আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ের দুইয়ে মিরাজ

আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ের দুইয়ে মিরাজ

ফাইল ছবি

এটিই মিরাজের ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ র‍্যাঙ্কিং। এর আগে পাঁচ নম্বরে ছিলেন এই টাইগার অফস্পিনার। তার রেটিং পয়েন্ট ৭২৫। শীর্ষ থাকা নিউজিল্যান্ড পেইসার ট্রেন্ট বোল্টের রেটিং ৭৩৭।

তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ এক ম্যাচ আগে জিতে নেয়ায় প্রথম বারের মতো শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ। দলীয় সাফল্যের পাশাপাশি সিরিজে ব্যক্তিগত সাফল্যেও এগিয়ে আছেন বাংলাদেশি ক্রিকেটাররা।

এর প্রতিফলন দেখা গেছে সবশেষ প্রকাশিত আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি করেছেন সিরিজের বাংলাদেশের দুই সেরা বোলার মেহেদী মিরাজ ও মুস্তাফিজুর রহমান।

লঙ্কানদের বিপক্ষে দুই ম্যাচে সাত উইকেট নেয়া মেহেদী মিরাজ আছেন ক্যারিয়ার সেরা দুই নম্বরে। আফগানিস্তানের লেগস্পিনার মুজিবুর রেহমানকে পেছনে ফেলে দুই উঠে এসেছেন তিনি।

এটিই মিরাজের ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ র‍্যাঙ্কিং। এর আগে পাঁচ নম্বরে ছিলেন এই টাইগার অফস্পিনার। তার রেটিং পয়েন্ট ৭২৫। শীর্ষ থাকা নিউজিল্যান্ড পেইসার ট্রেন্ট বোল্টের রেটিং ৭৩৭।

এর আগে বাংলাদেশি স্পিনার আব্দুর রাজ্জাক ২০১০ সালে উঠেছিলেন দুই নম্বর র‍্যাঙ্কিংয়ে। দ্বিতীয় বাংলাদেশি বোলার হিসেবে দুইয়ে উঠলেন মিরাজ।

বাংলাদেশের ওয়ানডে বোলার হিসেবে র‍্যাঙ্কিংয়ের একমাত্র শীর্ষস্থানধারী ছিলেন সাকিব আল হাসান। ২০০৯ সালের ৪ সেপ্টেম্বর শীর্ষে ওঠেন তিনি।

বাংলাদেশের পেইসার মুস্তাফিজুর রহমান শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচে নিয়েছেন ছয় উইকেট। এতে করে র‍্যাঙ্কিংয়ের নয় নম্বরে উঠে এসেছেন এই বাঁহাতি।

আর দুই ম্যাচে তিন উইকেট নেওয়া সাকিব আছেন বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ের ১৭ নম্বরে। তবে বিশ্বসসেরা অলরাউন্ডার ধরে রেখেছেন তার স্থান। অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিনয়ে শীর্ষেই আছেন সাকিব।

লঙ্কা সিরিজের প্রথম ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরির পর দ্বিতীয় ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানো মুশফিকুর রহিম উঠে এসেছেন ১৪ নম্বরে। এটিই তার ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ ওয়ানডে র‍্যাঙ্কিং।

ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে পরবর্তী বাংলাদেশি ব্যাটম্যান তামিম ইকবাল। টাইগারদের ওয়ানডে অধিনায়ক দ্বিতীয় ম্যাচে রান না পাওয়ায় নেমে গেছেন ২৪ নম্বরে।

আরও পড়ুন:
শঙ্কামুক্ত সাইফউদ্দিন
এখনও নিখুঁত ম্যাচ খেলিনি: তামিম
লঙ্কাকে হারিয়ে সুপার লিগের শীর্ষে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শুরুতেই অজি শিবিরে টাইগারদের তিন আঘাত

শুরুতেই অজি শিবিরে টাইগারদের তিন আঘাত

ফাইল ছবি

দুই ওপেনারকে হারানো অজি দলের ভিত আরও নড়বড়ে করে দেন সাকিব আল হাসান। তৃতীয় ওভারের প্রথম বলেই ময়েসেস হেনরিকসকে বোল্ড করেন তিনি।

ছোটখাটো লক্ষ্য দিলেও অস্ট্রেলিয়াকে শুরুতেই চেপে ধরেছে বাংলাদেশ। দলীয় ১১ রানেই অতিথি দলের তিন উইকেট তুলে নিয়েছে টাইগাররা।

ইনিংসের প্রথম বলেই ওপেনার অ্যালেক্স ক্যারিকে সাজঘরে ফিরিয়ে শুভ সূচনা এনে দেন মেহেদী হাসান।

মেহেদীর ঘূর্ণীতে কিছু বুঝে ওঠার আগেই বোল্ড হয়ে মাঠ ছাড়েন অ্যালেক্স ক্যারি।

দ্বিতীয় ওভারে জশ ফিলিপেকে ফেরান নাসুম আহমেদ। তার বলে ৯ রান করে আউট হন ফিলিপে। আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে স্টাম্পড হওয়া প্রথম অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানে পরিণত হন তিনি।

১০ রানে দুই ওপেনারকে হারানো অজি দলের ভিত আরও নড়বড়ে করে দেন সাকিব আল হাসান। তৃতীয় ওভারের প্রথম বলেই মোয়েজেস এনরিকসকে বোল্ড করেন তিনি।

এর আগে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়াকে ১৩২ রানের লক্ষ্য বেঁধে দিয়েছে বাংলাদেশ। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটের খরচায় ১৩১ রানে থামে টাইগারদের রানের চাকা।

অজিদের বিপক্ষে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা খুব একটা সুবিধার হয়নি বাংলাদেশের। অজি পেইসারদের বোলিং তোপ নাঈম শেখ সামাল দিলেও বল যেন বুঝেই উঠতে পারছিলেন না সৌম্য সরকার।

মাত্র ৯ বল খেলে দুই রান করে হ্যাজেলউডের লেগ স্ট্যাম্পের অনেক বাহিরের বল এক প্রকারে ইচ্ছে করেই স্ট্যাম্পে ঠেলে দিয়ে ম্যাচের চতুর্থ ওভারেই মাঠ ছাড়েন বাঁহাতি এই ওপেনার।

সৌম্য বিদায় নিলেও লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন নাঈম। কিন্তু অ্যাডাম জাম্পার বলে ধরাশায়ী হয়ে ২৯ বলে ৩০ রানের ইনিংস খেলে বিদায় নেন তিনিও।

এরপর মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু হ্যাজেলউডের বলে এনরিকেসের তালুবন্দি হয়ে ২০ রানে সাজঘরে ফেরেন দলপতি রিয়াদ।

আশা জাগিয়ে একবুক হতাশা নিয়ে ৩৬ রান করে মাঠ ছাড়েন সাকিবও। উইকেটের অপরপ্রান্তে আসা যাওয়ার মিছিল চলতে থাকলেও অবিচল থাকেন আফিফ। শেষ পর্যন্ত ১৭ বলে ২৩ রান করে ফেরেন তিনি। সেই সঙ্গে দল পায় ১৩১ রানের পুঁজি।

আরও পড়ুন:
শঙ্কামুক্ত সাইফউদ্দিন
এখনও নিখুঁত ম্যাচ খেলিনি: তামিম
লঙ্কাকে হারিয়ে সুপার লিগের শীর্ষে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার দরকার ১৩২ রান

জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার দরকার ১৩২ রান

উইকেত পাওয়ার পর জশ হেইজলউডকে অভিনন্দন জানাচ্ছেন সতীর্থরা। ছবি: টুইটার

নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটের খরচায় ১৩১ রানে থামে টাইগারদের রানের চাকা। সর্বোচ্চ ৩৬ রান করে সাকিব। আফিফের ব্যাট থেকে আসে ২৩।

সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়াকে ১৩২ রানের লক্ষ্য বেঁধে দিয়েছে বাংলাদেশ। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটের খরচায় ১৩১ রানে থামে টাইগারদের রানের চাকা।

অজিদের বিপক্ষে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা খুব একটা সুবিধার হয়নি বাংলাদেশের। সফরকারী পেইসারদের বোলিং তোপ নাঈম শেখ সামাল দিলেও বল যেন বুঝেই উঠতে পারছিলেন না সৌম্য সরকার।

মাত্র ৯ বল খেলে দুই রান করে জশ হেইজলউডের লেগ স্টাম্পের অনেক বাইরের বল এক রকম যেন ইচ্ছে করেই স্টাম্পে ঠেলে ম্যাচের চতুর্থ ওভারেই মাঠ ছাড়েন বাঁহাতি এই ওপেনার।

সৌম্য বিদায় নিলেও লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন নাঈম। অ্যাডাম জ্যাম্পার বলে ধরাশায়ী হয়ে ২৯ বলে ৩০ রানের ইনিংস খেলে বিদায় নেন তিনিও।

এরপর মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে রানের চাকা সচল রাখেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু হেইজলউডের বলে মোয়েজেস এনরিকেসের তালুবন্দি হয়ে ২০ রানে ফেরেন দলপতি রিয়াদ।

আশা জাগিয়ে একবুক হতাশা নিয়ে ৩৬ রান করে মাঠ ছাড়েন সাকিবও। উইকেটের অপরপ্রান্তে আসা যাওয়ার মিছিল চলতে থাকলেও অবিচল থাকেন আফিফ। শেষ পর্যন্ত ১৭ বলে ২৩ রান করে ফেরেন তিনি। সেই সঙ্গে দল পায় ১৩১ রানের পুঁজি।

টেস্ট ও ওয়ানডে ফরম্যাটে জয় পেলেও টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়া বধের স্বপ্ন অধরা রয়ে গেছে টাইগারদের। এখন পর্যন্ত চারবার ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে মুখোমুখি হয়েছে দুই দল। যার সবকয়টিই বিশ্বকাপের মঞ্চে। প্রতি ম্যাচে হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে সাকিব-তামিমদের।

আরও পড়ুন:
শঙ্কামুক্ত সাইফউদ্দিন
এখনও নিখুঁত ম্যাচ খেলিনি: তামিম
লঙ্কাকে হারিয়ে সুপার লিগের শীর্ষে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

আশা জাগিয়েও পারলেন না নাঈম

আশা জাগিয়েও পারলেন না নাঈম

ফাইল ছবি

১১ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ দুই উইকেটের খরচায় ৬১ রান। উইকেটে রয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং সাকিব আল হাসান।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা খুব একটা সুবিধার হয়নি বাংলাদেশের। ১১ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ দুই উইকেটের খরচায় ৬১ রান। ৯ রানে উইকেটে রয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং ১৮ রানে খেলছেন সাকিব আল হাসান।

ব্যাটিংয়ে নেমে অজি পেসারদের বোলিং তোপ নাঈম শেখ সামাল দিলেও বল যেন বুঝেই উঠতে পারছিলেন না সৌম্য সরকার। মাত্র ৯ বল খেলে দুই রান করে হেইজলউডের লেগ স্টাম্পের অনেক বাইরের বল এক রকম ইচ্ছে করেই যেন স্টাম্পে ঠেলে ম্যাচের চতুর্থ ওভারেই মাঠ ছাড়েন বাঁহাতি এই ওপেনার।

সৌম্য বিদায় নিলেও লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিলেন নাঈম। কিন্তু অ্যাডাম জ্যাম্পার বলে ধরাশায়ী হয়ে ২৯ বলে ৩০ রানের ইনিংস খেলে বিদায় নেন তিনিও।

টেস্ট ও ওয়ানডে ফরম্যাটে জয় পেলেও টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়া বধের স্বপ্ন অধরা রয়ে গেছে টাইগারদের। এখন পর্যন্ত চারবার ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে মুখোমুখি হয়েছে দুই দল। যার সবকয়টিই বিশ্বকাপের মঞ্চে। প্রতি ম্যাচে হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে সাকিব-তামিমদের।

এই প্রথম ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলছে বাংলাদেশ। জয় দিয়েই সিরিজ শুরু করতে আশাবাদী জাতীয় দলের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। যদিও দলে নেই তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের মতো তারকা ক্রিকেটার।

আরও পড়ুন:
শঙ্কামুক্ত সাইফউদ্দিন
এখনও নিখুঁত ম্যাচ খেলিনি: তামিম
লঙ্কাকে হারিয়ে সুপার লিগের শীর্ষে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

অনন্য আরেক রেকর্ডের সামনে সাকিব

অনন্য আরেক রেকর্ডের সামনে সাকিব

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টিতে ব্যাট করছেন সাকিব আল হাসান। ছবি: এএফপি

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে পাঁচটি উইকেট পেলেই অনন্য এক উচ্চতায় উঠবেন সাকিব আল হাসান। টি-টোয়েন্টিতে ১০০০ রানের পাশাপাশি ১০০ উইকেট নেয়া প্রথম ক্রিকেটার হবেন তিনি।

দারুণ এক রেকর্ডের হাতছানি নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে নেমেছেন দেশসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান।

মঙ্গলবার সিরিজের প্রথম ম্যাচে বা চলতি সিরিজে ৫ উইকেট নিলেই টি-টোয়েন্টিতে ১০০ উইকেট শিকারিদের তালিকায় নাম লেখাবেন তিনি। হবেন এই ফরম্যাটের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ১০০০ রান করা ও ১০০ উইকেট শিকারি প্রথম ক্রিকেটার।

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে উইকেটের সেঞ্চুরি রয়েছে শুধুমাত্র একজনের। তিনি হলেন শ্রীলঙ্কার লাসিথ মালিঙ্গা। সাবেক এই পেইসারের ঝুলিতে রয়েছে ১০৭টি উইকেট।

তবে সাকিবের রেকর্ডটি হবে অলরাউন্ডিং নৈপুণ্যের। টি-টোয়েন্টিতে আগেই ১০০০ রান করে ফেলা সাকিব পাঁচটি উইকেট পেলেই উঠবেন অনন্য উচ্চতায়।

উইকেটের সেঞ্চুরির তালিকায় সাকিবের সঙ্গে অপেক্ষায় রয়েছেন আরও দুই জন। তারা হলেন নিউজিল্যান্ডের পেসার টিম সাউদি এবং আফগানিস্তানের স্পিনার রাশিদ খান। বর্তমানে সাউদির উইকেট সংখ্যা ৮৩ ম্যাচে ৯৯ এবং রাশিদ খানের ৫১ ম্যাচে ৯৫।

তাদের মধ্যে সবার আগে উইকেটের সেঞ্চুরির সম্ভাবনা সাকিবেরই প্রবল। কেননা নিউজিল্যান্ড ও আফগানিস্তানের বর্তমানে কোনো টি-টোয়েন্টি সিরিজ নেই।

আরও পড়ুন:
শঙ্কামুক্ত সাইফউদ্দিন
এখনও নিখুঁত ম্যাচ খেলিনি: তামিম
লঙ্কাকে হারিয়ে সুপার লিগের শীর্ষে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

নাঈম-সাকিবের ব্যাটে লড়ছে বাংলাদেশ

নাঈম-সাকিবের ব্যাটে লড়ছে বাংলাদেশ

ব্যাট করছেন সাকিব আল হাসান। ফাইল ছবি

৬ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটের খরচায় ৩৩ রান। উইকেটে রয়েছেন নাঈম শেখ এবং সাকিব আল হাসান।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা খুব একটা সুবিধার হয়নি বাংলাদেশের। শেষ খবর পর্যন্ত ৬ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটের খরচায় ৩৩ রান। উইকেটে রয়েছেন নাঈম শেখ। খেলছেন ২৭ রানে। অন্য প্রান্তে সাকিব আল হাসান আছেন ৩ রানে।

ব্যাটিংয়ে নেমে অজি পেসারদের বোলিং তোপ নাঈম শেখ সামাল দিলেও, বল যেন বুঝেই উঠতে পারছিলেন না সৌম্য সরকার। মাত্র ৯ বল খেলে ২ রান করে হেইজলউডের বলে আউট হন তিনি।

টেস্ট ও ওয়ানডে ফরম্যাটে জয় পেলেও টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়া বধের স্বপ্ন অধরা রয়ে গেছে টাইগারদের। এখন পর্যন্ত চারবার ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে মুখোমুখি হয়েছে দুই দল। যার সবকয়টিই বিশ্বকাপের মঞ্চে। প্রতি ম্যাচে হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে সাকিব-তামিমদের।

এই প্রথম ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলছে বাংলাদেশ। জয় দিয়েই সিরিজ শুরু করতে আশাবাদী জাতীয় দলের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। যদিও দলে নেই তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের মতো তারকা ক্রিকেটার।

আরও পড়ুন:
শঙ্কামুক্ত সাইফউদ্দিন
এখনও নিখুঁত ম্যাচ খেলিনি: তামিম
লঙ্কাকে হারিয়ে সুপার লিগের শীর্ষে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

অজিদের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

অজিদের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

ম্যাচের আগে টস করছেন দুই অধিনায়ক। ছবি: এএফপি

পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। টসে জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছে সফরকারী অস্ট্রেলিয়া।

পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। টসে জিতে বাংলাদেশকে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছে সফরকারী অস্ট্রেলিয়া।

টেস্ট ও ওয়ানডে ফরম্যাটে জয় পেলেও টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়া বধের স্বপ্ন অধরা রয়ে গেছে টাইগারদের। এখন পর্যন্ত চারবার ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে মুখোমুখি হয়েছে দুই দল। যার সবকয়টিই বিশ্বকাপের মঞ্চে। প্রতি ম্যাচে হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে সাকিব-তামিমদের।

এই প্রথম ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলছে বাংলাদেশ। জয় দিয়েই সিরিজ শুরু করতে আশাবাদী জাতীয় দলের টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। যদিও দলে নেই তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম ও লিটন দাসের মতো তারকা ক্রিকেটার।

বাংলাদেশ একাদশ: মোহাম্মদ নাঈম, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, আফিফ হোসেন, শামিম হোসাইন, নুরুল হাসান সোহান, মেহেদি হাসান, মুস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, নাসুম আহমেদ।

অস্ট্রেলিয়া একাদশ: অ্যালেক্স ক্যারি, জশ ফিলিপ, মিচেল মার্শ, মোয়েজেস এনরিকেস, ম্যাথিউ ওয়েড, অ্যাস্টন টার্নার, অ্যাস্টন এইগার, মিচেল স্টার্ক, অ্যান্ড্রু টাই, অ্যাডাম জ্যাম্পা, জশ হেইজলউড।

আরও পড়ুন:
শঙ্কামুক্ত সাইফউদ্দিন
এখনও নিখুঁত ম্যাচ খেলিনি: তামিম
লঙ্কাকে হারিয়ে সুপার লিগের শীর্ষে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

২০২৩ সালের মার্চে আসছে ইংল্যান্ড

২০২৩ সালের মার্চে আসছে ইংল্যান্ড

ফাইল ছবি

দুই পক্ষে সম্মতির ভিত্তিতেই নতুন সূচিতে আয়োজন করা হবে সিরিজটি। ২০২৩ সালের মার্চের প্রথম দুই সপ্তাহে হবে দুই দলের সিরিজ। ঢাকা ও চট্টগ্রামে খেলা হবে তিন ওডিআই ও তিন টি-টোয়েন্টি।

বাংলাদেশের মাটিতে ইংল্যান্ডের সিরিজ পিছিয়ে গেছে এক বছর ছয় মাস। এই বছরের সেপ্টেম্বর মাসের বদলে সিরিজটি অনুষ্ঠিত হবে ২০২৩ সালের মার্চে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ও ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) এক যৌথ বিবৃতিতে নিশ্চিত করেছে সিরিজের নতুন সময়।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘দুই পক্ষের সম্মতির ভিত্তিতেই নতুন সূচিতে আয়োজন করা হবে সিরিজটি। ২০২৩ সালের মার্চের প্রথম দুই সপ্তাহে হবে দুই দলের সিরিজ। ঢাকা ও চট্টগ্রামে খেলা হবে তিন ওডিআই ও তিন টি-টোয়েন্টি।’

তিন ওয়ানডে ও তিন টি-টোয়েন্টি খেলতে সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে আসার কথা ছিল ইংল্যান্ডের। কিন্তু ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের সূচির সঙ্গে সাংঘর্ষিক হওয়ায় স্থগিত করা হয় সিরিজ। আনুষ্ঠানিক ভাবে সিরিজ পেছানোর কারণ নিয়ে ইসিবি কিছু বলেনি।

বাংলাদেশ-ইংল্যান্ডের সিরিজ শুরু হওয়ার কথা ছিল ২০ সেপ্টেম্বর। আর এই বছরের আইপিলের দ্বিতীয় অংশ শুরু হচ্ছে ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে।

বিশ্বকাপের প্রস্তুতি হিসেবে খেলোয়াড়দের একই সময়ে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে পাঠাতে চায় ইংল্যান্ড। ওই সময়ে বিশ্বকাপের ভেন্যুগুলোতে আইপিএলের ম্যাচ চলবে।

বাংলাদেশ ট্যুর বাতিল করলেও অক্টোবরের ১৪ ও ১৫ তারিখ পাকিস্তানের বিপক্ষে দুটি টি-টোয়েন্টি খেলবে ইংল্যান্ড।

চলতি বছর মে মাসে করোনাভাইরাস মহামারির কারণে স্থগিত করে দেয়া হয় আইপিএল। তিন মাস পর ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে মাঠে গড়াতে যাচ্ছে আইপিএলের বাকি থাকা খেলাগুলো।

সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ওমানের ৪টি ভেন্যুতে বাকি ৩০ ম্যাচ খেলার পর ১৯ অক্টোবর ফাইনাল দিয়ে পর্দা নামবে এবারের আইপিএলের।

আরও পড়ুন:
শঙ্কামুক্ত সাইফউদ্দিন
এখনও নিখুঁত ম্যাচ খেলিনি: তামিম
লঙ্কাকে হারিয়ে সুপার লিগের শীর্ষে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন