিরিজে সোহিনী নিজের এক শ শতাংশ উজাড় করে দিয়েছেন। প্রতিটি ফ্রেমে অসাধারণ তিনি। অভিনয়ের দিক থেকে সোহিনীর পর যার নাম আসে, তিনি হলেন লাবণী সরকার। অনেকগুলো শেড রয়েছে তার চরিত্রে। কখনও মা, কখনও শাশুড়ি, কখনও আবার সব সম্পর্ক ভুলে নারীর প্রতীক। সোহিনী ও লাবণীর অভিনয়ই এই সিরিজের সেরা প্রাপ্তি। বিষয় হিসেবে বৈবাহিক ধর্ষণকে বেছে নেয়ার ব্যাপারে অবশ্যই বাহবা প্রাপ্তি সায়ন্তনের। তবে চিত্রনাট্য আরও একটু শক্তপোক্ত হলে সিরিজটি জমে যেত।’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম নিউজএইটটিন বাংলায় স্বরলিপি দাসগুপ্তা সম্পূর্ণা নিয়ে লিখেছেন, ‘সম্পর্কে গেলে প্রেমিকার সঙ্গে যখন যা খুশি করার যেন একটা অদৃশ্য ছাড়পত্র থাকে। এহেন কাঠামোয় ম্যারিটাল রেপ বিষয়টি যেন কিছু মানুষের কাছে সোনার পাথরবাটির মতো। বিয়ের পরে তো স্ত্রীর শরীরের মালিকানা স্বামীর কাছেই! স্বামী কি কখনও স্ত্রীকে ধর্ষণ করতে পারে নাকি? সমাজের এই গতে বাঁধা প্রশ্নগুলিকেই উত্তর দিতে পরিচালক সায়ন্তন ঘোষাল মারিট্যাল রেপ-কে কেন্দ্র করে বাংলা ভাষায় ওয়েব সিরিজ বানিয়ে ফেলেছেন।’

তিনি আরও লেখেন, ‘সেভাবে চেনা জানা না থাকলেও, ইচ্ছে অনিচ্ছের কথা না ভেবেই পাত্র পাত্রী পৌঁছে যায় ফুল শয্যার রাতে। এমনটাই হয়ে এসেছে। কারণ সমাজ বলে দিয়েছে, এমনই করতে হয়। সেই নিয়ম মেনেই, ফুলশয্যার বিছানায় অপেক্ষারত লাজুক নন্দিনীর কাছে পৌঁছায় রুকু। নন্দিনীর মালিকানা এবার তার। চোয়াল শক্ত হয় রুকুর। পৌরুষ প্রকাশ করার সময় তার। নন্দিনী কী চাইছে তা জানার প্রয়োজনই মনে করে না সে। প্রথম রাতেই ম্যারিটাল রেপ-এর শিকার নন্দিনী।’

এমন সাহসী ও জরুরি বিষয় নিয়ে সিরিজ নির্মাণের জন্য সায়ন্তন ঘোষালকে কুর্ণিশ করেছেন স্বরলিপি।

৬ পর্বের সিরেজে বের হয়ে আসে সমাজের ভদ্র-নম্র একটি চরিত্রের ভেতরের চেহারা। স্বরলিপি লেখেন, ‘সিরেজে ক্লাইম্যাক্সের জন্য টানটান অপেক্ষা নেই। শেষটাও হয়তো সামান্য প্রেডিক্টেবল। কিন্তু তবুও এই ওয়েব সিরিজ শেষ পর্যন্ত দেখতে ইচ্ছে করবে।’

সায়ন্ত এর আগে নির্মাণ করেছেন ইণ্দু, গোরা, লালবাজার, ডার্ক ওয়েব, ব্যোমকেশসহ বেশ কটি ওয়েবসিরিজ।

আরও পড়ুন:
৩ ডিসেম্বর আসছে ‘বলি’
মুখোমুখি চঞ্চল-সোহেল, আসছেন ডিসেম্বরে
জাজের প্রযোজনায় রাফির ওয়েব সিরিজ ‘চক্র’
‘কনট্রাক্ট’ আসছে ১৮ মার্চ
তিন অস্ত্রধারীর এক নেতা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বিনোদন
If the reason is not given Saturday afternoon will go to court on Sunday

কারণ না জানালে ‘শনিবার বিকেল’ রোববার যাবে আদালতে

কারণ না জানালে ‘শনিবার বিকেল’ রোববার যাবে আদালতে নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী ও শনিবার বিকেল সিনেমার পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত
শনিবার বিকেল সিনেমার অন্যতম প্রযোজক জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আব্দুল আজিজ নিউজবাংলাকে জানান, তারা তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যানকে চিঠি দিয়েছেন। সেখানে তারা জানতে চেয়েছেন কেন সিনেমাটিকে আটকে রাখা হয়েছে।

চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকী বুধবার সন্ধ্যায় তার ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে জানান, ‘আজকে (বুধবার) সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান শনিবার বিকেল ছবিটা দেখলেন। আমরা আশা করব চলচ্চিত্রের উন্নয়ন ও বিকাশের স্বার্থে ওনারা দ্রুতই সেন্সর সার্টিফিকেট প্রদান করবেন।’

ফারুকীর এই স্ট্যাটাসের পর সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান মো. সাইফুল্লাহর সঙ্গে যোগাযোগ করলে বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি।

নিউজবাংলাকে মো. সাইফুল্লাহ বলেন, ‘এটা মিথ্যা কথা, আমি সিনেমাটা দেখিনি।’ এ সময় তিনি সেন্সর বোর্ডে অন্য সিনেমার সেন্সর শোতে ছিলেন।

সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান মো. সাইফুল্লাহ সেন্সর আপিল বোর্ডেরও সদস্য। কিন্তু তার একার সিনেমা দেখাকে আপিল বোর্ডের সিনেমা দেখা বলা যাবে না। সেন্সর বোর্ডের উপপরিচালক মোমিনুল হক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আপিল বোর্ডের সদস্য সংখ্যা সাত। কমিটির আহ্বায়ক তথ্য ও সম্প্রচার সচিব। তিনি যখন নোটিশের মাধ্যমে সবাই মিলে সিনেমাটি দেখবেন, তখনই সেটাকে আপিল বোর্ডের সিনেমা দেখা বলা যাবে।’

মোমিনুল হক আরও জানান, ‘ভাইস চেয়ারম্যান সিনেমাটি দেখেছেন কি না সেটি আমি জানি না। সেটা তিনি বলতে পারবেন। তবে আমি এটা বলতে পারি যে আমাদের অবস্থা এবং নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর অবস্থা একই রকম। আমরা সবাই আপিল কমিটির দিকে তাকিয়ে। আপিল কমিটি যা বলবে আমরা সেভাবে কাজ করব।’

সাড়ে তিন বছর ধরে আটকে আছে শনিবার বিকেল সিনেমাটি। সেন্সরে জমা দেয়ার পর এটি এখন আছে সেন্সর আপিল কমিটিতে। কেন সিনেমাটিকে ছাড়পত্র দেয়া হচ্ছে না, সে ব্যাপারে কিছু জানায়নি কমিটি।

বুধবার পোস্ট করা ফারুকীর সেই স্ট্যাটাসে আরও লেখা আছে, ‘যা-ই হোক আমরা সাত দিন সময় দিয়ে চিঠি দিয়েছি সার্টিফিকেট ইস্যু করার জন্য। ২১ তারিখে সাত দিন শেষ হবে। তারপর আমরা আইনের পথে হাঁটব। এবং পাশাপাশি সিনেমা বা যেকোনো সৃজনশীল কাজের ওপর থেকে সকল প্রকার অন্যায় নিয়ন্ত্রণ তুলে নেয়ার জন্য আমাদের ভয়েস রেইজ করব। ফ্রিডম অফ এক্সপ্রেশন ইজ ফান্ডামেন্টাল অ্যান্ড নন নেগোশিয়েবল।’

শনিবার বিকেল সিনেমার অন্যতম প্রযোজক জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আব্দুল আজিজ নিউজবাংলাকে জানান, তারা তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং সেন্সর বোর্ডের চেয়ারম্যানকে চিঠি দিয়েছেন। সেখানে তারা জানতে চেয়েছেন কেন সিনেমাটিকে আটকে রাখা হয়েছে।

আব্দুল আজিজ বলেন, ‘রোববারের মধ্যে কোনো উত্তর না পেলে আমরা আদালতে যাব।’

আরও পড়ুন:
সেন্সর না পাওয়া ‘শনিবার বিকেল’ দেখলেন টরন্টোর বাঙালিরা
‘কত বছর গেছে নিজের চিৎকার গিলে ফেলে, ধন্যবাদ হে রাষ্ট্র’
‘শনিবার বিকেল মুক্তি পাক’- এ সরব ফেসবুক
শনিবার বিকেল-এর উকিল বাচ্চু অনেক কিছু ‘বলতে পারছেন না’
‘প্রিয় রাষ্ট্র’র কাছে ফারুকীর প্রশ্ন

মন্তব্য

বিনোদন
Shakibs indication of good news after returning home

দেশে ফিরেই সুখবরের ইঙ্গিত শাকিবের

দেশে ফিরেই সুখবরের ইঙ্গিত শাকিবের দেশে ফিরে ভক্তদের ভালোবাসায় সিক্ত শাকিব খান। ছবি: নিউজবাংলা
কিং খানের পথ চেয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বুধবার সকাল থেকেই ভিড় করেন অসংখ্য শুভাকাঙ্ক্ষী, হাতে থাকা ব্যানার-ফেস্টুনে ছিল শাকিব-বন্দনা। নায়ক যখন বিমানবন্দরে এলেন হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান তারা।

অপেক্ষা শেষ হয়েছে ভক্তদের, নিরাপদে ফিরেছেন ঢাকাই সিনেমার শীর্ষ নায়ক শাকিব খান। সঙ্গে নিয়ে এসেছেন সুখবরও। সে ইঙ্গিতই দিলেন তিনি। বললেন, ভালো ভালো সংবাদ অপেক্ষা করছে।

কিং খানের পথ চেয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বুধবার সকাল থেকেই ভিড় করেন অসংখ্য শুভাকাঙ্ক্ষী, হাতে থাকা ব্যানার-ফেস্টুনে ছিল শাকিব-বন্দনা। নায়ক যখন বিমানবন্দরে এলেন হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান তারা।

বেলা ১টা ৩০ মিনিটে সিআইপি গেটে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন শাকিব। চোখে-মুখে তার উচ্ছ্বাস। পরনে টি শার্ট আর জিন্স। কানে হেডফোন। চোখে সানগ্লাস। যেন নায়ক ফিরলেন নায়কের বেশেই।

শাকিব জানান, সবসময়ই মনে হয়েছে কখন তিনি দেশে ফিরবেন। বলেন, ‘আমি ফ্লাইটে বার বার জিজ্ঞেস করছিলাম ল্যান্ড করতে কতক্ষণ লাগবে।’

ভক্ত-দর্শক-সাংবাদিকদের উদ্দেশে শাকিব বলেন, ‘আপনাদের সকলের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। এই ভালোবাসার কাছে আমি ঋণী। আপনারা সবাইকে আমি খুব মিস করেছি। আমি স্পিচলেস।’

৯ মাস পর যুক্তরাস্ট্র থেকে দেশে ফেরা এই নায়ক বলেন, ‘আমি দীর্ঘ নয় মাস চেষ্টা করেছি আমাদের বাণিজ্যিক সিনেমাটাকে বিশ্বের বাজারে কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়। ভাষা এখন আর কোনো বিষয় না। কোরিয়ান ভাষার সিনেমা বিরাট একটা অবস্থানে পৌঁছে গেছে, তামিল ফিল্ম ইন্টারন্যাশনাল অনেক ভালো জায়গায় পৌঁছে গেছে।’

শাকিব খান জানান, মাত্রই তো পা রাখলেন যুক্তরাষ্ট্রে, ধীরে ধীরে আরও অনেক কিছুই করবেন তিনি। আবার কবে যুক্তরাষ্ট্রে যাবেন- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমার দেশ আমি তো এখানেই থাকব, আমি কোথায় যাব।’

সাম্প্রতিক সময়ে দুটি বাংলা সিনেমা অনেক নাম করেছে, ব্যবসা করেছে, বিষয়টিকে সাধুবাদ জানিয়ে শাকিব খান বলেন, ‘আমি চাই যে সিনেমাগুলো শুধু বাংলাদেশে না, পুরো পৃথিবীতে যত বাংলা ভাষাভাষি আছে সবখানে ছড়িয়ে যাক। সেটাই আমার চাওয়া এবং আমি সেই কাজেই ব্যস্ত আছি।’

কোনো নতুন ঘোষণা দেবেন কি না জানতে চাইলে শাকিব খান সুখবরের ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, ‘সুখবর কী দেব তা সময় বলে দেবে। ভালো ভালো নিউজ ওয়েট করছে সবার জন্য।’

বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার সকালে যুক্তরাষ্ট্র থেকে রওনা হয়ে বুধবার দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান শাকিব খান।

কদিন ধরেই সামাজিক যোগযোগমাধ্যমসহ নানা মাধ্যমে আলোচনায় শাকিবের ফেরার খবর। তাকে অভ্যর্থনা জানাতে আগে থেকেই চলতে থাকে নানা প্রস্তুতি। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঢাকায় এসে পৌঁছান তার ভক্তরা।

ঢাকার ভক্তরা ছাড়াও টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, সাতক্ষীরা, বরিশাল, নেত্রকোণা থেকে এসেছেন অনেকে। শাকিব খানকে এক নজর দেখা এবং প্রিয় নায়ককে শুভেচ্ছা জানানোই ছিল তাদের একমাত্র লক্ষ্য।

আরও পড়ুন:
ভক্তদের হৃদয়ে ঝড় তুলে কিং খান ঢাকায়
বিভিন্ন জেলা থেকে আসছে শাকিব ভক্তরা, তৈরি ব্যানার-স্লোগান
ঢাকায় শাকিব খানের কর্মপরিকল্পনা কী

মন্তব্য

বিনোদন
Fans crowd the airport waiting for Shakib

ভক্তদের হৃদয়ে ঝড় তুলে কিং খান ঢাকায়

ভক্তদের হৃদয়ে ঝড় তুলে কিং খান ঢাকায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বের হচ্ছেন শাকিব খান। ছবি: নিউজবাংলা
গত কদিন ধরেই সামাজিক যোগযোগমাধ্যমসহ নানা মাধ্যমে আলোচনায় শাকিবের ফেরার খবর। তাকে অভ্যর্থনা জানাতে আগে থেকেই চলতে থাকে নানা প্রস্তুতি। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঢাকায় এসে পৌঁছান তার ভক্তরা।

৯ মাস যুক্তরাষ্ট্রে কাটিয়ে দেশে ফিরেছেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের ‘কিং খান’ শাকিব খান। বুধবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে তিনি শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান।

নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চলচ্চিত্র পরিচালক তপু খান।

গত কদিন ধরেই সামাজিক যোগযোগমাধ্যমসহ নানা মাধ্যমে আলোচনায় শাকিবের ফেরার খবর। তাকে অভ্যর্থনা জানাতে আগে থেকেই চলতে থাকে নানা প্রস্তুতি। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ঢাকায় এসে পৌঁছান তার ভক্তরা।

সকাল থেকেই ব্যানার-ফেস্টুন হাতে বিমানবন্দরে জড়ো হন ভক্তরা।

ভক্তদের হৃদয়ে ঝড় তুলে কিং খান ঢাকায়

ঢাকার ভক্তরা ছাড়াও টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, সাতক্ষীরা, বরিশাল, নেত্রকোণা থেকে এসেছেন অনেকে। শাকিব খানকে এক নজর দেখা এবং প্রিয় নায়ককে শুভেচ্ছা জানানোই তাদের একমাত্র লক্ষ্য।

ভক্তদের হৃদয়ে ঝড় তুলে কিং খান ঢাকায়

নেত্রকোণা থেকে আসা এক ভক্ত জানান, শাকিব খান আরও ভালো ভালো সিনেমা করুক- এই চাওয়া তার কাছে। একই সঙ্গে কিছুটা দুঃখ আছে তার। যুক্তরাষ্ট্রে শাকিব খানের স্থায়ী হওয়ার খবর তাকে আহত করেছে।

টাঙ্গাইল থেকে আসা এক ভক্ত জানান, শাকিব খানকে শুভেচ্ছা জানাতে তার এখানে আসা। শাকিব খানকে তিনি খুবই পছন্দ করেন। তবে শাকিব খান এত দিন দেশে ছিলেন না বলে তিনি কষ্ট পেয়েছেন।

আরও পড়ুন:
বিভিন্ন জেলা থেকে আসছে শাকিব ভক্তরা, তৈরি ব্যানার-স্লোগান
ঢাকায় শাকিব খানের কর্মপরিকল্পনা কী
ফিরছি প্রিয় মাতৃভূমিতে: শাকিব খান

মন্তব্য

বিনোদন
A glimpse of gangs came up in Borderers teaser

গ্যাংদের টুকরো চিত্র উঠে এলো ‘বর্ডার’-এর টিজারে

গ্যাংদের টুকরো চিত্র উঠে এলো ‘বর্ডার’-এর টিজারে বর্ডার সিনেমার দৃশ্য। ছবি: টিজার থেকে নেয়া
বর্ডার এলাকার একটি গ্রাম সুলতানপুর। যেখানে পানির ওপর পদ্ম ভাসে, নিচে মানুষের লাশ। এলাকার সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করে বাবাজান। তিনি ওই এলাকার সব।

৯ সেপ্টেম্বর মুক্তি পেতে যাচ্ছে বর্ডার সিনেমা। মঙ্গলবার প্রকাশ পেয়েছে সিনেমাটির টিজার। সেখানে সিনেমাটি নিয়ে পাওয়া গেছে কিছু ধারণা।

বর্ডার এলাকার একটি গ্রাম সুলতানপুর। যেখানে পানির ওপর পদ্ম ভাসে, নিচে মানুষের লাশ। এলাকার সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করে বাবাজান। তিনি ওই এলাকার সব।

বাবাজান চরিত্রে অভিনয় করেছেন আশীষ খন্দকার। সিনেমায় আরও আছেন সুমন ফারুক, সাঞ্জু জন, অধরা খান, রাশেদ মামুন অপু, মৌমিতা মৌ, শাহিন মৃধাসহ অনেকে।

কিছুদিন আগে প্রকাশ পেয়েছে সিনেমাটির অফিশিয়াল পোস্টার। তখন জানানো হয়েছিল, বর্ডার হলো দুই দেশের সীমানা। এই সীমানা দিয়ে বৈধভাবে পার হয় মানুষ, গরুসহ নানা দ্রব্য। তেমনি আবার হয় মাদকসহ নানান দ্রব্যাদির চোরাচালান।

এই চোরাচালানকে ঘিরে গড়ে ওঠে বেশ কিছু গ্যাং। আবার তাদের মাঝে ঘটে নানা ঘাত, প্রতিঘাত, সংঘাত। সেসব কাহিনি নিয়ে নির্মিত হয়েছে সিনেমা বর্ডার

ম্যাক্সিমাম এন্টারটেইনমেন্টের প্রযোজনায় সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন সৈকত নাসির, কাহিনি আসাদ জামানের।

মন্তব্য

বিনোদন
The new release date of Prabhas another blockbuster Salaar has been announced

প্রভাসের আরেক ধামাকা ‘সালার’-এর মুক্তির নতুন দিন ঘোষণা

প্রভাসের আরেক ধামাকা ‘সালার’-এর মুক্তির নতুন দিন ঘোষণা সালার সিনেমার পোস্টারে প্রভাস। ছবি: সংগৃহীত
মুক্তির নতুন তারিখের সঙ্গে ‘সালার’-এর একটি পোস্টার প্রকাশ করা হয়েছে, যা ‘কেজিএফ’-এর পোস্টারগুলোর কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। পোস্টারে পিস্তল-ধারাল অস্ত্রসহ ধ্বংসস্তূপ ও বিক্ষিপ্ত লাশের মাঝে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায় প্রভাসকে।

২০২০ সালের ২ ডিসেম্বর ভারতের দক্ষিণী সুপারস্টার বাহুবলী খ্যাত অভিনেতা প্রভাস ঘোষণা করেন তার নতুন সিনেমা সালার-এর নাম। এটি পরিচালনা করছেন কেজিএফ-এর নির্মাতা প্রশান্ত নীল।

এই সিনেমার ঘোষণা আসার পর থেকেই উচ্ছ্বসিত প্রভাসের ভক্ত-অনুরাগীরা। বাহুবলীর পর এটাই হতে যাচ্ছে তার আরেক ধামাকা। অবশেষে সিনেমাটি মুক্তির নতুন দিন ঘোষণা করা হলো।

ভারতের স্বাধীনতা দিবস ১৫ আগস্টে প্রভাস ও প্রশান্ত নীল ঘোষণা করেন ২০২৩ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাবে সালার। এর আগে ২০২১ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা করা হয়েছিল ২০২২ সালের ১৪ এপ্রিল মুক্তি পাবে সিনেমাটি।

মুক্তির নতুন তারিখের সঙ্গে সালার-এর একটি পোস্টার প্রকাশ করা হয়েছে, যা কেজিএফ-এর পোস্টারগুলোর কথা স্মরণ করিয়ে দেয়।

পোস্টারে পিস্তল-ধারাল অস্ত্রসহ ধ্বংসস্তূপ ও বিক্ষিপ্ত লাশের মাঝে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায় প্রভাসকে।

সিনেমাটি যে ব্যাপক অ্যাকশনধর্মী হবে তা আগেই জানিয়েছিলেন প্রশান্ত নীল। সালার-এর নাম ঘোষণার সময় একটি পোস্টার শেয়ার করে সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি লেখেন, ‘সবচেয়ে হিংস্র পুরুষ... একজনকে ডাকো... সবচেয়ে হিংস্র!’

সেই সঙ্গে তিনি লেখেন, ‘সিনেমার প্রতি ভালোবাসার জন্য, ভাষার দেয়াল ভেঙে, আপনাদের সামনে একটি ভারতীয় চলচ্চিত্র উপস্থাপন করছি। প্রিয়তম প্রভাস স্যারকে স্বাগতম।’

এদিকে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এসএস রাজামৌলির আরআরআর পরবর্তী তেলেগু সিনেমার সবচেয়ে বড় প্রজেক্ট সালার

প্রভাস ছাড়াও সালার-এ রয়েছেন প্রধান কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করছেন শ্রুতি হাসান। এছাড়া খল চরিত্রের অভিনয় করছেন জগপতি বাবু। সিনেমাটি তামিল, তেলেগু, কন্নড়, মালয়ালাম এবং হিন্দি ভাষায় মুক্তি পাবে।

আরও পড়ুন:
প্রভাসের প্রশংসায় পঞ্চমুখ কৃতি
‘‌রাম’‌ প্রভাসের পাশে ‘‌শিব’‌ অজয়‌

মন্তব্য

বিনোদন
Some true stories of independent Bengali football team in Damal trailer

‘দামাল’ ট্রেইলারে ‘স্বাধীন বাংলা ফুটবল টিম’ এর সত্য কিছু ঘটনা

‘দামাল’ ট্রেইলারে ‘স্বাধীন বাংলা ফুটবল টিম’ এর সত্য কিছু ঘটনা দামাল সিনেমার দৃশ্য। ছবি: ট্রেইলার থেকে নেয়া
সত্য ঘটনা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে সিনেমার গল্পটি লিখেছেন ফরিদুর রেজা সাগর। মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা ফুটবল টিমের সত্য ঘটনার সঙ্গে ফিকশনের আশ্রয় নিয়ে গড়ে উঠেছে সিনেমার গল্প। অল্প করে আছে এ সময়টাও।

প্রকাশ পেয়েছে দামাল সিনেমার ট্রেইলার। পরাণ সিনেমারর সফলতার পর দর্শকদের আগ্রহ ছিল নির্মাতা রায়হান রাফির নতুন সিনেমা দেখার। সেই আগ্রহ পূরণ হতে যাচ্ছে দর্শকদের।

২৮ অক্টোবর সিনেমাটি মুক্তি পাবে বলে ঘোষণা দিয়েছে সিনেমার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ইমপ্রেস টেলিফিল্ম। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রকাশ পেয়েছে সিনেমাটির ট্রেইলার।

সত্য ঘটনা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে সিনেমার গল্পটি লিখেছেন ফরিদুর রেজা সাগর। মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা ফুটবল টিমের সত্য ঘটনার সঙ্গে ফিকশনের আশ্রয় নিয়ে গড়ে উঠেছে সিনেমার গল্প। অল্প করে আছে এ সময়টাও।

ট্রেইলারের ভয়েস ওভারে শোনা যায়, ‘একটা দেশ, একটা যুদ্ধ, একটা পতাকা। এক এক করে অনেকে মিলে এক হওয়া।’

আরও শোনা যায়, ‘কেউ অস্ত্র তুলে নিয়েছিল হাতে, কেউ পায়ে। কেউ নামে যুদ্ধের মরণ খেলায়, হোক যে যোদ্ধা বা খেলোয়ার, লড়াইয়ে এক বিন্দু দেয়না ছাড়। একদিকে আসে মিছিল, আরেকদিকে উল্লাসের মিশন। খেলার মাঠ হোক কিংবা যুদ্ধের ময়দান, কেউ কারে নাহি ছাড়ে, যায় যদি যাক প্রাণ।’

সিনেমার টুকরো টুকরো দৃশ্যে ২৫ মার্চের কাল রাত, মুক্তিযুদ্ধ এবং ফুটবল খেলার দৃশ্য উঠে এসেছে। আছে পাকিস্তানি আর্মী ও তাদের দোসরদের বর্বরতা।

সিনেমায় অভিনয় করেছেন শরিফুল রাজ, সুমিত, সিয়াম, বিদ্যা সিনহা মিম, শাহনাজ সুমি, ইন্তেখাব দিনার, পাকিস্তানিদের দোসরের চরিত্রে রাশেদ অপুসহ অনেকে।

ট্রেইলারটি ফেসবুকে শেয়ার করে রায়হান রাফি লিখেছেন, ‘দামাল আসছে ২৮ অক্টোবর। দেখা হবে সিনেমা হলে।’

আরও পড়ুন:
ফিরছি প্রিয় মাতৃভূমিতে: শাকিব খান
‘হাওয়া’ সিনেমায় বন্য প্রাণী আইন লঙ্ঘিত হয়েছে
সিনেমায় বন্যপ্রাণী আইন লঙ্ঘন, বিএনসি-এর উদ্বেগ
ময়মনসিংহ মাতালো ‘হাওয়া’ টিম
সপ্তাহজুড়ে হাউসফুল ‘পরাণ’, ‘হাওয়া’

মন্তব্য

বিনোদন
Banners and slogans made by Shakib fans are coming from different districts

বিভিন্ন জেলা থেকে আসছে শাকিব ভক্তরা, তৈরি ব্যানার-স্লোগান

বিভিন্ন জেলা থেকে আসছে শাকিব ভক্তরা, তৈরি ব্যানার-স্লোগান শাকিব খানকে সংবর্ধনা দিতে তৈরি হচ্ছে ব্যানার। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
শাকিব ভক্তদের সম্মিলিত এ আয়োজন যেন সুন্দরভাবে হয় সেজন্য কিছু গাইডলাইন দিয়ে এক ভক্ত পোস্ট করেছেন গ্রুপে। সেখানে বলা হয়েছে, গরমের জন্য সবাই ক্যাপ, সানগ্লাস, পানির বোতল সঙ্গে রাখতে পারেন।

শাকিব খানকে বরণ করে নিতে প্রস্তুতির শেষ পর্যায়ে তার ভক্তরা। বুধবার সকাল ১২টার দিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্ধরে এসে পৌঁছানোর কথা রয়েছে তার।

বিমানবন্দরে তাকে শুভেচ্ছা জানাতে আসবেন শাকিব খানের ভক্তরা। এ উপলক্ষে বিভিন্ন জেলা থেকে ঢাকার আসছেন তারা। দ্য কিং অফ ঢালিউড সুপারস্টার শাকিব খান (অফিশিয়ল গ্রুপ) ফেসবুক গ্রুপে শেয়ার হচ্ছে এসব তথ্য।

গ্রুপে পোস্ট হওয়া তথ্য অনুযায়ী গাজীপুর, সিরজগঞ্জ, চট্টগ্রাম, সিলেট থেকে ভক্তরা আসছেন শাকিবকে সংবর্ধনা জানাতে। প্রিন্ট করা হচ্ছে স্বাগত জানানোর ব্যানার।

শাকিব খান ভক্তদের কাছে এলে কী স্লোগান দেয়া যেতে পারে সেটিও নির্ধারণ করে পোস্ট করা হয়েছে গ্রুপে। স্লোগানগুলো এমন-

‘কিং কিং কিং খান; মেগাস্টার শাকিব খান’

‘শাকিব খানের জন্য; বাংলাদেশ ধন্য’

‘সুপারস্টারের আগমন; শুভেচ্ছায় স্বাগতম’

‘কিং খানের আগমন; শুভেচ্ছায় স্বাগতম’

‘১ ২ ৩; ঢালিউড কিং’

‘১ ২ ৩ ৪; শাকিব খান মেগাস্টার’

‘চলচ্চিত্রের প্রাণ; শাকিব খান, শাকিব খান’

‘আজকের সারাদিন; শাকিবিয়ানদের ঈদের দিন’

বিভিন্ন জেলা থেকে আসছে শাকিব ভক্তরা, তৈরি ব্যানার-স্লোগান
প্রিন্টিং হচ্ছে শাকিব খানকে শুভেচ্ছা জানানোর ব্যানার। ছবি: ভিডিও থেকে নেয়া

শাকিব ভক্তদের সম্মিলিত এ আয়োজন যেন সুন্দরভাবে হয় সেজন্য কিছু গাইডলাইন দিয়ে এক ভক্ত পোস্ট করেছেন গ্রুপে। সেখানে বলা হয়েছে, গরমের জন্য সবাই ক্যাপ, সানগ্লাস, পানির বোতল সঙ্গে রাখতে পারেন।

ইউটিউবাররা ভক্তদের বক্তব্য নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াতে পারে। তাই সতর্ক থেকে শাকিব খানের বর্নাঢ্য ক্যারিয়ার তুলে ধরতে অনুরোধ করা হয়েছে পোস্টে।

সুশৃঙ্খলভাবে দুই লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। লাইন ভেঙে গাড়ির চারপাশে হুমড়ি খেয়ে না পড়ার কথা বলা হয়েছে।

শাকিব ভক্তদের অবস্থান, এটিটিউড ও কথাবার্তা যেন নম্র-ভদ্র হয়, সে ব্যাপারেও বলা হয়েছে সেই পোস্টে।

যুক্তরাষ্ট্রে নয় মাস থেকে বুধবার সকালে ঢাকায় ফিরছেন শাকিব খান। নভেম্বরে আবার যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে যাবার কথা রয়েছে তার। বাংলাদেশে মায়া সিনেমার কাজ করার কথা শাকিবের। যুক্তরাষ্ট্রে ফিরে তিনি রাজকুমার সিনেমার কাজ শুরু করবেন।

আরও পড়ুন:
নিউ ইয়র্কে শাকিব খানের সিনেমার প্রিমিয়ার
সিলেটে বন্যাকবলিতদের জন্য শাকিবের উদ্যোগ
শাকিব খানের অনুদান কেন লাগে, জানালেন পরিচালক
স্মৃতিচারণায় শাকিব: ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে, ব্যর্থতাকে প্রাধান্য দিই
কলকাতায় সেরা অভিনেতার দুটি পুরস্কার পেলেন শাকিব খান

মন্তব্য

p
উপরে