মুশফিকের সেঞ্চুরির পরও ২৫০ হলো না বাংলাদেশের

সেঞ্চুরি উদযাপনে মুশফিক। ছবি: বিসিবি

মুশফিকের সেঞ্চুরির পরও ২৫০ হলো না বাংলাদেশের

দ্বিতীয় ওভারে ব্যাটিংয়ে নামার পর ৪৯তম ওভারের প্রথম বলে যখন দলের শেষ উইকেট হিসেবে ফিরলেন, ততক্ষণে নিজে করেছেন ১২৫। বাংলাদেশকে নিয়ে গেছেন ২৪৬ রানে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ২৪৬ রানে অলআউট হয়েছে বাংলাদেশ। মুশফিকুর রহিমের অনবদ্য সেঞ্চুরির পরও পুরো ৫০ ওভার ব্যাট করতে পারেনি স্বাগতিক দল। ৪৮.১ ওভারে আড়াই শর নিচে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ।

মুশফিকুর রহিম একাই লড়লেন টাইগারদের হয়ে। অন্য প্রান্তে যখন ব্যাটারদের আসা-যাওয়ার মিছিল, এক প্রান্তে অবিচল থেকে মুশফিক করেন দলের অর্ধেকের বেশি রান।

দ্বিতীয় ওভারে ব্যাটিংয়ে নামার পর ৪৯তম ওভারের প্রথম বলে যখন দলের শেষ উইকেট হিসেবে ফিরলেন, ততক্ষণে নিজে করেছেন ১২৫। বাংলাদেশকে নিয়ে গেছেন ২৪৬ রানে।

ক্যারিয়ারে এটি অষ্টম সেঞ্চুরি মুশফিকের, সেঞ্চুরি তুলে নেন ১১৪ বলে। সেঞ্চুরি পাওয়ার পর ১৩ বলে ২২ রান নিয়েছেন মুশফিক। এই ইনিংস দিয়েই সাকিব আল হাসানকে টপকে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক এখন মুশফিক।

মিরপুরে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। ব্যাট করতে নেমে আক্রমণাত্মক খেলা শুরু করেন তামিম ইকবাল। ইসুরু উদানার প্রথম ওভারে তামিমের তিনটি চারসহ বাংলাদেশ তুলে নেয় ১৫ রান।

দ্বিতীয় ওভারেই ঘটে বিপর্যয়। দুষ্মন্ত চামিরার ওভারের প্রথম বলে এলবিডাব্লিউ হন তামিম। লেগ স্টামে পরা ইনসুইঙ্গারের লাইন মিস করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক প্রথমে বোলারের আপিলে সাড়া দেননি আম্পায়ার। পরে শ্রীলঙ্কা রিভিউ নিলে দেখা যায় বল স্টাম্পে আঘাত হানছে। ছয় বলে ১৩ রান করে ফিরতে হয় তামিমকে।

এর দুই বল পরই ফেরেন সাকিব। চামিরার ইনসুইঙ্গারে পরাস্ত হন অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যানও। মিডলস্টাম্পে পড়া ইনসুইঙ্গারের লাইন মিস করেন তিনি। শূন্য রানেই বিদায় নিতে হয় তাকে।

এরপর ৩৪ রানের এক জুটিতে বাংলাদেশকে সামাল দেন লিটন ও মুশফিকুর রহিম। লাকশান সান্দাকানের বলে বাজে এক শটে পয়েন্টে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে ক্যাচ দেন লিটন। তাতে উইকেটে সেট হয়েও ২৫ রানে ফিরতে হয় তাকে।

লিটনের বিদায়ের পর উইকেটে মুশফিককে সঙ্গ দিচ্ছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন। কিন্তু প্রায় দুই বছর পর ওয়ানডে একাদশে ফেরা এ ব্যাটসম্যান মাত্র ১০ রান করেন। সান্দাকানের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি।

সেখান থেকে জুটি গড়েন মুশফিক ও মাহমুদুল্লাহ। উইকেট বাঁচিয়ে দুজন মিলে সচল করেন রানের চাকা। মাত্র একটি চারের সহায়তায় ৭০ বলে ফিফটি তুলে নেন মুশফিক। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এটি তার ৪১তম ফিফটি, ঘরের মাটিতে টানা তৃতীয়।

ফিফটির পথে ছিলেন মাহমুদুল্লাহও। কিন্তু সান্দাকানের বলে স্কুপ করতে গিয়ে ব্যাটে-বলে হয়নি, এক হাতে দারুণ ক্যাচ নেন শ্রীলঙ্কান উইকেটকিপার কুশল।

এরপর আফিফ হোসেনও টেকেননি বেশিক্ষণ। ইসুরু উদানাকে উড়িয়ে মারতে গিতে মিসটাইমিং করে বসেন। ডিপ মিড অনে ধরা পড়েন নিসাঙ্কার হাতে। তার ব্যাট থেকে আসে ৯ বলে ১০ রান।

আটে নামা মেহেদী মিরাজকে শিকার করে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। এই স্পিনারের বলে ড্রাইভ করতে যেয়ে শূন্য রানে বোল্ড হন মিরাজ। তার আউটের পর বাংলাদেশের সংগ্রহ সাত উইকেটে ১৮৪।

এরপর মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের সঙ্গে ৪৮ রানের একটি জুটি গড়েন মুশফিক। কিন্তু সাইফউদ্দিন রান আউট হয়ে ফেরার পর আর ইনিংস লম্বা করা হয়নি, ১৪ রান যোগ করেই গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ।

আউট হওয়ার আগে অবশ্য ইসুরু উদানার বাউন্সার মাথায় লেগেছিল সাইফউদ্দিনের। কনকাশন হলে তার বদলে বাংলাদেশ দল খেলাতে পারে তাসকিন আহমেদকে।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টির পর মুশফিকের সেঞ্চুরি
মিরপুরে বৃষ্টির পর আবার শুরু খেলা
মুশফিকের ফিফটির পর দ্রুত ফিরলেন তিন ব্যাটসম্যান
ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ
তামিম-সাকিবকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

সাকিবের যত নিষেধাজ্ঞা

সাকিবের যত নিষেধাজ্ঞা

মোহামেডানের জার্সিতে সাকিব আল হাসান। ফাইল ছবি

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) আবাহনী লিমিটেডের বিপক্ষে মেজাজ হারিয়ে নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন সাকিব আল হাসান। চার ম্যাচ নিষেধাজ্ঞা পাওয়ায় ডিপিএলের রাউন্ড রবিনের শেষ চার রাউন্ড খেলতে পারবেন না মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের অধিনায়ক সাকিব।

তাকে ছাড়া ক্লাব মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব যদি সুপার লিগে পৌঁছায় তাহলে সুপার লিগে খেলতে পারবেন তিনি। সাকিবের নিষেধাজ্ঞায় শিরোপা লড়াই থেকে অনেকটাই দূরে সরে গেল মোহামেডান।

ক্রিকেট মাঠে নিষেধাজ্ঞা সাকিবের জন্য নতুন নয়। ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মিলিয়ে এর আগে মোট তিনবার নিষিদ্ধ হয়েছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার।

২০১৪ সালে তিন ম্যাচে নিষেধাজ্ঞা

২০১৪ সালে শ্রীলংকার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে চলার সময় টিভি ক্যামেরায় অশালীন অঙ্গভঙ্গি করে তিন ম্যাচ নিষিদ্ধ হন সাকিব। এই তিন ম্যাচ ছিল শ্রীলংকা, ভারত ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে। শেষ দুটি ম্যাচ ২০১৪ এশিয়া কাপের।

সাকিবের যত নিষেধাজ্ঞা
পাকিস্তানের বিপক্ষে ২০১৪ এশিয়া কাপে ব্যাটিংয়ে সাকিব। ফাইল ছবি



তিন ম্যাচেই হেরে যায় বাংলাদেশ। এমনকি তখন নবাগত আফগানিস্তানের কাছেও। আর নম্বর ম্যাচে ফেরেন সাকিব। তারপরও হারে বাংলাদেশ। ফেরার ম্যাচে সাকিব পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেন ১৬ বলে ৪৪ রানের ইনিংস।

২০১৪ সালের আরও একবার ছয়মাসের নিষিধাজ্ঞা

বাংলাদেশ হেড কোচ চণ্ডিকা হাতুড়ুসিংহের সঙ্গে বাজে ব্যবহারের জন্য সাকিবকে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) নিষিদ্ধ করে ছয় মাসের জন্য। সাকিবের নিষেধাজ্ঞার পর প্রথম সিরিজ খেলতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ যায় বাংলাদেশ।

সিরিজে দুই টেস্টেই হারে সাকিববিহীন বাংলাদেশ। ওয়ানডে জেতে একটি। সিরিজের পর সাকিবের নিষেধাজ্ঞা কমিয়ে আনা হয় তিন মাসে। সাকিব ফেরেন জিম্বাবুয়ে সিরিজে।

২০১৯ সালে আইসিসির এক বছরের নিষেধাজ্ঞা

২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর জুয়ারির সঙ্গে যোগাযোগের তথ্য গোপন করা এক বছরের স্থগিতাদেশ সহ সাকিবকে দুই বছরের জন্য সকল ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ করে আইসিসি।

তার নিষিদ্ধ হওয়ার পর ভারতে টি-টোয়েন্টি ও টেস্ট সিরিজ খেলতে যায় বাংলাদেশ। দিল্লির প্রথম টি-টোয়েন্টিতে সাত উইকেটের সহজ জয় পায় বাংলাদেশ। সাকিবের নিষিদ্ধাবস্থায় বাংলাদেশের প্রথম জয়। বাকি দুই ম্যাচ হেরে হারতে হয় সিরিজ।

টেস্টে ছিল পুরো উল্টো ছবি। সাকিবের জায়গায় অধিনায়কত্ব পাওয়া মুমিনুল হকের অধীনে দুই টেস্টই বাংলাদেশ হারে ইনিংস ব্যবধানে। দুটি ম্যাচই শেষ হয় তিন দিনে।

সাকিবের যত নিষেধাজ্ঞা
২০১৪ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে বল করছেন সাকিব। ফাইল ছবি



ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তান সফরের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়লেও দ্বিতীয় ম্যাচে পারেনি বাংলাদেশ। দুই ম্যাচই জিতে নেয় স্বাগতিক দল। বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয় তৃতীয় ম্যাচ।

জিম্বাবুয়েকে ঘরের মাঠে ইনিংস ও ১০৬ রানে হারিয়ে সাকিবের নিষেধাজ্ঞা চলাকালীন একমাত্র টেস্ট জিতে নেয় বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টির পর মুশফিকের সেঞ্চুরি
মিরপুরে বৃষ্টির পর আবার শুরু খেলা
মুশফিকের ফিফটির পর দ্রুত ফিরলেন তিন ব্যাটসম্যান
ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ
তামিম-সাকিবকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

সাকিবের বিরুদ্ধে চক্রান্ত চলছে: শিশির

সাকিবের বিরুদ্ধে চক্রান্ত চলছে: শিশির

সাকিবের সঙ্গে শিশির। ছবি: ফেসবুক

মেজাজ হারানোর কারণে বিতর্কে পড়া সাকিব আল হাসানকে সমর্থন জানিয়েছেন তার স্ত্রী উম্মে শিশির। ম্যাচশেষে এক ফেসবুক পোস্টে শিশির লেখেন সাকিবের বিরুদ্ধে চক্রান্ত হচ্ছে।

আবাহনী লিমিটেডের বিপক্ষে ম্যচে মেজাজ হারানোর কারণে বিতর্কে পড়া সাকিব আল হাসানকে সমর্থন জানিয়েছেন তার স্ত্রী উম্মে শিশির। ম্যাচশেষে এক ফেসবুক পোস্টে শিশির লেখেন সাকিবের বিরুদ্ধে চক্রান্ত হচ্ছে।

নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেইজ থেকে এক পোস্টে শিশির লেখেন, ‘মিডিয়ার মতোই আমি পুরো ঘটনাটা উপভোগ করছি। অবশেষে টিভিতে কোনো খবর আসলো! আজকের ঘটনায় প্রতিকূল স্রোতে দাঁড়ানো একজনের পক্ষে যারা পরিষ্কারভাবে ঘটনাটা বুঝতে পারতেন তাদের অনেকের সমর্থন দেখে ভালো লাগছে।’

শিশির এও মন্তব্য করেন যে সংবাদমাধ্যমে আসল খবর চাপা পড়ে যাচ্ছে। আসল ইস্যু তার মতে ম্যাচের দৃষ্টিকটু আম্পায়ারিং সিদ্ধান্ত।

‘দুঃখজনক বিষয় হচ্ছে সংবাদ মাধ্যম শুধু ওর মেজাজ হারানোটাই দেখাচ্ছে আসল বিষয় বাদ দিয়ে। সত্যিকার ইস্যু হচ্ছে আম্পায়াররা চোখে পড়ার মতো যে সিদ্ধান্তগুলো নিয়েছেন। শিরোনামগুলো আসলেই দুঃখ পাওয়ার মতো। আমার মতে এটা তার বিরুদ্ধে একটা চক্রান্ত যেটা দীর্ঘদিন যাবৎই তাকে খলনায়ক হিসেব তুলে ধরার জন্য করা হচ্ছে।’

ডিপিএলের হাই ভোল্টেজ আবাহনী লিমিটেড বনাম মোহামেডানের ম্যাচে শনিবার ঘটে এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা।

মোহামেডানের বেঁধে দেয়া ১৪৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামা আবাহনী ইনিংসের পঞ্চম ওভারে প্রথমবার মেজাজ হারান সাকিব আল হাসান। সাকিব বোলিংয়ে আসলে দ্বিতীয় বলে তাকে ছয় মারেন আবাহনী অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, পরের বলেই চার। শেষ বলে অবশ্য মুশফিককে পরাস্ত করে তার প্যাড আঘাত হানে সাকিবের বল।

কিন্তু লেগ বিফোরের জন্য সাকিবের জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। আর তাতেই সাকিব লাথি মেরে ভেঙে ফেলেন বোলিং প্রান্তের স্টাম্প।

ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম বলের পর বৃষ্টি নামলে আম্পায়াররা সিদ্ধান্ত নেন খেলা বন্ধ করার। কিন্তু তা মানতে চাননি সাকিব। আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক করতে করতে ক্ষোভ দেখিয়ে বোলিং প্রান্তের তিনটি স্টাম্প তুলে মাটিতে ছুড়ে মারেন তিনি। রাগান্বিত ভঙ্গিতে তর্কও করতে থাকেন আম্পায়ারের সঙ্গে।

এরপর সাকিব বিবাদে জড়ান আবাহনী কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনের সঙ্গেও। তবে পরে দুজনে মিলে বিষয়টির মিমাংসা করেছেন বলে বিসিবি সূত্রে জানা গেছে।

ম্যাচশেষে নিজের ফেসবুকে অ্যাকাউন্টে বিষয়টির জন্য ক্ষমা চান সাকিব। ম্যাচের মধ্যে মেজাজ হারানোর জন্য ক্ষমা চান তিনি।

তবে তাতে কাজ হয়নি লেভেল থ্রি পর্যায়ের শৃঙ্খলা ভঙ্গের শাস্তি পেয়েছেন সাকিব। খেলতে পারছেন না মোহামেডানের পরের চার ম্যাচে।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টির পর মুশফিকের সেঞ্চুরি
মিরপুরে বৃষ্টির পর আবার শুরু খেলা
মুশফিকের ফিফটির পর দ্রুত ফিরলেন তিন ব্যাটসম্যান
ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ
তামিম-সাকিবকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

স্টাম্পে লাথি দিয়ে চার ম্যাচে নিষিদ্ধ সাকিব

স্টাম্পে লাথি দিয়ে  চার ম্যাচে নিষিদ্ধ সাকিব

আবাহনীর ব্যাটসম্যানের বিপক্ষে আবেদনে সাড়া না পেয়ে স্টাম্পে লাথি মারছেন সাকিব। ছবি: সিসিডিএম

ম্যাচশেষে নিজের ফেসবুকে অ্যাকাউন্টে বিষয়টির জন্য ক্ষমা চান সাকিব। ম্যাচের মধ্যে মেজাজ হারানোর জন্য ক্ষমা চান তিনি। তবে তাতে কাজ হয়নি লেভেল থ্রি পর্যায়ের শৃঙ্খলা ভঙ্গের শাস্তি পেয়েছেন সাকিব। খেলতে পারছেন না মোহামেডানের পরের চার ম্যাচে।

বিতর্ককে সঙ্গী করে পথচলা সাকিব আল হাসানের ক্যারিয়ারে লাগলো আরেকটি দাগ। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) ম্যাচে অশোভন আচরণের জন্য চার ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। সংবাদ মাধ্যমে এই খবর নিশ্চিত করেন মোহামেডানের ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান মাসুদুজ্জামান।

ক্রিকেট কমিটি অফ ঢাকা মেট্রোপলিস (সিসিডিএম) ম্যাচ রেফারি ও আম্পায়ারের কাছ থেকে পাওয়া প্রতিবেদনের ভিত্তিতে এই শাস্তি দিয়েছে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের অধিনায়ক সাকিবকে।

ডিপিএলের বাই লজের লেভেল ফোরের দুটি ধারা ভঙ্গের জন্য চার ম্যাচ খেলতে পারবেন না তিনি। সিসিডিএম এখনও আনুষ্ঠানিক চিঠি প্রকাশ করেনি সংবাদ মাধ্যমে।

ডিপিএলের হাই ভোল্টেজ আবাহনী লিমিটেড বনাম মোহামেডানের ম্যাচে ঘটে এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা।

মোহামেডানের বেঁধে দেয়া ১৪৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামা আবাহনী ইনিংসের পঞ্চম ওভারে প্রথমবার মেজাজ হারান সাকিব। সাকিবের করা ওভারের শেষ বলে মুশফিককে পরাস্ত করে তার প্যাড আঘাত হানে বল। লেগ বিফোরের জন্য সাকিবের জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। আর তাতেই সাকিব লাথি মেরে ভেঙে ফেলেন বোলিং প্রান্তের স্টাম্প।

ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম বলের পর বৃষ্টি নামলে আম্পায়াররা সিদ্ধান্ত নেন খেলা বন্ধ করার। কিন্তু তা মানতে চাননি সাকিব। আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক করতে করতে ক্ষোভ দেখিয়ে বোলিং প্রান্তের তিনটি স্টাম্প তুলে মাটিতে ছুড়ে মারেন তিনি। রাগান্বিত ভঙ্গিতে তর্কও করতে থাকেন আম্পায়ারের সঙ্গে।

স্টাম্পে লাথি দিয়ে  চার ম্যাচে নিষিদ্ধ সাকিব
আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কে সাকিব আল হাসান। ছবি: সিসিডিএম


এরপর সাকিব বিবাদে জড়ান আবাহনী কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনের সঙ্গেও। ম্যাচ শেষে আবাহনীর ড্রেসিংরুমে যেয়ে সুজনসহ সবার কাছেই দুঃখপ্রকাশ করেন তিনি। সুজনও মিমাংসা করে ফেলেন ঘটনাটি।

ম্যাচশেষে নিজের ফেসবুকে অ্যাকাউন্টে বিষয়টির জন্য ক্ষমা চান সাকিব। ম্যাচের মধ্যে মেজাজ হারানোর জন্য ক্ষমা চান তিনি।
তাতে কাজ হয়নি। লেভেল থ্রি পর্যায়ের শৃঙ্খলা ভঙ্গের শাস্তি পেয়েছেন সাকিব। খেলতে পারছেন না মোহামেডানের পরের চার ম্যাচে।

লিগে সাত ম্যাচে চার জয়ে নিয়ে টেবিলের চারে আছে সাকিবের মোহামেডান। সাকিব চার ম্যাচে নিষেধাজ্ঞা পাওয়ায় রাউন্ড রবিনে আর খেলতে পারছেন না।

তবে মোহামেডান যদি তাকে ছাড়াই সুপার লিগে কোয়ালিফাই করে সেক্ষেত্রে তাকে আবারও ক্লাবের দায়িত্বে দেখা যাবে। ১১ রাউন্ড পর নির্ধারিত হবে সুপার লিগের সেরা ছয় দল।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টির পর মুশফিকের সেঞ্চুরি
মিরপুরে বৃষ্টির পর আবার শুরু খেলা
মুশফিকের ফিফটির পর দ্রুত ফিরলেন তিন ব্যাটসম্যান
ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ
তামিম-সাকিবকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

প্রথম টেস্টে হারের মুখে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

প্রথম টেস্টে হারের মুখে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

উইন্ডিজ ওপেনার ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েইটের বিপক্ষে আপিল করছেন কাগিসো রাবাডা। ছবি: টুইটার

সেইন্ট লুসিয়ায় দ্বিতীয় দিন শেষে সফরকারীদের চেয়ে ১৪৩ রানে পিছিয়ে স্বাগতিক দল। দ্বিতীয় ইনিংসে দিনশেষে তাদের সংগ্রহ চার উইকেটে ৮২ রান।

সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই টেস্ট সিরিজের প্রথম টেস্টে পরাজয় এড়াতে লড়ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেইন্ট লুসিয়ায় দ্বিতীয় দিন শেষে সফরকারীদের চেয়ে ১৪৩ রানে পিছিয়ে স্বাগতিক দল। দ্বিতীয় ইনিংসে দিনশেষে তাদের সংগ্রহ চার উইকেটে ৮২ রান।

চার উইকেটে ১২৮ রান নিয়ে খেলতে নেমে দ্বিতীয় দিন নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৩২২ রানে অলআউট হয় সাউথ আফ্রিকা।

দ্বিতীয় দিন একাই লড়াই করেন প্রোটিয়া উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি কক। চার রান নিয়ে খেলতে নেমে নিজের ষষ্ঠ টেস্ট সেঞ্চুরি তুলে নেন তিনি। অপরাজিত থাকেন ক্যারিয়ার সেরা ১৪১ রানের ইনিংস খেলে।

সাউথ আফ্রিকার পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৬০ রান করেন এইডেন মারক্রাম। ৪৬ রান আসে রাসি ফন ডার ডুসেনের ব্যাট থেকে।

উইন্ডিজের হয়ে অভিজ্ঞ জেসন হোল্ডার ৭৫ রানে চারটি উইকেট নেন। অভিষিক্ত পেইসার জেইডেন সিলস তিনটি আর কিমার রোচ দুই উইকেট নেন।

২২৫ রানে পিছিয়ে থেকে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে শুরু করে বিপাকে পড়ে স্বাগতিক ব্যাটিং লাইনআপ।

কাগিসো রাবাডার গতিতে পরাস্ত হন দুই ক্যারিবিয়ান ওপেনিং ব্যাটার। অধিনায়ক ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েইট এলবিডাব্লিউ হন সাত রান করে। ১৪ রান করে একইভাবে আউট হন আরেক ওপেনার কিরেন পাওয়েল।

এরপর জোড়া আঘাত করেন আনরিখ নরটিয়া। শেই হোপ ও কাইল মায়ার্সকে ফেরান এই ফাস্ট বোলার। দুই জনই করেন ১২ রান করে।

৫১ রানে চার উইকেটে হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে উইন্ডিজ। দিনের শেষ পর্যন্ত টিকে থেকে পরিস্থিত সামাল দেন রস্টন চেইস ও জার্মেইন ব্ল্যাকউড। চেইস ২১ আর ব্ল্যাকউড ১০ রানে অপরাজিত।

সাউথ আফ্রিকাকে দ্বিতীয়বার ব্যাট করাতে হলে আরও ১৪৩ রান করতে হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। নিজেদের প্রথম ইনিংসে তারা গুটিয়ে যায় মাত্র ৯৭ রানে।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টির পর মুশফিকের সেঞ্চুরি
মিরপুরে বৃষ্টির পর আবার শুরু খেলা
মুশফিকের ফিফটির পর দ্রুত ফিরলেন তিন ব্যাটসম্যান
ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ
তামিম-সাকিবকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

ঢাকা ডার্বিতে মোহামেডানের সহজ জয়, উত্তাপ ছড়ালেন সাকিব

ঢাকা ডার্বিতে মোহামেডানের সহজ জয়, উত্তাপ ছড়ালেন সাকিব

আবাহনীর বিপক্ষে ব্যাটিংয়ে সাকিব। ছবি: ডিপিএল

ঐতিহ্যবাহী দুই দলের লড়াইয়ে সহজ জয়ই পেয়েছে মোহামেডান। বৃষ্টি আইনে তারা আবাহনীকে হারিয়েছে ৩১ রানে।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) নিঃসন্দেহে সবচেয়ে হাই ভোল্টেজ ম্যাচ আবাহনী লিমিটেড ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের লড়াই। এবারে অবশ্য উত্তাপ ম্যাচের ফল নির্ধারণে হয়নি, বরং বিতর্কিত ঘটনায় সবটুকু আলো নিজের ওপর টেনে নিয়েছেন মোহামেডান অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

ঐতিহ্যবাহী দুই দলের লড়াইয়ে সহজ জয়ই পেয়েছে মোহামেডান। বৃষ্টি আইনে তারা আবাহনীকে হারিয়েছে ৩১ রানে।

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে পারভেজ হোসেন ইমন ও আবদুল মজিদের ব্যাটে ধীর শুরু পায় মোহামেডান। তবে ৬৮ রানের ভেতরেই দুই ওপেনারের সঙ্গে শামসুর রহমান ও ইরফান শুক্কুরকে হারিয়ে বিপদে পড়ে মোহামেডান।

সেখান থেকে তাদের উদ্ধার করেন অধিনায়ক সাকিব ও মাহমুদুল হাসান। দুজনে মিলে গড়েন ৪৬ রানের জুটি। প্রথমবারের মতো এবারের আসরে ৩০ রান পেরোন সাকিব, কিন্তু মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের বলে আউট হয়ে ফেরেন তিনি।

শেষ পর্যন্ত মোহামেডানকে ১৪৫ রানে নিয়ে যান মাহমুদুল হাসান, অপরাজিত থাকেন ৩০ রানে।

আবাহনীর হয়ে তিনটি উইকেট শিকার করেন একেএস স্বাধীন। দুটি উইকেট শিকার করেন তানজিম হোসেন সাকিব, একটি উইকেট পান সাইফউদ্দিন।

জবাবে শুভাগত হোমের বোলিং তোপে তিন ওভারের মধ্যেই তিন উইকেট হারায় আবাহনী। শুভাগত একে একে বিদায় করেন নাইম শেখ, স্বাধীন ও আফিফ হোসেনকে।

এরপরই পঞ্চম ওভারে বোলিংয়ে আসেন সাকিব, আর সেখানেই জন্ম দেন বিতর্কের।

সাকিবের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে তাকে ছয় মারেন আবাহনী অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, পরের বলেই চার। শেষ বলে অবশ্য মুশফিককে পরাস্ত করে তার প্যাড আঘাত হেনেছিল সাকিবের বল।

কিন্তু লেগ বিফোরের জন্য সাকিবের জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। আর তাতেই সাকিব লাথি মেরে ভেঙে ফেলেন বোলিং প্রান্তের স্টাম্প।

ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম বলের পর বৃষ্টি নামলে আম্পায়াররা সিদ্ধান্ত নেন খেলা বন্ধ করার। কিন্তু তা মানতে চাননি সাকিব। আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক করতে করতে ক্ষোভ দেখিয়ে বোলিং প্রান্তের তিনটি স্টাম্প তুলে মাটিতে ছুড়ে মারেন তিনি। রাগান্বিত ভঙ্গিতে তর্কও করতে থাকেন আম্পায়ারের সঙ্গে।

এরপর সাকিব বিবাদে জড়ান আবাহনী কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনের সঙ্গেও। তবে পরে দুজনে মিলে বিষয়টির মিমাংসা করেন বলেও জানা যায়।

বৃষ্টির পর আবার খেলা শুরু হলে, বৃষ্টি আইনে আবাহনীর লক্ষ্য দাঁড়ায় ৯ ওভারে ৭৬। ৩১ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলা আবাহনী বাকি ৩.১ ওভারে করতে পারে মাত্র ১৩ রান। তাতে ৪৪ রানে ইনিংস শেষ করে ৩১ রানে হার মানে তারা।

শুভাগতর তিন উইকেটের সঙ্গে তাসকিন আহমেদ তুলে নেন দুই উইকেট।

টানা তিন ম্যাচ হারার পর আবারও জয় তুলে নিল মোহামেডান। অন্যদিকে সপ্তম ম্যাচে এটি দ্বিতীয় হার আবাহনীর।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টির পর মুশফিকের সেঞ্চুরি
মিরপুরে বৃষ্টির পর আবার শুরু খেলা
মুশফিকের ফিফটির পর দ্রুত ফিরলেন তিন ব্যাটসম্যান
ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ
তামিম-সাকিবকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

ক্ষমা চাইলেন সাকিব

ক্ষমা চাইলেন সাকিব

আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক করছেন সাকিব। ছবি: ডিপিএল

আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে একবার স্টাম্পে লাথি মারেন সাকিব। এরপর আরেকবার তর্কে জড়িয়ে স্টাম্প তুলে মাটিতে আছাড় মারেন তিনি।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) আবাহনী লিমিটেড ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের মধ্যকার ম্যাচে আম্পায়ারের ওপর মেজাজ হারিয়ে লাথিতে স্টাম্প ভেঙে ফেলার ঘটনায় ক্ষমা চেয়েছেন সাকিব আল হাসান।

ঘটনা মোহামেডানের বেঁধে দেয়া ১৪৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামা আবাহনী ইনিংসের পঞ্চম ওভারের।

সাকিব বোলিংয়ে আসলে দ্বিতীয় বলে তাকে ছয় মারেন আবাহনী অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, পরের বলেই চার। শেষ বলে অবশ্য মুশফিককে পরাস্ত করে তার প্যাড আঘাত হেনেছিল সাকিবের বল।

কিন্তু লেগ বিফোরের জন্য সাকিবের জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। আর তাতেই সাকিব লাথি মেরে ভেঙে ফেলেন বোলিং প্রান্তের স্টাম্প।

ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম বলের পর বৃষ্টি নামলে আম্পায়াররা সিদ্ধান্ত নেন খেলা বন্ধ করার। কিন্তু তা মানতে চাননি সাকিব। আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক করতে করতে ক্ষোভ দেখিয়ে বোলিং প্রান্তের তিনটি স্টাম্প তুলে মাটিতে ছুড়ে মারেন তিনি। রাগান্বিত ভঙ্গিতে তর্কও করতে থাকেন আম্পায়ারের সঙ্গে।

ম্যাচশেষে নিজের ফেসবুকে অ্যাকাউন্টে বিষয়টির জন্য ক্ষমা চেয়েছেন সাকিব। ম্যাচের মধ্যে মেজাজ হারানোর জন্য ক্ষমা চান তিনি।

‘প্রিয় ভক্ত ও অনুসারীরা, আমি আন্তরিকভাবে দুঃখিত মেজাজ হারিয়ে সবার জন্য ম্যাচটি নষ্ট করার জন্য, বিশেষ করে তাদের জন্য যারা বাসা থেকে ম্যাচটি দেখছে। আমার মতো একজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়ের এভাবে প্রতিক্রিয়া দেখানো উচিত হয়নি কিন্তু মাঝেমধ্যে দুর্ভাগ্যবশত সব কিছুর বিপরীতে এমন ঘটনা ঘটে যায়। আমি দুই দল, ম্যানেজমেন্ট, টুর্নামেন্টের কর্মকর্তা ও আয়োজক কমিটির কাছে এই মানবিক ভুলের জন্য ক্ষমা চাইছি। ভবিষ্যতে এমনটি আর হবে না। ধন্যবাদ এবং সবাইকে ভালোবাসা,’ লিখেন সাকিব।

সাকিব কোনো শাস্তি পাবেন কি না, সেটি ঠিক করবেন ম্যাচ রেফারি।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টির পর মুশফিকের সেঞ্চুরি
মিরপুরে বৃষ্টির পর আবার শুরু খেলা
মুশফিকের ফিফটির পর দ্রুত ফিরলেন তিন ব্যাটসম্যান
ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ
তামিম-সাকিবকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন

আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক: লাথিতে স্টাম্প ভাঙলেন সাকিব

আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক: লাথিতে স্টাম্প ভাঙলেন সাকিব

আম্পায়ার আউটের আবেদনে সাড়া না দেয়ায় মেজাজ হারান সাকিব আল হাসান। ছবি: ডিপিএল

লেগ বিফোরের জন্য সাকিবের জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। আর তাতেই সাকিব লাথি মেরে ভেঙে ফেলেন বোলিং প্রান্তের স্টাম্প।

আবাহনী লিমিটেড ও মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের ম্যাচ মানেই উত্তেজনার পারদ পৌঁছে যাওয়া তুঙ্গে। সেই উত্তেজনা দেখা গেল মিরপুরে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) ম্যাচে।

যে ঘটনা ঘটল, সেটি বিতর্কিত। আর সে বিতর্কের জন্মটা দিলেন সাকিব। এমন ঘটনা অবশ্য তার ক্ষেত্রে নতুন কিছু নয়।

ঘটনা আবাহনীর ইনিংসের পঞ্চম ওভারের শেষ বলে। মোহামেডানের বেঁধে দেয়া ১৪৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুভাগত হোমের বোলিং তোপে তিন ওভারের মধ্যেই তিন উইকেট হারিয়ে ফেলে আবাহনী।

পঞ্চম ওভারে বোলিংয়ে আসেন সাকিব। দ্বিতীয় বলে তাকে ছয় মারেন আবাহনীর অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, পরের বলেই চার। শেষ বলে অবশ্য মুশফিককে পরাস্ত করে তার প্যাড আঘাত হেনেছিল সাকিবের বল।

কিন্তু লেগ বিফোরের জন্য সাকিবের জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। আর তাতেই সাকিব লাথি মেরে ভেঙে ফেলেন বোলিং প্রান্তের স্টাম্প।

আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কও করেন বেশ কিছুক্ষণ। এরপর সতীর্থরা তাকে সরিয়ে নেন।

ষষ্ঠ ওভারের পঞ্চম বলের পর বৃষ্টি নামলে আম্পায়াররা সিদ্ধান্ত নেন খেলা বন্ধ করার। কিন্তু তা মানতে চাননি সাকিব। আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক করতে করতে ক্ষোভ দেখিয়ে বোলিং প্রান্তের তিনটি স্টাম্প তুলে মাটিতে ছুড়ে মারেন তিনি। রাগান্বিত ভঙ্গিতে তর্কও করতে থাকেন আম্পায়ারের সঙ্গে।

আম্পায়ারের সঙ্গে তর্ক: লাথিতে স্টাম্প ভাঙলেন সাকিব
বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ করায় আম্পায়ারের সঙ্গে আবার তর্কে জড়ান সাকিব। ছবি: ডিপিএল

ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারের সঙ্গে সাকিবের তর্কের ঘটনা নতুন নয়। ২০১৫ সালে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে রংপুরের হয়ে খেলার সময় আম্পায়ার তানভির আহমেদ একটি আবেদনে সাড়া না দিলে তার দিকে তেড়ে যান সাকিব, তর্ক করেন।

ম্যাচশেষে ম্যাচ রেফারি সিদ্ধান্ত নেবেন, সাকিবের শাস্তি হবে কি না।

চলতি ডিপিএলে এর আগেও বিতর্কে জড়িয়েছিলেন সাকিব। তার অনুশীলনের সময় মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়ামে জৈব নিরাপত্তা বলয়ের ভেতর ঢুকে পড়ে বলয়ের বাইরে থাকা একজন। সেই ঘটনায় অবশ্য সাকিব ও মোহামেডানকে কেবল নোটিশই দিয়েছে ক্রিকেট কমিটি অফ ঢাকা মেট্রোপলিস ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

আবাহনীর বিপক্ষে এই ম্যাচেই আসরে প্রথমবারের মতো ৩০ রান পেরোন সাকিব, আউট হন ৩৭ রানে। তার ৩৭ রানে ভর করে ১৪৫ রানের সংগ্রহ গড়ে মোহামেডান।

আরও পড়ুন:
বৃষ্টির পর মুশফিকের সেঞ্চুরি
মিরপুরে বৃষ্টির পর আবার শুরু খেলা
মুশফিকের ফিফটির পর দ্রুত ফিরলেন তিন ব্যাটসম্যান
ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশ
তামিম-সাকিবকে হারিয়ে বিপদে বাংলাদেশ

শেয়ার করুন