প্রাণ হাতে লঞ্চে হাজার হাজার মানুষ

ভোলা থেকে ঢাকাগামী এম ভি দোয়েল পাখি-১ এর যাত্রী সোলাইমান হোসেন বলেন, ‘লঞ্চে দাঁড়ানোর মতো জায়গা নেই। অথচ লঞ্চ কর্তৃপক্ষ ২৫০ টাকার ভাড়া ৪০০ টাকা নিতেছে। এমন হইলে কেমনে হইবো। এইডা তো গরিব মারা ব্যবসা শুরু করছে।’

লঞ্চ চলবে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। এর আগেই ঢুকতে হবে ঢাকায়। তাই দক্ষিণাঞ্চল থেকে ঢাকামুখী লঞ্চে তিলধারণের জায়গা নেই। রোববার ভোর থেকে হাজার হাজার যাত্রী নিয়ে বিভিন্ন জেলা থেকে ছেড়েছে লঞ্চ।

নৌযানে চড়তে না পেরে অনেক ঘাটেই ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষায় আছেন অসংখ্য মানুষ।

চাঁদপুর লঞ্চঘাটে রোববার সকালে দেখা গেছে যাত্রীর ঢল। তাদের অনেকেই ভোর থেকে অপেক্ষা করেও লঞ্চে চড়তে পারেননি।

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলা থেকে ঢাকাগামী যুবক ইলিয়াস হোসেন জানান, চাকরি বাঁচাতে বাধ্য হয়ে ভিড় ঠেলে ঢাকা যাওয়া লাগছে। এতো মানুষ এক সঙ্গে লঞ্চে উঠছে যে চাইলেও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা যাচ্ছে না। নিজ সুরক্ষায় মাস্কই একমাত্র ভরসা তার।

আরেক যাত্রী তারেক হোসেন জানান, চাকরিতে যোগ দিতেই হবে। তাই ঝুঁকি জেনেও গাদাগাদি করে লঞ্চে উঠছেন। করোনা কিংবা দুর্ঘটনার চেয়ে চাকরির চিন্তা এখন বেশি।

লঞ্চ মালিক প্রতিনিধি বিল্পব সরকার বলেন, ‘ঘাটে যে পরিমাণ যাত্রী রয়েছে, সে পরিমাণ লঞ্চ নেই। তাই কিছুটা বাড়তি যাত্রী নিয়ে লঞ্চ ছাড়তে হচ্ছে।

‘অল্প সময়ের জন্য লঞ্চ চলাচলের অনুমতি দেয়ায় সবাই এক সঙ্গে ঘাটে আসছে। তবে আমরা সকল যাত্রীদের স্ব্যাস্থ্যবিধি মেনে চলতে আহ্বান জানাচ্ছি। সরকারের নির্দেশনা মেনে আজ দুপুর ১২ পর্যন্ত লঞ্চ চলাচল করবে।’

প্রাণ হাতে লঞ্চে হাজার হাজার মানুষ

ঘাটে যাত্রীদের স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত, বিআইডব্লিউটিএ, পুলিশ ও কোস্টগার্ড সদস্যরা দায়িত্বে আছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) উপপরিচালক কায়সারুল ইসলাম বলেন, ‘ঘাটে পর্যাপ্ত লঞ্চ না থাকায় যাত্রীর ভিড় বেড়েছে। আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি স্বাস্থ্যবিধি মানাতে, তারপরেও অনেক যাত্রী তা মানছেন না।’

তিনি জানান, ভোর সাড়ে ৫টা থেকে সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত ৮টি লঞ্চ চাঁদপুর থেকে ছেড়ে গেছে। প্রতিটিই ছিল যাত্রীবোঝাই। দুপুর সাড়ে ১১টায় আরেকটি লঞ্চ ঘাটে ভিড়বে।

ভোলার ইলিশাঘাট ও চরফ্যাশন উপজেলার ঘোষেরহাট থেকে সকালে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়েছে ৮টি লঞ্চ। এছাড়া ইলিশাঘাট থেকে লক্ষীপুরের মজুচৌধুরীর ঘাটের উদ্দেশ্য দুইটি সিট্রাক ও দুইটি লঞ্চ ছেড়ে যায়।

এসব ঘাটের যাত্রীরা ভোগান্তি ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করছেন।

ঢাকাগামী এম ভি দোয়েল পাখি-১ এর যাত্রী সোলাইমান হোসেন বলেন, ‘লঞ্চে দাঁড়ানোর মতো জায়গা নেই। অথচ লঞ্চ কর্তৃপক্ষ ২৫০ টাকার ভাড়া ৪০০ টাকা নিতেছে। এমন হইলে কেমনে হইবো। এইডা তো গরিব মারা ব্যবসা শুরু করছে।’

প্রাণ হাতে লঞ্চে হাজার হাজার মানুষ

এম ভি কর্ণফুলী-১০ লঞ্চের যাত্রী মো. রুবেল অভিযোগ করেন, ‘চাপ হবে ভেবে সরকারের ঘোষণা পাওয়া পরপরই গতকাল (শনিবার) রাতে লঞ্চঘাটের উদ্দেশে চলে আসি। ঘাটে রাত ২টায় এসেও সিট পাইনি। বারান্দায় সিট করতে হইছে।’

ভোলা-ঢাকা নৌপথে কর্ণফুলী-১০ লঞ্চের ম্যানেজার মো. আলাউদ্দিনের দাবি, বিআইডব্লিউটিএর নির্দেশনা অনুযায়ী স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করেই প্রতিটি লঞ্চ ছেড়ে গেছে। যদিও সে চিত্র সরেজমিনে দেখা যায়নি।

বরগুনা থেকে রোববার সকাল ১০টা পর্যন্ত দুইটি লঞ্চ যাত্রী নিয়ে ছেড়ে গেছে। ঘাট কর্তৃপক্ষ বলছে, হুট করে শনিবার রাতে গণপরিবহন চালুর ঘোষণা আসায় সব লঞ্চ নামানো যায়নি।

এই ঘাটেও অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।

ঢাকাগামী আরিফুর রহমান বলেন, ‘ডেকে ৫০০, সিঙ্গাল কেবিনে ১৫০০ এবং ডাবলে ২৮০০ টাকা করে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে। অথচ ডেকে ৪০০, সিঙ্গাল কেবিনে ১২০০ এবং ডাবলে ২৪০০ টাকা নিয়মিত ভাড়া।’

প্রাণ হাতে লঞ্চে হাজার হাজার মানুষ

যাত্রীদের অভিযোগের বিষয়ে এমকে শিপিং লাইন্সের বরগুনা ঘাট ব্যবস্থাপক এনায়েত হোসেন বলেন, ‘গতকাল রাতেই আমরা জানতে পারি সাময়িক নৌযান চলাচলের অনুমতি দিয়েছে সরকার। তড়িঘড়ি করে আমরা স্টাফদের খবর দিয়ে আজ লঞ্চ ছেড়েছি।

‘হুট করেই লঞ্চ ছাড়ার সিদ্ধান্তে স্টাফ সংকট পড়েছে লঞ্চ কর্তৃপক্ষ। স্পেশাল ট্রিপের জন্য অতিরিক্ত টাকা দিয়ে স্টাফ জোগাড় করা হয়েছে। এ কারণে ভাড়া সামান্য বৃদ্ধি করা হয়েছে।’

তিনি জানান, যাত্রীর চাপে স্বাস্থ্যবিধি মানা পুরোপুরি সম্ভব হয়নি। তবে লঞ্চে ওঠার আগে মাস্ক পরা ও হাত ধোয়া নিশ্চিত করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চ
পরিবহন চালুর দাবিতে সড়কে শ্রমিকরা
‘রাস্তাতেই টাকা শেষ, ঢাকা গিয়ে খাব কী?’
শ্রমিকের ভিড়ে ঠাঁই নেই ফেরিতে
শিমুলিয়া ফাঁকা, বাংলাবাজারে ঢাকামুখী যাত্রী

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মাদক রোধে সংস্কৃতিকর্মীদের ভূমিকা প্রয়োজন: খাদ্যমন্ত্রী

মাদক রোধে সংস্কৃতিকর্মীদের ভূমিকা প্রয়োজন: খাদ্যমন্ত্রী

সাপাহারে বৃহস্পতিবার উন্নয়ন কর্মসূচির প্রণোদনা বিতরণ করেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। ছবি: নিউজবাংলা

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, নিজের চিন্তাচেতনা স্বচ্ছ রাখার পাশাপাশি বাল্যবিবাহ ও মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে সংস্কৃতিকর্মীদের ভূমিকা রাখা প্রয়োজন। সংস্কৃতিবান্ধব বর্তমান সরকার সংস্কৃতিকর্মীদের বিষয়ে আন্তরিক। সংস্কৃতিমনা প্রজন্ম গড়ে তুলতে হবে।

মাদক রোধে সংস্কৃতিকর্মীদের ভূমিকা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নওগাঁর সাপাহার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচির প্রণোদনা বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, নিজের চিন্তাচেতনা স্বচ্ছ রাখার পাশাপাশি বাল্যবিবাহ ও মাদকমুক্ত সমাজ গড়তে সংস্কৃতিকর্মীদের ভূমিকা রাখা প্রয়োজন। সংস্কৃতিবান্ধব বর্তমান সরকার সংস্কৃতিকর্মীদের বিষয়ে আন্তরিক। সংস্কৃতিমনা প্রজন্ম গড়ে তুলতে হবে।

মন্ত্রী আরও বলেন, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধি, বিবাহ রেজিস্ট্রার ও প্রশাসনকে সোচ্চার হতে হবে। বাল্যবিবাহের কুফল সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ানো প্রয়োজন।

মাদকের ভয়াল থাবা সমাজকে পঙ্গু করে দিচ্ছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, যুব সমাজকে রক্ষা করতে মাদক রুখতে হবে। বাল্যবিবাহ ও মাদকের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স ভূমিকা গ্রহণে প্রশাসনসহ সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।

এ বিষয়ে প্রশাসনকে পদক্ষেপ নেয়ার নির্দেশনা দেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, করোনা মহামারিতে দেশে খাদ্যসংকট হয়নি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনাকালে ক্ষতিগ্রস্ত সব সেক্টরে প্রণোদনা দিয়েছেন। মানুষের জীবন-জীবিকা স্বাভাবিক রেখেছেন। খাদ্যের অভাব হলে ৩৩৩ নম্বরে ফোন দিলে দরিদ্রদের খাদ্য পৌঁছে দেয়া হয়েছে। দরিদ্রদের মোবাইলে সহায়তার টাকা পৌঁছে গেছে। এটাই বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ, শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্যাহ আল মামুন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান শাহাজান আলী মন্ডল, আওয়ামী লীগের সভাপতি শামসুল আলম চৌধুরী, বীর মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী, সহকারী পুলিশ সুপার বিনয় কুমার সরকার ও উপজেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা আমেনা খাতুন ।

পরে মন্ত্রী উপজেলা পরিষদ মুক্তমঞ্চ উদ্বোধন করেন।

আরও পড়ুন:
ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চ
পরিবহন চালুর দাবিতে সড়কে শ্রমিকরা
‘রাস্তাতেই টাকা শেষ, ঢাকা গিয়ে খাব কী?’
শ্রমিকের ভিড়ে ঠাঁই নেই ফেরিতে
শিমুলিয়া ফাঁকা, বাংলাবাজারে ঢাকামুখী যাত্রী

শেয়ার করুন

জোয়ারে ভোট কেন্দ্রে হাঁটু পানি, সরানোর দাবি

জোয়ারে ভোট কেন্দ্রে হাঁটু পানি, সরানোর দাবি

বিদ্যালয়টির যোগাযোগ ব্যবস্থা বেহাল হওয়ায় ভোটকেন্দ্র সরিয়ে নেয়ার দাবি জানাচ্ছে এলাকাবাসী। ছবি: নিউজবাংলা

লোহালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির হোসেন তালুকদার বলেন, ‘কেন্দ্রটি সরাতে এলাকাবাসী আমাকে বারবার অনুরোধ করেছে। বিষয়টি নিয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করেছি।’

বর্ষা বা জোয়ারের সময় পটুয়াখালী সদরের লোহালিয়া ইউনিয়নের পূর্ব কাকড়াবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হাঁটু পানিতে তলিয়ে যায়। যাতায়াতেও পোহাতে হয় অসহনীয় দুর্ভোগ। স্কুলটি ভোটকেন্দ্র হিসেবে সম্পূর্ণ অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সেখোন থেকে কেন্দ্রটি সরানোর দাবি উঠেছে।

এলাকাবাসীর লিখিত আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই কেন্দ্রটি পরিদর্শন করেছেন নির্বাচন কর্মকর্তারা। জানিয়েছেন, শিগগিরই সিদ্ধান্ত দেবে নির্বাচন কমিশন।

দুই থেকে আড়াই শ ভোটারের সই করা আবেদনে বলা হয়, লোহালিয়া ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব কাকড়াবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র হিসেবে সম্পূর্ণ অনুপযোগী। বর্ষা বা জোয়ারের সময় বিদ্যালয়টির সামনে হাঁটু পানি জমে থাকে।

এ ছাড়া কেন্দ্রের দুই পাশের রাস্তা দুটি কর্দমাক্ত হয়ে থাকে। ওই কেন্দ্রে চলাচল করতে হয় হেঁটে। কেন্দ্রটি ওয়ার্ডের শেষ প্রান্তে হওয়ায় ভোটার উপস্থিতি কম হওয়ার আশংকা রয়েছে।

এই পরিস্থিতি বিবেচনায় কেন্দ্রটি সরিয়ে ১৫৪ নম্বর মধ্য কাকড়াবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নেয়ার আবেদন করা হয়েছে।

১ নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার আজাহার উদ্দিন খান বলেন, ‘কেন্দ্রের এক পাশের রাস্তা ভাঙা। হেইহানে কলা ও সুবারি গাছ দিয়া বানানো হাক্কা দিয়ে চলাচল করতে হয়। এই কারণে স্কুলে ছাত্র-ছাত্রীদের আসা যাওয়া কম।’

জোয়ারে ভোট কেন্দ্রে হাঁটু পানি, সরানোর দাবি

জাকির হোসেন মোল্লা নামের একজন বলেন, ‘ভোটারদের যৌক্তিক দাবি নিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি জমা দেব। এরপরও কেন্দ্র পরিবর্তন না হলে, আন্দোলন ছাড়া উপায় থাকবে না।’

লোহালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির হোসেন তালুকদার বলেন, ‘কেন্দ্রটি সরাতে এলাকাবাসী বারবার অনুরোধ করেছে। বিষয়টি নিয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। তাদের বলেছি, ভোটারদের সুবিধার জন্য কেন্দ্রটি যেন সরিয়ে নেয়া হয়।’

জোয়ারে ভোট কেন্দ্রে হাঁটু পানি, সরানোর দাবি

এ বিষয়ে জানতে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা খান আবি সাহানুরের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা খালিদ বিন রউফ জানান, ভোটারদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রটি পরিদর্শন করেছি। জেলা নির্বাচন কার্যালয়ে প্রতিবেদন পাঠাবো। সেখান থেকে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসবে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার মোর্শেদ বলেন, ‘চলাচলে সমস্যা এবং ঝুঁকিপূর্ণ হলে কেন্দ্র পরিবর্তনের সুপারিশ করবো। এরই মধ্যে অফিসারকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রতিবেদন জমা দিতে বলেছি।’

গত মার্চে কয়েক ধাপে সবগুলো উপজেলায় নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন। এরপর ৩ মার্চ প্রথম ধাপে ৩৭১টি ইউনিয়ন পরিষদের ভোটগ্রহণের তফসিল ঘোষণা হয়। ভোট হয় ২০ সেপ্টেম্বর।

আগামী সপ্তাহে এই উপজেলায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার কথা রয়েছে।

আরও পড়ুন:
ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চ
পরিবহন চালুর দাবিতে সড়কে শ্রমিকরা
‘রাস্তাতেই টাকা শেষ, ঢাকা গিয়ে খাব কী?’
শ্রমিকের ভিড়ে ঠাঁই নেই ফেরিতে
শিমুলিয়া ফাঁকা, বাংলাবাজারে ঢাকামুখী যাত্রী

শেয়ার করুন

শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে ৩ যুবক আটক

শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে ৩ যুবক আটক

আড়াইহাজার থানার পুলিশ পরিদর্শক জোবায়ের হোসেন জানান, সকাল ১০টা থেকে শিশুটিকে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরিবারের লোকজন তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে। একপর্যায়ে শিশুটির বাবা পুরিন্দা এলাকার নান্নু মিয়ার তালাবদ্ধ ঘরের জানালা দিয়ে তার বিবস্ত্র দেহ পড়ে থাকতে দেখেন।

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে তিন যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

আড়াইহাজার উপজেলার সাতগ্রাম ইউনিয়নের পুরিন্দা বড় বাড়ি এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এরপরই তাদের সন্দেহভাজন হিসেবে আটক করে থানায় নেয় পুলিশ।

আটক তিনজন হলেন মো. সামাদ, মো. সোহেল ও মো. শিমুল।

আড়াইহাজার থানার পুলিশ পরিদর্শক জোবায়ের হোসেন নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সকাল ১০টা থেকে শিশুটিকে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরিবারের লোকজন তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে। একপর্যায়ে শিশুটির বাবা পুরিন্দা এলাকার নান্নু মিয়ার তালাবদ্ধ ঘরের জানালা দিয়ে তার বিবস্ত্র দেহ পড়ে থাকতে দেখেন।

পুলিশ গিয়ে শিশুটির গলায় গামছা বাঁধা ও বেল্ট দিয়ে দুই পা বাঁধা রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে।

পুলিশ পরিদর্শক জানান, ধারণা করা হচ্ছে, শিশুটিকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সন্দেহভাজন হিসেবে তিনজনকে আটক করে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চ
পরিবহন চালুর দাবিতে সড়কে শ্রমিকরা
‘রাস্তাতেই টাকা শেষ, ঢাকা গিয়ে খাব কী?’
শ্রমিকের ভিড়ে ঠাঁই নেই ফেরিতে
শিমুলিয়া ফাঁকা, বাংলাবাজারে ঢাকামুখী যাত্রী

শেয়ার করুন

জনগণের চাওয়া অনুযায়ী ভোটের পরিবেশ

জনগণের চাওয়া অনুযায়ী ভোটের পরিবেশ

আখাউড়া উপজেলা পরিষদ মাঠে বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের জনসভায় বক্তব্য দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ছবি: নিউজবাংলা

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। ভোট দিয়ে প্রমাণ করতে হবে, আপনারা গণতন্ত্র চান। ভোটের জন্য জনগণ যেভাবে চায় সেভাবে পরিবেশ করে দেয়া হবে।’

আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জনগণ যেভাবে চায় ভোটের পরিবেশ সেভাবে করে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলা পরিষদ মাঠে আওয়ামী লীগের জনসভায় তিনি এ আশ্বাস দেন।

উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন, সেতু ও সড়ক নির্মাণসহ ৩৮টি প্রকল্পের উদ্বোধন উপলক্ষে এ জনসভার আয়োজন করা হয়।

মন্ত্রী বলেন, ‘আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। ভোট দিয়ে প্রমাণ করতে হবে, আপনারা গণতন্ত্র চান। ভোটের জন্য জনগণ যেভাবে চায় সেভাবে পরিবেশ করে দেয়া হবে।’

সমাবেশে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘ষড়যন্ত্রে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হারিয়েছি। আর ষড়যন্ত্র করতে দেয়া হবে না। সব ষড়যন্ত্র প্রতিহত করা হবে।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে মানবিক কারণে বাসায় দেয়া হয়েছে। তিনি কোভিড আক্রান্ত হলে চিকিৎসা নিতে হাসপাতালে যান। ডাক্তাররা ওনাকে (খালেদা জিয়া) ভালো করেছেন।

‘বিএনপি এখনও বলছে আমরা নাকি ভয় পাই। তাই খালেদা জিয়াকে বিদেশ যেতে দেই না। দেশের চিকিৎসায় যদি তিনি ভালো হন, তাহলে কেন বিদেশ যাবেন। আমরা যদি দেশেই মানুষকে সুস্থ করতে পারি, তাহলে বিদেশে যাওয়ার কি দরকার আছে, আপনারাই বলেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘লকডাউনে যারা ঘর থেকে বের হতে পারেননি, সবার জন্য প্রণোদনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। সবার জন্য এক লাখ ৩২ হাজার কোটি টাকার বেশি প্রণোদনা দেয়া হয়েছে।’

জনসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ জয়নাল আবেদীন।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুমানা আক্তার, বীর মুক্তিযোদ্ধা জমসেদ শাহ্, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান পিয়ারা আক্তার পিওনা, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাব উদ্দিন বেগ শাপলু ও সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন নয়ন।

উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, মন্ত্রীর একান্ত সচিব নূর কুতুবুল আলম, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফিরোজুর রহমান, কসবা উপজেলা চেয়ারম্যান রাশেদুল কায়সার ভূঁইয়া জীবনসহ অনেকে।

আরও পড়ুন:
ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চ
পরিবহন চালুর দাবিতে সড়কে শ্রমিকরা
‘রাস্তাতেই টাকা শেষ, ঢাকা গিয়ে খাব কী?’
শ্রমিকের ভিড়ে ঠাঁই নেই ফেরিতে
শিমুলিয়া ফাঁকা, বাংলাবাজারে ঢাকামুখী যাত্রী

শেয়ার করুন

বাসচালক হত্যা মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান রিমান্ডে

বাসচালক হত্যা মামলায় ইউপি চেয়ারম্যান রিমান্ডে

নড়াইল সদর উপজেলার আউড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পলাশ মোল্লা। ছবি: নিউজবাংলা

নিহত বাসচালক লিয়াকত শিকদারের স্ত্রী মামলার বাদী আসমা খাতুন জানান, তাদের বাড়ি নড়াইল শহরের পাশের সীমাখালী গ্রামে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জেরে গত ২৮ আগস্ট তার স্বামীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

নড়াইলে বাসচালক হত্যা মামলার প্রধান আসামি সদর উপজেলার এক ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যানকে তিন দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত।

সদর আমলি আদালতের বিচারক হেলাল উদ্দিন বুধবার দুপুর দুইটার দিকে আউড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান পলাশ মোল্লাকে রিমান্ডে পাঠান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার ওসি তুষার কুমার মণ্ডল পলাশের ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলেন।

নিহত বাসচালক লিয়াকত শিকদারের স্ত্রী মামলার বাদী আসমা খাতুন নিউজবাংলাকে জানান, তাদের বাড়ি নড়াইল শহরের পাশের সীমাখালী গ্রামে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জেরে গত ২৮ আগস্ট তার স্বামীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনায় তিনি ১৭ জনের নামে ও অজ্ঞাতপরিচয় ৪ থেকে ৫ জনকে আসামি করে সদর থানায় হত্যা মামলা করেন।

ওসি তুষার জানান, প্রথমে সীমাখালী গ্রাম থেকে এই মামলার আসামি নাসিম শিকদারকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর গত সোমবার রাতে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে পুলিশ পলাশসহ আরও তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করে।

তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী চেয়ারম্যান পলাশের বাড়ির পাশের ডোবা থেকে হত্যায় ব্যবহৃত দুটি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় পলাশ বাদে গ্রেপ্তার বাকি তিনজনই ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। শনিবার থেকে পলাশকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

আরও পড়ুন:
ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চ
পরিবহন চালুর দাবিতে সড়কে শ্রমিকরা
‘রাস্তাতেই টাকা শেষ, ঢাকা গিয়ে খাব কী?’
শ্রমিকের ভিড়ে ঠাঁই নেই ফেরিতে
শিমুলিয়া ফাঁকা, বাংলাবাজারে ঢাকামুখী যাত্রী

শেয়ার করুন

ওমানেও ব্যাংক লুট করেন শামীম, খেটেছেন জেলও

ওমানেও ব্যাংক লুট করেন শামীম, খেটেছেন জেলও

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেন, শামীম ও জাহির দীর্ঘদিন দুবাইয়ে থাকা অবস্থায় তাদের মধ্যে সখ্য গড়ে ওঠে। একসময় দুজনই দেশে ফিরে চুরি, ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে যান। শেরপুরে এটিএম বুথ লুটের ঘটনাটিও শামীম ও জাহিরের পরিকল্পনাতেই হয়।

সিলেটের ওসমানীনগরে ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের (ইউসিবি) এটিএম বুথ লুটের ঘটনায় গ্রেপ্তার শামীম আহমেদ ওমানে থাকাকালেও ব্যাংকের এটিএম লুটে জড়িত ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সেখানে এটিএম বুথ লুটে জড়িত থাকায় তাকে ৮ বছর জেলও খাটতে হয়।

নিজ কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন তথ্য জানিয়েছেন সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন।

শামীম আহমদ ও সাফি উদ্দিন জাহিরের পরিকল্পনায়ই ওসমানীনগর উপজেলার শেরপুরে ইউসিবি’র এটিএম বুথ লুট করা হয় বলে জানান তিনি।

এদের মধ্যে শামীমকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ ও জাহিরকে সিলেট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেন, শামীম ও জাহির দীর্ঘদিন দুবাইয়ে থাকা অবস্থায় তাদের মধ্যে সখ্য গড়ে ওঠে। একসময় দুজনই দেশে ফিরে চুরি, ডাকাতিসহ বিভিন্ন অপকর্মে জড়িয়ে যান। শেরপুরে এটিএম বুথ লুটের ঘটনাটিও শামীম ও জাহিরের পরিকল্পনাতেই হয়।

তিনি বলেন, শামীম একসময় ওমানে থাকা অবস্থায় সেখানকার স্থানীয় ব্যাংকের এটিএম বুথ ডাকাতির ঘটনায় ৮ বছর কারাবাস করেন। শেরপুরের ঘটনার পরেও তিনি বিদেশে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অভিযানে শামীমের বাসা তল্লাশি করে ঘটনায় ব্যবহৃত তার মোটরসাইকেল এবং পাসপোর্ট জব্দ করা হয়েছে।

ওসমানীনগর উপজেলার শেরপুর পশ্চিম বাজারের ইউসিবিএলের এটিএম বুথে গত ১৩ সেপ্টেম্বর ভোররাতে ডাকাতির এ ঘটনা ঘটে। চার মুখোশধারী বুথে ঢুকে নিরপত্তাকর্মীকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে। পরে তাকে বেঁধে ২৪ লাখ ২৫ হাজার ৫০০ টাকা লুট করে।

বুথের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, ডাকাতদের মধ্যে তিনজনের মাথায় লাল কাপড় বাঁধা ছিল, একজনের মাথায় ছিল টুপি।

ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এ ঘটনায় মামলা করলে আসামিদের গ্রেপ্তারে ওসমানীনগর থানা পুলিশ ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার ইউনিটের কাছে সহযোগিতা চায়।

তদন্তের পর ঢাকা থেকে নূর মোহাম্মদ নামের এক দর্জিকে গ্রেপ্তার করে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে হবিগঞ্জের হাওর এলাকা থেকে ডাকাতির ঘটনায় শামীম আহম্মেদ ও তার সহযোগী আব্দুল হালিমকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বুধবার ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার (ডিবি উত্তর) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ জানান, এটিএম ব্যাংক লুটের ঘটনায় ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে শামীম আহমেদ, নুর মোহাম্মদ সেবুল ও আব্দুল হালিমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে ১০ লাখ ৮ হাজার টাকা, দুটি মোবাইল ফোন, একটি ছুরি ও মাথায় ব্যবহারের তিনটি কাপড়ের টুকরা জব্দ করা হয়েছে।

এই তিনজন ও সিলেট জেলা ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার জাহিরকে ৪ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত। বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেটের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে তোলা হলে তাদের রিমান্ডে পাঠান বিচারক মাহবুবুল হক ভুঁইয়া।

এর আগে সংবাদ সম্মেলনে সিলেটের পুলিশ সুপার জানান, বুধবার সন্ধ্যায় হবিগঞ্জ থেকে জাহিরকে গ্রপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘ব্যাংক এটিএম লুটের ঘটনা দেশে বিরল। ব্যাংকের কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা ভেঙে এ ধরনের লুট আমাদের বিস্মিত করেছে। এ ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে জন্য ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে ডিজিটাল নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চ
পরিবহন চালুর দাবিতে সড়কে শ্রমিকরা
‘রাস্তাতেই টাকা শেষ, ঢাকা গিয়ে খাব কী?’
শ্রমিকের ভিড়ে ঠাঁই নেই ফেরিতে
শিমুলিয়া ফাঁকা, বাংলাবাজারে ঢাকামুখী যাত্রী

শেয়ার করুন

কুষ্টিয়া হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়কের নামে দুদকের মামলা

কুষ্টিয়া হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়কের নামে দুদকের মামলা

কুষ্টিয়া দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক জাকারিয়া জানান, আসামিরা পরিকল্পিতভাবে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাজারদরের চেয়ে বেশি দামে কুষ্টিয়া হাসপাতালের জন্য যন্ত্রপাতি কেনেন। এর মাধ্যমে তারা ওই সময় সরকারি ১ কোটি ১০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেন।

ক্রয়নীতি লঙ্ঘন করে সরকারি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ও ঠিকাদারসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

কুষ্টিয়া দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে মামলাটি রেকর্ড করা হয়। দণ্ডবিধির ৪০৯/১০৯ ও ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারায় অভিযোগ এনে মামলাটি করেছেন দুদকের ঢাকা প্রধান কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক মো. সহিদুর রহমান।

মামলার তিন আসামি হলেন কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের সাবেক তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবু হাসানুজ্জামান, মহাখালীর নিমিউ অ্যান্ড টিসির সাবেক অ্যাসিসট্যান্ট রিপিয়ার কাম ট্রেনিং ইঞ্জিনিয়ার এ এইচ এম আব্দুস কুদ্দুস এবং রাজশাহীর মেসার্স প্যারাগন এন্টারপ্রাইজের মালিক ঠিকাদার জাহেদুল ইসলাম।

কুষ্টিয়া দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক জাকারিয়া জানান, আসামিরা পরিকল্পিতভাবে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাজারদরের চেয়ে বেশি দামে কুষ্টিয়া হাসপাতালের জন্য যন্ত্রপাতি কেনেন। এর মাধ্যমে তারা ওই সময় সরকারি ১ কোটি ১০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেন।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় দুদক প্রধান কার্যালয় মামলার অনুমতি দিয়েছে। এখন পূর্ণ তদন্ত শুরু হবে। দুদকের এসব মামলার বিচার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের অধীনে হয়। এ জন্য আদালতকেও মামলার নথি দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ধারণক্ষমতার বেশি যাত্রী নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছে লঞ্চ
পরিবহন চালুর দাবিতে সড়কে শ্রমিকরা
‘রাস্তাতেই টাকা শেষ, ঢাকা গিয়ে খাব কী?’
শ্রমিকের ভিড়ে ঠাঁই নেই ফেরিতে
শিমুলিয়া ফাঁকা, বাংলাবাজারে ঢাকামুখী যাত্রী

শেয়ার করুন