20201002104319.jpg
20201003015625.jpg
নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে ক্রিকেটারদের ভিডিওবার্তা

নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে ক্রিকেটারদের ভিডিওবার্তা

ক্রিকেটারদের মধ্যে সাকিব আল হাসান ও মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা নিজেদের ফেসবুক পেইজে পোস্টের মাধ্যমে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বন্ধের আহ্বান জানান। এবার তাদের সাথে যোগ দিলেন জাতীয় দলের আরও পাঁচ জন - মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, তামিম ইকবাল, মুমিনুল হক ও সৌম্য সরকার।

দেশের বিভিন্ন স্থানে চলছে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদ। এই প্রতিবাদে যোগ দিয়েছেন দেশের ক্রীড়াঙ্গনের তারকারা। ক্রিকেটারদের মধ্যে সাকিব আল হাসান ও মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা নিজেদের ফেসবুক পেইজে পোস্টের মাধ্যমে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছিলেন। তাদের সাথে যোগ দিলেন জাতীয় দলের আরও পাঁচ জন - মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, তামিম ইকবাল, মুমিনুল হক ও সৌম্য সরকার।

শুক্রবার নিজেদের ফেসবুকে পেইজে একটি সম্মিলিত ভিডিও বার্তায় এই প্রতিবাদ জানান পাঁচ ক্রিকেটার।

‘গত কয়েক দিন ধরে দেশের বিভিন্ন স্থানে আমার, আপনার, আমাদের বোনদের ওপর ভয়াবহ নির্যাতনের ঘটনায় আমি মর্মাহত। নারীদের সম্মান করুন, সত্যিকারের মানুষ হন,’ ভিডিও বার্তায় বলেন মুশফিক।

টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহর আহ্বান এক সঙ্গে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন প্রতিরোধের। তিনি বলেন, ‘এখন সময় এসেছে, আসুন সবাই মিলে এই অমানুষগুলোকে সামাজিকভাবে প্রতিহত করি এবং এদের মুখোশ খুলে দেই।’

টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক আহ্বান জানিয়েছেন মনুষ্যত্বের। তিনি বলেন, ‘চলুন আমরা নিজেদেরকে মানুষ হিসেবে প্রমাণ করি এবং নারীর প্রতি সম্মান প্রদর্শন করতে শিখি।’

ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল সকলকে অনুরোধ করেন পরিবারের সদস্যের কথা মাথায় রাখতে, ‘নিজ নিজ পরিবারের নারী সদস্যের কথা ভাবুন এবং দেশের প্রতিটি নারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এগিয়ে আসুন।’

ওপেনার সৌম্য সরকার যোগ করেন, ‘নারীকে সম্মান করুন, সত্যিকারের মানুষ হন।’

এর আগে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদ জানিয়ে মাশরাফি বলেন, ‘হয়তো পরিবেশ-পরিস্থিতির কারণে সবারটা প্রকাশ পায় না। আসুন মানসিকতা পরিবর্তন করি। নারীকে মাথা উঁচু করে বাঁচতে দেই।’

সাকিব আল হাসান তার ফেসবুকে পেইজে লেখেন, ‘আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই নৈতিক অবক্ষয়ের বিরুদ্ধে লড়াই করি এবং আমাদের নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করি যাতে তারা স্বপ্ন দেখতে পারে এবং নির্ভয়ে তাদের জীবনযাপন করতে পারে। মনে রাখবেন, আজকে আমরা যদি এই বর্বর এই আচরণ ও মানসিকতার বিরুদ্ধে রুখে না দাঁড়াই়, তবে একদিন আমাদের প্রিয়জনদের একজনই হতে পারে এই নির্মমতার ভুক্তভোগী।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য