ঝুঁকিপূর্ণ সেতুতে যাতায়াত ১০ লাখ মানুষের

ঝুঁকিপূর্ণ সেতুতে যাতায়াত ১০ লাখ মানুষের

পূর্ব বগুড়ার শহরের প্রবেশদ্বার ফতেহ আলী সেতুটি প্রায় চার বছর ধরে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

সেতুটিতে গিয়ে দেখা যায়, দুই পাশে তিন ফুট উঁচু চারটি পিলার দেয়া হয়েছে। এগুলোর কারণে ভারি কোনো যান সেতুতে উঠতে পারছে না। তবে রিকশা, অটোরিকশার মতো ছোট যান চলছে। এতে ট্রাক, মিটি ট্রাকের পাশাপাশি বাস, মাইক্রোবাসের মতো যাত্রীবাহী গাড়ি পারাপারও বন্ধ হয়ে গেছে।

পূর্ব বগুড়ার বাসিন্দাদের কাছে শহরের প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত ফতেহ আলী সেতু। করতোয়া নদীর উপর নির্মিত সেতুটি প্রায় চার বছর ধরে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকলেও তা সংস্কারে দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি নেই।

হালকা যান চললেও ভারী যান চলাচল ঠেকাতে সেতুটির দুই পাশে দেয়া হয়েছে সিমেন্টের খুঁটি। এতে তৈরি হয়েছে নতুন সমস্যা। পণ্য আনা-নেয়ায় ভারী যানগুলোকে প্রায় আট কিলোমিটার ঘুরে শহরে আসতে হচ্ছে। এতে সময় বেশি লাগার পাশাপাশি গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া।

সেতু সংস্কারে ধীরগতির জন্য নদীর দূষণ ও কাজের পদ্ধতিগত জটিলতাকে দায়ী করছেন বগুড়া জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) কর্মকর্তা। তারা বলছেন, সেতুটির তলদেশে ময়লা-আবর্জনা জমে থাকায় নকশা তৈরি করতে সময় বেশি লাগছে।

বগুড়া সওজের তথ্যানুযায়ী, ১৯৬২ সালে করতোয়া নদীর ওপর ৭১ মিটার দৈর্ঘ্যের ফতেহ আলী সেতু নির্মাণ করা হয়। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি বাহিনী এই সেতুসহ রেলসেতু যুদ্ধবিমান থেকে বোমা ফেলে ধ্বংস করে দেয়। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ক্ষতিগ্রস্ত রেল ও সড়ক সেতু সংস্কার করা হয়।

প্রায় ৬০ বছরের পুরনো সেতুটির আয়ুষ্কাল শেষ হয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ফতেহ আলী বাজার এলাকায় সেতুটির পাটাতন ও গার্ডারের কিছু অংশ দুই বছর আগে সংস্কার করা হয়। প্রায় সোয়া পাঁচ লাখ টাকা ব্যয়ে সংস্কার কাজে ‘বিশেষভাবে তৈরি’ সিমেন্ট ব্যবহার করা হয়।

ঝুঁকিপূর্ণ সেতুতে যাতায়াত ১০ লাখ মানুষের

সওজ আরও জানায়, সংস্কারের পর সেতুটি দিয়ে ভারি যান চলাচল সম্ভব কি না তা জানাতে সংস্থাটির কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও সেতু বিশেষজ্ঞরা পরিদর্শন করেন। তারা সেতুটি দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচল সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করে হালকা যান চলার অনুমতি দেন।

সেই নির্দেশনা লঙ্ঘন করেই ঝুঁকিপূর্ণ সেতুটি দিয়ে ভারী যান চলছিল। বাধ্য হয়ে প্রায় দুই বছর আগে সেতুর দুই পাশের মাঝামাঝিতে সিমেন্টের পিলার দেয়া হয়।

এরপর থেকে ভারি যান শহরে ঢুকছে প্রায় ৮ কিলোমিটার ঘুরে মাটিডালি এলাকা হয়ে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন জেলার পূর্বাঞ্চলের মানুষরা।

রিকশা, অটোরিকশা চললেও বাস বন্ধ থাকায় যাতায়াতে সমস্যায় পড়ছেন বাসিন্দারা। কৃষিপণ্য থেকে যেকোনো মালপত্র পরিবহনে সংকট হচ্ছে আরও বেশি। বেশি ভাড়ার পাশাপাশি সময়ও লাগছে বেশি।

বগুড়া শহরের মাঝ দিয়ে বয়ে গেছে করতোয়া নদী। তবে ফতেহ আলী সেতু পার হয়েই মূল শহর। সেতুটি পূর্বাংশের চেলাপাড়া, নারুলী, সাবগ্রাম আকাশতারার বিশাল এলাকাকে নগরীতে সংযুক্ত করেছে। একই সঙ্গে পূর্ব বগুড়ার গাবতলী, সোনাতলা, সারিয়াকান্দি, ধুনট (আংশিক) উপজেলার বাসিন্দারা এ পথে শহরে যাতায়াত করেন।

সেতুটিতে গিয়ে দেখা যায়, দুই পাশে তিন ফুট উঁচু চারটি পিলার দেয়া হয়েছে। এগুলোর কারণে ভারি কোনো যান সেতুতে উঠতে পারছে না। তবে রিকশা, অটোরিকশার মতো ছোট যান চলছে। এতে ট্রাক, মিটি ট্রাকের পাশাপাশি বাস, মাইক্রোবাসের মতো যাত্রীবাহী গাড়ি পারাপারও বন্ধ হয়ে গেছে।

বগুড়ার মাছের মূল আড়ত ফতেহ আলী সেতুর পূর্বপাশের চাষী বাজারে। প্রতিদিন এ আড়তে অর্ধশত ট্রাক-মিনি ট্রাক, কাভার্ড ভ্যানে মাছ বিক্রি করতে আসেন খামারি ও ব্যবসায়ীরা। দূর দূরান্ত থেকে আসা মাছের গাড়িগুলো ফতেহ আলী সেতু হয়ে চাষী বাজারে যায়। সেতুটিতে ভারী যান চলাচলে বন্ধ থাকায় তাদের অন্য পথে বাজারে যেতে হচ্ছে। আবার যানজটেও পড়তে হচ্ছে।

চাষী বাজারের ফেলুরাম মৎস্য আড়তের ব্যবসায়ী রঞ্জন কুমার বলেন, ‘সেতু বন্ধ থাকায় আড়তদার ও ব্যবসায়ীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।’

গাবতলী উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা জান্নাতুল মহল বলেন, ‘পূর্ব বগুড়া থেকে ফতেহ আলী সেতু দিয়ে যোগাযোগ সবচেয়ে ভালো। এই পথে আরও কয়েকটি উপজেলার মানুষ শহরে যাওয়া-আসা করে। এক অর্থে ফতেহ আলী সেতুকে পূর্ব বগুড়ার প্রবেশদ্বার বলা হয়।

‘অথচ এতো গুরুত্বপূর্ণ একটি সেতু ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে দীর্ঘদিন ধরে। গুরুত্ব বিবেচনায় এখানে দ্রুত নতুন সেতু নির্মাণ দরকার।’

শহরের রাজা বাজারের আড়তদার ও ব্যবসায়ী মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক পরিমল প্রসাদ রাজ বলেন, ‘প্রায় চার বছর ধরে ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। বাজারে আমাদের প্রায় সব পণ্য আনতে বা নিয়ে যেতে গাড়িগুলোকে অনেক দূর ঘুরতে হয়।

‘এতে এক হাজার টাকার ভাড়ার বদলে বাড়তি গুনতে হয় ৫০০ টাকা। এটা আমাদের জন্য বড় একটি ক্ষতি। এ ছাড়া ব্রিজের পূর্ব পাশে বেশ কয়েকটি ফ্যাক্টরি আছে। যেগুলো মালপত্র আনা-নেয়ায় সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়ছে।’

জেলার পরিবেশবিষয়ক নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল খালেক বলেন, ‘করতোয়া নদীর ওপর ফতেহ আলী ব্রিজের তলদেশ যেন ময়লার ভাগাড়। অথচ ঐতিহ্যবাহী এই ব্রিজ বগুড়ার কয়েকটি উপজেলার মানুষদের শহরে যাতায়াতের প্রধান পথ।

‘দুঃখজনক যে, এটি কবে সংস্কার হবে, কবে চালু করা হবে সে বিষয়েও কিছুই জানতে পারছে না বগুড়াবাসী। ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় সাধারণ মানুষ নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হওয়া ছাড়াও অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।’

ঝুঁকিপূর্ণ সেতুতে যাতায়াত ১০ লাখ মানুষের

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের দাবি, শুধু ব্রিজ সংস্কার নয়। নদীর প্রাকৃতিক পরিবেশ ফিরিয়ে দিয়ে ব্রিজটি যেন শহরের সৌন্দর্যবর্ধন করে এমনভাবে নির্মাণ করা হোক।’

বগুড়া সওজ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আসাদুজ্জামান প্রথম বলেন, ‘আমরা চাচ্ছি এটাকে পুনর্নির্মাণ করব। এ জন্য আমাদের নতুন করে নকশা তৈরি করতে হবে।

‘এখন ব্রিজ তৈরি করতে বিআইডব্লিউ থেকে ভার্টিকাল ক্লিয়ারেন্স নিতে হয়। তাদেরকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেয়া হয়েছিল। সেগুলোর ভিত্তিতে আমরা ব্রিজের উচ্চতা পেয়ে গেছি। এই উচ্চতা নকশা তৈরির ইউনিটকে দেয়া হয়েছে। তারা নকশা তৈরির কাজ করছেন। নকশা হয়ে গেলেই কাজ শুরু হয়ে যাবে।’

তার দাবি, নদীর তলদেশে দীর্ঘ দিনের ময়লা-আবর্জনা জমে রয়েছে। এ জন্য ব্রিজের ভার্টিকাল ক্লিয়ারেন্সের জন্য করতে একটু বেশি সময় লেগেছে।

আরও পড়ুন:
সেতু ভাঙা, ভরসা নড়বড়ে সাঁকো
অবহেলা ও রুট না মানায় পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা
রাতে লঞ্চ বন্ধ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে
কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন
নদীতে ৫০ কোটি টাকায় নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার

শেয়ার করুন

মন্তব্য

হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতকে শিল্প ঘোষণার দাবি

হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতকে শিল্প ঘোষণার দাবি

বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সাধারণ সভায় (বর্ধিত) নেতারা। ছবি: নিউজবাংলা

রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি জানায়, সারাদেশে ৬০ হাজার রেস্তোরাঁয় ৩০ লাখ কর্মকর্তা-কর্মচারি রয়েছেন। প্রায় দুই কোটি মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এ খাতের সঙ্গে জড়িত। প্রতিষ্ঠান আর জনবল বিবেচনায় পোশাক খাতের পরই হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতের অবস্থান।

দেশের অর্থনীতিতে বড় ভূমিকা রাখছে হোটেল-রেস্তোরাঁ খাত। গুরুত্বপূর্ন এ খাতকে শিল্প হিসেবে ঘোষণার দাবি করেছেন মালিকরা।

রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) মিলনায়তনে শনিবার বাংলাদেশ রেস্তোরাঁ মালিক সমিতির সাধারণ সভায় (বর্ধিত) নেতারা এ দাবি করেন।

রেস্তোরাঁ মালিকরা অভিযোগ করেন, সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের তদারকির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এ খাতের ব্যবসায়ী। জেলা প্রশাসন, সিটি কর্পোরেশন ও পরিবেশ অধিদপ্তর বিভিন্ন সময়ে নানা তথ্য-উপাত্ত চেয়ে থাকে। এক্ষেত্রে বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে সমন্বয়হীনতায় ব্যবসায়ীরা হয়রানির শিকার হন। তাই বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অধীনে না রেখে রেস্তোরাঁকে একটি নির্দিষ্ট নিয়ন্ত্রক সংস্থার অধীনে নেয়ার দাবি জানান তারা।

রেস্তোরাঁ মালিক সমিতি জানায়, সারাদেশে ৬০ হাজার রেস্তোরাঁয় ৩০ লাখ কর্মকর্তা-কর্মচারি রয়েছেন। প্রায় দুই কোটি মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এ খাতের সঙ্গে জড়িত। প্রতিষ্ঠান আর জনবল বিবেচনায় পোশাক খাতের পরই হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতের অবস্থান। সম্ভাবনাময় এ খাত সরকারি নীতি সহায়তা পেলে কর্মসংস্থান তৈরিতে গুরুত্বপূর্ন অবদান রাখতে পারবে। হোটেল-রেস্তোরাঁর উন্নয়নে একদিকে যেমন খাদ্য শিল্পে বিপ্লব আসবে অন্যদিকে সরকারের রাজস্বও বাড়বে।

সমিতির মহাসচিব ইমরান হাসান বলেন, ‘আমরা হোটেল-রেস্তোরাঁ খাতকে শিল্পের মর্যাদায় চাই। শিল্প হতে যা যা লাগে, আমরা সেসব শুরু করেছি। অন্য কিছু লাগলে সেটাও করা হবে।’

সভায় সমিতির সভাপতি গাজী মো. ওসমান গনি, প্রথম যুগ্ম-মহাসচিব ফিরোজ আলম সুমন, যুগ্ম মহাসচিব ফয়সাল মাহবুব, সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ মোহাম্মদ আন্দালিবসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সেতু ভাঙা, ভরসা নড়বড়ে সাঁকো
অবহেলা ও রুট না মানায় পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা
রাতে লঞ্চ বন্ধ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে
কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন
নদীতে ৫০ কোটি টাকায় নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার

শেয়ার করুন

বাড়ছে শিক্ষার সঙ্গে কাজের ধরনে পার্থক্য

বাড়ছে শিক্ষার সঙ্গে কাজের ধরনে পার্থক্য

তরুণ জনগোষ্ঠী নিয়ে এক ওয়েবিনারে বলা হয়, দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি যে হারে বাড়ছে, সে হারে হচ্ছে না নতুন কর্মসংস্থান। এ ছাড়া অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় যুব সমাজের বেশ কিছু বিষয় বিবেচনা করা হলেও এখনও বাস্তবায়নে রয়েছে জটিলতা। সুফল পেতে পরিকল্পনার সমন্বিত বাস্তবায়ন প্রয়োজন। 

দেশের মোট জনসংখ্যার এক-তৃতীয়াংশই যুবসমাজ। কিন্তু কর্মসংস্থানের সঙ্গে মিলছে না মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপি প্রবৃদ্ধির হিসাব। এখনও শিক্ষা এবং কাজের ধরনের মধ্যে পার্থক্য স্পষ্ট। ফলে তরুণদের জন্য অনেক ক্ষেত্রে কঠিন হচ্ছে চাকরির বাজার।

এ ক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থাকে একটি সুনির্দিষ্ট কাঠামোতে নিয়ে আসা দরকার।

শনিবার সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম) ও অ্যাকশনএইড বাংলাদেশ যৌথভাবে আয়োজিত ‘অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় তরুণ জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন এজেন্ডা’ শীর্ষক আলোচনার মূল প্রবন্ধে এমন তাগিদ উঠে আসে।

ওয়েবিনার তরুণদের শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ, স্বাস্থ্য ও পুষ্টি, কর্মসংস্থান ও শ্রম উৎপাদনশীলতা, আয় এবং দারিদ্র্য সম্পর্কিত সমস্যা ও নীতি এবং বিভিন্ন নীতির বাস্তবায়ন কৌশল আলোচনা করা হয়।

বলা হয়, দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি যে হারে বাড়ছে, সে হারে হচ্ছে না নতুন কর্মসংস্থান। এ ছাড়া অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় যুব সমাজের বেশ কিছু বিষয় বিবেচনা করা হলেও এখনও বাস্তবায়নে রয়েছে জটিলতা। তাই সুফল পেতে পরিকল্পনার সমন্বিত বাস্তবায়ন প্রয়োজন।

সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সানেমের সিনিয়র গবেষণা সহযোগি ইশরাত শারমীন।

সানেমের সিনিয়র গবেষণা সহযোগি ইশরাত হোসাইনের সঞ্চালনায় ওয়েবিনারে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক এবং সানেমের নির্বাহী পরিচালক ড. সেলিম রায়হান।

বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা কমিশনের আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো বিভাগ এবং সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের (ভারপ্রাপ্ত) সদস্য (সচিব) মোসাম্মৎ নাসিমা বেগম।

নাসিমা বেগম বলেন, ‘অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সরকার সচেষ্ট রয়েছে এবং এর অধীনে বিভিন্ন লক্ষ্যমাত্রা পূরণে ধারাবাহিক পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। সুষ্ঠু পরিকল্পনার জন্য নির্ভরযোগ্য তথ্য প্রয়োজন। সুষ্ঠু পরিকল্পনার মাধ্যমে উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব। নীতি নির্ধারণে তরুণদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতেও সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় চেষ্টা করে যাচ্ছে। করোনাভাইরাসের কারণে দেশে বাল্য বিয়ে বেড়ে গেছে, শিক্ষার্থীরা ঝরে পড়ছে। এসব ব্যাপারে সকলকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। ই-কমার্স খাতে দুর্নীতির ফলে এই খাতের ওপর আস্থার সংকট তৈরি হতে পারে এবং এই খাতের সৎ তরুণ উদ্যোক্তারা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন।’

ড. সেলিম রায়হান বলেন, ‘বর্তমানে বাংলাদেশ প্রথম পর্যায়ের জনমিতি পার করছে। এর সুবিধা ভালোমতো নিতে আমাদের অর্থনৈতিক নীতির পাশাপাশি সামজিক নীতিও গ্রহণ করে দুটির সমন্বয় করতে হবে। পরিকল্পনা বাস্তবায়নে জবাবদিহি নিশ্চিত করতে শুধু সরকার নয়, সুশীল সমাজ ও গবেষকরাও ভূমিকা রাখতে পারেন। তরুণদের সামাজিক আন্দোলন এবং তরুণ নারীদের জন্য সমতা এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ভূমিকা রাখবে।’

মূল প্রবন্ধে ইশরাত শারমীন বলেন, অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা এমন সময় বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে, যখন দেশ কোভিড-১৯ মহামারির কারণে সৃষ্ট আর্থ-সামাজিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। দারিদ্র্য বিমোচন, শিক্ষার মানোন্নয়ন ও লিঙ্গ সমতা নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে দীর্ঘদিন ধরে অর্জিত সাফল্য কোভিডের কারণে আশংকার সম্মুখীন। দেশের তরুণ জনগোষ্ঠীর জন্য এ পরিস্থিতি আরও চ্যালেঞ্জিং।

তিনি বলেন, কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে তিনটি বড় চ্যালেঞ্জ রয়েছে। প্রথমত, বর্তমানে কর্মসংস্থান প্রবৃদ্ধির হার জিডিপির প্রবৃদ্ধির হারের চেয়ে কম। দ্বিতীয়ত, উৎপাদন ও নির্মাণখাতে কর্মসংস্থান ২০১৩ থেকে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের মধ্যবর্তী সময়ে হ্রাস পেয়েছে। তৃতীয়ত, অনানুষ্ঠানিক খাতে তরুণদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে তারুণ্যের প্রত্যাশা থাকবে জাতীয় সামাজিক নিরাপত্তা কৌশলের পরিপূর্ণ বাস্তবায়ন, বেকারদের জন্য বিমা প্রকল্প প্রণয়ন, বাল্য বিয়ে, শিশু শ্রম ও শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধ করতে বিদ্যমান বৃত্তি প্রদান প্রকল্পগুলোর আওতা বৃদ্ধি। সেই সাথে শ্রম বাজারে নারী শ্রমিকদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি লিঙ্গ সমতা নিশ্চিতকরণে ভূমিকা রাখবে।

জাগো ফাউন্ডেশনের সহকারি পরিচালক এশা ফারুক বলেন, দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা ও শ্রমবাজারের মধ্যে অসামঞ্জস্যের কারণে যথাযথ কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। দেশে উদ্যোক্তা তৈরি হলেও তারা টিকে থাকতে পারছে না, কারণ তাদের দক্ষতা থাকলেও যথাযথ অংশীজনের সাথে যোগাযোগ ঘটিয়ে দেয়া হচ্ছে না। ই-লার্নিং প্ল্যাটফর্মগুলোকে আরও কার্যকর করে তুলতে হবে। সে জন্য উন্নত মানের ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবস্থা দরকার।

অ্যাকশনএইড বাংলাদেশের ম্যানেজার নাজমুল আহসান বলেন, স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতে বরাদ্দ বাড়ানো ও তা প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা প্রয়োজন। যুব অধিদপ্তরের জন্য বাজেট অত্যন্ত নগণ্য, যার মাধ্যমে দক্ষতা বৃদ্ধি করার জন্য যথেষ্ট কর্মসূচি হাতে নেয়া সম্ভব হয় না। প্রযুক্তিগত বিভাজন কমিয়ে অংশগ্রহণমূলক উন্নয়ন নিশ্চিত করার ব্যাপারেও তিনি জোর দেন।

ইন্সটিটিউট অফ ইনফরমেটিক্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইআইডি) যুগ্ম পরিচালক ফাল্গুনি রেজা জানান, অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় তরুণদের যে দাবি আছে, সেটা বাস্তবায়নে পর্যাপ্ত বাজেট বরাদ্দ প্রয়োজন।

ব্র্যাক ইয়ুথ প্ল্যাটফর্মের অপারেশনস লিড সামাঞ্জার চৌধুরী বলেন, দেশে চাকরিপ্রার্থী তৈরি হলেও চাকরি তৈরি হচ্ছে না। বিশ্ববিদ্যালয় গ্র্যাজুয়েটরা শ্রমবাজারের জন্য তৈরি নন। তাদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন।

অ্যাকশনএইড বাংলাদেশের নারী অধিকার ও জেন্ডার সমতার ম্যানেজার মরিয়ম নেসা বলেন, সমন্বিত উদ্যোগ ছাড়া যে স্বপ্নকে সামনে রেখে এই পরিকল্পনা তৈরি করা হয়েছে তা বাস্তবায়ন সম্ভব নয়। তরুণদের মধ্যে ভিন্ন ভিন্ন চাহিদার বিভিন্ন অংশকে চিহ্নিত করে সকলের চাহিদা পূরণের জন্য সচেষ্ট হতে হবে।

আরও পড়ুন:
সেতু ভাঙা, ভরসা নড়বড়ে সাঁকো
অবহেলা ও রুট না মানায় পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা
রাতে লঞ্চ বন্ধ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে
কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন
নদীতে ৫০ কোটি টাকায় নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার

শেয়ার করুন

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় আমরা বদ্ধপরিকর: জি এম কাদের

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় আমরা বদ্ধপরিকর: জি এম কাদের

শনিবার জাপা চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের সঙ্গে দেখা করেন বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের নেতারা।

জি এম কাদের বলেন, ‘এরশাদ শুভ জন্মাষ্টমীর দিনটিকে সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছিলেন। জাপার শাসনামলে প্রায় চার যুগ পরে রাজধানীতে জন্মাষ্টমীর শোভাযাত্রা বের হয়। এছাড়া বিভিন্ন পূজা ও উৎসবে নিরাপত্তা ও আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন এরশাদ। তার হাতে গড়া হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্ট এখন শতকোটি টাকার প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে।’

যে কোনো ত্যাগের বিনিময়ে জাতীয় পার্টি (জাপা) সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় বদ্ধপরিকর বলে মন্তব্য করেছেন দলটির চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

তিনি বলেছেন, ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য রয়েছে আমাদের। যে কোনো ত্যাগের বিনিময়ে আমরা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় বদ্ধপরিকর। যারা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টে ষড়যন্ত্র করবে, তারা কখনোই সফল হতে পারবে না।’

শনিবার বনানীতে নিজের রাজনৈতিক কার্যালয়ে বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের নেতাদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

জি এম কাদের বলেন, ‘দলের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলেন। সব ধর্মের অধিকার রক্ষায় পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ অনন্য ভূমিকা রেখেছিলেন।

‘এরশাদ শুভ জন্মাষ্টমীর দিনটিকে সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছিলেন। জাপার শাসনামলে প্রায় চার যুগ পরে রাজধানীতে জন্মাষ্টমীর শোভাযাত্রা বের হয়। এছাড়া বিভিন্ন পূজা ও উৎসবে নিরাপত্তা ও আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন এরশাদ। তার হাতে গড়া হিন্দু কল্যাণ ট্রাস্ট এখন শতকোটি টাকার প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। মন্দির নির্মাণ ও সংস্কারে পল্লীবন্ধু বরাদ্দ রেখেছেন সব সময়।’

মতবিনিময় সভায় জাপা চেয়ারম্যানের হাতে সংখ্যালঘু সুরক্ষা খসড়া আইন তুলে দেন বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের নেতারা।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এটিইউ তাজ রহমান, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, দপ্তর সম্পাদক-২ এমএ রাজ্জাক খান, বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি অনুপ কুমার দত্ত, সিলেট শাখার সভাপতি দীপক রায়, সাধারণ সম্পাদক সাজন কুমার মিত্র, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুমন কুমার রায়, সাংগঠনিক সম্পাদক দেবাশীষ মাছা, সিলেট জেলার সমন্বয়ক মলয় তালুকদার, সুনামগঞ্জ জেলার সভাপতি অমর চক্রবর্তী এবং পিরোজপুর জেলা শাখার সদস্য শুভ্রদেব বড়াল।

আরও পড়ুন:
সেতু ভাঙা, ভরসা নড়বড়ে সাঁকো
অবহেলা ও রুট না মানায় পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা
রাতে লঞ্চ বন্ধ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে
কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন
নদীতে ৫০ কোটি টাকায় নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার

শেয়ার করুন

সেরা পারফর্মারদের পুরস্কৃত করল পদ্মা ব্যাংক

সেরা পারফর্মারদের পুরস্কৃত করল পদ্মা ব্যাংক

সেরা পারফর্মারদের সঙ্গে পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. এহসান খসরু।

‘২০২১-এর লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য ভিন্নমাত্রার আধুনিক স্ট্র্যাটেজি গ্রহণ করেছে পদ্মা ব্যাংক। এর অনেকগুলো পন্থার মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে পারফরমারদের স্বীকৃতি এবং পুরস্কার।’

‘অ্যাকাউন্ট ওপেনিং ক্যাম্পেইনে’ সফল ১০ কর্মীকে পুরস্কৃত করেছে পদ্মা ব্যাংক লিমিটেড। অ্যাকাউন্ট ওপেনিংয়ের পাশাপাশি ডিপোজিট সংগ্রহে সেরাদেরও ক্রেস্টের সঙ্গে পুরস্কারের চেক তুলে দেয়া হয়।

শনিবার রাজধানীর মিরপুরে পদ্মা ব্যাংক ট্রেনিং ইনস্টিটিউটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অনুপ্রেরণাদায়ী এই পুরস্কার তুলে দেন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. এহসান খসরু।

এ সময় তিনি বলেন, ‘২০২১-এর লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য ভিন্নমাত্রার আধুনিক স্ট্র্যাটেজি গ্রহণ করেছে পদ্মা ব্যাংক। এর অনেকগুলো পন্থার মধ্যে অন্যতম একটি হচ্ছে পারফরমারদের স্বীকৃতি এবং পুরস্কার। পাশাপাশি তাদের বিশেষ রিওয়ার্ড এবং পদোন্নতির পরিকল্পনাও রয়েছে।

অনুষ্ঠানে এহসান খসরু ব্যাংকের নতুন ‘মার্কেটিং এডভাইজার’ কনসেপ্টের মাধ্যমে আমানত সংগ্রহের বিশেষ কর্মসূচী ঘোষণা করেছেন।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন পদ্মা ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফয়সাল আহসান চৌধুরী, চিফ অপারেটিং অফিসার জাবেদ আমিন, হেড অফ আইসিসিডি এ টি এম মুজাহিদুল ইসলাম, এসইভিপি হেড অফ আরএএমডি এন্ড ল’ ফিরোজ আলম, সিএফও মো. শরিফুল ইসলাম-সহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন:
সেতু ভাঙা, ভরসা নড়বড়ে সাঁকো
অবহেলা ও রুট না মানায় পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা
রাতে লঞ্চ বন্ধ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে
কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন
নদীতে ৫০ কোটি টাকায় নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার

শেয়ার করুন

ধানক্ষেতে কিশোরের মরদেহ

ধানক্ষেতে কিশোরের মরদেহ

প্রতীকী ছবি।

কর্ণফুলী উপজেলার চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের মোহাম্মদ আলী সড়কের পাশের একটি ধানক্ষেত থেকে শনিবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার হয়।

চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলায় একটি ধানক্ষেত থেকে এক কিশোরের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের মোহাম্মদ আলী সড়কের পাশের ধানক্ষেত থেকে শনিবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ।

মৃত কিশোরের নাম মো. শাকিল। তার বাড়ি উপজেলার শিকলবহা ইউনিয়নে।

কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সকালে ধানক্ষেতে ওই কিশোরের মরদেহ দেখে পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা। নিহতের গলায় আঘাতের চিহ্ন ছিল। বিষয়টি তদন্ত করছি।’

ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সেতু ভাঙা, ভরসা নড়বড়ে সাঁকো
অবহেলা ও রুট না মানায় পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা
রাতে লঞ্চ বন্ধ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে
কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন
নদীতে ৫০ কোটি টাকায় নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার

শেয়ার করুন

ত্যাগীরা আসবেন আ.লীগের নেতৃত্বে: তথ্যমন্ত্রী

ত্যাগীরা আসবেন আ.লীগের নেতৃত্বে: তথ্যমন্ত্রী

থ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ফাইল ছবি

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ক্ষমতায় থাকলে বিনয়ী হতে হয়। আপনার একটি খারাপ আচরণ সরকারের সব অর্জন নষ্ট করে দেয়। আওয়ামী লীগ সবাই করতে পারবেন, তবে নেতৃত্বে আসবেন ত্যাগীরাই। দলের খারাপ সময়ে যারা মাঠে থাকবেন, তাদের মূল নেতৃত্বে আনতে হবে।’

আওয়ামী লীগ সবাই করতে পারবেন, তবে ত্যাগীরাই নেতৃত্বে আসবেন বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

শনিবার সকালে সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুর থানা আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ক্ষমতায় থাকলে বিনয়ী হতে হয়। আপনার একটি খারাপ আচরণ সরকারের সব অর্জন নষ্ট করে দেয়। আওয়ামী লীগ সবাই করতে পারবেন, তবে নেতৃত্বে আসবেন ত্যাগীরাই। দলের খারাপ সময়ে যারা মাঠে থাকবেন, তাদের মূল নেতৃত্বে আনতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এরই মধ্যে দেশের মানুষের ক্ষুধা-দারিদ্র্য দূর করেছেন। আমরা এখন নানা দুর্যোগে বিভিন্ন দেশকে খাদ্যসহায়তা করি। তারপরও বিএনপি নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। তারা প্রতিদিন সংবাদ সম্মেলন করে অপপ্রচার চালাচ্ছে। তারা দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চায়।’

৬ বছর পর শনিবার সকালে থানা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে সম্মেলন উদ্বোধন করেন সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কে এম হোসেন আলী হাসান।

দলীয় কার্যালয় চত্বরে সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন থানা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যক্ষ বজলুর রশিদ।

বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন।

তিনি বলেন, হাইব্রিডদের দিন শেষ। এখন ত্যাগী ও দলের দুর্দিনের কর্মীদের মূল্যায়নের সময় এসেছে।

তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনাই একমাত্র প্রধানমন্ত্রী, যিনি জাতিসংঘে সবচেয়ে বেশিবার বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি ১৭ বার বক্তব্য রেখে রেকর্ড গড়েছেন। তার সুযোগ্যে নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। কোনো ষড়যন্ত্র শেখ হাসিনার অগ্রযাত্রাকে থামাতে পারবে না।

সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন সংসদ সদস্য আব্দুল মমিন মণ্ডল, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য প্রফেসর মেরিনা জাহান কবিতা, আব্দুল আওয়াল শামীম, বনানী থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর মোশারফ হোসেন,
জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুর রহমান, বিমল দাস, আবু ইউসুফ সূর্যসহ অনেকে।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন এনায়েতপুর থানা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী।

পরে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের ভোটে ডা. আবদুল হাই সরকার এনায়েতপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আজগর আলী সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

আরও পড়ুন:
সেতু ভাঙা, ভরসা নড়বড়ে সাঁকো
অবহেলা ও রুট না মানায় পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা
রাতে লঞ্চ বন্ধ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে
কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন
নদীতে ৫০ কোটি টাকায় নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার

শেয়ার করুন

সড়ক দুর্ঘটনার তিন দিন পর স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মৃত্যু

সড়ক দুর্ঘটনার তিন দিন পর স্বাস্থ্য কর্মকর্তার মৃত্যু

মো. সানাউল্লাহ। ফাইল ছবি

মো. সানাউল্লাহ জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ইপিআই সুপারিনটেনডেন্ট পদে কর্মরত ছিলেন। বুধবার দুর্ঘটনায় আহত হওয়ার পর থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। শনিবার সন্ধ্যায় সেখানে তার মৃত্যু হয়।

লক্ষ্মীপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের কর্মকর্তা মো. সানাউল্লাহ চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন।

শনিবার দুপুরের দিকে তার মৃত্যু হয়। তিনি জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের ইপিআই সুপারিনটেনডেন্ট পদে কর্মরত ছিলেন।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, অফিস থেকে বাড়ি ফেরার পথে বুধবার সন্ধ্যায় শহরের মাদাম ব্রীজ এলাকায় একটি অটোরিকশা সানাউল্লাহকে ধাক্কা দেয়। গুরুতর আহত সানাউল্লাহকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে স্থানীয়রা।

অবস্থার অবনতি হলে ওই রাতেই তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে শনিবার সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন:
সেতু ভাঙা, ভরসা নড়বড়ে সাঁকো
অবহেলা ও রুট না মানায় পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা
রাতে লঞ্চ বন্ধ শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে
কুষ্টিয়া-হরিপুর সংযোগ সেতুর প্রতিরক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন
নদীতে ৫০ কোটি টাকায় নির্মাণাধীন সেতুর গার্ডার

শেয়ার করুন