ফুলের তোড়া নিয়ে অনন্যা পান্ডের বাড়িতে ঈশান

ফুলের তোড়া নিয়ে অনন্যা পান্ডের বাড়িতে ঈশান

বলিউড অভিনেত্রী অনন্যা পান্ডে ও অভিনেতা ঈশান খট্টর। ছবি: সংগৃহীত

অনন্যার সঙ্গে দেখা করতে শনিবার ফুলের তোড়া নিয়ে তার বাড়িতে গিয়েছিলেন ঈশান। তার আগে রাস্তার পাশে দোকান থেকে ফুল কেনার একটিও ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

বলিউড অভিনেত্রী অনন্যা পান্ডের সঙ্গে উঠতি অভিনেতা ঈশান খট্টরের প্রেমের গুঞ্জন অনেক দিনের। যদিও দুজনের কেউই সেই সম্পর্ক নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি।

তবে এবার অনন্যার দুঃসময়ে পাশে দাঁড়ালেন ঈশান। মাদককাণ্ডে কয়েক দিন ধরেই মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ ব্যুরোর (এনসিবি) জেরার মুখে অনন্যা পান্ডে। বান্ধবীর এই কঠিন সময়ে পাশে দাঁড়ালেন ঈশান।

অনন্যার সঙ্গে দেখা করতে শনিবার ফুলের তোড়া নিয়ে তার বাড়িতে গিয়েছিলেন তিনি। তার আগে রাস্তার পাশে দোকান থেকে ফুল কেনার একটিও ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

শাহরুখপুত্র আরিয়ান খানের মাদককাণ্ডে বর্তমানে নাম জড়িয়েছে অনন্যা পান্ডেরও। যার জেরে পরপর দুই দিন এনসিবির জেরার মুখে পড়তে হয়েছে অনন্যাকে। সোমবার ফের এনসিবি অফিসে ডেকে পাঠানো হয়েছে অভিনেত্রীকে।

মাদককাণ্ডে নাম জড়ানোর পর থেকে অনন্যা যে মানসিকভাবে বিধ্বস্ত হয়ে পড়েছেন তা বোধহয় আর আলাদা করে বলার প্রয়োজন নেই। আর ঠিক সেই কারণেই বান্ধবীর মন ঠিক করতে সোজা তার বাড়ি পৌঁছে যান ঈশান।

খালি পিলি সিনেমায় একসঙ্গে অভিনয় করেছেন অনন্যা ও ঈশান। সেই সিনেমার শুটিং সেট থেকেই তাদের প্রেমের শুরু বলে গুঞ্জন শোনা যায়। এমনকি দুজনকে একসঙ্গে মালদ্বীপে ছুটি কাটাতেও দেখা যায়।

আরও পড়ুন:
অনন্যা পান্ডেকে ফের তলব

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শর্ত ভেঙে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠান প্রচারে ব্যবস্থা

শর্ত ভেঙে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠান প্রচারে ব্যবস্থা

প্রতীকী ছবি

প্রায় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক শেষে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে অ্যাটকোর নেতৃবৃন্দের সাথে অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। অনেকগুলো বিষয় আমরা আলোচনা করেছি। অ্যাটকোর পক্ষ থেকে কয়েকটি বিষয় তোলা হয়েছে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে মোবাইল অপারেটররা ওটিটি প্ল্যাটফর্ম পরিচালনা করছে।’

লাইসেন্সের শর্ত ভেঙে ওটিটি প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠান প্রচার করলে মোবাইল অপারেটরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

সচিবালয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন অ্যাটকোর সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানান তিনি।

বৈঠকে আইপি টিভির নিবন্ধনের প্রয়োজনীয়তা আছে কি না, তা তথ্যমন্ত্রীকে ভেবে দেখার অনুরোধ জানিয়েছে অ্যাটকো।

প্রায় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক শেষে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে অ্যাটকোর নেতৃবৃন্দের সাথে অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। অনেকগুলো বিষয় আমরা আলোচনা করেছি। অ্যাটকোর পক্ষ থেকে কয়েকটি বিষয় তোলা হয়েছে। এর মধ্যে একটি হচ্ছে মোবাইল অপারেটররা, ওটিটি প্ল্যাটফর্ম পরিচালনা করছে।

‘অ্যাটকোর বক্তব্য হচ্ছে এর জন্য তারা কোনো লাইসেন্সপ্রাপ্ত নন। সেখান থেকে উপার্জন করছে, কনটেন্ট বানাচ্ছে এবং সেগুলো অনলাইনে প্রচার করছে, যেটি তাদের লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ। আমরা বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করব। টেলিকম মন্ত্রণালয়, বিটিআরসি এবং একই সাথে মোবাইল অপারেটরদের আমরা নোটিফাই করব যে, তারা কেন এটি করছে। তারা যদি নিয়ম-বহির্ভূতভাবে এটা করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘আরেকটি বিষয় আলোচনা এসেছে, সেটি হচ্ছে আইপি টিভি। আপনারা জানেন আমরা আইপি টিভির রেজিস্ট্রেশন দেয়া শুরু করেছি। আইপি টিভি পৃথিবীর বাস্তবতা, তবে ব্যাঙের ছাতার মতো আইপি টিভি সমীচীন নয়। অ্যাটকোর পক্ষ থেকে যেটা বলা হয়েছে যে, আইপি টিভির রেজিস্ট্রেশন দেয়ার প্রয়োজন আছে কি না, সে প্রশ্ন তারা তুলেছেন।

‘আমরা ইতিমধ্যে ১৪টি আইপি টিভি রেজিস্ট্রেশনের অনুমতি দিয়েছি। আইপি টিভি কিন্তু কোনোভাবেই সংবাদ প্রচার করতে পারবে না। একই সাথে আইপি টিভি কোনোভাবেই কেবলের মাধ্যমে সম্প্রচার করতে পারবে না। সেটা শুধু ইন্টারনেটের মাধ্যমেই প্রচার করতে পারবে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে অত্যন্ত যত্ন সহকারে আমরা আইপি টিভির বিষয়ে অগ্রসর হতে চাই। যথেচ্ছভাবে রেজিস্ট্রেশন আমরা মনে করি সমীচীন হবে না।’

এর আগে অ্যাটকোর জ্যেষ্ঠ নেতা ইকবাল সোবহান চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজকে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদের আমন্ত্রণে আমরা একটি নির্ধারিত বৈঠকে বসেছিলাম। আমাদের দুটি সমস্যা আছে। যেমন: টিআরপির বিষয়ে আমরা আগেও আলাপ করেছি। সেটিও তারা (মন্ত্রণালয়) সমাধান করার পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন।

‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বিষয়ে টিআরপি নির্ধারণের সম্ভাবনা তারা বিবেচনা করছেন। আমরা আশা করছি এ সমস্যাটিও সমাধান হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আজকে বলেছি, আমাদের আইপি টিভির নামে নতুন করে কিছু নিবন্ধন দেয়া হচ্ছে, সেখানে আমাদের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর পক্ষ থেকে উদ্বেগের কথা জানিয়েছি। আমরা বলেছি, আইপি টিভি কোনো টেলিভিশন নেটওয়ার্কের সিদ্ধান্তের মধ্যে আসে না। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের পরে এখন প্রায় ৩ ডজনের মতো টেলিভিশন চ্যানেল সম্প্রচার করছে, তথ্য প্রচার করছে ও অনুষ্ঠান প্রচার করছে, সেখানে আইপি টিভি অনুমোদনের কোনো প্রয়োজন আছে কি না সেটা আমরা মন্ত্রীকে উদ্বেগের কথা বলেছি।

‘সেখানে বলেছি, আইপি টিভি যেন এগজিস্টিং টিভিগুলোর বিকল্প সেটা ব্যবসা বলুন বা অনুষ্ঠান সম্প্রচার বলুন, তার যেন বিকল্প না হতে পারে। এর জন্য আমরা তাকে অনুরোধ জানিয়েছি। আমরা বলেছি এটি দেয়ার আগে একটি নীতিমালা হওয়া দরকার। সেটি যেন করা হয়।’

ইকবাল সোবহান বলেন, ‘আমরা আরেকটি দাবি জানিয়েছি। বর্তমানে মোবাইল ফোন অপারেটররা ওটিটির মাধ্যমে বিভিন্ন অনুষ্ঠান করছেন। এমনকি সংবাদও সেখানে প্রচার করছেন। আমরা বলেছি তাদের লাইসেন্স দেয়া হয়েছে মোবাইল সেবা দেয়ার জন্য। তাদের কিন্তু ওটিটির মাধ্যমে কোনো অনুষ্ঠানের অনুমোদন কিন্তু দেয়া হয়নি।

‘তাই আমরা মনে করি, এটি অবৈধভাবে যারা ওটিটির মাধ্যমে যেটা করছেন, এটাকে বন্ধ করার জন্য দাবি জানিয়েছি। মন্ত্রী আমাদের কথা অত্যন্ত সহানুভূতির সাথে শুনেছেন এবং তিনি এ বিষয়ে নির্দেশনা দেবেন বলেই আমরা আশা করছি।’

আরও পড়ুন:
অনন্যা পান্ডেকে ফের তলব

শেয়ার করুন

ডিআইএফএফ-এ দেশের তিন সিনেমার ঢাকা প্রিমিয়ার

ডিআইএফএফ-এ দেশের তিন সিনেমার ঢাকা প্রিমিয়ার

ডিআইএফএফ-এ দেশের তিন সিনেমার প্রিমিয়ার, দেখা যাবে অভিযাত্রিক, মুখোশ। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

বাংলাদেশ প্যানারোমা বিভাগে আরও প্রদর্শিত হবে লাল মোরগের ঝুঁটি, হাল্ট, ঢাকা ড্রিম, দ্য ম্যান হু ওয়ান্টস টু শেয়ার হিজ পারসোনাল ই-মেইল উইথ ইউ, কালবেলা, দ্য আনওয়ান্টেড টুইন, চন্দ্রাবতী কথা, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবন ও বাংলাদেশের অভ্যুদয়।

ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের (ডিআইএফএফ) ২০তম আসর শুরু হতে যাচ্ছে জানুয়ারির ১৫ তারিখে, চলবে ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত। উৎসবের দশটি বিভাগে প্রদর্শিত হবে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন দৈর্ঘের শতাধিক সিনেমা।

উৎসবে প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে বেশ কটি দেশের সিনেমা। যার মধ্যে তিনটি সিনেমার হবে ঢাকা প্রিমিয়ার। বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন ডিআইএফএফ-এর মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইনচার্য রুহুল রবিন খান। এ ছাড়া উৎসবের ওয়েব সাইটেও সিনেমাগুলোর নাম প্রকাশ করা হয়েছে।

এশিয়ান ফিল্ম কম্পিটিশন বিভাগে এশিয়ার বিভিন্ন দেশের ২০টি সিনেমার সঙ্গে প্রতিযোগিতা করবে বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ প্রযোজনার সিনেমা মায়ার জঞ্জাল। সিনেমাটি বিভিন্ন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হলেও দেশের দর্শকরা এখনও সিনেমাটি দেখতে পাননি। ডিআইএফএফ-এর মাধ্যমে হবে সিনেমাটির ঢাকা প্রিমিয়ার।

মায়ার জঞ্জাল সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন ভারতের ফড়িং খ্যাত পরিচালক ইন্দ্রনীল রায় চৌধুরী। সিনেমার অন্যতম প্রযোজক দেশের নির্মাতা জসিম আহমেদ।

প্রযোজক তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে জানিয়েছেন, ‘আমন্ত্রণ জানাচ্ছি ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রতিযোগিতা বিভাগে থাকা বাংলাদেশ-ভারতের যৌথ প্রযোজনার একমাত্র সিনেমা মায়ার জঞ্জাল (ডেবরি অফ ডিজায়ার) দেখার জন্য।’

সিনেমায় অভিনয় করেছেন দেশের ওয়াহিদা মল্লিক জলি, অপি করিম, সোহেল মন্ডল, কলকাতার পরাণ বন্দোপাধ্যায়, ব্রাত্য বসু, ঋত্বিক চক্রবর্তীসহ অনেকে।

ঢাকা প্রিমিয়ার হতে যাওয়া আরও দুটি সিনেমা হল আজব কারখানাশিমু। দুটি সিনেমাই দেখানো হবে বাংলাদেশ প্যানারোমা বিভাগে।

সরকারি অনুদানের আজব কারখানা সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন শবনম ফেরদৌসী। এতে অভিনয় করেছেন কলকাতার পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, দেশের দোয়েলসহ অনেকে।

শিমু সিনেমাটির আগের নাম ছিল মেড ইন বাংলাদেশ। সিনেমাটির নাম বদল করা হয়েছে। এটি পরিচালনা করেছেন আন্ডার কনস্ট্রাকশন খ্যাত পরিচালক রুবাইয়াত হোসেন।

এই সিনেমাটিও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হলেও দেখতে পাননি দেশের দর্শকরা।

বাংলাদেশ প্যানারোমা বিভাগে আরও প্রদর্শিত হবে লাল মোরগের ঝুঁটি, হাল্ট, ঢাকা ড্রিম, দ্য ম্যান হু ওয়ান্টস টু শেয়ার হিজ পারসোনাল ই-মেইল উইথ ইউ, কালবেলা, দ্য আনওয়ান্টেড টুইন, চন্দ্রাবতী কথা, বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবন ও বাংলাদেশের অভ্যুদয়

‘অপরাজিত’ উপন্যাসের শেষাংশের ওপর ভিত্তি করে নির্মিত অভিযাত্রিক: দ্য ওয়ান্ডার লাস্ট অব অপু সিনেমাটি প্রদর্শিত হবে উৎসবে। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন শুভ্রজিৎ মিত্র। প্রথমে সিনেমায় দেশের আরিফিন শুভর অভিনয় করার কথা ছিল জন্য এদেশের দর্শকদের কাছে সিনেমাটি আলাদা আবেদন তৈরি করে।

এ ছাড়া কলকাতার বিরসা দাশগুপ্ত পরিচালিত থ্রিলার সিনেমা মুখোশও প্রদর্শিত হবে উৎসবে। মুখোশ হইচইতে মুক্তি পেয়েছে বেশ কিছুদিন হল।

আরও পড়ুন:
অনন্যা পান্ডেকে ফের তলব

শেয়ার করুন

শর্ত ভঙ্গ করে ওটিটিতে অনুষ্ঠান প্রচার নয়: তথ্যমন্ত্রী

শর্ত ভঙ্গ করে ওটিটিতে অনুষ্ঠান প্রচার নয়: তথ্যমন্ত্রী

ফাইল ছবি

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ওটিটি প্ল্যাটফর্মের ব্যাপারে মোবাইল অপারেটরদের কাছে জানতে চাওয়া হবে। নিয়ম বহির্ভূতভাবে লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে কিছু করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

লাইসেন্সের শর্ত ভেঙে ওটিটি (ওভার দ্য টপ) প্লাটফর্মে অনুষ্ঠান প্রচার করলে মোবাইল অপারেটরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

সচিবালয়ে টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন এ্যাটকোর সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ওটিটি প্ল্যাটফর্মের ব্যাপারে মোবাইল অপারেটরদের কাছে জানতে চাওয়া হবে। নিয়ম বহির্ভূতভাবে লাইসেন্সের শর্ত ভঙ্গ করে কিছু করলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এ সময় আইপি টিভি নিয়েও কথা বলেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আইপি টিভি এখন বাস্তবতা। যাচাই বাছাই করেই লাইসেন্স দেয়া হবে। ১৪টি আইপি টিভির লাইসেন্স দেয়া হয়েছে।

‘আইপিটিভিতে কোন সংবাদ প্রচার করা যাবে না’, যোগ করেন তিনি।

আরও পড়ুন:
অনন্যা পান্ডেকে ফের তলব

শেয়ার করুন

হাসতে হাসতে যুবককে ‘স্যরি’ বললেন কৃতি   

হাসতে হাসতে যুবককে ‘স্যরি’ বললেন কৃতি   

বলিউড অভিনেত্রী কৃতি শ্যানন। ছবি: সংগৃহীত

কৃতি শ্যানন অভিনীত ‘মিমি’ সিনেমার গান ‘পরম সুন্দরী’। চলতি বছরে বলিউডের অন্যতম সুপারহিট গান এটি। সেই গানের সঙ্গে নাম মিলে যাওয়ায় মজার বিড়ম্বনায় পড়েছেন তারই এক ভক্ত।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সুবাদে ভক্ত-অনুরাগীদের সঙ্গে এক ধরনের যোগাযোগ গড়ে ওঠে তারকাদের। সেখানে উপচে পড়ে প্রশংসার পাশাপাশি কটাক্ষের শিকারও হন তারকারা।

তবে কোনো অনুরাগীর জীবন নষ্ট করে দেয়ার মতো অভিযোগের মুখে তারকাদের পড়ার ঘটনা বিরল। যদিও এমনটাই ঘটেছে বলিউড অভিনেত্রী কৃতি শ্যাননের সঙ্গে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তুলেছেন এক ভক্ত। আর তা দেখে হেসে খুন অভিনেত্রী। সঙ্গে ‘স্যরি’ও বলেছেন।

পরম ছায়া নামের ওই টুইটার ব্যবহারকারী যুবক কৃতিকে ট্যাগ করে লেখেন, “ছোটবেলায় স্কুলে আমাকে কোনো কিছুই বিব্রত করেনি। আমি তাদের ওপরও রাগ করিনি যারা আমার নাম ও পদবি নিয়ে মশকরা করেছে, তবে যেদিন থেকে কৃতি শ্যাননের ‘পরম সুন্দরী’ (গান) এসেছে, আমাকে ইতোমধ্যে অন্তত এক হাজার বার এই পরিস্থিতির মুখে পড়তে হয়েছে। কেন এমনটা করলে কৃতি? কেন আমার জীবন নষ্ট করলে?”

পোস্টের সঙ্গে হাসির ইমো জুড়ে দিয়েছেন তিনি।

হাসতে হাসতে যুবককে ‘স্যরি’ বললেন কৃতি
অনুরাগীর টুইটে কৃতির রিপ্লাই। ছবি: সংগৃহীত

অনুরাগীর এই অভিযোগ শুনে বিস্মিত নায়িকা প্রতিক্রিয়াও জানিয়েছেন। টুইটারের রিপ্লাইয়ে কয়েকটি হাসির ইমো জুড়িয়ে দিয়ে কৃতি লেখেন, ‘ওপস!! স্যরি!’

কৃতি অভিনীত মিমি সিনেমার গান ‘পরম সুন্দরী’। চলতি বছরে বলিউডের অন্যতম সুপারহিট গান এটি। এ আর রহমানের সুরে গানটি গেয়েছেন শ্রেয়া ঘোষাল।

মিমিতে সারোগেট মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন কৃতি। তিনি ছাড়াও এতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা গেছে পঙ্কজ ত্রিপাঠিকে। গত ২৬ জুলাই নেটফ্লিক্সে মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটি।

হাসতে হাসতে যুবককে ‘স্যরি’ বললেন কৃতি
বলিউড অভিনেত্রী কৃতি শ্যানন। ছবি: সংগৃহীত

এদিকে অক্টোবরে মুক্তি পেয়েছে কৃতি অভিনীত সিনেমা হাম দো হামারে দো। মুক্তির অপেক্ষায় অভিনেত্রীর আরও একগুচ্ছ সিনেমা।

অক্ষয়ের নায়িকা হিসেবে বচ্চন পাণ্ডেতে থাকছেন তিনি। এ ছাড়াও আদিপুরুষ সিনেমায় প্রভাসের সঙ্গে কাজ করছেন। পাশাপাশি ভেড়িয়া, গণপত, শেহজাদার মতো চর্চিত সিনেমা রয়েছে কৃতির হাতে।

আরও পড়ুন:
অনন্যা পান্ডেকে ফের তলব

শেয়ার করুন

সুবর্ণার ৬২

সুবর্ণার ৬২

অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা। ছবি: সংগৃহীত

১৯৮০ সালে সৈয়দ সালাউদ্দিন জাকী পরিচালিত ‘ঘুড্ডি’ সিনেমা দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক সুবর্ণার। সিনেমাটিকে তিনি ‘সময়ের আগে নির্মিত একটি ছবি’ বলে আখ্যা দিয়েছিলেন এক সাক্ষাৎকারে।

চার দশকের বেশি সময় ধরে অভিনয়ের সঙ্গে যুক্ত বাংলা চলচ্চিত্র ও নাটকের তুমুল জনপ্রিয় মুখ সুবর্ণা মুস্তাফা। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত এ অভিনেত্রীর ৬২তম জন্মদিন আজ।

১৯৫৯ সালের ২ ডিসেম্বর জন্ম হওয়া সুবর্ণার ক্যারিয়ার শুরু মঞ্চ নাটক দিয়ে। টেলিভিশন ও বড় পর্দার পাশাপাশি দীর্ঘ ২২ বছর মঞ্চে অভিনয় করেন তিনি।

হুমায়ূন আহমেদের লেখা ধারাবাহিক নাটক ‘কোথাও কেউ নেই’ ও ‘আজ রবিবার’-এ তার চরিত্র মুনা ও মীরা ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়।

১৯৮০ সালে সৈয়দ সালাউদ্দিন জাকী পরিচালিত ঘুড্ডি সিনেমা দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক সুবর্ণার।সিনেমাটিকে তিনি ‘সময়ের আগে নির্মিত একটি ছবি’ বলে আখ্যা দিয়েছিলেন এক সাক্ষাৎকারে।

সুবর্ণার ৬২
অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা। ছবি: সংগৃহীত

১৯৮৩ সালে নতুন বউ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান, তবে সেই পুরস্কার তিনি নেননি। তার কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছিলেন, এ সিনেমায় তিনিই প্রধান চরিত্র।

সুবর্ণার জনপ্রিয় সিনেমাগুলোর মধ্যে রয়েছে ঘুড্ডি, নয়নের আলো, শঙ্খনীল কারাগার, পালাবি কোথায়গহীন বালুচর

টেলিভিশন নাটকে সুবর্ণা অত্যন্ত জনপ্রিয়। আফজাল হোসেন ও হুমায়ুন ফরিদীর সঙ্গে তার জুটি ছিল দর্শকনন্দিত। অভিনয়ের জন্য ২০১৯ সালে একুশে পদক পান এ অভিনেত্রী।

আরও পড়ুন:
অনন্যা পান্ডেকে ফের তলব

শেয়ার করুন

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর

কপিরাইট অফিসের শুনানি। ছবি কোলাজ: সংগৃহীত

শেলীর দাবি, সেই চুক্তিপত্র তিনি বাতিল করতে চান। কারণ সেই সব কনটেন্ট ২০১০ থেকে বা ২০১২ থেকে এখন পর্যন্ত মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ হয়েছে। সেখান থেকে তিনি অনেক টাকা পেতে পারতেন। অনলাইন মিডিয়া সম্পর্কে তার ভালো ধারণা ছিল না। তাই না বুঝেই তিনি সে চুক্তি করে দিয়েছেন।

গান, সিনেমা নিয়ে মাঝে মাঝেই দ্বন্দ্ব দেখা যায় মালিকানা নিয়ে, কখনও আবার অর্থ নিয়ে। অনেক সময় এই দ্বন্দ্ব চলতে থাকে বছরের পর বছর। অনেক সময় নিজেদের মধ্যে সমঝোতার মাধ্যমে সেসব সমস্যার সমাধান হয়।

সম্প্রতি বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস অনেক বিষয়ের সমাধান করছে। কপিরাইট ইস্যু নিয়ে বিভিন্ন উদ্যোগ, আলোচনার মাধ্যমে আইন প্রতিষ্ঠা করতে চাইছেন তারা। আগের অ্যানালগ সিস্টেম থেকে বর্তমানের ইউটিউব- সব বিষয় নিয়েই কাজ করছেন তারা।

বুধবার তেমন কিছু সমস্যার শুনানি ছিল কপিরাইট অফিসে। যার মধ্যে যুবতী রাধে, শেলী কাদের, আসিফ আকবর-শফিক তুহিন ইস্যু অন্যতম।

ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত ‘নিঝুম অরণ্যে’ সিনেমার গানের ভিসিডি ও ডিভিডি রাইট বাজারজাতকরণের চুক্তি জি-সিরিজের থাকলেও ২০১৭ সালে পুরো চলচ্চিত্রটি জি-সিরিজের কর্ণধার নাজমুল হক ভূঁইয়া তাদের প্রতিষ্ঠানের ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার করে।

এটি নিয়ে কপিরাইট অফিসে ইমপ্রেস টেলিফিল্মের বিরুদ্ধে আপিল করেন নাজমুল হক ভূঁইয়া।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
‘নিঝুম অরণ্যে’ সিনেমায় অভিনয় করেন সজল ও আজমেরী হক বাঁধন। ছবি: সংগৃহীত

শুনানিতে ইমপ্রেস টেলিফিল্মের পক্ষ থেকে কেউ ছিলেন না। নাজমুল হক ভূঁইয়ার পক্ষ থেকে কপিরাইট অফিসকে জানানো হয়, চ্যানেল আইয়ের সঙ্গে তাদের মৌখিক একটা সমঝোতা হয়েছে। পরবর্তী সময়ে তারা কপিরাইট অফিসে লিখিতভাবে বিষয়টি জানাবে।

আসিফের বিরুদ্ধে অন্যের গান ডিজিটালে রূপান্তর করে প্রতারণার মাধ্যমে বিপুল অর্থ উপার্জন করার অভিযোগ আনেন শফিক তুহিন। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে কপিরাইট অফিসে আপিল করেন আসিফ আকবর।

সেই আপিলের শুনানি ছিল বুধবার। শুনানিতে আসিফ আকবের পক্ষ থেকে আইনজীবী উপস্থিত থাকলেও ছিলেন না শফিক তুহিন। তিনি সময়ের আবেদন করেছেন। বোর্ড শফিক তুহিনের আবেদন মঞ্জুর করেছে।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
আসিফ আকবর (বাঁয়ে) ও শফিক তুহিন। ছবি: সংগৃহীত

নিউজবাংলাকে কপিরাইট অফিসার জাফর রাজা চৌধুরী বলেন, আগামী মাসেই আরেকটা সভা করা হবে।’

২০০১ সালের ৩০ জানুয়ারি প্রকাশ পায় আসিফ আকবরের গাওয়া তুমুল জনপ্রিয় গান ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’। গানটি নিয়ে ঝামেলা চলছে লেবেল প্রতিষ্ঠান সাউন্ডটেক এবং গীতিকার-সুরকার ইথুন বাবুর।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’ গানের অ্যালবামের কাভার। ছবি: সংগৃহীত

সাউন্ডটেকের করা আপিলের শুনানিতে বুধবার ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’ গানটির সুরকার-গীতিকার সময় বাড়ানোর দাবি করেন এবং তাকে সময় বাড়িয়ে দেয়া হয়।

আব্বাজান, স্বামী স্ত্রীর যুদ্ধ, লুটতরাজ, পিতা মাতার আমানত, মনের সাথে যুদ্ধ, আমি জেল থেকে বলছি, দুই বধূ এক স্বামী নামক সাতটি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের কপিরাইট চুক্তিপত্র বাতিল আবেদন করেছেন প্রয়াত মান্নার স্ত্রী শেলী কাদের। নাজমুল হক ভূঁইয়ার সঙ্গে শেলীর এ চুক্তি ছিল।

সাতটি পূর্ণ্যদৈর্ঘ্য সিনেমার কমার্শিয়াল রাইট শেলীই দিয়েছেন নাজমুল হক ভূঁইয়াকে। যার বিনিময়ে তিনি প্রথমে ২০ লাখ, পরে ৫ লাখ এবং শেষে ২ লাখ ১০ হাজার টাকা নিয়েছেন। তিনি নিজেই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন এবং সেই চুক্তিপত্র সঠিক বলে নিশ্চিত করেছেন।

এখন শেলীর দাবি, সেই চুক্তিপত্র তিনি বাতিল করতে চান। কারণ সেই সব কনটেন্ট ২০১০ থেকে বা ২০১২ থেকে এখন পর্যন্ত মিলিয়ন মিলিয়ন ভিউ হয়েছে। সেখান থেকে তিনি অনেক টাকা পেতে পারতেন। অনলাইন মিডিয়া সম্পর্কে তার ভালো ধারণা ছিল না। তাই না বুঝেই তিনি সে চুক্তি করে দিয়েছেন।

কপিরাইট আইনের সেকশন ২০ ধারার সাবসেকশন ২-এ বলা আছে, কোনো কপিরাইট প্রণেতা যদি মনে করেন যে কপিরাইটের চুক্তিটা তার জন্য ভালো হয়নি, তা হলে তিনি তা বাতিলের আবেদন করতে পারবেন।

এ ক্ষেত্রে কপিরাইট বোর্ড দুই পক্ষের শুনানি নেবে। যদি তা যুক্তিসঙ্গত হয়, তা হলে বোর্ড অবশ্যই সেটি বাতিলের সিদ্ধান্ত দেবে।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
প্রয়াত চিত্রনায়ক মান্না ও তার স্ত্রী শেলী। ছবি: সংগৃহীত

শেলীর এমন আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে অন্যপক্ষ জানিয়েছে, যদি এই ধরনের চুক্তি বাতিল হয় তা হলে এ অঙ্গনে মারাত্মক অরাজকতা তৈরি হবে। অনেকেই এটা করতে চাইবে। কেউ আজ চুক্তি করে এক বছর পরেই বলবে যে, সে চুক্তি বাতিল করতে চায়।

এ বিষয়ে কপিরাইট বোর্ড সিদ্ধান্ত দিয়েছে যে, ‘বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য একটি কমিটি গঠন করে দেব। সেই কমিটি শেলীর আবেদন পর্যালোচনা করে দেখবে, কেন শেলী কাদের এটি চাচ্ছেন এবং যদি চুক্তি বাতিল হয়, সে ক্ষেত্রে কী কী সমস্যা হতে পারে। এসব অ্যানালাইসিস করে কমিটি একটা রিপোর্ট দাখিল করবে পরের বোর্ডসভায়। এর ভিত্তিতে বোর্ড একটি পরিপূর্ণ সিদ্ধান্ত দেবে।’

‘যুবতী রাধে’ গান নিয়ে সরলপুর ব্যান্ডের সঙ্গে আইপিডিসির সমস্যার পরিপ্রেক্ষিতে কপিরাইট অফিসে শুনানি হয় বুধবার।

শুনানিতে আইপিডিসির পক্ষে বলা হয়, ‘যুবতী রাধে’ গানটি বিভিন্ন অনলাইন প্ল্যাটফর্মে পাওয়া যায়। গানটির মোট ৩২টি লাইনের মধ্যে ১১টি লাইন বিভিন্ন জায়গা থেকে হুবহু কপি করা, তিনটি লাইনের ভাবার্থসহ আংশিক মিল আছে, তা ছাড়া গানটির সুর প্রাচীন কীর্তন সুরের সঙ্গে যথেষ্ট মিলে যায়।’

সরলপুরের বক্তব্য ছিল, আপনারা (আইপিডিসি) যদি কপিরাইট অফিসে খোঁজ নিতেন, তা হলে তো জানতে পারতের গানটি কপিরাইট করা। আর যখন কেউ কোনো কিছু অবলম্বন করে সৃষ্টি করে, তখন সেই অভিযোজিত বিষয়টিও নতুন হয়ে ওঠে এবং সেই রাইটটাই আমরা নিয়েছি। সে কারণে কপিরাইটটি আমাদের এবং আইপিডিসি নতুন করে কাজটি করার কারণেই কপিরাইট লঙ্ঘিত হয়েছে।

তবে সমস্যা হয়েছে সরলপুরের দেয়া অঙ্গীকারনামায়। যখন কেউ কপিরাইটের জন্য রেজিস্ট্রেশন করে, তখন একটা স্টেটমেন্ট দিতে হয় সবাইকে। সরলপুর ব্যান্ডটি যথন ‘যুবতী রাধে’ গানটির কপিরাইট করে তখন তারাও স্টেটমেন্ট দিয়েছিল। সেখানে বলা হয়েছে, ‘আমরা (সরলপুর) কোথাও থেকে গানটি নকল বা অনুকরণ বা অনুসরণ করিনি।’

আইপিডিসি বলছে, এই যে তারা কপিরাইট রেজিস্ট্রেশনের সময়ই মিথ্যে স্টেটমেন্ট দিয়েছে। তারা তো ১১ লাইন হুবহু কপি করেছে; কিন্তু বলেছে যে কোথাও থেকে কপি করেনি। আর তারা (সরলপুর) ২-৩ বছর আগে গানটি কপিরাইট করে নিয়ে গেছে কিন্তু যখন ওয়েবে তুলেছে, তখন কোনো নোটিশ দেয়নি যে তাদের গানটি কপিরাইটকৃত, কপিরাইট আইন লঙ্ঘন হলে তারা ব্যবস্থা নিতে পারে।

প্রতিষ্ঠানটি আরও বলে, গানটি যেহেতু ময়মনসিংহ গীতিকা বা বিভিন্ন লোকগানের সঙ্গে মিলে যায় এবং সুরও কীর্তনের সঙ্গে মিলে যায় এবং আরও অনেক প্ল্যাটফর্মেই গানটি রয়েছে, তাই আমরা গানটি ইউটিউবে তুলেছিলাম। আমরা গানটি তোলার পর যখন প্রচুর ভিউ হয়, তখন সরলপুরের সমস্যা হলো, তারা শুধু আমাদের ব্যাপারে কপিরাইট লঙ্ঘনের অভিযোগ আনল এবং আমরা জানতে পারলাম যে গানটির কপিরাইট করা আছে। সঙ্গে সঙ্গে তাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে আমরা গানটি নামিয়ে ফেলেছি।

কপিরাইট শুনানিতে শফিক, ইথুন, শেলী, সরলপুর
‘যুবতী রাধে’ গানের কপিরাইট করা ব্যান্ড সরলপুর। ছবি: সংগৃহীত

কপিরাইট বোর্ড বলছে, আপনি (সরলপুর) অঙ্গীকারনামায় বলেছেন, আপনি কোনো অনুকরণ, অনুসরণ করেননি, এটা তো মিথ্যা স্টেটমেন্ট দিয়েছেন, বিভ্রান্ত করেছেন। তখন কেন বলেননি যে আপনারা আংশিক কপি করেছেন।

বিষয়টি ভালো করে বোঝাতে কপিরাইট অফিসার জাফর রাজা চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পাবলিক ডমেইনটাকে কেউ যদি কিছু কপি করে নিজের মতো তৈরি করে এবং তা যদি স্বীকার করে বা উল্লেখ করে, তা হলে নীতিগতভাবে তারা ঠিক থাকে। যেমন, রবীন্দ্রনাথের কোনো লেখা নিলে সেখানে তার ক্রেডিট দেয়া। কিন্তু যুবতী রাধে গানের ক্ষেত্রে তো সরলপুর সেটা করেনি।’

এমন প্রশ্নের উত্তরে সরলপুর ব্যান্ড পরিপূর্ণ কোনো জবাব দিতে পারেনি এবং তারা কিছু সময় চেয়েছে। সাত দিনের মধ্যে এর জবাব চাওয়া হয়েছে। সাত দিন পর এটার একটা জবাব কপিরাইট বোর্ড দিয়ে দিতে পারবে বলে জানানো হয়।

আরও পড়ুন:
অনন্যা পান্ডেকে ফের তলব

শেয়ার করুন

হৃদয় ভেঙেছে ‘দঙ্গল’ অভিনেত্রী সানিয়ার

হৃদয় ভেঙেছে ‘দঙ্গল’ অভিনেত্রী সানিয়ার

বলিউড অভিনেত্রী সানিয়া মালহোত্রা। ছবি: সংগৃহীত

সানিয়া বলেন, ‘আমার মনে হয় বিচ্ছেদ বেশির ভাগ মানুষের জন্যেই খুব একটা সুখকর নয়। এই পরিস্থিতি যে অত্যন্ত কঠিন থাকে, সে কথা বলাই বাহুল্য। আমার জন্যও একই কথাই প্রযোজ্য। হৃদয় এফোঁড়-ওফোঁড় হয়ে গিয়েছিল।’

বড়পর্দা কিংবা নেটফ্লিক্স, সব জায়গায় দারুণ উপস্থিতির প্রমাণ রেখে চলেছেন ‘দঙ্গল’ খ্যাত অভিনেত্রী সানিয়া মালহোত্রা।

সম্প্রতি ভারতীয় এক সংবাদমাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে নিজের প্রেম ও বিচ্ছেদ নিয়ে মুখ খুলেছেন অভিনেত্রী।

দীর্ঘ চার বছরের সম্পর্ক থেকে বেরিয়ে এসেছেন সানিয়া। তবে সেটা একদমই সহজ ছিল না তার কাছে। বিচ্ছেদে হৃদয় ভেঙেছে অভিনেত্রীর।

হৃদয় ভেঙেছে ‘দঙ্গল’ অভিনেত্রী সানিয়ার
বলিউড অভিনেত্রী সানিয়া মালহোত্রা। ছবি: সংগৃহীত

সেই অবস্থা থেকে নিজেকে কীভাবে সামলিয়েছেন সানিয়া, সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন সে কথাও।

অভিনেত্রী জানান, দিল্লি থাকার সময় থেকেই তার এই সম্পর্কের শুরু হয়েছিল। দীর্ঘ চার বছরের সেই লং ডিসট্যান্স সম্পর্কের ইতি টানেন গত বছর।

হৃদয় ভেঙেছে ‘দঙ্গল’ অভিনেত্রী সানিয়ার
বলিউড অভিনেত্রী সানিয়া মালহোত্রা। ছবি: সংগৃহীত

সানিয়া বলেন, ‘আমার মনে হয় বিচ্ছেদ বেশির ভাগ মানুষের জন্যেই খুব একটা সুখকর নয়। এই পরিস্থিতি যে অত্যন্ত কঠিন থাকে, সে কথা বলাই বাহুল্য। আমার জন্যও একই কথাই প্রযোজ্য। হৃদয় এফোঁড়-ওফোঁড় হয়ে গিয়েছিল। তবে এই সময়ের পরপরই আরও বেশি করে কাজে ডুবে গিয়েছিলাম। নিজের সর্বস্ব ঢেলে দিয়েছিলাম কাজে। নিজের ব্যাপারেও হয়েছিলাম যত্নশীল।’

হৃদয় ভেঙেছে ‘দঙ্গল’ অভিনেত্রী সানিয়ার
বলিউড অভিনেত্রী সানিয়া মালহোত্রা। ছবি: সংগৃহীত

সেই সাক্ষাৎকারে ২৯ বছর বয়সী এ অভিনেত্রী আরও বলেন, ‘সম্পর্কের বিভিন্ন খুঁটিনাটি দিকগুলো নিয়ে আমি এখন আরও অবগত। গত কিছুকাল ধরে আমি সিঙ্গেল। এই মুহূর্তে আমার সব মনোযোগ শুধু নিজের ওপরেই। নিজের মানসিক স্বাস্থ্যের দিকেও খেয়াল রাখছি। ব্যস, বুঝেছি নিজেকে ভালোবাসাটা ভীষণভাবে প্রয়োজন।’

আরও পড়ুন:
অনন্যা পান্ডেকে ফের তলব

শেয়ার করুন