‘নরসুন্দরী’ সিনেমায় অচেনা সাইমন-মাহি

‘নরসুন্দরী’ সিনেমায় অচেনা সাইমন-মাহি

নরসুন্দরী সিনেমায় সাইমন-মাহি। ছবি: সংগৃহীত

হাকিম মাঝি হয়ে হাজির হয়েছেন সাইমন সাদিক। নরসুন্দরী সিনেমায় তাকে এ চরিত্রে দেখা যাবে। এরই মধ্যে ৩-৪ দিন শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন সাইমন।

সিনেমায় নানা রকম চরিত্রে অভিনয় করতে হয় অভিনয়শিল্পীদের। অধিকাংশ সিনেমায় নায়ক-নায়িকাকে আকর্ষণীয় করে উপস্থাপন করা হয়। কম হলেও কিছু সিনেমার গল্পের প্রয়োজনে অভিনয়শিল্পীদের হাজির হতে হয় ডি-গ্ল্যাম লুকে।

এবার সে রকম এক চরিত্রে হাজির হচ্ছেন অভিনেতা সাইমন। এর আগে তাকে ভিন্ন কিছু চরিত্রে দেখা গেলেও নতুন যে চরিত্রে অভিনয় করছেন সেভাবে আগে দেখা যায়নি।

হাকিম মাঝি হয়ে হাজির হয়েছেন সাইমন সাদিক। নরসুন্দরী সিনেমায় তাকে এ চরিত্রে দেখা যাবে। এরই মধ্যে ৩-৪ দিন শুটিংয়ে অংশ নিয়েছেন সাইমন।

‘নরসুন্দরী’ সিনেমায় অচেনা সাইমন-মাহি
নরসুন্দরী সিনেমায় সাইমন সাদিক। ছবি: সংগৃহীত

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাইমন ফেসবুকে তার চরিত্রের কিছু ছবি পোস্ট করেন। যেখানে তাকে বড় চুল-দাড়িতে, লুঙ্গি-জামায় দেখা গেছে। কাঁধে আবার ঝুলিয়ে রেখেছেন গামছা।

ছবি পোস্ট করে এর ক্যাপশনে সাইমন লিখেছেন, ‘নায়ক নয়, চরিত্রটাকে প্রাধান্য দিয়ে কাজ করাচ্ছেন শামীম আহমেদ রনী ভাই।’

শামলা মিডিয়ার প্রযোজনায় সিনেমাটির পরিচালক শামীম আহমেদ রনী।

নিউজবাংলাকে সাইমন সাদিক বলেন, ‘গাজীপুরে সিনেমার শুটিং চলছে। আমি আগেই শুটিংয়ে অংশ নিয়েছি কিন্তু ছবি পোস্ট করেছি আজকে (মঙ্গলবার)। সামাজিক ক্রাইসিস নিয়ে নির্মিত হচ্ছে সিনেমাটি; ভালোবাসাও আছে। টানা চলবে শুটিং।’

‘নরসুন্দরী’ সিনেমায় অচেনা সাইমন-মাহি
নরসুন্দরী সিনেমার শুটিংয়ের সময় সাইমন ও কলাকুশলীরা। ছবি: সংগৃহীত

সিনেমায় সাইমনের বিপরীতে অভিনয় করছেন মাহিয়া মাহি। তাকেও দেখা যাবে ভিন্ন রকম লুকে। কিছুদিন আগে একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন মাহি। সেখানে তাকে দেখা গেছে সাদা শাড়িতে।

ছবিগুলো দেখে বেশ ভালোভাবেই ধারণা করা যাচ্ছে যে অচেনা রূপেই নরসুন্দরী সিনেমায় হাজির হচ্ছেন দর্শকদের চেনা সাইমন-মাহি।

আরও পড়ুন:
জেলে চরিত্রে সাইমন সাদিক

শেয়ার করুন

মন্তব্য

‘অভিনয়টা আত্মার খোরাক, একটা সময় পর ডাক্তারি করব’

‘অভিনয়টা আত্মার খোরাক, একটা সময় পর ডাক্তারি করব’

অভিনেত্রী রুকাইয়া জাহান চমক। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

‘অভিনয়টা আমার আত্মার খোরক হয়ে গেছে। সোল ফুড যে বিষয়টি, সেটা সংগ্রহ করতে আমার কাজটি করে যেতেই হবে। একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর আমি ডাক্তারি শুরু করব। এখন আমি অভিনয়টাই নিয়মিত করতে চাইছি।’

তার নামের সঙ্গেই চমক শব্দটি জুড়ে আছে। যে কাজগুলো করছেন, সে কাজেও চমক দিচ্ছেন তিনি। তার অভিনয়ে চমকে যাচ্ছেন অনেকে। বিশেষ করে মহানগর ওয়েব সিরিজে অল্প সময়েই পর্দায় উপস্থিতিতেই দাপটের সঙ্গে মনোযোগ কেড়েছেন এই অভিনেত্রী।

তিনি রুকাইয়া জাহান চমক। টিভি নাটক, ওয়েব কনটেন্টে তুমুল ব্যস্ত এই অভিনেত্রী। এক বছরও হয়নি অভিনয় শুরু করেছেন। এরই মধ্যে নামকরা অনেক পরিচালকের সঙ্গেই কাজ করা হয়ে গেছে তার। সম্প্রতি অভিনয় করেছেন মোশাররফ করিমের বিপরীতে।

চিকিৎসাবিজ্ঞানের এই শিক্ষার্থী আপাতত অভিনয়টাই চালিয়ে যেতে চান। কারণ এটি তার আত্মার খোরাক হয়ে উঠেছে। অন্যদিকে পরিবার চায় চিকিৎসক হিসেবে নিয়মিত হোন চমক।

এমন সব বিষয় নিয়ে নিউজবাংলা কথা বলেছে রুকাইয়া জাহান চমকের সঙ্গে।

  • চমক, আপনার পরিবার ও বেড়ে ওঠা নিয়ে একটু জানতে চাই।

আমি সে রকম একটি পরিবার থেকে এসেছি, যেখানে লেখাপড়াকে খুব গুরুত্ব দেয়া হয়। ক্লাসে প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় হতে হবে এমন ফ্যামিলি আমার। তো সেভাবেই বেড়ে ওঠা।

ক্লাসে আমি প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়র মধ্যেই থাকতাম সব সময়। এরপর সরকারি মেডিক্যালে ভর্তি হওয়া (কর্নেল মালেক মেডিক্যাল কলেজ, মানিকগঞ্জ)।

আমার বাবা ছিলেন বন বিভাগের সরকারি কর্মকর্তা। লেখাপড়ার বিষয়টাই আমার ফ্যামিলিতে বেশি ছিল। তারপরও কিছু এক্সট্রা কারিকুলাম তো ছিলই। আমি নৃত্য শিখেছি বুলবুল ললিতকলা একাডেমি (বাফা) থেকে। মেডিক্যালে আমি নৃত্যের জন্য অনেক পুরস্কার পেয়েছি। আবৃত্তি শিখেছিলাম। গানও করতাম টুকটাক। স্কুল-কলেজের কালচারাল অনুষ্ঠানগুলোতে আমি সব সময় চার-পাঁচটা করে পুরস্কার পেতাম।

অভিনয়ে একটা ঝোঁক ছিলই। নায়িকা হব- এমন ভাবতাম। এখন একটু চেঞ্জ হয়েছে ভাবনাটা। এখন কোনো কাজ দেখলে মনে হয় কীভাবে নিজেকে অভিনেত্রী হিসেবে গড়ে তোলা যায়। এটাই এখন আমার মেইন কনসার্ন।

  • মেডিক্যালে পড়ার ইচ্ছাটা কার? আপনার না পরিবারের?

পরিবারের একটা চাওয়া ছিল। লেখাপড়া ভালো করতে হবে, ও রকম একটা প্রেশার ছিল ফ্যামিলি থেকে। প্রেশার না থাকলে হয়তো আমি ফিল্ম মেকিং বা সিনেমাটোগ্রাফি বা লিটারেচার নিয়ে লেখাপড়া করতাম।

  • আপনি কী এটি বলতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন যে, আপনি লেখাপড়ার কোন স্টেজে আছেন?

আমার ইন্টার্নশিপ বাকি এখনও। কী বলা যায়, আমি শেষ পর্যায়ে আছি এখন।

  • লেখাপড়া শেষ করেছেন বলেই কি এখন অভিনয়টা করতে পারছেন? আপনার শুরুটা জানতে চাই?

অবশ্যই লেখাপড়াটা শেষ করেছি। এখন নিচের যেটা ইচ্ছা সেটা করছি। আর আমার শুরুটা লেখালেখির মাধ্যমে। নাম বলব না, আমি একজনকে স্ক্রিপ্ট দিতে গিয়েছিলাম। যাকে স্ক্রিপ্টটা দিতে গিয়েছিলাম তিনি বললেন, কেন তুমি এটাতে অভিনয় করছ না?

আমি বলেছিলাম যে, না আমি আমার স্ক্রিপ্টে কাজ করব না। অন্য কারো ভালো গল্পে যদি আমাকে কাস্ট করা হয়, তাহলে আমি হয়তো কাজ করতে পারি এবং পরে আমি অভিনয় শুরু করি।

ইন্ডাস্ট্রিতে আমার বয়স আট থেকে নয় মাস। খুবই অল্প সময় হলো কাজ শুরু করেছি। খুবই ভালো লাগছে আমার। এরই মধ্যে আমি ৫০+ নাটকে অভিনয় করেছি কেন্দ্রীয় চরিত্রের অভিনেত্রী হিসেবে। ২০টার বেশি টিভি কমার্শিয়াল (টিভিসি) করে ফেলেছি। ওয়েব সিরিজ করা হয়ে গেছে, হাউস নম্বর ৯৬ নামের সিরিয়াল করা হয়েছে।

শিগগিরই মিজানুর রহমান আরিয়ানের পরিচালনায় একটি সিরিয়াল শুরু করতে যাচ্ছি। যার নাম শুভ রাত্রি। সেখানে নাম-ভূমিকায় কাজ করছি আমি।

‘অভিনয়টা আত্মার খোরাক, একটা সময় পর ডাক্তারি করব’
অভিনেত্রী রুকাইয়া জাহান চমক। ছবি: সংগৃহীত

  • মহানগর ওয়েব সিরিজে অভিনয় করেছেন। দারুণভাবে সবার নজর কেড়েছেন আপনি।

আমি খুবই লাকি যে আমার অভিনীত প্রথম ওয়েব সিরিজটি এত জনপ্রিয় হয়েছে। পর্দায় আমার উপস্থিতি কম ছিল, তবু সবাই আমাকে নোটিশ করেছেন এবং সবাই আমাকে অনেক অনেক শুভকামনা জানিয়েছেন, ভালো বলেছেন।

অন্য যারা অভিনয়শিল্পী ছিলেন, তারা প্রত্যেকেই অনেক গুণী। তার মধ্যে আমাকেও খেয়াল করেছেন দর্শকরা। আমার কাছে এটা একটা অ্যাচিভমেন্ট।

  • বাংলাদেশের কনটেন্ট অনেকেই দেখেন না বলে শোনা যায়। এখানে কী ধরনের কাজ হয় তাও অনেকে জানেন না। আপনার চারপাশের মানুষজন কি এই প্রকৃতির?

আমি নিজেও কিন্তু আগে বাংলা কনটেন্ট তেমন দেখতাম না। নেটফ্লিক্সের এই যুগে বাংলা অ্যাপগুলো কতটুকু জনপ্রিয় হতে পারবে তা নিয়ে একটা প্রশ্ন ছিল।

এখন আমার মনে হয়, আমরা অনেক ভালো কনটেন্ট উপহার দিতে পারছি। যেমন, হইচই একটা বিদেশি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম। সেখানে অন্যতম সফল প্রজেক্ট হলো মহানগর। আমার মনে হয় এটা গর্বের বিষয়। এখন বাংলা কনটেন্ট দেখছে সবাই।

আমার মনে হয় এখন আমাদের স্বর্ণযুগ এসেছে। ওটিটি প্ল্যাটফর্ম আসার পর বাংলা কনটেন্টের স্বর্ণযুগ এখন। দর্শকদের উচিত এই কনটেন্টগুলো দেশে শিল্পী-নির্মাতাদের উৎসাহ দেয়া।

  • আপনার পরিবার ও বন্ধুরা কি আপনার মতোই মনে করছেন?

না না, আমার পরিবার এখনও মনে করছেন ‘তুমি ডাক্তারি করো’। তাদের মাইন্ডসেট হচ্ছে যে, ভালো করে লেখাপড়া করে সুন্দর কিছু করা।

মানুষের হয়তো এমন মনে হতে পারে যে বাংলাদেশের মিডিয়াতে কেমন কাজ হয়, কী হয়। সে ক্ষেত্রে আমি বলব যে, মিডিয়াতে এখন অনেক ভালো কাজ হচ্ছে, কোয়ালিটি ওয়ার্ক হচ্ছে এবং আমরা তো সুন্দর-সুস্থভাবে কাজ করে যাচ্ছি। আমার তো কোনো সমস্যা ফেস করতে হচ্ছে না।

  • মেডিক্যালের লেখাপড়াও অনেক কষ্টের শুনেছি, সেটি শেষ করে অভিনয় করছেন, সেটিও অনেক কষ্টের। মেনে নিচ্ছেন কীভাবে?

ঠিক বলেছেন। তবে কাজ শেষে আমার ফেসবুক পেজে ঢুকে যখন দেখি যে পোস্ট করা ছবির নিচে সবাই এত এত ভালোবাসা জানিয়েছে, ভালো লাগার কথা লিখেছে, তখন কষ্ট অনেকটা কমে যায়। কোথাও গেলে যখন মানুষ বলে যে আপনার অভিনয় ভালো লাগে, তখন মনে হয় পরিশ্রমটা ঠিকমতো করছি। কষ্টটা তখন জাস্টিফাই হয়ে যায়।

  • আপনি কখনও চিকিৎসা পেশায় যাবেন কি না?

অবশ্যই করব, কিন্তু এখন অভিনয়টা আমার আত্মার খোরক হয়ে গেছে। সোল ফুড যে বিষয়টি, সেটা সংগ্রহ করতে আমার কাজটি করে যেতেই হবে। একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর আমি ডাক্তারি শুরু করব। এখন আমি অভিনয়টাই নিয়মিত করতে চাইছি।

‘অভিনয়টা আত্মার খোরাক, একটা সময় পর ডাক্তারি করব’
অভিনেত্রী রুকাইয়া জাহান চমক। ছবি: সংগৃহীত

  • বিজ্ঞাপন, নাটক, ওটিটিতে কাজ করলেন। এখন কোন ধরনের কাজ আপনাকে বেশি টানছে।

যদি নির্মাতারা আমাকে নিয়ে সেভাবে ভাবেন, তাহলে অবশ্যই আমি কাজ করব। এমন চরিত্র যা আমি কখনও চিন্তাই করতে পারিনি, সেই চরিত্র চ্যালেঞ্জ নিয়ে করার চেষ্টা আমার থাকবে। নিজেকে ভেঙে যে কাজগুলো করতে হবে, সেগুলো করতে চাই। অফট্র্যাক কাজ করতে আমি বেশি পছন্দ করব।

  • বলছিলেন খুব অল্প সময় ধরে কাজ করছেন আপনি। এই সময়ের মধ্যে যতটুকু দেখলেন, তাতে মিডিয়ার পরিবেশ কেমন লাগছে আপনার?

এটা এখন আমার আরেকটা পরিবার হয়ে গেছে। আমি আমার বাবা-মায়ের সঙ্গে যতটা না সময় কাটাই, এখানকার মানুষদের সঙ্গে তার চেয়ে বেশি সময় কাটাতে হয়।

  • কাজ করতে করতে কখনও মনে হয়, কোনো একটা বিষয় যেটা পরিবর্তন হলে ভালো হতো।

হ্যাঁ, কিছু সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো উচিত। আমার মনে হয় শিল্পীদের কাজের সময়টা কমানো দরকার। আমরা কাজ করি অনেক বেশি সময়। সকাল থেকে অনেক রাত পর্যন্ত। এত বেশি সময় যে ইফিসিয়েন্ট ওয়ার্ক তখন দেয়া যায় না আসলে। এটা মাথায় রেখে কাজ করলে মনে হয় আরও ভালো কাজ করা সম্ভব।

আর ভালো কাজ করার জন্য প্রতিদিন শেখার চেষ্টা করছি। আমি শিখতে পছন্দ করি। আমি সিনেমাটোগ্রাফি নিয়ে বই পড়ার চেষ্টা করি। ফিল্ম মেকিং নিয়ে আমার আগ্রহ আছে। ইউটিউবে অ্যাক্টিং স্কুলের ভিডিও পাওয়া যায়। সেগুলো দেখে নিজেকে একটু একটু করে গ্রুম করার চেষ্টা করছি।

একজন অভিনয়শিল্পী জীবন থেকে বেশি শেখে। অভিনয়ের কোনো ব্যাকরণ নেই। অভিনয় হতে হবে স্বতঃস্ফূর্ত, অভিনয় মানেই প্রতিক্রিয়া এবং অভিনয় না করাটাই অভিনয়। আমি শিখছি এবং মজা করে শিখছি।

আরও পড়ুন:
জেলে চরিত্রে সাইমন সাদিক

শেয়ার করুন

নতুনদের নিয়ে জাজের ওয়েব সিনেমা ‘মোনা’

নতুনদের নিয়ে জাজের ওয়েব সিনেমা ‘মোনা’

ওয়েব সিনেমা ‘মোনা’তে অভিনয় করবেন সামিনা বাশার (বাঁয়ে) সাজ্জাদ ও সেমন্তী সৌমি (ডানে)। ছবি: সংগৃহীত

পরিচালক কামরুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটি হরর ও থ্রিলার ঘরনার একটি জার্নির সিনেমা। আগামী ২৫ ডিসেম্বর সিনেমাটির শুটিং শুরু করব আমরা।’

একঝাঁক নতুন ও তরুণদের নিয়ে নতুন ওয়েব সিনেমা বানানোর ঘোষণা দিয়েছে দেশের নামকরা প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়া।

প্রতিষ্ঠানটির ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে মঙ্গলবার এ ঘোষণা দেয়া হয়।

মোনা নামের এই ওয়েব সিনেমাটি পরিচালনা করবেন কামরুজ্জামান রোমান।

এতে অভিনয় করবেন, সাজ্জাদ, সামিনা বাশার, সেমন্তী সৌমিসহ অনেকে।

এ নিয়ে পরিচালক কামরুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আগামী ২৫ ডিসেম্বর সিনেমাটির শুটিং শুরু করব আমরা।’

মোনার গল্প নিয়েও দর্শকের উদ্দেশে হালকা ধারণা দিলেন পরিচালন। তিনি বলেন, ‘এটি হরর ও থ্রিলার ঘরনার একটি জার্নির সিনেমা।’

কোথায় শুরু হবে সিনেমাটির শুটিং তা এখনও ঠিক না হলেও কামরুজ্জামান জানান, ঢাকাই বাইরে সিনেমাটির শুটিং শুরু হবে। এমন লোকেশনে, যেখানে আগে কখনও লাইট-ক্যামেরা পৌঁছাইনি।

এর গত জুলাইয়ে চারটি ওয়েব বানানোর ঘোষণা দিয়েছিল জাজ। সেই সিরিজগুলো নাম- অনুপাপ, পাপ, বারুদ ও খোঁজ।

আরও পড়ুন:
জেলে চরিত্রে সাইমন সাদিক

শেয়ার করুন

বিচারের অপেক্ষায় বাংলাদেশ: ফারুকী

বিচারের অপেক্ষায় বাংলাদেশ: ফারুকী

নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। ছবি: সংগৃহীত

ফারুকী লেখেন, ‘পুলিশ পারে না এমন কোনো কাজ আছে বলে আমি বিশ্বাস করিনা। অপরাধ করে কেউ হাওয়ায় মিলায়ে যাইতে পারে না। বাংলাদেশ অপেক্ষা করে আছে জানার জন্য এই অপকর্মগুলা কারা করছে, এবং বসে আছে দেখার জন্য তাদের বিচার।’

দেশের বিভিন্ন জেলার পূজামণ্ডপে ও হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনার কদিন ধরেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদে সরব আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী।

এ নিয়ে মঙ্গলবারও নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে দুপুরের একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন ফারুকী।

তিনি লেখেন, ‘পুলিশ পারে না এমন কোনো কাজ আছে বলে আমি বিশ্বাস করিনা। অপরাধ করে কেউ হাওয়ায় মিলায়ে যাইতে পারে না। বাংলাদেশ অপেক্ষা করে আছে জানার জন্য এই অপকর্মগুলা কারা করছে, এবং বসে আছে দেখার জন্য তাদের বিচার।’

হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে সোমবার রাজধানীর শাহবাগ মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। গতকাল সেইগুলো ফেসবুকে শেয়ার করে ফারুকী লেখেন, ‘লেট বাংলাদেশ স্পিক (বাংলাদেশকে বলতে দাও)।’

এর আগে গত শনিবার এক স্ট্যাটাসে ঘটনাগুলোর ঠিকঠাক তদন্ত করে সবার সামনে তুলে ধরা, জড়িতদের দ্রুততার সঙ্গে তাদের শাস্তির আওতায় আনা এবং আগামীতে যেন এ রকম কিছু না ঘটে, সে জন্য ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান তিনি।

দুর্গাপূজা চলাকালীন ও বিসর্জন শেষে কুমিল্লাসহ দেশের কয়েকটি জায়গায় হিন্দুদের পূজামণ্ডপ, মন্দির ও বাড়িঘরে হামলা চালানো হয়। কুমিল্লার ঘটনার জের ধরে নোয়াখালীর চৌমুহনী, চাঁদপুরের হাজীগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় মণ্ডপ, মন্দির ও হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরবাড়িতে হামলা-ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়।

এর মধ্যে ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে রোববার রাতে রংপুরের পীরগঞ্জে রামনাথপুর ইউনিয়নের বাটের হাটে হিন্দু সম্প্রদায়ের বেশ কয়েকটি বাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়। হামলাকারীরা অন্তত ২৩টি বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ ক্ষতিগ্রস্তদের।

এসব ঘটনায় সোমবার পর্যন্ত ৭১টি মামলা হয়েছে। এতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪৫০ জনকে। আরও কিছু মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

আরও পড়ুন:
জেলে চরিত্রে সাইমন সাদিক

শেয়ার করুন

দেশটা সবার হোক, ‘সংখ্যালঘু’ না থাকুক: মিম

দেশটা সবার হোক, ‘সংখ্যালঘু’ না থাকুক: মিম

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের সুষ্ঠু তদন্ত এবং বিচার দাবি করেছেন বিদ্যা সিনহা মিম। ছবি: সংগৃহীত

দেশটা যদি সবার হয় তাহলে ‘সংখ্যালঘু’ শব্দটা থাকা উচিত নয় উল্লেখ করে মিম আরও লেখেন, ‘‘আরেকটা কথা, দেশটা যদি আমাদের সকলেরই হয়, তাহলে এখানে ‘সংখ্যালঘু’ বলে কোনো শব্দ থাকা উচিত না। আর যদি সংখ্যাতেই কথা বলতে হয়, তাহলে পৃথিবীতে শুধুমাত্র ভালো মানুষেরাই ‘সংখ্যাগরিষ্ঠ’ হোক।’’

কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন জেলার পূজামণ্ডপে ও হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং বিচার দাবি করেছেন বিদ্যা সিনহা মিম। সেই সঙ্গে ‘সংখ্যালঘু’ শব্দটি নিয়েও আপত্তি তুলেছেন এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী।

দেশটি যদি সবারই হয়, তাহলে ‘সংখ্যালঘু’ শব্দটি কেন- এমন প্রশ্ন মিমের।

সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের আগুনে রংপুরের পীরগঞ্জের জেলেপাড়া জ্বলছে এমন একটি ছবি মঙ্গলবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে পোস্ট করেন এই অভিনেত্রী।

ছবির ক্যাপশনে মিম লেখেন, ‘কোনো ধর্মই কখনও প্রতিহিংসা শেখায় না। তাই ধর্মীয় বিশ্বাসের নামে সকল সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করছি।’

দেশটা যদি সবার হয় তাহলে ‘সংখ্যালঘু’ শব্দটা থাকা উচিত নয় উল্লেখ করে মিম আরও লেখেন, ‘‘আরেকটা কথা, দেশটা যদি আমাদের সকলেরই হয়, তাহলে এখানে ‘সংখ্যালঘু’ বলে কোনো শব্দ থাকা উচিত না। আর যদি সংখ্যাতেই কথা বলতে হয়, তাহলে পৃথিবীতে শুধুমাত্র ভালো মানুষেরাই ‘সংখ্যাগরিষ্ঠ’ হোক।’’

দুর্গাপূজা চলাকালীন ও বিসর্জন শেষে কুমিল্লাসহ দেশের কয়েকটি জায়গায় হিন্দুদের পূজামণ্ডপ, মন্দির ও বাড়িঘরে হামলা চালানো হয়। কুমিল্লার ঘটনার জের ধরে নোয়াখালীর চৌমুহনী, চাঁদপুরের হাজীগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় মণ্ডপ, মন্দির ও হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরবাড়িতে হামলা-ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়।

এর মধ্যে ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে রোববার রাতে রংপুরের পীরগঞ্জে রামনাথপুর ইউনিয়নের বাটের হাটে হিন্দু সম্প্রদায়ের বেশ কয়েকটি বাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়। হামলাকারীরা অন্তত ২৩টি বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ ক্ষতিগ্রস্তদের।

এসব ঘটনায় সোমবার পর্যন্ত ৭১টি মামলা হয়েছে। এতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৪৫০ জনকে। আরও কিছু মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে।

সেই সঙ্গে হামলাকারীদের বিচারের আওতায় আনতে এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তা নিশ্চিতে বাংলাদেশকে আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ ও যুক্তরাষ্ট্র।

আরও পড়ুন:
জেলে চরিত্রে সাইমন সাদিক

শেয়ার করুন

ছবি শেয়ার করে শাস্তি নিশ্চিতের দাবি তারকাদের

ছবি শেয়ার করে শাস্তি নিশ্চিতের দাবি তারকাদের

ছবি শেয়ার করে শাস্তি নিশ্চিতের দাবি তারকাদের। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা

সংবাদ সংগ্রহের জন্য সেখানকার অনেকগুলো ছবি তোলেন নিউজবাংলার আলোকচিত্রী সাইফুল ইসলাম। সেই ছবিগুলো দিয়ে ছবির গ্যালারি বানিয়ে প্রকাশ করে নিউজবাংলা। সেই ছবি নিজেদের ফেসবুকে শেয়ার করে পূজামণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছেন দেশের নামকরা অনেক তারকা।

রংপুরের পীরগঞ্জে রোববার রাতে হিন্দু সম্প্রদায়ের ১৫ থেকে ২০টি বসতবাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় রাজপথ থেকে ফেসবুক- সবখানেই সরব সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিরোধীরা।

কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন জেলার পূজামণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতের দাবিসহ ৭ দফা দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ মোড় অবরোধ করে সোমবার বিক্ষোভ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

দেশের বিভিন্ন জেলার পূজামণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতের দাবিসহ ৭ দফা মানতে সরকারকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়ে শাহবাগ মোড়ের অবরোধ প্রত্যাহার করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

সংবাদ সংগ্রহের জন্য সেখানকার অনেকগুলো ছবি তোলেন নিউজবাংলার আলোকচিত্রী সাইফুল ইসলাম। সেই ছবিগুলো দিয়ে ছবির গ্যালারি বানিয়ে প্রকাশ করে নিউজবাংলা।

সেই ছবি নিজেদের ফেসবুকে শেয়ার করে পূজামণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতের দাবি এবং সম্প্রীতির বার্তা দিয়েছেন দেশের নামকরা অনেক তারকা।

আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন চলচ্চিত্র পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকী নিউজবাংলার ছবির গ্যালারি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘লেট বাংলাদেশ স্পিক (বাংলাদেশকে কথা বলতে দাও)।’

দেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী শায়ান চৌধুরী অর্ণব। তিনিও শেয়ার করেছেন নিউজবাংলার ছবিগুলো।

তিনি শুধু ইংরেজিতে লিখেছেন, ‘ইয়েস’।

দুটি মুষ্টিবদ্ধ হাতের ছবি দিয়ে নিউজবাংলা সেই ফটোগ্যালারি শেয়ার করেছেন আইসক্রিম খ্যাত অভিনেত্রী নাজিফা তুষি।

ভালোবাসার চিহ্ন ও মুষ্টিবদ্ধ হাতের ছবি দিয়ে ছবিগুলো শেয়ার করেছেন সময়ের আলোচিত অভিনেতা খায়রুল বাসার।

সংগীতশিল্পী মিতু কর্মকার ও নির্মাতা আশুতোষ সুজনও শেয়ার করেছেন ছবিগুলো, জানিয়েছেন হামলাকারীদের শাস্তির দাবি।

এ ছাড়া সাহস সিনেমার পরিচালক সাজ্জাদ খান, চোখ সিনেমার পরিচালক আসিফ ইকবাল জুয়েল আলাদা আলাদা করে ছবিগুলো ফেসবুকে পোস্ট করে সম্প্রীতি ও পূজামণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতের দাবির সঙ্গে একাত্মতা জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
জেলে চরিত্রে সাইমন সাদিক

শেয়ার করুন

আগে উৎসব পরে দেশে মুক্তি পাবে ‘কাগজ’

আগে উৎসব পরে দেশে মুক্তি পাবে ‘কাগজ’

কাগজ সিনেমার ফটোশুটে আইরিন ও ইমন। ছবি: সংগৃহীত

পরিচালক বলেন, ‘পুরো কাজ শেষ করে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে সিনেমাটি অংশ নেয়ার পর বাংলাদেশে মুক্তি পাবে। দর্শক গতানুগতিক ধারার বাইরে কিছু দেখতে পাবেন বলে আশা করছি। আমার প্রথম সিনেমায় কোনো কিছুরই কমতি রাখিনি।’

যাপিত জীবনের আড়ালে লুকায়িত অন্য এক জীবনের গল্প নিয়ে নির্মাতা জুলফিকার জাহেদী নির্মাণ করছেন তার প্রথম সিনেমা কাগজ। থ্রিলার-রোমান্টিকধর্মী গল্পের সিনেমাটিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করছেন চিত্রনায়ক মামনুন হাসান ইমন ও চিত্রনায়িকা আইরিন সুলতানা।

সিনেমাটি একজন লেখকের গল্প নিয়ে। একজন লেখক কীভাবে এক ফিলোসফি নিয়ে বিখ্যাত হয়ে ওঠেন তা দর্শক এই সিনেমায় দেখতে পাবেন বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান পরিচালক। এরই মধ্যে সিনেমাটির ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে পরিচালক বলেন, ‘পুরো কাজ শেষ করে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে সিনেমাটি অংশ নেয়ার পর বাংলাদেশে মুক্তি পাবে। দর্শক গতানুগতিক ধারার বাইরে কিছু দেখতে পাবেন বলে আশা করছি। আমার প্রথম সিনেমায় কোনো কিছুরই কমতি রাখিনি।’

লেখক ইমন আহমেদের চরিত্রে অভিনয় করছেন ইমন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমার কাজ হচ্ছে কাগজের মধ্যে লেখা। কাগজের সঙ্গে আমার সুন্দর একটি সম্পর্ক আছে। সিনেমাটি মুক্তি পেলে দর্শক বেশ উপভোগ করবেন।’

আগে উৎসব পরে দেশে মুক্তি পাবে ‘কাগজ’
কাগজ সিনেমার শুটিং সেটে পরিচালক (বাঁয়ে), আইরিন ও ইমন। ছবি: সংগৃহীত

ইমনের বিপরীতে রেনু চরিত্রে অভিনয় করছেন আইরিন। তিনি বলেন, ‘রেনু একটি বনেদি পরিবারের মেয়ে। দারুণ একটি গল্প নিয়ে পরিচালক সিনেমাটি নির্মাণ করছেন। আশা করছি, সিনেমাটি বাংলাদেশে নতুন প্রজন্মের দর্শকদের মধ্যে মাইলফলক হিসেবে স্থান করে নেবে।’

সিনেমার বিশেষ চরিত্রে রয়েছেন মাইমুনা মম ও এলিনা শাম্মী। আরও আছেন শহীদুজ্জামান সেলিম, শশী আফরোজা, মুন, আশরাফ কবির, ফারহান খান রিও, যুবরাজ। গল্প, চিত্রনাট্য তৈরি এবং প্রযোজনা করছেন নির্মাতা নিজেই।

আরও পড়ুন:
জেলে চরিত্রে সাইমন সাদিক

শেয়ার করুন

‘এরই নাম যদি সভ্যতা হয়, নিকুচি করি আমি’

‘এরই নাম যদি সভ্যতা হয়, নিকুচি করি আমি’

সংগীতশিল্পী বাপ্পা মজুমদার। ছবি: সংগৃহীত

‘কেউ যদি প্রতিবাদের ভাষা হিসেবে গানটিকে স্বীকৃতি দিতে চান, তিনি পারবেন। কারণ গানটির কথাগুলোর অনুভূতি শাশ্বত। যেকোনো অমানবিক, সাম্প্রদায়িক ও ধ্বংসের বিরুদ্ধে গানটি।’ বলেন বাপ্পা মজুমদার।

‘কবর কিংবা চিতা/ সেই তো সাড়ে তিন হাত/ তবুও কেন বলো বন্ধু/ বাছো এতো জাত-পাত/ তোমার ধর্ম, তোমার বর্ম/ মানুষের চেয়েও দামি/ এরই নাম যদি সভ্যতা হয়/ নিকুচি করি আমি!’

সাম্প্রতিক সময়ে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার বিরুদ্ধে এ যেন প্রতিবাদের ভাষা! এ কথাগুলো সুরে সুরে বলেছেন বাপ্পা মজুমদার আর কথাগুলো লিখেছেন মহসীন মেহেদী।

‘হে পাথর’ শিরোনামের গানটি সাম্প্রতিক সাম্প্রদায়িকতার প্রতিবাদ হিসেবে তৈরি হয়নি, নিউজবাংলাকে জানান বাপ্পা মজুমদার।

‘তবে কেউ যদি প্রতিবাদের ভাষা হিসেবে গানটিকে স্বীকৃতি দিতে চান, তিনি পারবেন। কারণ গানটির কথাগুলোর অনুভূতি শাশ্বত। যেকোনো অমানবিক, সাম্প্রদায়িক ও ধ্বংসের বিরুদ্ধে গানটি।’ বলেন বাপ্পা মজুমদার।

‘হে পাথর’ গানটিতে মিউজিক ভিডিওতে রয়েছেন বাপ্পা মজুমদার। সঙ্গে দেশ-বিদেশে ঘটে যাওয়া যুদ্ধ ও অমানবিক অনেক ঘটনার দৃশ্যের ভিডিও ব্যবহার করা হয়েছে।

গানটি তৈরির গল্প শুনিয়ে বাপ্পা মজুমদার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘গানটি আমার কাছে আসে আরও দেড় মাস আগে। কথাগুলো হাতে পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই আমি সুর করার কাজ ধরি।

‘সারা পৃথিবীতে যে অমানবিক কর্মকাণ্ড ঘটছে, তারই প্রতিবাদ হিসেবে গানটি করা। ১০ অক্টোবর ইউটিউবে গানটি প্রকাশ পায়। তার তিন-চার দিন পর দেশেও অস্থিতিকর পরিবেশ তৈরি হয়। এটি কাকতালীয়ভাবে মিলে গেছে।’

শুধু সাম্প্রদায়িক সহিংসতা নয়, যেকোনো অমানবিক ঘটনার প্রতিবাদ হিসেবেই গানটিকে শ্রোতারা চাইলে স্বীকৃতি দিলে আপত্তি থাকবে না বাপ্পা মজুমদারের।

রংপুরের ঘটনার প্রতিবাদ করেছেন জনপ্রিয় এ সংগীতশিল্পী। নিজের ফেসবুকে আগুন জ্বলা সেই ছবিটি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘লাল সবুজের দেশ !!! সম্প্রীতি(?)র দেশ !!!’

আরও পড়ুন:
জেলে চরিত্রে সাইমন সাদিক

শেয়ার করুন