বরিশালের ঘটনায় ২১ আসামির জামিন নাকচ

বরিশালের ঘটনায় ২১ আসামির জামিন নাকচ

বরিশালে ইউএনওর বাসায় হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনায় করা দুটি মামলায় গ্রেপ্তার ২১ জনের জামিন নাকচ করে দিয়েছে আদালত। ছবি: নিউজবাংলা

উপজেলা পরিষদ চত্বরে বুধবার রাতে শোক দিবসের ব্যানার খোলাকে কেন্দ্র করে ইউএনওর বাসভবনে হামলা হয়। এ সময় সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা ও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ওপর আনসার সদস্যদের গুলি ছোড়ার অভিযোগ উঠেছে। সংঘর্ষ হয় পুলিশের সঙ্গেও।

বরিশালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বাসায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের হামলা ও পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় করা দুটি মামলায় গ্রেপ্তার ২১ জনের জামিন নাকচ করে দিয়েছে আদালত।

বরিশাল মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক মাসুম বিল্লাহ তাদের জামিন আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এ সময় গ্রেপ্তার আওয়ামী লীগের ২১ নেতা-কর্মীকে হেফাজতে রেখে সুচিকিৎসা দেয়ার নির্দেশ দেন আদালত।

এ ঘটনায় রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে গ্রেপ্তার আরেকজনের জামিন আবেদন করা হয়নি।

উপজেলা পরিষদ চত্বরে বুধবার রাতে শোক দিবসের ব্যানার খোলাকে কেন্দ্র করে ইউএনওর বাসভবনে হামলা হয়। এ সময় সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা ও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের ওপর আনসার সদস্যদের গুলি ছোড়ার অভিযোগ উঠেছে। সংঘর্ষ হয় পুলিশের সঙ্গেও।

এতে মেয়র ও প্যানেল মেয়র রফিকুল ইসলাম খোকনসহ ৩০ জন আহত হন, যদিও আওয়ামী লীগের দাবি, আহতের সংখ্যা ৭০।

এ ঘটনায় কোতোয়ালি মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) ও ইউএনও মুনিবুর রহমানের করা দুই মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে মেয়রকে। মামলার মোট আসামি ৬০২ জন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বুধবার ঘটনার দিন ও পরের দিন অভিযান চালিয়ে ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। শনিবার দুপুর পর্যন্ত অভিযানে আরও ৮ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ২৩ আগস্ট রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে আরও একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ মামলায় এখন পর্যন্ত মোট ২২ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
কাজে ফিরেছে বরিশাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা
সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশের দা‌বি ব‌রিশা‌লের পৌর মেয়রদের
অন্যায় করে থাকলে আমারও বিচার হোক: মেয়র সাদিক
বরিশালে আ.লীগ নেতা-কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে
বরিশালের ঘটনায় কাউন্সিলর মান্না গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বাড়ি ভারতে, চাকরি সিলেটে

বাড়ি ভারতে, চাকরি সিলেটে

অভিযুক্ত অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী তুষার কান্তি সাহা

পরিচয় গোপন করা অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী তুষার কান্তি সাহা সিলেটে থাকলেও প্রায়ই অবৈধভাবে ভারতে যাওয়া-আসা করেন। তার বিরুদ্ধে নানা দুর্নীতির অভিযোগও আছে।

পরিচয় গোপন রেখে বাংলাদেশে সরকারি গুরুত্বপূর্ণ সংস্থার উচ্চ পদে চাকরি করার অভিযোগ উঠেছে বিদেশি এক নাগরিকের বিরুদ্ধে। সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের সিলেট জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী তুষার কান্তি সাহার বিরুদ্ধেই এই অভিযোগ।

অন্য একটি দেশের নাগরিক হয়েও বাংলাদেশ সরকারের একটি দায়িত্বশীল মন্ত্রণালয়ের অধীনে কীভাবে তিনি কাজ করছেন, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে সংসদীয় কমিটি।

রোববার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়।

বৈঠকে জানানো হয়, পরিচয় গোপন করা অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী তুষার কান্তি সাহা সিলেটে থাকলেও প্রায়ই অবৈধভাবে ভারতে যাওয়া-আসা করেন। তার বিরুদ্ধে নানা দুর্নীতির অভিযোগও আছে।

বিষয়টি খতিয়ে দেখতে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিবকে তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছিল সংসদীয় কমিটি। সচিব আরেকজন যুগ্ম সচিবকে দিয়ে তদন্ত করেছেন। সেই তদন্তে তুষার কান্তি সাহাকে দোষীও করা হয়নি, আবার ছাড়ও দেয়া হয়নি।

দায়সারাভাবে তদন্ত হওয়ায় প্রতিবেদনটি আমলে নেয়নি সংসদীয় কমিটি। এ জন্য সচিবকে দিয়ে নতুন করে তদন্ত করাতে বলা হয়েছে। সচিব না পারলে অন্তত অতিরিক্ত সচিব মর্যাদার কাউকে দিয়ে তদন্ত করার কথা বলা হয়েছে। আগামী ১০ দিনের মধ্যে এ-সংক্রান্ত পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন দিতে হবে।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। তিনি বলেন, ‘অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি তদন্ত করে বলা যাবে। আমরা সঠিক তথ্য জানতেই আবারও তদন্তের কথা বলেছি।’

সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে কমিটির সদস্য সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরসহ এনামুল হক, মো. আবু জাহির, রেজওয়ান আহম্মদ তৌফিক, মো. ছলিম উদ্দীন তরফদার, শেখ সালাহ উদ্দিন, সৈয়দ আবু হোসেন ও রাবেয়া আলীম অংশগ্রহণ করেন।

বৈঠকে ইতোপূর্বে জাতীয় সংসদে উত্থাপিত এবং পরীক্ষা-নিরীক্ষাপূর্বক রিপোর্ট প্রদানের জন্য কমিটিতে প্রেরিত ‘মহাসড়ক বিল, ২০২১’ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা হয়। প্রয়োজনীয় সংযোজন, সংশোধন ও পরিমার্জনের পর বিলটি জাতীয় সংসদে পাসের জন্য সংশোধিত আকারে সংসদে রিপোর্ট প্রদানের জন্য সুপারিশ করে কমিটি।

এদিকে ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কমিটির পক্ষ থেকে তাকে অগ্রিম শুভেচ্ছা জানানো হয়।

বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিবদ্বয়, লেজিসলেটিভ ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব, বিআরটিএ ও বিআরটিসির চেয়ারম্যানদ্বয়, পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলীসহ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন:
কাজে ফিরেছে বরিশাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা
সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশের দা‌বি ব‌রিশা‌লের পৌর মেয়রদের
অন্যায় করে থাকলে আমারও বিচার হোক: মেয়র সাদিক
বরিশালে আ.লীগ নেতা-কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে
বরিশালের ঘটনায় কাউন্সিলর মান্না গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

স্মার্টফার্মিংয়ে আসবে হাজার গ্রাম: পলক

স্মার্টফার্মিংয়ে আসবে হাজার গ্রাম: পলক

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ছবি: ফেসবুক

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘প্রথম পর্যায়ে ২০২৫ সালের মধ্যে ১০ গ্রামকে স্মাটফার্মিংয়ের জন্য ডিজিটালাইজ করতে চাই। এতে ২০ হাজার কৃষক, তাদের জন্য ২০ হাজার আধুনিক কৃষি ডিভাইস, সাড়ে ৩ হাজার উদ্যোক্তা তৈরি হবে। এভাবে ফেইজ ওয়ান, টু, থ্রি করে ২০৪১ সালের মধ্যে এক হাজার গ্রামের ২০ লাখ কৃষক এবং সাড়ে ৩ লাখ উদ্যোক্তা স্মার্টফার্মিংয়ের আওতায় আসবে।’

২০৪১ সালের মধ্যে দেশের এক হাজার গ্রামকে স্মার্টফার্মিংয়ের আওতায় নিয়ে আসা হবে। এতে ২০ লাখ কৃষক ও সাড়ে ৩ লাখ উদ্যোক্তা যুক্ত হবেন বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতি উদ্যোগে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আয়োজিত ‘চতুর্থ শিল্পবিপ্লব ও বাংলাদেশের কৃষি যান্ত্রিকীকরণ’ শীর্ষক সেমিনারে রোববার প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এমএন জিয়াউল আলম ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মেসবাহুল ইসলাম। সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কৃষি অর্থনীতিবিদ সমিতির সভাপতি সাজ্জাদুল হাসান।

পলক বলেন, ‘উন্নত সমৃদ্ধ জ্ঞানভিত্তিক বাংলাদেশ গড়ার জন্য সব ক্ষেত্রে প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে। আমরা স্মার্টফার্মিংয়ে উৎসাহিত করতে চাই, উদ্যোক্তা তৈরি করতে চাই। বিভিন্ন ধাপে এ লক্ষ্য পূরণে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে, পাইলট প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘প্রথম পর্যায়ে ২০২৫ সালের মধ্যে ১০ গ্রামকে স্মাটফার্মিংয়ের জন্য ডিজিটালাইজ করতে চাই। এতে ২০ হাজার কৃষক, তাদের জন্য ২০ হাজার আধুনিক কৃষি ডিভাইস, সাড়ে ৩ হাজার উদ্যোক্তা তৈরি হবে।

‘এভাবে ফেইজ ওয়ান, টু, থ্রি করে ২০৪১ সালের মধ্যে এক হাজার গ্রামের ২০ লাখ কৃষক এবং সাড়ে ৩ লাখ উদ্যোক্তা স্মার্টফার্মিংয়ের আওতায় আসবে।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এ ইকোসিস্টেমের জন্য আমাদের ডিজিটাল ভিলেজ সেন্টার, ন্যাশনাল ডেটা সেন্টার, ডিজিটাল ভিলেজেস, এমএফএস, ইন্টার অপারেবল ডিজিটাল ট্রান্সজেকশন প্লাটফর্মসহ অন্যান্য অনুষঙ্গগুলোকে একত্র করে কাজ করব।

‘কৃষি মন্ত্রণালয়, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ কৃষিবিদ অর্থনীতি সমিতি এবং আইসিটি ডিভিশন মিলে সমন্বিত ভাবে এ কাজ করা হবে। এর মাধ্যমে এই ২০৪১ সাল পর্যন্ত যে টার্গেট, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশের আধুনিক রূপ, প্রযুক্তি নির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নত সমৃদ্ধ জ্ঞানভিত্তিক বাংলাদেশ তৈরি হবে।’

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্ম পাওয়ার অ্যান্ড মেশিনারি বিভাগের অধ্যাপক মো. মঞ্জুরুল আলম। আলোচক ছিলেন এসিআই অ্যাগ্রো লিংক লিমিটেডের এমডি ও সিইও এফএইচ আনসারী।

আরও পড়ুন:
কাজে ফিরেছে বরিশাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা
সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশের দা‌বি ব‌রিশা‌লের পৌর মেয়রদের
অন্যায় করে থাকলে আমারও বিচার হোক: মেয়র সাদিক
বরিশালে আ.লীগ নেতা-কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে
বরিশালের ঘটনায় কাউন্সিলর মান্না গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

নালায় ‘মানসিক ভারসাম্যহীন’ ব্যক্তির মরদেহ

নালায় ‘মানসিক ভারসাম্যহীন’ ব্যক্তির মরদেহ

সদরঘাট থানার ওসি সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘উনি যেভাবে নালায় পড়ে ছিলেন, তা দেখে ধারণা করা হচ্ছে তিনি কোনোভাবে পড়ে গিয়েছিলেন। শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবু আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি।’

চট্টগ্রামে নালা থেকে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। স্থানীয়রা বলছে, তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন।

নগরীর সদরঘাট থানার মাঝিরঘাট এলাকা থেকে রোববার বেলা ১১টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ জানায়, ওই ব্যক্তির নাম, পরিচয় জানা যায়নি। তার আনুমানিক বয়স ৩৫ বছর। পরনে শুধু লুঙ্গি ছিল।

সদরঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাখাওয়াত হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘স্থানীয় লোকজন সকালে নালায় মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। ওই এলাকার কেউ তার পরিচয় জানাতে পারেনি। তবে স্থানীয়রা তাকে সারা দিন খালি গায়ে এলাকায় ঘুরতে দেখতেন। তাদের ধারণা, তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন।

‘উনি যেভাবে নালায় পড়ে ছিলেন, তা দেখে ধারণা করা হচ্ছে তিনি কোনোভাবে পড়ে গিয়েছিলেন। শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবু আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি।’

মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
কাজে ফিরেছে বরিশাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা
সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশের দা‌বি ব‌রিশা‌লের পৌর মেয়রদের
অন্যায় করে থাকলে আমারও বিচার হোক: মেয়র সাদিক
বরিশালে আ.লীগ নেতা-কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে
বরিশালের ঘটনায় কাউন্সিলর মান্না গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

বিসিএস প্রশাসন একাডেমির লিজ বাতিলের দাবিতে সমাবেশ

বিসিএস প্রশাসন একাডেমির লিজ বাতিলের দাবিতে সমাবেশ

মেরিন ড্রাইভ সড়কে রোববার বিকেলে মানবপ্রাচীরে অংশ নেন এলাকাবাসীসহ পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতাকর্মী। ছবি: নিউজবাংলা

বাপা কক্সবাজারের সভাপতি বলেন, ‘কক্সবাজারের সংরক্ষিত বনে প্রশাসন একাডেমি গড়ে উঠলে এই অঞ্চলের পশুপাখি উদ্বাস্তু হয়ে যাবে। নতুন করে ৭০০ একর বনভূমি ধ্বংস করা হলে মানুষের নিঃশ্বাস নেয়াও বন্ধ হয়ে যাবে। দ্রুত লিজ বাতিল না হলে আরও কঠোর আন্দোলন ঘোষণা করা হবে।’

কক্সবাজারের কলাতলীর দরিয়া নগরের শুকনাছড়ির ৭০০ একর বনভূমিতে বিসিএস প্রশাসন একাডেমির লিজ বাতিলের দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন পরিবেশবাদীরা।

মেরিন ড্রাইভ সড়কে রোববার বিকেলে মানবপ্রাচীরসহ সমাবেশ করেছেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)।

মেরিন ড্রাইভ সড়কের শুকনাছড়িতে মুখে কালো পতাকা বেঁধে মানবপ্রাচীরে অংশ নেন এলাকাবাসীসহ পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতাকর্মী।

মানবপ্রাচীর কর্মসূচি শেষে সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বাপা কক্সবাজারের সভাপতি ফজলুল কাদের চৌধুরী।

বক্তব্য দেন বাপা কক্সবাজারের সাধারণ সম্পাদক কলিম উল্লাহ ও সাংগঠনিক সম্পাদক এইচএম নজরুল ইসলামসহ অনেকে।

ফজলুল কাদের চৌধুরী বলেন, ‘সংরক্ষিত বনে প্রশাসন একাডেমি গড়ে উঠলে এই অঞ্চলের পশুপাখি উদ্বাস্তু হয়ে যাবে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কারণে এরই মধ্যে হাতিসহ পশুপাখির বিশাল আবাসস্থল ধ্বংস হয়ে গেছে। প্রতিনিয়ত মারা পড়ছে হাতি।

‘নতুন করে ৭০০ একর বনভূমি ধ্বংস করা হলে মানুষের নিঃশ্বাস নেয়াও বন্ধ হয়ে যাবে। দ্রুত লিজ বাতিল না হলে আরও কঠোর আন্দোলন ঘোষণা করা হবে।’

বিসিএস প্রশাসন একাডেমির লিজ বাতিলের দাবিতে সমাবেশ
মেরিন ড্রাইভ সড়কে রোববার বিকেলে মানবপ্রাচীরে অংশ নেন এলাকাবাসীসহ পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতাকর্মী। ছবি: নিউজবাংলা

কলিম উল্লাহ বলেন, ‘সরকারি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ একাডেমি নির্মাণ করতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক সংলগ্ন শুকনাছড়ির রক্ষিত বনভূমির ৭০০ একর জমি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এলাকাটি প্রতিবেশগতভাবে সংকটাপন্ন।’

তিনি বলেন, ‘বিপন্ন এশীয় বন্যহাতিসহ দেশের অনেক বিপন্নপ্রায় বন্যপ্রাণীর নিরাপদ বসতি কক্সবাজারের এই বনভূমি। এখানে সরকারি কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ একাডেমি নির্মাণের যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে, তা স্পষ্টত পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের জন্য চরম হুমকিস্বরূপ। এডমিন একাডেমির নামে দেয়া বন্দোবস্ত শিগগিরই বাতিল করতে হবে।’

সমাবেশে বলা হয়, ১৯৯০ সালে জারি করা ভূমি মন্ত্রণালয়ের একটি পরিপত্রে উল্লেখ রয়েছে, চট্টগ্রাম বিভাগের পাহাড় ও পাহাড়ের ঢাল বন্দোবস্তযোগ্য নয়। ওই জমি বনায়নের জন্য ব্যবহার করবে বনবিভাগ। বন আইন অনুযায়ী, এ ধরনের রক্ষিত বনে কোন ধরনের স্থাপনা করা নিষিদ্ধ।

কলিম উল্লাহ আরও বলেন, ‘ভূমি মন্ত্রণালয় দেশের অন্যতম জীববৈচিত্র্য সমৃদ্ধ সংরক্ষিত এ বনভূমিকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে খাসজমি হিসেবে দেখিয়েছে। ঝিলংজা মৌজার এ বনভূমি যে খাসজমি নয়, তা সরকারি নথি ও রেকর্ডেই আছে।’

তিনি বলেন, ‘ভূমি মন্ত্রণালয়ের নিজস্ব মালিকানাধীন ছাড়া যেকোন জমি কাউকে দিতে হলে তা আগে অধিগ্রহণ করতে হবে। ভূমি মন্ত্রণালয় এ ধরনের কোনো উদ্যোগ নেয়নি। বরং চার হাজার ৮০০ কোটি টাকা মূল্যের ৭০০ একর জমি মাত্র এক লাখ টাকায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে দেয়া হয়েছে। ভূমি মন্ত্রণালয়ের এ ধরনের কাজে রাষ্ট্রের বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।’

বাপা জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক এইচ এম নজরুল ইসলাম বলেন, ‘সরকারি কর্মচারীরা যথেচ্ছভাবে ক্ষমতা, সরকারি অর্থ ও সম্পদের ব্যবহারে অভ্যস্ত হয়ে উঠছেন। দুর্নীতি ও অনিয়মের নতুন নতুন পথ নির্মাণ করছেন। কক্সবাজারে নতুন প্রশাসন একাডেমি এমন আরেকটি উদ্যোগ।’

কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন সেভ দ্যা নেচার অফ বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলা সভাপতি ওমর ফয়েজ হৃদয়, বাপা নেতা সমীর পাল, জসিম উদ্দিন, ঈসমাইল সাজ্জাদ, এম ওসমান আলী, আজিম নিহাদ, মোহাম্মদ হোসাইন, দোলন ধর, পারভেজ মোশাররফ, শহিদুল ইসলাম শাহেদসহ অনেকে।

আরও পড়ুন:
কাজে ফিরেছে বরিশাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা
সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশের দা‌বি ব‌রিশা‌লের পৌর মেয়রদের
অন্যায় করে থাকলে আমারও বিচার হোক: মেয়র সাদিক
বরিশালে আ.লীগ নেতা-কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে
বরিশালের ঘটনায় কাউন্সিলর মান্না গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

‘বঙ্গবন্ধুর বাকশাল কর্মসূচি: কুরআন সুন্নাহর আলোকে একটি মূল্যায়ন’

‘বঙ্গবন্ধুর বাকশাল কর্মসূচি: কুরআন সুন্নাহর আলোকে একটি মূল্যায়ন’

রোববার জবিতে ছয়টি পাণ্ডুলিপির চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অতিথিরা। ছবি: নিউজবাংলা

প্রক্টর মোস্তফা কামাল বলেন, ‘বইটি পড়লে বাকশাল সম্পর্কে বিস্তারিত এবং কেন গঠন করা হয়েছিল সেটি জানা যাবে। বইটিতে বাকশালকে কুরআন সুন্নাহর আলোকে মূল্যায়ন করা হয়েছে। এর মূল লক্ষ্য ছিল, ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য যেন না থাকে। সেই আলোকেই বইটি লেখা হয়েছে।’

ছয়টি পাণ্ডুলিপি প্রকাশে লেখকদের সঙ্গে চুক্তি করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

রোববার সকালে উপাচার্যের কনফারেন্স কক্ষে জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তর ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পাণ্ডুলিপি লেখকদের এই চুক্তি হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ট্রেজারার ও উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামালউদ্দীন আহমদ।

স্বাক্ষরিত ছয়টি পান্ডুলিপি হলো সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক শিপ্রা সরকার রচিত ‘বাংলাদেশের একটি গ্রাম: জাতিবর্ণ ব্যবস্থা’, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোস্তফা কামাল রচিত ‘বঙ্গবন্ধুর বাকশাল কর্মসূচি: কুরআন সুন্নাহর আলোকে একটি মূল্যায়ন এবং অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক কাজী মো. নাসির উদ্দিন রচিত ‘Taxation in Bangladesh’।

এছাড়া অন্য পাণ্ডুলিপিগুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোছা. শামীম আরা রচিত ‘মোহাম্মদ মনিরুজ্জামানের কবিতা: বিষয় বৈচিত্র ও শিল্পরূপ’, সংগীত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আলী এফ এম রেজোয়ান রচিত ‘রাগ-সন্দর্শন’ এবং বাংলা বিভাগের অধ্যাপক মিল্টন বিশ্বাস রচিত ‘সাব- অল্টার্ন তত্ত্ব: উদ্ভব, বিকাশ ও প্রভাব’।

পাণ্ডুলিপি লেখকদের একজন ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোস্তফা কামাল ‘বঙ্গবন্ধুর বাকশাল কর্মসূচি: কুরআন সুন্নাহর আলোকে একটু মূল্যায়ন’ বইটি সম্পর্কে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বইটি পড়লে বাকশাল সম্পর্কে বিস্তারিত এবং কেন গঠন করা হয়েছিল সেটি জানা যাবে। বইটিতে বাকশালকে কুরআন সুন্নাহর আলোকে মূল্যায়ন করা হয়েছে। এর মূল লক্ষ্য ছিল, ধনী-দরিদ্রের বৈষম্য যেন না থাকে। সেই আলোকেই বইটি লেখা হয়েছে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মো. নূরে আলম আব্দুল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শামীমা বেগম।

এছাড়াও জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তরের প্রধান ও উপপরিচালক সাইফুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন গবেষণা অধ্যাপক পরিমল বালা, রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. ওহিদুজ্জামানসহ অনেকে।

আরও পড়ুন:
কাজে ফিরেছে বরিশাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা
সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশের দা‌বি ব‌রিশা‌লের পৌর মেয়রদের
অন্যায় করে থাকলে আমারও বিচার হোক: মেয়র সাদিক
বরিশালে আ.লীগ নেতা-কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে
বরিশালের ঘটনায় কাউন্সিলর মান্না গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

রোহিঙ্গা ফেরাতে রেডক্রসকে সক্রিয় হতে বলল বাংলাদেশ

রোহিঙ্গা ফেরাতে রেডক্রসকে সক্রিয় হতে বলল বাংলাদেশ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন ও রেডক্রসের সভাপতি পিটার মাউরা। ছবি: সংগৃহীত

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা যেন নিজ দেশে ফিরে যেতে পারে, সে জন্য কাজ করতে হবে। মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে রাখাইন রাজ্যে আইসিআরসিকে আরও সক্রিয়ভাবে কাজ করতে হবে, যেন সেখানে রোহিঙ্গাদের বসবাসের অনুকূল পরিবেশ তৈরি হয়।

রোহিঙ্গারা যেন নিজ দেশে ফিরে যেতে পারে, সে জন্য ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব দ্য রেডক্রসকে (আইসিআরসি) আরও সক্রিয়ভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন রোববার নিউ ইয়র্কে রেডক্রসের সভাপতি পিটার মাউরার সঙ্গে বৈঠকে এ আহ্বান জানান।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পাঠানো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

নিউ ইয়র্কের বৈঠকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা যেন নিজ দেশে ফিরে যেতে পারে, সে জন্য সঠিক উপায় বের করতে হবে। মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে রাখাইন রাজ্যে আইসিআরসিকে আরও সক্রিয়ভাবে কাজ করতে হবে। যেন সেখানে রোহিঙ্গাদের বসবাসের অনুকূল পরিবেশ তৈরি হয়।

‘রোহিঙ্গারা যেন মর্যাদার সঙ্গে স্বদেশে ফিরে যেতে পারে, আইসিআরসিকে সে জন্য একটি টেকসই উপায়ে কাজ করতে হবে।’

আইসিআরসির প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশের মানবিক ভূমিকার প্রশংসা করেন। রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার জন্য তিনি বাংলাদেশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মানবিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রশংসা করেন তিনি।

আরও পড়ুন:
কাজে ফিরেছে বরিশাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা
সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশের দা‌বি ব‌রিশা‌লের পৌর মেয়রদের
অন্যায় করে থাকলে আমারও বিচার হোক: মেয়র সাদিক
বরিশালে আ.লীগ নেতা-কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে
বরিশালের ঘটনায় কাউন্সিলর মান্না গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

এবার মেয়র জাহাঙ্গীরের ৫০ মিনিটের ভিডিও ভাইরাল

এবার মেয়র জাহাঙ্গীরের ৫০ মিনিটের ভিডিও ভাইরাল

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় গাজীপুর সিটি করপোরেশন মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেন আওয়ামী লীগের একাংশের নেতা-কর্মীরা। ফাইল ছবি

এর আগে ৪ মিনিটের ভিডিও ফাঁসকে কেন্দ্র করে পাঁচ দিন ধরে ক্ষমতাসীন দলের একাংশের তোপের মুখে আছেন মেয়র। তিনি সেই ভিডিওটিকে কারসাজি বলেছেন। তবে এবার ৫০ মিনিটের ভিডিও প্রকাশ হয়েছে, তাতে তার এই দাবি প্রশ্নের মুখে পড়ে গেছে।

৪ মিনিটের একটি ঘরোয়া আলোচনার ভিডিও ফাঁসের পর বেকায়দায় পড়া গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের এবার ৫০ মিনিটের একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে।

৪ মিনিটের ভিডিওটি এই ৫০ মিনিটের ভিডিও থেকেই কেটে ফেসবুকে ছাড়া হয়। তাতে মুক্তিযুদ্ধের শহিদের সংখ্যা ও বঙ্গবন্ধুর দেশ স্বাধীন করার উদ্দেশ্য নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্য থাকার অভিযোগ তুলে মেয়রের শাস্তির দাবিতে গত বুধবার থেকে টানা কর্মসূচি পালন করে আসছেন মহানগর আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা।

ভিডিওতে গাজীপুর আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খানকে নিয়েও আপত্তিকর বক্তব্য আছে।

সে সময় মেয়র ছিলেন দেশের বাইরে। বুধবার রাতে দেশে ফিরে এক ভিডিওবার্তায় তিনি ভিডিওটিকে বানোয়াট বলে দাবি করেন। পরে শুক্রবার এক সমাবেশে তিনি ‘চক্রান্তকারীদের’ মুখোশ উন্মোচনের ঘোষণা দেন।

এবার মেয়র জাহাঙ্গীরের ৫০ মিনিটের ভিডিও ভাইরাল
বিরোধীরা সমাবেশ ডাকলে নিজের শক্তি দেখান গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। ফাইল ছবি

তবে মেয়রবিরোধী বিক্ষোভ থামছে না আর এর অংশ হিসেবে শনিবার ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে ৫০ মিনিটের পুরো রেকর্ডটি। এই রেকর্ডে আগের বক্তব্যের পাশাপাশি নতুন কিছু কথা মেয়রবিরোধী সমালোচনাকে আরও উসকে দিয়েছে।

মেয়র জাহাঙ্গীর এই ভিডিওটিকেও বানোয়াট বলে চাপ এড়াতে চাইছেন।

যা আছে ৫০ মিনিটের নতুন ভিডিওতে

ভিডিওটির ২৬ মিনিট ১৫ সেকেন্ডে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করেন মেয়র। ২৮ মিনিট ৫০ সেকেন্ডের দিকে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেলকে নিয়ে মন্তব্য করতে দেখা যায় জাহাঙ্গীরকে।

২৯ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে সেই ব্যক্তি মেয়রকে বলেন, ‘আপনি আগুনকে (আজমত উল্লাহ খান) পানি বানাইয়া ফেলছেন। কীভাবে করলেন?

তখন মেয়র আজমত উল্লাহ খানকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেন।

এবার মেয়র জাহাঙ্গীরের ৫০ মিনিটের ভিডিও ভাইরাল
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ‘কটূক্তির’ অভিযোগে গাজীপুর সিটির মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের একাংশের বিক্ষোভ। ফাইল ছবি

৩২ মিনিটের সময় মেয়র বলেন, তিনি ৭০০ কিলোমিটার সড়ক করেছেন, ড্রেন ও এলইডি লাইট লাগিয়েছেন।

ভিডিওর ৩৩ মিনিটে মেয়র সেদিনকার তারিখ ও সময় বলেন। ভিডিওটি যে গত বছরের ৯ ডিসেম্বর ধারণ করা হয়, সেটি এখানে স্পষ্ট বোঝা যায়।

৩৩ মিনিটের দিকে প্রতিমন্ত্রী রাসেলকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেন জাহাঙ্গীর।

৩৪ মিনিটে মেয়র কাউন্সিলর মামুন মণ্ডলকে নিয়ে মন্তব্য করেন। মামুন পৃথিবীতে সবচেয়ে অসুখী মানুষ বলে মনে করেন তিনি। বলেন, ‘সে যেকোনো সময় মানুষের দ্বারা বা দুর্ঘটনায় মারা যাবে।’

মামুন মণ্ডল নগরীর ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং মেয়রবিরোধী সাম্প্রতিক কর্মসূচির নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি।

মেয়র বলেন, ‘তার কাউন্সিলর পদ আমি ৫ মিনিটে ডইলা দিতে পারি। এমনকি ভিডিওর ১৭ মিনিটে মেয়র কাউন্সিলরের জন্মপরিচয় নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

কাউন্সিলর মামুন মণ্ডল নিউজবাংলাকে বলেছেন, জাহাঙ্গীর আলম যার সঙ্গে কথা বলেছেন, তাকে তারা শনাক্ত করতে পেরেছেন। কিন্তু তার জীবনের ঝুঁকি বিবেচনায় তিনি নাম প্রকাশ করবেন না।

এবার মেয়র জাহাঙ্গীরের ৫০ মিনিটের ভিডিও ভাইরাল
মেয়রের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের একাংশের নেতা-কর্মীদের বিক্ষোভ। ফাইল ছবি

তার অভিযোগ, জাহাঙ্গীর কার্যত তাকে হত্যার হুমকি দিয়েছেন। বলেন, ‘আমাকে প্রত্যেক দিন মাইরা ফেলানো উচিত, আমাকে মাইরা ফেলা দরকার, অথবা আমাকে অন্য মানুষ মাইরা ফালাইব। আমি মারা যাব। হেয় কি ভাড়াটিয়া খুনি নিয়োগ করছে কি না যে খুনিরা আমারে মারব সে নিশ্চিত জানে। আল্লাহতাআলা ভবিষ্যৎ জানে। সে তো জানার কথা না। তিনি কি ভবিষ্যৎ জানার জন্য আবার নতুন কোনো যন্ত্র আবিষ্কার করছে কি না?’

মামুন বলেন, ‘কথা পরিষ্কার, আমার কিছু হলে দায়ভার তার নিতে হবে। আমি বহু আগেই তার (মেয়র) বিরুদ্ধে জয়দেবপুর থানায় জিডি করে রাখছি।’

জাহাঙ্গীর যা বলছেন

৫০ মিনিটের এই ভিডিওটির ব্যাপারে মেয়র জাহাঙ্গীর আলম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি নতুন ভিডিওটি শুনি নাই। এগুলা কারা করতেছে, কী করতেছে আমি তো জানি না৷

‘অনেকের মেয়র হওয়ার খায়েশ, তারা এগুলো করতেছে হয়তো। তবে আমি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও আইনজীবীদের বলেছি জিনিসটা বাহির করুক।’

ভিডিওতে কণ্ঠে পুরোপুরি মিল থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে মেয়র বলেন, ‘অনেকে দেখা যায় কণ্ঠ মিলাইয়া ফেলে। হুবহু শব্দ দেখা যায় মিলায়। এগুলো যারা বিশেষজ্ঞ আছে তারা এটা যাচাই-বাছাই করুক।’

ভিডিওটিতে মেয়র যার সঙ্গে কথা বলছেন, তিনি গাছা এলাকার এক তাঁতী লীগ নেতা বলে নিশ্চিত করেছেন আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা।

এ প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, ‘আমি কনফার্ম না হয়ে কিছু বলতে পারছি না। আমি আরেকজনের যে বলব তার কি না সেটাও জানি না। আমার নির্বাচনকে ধরে আমার পার্টির সেক্রেটারি ও মেয়র হওয়া নিয়ে তারা এটা সব সময় করে। আজকে এটা নতুন না।‘

এবার মেয়র জাহাঙ্গীরের ৫০ মিনিটের ভিডিও ভাইরাল
বিক্ষোভে বৃহস্পতিবার ঢাকা-গাজীপুর ট্রেন চলাচল বন্ধ ছিল বেশ কিছু সময়। ফাইল ছবি

কাউন্সিলর মামুন মণ্ডলের প্রসঙ্গ টেনে মেয়র বলেন, ‘আমার জানামতে তিনি ৩০-৩৫টি মামলার আসামি। আমাদের ছাত্রলীগের এক কর্মীর হত্যা মামলার ১ নম্বর আসামি। তার সঙ্গে আমার তেমন একটা কথা হয় না।’

গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খানের অনুসারীরাও বিক্ষোভ করেছেন, এই বিষয়টি তুলে ধরলে মেয়র বলেন, ‘উনি সবাইকে ফোন করে আসতে বলছেন বলে আমি জেনেছি। বাকিটা ওনারাই জানে, আমি সঠিকটা জানি না।’

বিষয়টি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগকে জানাবেন জানিয়ে জাহাঙ্গীর বলেন, ‘আমি দেশের বাহিরে ছিলাম। দলের সভাপতিও (শেখ হাসিনা) দেশের বাহিরে। এখন বিষয়টি কেন্দ্রে জানানোর জন্য প্রস্তুত আছি। সাধারণ সম্পাদককে বিষয়টি জানাব।’

আরও পড়ুন:
কাজে ফিরেছে বরিশাল সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীরা
সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশের দা‌বি ব‌রিশা‌লের পৌর মেয়রদের
অন্যায় করে থাকলে আমারও বিচার হোক: মেয়র সাদিক
বরিশালে আ.লীগ নেতা-কর্মীরা গ্রেপ্তার আতঙ্কে
বরিশালের ঘটনায় কাউন্সিলর মান্না গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন