আইপিএলে যাওয়ার অনুমতি পাচ্ছেন না সাকিব-মুস্তাফিজ

আইপিএলে যাওয়ার অনুমতি পাচ্ছেন না সাকিব-মুস্তাফিজ

সাকিব ও মুস্তাফিজ। ফাইল ছবি

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে টাইগাররা। এর মধ্যে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ থাকছে, যা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব ওয়ার্ল্ড সুপার লিগের অন্তর্ভূক্ত। এসব মিলিয়েই সাকিব ও মুস্তাফিজকে ছাড়তে রাজি নয় বিসিবি।

করোনাভাইরাস প্রকোপে মে মাসের শুরুতে স্থগিত হয়ে যায় ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) এবারের আসর। সেখানে কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলেন সাকিব আল হাসান। রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে মুস্তাফিজুর রহমান।

সেপ্টেম্বরে আইপিএলের বাকি অংশ শুরু করার কথা রয়েছে। তবে সেখানে খেলতে পারবেন না সাকিব ও মুস্তাফিজ। তাদেরকে আইপিএল খেলার অনাপত্তিপত্র দেয়া হবে না, এমনটি আভাস দেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান ও ক্রিকেট পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান।

চলমান ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ শেষ হওয়ার পরপরই পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে জিম্বাবুয়েতে উড়াল দেবে বাংলাদেশ দল। সেখান থেকে ফিরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে টাইগাররা।

এর মধ্যে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ থাকছে, যা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব ওয়ার্ল্ড সুপার লিগের অন্তর্ভূক্ত। এসব মিলিয়েই সাকিব ও মুস্তাফিজকে ছাড়তে রাজি নয় বিসিবি।

‘আমাদের পুরো দলের একসঙ্গে অনুশীলন করা দরকার। আমরা পূর্ণ শক্তির দল নিয়ে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলতে চাই। ওয়ানডে সুপার লিগ এবং টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দুটিই আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ,’ বলেন আকরাম।

এর আগে আইপিএল খেলার জন্য বাংলাদেশ দলের সঙ্গে শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজ খেলতে না যাওয়ায় সমালোচিত হন সাকিব।

আরও পড়ুন:
কাল থেকে মিরপুরে দিনে ডিপিএলের তিন ম্যাচ
সাকিব ও মুস্তাফিজকে সরকারের ধন্যবাদ
বিদেশের মাটিতে ৩০০-৩৫০ চান ডমিঙ্গো
ইমরুল-তুষার করোনায় আক্রান্ত

শেয়ার করুন

মন্তব্য

লো-স্কোরিং প্রথম দিনে এগিয়ে বাংলাদেশ যুব দল

লো-স্কোরিং প্রথম দিনে এগিয়ে বাংলাদেশ যুব দল

ম্যাচের আগে টস করছেন দুই দলের অধিনায়ক। ছবি: এএফসি

প্রথম দিনশেষে সফরকারী দলের সংগ্রহ দুই উইকেট ৪০। আগে ব্যাট করে ১৬২ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ যুব দল। ফলে এখনও ১২২ রানে এগিয়ে তারা।

আফগানিস্তান যুব দলের বিপক্ষে একমাত্র আন-অফিশিয়াল টেস্টের প্রথম দিন শেষে সুবিধাজনক অবস্থায় আছে বাংলাদেশ যুব দল। দিনশেষে সফরকারী দলের সংগ্রহ দুই উইকেট ৪০।

আগে ব্যাট করে ১৬২ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ যুব দল। ফলে এখনও ১২২ রানে এগিয়ে তারা।

সিলেটের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশ যুব দলের অধিনায়ক আইচ মোল্লা। সিমিং কন্ডিশনে শুরুটা ভালো করে স্বাগতিক দল।

নওরোজ নাবিল ও ইফতিখার হোসেন দেখেশুনে শুরু করেন। নাবিল ২০ রান করে আউট হলে ভাঙ্গে ৪৫ রানের উদ্বোধনী জুটি। ইফতিখার করেন ৩৭।

এরপর আরেকটি ছোট জুটি গড়েন আইচ মোল্লা ও মেহেরব হাসান। ৪৪ রান যোগ করে বিচ্ছিন্ন হন দুই জন।

মেহেরবের ব্যাট থেকে আসে ২৮ রান। এরপরই দুর্দান্ত বোলিং করা শুরু করেন আফগান সিমার বিলাল সামি।

তার নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে বাংলাদেশের যুবারা মুখ থুবড়ে পড়ে। ৪৫ রানে শেষ ছয় উইকেট হারায় স্বাগতিক দল। ৬৩ ওভারে গুটিয়ে যায় ১৬২ রানে।

আইচ দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৯ রান করেন। আফগানদের পক্ষে ৪২ রানে পাঁচ উইকেট নিয়ে সেরা বোলার ছিলেন সামি। ইজাহারুল্লাহ নাভিদ নেন ৪৫ রানে চার উইকেট।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দুই উইকেট হারায় সফরকারী দল। চার রান করে সুলিমান সাফি রানআউট হন। আর ইশাক জাজাইকে ১৭ রানে আউট করেন আশরাফুল ইসলাম।

আরও পড়ুন:
কাল থেকে মিরপুরে দিনে ডিপিএলের তিন ম্যাচ
সাকিব ও মুস্তাফিজকে সরকারের ধন্যবাদ
বিদেশের মাটিতে ৩০০-৩৫০ চান ডমিঙ্গো
ইমরুল-তুষার করোনায় আক্রান্ত

শেয়ার করুন

মুরাদের স্পিনে সংগ্রহ বাড়াতে পারল না মুমিনুলের দল

মুরাদের স্পিনে সংগ্রহ বাড়াতে পারল না মুমিনুলের দল

ছবি: বিসিবি

মুমিনুল হক ও নাজমুল হোসেন শান্তর হাফ সেঞ্চুরিতে দিনশেষে নয় উইকেটে ২২৩ রান সংগ্রহ করেছে এ-দল।এইচপির হয়ে বাঁ-হাতি স্পিনার মুরাদ হাসান ৪৭ রানে পাঁচ উইকেট নেন।

বিসিবির হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলের বিপক্ষে চারদিনের প্রস্তুতি ম্যাচে সুযোগ পেয়েও স্কোর বড় করতে পারেনি বাংলাদেশ এ-দল। মুমিনুল হক ও নাজমুল হোসেন শান্তর হাফ সেঞ্চুরিতে দিনশেষে নয় উইকেটে ২২৩ রান সংগ্রহ করেছে তারা।

এইচপির হয়ে বাঁ-হাতি স্পিনার মুরাদ হাসান ৪৭ রানে পাঁচ উইকেট নিয়ে এ-দলের ইনিংসকে ছোট সংগ্রহে বেঁধে রাখেন।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বুধবার সকালে টস জিতে এ-দলকে ব্যাট করতে পাঠান এইচপির অধিনায়ক আকবর আলী।

ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি এ-দল। দুই ওপেনার সাইফ হাসান ও সাদমান ইসলাম বিদায় নেন ১১ রানে। সাইফের ব্যাট থেকে আসে দুই আর সাদমান করেন ছয় রান। দুই জনকেই ফেরান পেইসার সুমন খান।

তৃতীয় উইকেটে মুমিনুল ও নাজমুলের হাফ সেঞ্চুরিতে বিপর্যয় এড়ায় এ-দল। ৮৮ রান যোগ করেন দুই ব্যাটসম্যান।

মুমিনুল ৬২ রান করে রেজাউর রহমানের বলে আউট হন। আর ৭২ রান করা নাজমুল হোসেনকে ফেরান শাহদাত হোসেন।

এরপর দ্রুত মোহাম্মদ মিঠুন, ইয়াসির আলি ও ইরফান শুক্কুরকে ফিরিয়ে এইচপিকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ এনে দেন মুরাদ। মিঠুনের ব্যাট থেকে আসে পাঁচ। বাকি দুইজন রানের খাতা খুলতে পারেননি।

১১৬ রানে সাত উইকেট হারিয়ে দেড় শর নিচে গুটিয়ে যাওয়ার শঙ্কা ছিল এ-দলের সামনে। সেখান থেকে নাঈম হাসান ও শহীদুল ইসলামের ব্যাটে দুই শ ছাড়ানোর ভিত পায় তারা।

নাঈম ৩২ ও শহিদুল ৩৬ রান করেন। দিনশেষে রাকিবুল হাসান ছয় রানে অপরাজিত ছিলেন।

মুরাদ পাঁচটি, সুমন দুটি উইকেট নেন। সিরিজের প্রথম ম্যাচ বৃষ্টির কারণে ড্র হয়।

আরও পড়ুন:
কাল থেকে মিরপুরে দিনে ডিপিএলের তিন ম্যাচ
সাকিব ও মুস্তাফিজকে সরকারের ধন্যবাদ
বিদেশের মাটিতে ৩০০-৩৫০ চান ডমিঙ্গো
ইমরুল-তুষার করোনায় আক্রান্ত

শেয়ার করুন

আইপিএলে আবারও করোনার আঘাত

আইপিএলে আবারও করোনার আঘাত

অনুশীলনে সানরাইজার্সের সিমার টি নটরাজন। ছবি: টুইটার

আইপিএল কর্তৃপক্ষ এক বিবৃততে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে বুধবার বিকেলে সানরাইজার্স ও দিল্লি ক্যাপিটালসের মধ্যেকার ম্যাচ সূচি অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয় বিবৃতিতে।

ছয় মাস বিরতির পর ভেন্যু বদল করে শুরু হয়েছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ২০২১ সালের আসরে দ্বিতীয় পর্ব। তৃতীয় দিনে এসে আবারও করোনাভাইরাসের আক্রমণের মুখে পড়েছে জনপ্রিয় এই ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট।

সানরাইজার্স হায়দরাবাদ দলের সিমার টি নটরাজনের পরীক্ষায় করোনাভাইরাস ধরা পড়েছে। দুবাইয়ে দলের থেকে আলাদা হয়ে আইসোলেশনে আছেন তিনি।

আইপিএল কর্তৃপক্ষ এক বিবৃততে বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তবে বুধবার বিকেলে সানরাইজার্স ও দিল্লি ক্যাপিটালসের মধ্যেকার ম্যাচ সূচি অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয় বিবৃতিতে।

নটরাজনের সংস্পর্শে আসা আরও পাঁচজনকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। বুধবার সকালে করোনা পরীক্ষা করানো হয় সানরাইজার্সের বাকি খেলোয়াড়দের। নটরাজন ছাড়া বাকি সবাই নেগেটিভ হয়েছেন।

করোনা ভাইরাসের কারণে গত মে মাসে আইপিএল স্থগিত করা হয়। ভারত থেকে টুর্নামেন্ট সরিয়ে আরব আমিরাতে নিয়ে আসা হয় এই টি-টোয়েন্টি আসরকে।

প্রথম পর্যায়ে ২৯টি ম্যাচ হওয়ার পর টুর্নামেন্ট স্থগিত হয়ে যায়। দ্বিতীয় পর্যায়ে বাকি ৩১টি ম্যাচ হওয়ার কথা।

আইপিএল খেলতে এরই মধ্যে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ক্রিকেটাররা যোগ দিয়েছেন। আরব আমিরাতে সামনের মাস থেকে শুরু হচ্ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ।

ক্রিকেটাররা বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে দেখছেন বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় এই টুর্নামেন্টটিকে। বাংলাদেশের দুই তারকা ক্রিকেটার মুস্তাফিজুর রহমান ও সাকিব আল হাসানও খেলছেন নিজ ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে।

সাকিব খেলছেন কলকাতা নাইট রাইডার্স আর মুস্তাফিজ খেলছেন রাজস্থান রয়্যালসের হয়ে।

আরও পড়ুন:
কাল থেকে মিরপুরে দিনে ডিপিএলের তিন ম্যাচ
সাকিব ও মুস্তাফিজকে সরকারের ধন্যবাদ
বিদেশের মাটিতে ৩০০-৩৫০ চান ডমিঙ্গো
ইমরুল-তুষার করোনায় আক্রান্ত

শেয়ার করুন

ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার

ওমরাহ থেকে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার

ওমরাহ শেষে দেশে ফিরেছেন সাত ক্রিকেটার। ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বকাপের আগে ছুটিতে ওমরাহ করতে যাওয়া সাত ক্রিকেটার হলেন, নাঈম শেখ, নুরুল হাসান সোহান, তাইজুল ইসলাম, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, জাকির হোসেন, আফিফ হোসেন ও তাসকিন আহমেদ।

গত বৃহস্পতিবার ওমরাহ পালন করতে সৌদি আরব যান জাতীয় দলের সাত ক্রিকেটার। ওমরাহ পালন শেষে মঙ্গলবার রাতে তারা দেশে ফিরেছেন।

ওমরাহ থেকে ফিরেই বুধবার শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে এসেছিলেন সাইফউদ্দিন। তবে বাকি ছয় ক্রিকেটারকে মাঠে আসতে দেখা যায়নি।

বিশ্বকাপের আগে ছুটিতে ওমরাহ করতে যাওয়া সাত ক্রিকেটার হলেন, নাঈম শেখ, নুরুল হাসান সোহান, তাইজুল ইসলাম, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, জাকির হোসেন, আফিফ হোসেন ও তাসকিন আহমেদ।

এর আগে বিসিবির পক্ষ থেকে জানানো হয় দেশে ফিরে পরিবারকে সময় দেবেন ক্রিকেটাররা। এরপর অক্টোবরের চার তারিখে ওমানের যাবেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা।

সেখানকার কন্ডিশনের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নিতে বাংলাদেশ তিনটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে।

১৭ অক্টোবর থেকে শুরু বাংলাদেশের বিশ্বকাপের মূল পর্বে জায়গা করে নেয়ার লড়াই। স্কটল্যান্ড, ওমান এবং পাপুয়া নিউগিনির বিপক্ষে পরীক্ষা দিয়ে জায়গা করে নিতে হবে টাইগারদের বিশ্বকাপের মূল মঞ্চে।

আরও পড়ুন:
কাল থেকে মিরপুরে দিনে ডিপিএলের তিন ম্যাচ
সাকিব ও মুস্তাফিজকে সরকারের ধন্যবাদ
বিদেশের মাটিতে ৩০০-৩৫০ চান ডমিঙ্গো
ইমরুল-তুষার করোনায় আক্রান্ত

শেয়ার করুন

১০ ওভারে ২০০ রান!

১০ ওভারে ২০০ রান!

রোমানিয়ার বিপক্ষে নেদারল্যান্ডের ম্যাচের একটি মুহূর্ত। ছবি: সংগৃহীত

ইউরোপিয়ান ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশিপে রোমানিয়ার বিপক্ষে অবিশ্বাস্য এই রেকর্ডটি করেছে নেদারল্যান্ডস। ১০ ওভারে খেলা এই টুর্নামেন্টে এক উইকেটের খরচায় তারা তুলেছে ২০০ রান।

হেডলাইন দেখে চোখ কপালে উঠতে পারে! ওঠারই কথা। ক্রিকেটের ইতিহাসে এমন স্কোর তো স্বাভাবিক কিছু না। এই অস্বাভাবিক বিষয়টিকে বাস্তবে পরিণত করলো নেদারল্যান্ডসের দ্বিতীয় সারির ক্রিকেট দল।

ইউরোপিয়ান ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশিপে রোমানিয়ার বিপক্ষে অবিশ্বাস্য এই রেকর্ডটি করেছে নেদারল্যান্ডস। ১০ ওভারে খেলা এই টুর্নামেন্টে এক উইকেটের খরচায় তারা তুলেছে ২০০ রান।

টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই রোমানিয়ার বোলারদের তুলোধুনো করা শুরু করেন ডাচ ওপেনার ক্লেটন ফ্লয়েড।

তার ব্যাটিং তাণ্ডবে দিশেহারা হয়ে পড়তে হয় রোমানিয়ান বোলারদের। দলীয় ১৪২ রানে সাজঘরে ফেরার আগে ১৫ ছক্কা আর ৪টি চারের মারে ৩৫ বলে ফ্লয়েড করেন ১১৫ রান।

ফ্লয়েড ফিরে যাওয়ার পর আগ্রাসন ধরে রাখেন আরেক ওপেনার মুসা আহমেদ। ২০ বলে তিনি খেলেন অপরাজিত ৬৩ রানের ইনিংস। আর এই দুই ওপেনারের তাণ্ডবে ১০ ওভারে ২০০ রানের পুঁজি পায় নেদারল্যান্ডস।

জবাবে খুব একটা সুবিধা করতে পারেনি রোমানিয়া। যার ফলে ৭ উইকেটের খরচায় ৯৮ রান তুলে থেমে যায় তাদের ইনিংস। একই সঙ্গে রেকর্ড রানের ম্যাচে ডাচরা পায় ১০২ রানের বড় জয়।

এর আগে, চলতি আসরের প্রথম ম্যাচে এই রোমানিয়ার বিপক্ষেই ১৯৫ রানের পুঁজি পেয়েছিল অস্ট্রিয়া। এতোদিন এই ১৯৫ রানের সংগ্রহটাই ছিল টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ সংগ্রহ। গতকাল সেই রেকর্ড ভাঙল নেদারল্যান্ডসের হাত ধরে।

আরও পড়ুন:
কাল থেকে মিরপুরে দিনে ডিপিএলের তিন ম্যাচ
সাকিব ও মুস্তাফিজকে সরকারের ধন্যবাদ
বিদেশের মাটিতে ৩০০-৩৫০ চান ডমিঙ্গো
ইমরুল-তুষার করোনায় আক্রান্ত

শেয়ার করুন

জয়ের পর শাস্তি পেলেন মুস্তাফিজদের অধিনায়ক

জয়ের পর শাস্তি পেলেন মুস্তাফিজদের অধিনায়ক

রাজস্থান রয়্যালসের অধিনায়ক সাঞ্জু স্যামসন। ফাইল ছবি

পাঞ্জাবের বিপক্ষে ম্যাচে ২০ ওভার শেষ করতে স্যামসন লাগিয়েছেন ১১০ মিনিট। আর যার কারনে শাস্তির আওতায় আনা হয়েছে তাকে।

পাঞ্জাব কিংসের বিপক্ষে শেষ ওভারের নাটকীয়তায় শ্বাসরুদ্ধকর এক জয় পায় রাজস্থান রয়্যালস। জয়ের সেই আনন্দে কিছুটা ভাটা পড়ে রাজস্থান দলপতি সাঞ্জু স্যামসনের। কেননা ম্যাচ শেষে তাকে গুনতে হয়েছে জরিমানা।

স্লো ওভার রেটের কারণে রাজস্থান দলপতিকে ১২ লাখ রুপি জরিমানা করা হয়েছে। তবে প্রথমবার হওয়ায় শাস্তির পরিমান কম করা হয়েছে। ভবিষ্যতে ফের এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলে জরিমানার পরিমাণ বাড়ানো হবে বলে জানিয়ে দেয়া হয় আইপিএল কতৃপক্ষের পক্ষ থেকে।

সাধারণত নির্ধারিত ২০ ওভার ৯০ মিনিটে শেষ করতে হয়। অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি ছাড়া আম্পায়াররা অতিরিক্ত সময় দিতে পারেন সর্বোচ্চ ৭ মিনিট।

গতকাল পাঞ্জাবের বিপক্ষে ম্যাচে ২০ ওভার শেষ করতে স্যামসন লাগিয়েছেন ১১০ মিনিট। আর যার কারনে শাস্তির আওতায় আনা হয়েছে তাকে।

ম্যাচে মুস্তাফিজুর রহমান ও কার্তিগ তিয়াগির বোলিং নৈপূণ্যে দুই রানের জয় নিয় মাঠ ছাড়ে রাজস্থান রয়্যালস।

আরও পড়ুন:
কাল থেকে মিরপুরে দিনে ডিপিএলের তিন ম্যাচ
সাকিব ও মুস্তাফিজকে সরকারের ধন্যবাদ
বিদেশের মাটিতে ৩০০-৩৫০ চান ডমিঙ্গো
ইমরুল-তুষার করোনায় আক্রান্ত

শেয়ার করুন

দুর্দান্ত ফিজ-তিয়াগিতে অবিশ্বাস্য জয় রাজস্থানের

দুর্দান্ত ফিজ-তিয়াগিতে অবিশ্বাস্য জয় রাজস্থানের

ফাইল ছবি

১৯ তম ওভারে বল হাতে আসেন মুস্তাফিজুর রহমান । কাটার মাস্টারের ওভারে নিকোলাস পুরান এবং এইডেন মারক্রাম মিলে নেন চার রান। আর সেখানেই অনেকটাই ঘুরে যায় ম্যাচের মোড়।

মুস্তাফিজুর রহমান ও কার্তিক তিয়াগির অসাধারণ বোলিং নৈপূণ্যে রোমাঞ্চকর এক জয়ে চলতি আইপিএলের দ্বিতীয় অধ্যায়ে শুভ সূচনা করল রাজস্থান রয়্যালস।পাঞ্জাব কিংসকে শেষ ওভারে এসে হারিয়ে দিয়েছে তারা।

রাজস্থানের বিপক্ষে জয়ের জন্য পাঞ্জাবের শেষ দুই ওভারে দরকার ছিল আট রান। হাতে ছিল আটটি উইকেট। পাঞ্জাব ধরেই নিয়েছিল যে শেষ হাসিটা হাসতে যাচ্ছে তারাই, কিন্তু তুরুপের তাস মুস্তাফিজের যে তখনও এক ওভার বাকি ছিল।

১৯ তম ওভারে বল হাতে আসেন কাটার মাস্টার। তার ওভারে নিকোলাস পুরান এবং এইডেন মারক্রাম মিলে নেন চার রান। আর সেখানেই অনেকটাই ঘুরে যায় ম্যাচের মোড়।

শেষ ওভারে আসেন কার্তিক তিয়াগি। প্রথম বল ডট দিয়ে দ্বিতীয় বলে দেন এক রান। তৃতীয় বলেই ফেরান পুরানকে। সে সময় লোকেশ রাহুলের দলের জয়ের জন্য প্রয়োজন ৩ বলে ৩ রান।

চতুর্থ বল ফের ডট দেন তরুণ এই পেইসার। পঞ্চম বলে সাঞ্জু স্যামসনের তালবন্দি করে ফেরান হুদাকে। জয়ের জন্য প্রয়োজন তখন এক বলে তিন রান।

শেষ বলে পাঞ্জাবের ব্যাটসম্যানদের রান নিতে দেননি ডানহাতি এই পেইসার। আর যার ফলেই দুই রানের অবিশ্বাস্য এক জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে রাজস্থান রয়্যালস।

এর আগে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে ইয়াশভি জয়স্বয়ালের ৩৬ বলে ৪৯ এবং মহিপাল লোমররের ১৭ বলে ৪৩ রানের ঝড়ো ইনিংসে ভর করে ১৮৫ রানের পুঁজি পায় রাজস্থান রয়্যালস।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শেষ দুই ওভারের রোমাঞ্চে ৪ উইকেটে ১৮৩ রান তুলতে সক্ষম হয় পাঞ্জাব কিংস।

আট ম্যাচে ৪ জয় এবং ৪ হারে আট পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের পাঁচে অবস্থান করছে রাজস্থান। অপরদিকে ৯ ম্যাচে তিন জয় এবং ছয় হারে টেবিলের সাতে নম্বরে পাঞ্জাব।

আরও পড়ুন:
কাল থেকে মিরপুরে দিনে ডিপিএলের তিন ম্যাচ
সাকিব ও মুস্তাফিজকে সরকারের ধন্যবাদ
বিদেশের মাটিতে ৩০০-৩৫০ চান ডমিঙ্গো
ইমরুল-তুষার করোনায় আক্রান্ত

শেয়ার করুন