মাঠের বাইরে ব্যবসায় ব্যস্ত ক্রিকেটাররা

নাফিস ইকবালের দমফুঁক রেস্তোরাঁয় সৌম্য সরকার, মুস্তাফিজুর রহমান ও রুবেল হোসেন। ছবি: ফেসবুক

মাঠের বাইরে ব্যবসায় ব্যস্ত ক্রিকেটাররা

বাংলাদেশে শুধু সাকিবই নন, তাসকিন আহমেদ, মোহাম্মদ আশরাফুল, তারেক আজিজ খান ও নাফিস ইকবালরা বিভিন্ন ব্যবসার সঙ্গে জড়িত।

গত ১৯ মে পুঁজিবাজারে ব্রোকারেজ হাউজের (অনুমোদিত শেয়ার কেনাবেচার প্রতিষ্ঠান) ব্যবসা করার অনুমতি পান ক্রিকেটের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার ও পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির শুভেচ্ছা দূত সাকিব আল হাসান। তার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের নাম মোনার্ক হোল্ডিং।

তবে মোনার্ক হোল্ডিংস সাকিবের একমাত্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নয়। দেশসেরা এই ক্রিকেটার রেস্তোরাঁ ও মাছের খামার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। ঢাকায় 'সাকিবস ডাইন' নামে বনানীতে রেস্তোরাঁ আছে তার। আর সাতক্ষীরায় রয়েছে সাকিব অ্যাগ্রো ফার্ম নামের কাঁকড়ার খামার।

ক্রীড়া তারকারা ক্যারিয়ার চলাকালীন বা অবসরের পর সাধারণত বেছে নেন কোচিং বা অ্যাকডেমি চালানোর পেশা। তবে তারকাদের খেলাধুলার পাশাপাশি নিয়মিত ব্যবসায় জড়িয়ে পড়াটা নতুন কিছু নয়। বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার ক্রিস্টিয়ানো রোনালডোর আছে পাঁচ তারকা হোটেল ও ক্লোদিং লাইন। লিওনেল মেসির রয়েছে নিজের নামের ক্রীড়া সামগ্রীর ব্যবসা। শচীন টেন্ডুলকার ও কুমার সাঙ্গাকারার রয়েছে রেস্তোরাঁ।

বাংলাদেশে শুধু সাকিবই নন, তাসকিন আহমেদ, মোহাম্মদ আশরাফুল, তারেক আজিজ খান ও নাফিস ইকবালরা বিভিন্ন ব্যবসার সঙ্গে জড়িত।

মাঠের বাইরে ব্যবসায় ব্যস্ত ক্রিকেটাররা
নিজের রেস্তোরাঁ সাকিবস ডাইনের ডিজিটাল বিজ্ঞাপণে সাকিব আল হাসান। ছবি: ফেসবুক


মাঠের দক্ষতার সঙ্গে কতটুকু আলাদা ব্যবসায়িক দক্ষতা? সফল ক্রিকেটার থেকে সফল উদ্যোক্তা হতে ঠিক কী কী প্রয়োজন? এমন কিছু বিষয় জানতে নিউজবাংলা কথা বলেছে কয়েকজন ক্রিকেটারের সঙ্গে।

চট্টগ্রামের অন্যতম জনপ্রিয় রেস্তোরাঁ 'দমফুঁক'-এর অন্যতম মালিক নাফিস ইকবাল। জাতীয় দলের সাবেক তারকা ওপেনার নাফিস ও তার কয়েকজন বন্ধু মিলে দিয়েছেন এই রেস্তোরাঁ। তখনও তিনি মাঠে সক্রিয় ছিলেন। ক্রিকেটের দক্ষতার সঙ্গে রেস্তোরাঁ চালানোর দক্ষতার মিলের চেয়ে অমিলটাই বেশি পেয়েছেন নাফিস।

‘ক্রিকেট একটা ব্যক্তিনির্ভর খেলা। ওখানে নিজের অনুশীলন ও পরিশ্রম আমাকে সাফল্য পেতে সাহায্য করবে। নিজের ব্যর্থতা ও সাফল্য নিজের ওপরই নির্ভর করে অনেকাংশে। আর রেস্টুরেন্ট ব্যবসায় অনেকের উপর নির্ভর করতে হবে। শেফ, ম্যানেজমেন্ট সব মিলিয়ে অনেকগুলো বিষয় আছে,’ বলেন নাফিস।

আরও পড়ুন: ব্রোকারেজ হাউজ ব্যবসায় সাকিব আল হাসান


ক্রিকেট মাঠের মতো রেস্তোরাঁ ব্যবসার সাফল্যও গুরুত্বপূর্ণ নাফিসের কাছে। নাফিসের মতে রেস্তোরাঁ ব্যবসার সাফল্য অতিথিদের সন্তুষ্টিতে।

‘তৃপ্তিটা হচ্ছে অতিথিদের আনন্দে। যখন ভালো খাবার খেয়ে একজন অতিথি সন্তুষ্ট হন, পরিবেশ ও খাবারের মান ও দাম সব মিলিয়ে তিনি যখন সন্তুষ্ট হন, সেটাই আসলে সাফল্য। আর ক্রিকেট মাঠে যখন ভাল খেলতাম, দলের সাফল্য আসত। সেটাও আরেক ধরনের সন্তুষ্টি।’

বাংলাদেশে ক্রিকেটারদের পছন্দের ব্যবসা রেস্তোরাঁ। নাফিস ছাড়াও তাসকিন ও আশরাফুলও জনপ্রিয় রেস্তোরাঁর মালিক। রেস্তোরাঁ রয়েছে সাবেক অধিনায়ক আকরাম খানেরও।

সাবেক জাতীয় পেইসার তারেক আজিজ খান এদের চেয়ে কিছুটা ভিন্ন। তিনি ব্যস্ত তার ক্রীড়া সামগ্রীর ব্যবসা নিয়ে। নিজস্ব 'টিকে স্পোর্টস' ব্র্যান্ডের একাধিক শো-রুম রয়েছে তারেকের।

নিজের ক্রিকেট ক্যারিয়ারের সঙ্গে ব্যবসার ক্যারিয়ারের তুলনা করতে চান না এই সাবেক জাতীয় পেইসার ও বর্তমানে সফল কোচ।

‘ক্রিকেট একটা ভালোবাসার জায়গা। এটার সঙ্গে কোনো কিছুর তুলনা চলে না। আরেকটা হলো বাস্তবতা। ক্রিকেট থেকে তো আমরা ততটা উপার্জন করতে পারিনি। তাই সুস্থ স্বাভাবিকভাবে বেঁচে থাকতে এই ব্যবস্থা। এই জন্য টিকে স্পোর্টস। এটার প্রতি ভালোবাসা অন্যরকম। দুইটার মধ্যে তুলনা নাই।’

মাঠের বাইরে ব্যবসায় ব্যস্ত ক্রিকেটাররা
তারেক আজিজ খানের টিকে স্পোর্টসের একটি শোরুম। ছবি: ফেসবুক


করোনাভাইরাস মহামারিতে ব্যবসায় লোকসানের মুখ দেখা তারেক নিউজবাংলাকে জানান ক্রিকেটের মাঠের মতো ব্যবসারও অন্যতম উপাদান ধৈর্য্য।

‘ব্যবসায় সবচেয়ে বেশী লাগে ধৈর্য্য। সময়ের চাহিদাটা বুঝে আপডেটেড থাকতে হবে। আর কৌশলি হতে হয়।’

ক্রিকেট মাঠে ব্যস্ত থাকার পাশাপাশি বিজ্ঞাপণ ও নানা সংস্থার শুভেচ্ছা দূত হিসেবেও কাজ করেন ক্রিকেটাররা। একাধিক ব্র্যান্ডের দূত সাকিব, তামিম, মুশফিকরা। ইউনিসেফের দূত হিসেবে কাজ করছেন মুশফিক ও সাকিব।

এর বাইরে ব্যবসা বা উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করাটাকে বাড়তি চাপ মনে করেন না তারেক।

তিনি বলেন, ‘এটা শখেরও বিষয়। অনেকেরই স্বপ্ন বড় একটা রেস্তোরাঁ থাকবে। নিজস্ব ব্র্যান্ডের জিনিস থাকবে। এগুলো আসে ভালো লাগা থেকেই। খেলা থেকে মনোযোগ সরিয়ে রাখতেও অনেকে আলাদা কিছু একটা নিয়ে ব্যস্ত থাকতে চান। এগুলো আমি খুবই পজিটিভ ভাবে দেখি।’

আরও পড়ুন:
‘জয়ের পাশাপাশি ভবিষ্যত ভাবনাও গুরুত্বপূর্ণ’
দুই বছরের জন্য বিসিবির টাইটেল স্পন্সর এলেশা
শান্তকে নিয়ে আবারও অশান্ত বিসিবি

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ডিপিএল ‘ফাইনালে’ মুখোমুখি আবাহনী ও প্রাইম ব্যাংক

ডিপিএল ‘ফাইনালে’ মুখোমুখি আবাহনী ও প্রাইম ব্যাংক

শেখ জামাল ধানমণ্ডি ক্লাবের বিপক্ষে উইকেট উদযাপন করছেন আবাহনীর ইলিয়াস সানি। ছবি: সিসিডিএম

১৫ ম্যাচ শেষে ২২ পয়েন্ট সংগ্রহ দুই দলেরই। শনিবারের ম্যাচে যে দল জিতবে তারাই হবে চ্যাম্পিয়ন। তিনে থাকা প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টস ক্লাবের সংগ্রহ ২১ পয়েন্ট।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) এর শিরোপা নিষ্পত্তি হচ্ছে সুপার লিগের শেষ দিন। শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অলিখিত ফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে আবাহনী লিমিটেড ও প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব।

১৫ ম্যাচ শেষে ২২ পয়েন্ট সংগ্রহ দুই দলেরই। শনিবারের ম্যাচে যে দল জিতবে তারাই হবে চ্যাম্পিয়ন। তিনে থাকা প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টস ক্লাবের সংগ্রহ ২১ পয়েন্ট।

গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে আবাহনীর হেড কোচ খালেদ মাহমুদ এক ভিডিও বার্তায় সংবাদ মাধ্যমকে জানান প্রতিপক্ষকে কোনো ভাবেই হালকা করে নেওয়ার সুযোগ নেই তাদের।

মাহমুদ বলেন, ‘কালকে আমাদের লিগের শেষ খেলা। শিরোপা নির্ধারণী খেলা হতে যাচ্ছে। ফলে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ আমাদের জন্য। প্রাইম ব্যাংক শক্তিশালী দল। তবে আমরাও পিছিয়ে নেই। যে দল ভালো খেলবে তারাই চ্যাম্পিয়ন হবে। চূড়ান্ত ম্যাচের জন্য আবাহনী প্রস্তুত।’

লিগের দুই দলের প্রথম দেখায় জিতেছিল আবাহনী। সেই আত্মবিশ্বাস নিয়ে শনিবার নামতে চান এমনটাই বলেন জাতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক, ‘প্রথমবারের দেখা রাউন্ড রবিনে ওদের সঙ্গে জয়ী হয়েছিলাম। আশা করি কালও ভালো খেলব। ম্যাচ জিতেই শিরোপা নিশ্চিত করতে চাই।’

ডিপিএল ‘ফাইনালে’ মুখোমুখি আবাহনী ও প্রাইম ব্যাংক
ম্যাচের বৃষ্টি বিরতিতে প্রাইম ব্যাংকের ক্রিকেটারদের ওয়ার্ম আপ। ছবি: প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাব



দুই দলই তাদের সেরা দুই তারকাকে ছাড়াই নামছে মহাগুরুত্বপূর্ণ এই লড়াইয়ে। আঙ্গুলের চোটের কারণে টুর্নামেন্ট শেষ হয়ে গেছে আবাহনীর অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিমের। আর ডান পায়ের চোটে প্রাইম ব্যাংকের অধিনায়ক তামিম ইকবাল খেলতে পারেননি সুপার লিগে।

আবাহনী ও প্রাইম ব্যাংক দুই দলের ঘাড়ের কাছে নিঃশ্বাস ফেলছে প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাব। দুই দলের সমান ১৫ ম্যাচ খেলে তাদের সংগ্রহ ২১ পয়েন্ট। আবাহনী-প্রাইম ব্যাংক ম্যাচ যদি কোনো কারণে পরিত্যক্ত হয় আর প্রাইম দোলেশ্বর যদি নিজেদের শেষ ম্যাচে মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবকে হারাতে পারে তাহলে রানরেটে তারাই চ্যাম্পিয়ন হবে।

শেষ দিনে আবাহনী-প্রাইম ব্যাংকের সূচি বদলানো হয়েছে। বিসিবি এক বিবৃতিতে জানায়, সকালের বদলের ম্যাচটি শুরু হচ্ছে দুপুর ২টায়। আর প্রাইম দোলেশ্বর-মোহামেডান ম্যাচটি নিয়ে আসা হয়েছে সকাল ৯.৩০ মিনিটে।

অর্থাৎ প্রাইম দোলেশ্বর ম্যাচের ফল জেনেই মাঠে নামতে পারবে আবাহনী ও প্রাইম ব্যাংক।

আবাহনী শিরোপা জিতলে এটা হবে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) তাদের হ্যাটট্রিক শিরোপা। আর ২০১৪-১৫ সালের শিরোপা জিতেছিল প্রাইম ব্যাংক।

আরও পড়ুন:
‘জয়ের পাশাপাশি ভবিষ্যত ভাবনাও গুরুত্বপূর্ণ’
দুই বছরের জন্য বিসিবির টাইটেল স্পন্সর এলেশা
শান্তকে নিয়ে আবারও অশান্ত বিসিবি

শেয়ার করুন

বৃষ্টি আইনে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে সিরিজ ইংল্যান্ডের

বৃষ্টি আইনে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে সিরিজ ইংল্যান্ডের

স্যাম কারেনকে অভিনন্দন জানাচ্ছেন লিয়াম লিভিংস্টোন। ছবি: এএফপি

কার্ডিফে বৃষ্টি আইনে সফরকারী দলকে ৫ উইকেটে হারায় স্বাগতিকরা। এতে করে এক ম্যাচ আগেই ২-০ ব্যবধানে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে ওইন মরগ্যানের দল।

তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়ে সিরিজ জিতে নিয়েছে ইংল্যান্ড। কার্ডিফে বৃষ্টি আইনে সফরকারী দলকে ৫ উইকেটে হারায় স্বাগতিকরা। এতে করে এক ম্যাচ আগেই ২-০ ব্যবধানে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে ওইন মরগ্যানের দল।

ওয়েলসের বৃষ্টি ভেজা রাতে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন লঙ্কান অধিনায়ক কুশল পেরেরা। ব্যাট করতে নেমে পাওয়ার প্লেতে দুই উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা।

নবম বলে ৩ রান করা দানুস্কা গুনাথিলাকা রানআউট হন। দুই ওভার বলে স্যাম কারেনের বলে ৬ রানে বিদায় নেন আভিস্কা ফার্নান্দো।

এরপর ইনিংস সামাল দেন কুশাল পেরেরা ও কুশাল মেন্ডিস। তৃতীয় উইকেটে ৫০ রানের জুটি গড়েন দুই ব্যাটসম্যান।

১৩তম ওভারে আদিল রাশিদের বলে ২১ রান করে ফেরেন পেরেরা। ৫ বল পরই মার্ক উড আউট করেন ৩৯ রান করা মেন্ডিসকে।

এই ধাক্কা সামলে উঠতে পারেনি লঙ্কানরা। স্বাগতিক বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের মুখে অলআউট না হলেও সংগ্রহ বড় করতে পারেনি তারা।

নির্ধারিত ২০ ওভারে শ্রীলঙ্কা স্কোরবোর্ডে তোলে ৭ উইকেটে ১১১ রান। ইংল্যান্ডের হয়ে রাশিদ ও উড দুটি করে উইকেট নেন।

ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে বিপর্যয়ে পড়ে ইংল্যান্ডও। ৬ দশমিক ৩ ওভারে তারা হারায় চার উইকেট। ইংলিশদের বোর্ডে তখন রান মাত্র ৩৬।

জনি বেয়ারস্টো, জেসন রয়, ডাউয়িড মালান ও অধিনায়ক মরগ্যান কেউই বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। টপ অর্ডারে সর্বোচ্চ ১৭ রান করেন বেয়ারস্টো।

এরপর স্যাম বিলিংস, লিয়াম লিভিংস্টোন ও স্যাম কারেনের ছোট ছোট তিনটি ইনিংসে ডাকওয়ার্থ-লুইস মেথডের নির্ধারিত সীমার ওপরে থাকে ইংল্যান্ড। লিভিংস্টোন ২৯, বিলিংস ২৪ আর কারেন ১৬ রান করেন।

১৬ দশমিক ১ ওভারের পর বৃষ্টির কারণে আর খেলা শুরু করা না গেলে ডি/এল মেথডে জয়ী ঘোষণা করা হয় স্বাগতিক দলকে। সে সময় তাদের রান ছিল ৫ উইকেটে ১০৮।

লো স্কোরিং ম্যাচে অপরাজিত ২৯ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচ সেরা হন লিভিংস্টোন।

শনিবার সাউদ্যাম্পটনে হবে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি। ২৯ জুন থেকে চেস্টার লি স্ট্রিটে শুরু হবে দুই দলের তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ।

আরও পড়ুন:
‘জয়ের পাশাপাশি ভবিষ্যত ভাবনাও গুরুত্বপূর্ণ’
দুই বছরের জন্য বিসিবির টাইটেল স্পন্সর এলেশা
শান্তকে নিয়ে আবারও অশান্ত বিসিবি

শেয়ার করুন

আশরাফুলের আশা জাগানিয়া ব্যাটিংয়ে হারল আবাহনী

আশরাফুলের আশা জাগানিয়া ব্যাটিংয়ে হারল আবাহনী

ছবি: সংগৃহিত

টার্গেটে নেমে ৪৮ বলে অপরাজিত ৭২ রানের ‍দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। নাসির হোসেন, অধিনায়ক নুরুল হাসান ৩৬ করে রান করলেও শেষ নয় বলে জিয়ার ২২ রানের ঝড়ে নয় বল বাকী থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছায় শেখ জামাল।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) ১৫তম ম্যাচে শেখ জামালের মুখোমুখি ঢাকা আবাহনী।

সুপার লিগে তিন ম্যাচে জয় পাওয়া আবাহনীকে হারিয়ে দিয়েছে ধানমন্ডির জায়ান্টরা। অপরাজিত ৭৩ রানের দুর্দান্ত ইনিংসে আবাহনীকে হারিয়ে দেয় শেখ জামাল।

মুশফিকুর রহিমকে ছাড়াই সুপার লিগে চতুর্থ ম্যাচে নেমেও শেখ জামালকে বড় টার্গেট ছুড়ে দেয় আবাহনী।

মোহাম্মদ নাইমের ৪২ আর মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের ৭০ রানের ইনিংসে ভর করে ১৭৩ রান তোলে আবাহনী।

টার্গেটে নেমে ৪৮ বলে অপরাজিত ৭২ রানের ‍দুর্দান্ত ইনিংস খেলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। নাসির হোসেন, অধিনায়ক নুরুল হাসান ৩৬ করে রান করলেও শেষ নয় বলে জিয়ার ২২ রানের ঝড়ে নয় বল বাকী থাকতেই জয়ের বন্দরে পৌঁছায় শেখ জামাল।

ছয় উইকেটে আবাহনীকে হারায় আশরাফুল-সোহানরা।

চলতি লিগে এটাই আশরাফুলের সর্বোচ্চ ইনিংস ও প্রথম ফিফটি। গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দলকে এমন আশা জাগানিয়া ইনিংস দিয়ে জয় উপহার দিয়েছেন ৩৭ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। এখনও স্বপ্ন দেখেন জাতীয় দলে ফিরবেন তিনি।

আরও পড়ুন:
‘জয়ের পাশাপাশি ভবিষ্যত ভাবনাও গুরুত্বপূর্ণ’
দুই বছরের জন্য বিসিবির টাইটেল স্পন্সর এলেশা
শান্তকে নিয়ে আবারও অশান্ত বিসিবি

শেয়ার করুন

জাতীয় ক্রিকেট দলে চাঁদপুরের শামীম

জাতীয় ক্রিকেট দলে চাঁদপুরের শামীম

জাতীয় দলে ডাক পাওয়া ক্রিকেটার শামীম হোসেন। ছবি:নিউজবাংলা

২০২০ সালে যুব বিশ্বকাপে ভালো পারফরমেন্সের পর থেকেই নির্বাচকদের নজরে চলে আসেন শামীম। এর পরে ঘরোয়া ক্রিকেটে ব্যাটে-বলে উজ্জ্বল পারফরম্যান্সের পুরস্কার হিসেবে নির্বাচকরা জাতীয় দলের জন্য বিবেচনা করে শামীমকে।

এই প্রথম চাঁদপুরের কোনো ক্রিকেটার বাংলাদেশ জাতীয় দলে জায়গা করে নিল। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী ক্রিকেটার শামীম হোসেন পাটোয়ারীর হাত ধরে বন্ধাত্ব ঘুচলো চাঁদপুর ক্রিকেটাঙ্গনের। আসন্ন জিম্বাবুয়ে সফরের টি-টুয়েন্টি স্কোয়ার্ডে জায়গা পেয়েছে ব্যাটিং অলরাউন্ডার শামীম। তার হাত ধরে চাঁদপুর ক্রীড়াঙ্গনে রচিত হলো এক গৌরবাজ্জ্বল ইতিহাস।

চাঁদপুরের ছেলে শামীম হোসেন জাতীয় দলে জায়গা পাওয়ায় আনন্দের বন্যা বইছে তার পরিবার, স্বজন, ক্রীড়াঙ্গনসহ পুরো জেলার ক্রিকেট প্রেমী মানুষের মাঝে। সকলের চাওয়া মূল একাদশে জায়গা পেয়ে শামীম তার পারফরমেন্সের মাধ্যমে চাঁদপুরের নাম বিশ্বে উজ্জ্বল করবে।

২০২০ সালে যুব বিশ্বকাপে ভালো পারফরমেন্সের পর থেকেই নির্বাচকদের নজরে চলে আসেন শামীম। এর পরে ঘরোয়া ক্রিকেটে ব্যাটে-বলে উজ্জ্বল পারফরম্যান্সের পুরস্কার হিসেবে নির্বাচকরা জাতীয় দলের জন্য বিবেচনা করে শামীমকে।

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার ধানুয়া গ্রামের আব্দুল হামিদ পাটোয়ারী ও রীনা বেগমের ছেলে শামীম হোসেন পাটোয়ারী। চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে শামীম হোসেন সবার ছোট। ছেলের এমন অভাবনীয় সাফল্যে উচ্ছ্বসিত শামীমের বাবা-মা।

আব্দুল হামিদ পাটোয়ারী বলেন, ‘আমার ছেলে জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছে খবর শুনে আমি যে কতটা খুশি তা ভাষায় বুঝাতে পারব না। আমার স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। আমার ছেলের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই। সে যেন দেশের জন্য ভালো কিছু করতে পারে।’

তিনি আরও বলেন, ছোটবেলা থেকেই শামীম খেলাধুলার প্রতি অনেক আগ্রহী ছিল। আমরাও তাকে উৎসাহ দিয়েছি। কখনই তাকে খেলতে বাধা দেইনি।

শামীমের মা রীনা বেগম বলেন, বুধবার বিকেলে শামীম তার বোনের কাছে ফোন করে প্রথমে সুসংবাদটি দেয়। পরে আমার মেয়ে আমাদেরকে জানায়। সুসংবাদটা শুনার পরে মনে হয়েছে আমি আকাশের চাঁদ হাতে পেয়েছি। আমার সবার ছোট সন্তান আজ বাংলাদেশ দলের একজন। এর চেয়ে খুশির আর কি হতে পারে আমার জন্য।

তিনি বলেন, ‘শামীমের বাবা সব সময়ই তাকে উৎসাহ দিত। যখন যা লাগতো কিনে দিত। গ্রাম থেকে চাঁদপুর পাঠাত ক্রিকেটের কোচিং করাতে। আমরা চাঁদপুরসহ পুরো দেশবাসীর কাছে আমার ছেলের জন্য দোয়া চাই।’

শামীমের প্রথম কোচ চাঁদপুর ক্লেমন ক্রিকেট অ্যাকাডেমির কোচ শামীম ফারুকী বলেন, শামীমের খবরের পর থেকে একে পর এক ফোন আসছে, সকলে অভিনন্দন জানাচ্ছে, শামীমের জন্য দোয়া করছে। আমি বলব, আজ আমার স্বপ্ন অনেকটাই পূরণ হয়েছে। শামীমের হাত ধরে এই প্রথম চাঁদপুরের কোন ক্রিকেটার জাতীয় দলে জায়গা পেল। আশা করি শামীম মূল একাদশেও জায়গা পেয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবে দলে। আর তখনই আমার স্বপ্ন পূরণ হবে।

তিনি বলেন, শামীম মূলত ব্যাটিং অলরাউন্ডার। সে সব সময় পাওয়ার ব্যাটিং করতে পছন্দ করে। একই সাথে ভালো স্পিন বলও করতে পারে। নিজের সামর্থ্য অনুযায়ী খেলতে পারলে বাংলাদেশ জাতীয় দলের অন্যতম মূল্যবান সম্পদে পরিণত হবে শামীম।

তিনি আরো বলেন, শুধু ব্যাটিং বা বলিংই নয়, শামীম অত্যন্ত ভালো ফিল্ডারও। আমার দৃষ্টিতে ফিল্ডিং এ শামীম বাংলাদেশের জন্টিরোডস। আশাকরি, শামীমের পাশাপাশি অচিরেই চাঁদপুর থেকে আরো অনেক খেলোয়াড় জাতীয় দলে জায়গা করে নিতে পারবে।

চাঁদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বলেন, শামীম আমাদের গর্ব, চাঁদপুরবাসীর গর্ব। আমার বিশ্বাস শামীম তার খেলার মাধ্যমেই জাতীয় দলে জায়গা পাকা করে নিবে। শামীমের জন্য অভিনন্দন রইল।

শামীম ২০১৫ সালে ভর্তি হন বিকেএসপিতে। এরপর অনূর্ধ্ব-১৭, অনূর্ধ্ব-১৮ খেলে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের হয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মত যুব বিশ্বকাপ জয়লাভ করেন। এর আগে তিনি চাঁদপুর ক্লেমন ক্রিকেট একাডেমিতে অনূর্ধ্ব-১৪ থেকে অনূর্ধ্ব-১৬ পর্যন্ত খেলেছেন।

আরও পড়ুন:
‘জয়ের পাশাপাশি ভবিষ্যত ভাবনাও গুরুত্বপূর্ণ’
দুই বছরের জন্য বিসিবির টাইটেল স্পন্সর এলেশা
শান্তকে নিয়ে আবারও অশান্ত বিসিবি

শেয়ার করুন

ভারতকে গুঁড়িয়ে নিউজিল্যান্ডের ইতিহাস

ভারতকে গুঁড়িয়ে নিউজিল্যান্ডের ইতিহাস

ফাইনাল জেতার পর টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ট্রফি হাতে নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসন। ছবি: আইসিসি

ফাইনালে ভারতকে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারায় ব্ল্যাক ক্যাপস। জয়ের জন্য ১৩৯ রানে লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসনের হাফ সেঞ্চুরিতে আট উইকেট অক্ষত রেখে সহজেই ম্যাচ জিতে নেয় নিউজিল্যান্ড।

আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জিতে নিয়েছে নিউজিল্যান্ড। ফাইনালে ভারতকে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারায় ব্ল্যাক ক্যাপস। এবারই প্রথম ফাইনাল ম্যাচের মাধ্যমে শিরোপা নির্ধারণ হলো টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের।

পুরো দুই দিন ভেসে গেলেও ফল এসেছে ম্যাচে। ফাইনালের জন্য রাখা রিজার্ভ ডে যোগ হলে ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া গেছে।

জয়ের জন্য ১৩৯ রানে লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক কেইন উইলিয়ামসনের হাফ সেঞ্চুরিতে আট উইকেট অক্ষত রেখে সহজেই ম্যাচ জিতে নেয় নিউজিল্যান্ড।

দ্বিতীয় ইনিংসে শুরুটা মন্দ হয়নি নিউজিল্যান্ডের। ছোট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ৩৩ রানের ওপেনিং জুটি পায় তারা।

টম লেইথামকে নয় রানে আউট করে জুটি ভাঙ্গেন রভিচন্দ্রন আশউইন। আরেক ওপেনার ডেভন কনওয়েকেও ফেরান এই ভারতীয় স্পিনার।

৪৪ রানে দুই উইকেট হারানোর পর ম্যাচ জিততে আর কোনো সমস্যা হয়নি নিউজিল্যান্ডের। উইলিয়ামসন ও অভিজ্ঞ রস টেইলরের জুটি অনায়াস জয় পাইয়ে দেয় তাদের।

পঞ্চম দিনে দুই উইকেটে ৬৪ রান নিয়ে খেলা শুরু করে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে ভারত। নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ১৭০ রানে জুটিয়ে যায় ভিরাট কোহলির দল।

ভারতের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪১ রান করেন রিশাভ পান্ট। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩০ রান আসে রোহিত শর্মার ব্যাট থেকে। ব্ল্যাকক্যাপদের নিয়ন্ত্রিত সিম বোলিংয়ের সামনে মুখ থুবড়ে পড়ে ভারতের বিশ্বসেরা ব্যাটিং লাইন আপ।

নিউজিল্যান্ডের পক্ষে ৪৮ রানে চার উইকেট নেন টিম সাউদি আর ৩৯ রানে তিন উইকেট নেন ট্রেন্ট বোল্ট।

নয়টি দলকে নিয়ে ২০১৯ সালের আগস্টে শুরু হয় প্রথম বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ। ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার পাঁচ টেস্টের অ্যাশেজ সিরিজ দিয়ে পথচলা শুরু টুর্নামেন্টের।

এরপর বিভিন্ন দল নিজেদের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলে। প্রতি দল ছয়টি করে সিরিজ খেলেয়ার কথা ছিল। সবচেয়ে বেশি পয়েন্ট পাওয়া সেরা দুই দলের খেলার কথা ছিল ফাইনাল।

কিন্ত ২০২০ সালের মার্চ থেকে বিশ্বব্যাপি করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় অন্যান্য খেলার মত থমকে যায় ক্রিকেটও।

তাই করোনার কারনে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের প্রথম আসরের বেশ কয়েকটি ম্যাচ ও সিরিজ স্থগিত হয়ে যায়। ফলে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের পয়েন্ট পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনে আইসিসি। পয়েন্টের হিসেব বাদ দিয়ে শতকরা হিসেবে পয়েন্ট টেবিলের নিয়ম চালু করে ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা।

শতকরা হিসেবে সবচেয়ে বেশি পয়েন্ট ছিলো ভারত ও নিউজিল্যান্ডের। ভারত ছিলো সবার উপরে। ৬ সিরিজে ভারতের শতকরাতে পয়েন্ট ৭২ দশমিক ২। আর পাঁচ সিরিজে নিউজিল্যান্ডের শতকরাতে পয়েন্ট ৭০।

তাই পয়েন্ট টেবিলের সেরা দুই দল হয়ে প্রথম বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনাল খেলে ভারত ও নিউজিল্যান্ড।

ফাইনালের শিরোপা জয়ী নিউজিল্যান্ড প্রাইজমানি হিসেবে পাচ্ছে ১৬ লাখ ডলার। আর রানার্সআপ ভারত পাচ্ছে ৮ লাখ ডলার।

আরও পড়ুন:
‘জয়ের পাশাপাশি ভবিষ্যত ভাবনাও গুরুত্বপূর্ণ’
দুই বছরের জন্য বিসিবির টাইটেল স্পন্সর এলেশা
শান্তকে নিয়ে আবারও অশান্ত বিসিবি

শেয়ার করুন

জিম্বাবুয়ে সিরিজে টেস্ট দলে ফিরলেন সাকিব

জিম্বাবুয়ে সিরিজে টেস্ট দলে ফিরলেন সাকিব

বাংলাদেশ দলের অনুশীলনে সাকিব আল হাসান। ফাইল ছবি

মাহমুদুল্লাহর অধীনে টি-টোয়েন্টি দলে প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন হার্ড হিটিং ব্যাটসম্যান শামীন পাটোয়ারি। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে ফিরেছেন লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম।

জিম্বাবুয়ে সফরের জন্য ১৭ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। তিন ফরম্যাটেই দল দিয়েছে বিসিবি। আইপিএল খেলার জন্য শ্রীলঙ্কা সিরিজে না থাকা সাকিব আল হাসান ফিরেছেন টেস্ট স্কোয়াডে।

ডিপিলের সুপার লিগ না খেলে পরিবারের সঙ্গে ছুটি কাটাতে যুক্তরাষ্ট্রে আছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। সেখান থেকে সরাসরি জিম্বাবুয়েতে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন তিনি।

মুমিনুল হকের অধীনে থাকা টেস্ট দলে আরও সুযোগ করে নিয়েছেন নুরুল হাসান সোহান। তিন বছর পর এই উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান তিন ফরম্যাটের দলেই কামব্যাক করেছেন।

মাহমুদুল্লাহর অধীনে টি-টোয়েন্টি দলে প্রথমবারের মতো ডাক পেয়েছেন হার্ড হিটিং ব্যাটসম্যান শামীন পাটোয়ারি। টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে ফিরেছেন লেগ স্পিনার আমিনুল ইসলাম।

ওয়ানডে ও টেস্ট দলে থাকলেও টি-টোয়েন্টি স্কোয়াডে নেই মুশফিকুর রহিম। অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান আগেই যে কোনো একটি ফরম্যাট থেকে ছুটি চেয়েছিলেন বোর্ডের কাছে। তাকে টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকে বিশ্রাম দিয়েছে বিসিবি।

এই মাসের শেষে ডিপিএলের পর ৩০ জুন জিম্বাবুয়ে যাওয়ার কথা বাংলাদেশ দলের। তিনদিনের কোয়ারেন্টিন শেষে অনুশীলন শুরু করতে পারবেন টাইগাররা।

সাত জুলাই থেকে শুরু হওয়া সিরিজে একটি টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলবে দুই দল।

টেস্ট ম্যাচের আগে একটি দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ৭ জুলাই প্রথম টেস্ট শুরু হবে হারারেতে।

ওয়ানডে সিরিজ শুরু ১৬ জুলাই। তার আগে ১৪ জুলাই এক দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। ১৬, ১৮ ও ২০ জুলাই হবে তিনটি ম্যাচ। সবগুলো ম্যাচই হবে হারারেতে।

একই ভেন্যুতে দুই দলের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হচ্ছে ২৩ জুলাই। ২৫ ও ২৭ জুলাই হবে পরের ম্যাচ দুটি।


টেস্ট স্কোয়াড: মুমিনুল হক (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, শাদমান ইসলাম, সাইফ হাসান, নাজমুল হোসেন, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, লিটন দাস, ইয়াসির আলি, নুরুল হাসান, মেহেদী মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, নাইম হাসান, আবু জায়েদ চৌধুরি, তাসকিন আহমেদ, এবাদত হোসেন, শরিফুল ইসলাম

ওয়ানডে স্কোয়াড: তামিম ইকবাল (অধিনায়ক), নাইম শেখ, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদ উল্লাহ, মোসাদ্দেক হোসেন, মোহাম্মদ মিঠুন, আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান, মেহেদী মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, সাইফউদ্দিন, মুস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ, রুবেল হোসেন, শরিফুল ইসলাম।

টি-টোয়েন্টি স্কোয়াড: মাহমুদুল্লাহ (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, নাইম শেখ, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, সৌম্য সরকার, আফিফ হোসেন, শামিম পাটোয়ারি, নুরুল হাসান, নাসুম আহমেদ, মাহেদি হাসান, আমিনুল ইসলাম, সাইফউদ্দিন, মুস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদ, শরিফুল ইসলাম।

আরও পড়ুন:
‘জয়ের পাশাপাশি ভবিষ্যত ভাবনাও গুরুত্বপূর্ণ’
দুই বছরের জন্য বিসিবির টাইটেল স্পন্সর এলেশা
শান্তকে নিয়ে আবারও অশান্ত বিসিবি

শেয়ার করুন

বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ নিয়ে শঙ্কা কাটল

বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ নিয়ে শঙ্কা কাটল

ফাইল ছবি

জিম্বাবুয়ের স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন কমিশন এক টুইট বার্তায় বিষয়টি নিশ্চিত করে। বার্তায় বলা হয়, চলমান মহামারির মধ্যে বিশেষ ভাবে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট, রাগবি ইউনিয়ন, ফুটবল, শুটিং, অ্যাথলেটিকস, গলফ, সুইমিং ও ভলিবল ফেডারেশনের কয়েকটি সিরিজ সম্পন্ন করার অনুমোদন দেয়া হয়েছে

আন্তর্জাতিক সূচি অনুযায়ী জুনের শেষে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে জিম্বাবুয়ে যাওয়ার কথা বাংলাদেশের। তবে দেশটিতে করোনাভাইরাস মহামারির কারণের চলমান লকডাউনের জন্য দুই দেশের সিরিজটি হুমকির মুখে পড়ে।

মঙ্গলবার রাতে দূর হয়েছে সেই আশঙ্কা। জিম্বাবুয়ের ক্রীড়া মন্ত্রনালয় শর্ত সাপেক্ষে বেশ কয়েকটি খেলার কয়েকটি সিরিজকে অনুমোদন দিয়েছে যার মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজ।

জিম্বাবুয়ের স্পোর্টস অ্যান্ড রিক্রিয়েশন কমিশন এক টুইট বার্তায় বিষয়টি নিশ্চিত করে। বার্তায় বলা হয়, চলমান মহামারির মধ্যে বিশেষ ভাবে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট, রাগবি ইউনিয়ন, ফুটবল, শুটিং, অ্যাথলেটিকস, গলফ, সুইমিং ও ভলিবল ফেডারেশনের কয়েকটি সিরিজ সম্পন্ন করার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এর আগে, করোনাভাইরাস মহামারির পরিস্থিতি খারাপ হওয়াতে ১৪ জুন জিম্বাবুয়েতে নতুন করে লকডাউন দেয় দেশটির সরকার। স্থগিত করা হয় যেকোনো ধরনের আউটডোর ইভেন্ট। যার মধ্যে ছিল ক্রীড়া ইভেন্টও।

হারারতে চলতে থাকা জিম্বাবুয়ে-এ ও সাউথ আফ্রিকা-এ দলের মধ্যেকার আনঅফিশিয়াল টেস্ট ম্যাচটিও বাতিল করা হয়।

এই মাসের শেষে ডিপিএলের পর ২৯ অথবা ৩০ জুন জিম্বাবুয়েতে যাওয়ার কথা বাংলাদেশ দলের। সাত জুলাই থেকে শুরু হওয়া সিরিজে একটি টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলবে দুই দল।

টেস্ট ম্যাচের আগে ৩ ও ৪ জুলাই একটি দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ৭ জুলাই প্রথম টেস্ট শুরু হবে হারারেতে।

ওয়ানডে সিরিজ শুরু ১৬ জুলাই। তার আগে ১৪ জুলাই এক দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। ১৬, ১৮ ও ২০ জুলাই হবে তিনটি ম্যাচ। সবগুলো ম্যাচই হবে হারারেতে।

একই ভেন্যুতে দুই দলের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হচ্ছে ২৩ জুলাই। ২৫ ও ২৭ জুলাই হবে পরের ম্যাচ দুটি।

আরও পড়ুন:
‘জয়ের পাশাপাশি ভবিষ্যত ভাবনাও গুরুত্বপূর্ণ’
দুই বছরের জন্য বিসিবির টাইটেল স্পন্সর এলেশা
শান্তকে নিয়ে আবারও অশান্ত বিসিবি

শেয়ার করুন