কোয়ারেন্টিনে না থাকায় অস্ট্রেলিয়া সিরিজে নেই মুশফিক

কোয়ারেন্টিনে না থাকায় অস্ট্রেলিয়া সিরিজে নেই মুশফিক

মুশফিকুর রহিম। ফাইল ছবি

চুক্তি অনুযায়ী সিএ ১০ দিনের কোয়ারেন্টিন চায় অংশগ্রহণকারী ক্রিকেটারদের। যে কারণে মুশফিকের ইচ্ছা থাকার পরও সিরিজে তাকে সুযোগ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না জানান আকরাম খান।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে কঠোর স্বাস্থ্য নিরাপত্তা মেনে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে আসছে অস্ট্রেলিয়া। চার বছর পর বাংলাদেশে আসছে তারা।

বৃহস্পতিবার সিরিজের সূচি প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ৬ দিনে ৫টি ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া।

বাংলাদেশের জন্য দুঃসংবাদ সিরিজে খেলতে পারছেন না মুশফিকুর রহিম। খবরটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন বিসিবির ক্রিকেট অপারেশনসের প্রধান আকরাম খান।

অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট বোর্ড (সিএ) এর সঙ্গে সিরিজ নিয়ে বাংলাদেশের চুক্তি ছিল যে, দুই দলই ১০ দিনের কোয়ারেন্টিন করবে যা শুরু হয়েছে ২০ জুলাই থেকে।

অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশ ওই সময়ে সফরে থাকায় বাংলাদেশের কোয়ারেন্টিন শুরু হয়েছে হারারে থেকে আর ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে থাকা অস্ট্রেলিয়ার কোয়ারেন্টিন শুরু হয়েছে সেইন্ট লুসিয়া থেকে।

বাংলাদেশে এসে দুই দলের কোয়ারেন্টিন শেষ হবে ও বায়ো বাবলে থাকা অবস্থা ১ আগস্ট থেকে সিরিজের অনুশীলন শুরু হওয়ার কথা। ৩ আগস্ট শুরু সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি।

তবে বাবা-মা অসুস্থ হয়ে পড়ায় মুশফিককে জিম্বাবুয়ে থেকে আগেই দেশে ফিরে আসতে হয়। পারিবারিক ব্যস্ততা শেষে ২২ জুলাই তিনি বিসিবির কাছে কোয়ারেন্টিনে প্রবেশের আবেদন করেন।

বিসিবির আপত্তি না থাকলেও, বাধ সেধেছে সিএ। তারা চুক্তি অনুযায়ী ১০ দিন কোয়ারেন্টিন চায় অংশগ্রহণকারী ক্রিকেটারদের।

যে কারণে মুশফিকের ইচ্ছা থাকার পরও সিরিজে তাকে সুযোগ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না জানান আকরাম খান।

বলেন, 'ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে কোয়ারেন্টিন নিয়ে আমাদের চুক্তি আছে। যে কারণে আমরা মুশফিককে দলে রাখতে পারছি না। দুই দিন পর মুশফিকের কোয়ারেন্টিন শুরুর আবেদনে তারা রাজি হয়নি।'

দুই দল ঢাকায় নেমে বিমানবন্দর থেকে সরাসরি হোটেলের বায়ো বাবলে প্রবেশ করবে।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধি দল বিসিবির কোভিড নিরাপত্তা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছে। তবে তাদের অনুরোধে দুই ভেন্যুর বদলে একটি ভেন্যুতেই হচ্ছে সিরিজের সবগুলো ম্যাচ।

বিসিবি প্রথমে চট্টগ্রামে ম্যাচ আয়োজনের পরিকল্পনা করলেও সেটি বাতিল করা হয়েছে। সবগুলো ম্যাচ হবে মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

অস্ট্রেলিয়া দল কঠোর কোভিড প্রটোকল বজায় রাখবে। তাদের যাত্রা পথে যেনো সংক্রমণের শঙ্কা না থাকে সেজন্য ইমিগ্রেশন প্রক্রিয়া বিমানবন্দরের টারমাকে শেষ করে সেখান থেকে সরাসরি হোটেলে আসার অনুরোধ রেখেছে তারা।

আরও পড়ুন:
শততম ম্যাচ জিতে অস্ট্রেলিয়া ও পাকিস্তানের পাশে বাংলাদেশ
সৌম্য-নাইম ঝড়ে উড়ে গেল জিম্বাবুয়ে

শেয়ার করুন

মন্তব্য