কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর

player
কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর

কপিরাইট অফিসের শুনানি। ছবি কোলাজ: সংগৃহীত

শেলীর দাবি, সেই চুক্তিপত্র তিনি বাতিল করতে চান। কারণ সেই সব কনটেন্ট ২০১০ থেকে বা ২০১২ থেকে এখন পর্যন্ত মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ হয়েছে। সেখান থেকে তিনি অনেক টাকা পেতে পারতেন। অনলাইন মিডিয়া সম্পর্কে তার ভালো ধারণা ছিল না। তাই না বুঝেই তিনি সে চুক্তি করে দিয়েছেন।

গান, সিনেমা নিয়ে মাঝে মাঝেই দ্বন্দ্ব দেখা যায় মালিকানা নিয়ে, কখনও আবার অর্থ নিয়ে। অনেক সময় এই দ্বন্দ্ব চলতে থাকে বছরের পর বছর। অনেক সময় নিজেদের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমে সেসব সমস্যার সমাধান হয়।

সম্প্রতি বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস অনেক বিষয়ের সমাধান করছে। কপিরাইট ইস্যু নিয়ে বিভিন্ন উদ্যোগ, আলোচনার মাধ্যমে আইন প্রতিষ্ঠা করতে চাইছেন তারা। আগের অ্যানালগ সিস্টেম থেকে বর্তমানের ইউটিউব- সব বিষয় নিয়েই কাজ করছেন তারা।

বুধবার তেমন কিছু সমস্যার শুনানি ছিল কপিরাইট অফিসে। যার মধ্যে যুবতী রাধে, শেলী কাদের, আসিফ আকবর-শফিক তুহিন ইস্যু অন্যতম।

ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত ‘নিঝুম অরণ্যে’ সিনেমার গানের ভিসিডি ও ডিভিডি রাইট বাজারজাতকরণের চুক্তি জি-সিরিজের থাকলেও ২০১৭ সালে পুরো চলচ্চিত্রটি জি-সিরিজের কর্ণধার নাজমুল হক ভূঁইয়া তাদের প্রতিষ্ঠানের ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার করে।

এটি নিয়ে কপিরাইট অফিসে ইমপ্রেস টেলিফিল্মের বিরুদ্ধে আপিল করেন নাজমুল হক ভূঁইয়া।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
‘নিঝুম অরণ্যে’ সিনেমায় অভিনয় করেন সজল ও আজমেরী হক বাঁধন। ছবি: সংগৃহীত

শুনানিতে ইমপ্রেস টেলিফিল্মের পক্ষ থেকে কেউ ছিলেন না। নাজমুল হক ভূঁইয়ার পক্ষ থেকে কপিরাইট অফিসকে জানানো হয়, চ্যানেল আইয়ের সঙ্গে তাদের মৌখিক একটা সমঝোতা হয়েছে। পরবর্তী সময়ে তারা কপিরাইট অফিসে লিখিতভাবে বিষয়টি জানাবে।

আসিফের বিরুদ্ধে অন্যের গান ডিজিটালে রূপান্তর করে প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল অর্থ উপার্জন করার অভিযোগ আনেন শফিক তুহিন। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে কপিরাইট অফিসে আপিল করেন আসিফ আকবর।

সেই আপিলের শুনানি ছিল বুধবার। শুনানিতে আসিফ আকবের পক্ষ থেকে আইনজীবী উপস্থিত থাকলেও ছিলেন না শফিক তুহিন। তিনি সময়ের আবেদন করেছেন। বোর্ড শফিক তুহিনের আবেদন মঞ্জুর করেছে।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
আসিফ আকবর (বাঁয়ে) ও শফিক তুহিন। ছবি: সংগৃহীত

নিউজবাংলাকে কপিরাইট অফিসার জাফর রাজা চৌধুরী বলেন, আগামী মাসেই আরেকটা সভা করা হবে।’

২০০১ সালের ৩০ জানুয়ারি প্রকাশ পায় আসিফ আকবরের গাওয়া তুমুল জনপ্রিয় গান ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’। গানটি নিয়ে ঝামেলা চলছে লেবেল প্রতিষ্ঠান সাউন্ডটেক এবং গীতিকার-সুরকার ইথুন বাবুর।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’ গানের অ্যালবামের কাভার। ছবি: সংগৃহীত

সাউন্ডটেকের করা আপিলের শুনানিতে বুধবার ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’ গানটির সুরকার-গীতিকার সময় বাড়ানোর দাবি করেন এবং তাকে সময় বাড়িয়ে দেয়া হয়।

আব্বাজান, স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ, লুটতরাজ, পিতা মাতার আমানত, মনের সাথে যুদ্ধ, আমি জেল থেকে বলছি, দুই বধূ এক স্বামী নামক সাতটি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের কপিরাইট চুক্তিপত্র বাতিল আবেদন করেছেন প্রয়াত মান্নার স্ত্রী শেলী কাদের। নাজমুল হক ভূঁইয়ার সঙ্গে শেলীর এ চুক্তি ছিল।

সাতটি পূর্ণ্যদৈর্ঘ্য সিনেমার কমার্শিয়াল রাইট শেলীই দিয়েছেন নাজমুল হক ভূঁইয়াকে। যার বিনিময়ে তিনি প্রথমে ২০ লাখ, পরে ৫ লাখ এবং শেষে ২ লাখ ১০ হাজার টাকা নিয়েছেন। তিনি নিজেই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন এবং সেই চুক্তিপত্র সঠিক বলে নিশ্চিত করেছেন।

এখন শেলীর দাবি, সেই চুক্তিপত্র তিনি বাতিল করতে চান। কারণ সেই সব কনটেন্ট ২০১০ থেকে বা ২০১২ থেকে এখন পর্যন্ত মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ হয়েছে। সেখান থেকে তিনি অনেক টাকা পেতে পারতেন। অনলাইন মিডিয়া সম্পর্কে তার ভালো ধারণা ছিল না। তাই না বুঝেই তিনি সে চুক্তি করে দিয়েছেন।

কপিরাইট আইনের সেকশন ২০ ধারার সাবসেকশন ২-এ বলা আছে, কোনো কপিরাইট প্রণেতা যদি মনে করেন যে কপিরাইটের চুক্তিটা তার জন্য ভালো হয়নি, তা হলে তিনি তা বাতিলের আবেদন করতে পারবেন।

এ ক্ষেত্রে কপিরাইট বোর্ড দুই পক্ষের শুনানি নেবে। যদি তা যুক্তিসঙ্গত হয়, তা হলে বোর্ড অবশ্যই সেটি বাতিলের সিদ্ধান্ত দেবে।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
প্রয়াত চিত্রনায়ক মান্না ও তার স্ত্রী শেলী। ছবি: সংগৃহীত

শেলীর এমন আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে অন্যপক্ষ জানিয়েছে, যদি এই ধরনের চুক্তি বাতিল হয় তা হলে এ অঙ্গনে মারাত্মক অরাজকতা তৈরি হবে। অনেকেই এটা করতে চাইবে। কেউ আজ চুক্তি করে এক বছর পরেই বলবে যে, সে চুক্তি বাতিল করতে চায়।

এ বিষয়ে কপিরাইট বোর্ড সিদ্ধান্ত দিয়েছে যে, ‘বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য একটি কমিটি গঠন করে দেব। সেই কমিটি শেলীর আবেদন পর্যালোচনা করে দেখবে, কেন শেলী কাদের এটি চাচ্ছেন এবং যদি চুক্তি বাতিল হয়, সে ক্ষেত্রে কী কী সমস্যা হতে পারে। এসব অ্যানালাইসিস করে কমিটি একটা রিপোর্ট দাখিল করবে পরের বোর্ডসভায়। এর ভিত্তিতে বোর্ড একটি পরিপূর্ণ সিদ্ধান্ত দেবে।’

‘যুবতী রাধে’ গান নিয়ে সরলপুর ব্যান্ডের সঙ্গে আইপিডিসির সমস্যার পরিপ্রেক্ষিতে কপিরাইট অফিসে শুনানি হয় বুধবার।

শুনানিতে আইপিডিসির পক্ষে বলা হয়, ‘যুবতী রাধে’ গানটি বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্মে পাওয়া যায়। গানটির মোট ৩২টি লাইনের মধ্যে ১১টি লাইন বিভিন্ন জায়গা থেকে হুবহু কপি করা, তিনটি লাইনের ভাবার্থসহ আংশিক মিল আছে, তা ছাড়া গানটির সুর প্রাচীন কীর্তন সুরের সঙ্গে যথেষ্ট মিলে যায়।’

সরলপুরের বক্তব্য ছিল, আপনারা (আইপিডিসি) যদি কপিরাইট অফিসে খোঁজ নিতেন, তা হলে তো জানতে পারতের গানটি কপিরাইট করা। আর যখন কেউ কোনো কিছু অবলম্বন করে সৃষ্টি করে, তখন সেই অভিযোজিত বিষয়টিও নতুন হয়ে ওঠে এবং সেই রাইটটাই আমরা নিয়েছি। সে কারণে কপিরাইটটি আমাদের এবং আইপিডিসি নতুন করে কাজটি করার কারণেই কপিরাইট লঙ্ঘিত হয়েছে।

তবে সমস্যা হয়েছে সরলপুরের দেয়া অঙ্গীকারনামায়। যখন কেউ কপিরাইটের জন্য রেজিস্ট্রেশন করে, তখন একটা স্টেটমেন্ট দিতে হয় সবাইকে। সরলপুর ব্যান্ডটি যথন ‘যুবতী রাধে’ গানটির কপিরাইট করে তখন তারাও স্টেটমেন্ট দিয়েছিল। সেখানে বলা হয়েছে, ‘আমরা (সরলপুর) কোথাও থেকে গানটি নকল বা অনুকরণ বা অনুসরণ করিনি।’

আইপিডিসি বলছে, এই যে তারা কপিরাইট রেজিস্ট্রেশনের সময়ই মিথ্যে স্টেটমেন্ট দিয়েছে। তারা তো ১১ লাইন হুবহু কপি করেছে; কিন্তু বলেছে যে কোথাও থেকে কপি করেনি। আর তারা (সরলপুর) ২-৩ বছর আগে গানটি কপিরাইট করে নিয়ে গেছে কিন্তু যখন ওয়েবে তুলেছে, তখন কোনো নোটিশ দেয়নি যে তাদের গানটি কপিরাইটকৃত, কপিরাইট আইন লঙ্ঘন হলে তারা ব্যবস্থা নিতে পারে।

প্রতিষ্ঠানটি আরও বলে, গানটি যেহেতু ময়মনসিংহ গীতিকা বা বিভিন্ন লোকগানের সঙ্গে মিলে যায় এবং সুরও কীর্তনের সঙ্গে মিলে যায় এবং আরও অনেক প্ল্যাটফর্মেই গানটি রয়েছে, তাই আমরা গানটি ইউটিউবে তুলেছিলাম। আমরা গানটি তোলার পর যখন প্রচুর ভিউ হয়, তখন সরলপুরের সমস্যা হলো, তারা শুধু আমাদের ব্যাপারে কপিরাইট লঙ্ঘনের অভিযোগ আনল এবং আমরা জানতে পারলাম যে গানটির কপিরাইট করা আছে। সঙ্গে সঙ্গে তাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে আমরা গানটি নামিয়ে ফেলেছি।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
‘যুবতী রাধে’ গানের কপিরাইট করা ব্যান্ড সরলপুর। ছবি: সংগৃহীত

কপিরাইট বোর্ড বলছে, আপনি (সরলপুর) অঙ্গীকারনামায় বলেছেন, আপনি কোনো অনুকরণ, অনুসরণ করেননি, এটা তো মিথ্যা স্টেটমেন্ট দিয়েছেন, বিভ্রান্ত করেছেন। তখন কেন বলেননি যে আপনারা আংশিক কপি করেছেন।

বিষয়টি ভালো করে বোঝাতে কপিরাইট অফিসার জাফর রাজা চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পাবলিক ডমেইনটাকে কেউ যদি কিছু কপি করে নিজের মতো তৈরি করে এবং তা যদি স্বীকার করে বা উল্লেখ করে, তা হলে নীতিগতভাবে তারা ঠিক থাকে। যেমন, রবীন্দ্রনাথের কোনো লেখা নিলে সেখানে তার ক্রেডিট দেয়া। কিন্তু যুবতী রাধে গানের ক্ষেত্রে তো সরলপুর সেটা করেনি।’

এমন প্রশ্নের উত্তরে সরলপুর ব্যান্ড পরিপূর্ণ কোনো জবাব দিতে পারেনি এবং তারা কিছু সময় চেয়েছে। সাত দিনের মধ্যে এর জবাব চাওয়া হয়েছে। সাত দিন পর এটার একটা জবাব কপিরাইট বোর্ড দিয়ে দিতে পারবে বলে জানানো হয়।

আরও পড়ুন:
স্বত্ব ৬০ বছর করে কপিরাইট আইনের খসড়ায় অনুমোদন
মান্নার সিনেমার স্বত্ব: হাইকোর্টে স্ত্রীর রিট

শেয়ার করুন

মন্তব্য

নৌকায় মোশাররফ-পার্নোর সারাদিন

নৌকায় মোশাররফ-পার্নোর সারাদিন

বিলডাকিনি সিনেমার দৃশ্যে পার্নো মিত্র ও মোশাররফ করিম। ছবি: নিউজবাংলা

সিনেমার লোকেশন হিসেবে নওগাঁকে বেছে নেয়ার কারণ জানতে চাইলে পরিচালক বলেন, ‘গল্পের সঙ্গে আত্রাই নদী ও পতিসর কাচারি বাড়ির মিল রয়েছে; তাই এখানে শুটিং করছি। আমাদের প্রায় ৭০ ভাগ শুটিং শেষ।’

দেশের জনপ্রিয় অভিনেতা মোশাররফ করিম অভিনীত নতুন সিনেমা বিলডাকিনি। জানুয়ারির প্রথম থেকে সিনেমার শুটিং চলছে নওগাঁয়। ১২ জানুয়ারি থেকে সেখানে শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন মোশাররফ করিম। মঙ্গলবার দুপুর থেকে সিনেমার শুটিংয়ে যোগ দিয়েছেন ভারতীয় অভিনেত্রী পার্নো মিত্র।

সিনেমাটি নির্মাণ করছেন ফজলুল কবীর তুহিন। বুধবার তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আজ (বুধবার) সারাদিন আমরা নওগাঁর আত্রাই নদীতে শুটিং করছি। আত্রাইয়ে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজড়িত পতিসর রবীন্দ্র কাচারি বাড়িতেও হবে শুটিং। ২৫ জানুয়ারি পর্যন্ত আমরা এখানেই থাকব।’

সিনেমার লোকেশন হিসেবে নওগাঁকে বেছে নেয়ার কারণ জানতে চাইলে পরিচালক বলেন, ‘গল্পের সঙ্গে আত্রাই নদী ও পতিসর কাচারি বাড়ির মিল রয়েছে; তাই এখানে শুটিং করছি। আমাদের প্রায় ৭০ ভাগ শুটিং শেষ।’

অভিনেতা মোশাররফ করিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘নওগাঁ চমৎকার একটি জেলা। এ জেলার প্রকৃতি, নদী, মানুষ, খাবার সব কিছুই অসাধারণ। শুটিংয়ের এই কয়েক দিনেই সবকিছু অনেক আপন মনে হয়েছে। খুব ভালো লাগছে। সময়গুলো খুব উপভোগ করছি।’

নূরুদ্দিন জাহাঙ্গীরের লেখা উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হচ্ছে সিনেমাটি। এটি ২০১৯-২০ অর্থবছরে সরকারি অনুদান পেয়েছে। অন্ধকারাচ্ছন্ন এক জনপদের গল্প এটি।

এক নারীকে ধর্ষণ এবং তার সন্তানসম্ভবা হয়ে পড়া নিয়ে এগিয়ে যাবে সিনেমাটির গল্প। শোষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে সামাজিক জাগরণের গল্প বিলডাকিনি।

আরও পড়ুন:
স্বত্ব ৬০ বছর করে কপিরাইট আইনের খসড়ায় অনুমোদন
মান্নার সিনেমার স্বত্ব: হাইকোর্টে স্ত্রীর রিট

শেয়ার করুন

মালয়ালাম সিনেমা ‘লুকা’ বাংলায় আসছে চরকিতে

মালয়ালাম সিনেমা ‘লুকা’ বাংলায় আসছে চরকিতে

‘লুকা’ সিনেমার দৃশ্যে তোভিনো থমাস ও আহানা কৃষ্ণা। ছবি: সংগৃহীত

দক্ষিণ ভারত কোচির ভীষণ মেধাবী স্ক্র্যাপ আর্টিস্ট লুকা আর নীহারিকা। একটি প্রদর্শনীতে তাদের পরিচয় এবং এরপর প্রেম, কিন্তু হঠাৎ এক অপ্রত্যাশিত মৃত্যুর পর সবকিছু বদলে যায়। এই ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ অফিসার আকবর। ধীরে ধীরে খুলতে থাকে রহস্যের জট। এমনই এক গল্পের সিনেমা ‘লুকা’।

২০১৯ সালে মুক্তি পাওয়া জনপ্রিয় রোমান্টিক-ড্রামা ঘরানার মালয়ালাম সিনেমা লুকার বাংলা ডাবিং আসছে ওটিটি প্ল্যাটফর্ম চরকিতে।

আগামী ২০ জানুয়ারি রাত ৮টায় চরকিতে মুক্তি পাবে সিনেমাটি। বুধবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে এই ওটিটি প্ল্যাটফর্মটি।

দক্ষিণ ভারত কোচির ভীষণ মেধাবী স্ক্র্যাপ আর্টিস্ট লুকা আর নীহারিকা। একটি প্রদর্শনীতে তাদের পরিচয় এবং এরপর প্রেম, কিন্তু হঠাৎ এক অপ্রত্যাশিত মৃত্যুর পর সবকিছু বদলে যায়। এই ঘটনার তদন্তে নামে পুলিশ অফিসার আকবর। ধীরে ধীরে খুলতে থাকে রহস্যের জট। এমনই এক গল্পের সিনেমা লুকা

সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন, তোভিনো থমাস, আহানা কৃষ্ণা, আনোয়ার শেরিফ, নিথিন জর্জসহ অনেকে। মুক্তির পর সে সময় ব্যবসা সফল হয়েছিল সিনেমাটি।

তোভিনো থমাসের অভিনয়ের সঙ্গে এই সিনেমায় বেশ নজর কাড়ে আহানা কৃষ্ণাও।

মালয়ালাম সিনেমা ‘লুকা’ বাংলায় আসছে চরকিতে
‘লুকা’ সিনেমার দৃশ্যে তোভিনো থমাস। ছবি: সংগৃহীত

লুকা ছাড়াও তোভিনো অভিনীত মিন্নাল মুরলি, মারি-টু, কালকি, লুসিফার, ভাইরাসসহ রয়েছে বেশ কিছু জনপ্রিয় সিনেমা।

আরও পড়ুন:
স্বত্ব ৬০ বছর করে কপিরাইট আইনের খসড়ায় অনুমোদন
মান্নার সিনেমার স্বত্ব: হাইকোর্টে স্ত্রীর রিট

শেয়ার করুন

ন্যান্সির করোনা, এখন ‘মোটামুটি ভালো’

ন্যান্সির করোনা, এখন ‘মোটামুটি ভালো’

সংগীতশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি। ছবি: সংগৃহীত

বর্তমানে ন্যান্সির শারীরিক অবস্থা কেমন জানতে চাইলে মহসিন বলেন, ‘দুদিন ধরে বেশ ঠান্ডা জ্বর ছিল। আজকে একটু কমেছে। তবে এখনও শুষ্ক কাশি রয়েছে। আগের তুলনায় এখন মোটামুটি ভালো।’  

করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন দেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী নাজমুন মুনিরা ন্যান্সি। বুধবার দুপুরে নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন তার স্বামী গীতিকার মেহেদী মহসিন। জানিয়েছেন, এখন তার শারীরিক অবস্থা মোটামুটি ভালো।

তিনি জানান, মঙ্গলবার তার করোনা টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

বর্তমানে ন্যান্সির শারীরিক অবস্থা কেমন জানতে চাইলে মহসিন বলেন, ‘দুদিন ধরে বেশ ঠান্ডা জ্বর ছিল। আজকে একটু কমেছে। তবে এখনও শুষ্ক কাশি রয়েছে। আগের তুলনায় এখন মোটামুটি ভালো।’

এর আগে করোনার দুই ডোজ টিকাও নিয়েছেন ন্যান্সি।

গত বছরের আগস্টে গীতিকার মেহেদী মহসীনকে বিয়ে করেন ন্যান্সি। সম্প্রতি তৃতীয় সন্তানের মা হওয়ার খবর জানিয়েছেন এ সংগীতশিল্পী। অনাগত সন্তানের নাম রেখেছেন মেহনাজ।

এর আগে তার রোদেলা ও নায়লা নামের দুই সন্তান রয়েছে।

আরও পড়ুন:
স্বত্ব ৬০ বছর করে কপিরাইট আইনের খসড়ায় অনুমোদন
মান্নার সিনেমার স্বত্ব: হাইকোর্টে স্ত্রীর রিট

শেয়ার করুন

জীবনে একবারই ঠিক সময়ে সেটে পৌঁছেছিলেন শাহরুখ

জীবনে একবারই ঠিক সময়ে সেটে পৌঁছেছিলেন শাহরুখ

বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খান ও পরিচালক ফারাহ খান। ছবি: সংগৃহীত

ফারহা বলেন, ‘অবাক করার মতো বিষয়, সেই গানের শুটিং চলাকালীন শাহরুখ একেবারে ঘড়ি ধরেই সেটে পৌঁছে যেতেন। তবে সেই ছিল প্রথম। এর আগেও কোনোদিন হয় নি, আর পরেও হবে না।’

শুটিং সেট থেকে পার্টি, সব জায়গায় শাহরুখ খান যে দেরি করে যান, সে কথা বিভিন্ন সময় বলিউডের অনেক তারকাই জানিয়েছিলেন।

তবে ওম শান্তি ওম-এর সেই বিখ্যাত ‘দিওয়ানগি’ গানের শুটিং চলাকালীন নাকি একমাত্র ঠিক সময়ে সেটে পৌঁছাতেন শাহরুখ।

ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সম্প্রতি একটি অনুষ্ঠানে এ কথা জানিয়েছেন সিনেমার পরিচালক ফারাহ খান।

ওম শান্তি ওম সিনেমার ‘দিওয়ান গি’ গানের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বলিউডের নতুন ও পুরোনো দিনের প্রায় সব তারকাই।

ফারহা বলেন, ‘সারাদিনে কম পক্ষে ৫ জন তারকাদের নিয়ে কাজ করতেন। প্রত্যেকের জন্য বরাদ্দ থাকত দুই ঘণ্টা সময়। অবাক করার মতো বিষয়, সেই গানের শুটিং চলাকালীন শাহরুখ একেবারে ঘড়ি ধরেই সেটে পৌঁছে যেতেন। তবে সেই ছিল প্রথম। এর আগেও কোনোদিন হয় নি, আর পরেও হবে না।’

সেসময় শাহরুখের কেন এমন পরিবর্তন দেখা গিয়েছিল তার কারণও জানান ফারাহ।

পরিচালকের বক্তব্য, শাহরুখ একাধারে প্রযোজক, উপস্থাপক সবকিছুই ছিলেন, তার অনেক চাপ ছিল। তবে সম্পূর্ণ গানের শুটিং দারুণ ভাবেই শেষ হয়।

ফারহা জানান, এই গানের শুটিংয়ের জন্য শুধু তারকাদের নিমন্ত্রণ করতে তাদের দরজায় দরজায় ঘুরে বেড়িয়েছেন তিনি এবং ডিজাইনার মণীশ মালহোত্রা। শুটিংয়ে সবাই হাসি-মজাতেই মাতিয়ে রেখেছিলেন ফ্লোর।

আরও পড়ুন:
স্বত্ব ৬০ বছর করে কপিরাইট আইনের খসড়ায় অনুমোদন
মান্নার সিনেমার স্বত্ব: হাইকোর্টে স্ত্রীর রিট

শেয়ার করুন

মুখোশ সিনেমার আনকাট সেন্সর

মুখোশ সিনেমার আনকাট সেন্সর

মুখোশ সিনেমার শিরোনাম সংগীতের পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত

কিছুদিন আগে পরিচালক জানিয়েছিলেন, পরিস্থিতি যদি বেশি খারাপ না হয় তাহলে ফেব্রুয়ারিতে ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে মুক্তি দেবেন সিনেমাটি।

কোনো কাটা-ছেঁড়া ছাড়াই সেন্সর ছাড়পত্র পেয়েছে মুখোশ সিনেমা। ইফতেখার শুভ পরিচালিত সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন পরীমনি, রোশান, মোশাররফ করিমসহ অনেকে।

সেন্সর পাওয়ার খবরটি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন পরিচালক ইফতেখার শুভ। সিনেমাটি মুক্তির কথা ছিল ২১ জানুয়ারি, কিন্তু করোনার কারণে তা স্থগিত করা হয়।

সেন্সর পাওয়া এবং মুক্তি নিয়ে শুভ বলেন, ‘আনকাট সেন্সর পেয়েছে মুখোশ সিনেমাটি। দেশ ও দেশের বাইরে অমিক্রন করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে এলে সিনেপ্লেক্স/হলে মুক্তি পাবে।’

সেন্সরের খবর পেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন পরীমনিও। তিনি তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে লেখেন, ‘আনকাট সেন্সর #মুখোশ।

কিছুদিন আগে পরিচালক জানিয়েছিলেন, পরিস্থিতি যদি বেশি খারাপ না হয় তাহলে ফেব্রুয়ারিতে ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে মুক্তি দেবেন সিনেমাটি।

এর আগে মুক্তি উপলক্ষে ও প্রচারণার অংশ হিসেবে ২ জানুয়ারি এক আয়োজনের মাধ্যমের প্রকাশ করা হয় সিনেমাটির টাইটেল সং।

ইফতেখার শুভর লেখা ‘পেজ নাম্বার 44’ উপন্যাস অবলম্বনে মুখোশ সিনেমাটি ২০১৯-২০ অর্থবছরের সরকারি অনুদানে নির্মিত। আর এর পরিবেশনার দায়িত্বে রয়েছে কপ ক্রিয়েশন।

সিনেমাটিতে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন আজাদ আবুল কালাম, ইরেশ যাকের, প্রাণ রায়, রাশেদ মামুন অপু, ফারুক আহমেদ, তারিক স্বপন, ইলিনা শাম্মি, অলংকার চৌধুরী।

আরও পড়ুন:
স্বত্ব ৬০ বছর করে কপিরাইট আইনের খসড়ায় অনুমোদন
মান্নার সিনেমার স্বত্ব: হাইকোর্টে স্ত্রীর রিট

শেয়ার করুন

সামান্থার কাছে যশরাজের তিন সিনেমা!

সামান্থার কাছে যশরাজের তিন সিনেমা!

ভারতীয় অভনেত্রী সামান্থা রুথ প্রভু। ছবি: সংগৃহীত

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, সামান্থার অভিনয়ে মুগ্ধ হয়ে তাকে নিয়ে কাজ করার পরিকল্পনা করছে প্রযোজনা বেশ কটি প্রতিষ্ঠান। যশরাজ ফিল্মস নাকি একসঙ্গে তিনটি সিনেমায় কাজের প্রস্তাব দিয়েছে সামান্থাকে।

ভারতের দক্ষিণী সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির জনপ্রিয় অভিনেত্রী সামান্থা রুথ প্রভু। দ্য ফ্যামিলি ম্যান সিরিজের দ্বিতীয় সিজনে অভিনয় করে নিজের আগের সব কাজকে ছাড়িয়ে গেছেন সামান্থা। আর বিয়েবিচ্ছেদের পরে যেন আরও দুর্ধর্ষ হয়ে উঠেছেন এ অভিনেত্রী।

দক্ষিণী সিনেমায় তো রাজত্ব আছেই, এবার বলিউডের দিকেও সামান্থা পা বাড়াচ্ছেন ধীরে ধীরে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবর, বলিউডের প্রথম সারির প্রযোজনা সংস্থা যশরাজ ফিল্মসের সঙ্গে হতে পারে তার পরবর্তী কাজ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, সামান্থার অভিনয়ে মুগ্ধ হয়ে তাকে নিয়ে কাজ করার পরিকল্পনা করছে প্রযোজনা বেশ কটি প্রতিষ্ঠান। যশরাজ ফিল্মস নাকি একসঙ্গে তিনটি সিনেমায় কাজের প্রস্তাব দিয়েছে সামান্থাকে।

রাজি হয়ে গেলে বিশাল টাকার পারিশ্রমিক পাবেন, কিন্তু প্রস্তাবটি নিয়ে আপাতত চিন্তাভাবনা করছেন অভিনেত্রী। বিষয়টি নিয়ে অবশ্য প্রযোজনা সংস্থা বা অভিনেত্রী, কেউই কিছু জানাননি।

দ্য ফ্যামিলি ম্যান-এর পরিচালকদ্বয় রাজ ও ডিকের সঙ্গে নতুন একটি ওয়েব সিরিজের কাজ শুরু করেছেন সামান্থা। এ ছাড়া দক্ষিণী ইন্ডাস্ট্রিতে আরও কিছু সিনেমা নিয়ে ব্যস্তই আছেন সামান্থা।

আরও পড়ুন:
স্বত্ব ৬০ বছর করে কপিরাইট আইনের খসড়ায় অনুমোদন
মান্নার সিনেমার স্বত্ব: হাইকোর্টে স্ত্রীর রিট

শেয়ার করুন

নতুন বাংলা হিপ হপ ‘আলাদা’

নতুন বাংলা হিপ হপ ‘আলাদা’

‘আলাদা’ হিপ হপ গানের পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত

একই সঙ্গে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ড্রিল মিউজিকও নিয়ে আসা হয়েছে এই গানে। ‘আলাদা’ নামের গানটি গ্লোবাল মিউজিক প্ল্যাটফর্মে এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামেও প্রকাশ করা হয়েছে।

দেশের হিপ হপ সংগীত জগতের শিল্পী দর্পণ আরভিএস ও আয়ানের যৌথ প্রযোজনায় প্রকাশ পেল নতুন বাংলা র‌্যাপ গান ‘আলাদা’। সম্প্রতি দর্পণের অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে এই গানটি প্রকাশ করা হয়েছে।

আন্ডার কনস্ট্রাকশন প্রোডাকশন ও বাংলা হাইপ এন্টারটেনমেন্টের সহযোগিতায় গানটির সংগীত পরিচালনা করেছেন ন্যাফবুম। নতুন গানটিতে মানুষের লাইফ স্টাইলের পাশাপাশি র‌্যাপারদের বিভিন্ন ধরনের চ্যালেঞ্জের বিষয় তুলে ধরা হয়েছে।

একই সঙ্গে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় ড্রিল মিউজিকও নিয়ে আসা হয়েছে এই গানে। ‘আলাদা’ নামের গানটি গ্লোবাল মিউজিক প্ল্যাটফর্মে এবং সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামেও প্রকাশ করা হয়েছে। নতুন এই ভিডিও গানটির মিডিয়া পার্টনার মিডিয়া কোয়েস্ট বাংলাদেশ।

নতুন গান নিয়ে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে দর্পণ বলেন, ‘যৌথ প্রযোজনায় এই প্রথম আমরা নতুন র‌্যাপ গান নিয়ে এসেছি। আশা করি, ভবিষ্যতে আরও ভালো কিছু নিয়ে আসতে পারব। নতুন গানটি গ্লোবাল মিউজিক প্ল্যাটফর্ম এবং ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রাম এবং ইউটিউবে প্রকাশ করা হয়েছে। আমরা বেশ সাড়াও পাচ্ছি।’

নতুন র‌্যাপ গানের ভিডিও প্রকাশের বিষয়ে আয়ান বলেন, ‘এর আগে আমরা ভিন্ন ভিন্নভাবে অনেক শো এবং কনসার্ট করেছি। এই প্রথম আমরা একসঙ্গে গান নিয়ে এসেছি।’

হিপ হপের র‌্যাপিং নিয়ে ১২ বছর ধরে বাংলাদেশে কাজ করছেন দর্পণ ও আয়ান। দেশের বিভিন্ন জায়গায় শো করেছেন তারা।

আরও পড়ুন:
স্বত্ব ৬০ বছর করে কপিরাইট আইনের খসড়ায় অনুমোদন
মান্নার সিনেমার স্বত্ব: হাইকোর্টে স্ত্রীর রিট

শেয়ার করুন