প্রতিশোধ নিতে ফিরছে ‘আরিয়া’

player
প্রতিশোধ নিতে ফিরছে ‘আরিয়া’

আরিয়া টু তে সুস্মিতা সেন হাজির হয়েছেন অ্যাকশন মুডে। ছবি: সংগৃহীত

প্রথম সিজনে বুদ্ধির জোরে সমস্যার মোকাবিলা করেছিলেন আরিয়া, কিন্তু এবার সন্তানদের রক্ষা করতে অস্ত্র হাতে দেখা গেছে তাকে। আরিয়া এবার পুরো অ্যাকশন মুডে।

আবারও পর্দায় ফিরছেন আরিয়া সারিন। ২০২০ সালের ১৯ জুন আরিয়া হিসেবে ওয়েবে এসেছিলেন সুস্মিতা সেন। সেই চরিত্র নিয়ে আবারও ফিরছেন তিনি। ডিজনি হটস্টারে তাকে দেখা যাবে দ্বিতীয় সিজন আরিয়া-২ তে।

এবার যেন আরিয়া হিংস্র বাঘিনী। নিজের পরিবারকে রক্ষা করতে মরিয়া আরিয়া। একেবারেই ভিন্ন অবতারে আসছেন সুস্মিতা। সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে কনটেন্টটির ট্রেলার।

আরিয়া এবার আরও কড়া, লাস্যময়ী ভাবটা ট্রেলারে অনুপস্থিত। পরতে পরতে রহস্য।

প্রথম সিজনে দেখা গিয়েছিল আরিয়ার স্বামীর রহস্যজনক মৃত্যু, পারিবারিক দ্বন্দ্ব ও জটিল সমীকরণ। একদিকে আরিয়ার টিনএজার মেয়ে; তার বয়সন্ধিকালে নানা রকম সমস্যা। অন্যদিকে স্বামীর হত্যাকারীকে খুঁজে বের করতে আরিয়ার লড়াই।

প্রতিশোধ নিতে ফিরছে ‘আরিয়া’
আরিয়া-২ ওয়েব কনটেন্টের একটি দৃশ্য। ছবি: সংগৃহীত

দ্বিতীয় সিজনের ট্রেলারে নতুন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে দেখা গেছে আরিয়াকে। মৃত স্বামীর একটি ভিডিও নতুন করে আবিষ্কার করেন তিনি। ভিডিওতে লুকিয়ে আছে কোনো গোপন তথ্য, যা হয়তো বিপজ্জনক ও রহস্যময়।

প্রথম সিজনে বুদ্ধির জোরে সমস্যার মোকাবিলা করেছিলেন আরিয়া, কিন্তু এবার সন্তানদের রক্ষা করতে অস্ত্র হাতে দেখা গেছে তাকে। আরিয়া এবার পুরো অ্যাকশন মুডে।

গত ১৯ নভেম্বর ছিল সুস্মিতার ৪৬তম জন্মদিন। সেদিনই জানান, শারীরিক সমস্যার জন্য অস্ত্রোপচার করতে হয়েছে তাকে। তবে সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

জনপ্রিয় ডাচ ক্রাইম-ড্রামা সিরিজ পেনোজা এর রিমেকে ওয়েব সিরিজের চিত্রনাট্য লিখেছেন সন্দীপ শ্রীবাস্তব ও অনু সিং চৌধুরী।

রাম মাধবনি পরিচালিত এই ক্রাইম-ড্রামাটি ১০ ডিসেম্বর আসছে ডিজনি প্লাস হটস্টারে।

আরও পড়ুন:
বিশ্ব বাবা দিবসে মাকেই শুভেচ্ছা জানালেন সুস্মিতার মেয়ে
শরীরচর্চা আর পিৎজার দ্বন্দ্বে ভুগছেন সুস্মিতার মেয়ে
হাসপাতালের করুণ ভিডিও দেখে অক্সিজেন পাঠালেন সুস্মিতা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

হয়ে গেল পরী-রাজের হলুদ, বিয়ে আজ

হয়ে গেল পরী-রাজের হলুদ, বিয়ে আজ

হলুদ শাড়িতে পরীমনি এবং সাদা-হলুদ পায়জামা-পাঞ্জাবিতে সেজেছেন শরিফুল ইসলাম রাজ। ছবি: নিউজবাংলা

পরিচালক গিয়াসউদ্দিন সেলিম বলেন, ‘এখন আসলে কিছু আনুষ্ঠানিকতা হচ্ছে। তখন (১৭ অক্টোবর) তো কোনো আয়োজন করা হয়নি। তাই কাছের মানুষ এবং পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এ আয়োজন।’ এরই মধ্যে হলুদের কিছু ছবি প্রকাশ পেয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

শুক্রবার রাতে হলুদ সন্ধ্যা হয়ে গেল অভিনয়শিল্পী দম্পতি পরীমনি ও শরিফুল ইসলাম রাজের। শনিবার হবে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা।

নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পরিচালক গিয়াসউদ্দিন সেলিম।

পাঠক, হয়তো ভাবছেন, এখন আবার হলুদ-বিয়ে কিসের! সবাইকে চমকে দিয়ে সম্প্রতি মা হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন পরীমনি। বাবার নামে বলেছেন শরিফুল ইসলাম রাজের নাম। রাজও জানিয়েছেন, তাদের বিয়ে হয়েছে ১৭ অক্টোবর। তাহলে এখন আবার কিসের হলুদ-বিয়ে!

গিয়াসউদ্দিন সেলিম বলেন, ‘এখন আসলে কিছু আনুষ্ঠানিকতা হচ্ছে। তখন (১৭ অক্টোবর) তো কোনো আয়োজন করা হয়নি। তাই কাছের মানুষ এবং পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এ আয়োজন।’

এরই মধ্যে হলুদের কিছু ছবি প্রকাশ পেয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। হলুদ শাড়িতে পরীমনি এবং সাদা-হলুদ পায়জামা-পাঞ্জাবিতে সেজেছিলেন রাজ। হলুদ ফুলে সাজানো হয়েছিল ঘরের দেয়াল।

আয়োজনে আমন্ত্রিত ছিলেন নির্মাতা গিয়াসউদ্দিন সেলিম, চয়নিকা চৌধুরী, রেদওয়ান রনি। কিছু অপরিচিত মুখও দেখা গেছে ফেসবুকে প্রকাশ পাওয়া ছবিতে। ধারণা করা হচ্ছে তারাই হয়তো পরিবারের সদস্য। এ ব্যাপারে তেমন কিছু বলতে চাননি সেলিম।

তিনি বলেছেন, ‘এ আয়োজনের মাধ্যমে পরী-রাজের পরিবারের সদস্যদের দেখা হওয়ার সুযোগ হয়েছে।’

সেলিমের পরিচালনায় গুণিন ওয়েব ফিল্মে প্রথমবার এক সঙ্গে কাজ করেন রাজ-পরী। পরী শিগগিরই মা নামের একটি সিনেমার শুটিংয়ে অংশ নেবেন।

আরও পড়ুন:
বিশ্ব বাবা দিবসে মাকেই শুভেচ্ছা জানালেন সুস্মিতার মেয়ে
শরীরচর্চা আর পিৎজার দ্বন্দ্বে ভুগছেন সুস্মিতার মেয়ে
হাসপাতালের করুণ ভিডিও দেখে অক্সিজেন পাঠালেন সুস্মিতা

শেয়ার করুন

মা-বাবা হলেন প্রিয়াঙ্কা-নিক

মা-বাবা হলেন প্রিয়াঙ্কা-নিক

মা-বাবা হয়েছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া-নিক জোনাস। ছবি: সংগ্রহীত

সন্তানের জন্য সবার কাছে আশীর্বাদ চেয়েছেন তারকা দম্পতি। সেই সঙ্গে অনুরোধ করেছেন, আপাতত তাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বাড়তি কৌতূহল দেখানো যেন বন্ধ করেন সবাই।

বিচ্ছেদ নিয়ে কত কথাই না হলো কিছুদিন আগে। প্রিয়াঙ্কা চোপড়া আর নিকের বিচ্ছেদের জল্পনায় পাকাপাকি দাড়ি টানলেন দম্পতি। নিন্দুকদের মুখ বন্ধ করে খুশির খবর দিলেন ‘নিকিয়াঙ্কা’।

মা-বাবা হয়েছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া-নিক জোনাস। শুক্রবার মধ্যরাতে নিজের ইনস্টাগ্রামে মা হওয়ার কথা জানান অভিনেত্রী।

জানিয়েছেন, সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান এসেছে নিকিয়াঙ্কার কোলে। সারোগেসি হলো অন্যের গর্ভে সন্তান বড় করা এবং জন্ম দেয়া। অর্থাৎ প্রিয়াঙ্কা-নিকের সন্তান অন্য কোনো নারীর গর্ভে বড় হয়েছে এবং জন্ম দিয়েছে।

সন্তানের জন্য সবার কাছে আশীর্বাদ চেয়েছেন তারকা দম্পতি। একই সঙ্গে অনুরোধ করেছেন, আপাতত তাদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে বাড়তি কৌতূহল দেখানো যেন বন্ধ করেন সবাই।

প্রিয়াঙ্কার নামের পাশ থেকে জোনাস পদবি তুলে দিতেই জল্পনায় মেতে উঠেছিল আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম। ছড়িয়েছিল নিক-প্রিয়াঙ্কার বিচ্ছেদের গুঞ্জনও। তার মধ্যেই মাতৃত্বের ইঙ্গিত দিয়েছেন অভিনেত্রী, কিন্তু কেউ বুঝতে পারেনি।

গত বছর বিয়ের তিন বছর উদযাপন করেছেন তারকা দম্পতি। নিকের চেয়ে ১০ বছরের বড় প্রিয়াঙ্কা; প্রণয় থেকে পরিণয়, প্রতি ক্ষেত্রেই ছিল সমালোচনা। সব কিছু ছাপিয়ে নিকিয়াঙ্কা যেন আবারও প্রমাণ করে দিলেন, বয়স নিছকই সংখ্যামাত্র। চাইলে যে কোনো বয়সেই সুখটা উপভোগ করা যায়।

আরও পড়ুন:
বিশ্ব বাবা দিবসে মাকেই শুভেচ্ছা জানালেন সুস্মিতার মেয়ে
শরীরচর্চা আর পিৎজার দ্বন্দ্বে ভুগছেন সুস্মিতার মেয়ে
হাসপাতালের করুণ ভিডিও দেখে অক্সিজেন পাঠালেন সুস্মিতা

শেয়ার করুন

মুক্তির নতুন তারিখ জানাল ‘আরআরআর’

মুক্তির নতুন তারিখ জানাল ‘আরআরআর’

‘আরআরআর’ সিনেমার পোস্টার। ছবি: সংগৃহীত

সিনেমাটির টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ছবি পোস্ট সেখানে জানানো হয়েছে, ‘যদি দেশে মহামারি পরিস্থিতির উন্নতি হয় এবং সব প্রেক্ষাগৃহ শতভাগ দর্শক নিয়ে খুলে যায়, তাহলে আমরা ১৮ মার্চ সিনেমাটি মুক্তি দেয়ার জন্য প্রস্তুত। অন্যথায় ২৮ এপ্রিল সিনেমাটি মুক্তি পাবে।’

সম্প্রতি করোনা পরিস্থিতির কারণে ভারতীয় অনেক সিনেমার মুক্তি স্থগিত হয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম একটি বাহুবলির নির্মাতা এস এস রাজমৌলির বহুল আলোচিত বিগ বাজেটের সিনেমা আরআরআর

গত ৭ জানুয়ারি মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল সিনেমাটির। আর তা ঘিরেই চালানো হয়েছিল ব্যাপক প্রচারণাও, কিন্তু করোনা বৃদ্ধি পাওয়ায় দিল্লিসহ দেশটির বিভিন্ন প্রান্তে সিনেমা হল সম্পূর্ণ বন্ধ ঘোষণা করা হয়। আবার কোথাও ৫০ শতাংশ দর্শক নিয়ে খোলা রাখার ঘোষণাও দেয়া হয়। শেষমেশ এই পরিস্থিতিতে মুক্তি স্থগিত করতে বাধ্য হয় সিনেমাটির নির্মাতারা।

তবে নতুন করে আবারও মুক্তির তারিখ জানাল আরআরআর-এর সংশ্লিষ্টরা। আগামী ১৮ মার্চ অথবা ২৮ এপ্রিল সিনেমাটি মুক্তি পাবে।

আরআরআর অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে শুক্রবার সন্ধ্যার এ তথ্য জানানো হয়।

সিনেমাটির টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে ছবি পোস্ট সেখানে জানানো হয়েছে, ‘যদি দেশে মহামারি পরিস্থিতির উন্নতি হয় এবং সব প্রেক্ষাগৃহ শতভাগ দর্শক নিয়ে খুলে যায়, তাহলে আমরা ১৮ মার্চ সিনেমাটি মুক্তি দেয়ার জন্য প্রস্তুত। অন্যথায় ২৮ এপ্রিল সিনেমাটি মুক্তি পাবে।’

আরআরআর-এ অভিনয় করেছেন রামচরণ, জুনিয়র এনটিআর, আলিয়া ভাট, অজয় দেবগনসহ আরও অনেক তারকা।

মেগা বাজেটের এই সিনেমাটি তেলেগু, হিন্দি, তামিল, মালয়ালাম এবং কন্নড় ভাষায় মুক্তি পাবে।

আরও পড়ুন:
বিশ্ব বাবা দিবসে মাকেই শুভেচ্ছা জানালেন সুস্মিতার মেয়ে
শরীরচর্চা আর পিৎজার দ্বন্দ্বে ভুগছেন সুস্মিতার মেয়ে
হাসপাতালের করুণ ভিডিও দেখে অক্সিজেন পাঠালেন সুস্মিতা

শেয়ার করুন

‘মদ্যপ’ বন্ধুর গাড়িতে স্পর্শিয়া, গেলেন থানায়

‘মদ্যপ’ বন্ধুর গাড়িতে স্পর্শিয়া, গেলেন থানায়

স্পর্শিয়া ও তার বন্ধু অর্ঘ ঘটনাস্থলে গাড়ির পেছনের অংশে বসে আছেন। ছবি: সংগৃহীত

বন্ধু থানায় মুচলেকা দিলেও স্পর্শিয়া নিউজবাংলাকে বলেন, তার বন্ধু ও তিনি মদ্যপ ছিলেন না, এটা প্রমাণ করতে তিনি রক্ত পরীক্ষা করতেও রাজি। তাদের গাড়ির গতি একেবারেই বেপরোয়া ছিল না- এমন দাবি করে তিনি বলেন, ‘গতি ছিল ৫০-এ।’

গভীর রাতে প্রাইভেট কার আটকে পুলিশ দেখতে পেল আরোহীর আসনে বসা অভিনেত্রী, মডেল অর্চিতা স্পর্শিয়া। গাড়িটি চালাচ্ছিলেন তার বন্ধু প্রাঙ্গণ দত্ত অর্ঘ।

পুলিশ বলছে গাড়িটি চলছিল ‘বিপজ্জনকভাবে’। বিচ্যুতি ছিল আরও। প্রাঙ্গণ স্বাভাবিক অবস্থায় ছিলেন না। তিনি মদ পান করে চালকের আসনে ছিলেন। যদিও এর লাইসেন্স ছিল তার।

বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টা থেকে ১২টার মধ্যে বনানী থেকে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে যাওয়ার সময় ধানমন্ডি ৮/এ সড়কে গাড়িটি আটকে প্রাঙ্গণ ও স্পর্শিয়াকে নেয়া হয় থানায়। তবে সেখানে বেশিক্ষণ থাকতে হয়নি তাদের। মুচলেকা দিয়েই পার পান।

মুচলেকাপত্রে লেখা, ‘আমি প্রাঙ্গণ দত্ত অর্ঘ, আমার ব্যক্তিগত গাড়ি বেপরোয়া গতিতে চালিয়ে আসার পথে ধানমন্ডির ইউনি মার্ট শপিং সেন্টারের সামনে কর্তব্যরত পুলিশের টহল গাড়ি চ্যালেঞ্জ করে, আমি তৎক্ষণাৎ গাড়িটি থামিয়ে দায়িত্বরত পুলিশ অফিসারের সঙ্গে কথা বলাকালে হঠাৎ উত্তেজিত হয়ে যাই এবং পুলিশের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করি।

‘পুলিশ আমাকে মদ্যপ অবস্থা কি না জানতে চাইলে আমি জানাই যে আমি অল্প মদ পান করেছি এবং আমার মদ পান করার লাইসেন্স আছে। পুলিশ লাইসেন্স প্রদর্শন করতে বললে আমি তৎক্ষণাৎ লাইসেন্স প্রদর্শন করতে ব্যর্থ হওয়ায় অতিরিক্ত গতিতে মদ্যপ অবস্থায় গাড়ি চালানো এবং পুলিশের সঙ্গে বাগবিতণ্ডা হওয়ায় থানার ঊর্ধ্বতন অফিসার আমার সঙ্গে ফোনে কথা বলে আমাকে থানায় যেতে বললে আমি আমার গাড়িসহ থানায় এসে হাজির হই এবং এই মর্মে মুচলেকা প্রদান করি যে ভবিষ্যতে এমন কার্যকলাপ আর করব না।’

মুচলেকাপত্রে কোথাও অবশ্য স্পর্শিয়ার নাম নেই।

স্পর্শিয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি মদ্যপ ছিলাম না, আর এটা যদি আমার রক্ত পরীক্ষা করেও প্রমাণ করতে হয়, তাতেও আমি রাজি।’

স্পর্শিয়ার দাবি, শুধু তিনি নন, তার বন্ধুও মদ্যপ ছিলেন না। আর তাদের গাড়ির গতি একেবারেই বেপরোয়া ছিল না। স্পর্শিয়ার ভাষ্যে, ‘গতি ছিল ৫০-এ।’

স্পর্শিয়া বলেন, ‘আমরা যখন ধানমন্ডির ৮/এ-তে টার্ন করছি, তখন পুলিশ আমাদের আটকায় এবং বলে, যেভাবে টার্ন করা হয়েছে তাতে নাকি পাশের সিএনজি পরিবহনের সঙ্গে লেগে যেতে পারত।’

এরপর অর্ঘের সঙ্গে কথা শুরু করে পুলিশ। অনেকক্ষণ কথা বলেও পুলিশ যখন তাদের ছাড়ছে না, তখন স্পর্শিয়া নিজেই গাড়ির চাবি খুলে পুলিশ সদস্যকে দিয়ে গাড়িসহ তাদের দুজনকে থানায় নিয়ে যেতে বলেন।

কিন্তু পুলিশ সদস্যরা তাদের থানায় নিয়ে না যেতে চাইলে তারা গাড়ির পেছনের অংশ খুলে সেখানেই বসে পড়েন এবং পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলতে শুরু করেন।

একপর্যায়ে স্পর্শিয়া ও অর্ঘ থানায় যান। স্পর্শিয়া বলেন, ‘থানায় যাওয়ার পর আমাকে তারা চলে যেতে বলেন, কিন্তু আমার বন্ধু অর্ঘ যেহেতু তখন পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে অন্য কক্ষে ছিল, তাই আমি চলে যাইনি। তারা অন্য কক্ষে বসে কথা বলে তার কাছ থেকে মুচলেকা নিয়েছে।’

মদ্যপও ছিলেন না আবার গাড়ির গতিও বেশি ছিল না, তার পরও কেন মুচলেকা দিলেন? জানতে চাইলে স্পর্শিয়া বলেন, ‘এটা আমি পরিষ্কার জানি না। কারণ সেই সময় আমি অর্ঘের সঙ্গে ছিলাম না। তাদের মধ্যে কী কথা হয়েছে, সেটা আমার জানা নেই।’

স্পর্শিয়া জানান, তার কাছে প্রচুর ফোন আসছে। কিছু না করেও সবার প্রশ্নের সম্মুখীন হওয়াটা তার কাছে হয়রানির মতো।

ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকরাম আলী মিয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটা গতকাল (বৃহস্পতিবার) লেট নাইটের ঘটনা। আমাদের এসআই মাইনুল ও মাহবুব ছিল ডিউটিতে। রাতে একটা গাড়ি রিকশাকে ধাক্কা দেয়ার উপক্রম হয়। পুলিশ ওই গাড়িটি থামালে গাড়িতে থাকা দুজন পুলিশের সঙ্গে উচ্চবাচ্য করে। তাদের এমন আচরণের পর পুলিশ তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য থানায় নিয়ে আসে। পরবর্তী সময়ে তারা তাদের ভুল বুঝতে পারে। স্পর্শিয়ার সঙ্গে যিনি ছিলেন, তিনিই গাড়ি চালাচ্ছিলেন। অর্ঘ নামের ওই ব্যক্তি মুচলেখা দিয়েছেন; তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
বিশ্ব বাবা দিবসে মাকেই শুভেচ্ছা জানালেন সুস্মিতার মেয়ে
শরীরচর্চা আর পিৎজার দ্বন্দ্বে ভুগছেন সুস্মিতার মেয়ে
হাসপাতালের করুণ ভিডিও দেখে অক্সিজেন পাঠালেন সুস্মিতা

শেয়ার করুন

১৬ বছর পর হামিন আহমেদের একক

১৬ বছর পর হামিন আহমেদের একক

১৬ বছর পর হামিন আহমেদের একক। ছবি: সংগৃহীত

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতের হামিন আহমেদ বলেন, ‘এ গানের যে কথা, তা প্রত্যেক মানুষের জীবনেই কখনও না কখনও অনুভূত হয়। অনেক যত্ন নিয়ে গানের অডিও-ভিভিওর কাজ করা হয়েছে।’

দেশীয় ব্যান্ডের জনপ্রিয় শিল্পী হামিন আহমেদ ১৬ বছর পর এলেন তার একক গান নিয়ে। এর আগে ২০০৬ সালে মাইলস ব্যান্ডের বাইরে একক গান করেছিলেন তিনি।

‘যেও না চলে, না বলে, কিছু না বলে, যেতে নেই ’- এমন কথার গানটি প্রকাশ পেয়েছে টিএম রেকর্ডসের ব্যানারে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়।

‘যেও না চলে’ শিরোনামের গানটি শুক্রবার প্রকাশ পেয়েছে অনলাইনে। গানটির সুর হামিন আহমেদের, কথা ও সংগীতায়োজন করেছেন কৌশিক হোসেন তাপস।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতের হামিন আহমেদ বলেন, ‘এ গানের যে কথা, তা প্রত্যেক মানুষের জীবনেই কখনও না কখনও অনুভূত হয়। অনেক যত্ন নিয়ে গানের অডিও-ভিভিওর কাজ করা হয়েছে।’

১৬ বছর পর একক গানে ফেরার কারণ জানিয়ে হামিন বলেন, ‘আমি দীর্ঘ সময় মাইলসের বাইরে সময় দিইনি। আমাকে উৎসাহিত করে, এমন কিছু গান এখন থেকে গাইব। এ গানটি আড্ডার ছলে গিটারে সুর তুলতে গিয়েই সৃষ্টি।’

শুধু কণ্ঠ দেয়াই নয়, গানে হামিন আহমেদের হাতের আঙুলে গিটারও বেজেছে। নিজে অংশ নিয়েছেন গানের চিত্রায়ণে। পুরো গানটি চিত্রায়িত হয়েছে মালদ্বীপে।

ফারজানা মুন্নীর প্রযোজনায় গানটি নির্মাণ করেছেন তানিম রহমান অংশু। এতে মডেল হয়েছেন আফরিন রাজিয়া তৃণা ও নিবিড় আদনান নাহিদ।

আরও পড়ুন:
বিশ্ব বাবা দিবসে মাকেই শুভেচ্ছা জানালেন সুস্মিতার মেয়ে
শরীরচর্চা আর পিৎজার দ্বন্দ্বে ভুগছেন সুস্মিতার মেয়ে
হাসপাতালের করুণ ভিডিও দেখে অক্সিজেন পাঠালেন সুস্মিতা

শেয়ার করুন

‘কোক স্টুডিও বাংলা’ দেখতে যেমন

‘কোক স্টুডিও বাংলা’ দেখতে যেমন

কোক স্টুডিও বাংলার সেটে সংগীতশিল্পীরা। ছবি: সংগৃহীত

ফেসবুকে প্রকাশ পাওয়া কিছু ছবির কারণে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য পাওয়ার আগেই দেখতে পাওয়া গেল ‘কোক স্টুডিও বাংলা’র লোগো এবং সেটের কিছু ডিজাইন।

ইউটিউবে প্রকাশ পাওয়া সংগীতের জনপ্রিয় পরিবেশনা কোক স্টুডিও। ভারত ও পাকিস্তানের পর প্ল্যাটফর্মটি কাজ করছে বাংলা গান নিয়ে; যার নাম ‘কোক স্টুডিও বাংলা’।

কিছুটা চুপিসারে চলছিল শুটিং। বিষয়টি নিয়ে কথা বলছেন না কেউই। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবি পোস্ট করা বাদ নেই।

ফেসবুকে প্রকাশ পাওয়া কিছু ছবির কারণে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য পাওয়ার আগেই দেখতে পাওয়া গেল ‘কোক স্টুডিও বাংলা’র লোগো এবং সেটের কিছু ডিজাইন।

‘কোক স্টুডিও বাংলা’ দেখতে যেমন

সম্প্রতি ফেসবুকে পাওয়া একটি ছবিতে দেখা গেছে সংগীতশিল্পী লাবিক কামাল গৌরবকে। তার সঙ্গে রয়েছেন আরও একজন। তাদের পেছনেই দেখা গেল কোক স্টুডিও বাংলার লোগো।

এ ছাড়া গ্রে ঢাকার ম্যানেজিং ডিরেক্টর গাউসুল আলম শাওন ছবি পোস্ট করেছেন অর্ণব, তাহসানদের সঙ্গে। সেখানে দেখা গেছে সেটের কিছু ডিজাইন।

বেসরকারি চ্যানেল দীপ্ত টিভির স্টুডিওতে চলছে এর শুটিং। কোমল পানীয় কোকাকোলার পৃষ্ঠপোষকতায় কাজটি করছে গ্রে ঢাকা।

‘কোক স্টুডিও বাংলা’ দেখতে যেমন

আয়োজনে দেশের অনেক কণ্ঠশিল্পীকেই দেখতে ও শুনতে পাবেন দর্শক-শ্রোতারা। সবার নাম এখনও জানা যায়নি। যাদের নাম জানা গেছে তাদের মধ্যে আছেন বাপ্পা মজুমদার, অর্ণব, মমতাজ, পান্থ কানাই, মিজান, কনা।

এ শিল্পীদের নিয়ে একটি কাজ করছেন পরিচালক শাহরিয়ার পলক। তার ফেসবুকে বেশকিছু ছবিও রয়েছে। এটি কবে থেকে দেখা ও শোনা যাবে তা এখনও জানা যায়নি।

আরও পড়ুন:
বিশ্ব বাবা দিবসে মাকেই শুভেচ্ছা জানালেন সুস্মিতার মেয়ে
শরীরচর্চা আর পিৎজার দ্বন্দ্বে ভুগছেন সুস্মিতার মেয়ে
হাসপাতালের করুণ ভিডিও দেখে অক্সিজেন পাঠালেন সুস্মিতা

শেয়ার করুন

শিল্পী সমিতির বোর্ড থেকে হাইকোর্টের আদেশের কপি উধাও

শিল্পী সমিতির বোর্ড থেকে হাইকোর্টের আদেশের কপি উধাও

শিল্পী সমিতির নোটিশ বোর্ডে হাইকোর্টের কপি ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছিল, শুক্রবার সকালে গিয়ে তা আর পাওয়া যায়নি। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

সমিতির অফিস সহকারী জাকির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটা কারা খুলে নিয়ে গেছে সেটা আমি জানি না।’ সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানকে ফোন করলেও পাওয়া যায়নি।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ১৬ জন সদস্যকে পূর্ণ থেকে সহযোগী সদস্য করা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না জানতে চেয়ে রুল জারি করে হাইকোর্ট। আদেশটি জারি হয় ১১ জানুয়ারি।

সেই আদেশের লিখিত কপি সংশ্লিষ্টদের কাছে পৌঁছে দেয়ার কাজ চলছে। সবশেষ বৃহস্পতিবার আদেশের কপি নিয়ে এফডিসিতে আসেন দুজন ব্যক্তি এবং কাগজগুলো দিতে চান মিশা সওদাগর এবং জায়েদ খানকে।

হাইকোর্টের আদেশের কপি বহনকারীর সঙ্গে জায়েদের দেখা হলেও কপিটি গ্রহণ করেননি জায়েদ খান। আর মিশা সওদাগর বৃহস্পতিবার এফডিসিতে ছিলেন না।

জায়েদ খান কপিটি গ্রহণ না করলে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছে যান কপি বহনকারী। নির্বাচন কমিশনার পীরজাদা হারুন জানান, তিনি কেবলই নির্বাচন কমিশনার, কিন্তু হাইকোর্টের সেই কপিসংশ্লিষ্ট কেউ না, তাই তিনিও সেটি গ্রহণ করেননি।

কেউ কপিটি গ্রহণ না করায় শিল্পী সমিতির নোটিশ বোর্ডে কপির কাগজ ঝুলিয়ে দিয়ে যাওয়া হয়।

রাতে সেই কপিটি কারা যেন খুলে নিয়ে গেছে। শুক্রবার সকালে এফডিসির মধ্যে শিল্পী সমিতিতে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নোটিশ বোর্ডে নেই হাইকোর্টের সেই কপি।

সমিতির অফিস সহকারী জাকির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটা কারা খুলে নিয়ে গেছে সেটা আমি জানি না।’

সমিতির সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানকে ফোন করলেও পাওয়া যায়নি।

শিল্পী সমতিরি পূর্ণ থেকে সহযোগী সদস্য হওয়া ১৬ জনের পক্ষের আইনজীবী মামুনুর রশীদ। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সমিতির ১৬ জন সদস্যকে কোনো যুক্তি, কারণ ও নোটিশ ছাড়াই পূর্ণ থেকে সহযোগী সদস্য করা হয়েছে। এর ফলে তারা তাদের ভোটাধিকার হারিয়েছেন। এটি চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে আবেদন করা হলে মাননীয় আদালত ১০ দিনের রুল জারি করেছে।’

২০১৮ সালে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ১৮৪ সদস্যকে পূর্ণ সদস্য থেকে সহযোগী সদস্য করার ঘটনা ঘটে। সেই সদস্যদের মধ্যে থেকে ১৬ জনের জন্য এ আদেশ জারি হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে মিশা-জায়েদের প্রতিদ্বন্দ্বী কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলের সহ-সভাপতি প্রার্থী রিয়াজ বলেন, ‘তারা (মিশা-জায়েদ) কেন এটি গ্রহণ করছেন না, তা জানি না। নির্বাচন না হলে আমি তাদের গিয়ে অনুরোধ করতে পারতাম বা বলতে পারতাম। এটা গ্রহণ না করা তো আদালত অবমাননার শামিল।’

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন ২৮ জানুয়ারি। এতে ভোট দেবেন ৪২৮ জন।

আরও পড়ুন:
বিশ্ব বাবা দিবসে মাকেই শুভেচ্ছা জানালেন সুস্মিতার মেয়ে
শরীরচর্চা আর পিৎজার দ্বন্দ্বে ভুগছেন সুস্মিতার মেয়ে
হাসপাতালের করুণ ভিডিও দেখে অক্সিজেন পাঠালেন সুস্মিতা

শেয়ার করুন