সানজিদার প্রেমের শুরু খেলার মাঠে

সানজিদার প্রেমের শুরু খেলার মাঠে

সানজিদার স্বামী মীম মোসাদ্দেকও ক্রিকেটার। রংপুর বিভাগের হয়ে খেলেন ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেট।

জাতীয় দলের ক্রিকেটার হিসেবে খ্যাতি থাকলেও নিজের গায়ে হলুদের সাজে ক্রিকেট ব্যাট হাতে ছবি তুলে এখন আলোচনার কেন্দ্রে সানজিদা ইসলাম।

পুরোদস্তুর পেশাদার এই ক্রিকেটারকে নিয়ে এখন মনযোগ স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোর। যে বিয়ে নিয়ে এত আলোড়ন তার পেছনের গল্প নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন ২০১৪ সালে বাংলাদেশ দলে অভিষেক হওয়া এই ব্যাটসম্যান।

সানজিদার স্বামী মীম মোসাদ্দেকও ক্রিকেটার। রংপুর বিভাগের হয়ে খেলেন ফার্স্ট ক্লাস ক্রিকেট। দুই ক্রিকেটারের প্রণয়ের শুরুটাও মাঠে।

সানজিদা বলেন, 'প্রেমের শুরুটা হচ্ছে খেলার মাঠ থেকে। মাঠে যখন অনুশীলন করতাম তখন অ্যাকাডেমির সিনিয়র হিসেবে ও আমাদের মোটিভেট করত। ওর সঙ্গে সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবেই পরিচয়। সেখান থেকে নিয়মিত কথা বলা শুরু।'

এই দুই ক্রিকেটারের প্রণয় থেকে পরিণতির যাত্রার শুরুটা সহজ ছিল না। নারী ক্রিকেটার হিসেবে কতটুকু সংসারী হবেন, তা নিয়ে কিছুটা দ্বিধায় ছিল মীমের পরিবার।

সানজিদা বলেন, 'আমার শ্বশুর প্রথমে রাজি ছিলেন না। তিনি হঠাৎ করে রাজি হয়ে যান। প্রথম দিকে তিনি খেলোয়াড় হিসেবে মেনে নিতে পারছিলেন না। কারণ খেলোয়াড়দের সম্বন্ধে তার একটা ভুল ধারণা ছিল। তবে আমার সঙ্গে দেখা হওয়ার পর উনার সেই ধারণা বদলে যায়। উনি বুঝতে পারেন, খেলোয়াড়দের নিয়ে যেভাবে ভাবা হয় তারা তেমনটা নন। খেলোয়াড়দের মধ্যেও অনেক সামাজিকতা আছে। তারা অন্যদের থেকে আলাদা নন।'

সানজিদা_ইসলাম

বিয়ের পর ক্যারিয়ার হারিয়েছেন অনেক ক্রিকেটার ও অ্যাথলিট। তবে নিজের ক্ষেত্রে এমন শঙ্কা নেই বলে আশ্বস্ত করেছেন সানজিদা। জীবনসঙ্গী ক্রিকেটার হওয়ায় ক্যারিয়ার বা দীর্ঘদিন দেশের বাইরে থাকা কোনো সমস্যা হবে না বলে মনে করছেন তিনি।

'আমি যদি বাইরে খেলতে যাই সেটা তো তার (মীম) জন্য খুশির খবর হবে। সেদিক থেকে সে শতভাগ সমর্থন দেয়। আর দেশের বাইরে থেকে যদি জয় নিয়ে ফিরতে পারি তাহলে তো কথাই নেই,' বলেন সানজিদা।

সানজিদা_মীম

গত শনিবার বিয়ের পিঁড়িতে বসা সানজিদা আগামী শনিবার শুরু করবেন ব্যক্তিগত অনুশীলন। করোনার কারণে হানিমুনে আপাতত দেশের ভেতরেই কোথাও যেতে চাচ্ছে এই দম্পতি।

সানজিদা বলেন, 'করোনা থাকলেও অনেক কিছুই এখন খুলে দিয়েছে। আমার হাজব্যান্ডের সব থেকে পছন্দের জায়গা কক্সবাজার। যদি যেতে পারি কক্সবাজারেই যাব। আপাতত দেশের ভেতরে সেখানেই যাওয়ার ইচ্ছা।'

শেয়ার করুন

মন্তব্য