× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

সারা দেশ
Khulna A League wants action against Salam Murshedy
hear-news
player
google_news print-icon

সালাম মুর্শেদীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা চায় খুলনা আ. লীগ

সালাম-মুর্শেদীর-বিরুদ্ধে-ব্যবস্থা-চায়-খুলনা-আ-লীগ
ঈদের আগে খুলনার তেরখাদায় এক অনুষ্ঠানে স্থানীয় সংসদ সদস্য সালাম মুর্শেদীকে ইঙ্গিত করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বলেন, ‘পিএম দেশের বাইরে গেলে আমাদের এমপি ডোনেশন দেন। খুলনার এমপিরা তার কাছ থেকে টাকা নিয়ে চলেন।’ খুলনা আওয়ামী লীগ বলছে, সালাম মুর্শেদী সেই বক্তব্যের প্রতিবাদ না করায় তিনি তাতে সায় দিয়েছেন। আর এই বক্তব্যের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে অপমান করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী দেশের বাইরে গেলে আবদুস সালাম মুর্শেদী অনুদান দেন- এমন বক্তব্য দেয়ায় খুলনার তেরখাদা আওয়ামী লীগ সভাপতি এফ এম অহিদুজ্জামান অহিদকে সাময়িক বহিষ্কারও করা হয়েছে। পাশাপাশি সালাম মুর্শেদীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণে কেন্দ্রে সুপারিশ করা হয়েছে।

সাবেক ফুটবলার ও পোশাকশিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি সালাম মুর্শেদী খুলনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য।

২০১৮ সালের নভেম্বরে খুলনার রূপসা-তেরখাদা-দিঘলিয়া আসনে উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সালাম মুর্শেদী। একাদশ সংসদ নির্বাচনেও তিনি ওই আসন থেকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচিত হন।

অহিদুজ্জামানকে সাময়িক বহিষ্কার ও সালাম মুর্শেদীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থার সুপারিশ করা হয়েছে ঈদের আগে একটি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে।

সে সময় খুলনার তেরখাদা উপজেলায় একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন এফ এম অহিদুজ্জামান অহিদ। এ সময় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন সালাম মুর্শেদী।

অহিদুজ্জামান বলেন, ‘পিএম দেশের বাইরে গেলে আমাদের এমপি ডোনেশন দেন। খুলনার এমপিরা তার কাছ থেকে টাকা নিয়ে চলেন।’

সেই বক্তব্যের সময় সালাম মুর্শেদী কোনো মন্তব্য করেননি, এমনকি পরেও কিছু বলেননি।

খুলনা আওয়ামী লীগ মনে করছে, অহিদুজ্জামানের বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীকে হেয় করা হয়েছে। আর তিনি চুপ থেকে এতে সায় দিয়েছেন।

খুলনা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক এম রিয়াজ কচি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যখন প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে বিব্রতকর বক্তব্য দিচ্ছিলেন তখন এমপি মহোদয় চুপ ছিলেন। আগে ও পরে কোনো বিবৃতি দেননি এবং তার বক্তব্য সংশোধন করে দেননি। এ বিষয়গুলো কেন্দ্রে অবহিত করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘সাংগঠনিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আজ (সোমবার) খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভা ছিল। সভায় তেরখাদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এফ এম অহিদুজ্জামান অহিদকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। তাকে স্থায়ী কেন বহিষ্কার করা হবে না- এ মর্মে নোটিশ পাঠানো হবে। ১০ দিনের মধ্যে উত্তর দিতে বলা হবে। সন্তোষজনক উত্তর দিতে ব্যর্থ হলে স্থায়ী বহিষ্কারের জন্য কেন্দ্রে সুপারিশ করা হবে।’

সভায় সভাপতিত্ব করেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন জেলা সাধারণ সম্পাদক সুজিত অধিকারী।

জনাব অধিকারী বলেন, ‘অহিদুজ্জমানের বক্তব্যে আওয়ামী লীগকে ছোট করা হয়েছে, জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ছোট করা হয়েছে। এ জন্য কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সঙ্গে পরামর্শ করেই আমরা আজকের সভায় এসব সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

এসব বিষয়ে সালাম মুর্শেদী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ওই দিনের পুরো অনুষ্ঠান ছিল তিন ঘণ্টার মতো। সে অনুষ্ঠানে আমি অনলাইনে তিন থেকে সাড়ে তিন মিনিটের জন্য যুক্ত ছিলাম। তাই অনুষ্ঠানে আমার আগে বা পরে কোন বক্তা কী বলছে তা জানতে পারিনি। এ বিষয়ে বিজ্ঞপ্তি আকারে আমার বক্তব্য গণমাধ্যমে পাঠিয়েছি।’

মন্তব্য

আরও পড়ুন

সারা দেশ
1300 kg of jatka was found in the train

ট্রেনে মিলল ১৩০০ কেজি জাটকা

ট্রেনে মিলল ১৩০০ কেজি জাটকা ট্রেনের বগি থেকে ১৩০০ কেজি জাটকা জব্দ করা হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা
কোস্টগার্ড ঢাকা জোন মিডিয়া কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার খন্দকার মুনিফ তকি বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড স্টেশন চাঁদপুর ও উপজেলা মৎস্য অফিসের যৌথ অভিযানে চট্টগ্রামগামী সাগরিকা ট্রেনে তল্লাশি করে ১৩০০ কেজি জাটকা জব্দ করা হয়, যা ৩২.৫ মণের সমান।’

চাঁদপুরে কোস্ট গার্ডের অভিযানে ট্রেনের বগি থেকে ১৩০০ কেজি জাটকা জব্দ করা হয়েছে।

চাঁদপুর শহরের কোর্টস্টেশনে চট্টগ্রামগামী ট্রেনের মালবাহী একটি বগীতে তল্লাশি করে বৃহস্পতিবার দুপুরে মাছগুলো জব্দ করা হয়।

কোস্টগার্ড ঢাকা জোন মিডিয়া কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার খন্দকার মুনিফ তকি বৃহস্পতিবার রাতে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড স্টেশন চাঁদপুর ও উপজেলা মৎস্য অফিস যৌথভাবে শহরের কালিবাড়ি রেলওয়ে কোর্ট স্টেশন এলাকায় একটি অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে চট্টগ্রামগামী সাগরিকা ট্রেনে তল্লাশি করে ১৩০০ কেজি জাটকা জব্দ করা হয়, যা ৩২.৫ মণের সমান।

‘পরে চাঁদপুর সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. তানজিমুল ইসলামের উপস্থিতিতে জব্দ করা জাটকা স্থানীয় এতিমখানা ও অসহায় মানুষদের মাঝে বিতরণ করা হয়।’

আরও পড়ুন:
জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ শুরু ৩১ মার্চ
নিষেধাজ্ঞার মধ্যে মেঘনায় অবাধে জাটকা নিধন
লঞ্চঘাটে পড়ে ছিল ১২ শ কেজি জাটকা
বাস থেকে জব্দ হাজার কেজি জাটকা
৪৫ মণ জাটকাসহ গ্রেপ্তার ছয়জন

মন্তব্য

সারা দেশ
Late night protest in Jabi where student injured by bike

বাইকের ধাক্কায় ছাত্র আহত, গভীর রাতে জাবিতে বিক্ষোভ

বাইকের ধাক্কায় ছাত্র আহত, গভীর রাতে জাবিতে বিক্ষোভ উপাচার্য অধ্যাপক মো. নূরুল আলমের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে বিক্ষোভ করেন জাবি শিক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা
শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো দুর্ঘটনায় আহত ছাত্রের চিকিৎসা ও শিক্ষার ব্যয়ভার প্রশাসনের বহন, মোটরসাইকেল চালকের শাস্তি, মোটরসাইকেল ও অটোরিকশার গতি নিয়ন্ত্রণ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোর সামনে গতি নিরোধক নির্মাণ।

মোটরসাইকেলের ধাক্কায় এক ছাত্র গুরুতর আহত হওয়ার জেরে নিরাপদ ক্যাম্পাস নিশ্চিত, মোটরসাইকেল ও অটোরিকশার গতি নিয়ন্ত্রণসহ চার দফা দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) শিক্ষার্থীরা।

উপাচার্য অধ্যাপক মো. নূরুল আলমের বাসভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে এসব কর্মসূচি পালন করেন তারা।

শিক্ষার্থীদের দাবিগুলো হলো দুর্ঘটনায় আহত ছাত্রের চিকিৎসা ও শিক্ষার ব্যয়ভার প্রশাসনের বহন, মোটরসাইকেল চালকের শাস্তি, মোটরসাইকেল ও অটোরিকশার গতি নিয়ন্ত্রণ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোর সামনে গতি নিরোধক নির্মাণ।

বাইকের ধাক্কায় ছাত্র আহত, গভীর রাতে জাবিতে বিক্ষোভ

বিশ্ববিদ্যালয়ের মওলানা ভাসানী হল সংলগ্ন সড়কে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগের প্রথম বর্ষের (৫১ ব্যাচ) ছাত্র জাহিদ হাসান। তাকে সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান বলেন, ‘আমি আহত শিক্ষার্থীকে দেখতে হাসপাতালে গিয়েছিলাম। তার অবস্থা এখনও শঙ্কামুক্ত নয়। আহত শিক্ষার্থীর চিকিৎসার দায়ভার বিশ্ববিদ্যালয় বহন করবে।

‘শিক্ষার্থীদের দাবির সঙ্গে আমরা সম্পূর্ণ একমত পোষণ করছি। আশা করছি সবাই মিলে একটি সুষ্ঠু সমাধানে পৌঁছাতে পারব।’

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে উপাচার্য নূরুল আলম বলেন, ‘আহত শিক্ষার্থীর সকল চিকিৎসার দায়ভার বিশ্ববিদ্যালয় গ্রহণ করবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যমান আইনে ৭ কর্মদিবসের মধ্যে আমরা ঘাতক চালকের বিচার নিশ্চিত করব।

‘বাইক, অটোরিকশার গতি নিয়ন্ত্রণে আমি নিরাপত্তাকর্মীদের নির্দেশ করব। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করে স্পিডব্রেকার নির্মাণ করা হবে। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে সকলের সহযোগিতা কাম্য।’

আরও পড়ুন:
জাবির প্রজাপতি মেলায় একঝাঁক শিশু
জাবিতে ‘প্রফেসর ড. হাফিজা খাতুন স্বর্ণপদক’ চালু
জাবিতে ‘প্রজাপতি মেলা’ এবার ২ ডিসেম্বর
মসজিদ নির্মাণের দাবিতে জাবিতে মানববন্ধন
ছাত্রকে থাপ্পড় দেয়া জাবির ২ ছাত্রীর বহিষ্কারাদেশ অবৈধ

মন্তব্য

সারা দেশ
Remembrance of the Rajbari womens group released after 4 months

৪ মাস পর কারামুক্ত রাজবাড়ী মহিলা দলের স্মৃতি

৪ মাস পর কারামুক্ত রাজবাড়ী মহিলা দলের স্মৃতি জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর বিএনপি নেতা-কর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হন সোনিয়া আক্তার স্মৃতি। ছবি: নিউজবাংলা
মুক্তির পর স্মৃতি বলেন, ‘আমি সঠিক কথাই লিখেছিলাম। সত্যি কথা বলার অপরাধে চার মাস মাসুম দুটি বাচ্চা রেখে আমাকে জেল খাটতে হয়েছে। এতে আমার কোনো আফসোস নেই। কারণ আমি জানি পুরো বাংলাদেশের মানুষ আমার পাশে ছিল। আর আমার দলের জন্য চার মাস কেন, চার বছরও জেল খাটতে পারি।’

ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি ও ফুচকা উৎসবের নামে ‘অশ্লীল নৃত্য’ আয়োজনের অভিযোগে করা আলাদা দুটি মামলায় প্রায় চার মাস কারাগারে থাকা রাজবাড়ীর মহিলা দলের নেত্রী সোনিয়া আক্তার স্মৃতি জামিনে মুক্তি পেয়েছেন।

রাজবাড়ী জেলা কারাগার থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুক্তি পান তিনি।

মুক্তির পর স্মৃতি বলেন, ‘আমি সঠিক কথাই লিখেছিলাম। সত্যি কথা বলার অপরাধে চার মাস মাসুম দুটি বাচ্চা রেখে আমাকে জেল খাটতে হয়েছে। এতে আমার কোনো আফসোস নেই।

‘কারণ আমি জানি পুরো বাংলাদেশের মানুষ আমার পাশে ছিল। আর আমার দলের জন্য চার মাস কেন, চার বছরও জেল খাটতে পারি।’

স্মৃতি আরও বলেন, ‘একজন সমাজকর্মী হিসেবে মানুষের জন্য কাজ করি। রাত-বিরাতে মুমূর্ষু রোগীর জন্য বের হই; তাদের রক্ত জোগাড় করে দিই। এ জন্য অনেক খারাপ কথা শুনতে হয়েছে, কিন্তু যাদের উপকার হয়েছে, তাঁরা খুশি হয়েছেন।’

স্মৃতি রাজবাড়ী ব্লাড ডোনার্সের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। তিনি জেলা মহিলা দলের সদস্য। দুই সন্তানের এ জননী শহরের বেড়াডাঙ্গা এলাকায় থাকেন।

স্মৃতির ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ‘আপত্তিকর’ পোস্টের বিষয়ে রাজবাড়ী সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দেন সামসুল আরেফিন চৌধুরী নামের আওয়ামী লীগের স্থানীয় এক নেতা। পরে অভিযোগটি মামলা হিসেবে ৫ অক্টোবর রেকর্ড করা হয়। ওই দিনই স্মৃতিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অভিযোগ অনুযায়ী, গত বছরের ৩১ আগস্ট স্মৃতি তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে একটি স্ট্যাটাস দেন, যাতে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি বক্তব্যের সমালোচনা করে ‘আপত্তিকর’ কথা লেখেন। অনেকে পোস্টটি দেখায় প্রধানমন্ত্রীর সুনাম ক্ষুণ্ন ও মানহানি হয়।

মামলায় রাজবাড়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতে জামিন চেয়ে বিফল হন স্মৃতি। এরপর ৩০ অক্টোবর হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেন। এর শুনানি নিয়ে ৩১ অক্টোবর তাকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয় হাইকোর্ট। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করলে ২ নভেম্বর তার জামিন স্থগিত করে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত।

চেম্বার আদালত বিষয়টি আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠায়। এর ধারাবাহিকতায় ২৮ নভেম্বর আপিল বিভাগে শুনানি হয়। পরে ১৫ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ স্মৃতিকে ছয় মাসের জামিন দেয়।

স্মৃতির বাবা আবদুস সাত্তার মল্লিক বলেন, ‘বাংলাদেশে জামিন হয়, কিন্তু মুক্তি মেলে না। আমার বাচ্চা আমার কাছে ফিরে এসেছে। আমার বুকের মানিক। আমার খুব ভালো লাগছে।’

রাজবাড়ী জেলা বারের আইনজীবী ও স্মৃতির মনোনীত আইনজীবী নেকবর হোসেন মনি জানান, বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তির মামলা ও ফেসবুক গ্রুপ ‘খাদক বাঙ্গালী’র আয়োজনে রাজবাড়ী শিশু পার্কে অশ্লীল নৃত্য আয়োজন করার অভিযোগে মামলায় জামিন পান স্মৃতি। সন্ধ্যায় জেলা কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন তিনি।

সোনিয়া আক্তার স্মৃতি জামিন পেলে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা।

আরও পড়ুন:
রাজবাড়ীর মহিলা দলের সেই স্মৃতির জামিন বহাল
স্মৃতিসৌধের আশপাশের বাসিন্দাদের তথ্য নিচ্ছে পুলিশ
আপাতত জামিন পাচ্ছেন না সেই স্মৃতি
শিশুর স্মৃতিশক্তি বাড়াবে যে খাবারগুলো
স্মৃতিসৌধে গাছ পড়ে দর্শনার্থীর মৃত্যু

মন্তব্য

সারা দেশ
He went on a trip to Marine Drive and returned as a dead body

মেরিন ড্রাইভ ভ্রমণে গিয়ে ফিরলেন লাশ হয়ে

মেরিন ড্রাইভ ভ্রমণে গিয়ে ফিরলেন লাশ হয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন মামুনুর রশীদ। ছবি: নিউজবাংলা
কক্সবাজার সদর হাসপাতালের নিরাপত্তা পুলিশ সদস্য মো. রিপন চৌধুরী বলেন, ‘রাত সাড়ে ৯টার দিকে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত দুইজনকে আনা হয়। এ সময় হাসপাতালের চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত অপরজন শহরে ফুয়াদ আল খতিব হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।’

কক্সবাজারে উখিয়ার মেরিন ড্রাইভ সড়কে মোটরসাইকেলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এক যুবক মারা গেছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও একজন।

উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের পাটুয়ারটেক এলাকায় বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

২৬ বছর বয়সী মামুনুর রশীদ কক্সবাজার পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের রুমালিয়ারছড়া সবুজবাগ এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। আহত যুবকের নাম ও পরিচয় জানাতে না পারলেও পুলিশ জানায় তিনি নিহত মামুনুরের বন্ধু।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি বলেন, ‘বিকেলে মামুনুর তার এক বন্ধু সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে টেকনাফে বেড়াতে গিয়েছিল। রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের উখিয়া উপজেলার পাটুয়ারটেক এলাকায় পৌঁছালে গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে যায়। এ সময় সড়কের ওপর তাদের পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের নিরাপত্তা পুলিশ সদস্য মো. রিপন চৌধুরী বলেন, ‘রাত সাড়ে ৯টার দিকে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত দুইজনকে আনা হয়। এ সময় হাসপাতালের চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত অপরজন শহরে ফুয়াদ আল খতিব হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।’

নিহতের মরদেহ হাসপাতালের মর্গে আছে বলেও জানান এ পুলিশ সদস্য।

আরও পড়ুন:
সুপ্রভাতের পর ভিক্টর: এবার‌ও ব্যানার পাল্টে পার?
ভিক্টরের বাস বন্ধের দাবি, সড়ক ছাড়লেন নাদিয়া হত্যায় বিক্ষুব্ধরা
মোটরসাইকেলে ধাক্কা, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর প্রাণ কেড়ে নিল বাস
সিলেটে অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ৩
সেতুর রেলিংয়ে বাইকের ধাক্কা, ২ কলেজছাত্র নিহত

মন্তব্য

সারা দেশ
21 times more than the WHO level of PM25 in the air of Dhaka

ডব্লিউএইচওর মাত্রার চেয়ে ২১ গুণ বেশি পিএম২.৫ ঢাকার বাতাসে

ডব্লিউএইচওর মাত্রার চেয়ে ২১ গুণ বেশি পিএম২.৫ ঢাকার বাতাসে ঢাকায় ধুলায় ভরা রাস্তা ধরে গন্তব্যে যাচ্ছেন এক ভ্যানচালক। ছবি: এএফপি
আইকিউএয়ার জানিয়েছে, সকাল সোয়া ৯টার দিকে ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ২১ দশমিক ২ গুণ বেশি।

বাতাসের নিম্নমানের দিক থেকে আইকিউএয়ারের তালিকায় নিয়মিত ওপরে থাকা ঢাকা এক দিন পর ফের শীর্ষ দশে ঢুকেছে।

সুইজারল্যান্ডভিত্তিক বাতাসের মানবিষয়ক প্রযুক্তি কোম্পানিটির র‌্যাঙ্কিংয়ে শুক্রবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে বাতাসের মানে ১০০টি শহরের মধ্যে সপ্তম অবস্থানে ছিল বাংলাদেশের রাজধানী।

আইকিউএয়ার জানিয়েছে, সকালের ওই সময়ে ঢাকার বাতাসে মানবস্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ অতি ক্ষুদ্র কণা পিএম২.৫-এর উপস্থিতি ছিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইও) আদর্শ মাত্রার চেয়ে ২১ দশমিক ২ গুণ বেশি।

ডব্লিউএইচওর মাত্রার চেয়ে ২১ গুণ বেশি পিএম২.৫ ঢাকার বাতাসে

আগের দিন বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় বাতাসের মানে শহরগুলোর মধ্যে ১১তম অবস্থানে ছিল ঢাকা।

র‌্যাঙ্কিংয়ে বাতাসের নিম্নমানের দিক থেকে আজ সকাল সোয়া ৯টার দিকে শীর্ষে ছিল পাকিস্তানের করাচি। দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে ছিল পাকিস্তানের লাহোর ও ভারতের মুম্বাই।

ডব্লিউএইচওর মাত্রার চেয়ে ২১ গুণ বেশি পিএম২.৫ ঢাকার বাতাসে

নির্দিষ্ট স্কোরের ভিত্তিতে কোনো শহরের বাতাসের ক্যাটাগরি নির্ধারণের পাশাপাশি সেটি জনস্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাকি ক্ষতিকর, তা জানায় আইকিউএয়ার।

কোম্পানিটি শূন্য থেকে ৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘ভালো’ ক্যাটাগরিতে রাখে। অর্থাৎ এ ক্যাটাগরিতে থাকা শহরের বাতাস জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর নয়।

৫১ থেকে ১০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘মধ্যম মানের বা সহনীয়’ হিসেবে বিবেচনা করে কোম্পানিটি।

আইকিউএয়ারের র‌্যাঙ্কিংয়ে ১০১ থেকে ১৫০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর জন্য অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরিতে ধরা হয়।

১৫১ থেকে ২০০ স্কোরে থাকা শহরের বাতাসকে ‘অস্বাস্থ্যকর’ ক্যাটাগরির বিবেচনা করা হয়।

র‌্যাঙ্কিংয়ে ২০১ থেকে ৩০০ স্কোরে থাকা শহরগুলোর বাতাসকে ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’ ধরা হয়।

তিন শর বেশি স্কোর পাওয়া শহরের বাতাসকে ‘বিপজ্জনক’ হিসেবে বিবেচনা করে আইকিউএয়ার।

সকালের নির্দিষ্ট ওই সময়ে ঢাকার বাতাসের স্কোর ছিল ১৭৬, আগের দিন যেটা ছিল ১৬৩। এর মানে হলো ওই সময়টাতে অস্বাস্থ্যকর বাতাসের মধ্যে বসবাস করতে হয়েছে রাজধানীবাসীকে।

র‌্যাঙ্কিংয়ে বুধবার সকাল ৯টা ৪১ মিনিটে দূষিত বাতাসে ১০০টি শহরের মধ্যে দশম অবস্থানে ছিল বাংলাদেশের রাজধানী। স্কোর ছিল ১৬৮।

আরও পড়ুন:
তালিকায় উন্নতি, বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’ ঢাকার
মানে উন্নতি হলেও ঢাকার বাতাস ‘অস্বাস্থ্যকর’
ঢাকার বায়ু দূষণ রোধে নির্দেশনার বাস্তবায়ন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন
দূষিত বাতাসে ‘অদম্য’ ঢাকা
ঢাকার বাতাস আজ ‘খুবই অস্বাস্থ্যকর’

মন্তব্য

সারা দেশ
A child died after falling into an uncovered septic tank

ঢাকনাহীন সেপটিক ট্যাংকে পড়ে প্রাণ গেল শিশুর

ঢাকনাহীন সেপটিক ট্যাংকে পড়ে প্রাণ গেল শিশুর
ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামান জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। শিশুর পরিবারের কাছ থেকে অভিযোগ পেলে মামলা হবে।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় সেপটিক ট্যাংকের ভেতর পড়ে এক শিশু মারা গেছে।

সদর উপজেলার কাশীপুর ইউনিয়নের উত্তর গোয়ালবন্দ ব্যাংককলোনী আবাসিক এলাকায় বৃহস্পতিবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

সাড়ে ৫ বছর বয়সী মুশফিকা আক্তার ওই এলাকার মো. খলিলের মেয়ে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে শিশুটি স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছিল।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, নির্মাণাধীন একটি ভবনের সেপটিক ট্যাংকের ঢাকনা খোলা থাকায় ভেতরে পড়ে যায় মুশফিকা আক্তার নামে ওই শিশু। শিশুটির মা তাকে ভেতর থেকে বের করে আনে। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নির্মাণাধীন ভবনটির মালিক মোরশেদা বেগম বলেন, ‘দুপুর আড়াইটার দিকেও তিনি সেপটিক ট্যাংকের ঢাকনা লাগানো দেখেছেন। কেউ ঢাকনাটি চুরি করে নিয়ে গেছে বলে ধারণা করছি। বিকেল ৪টার দিকে ঘর থেকে বেরিয়ে সেপটিক ট্যাংকের ঢাকনা খোলা দেখি। পরে ট্যাংকের ভেতর উঁকি দিয়ে বাচ্চা বয়সী কারও টুপি ও জুতা ভাসতে দেখি। পরে আশেপাশের লোকজনকে ডাক দেই।

‘আশেপাশের লোকজনের সঙ্গে কথা বলার সময় পাশের বাসা থেকে বাচ্চার মা বেরিয়ে আসে। পরে টর্চলাইটের আলো জ্বেলে বাচ্চাটিতে ভাসতে দেখা যায়।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হৈ-চৈ শুনে শিশুটির মা ঘর থেকে বেরিয়ে আসেন। বাচ্চাটিকে বের করার পর তার মুখ সাদা হয়ে গেছে। পরে শিশুটির পেটে চাপ দিয়ে পানি বের করার চেষ্টা করা হয়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার এস কে ফরহাদ জানান, শিশুটির মরদেহ তার পরিবারের লোকজন নিয়ে গেছে। হাসপাতাল থেকে পুলিশকে ঘটনা জানানো হয়েছে।

ওসি রকিবুজ্জামান জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। শিশুর পরিবারের কাছ থেকে অভিযোগ পেলে মামলা হবে।

আরও পড়ুন:
৯৯৯-এ ফোন, মিলল তরুণীর মরদেহ
বাসায় যেতে চাওয়া রেজাকে মর্গে পাঠাল মধ্যরাতের ট্রাক
নাটোরে আলাদা স্থান থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার
খেলার সময় ছাদ থেকে পড়ে মারা গেল দুই শিশু
নির্মিত ভবনের বিম ভেঙে প্রাণ গেল শ্রমিকের

মন্তব্য

সারা দেশ
Prime Ministers office is an example of austerity

কৃচ্ছ্র সাধনে দৃষ্টান্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের

কৃচ্ছ্র সাধনে দৃষ্টান্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ফটক। ফাইল ছবি
গত বছরের জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যয়ের হিসাব থেকে দেখা যায়, বিদ্যুৎ বিল হ্রাস পেয়েছে ৪৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ, অকটেন ও ডিজেলের ব্যবহার কমানো হয়েছে ২৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ এবং আপ্যায়ন খাতের ব্যয় কমানো হয়েছে ৪৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

কৃচ্ছ্র সাধনে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে বিদ্যুৎ ও আপ্যায়ন খাতে খরচ প্রায় অর্ধেকে নামিয়ে আনা হয়েছে। জ্বালানি তেলে খরচ কমানো হয়েছে প্রায় ৪ ভাগের এক ভাগ। পাশাপাশি অন্যান্য খাতেও ব্যয় কমানো হয়েছে।

ব্যয় সংকোচনে এসব পদক্ষেপের সুবাদে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট বরাদ্দ থেকে ২৬ কোটি ৪৩ লাখ টাকা ফেরত দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

গত বছরের জুন থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যয়ের হিসাব থেকে দেখা যায়, বিদ্যুৎ বিল কমেছে ৪৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ, অকটেন ও ডিজেলের ব্যবহার কমানো হয়েছে ২৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ এবং আপ্যায়ন খাতের ব্যয় কমানো হয়েছে ৪৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহাপরিচালক (প্রশাসন) মো. আহসান কিবরিয়া সিদ্দিকি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মানুষকে করোনা ভ্যাকসিন দেয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছিলেন কিছু খাতে ব্যয় সংকোচন করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বরাদ্দের কিছু টাকা বাঁচিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে দেয়া যায় কি না। ২০২০ সাল থেকে শুরু করেছি। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে তাৎক্ষণিকভাবেই ব্যয় কমানো শুরু হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘২০২২ সালে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে অর্থনৈতিক সংকট শুরু হলো এবং ঢেউটা বাংলাদেশ পর্যন্ত আসল। তখন আমরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যয় আরও কমানোর কাজ শুরু করলাম।

‘প্রথমত আমরা বিদ্যুতে হাত দিলাম। তারপরে পেট্রল এবং লুব্রিকেন্টের খাতে খুবই বৈজ্ঞানিক উপায়ে গাড়িগুলোকে একটু রেশনিং করে আমরা সেটাও কমিয়ে এনেছি। একইভাবে আপ্যায়ন খাতেও আমরা ব্যয় কমিয়ে নিয়ে এসেছি। আমরা যে আপ্যায়নের মেন্যুটি করেছি, সেটি খুবই সাদামাটা।’

বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ কমিয়ে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট বরাদ্দ থেকে ২৬ কোটি ৪৩ লাখ টাকা ফেরত দেয়ার কথা জানিয়ে আহসান কিবরিয়া বলেন, ‘আমরা ২৬ কোটি ৪৩ লাখ টাকা সংসদীয় বাজেট থেকে অর্থ বিভাগের কাছে সমর্পণ করেছি। এ টাকা সরকারের কোষাগারে জমা হয়েছে। চলতি অর্থবছরের শেষের দিকে প্রধানমন্ত্রীর অফিসের ব্যয় আরও কমে আসবে।’

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০২২ সালের জুনে বিদ্যুৎ খাতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ব্যয় ছিল ২৩ লাখ ৮ হাজার ৮৩৮ টাকা। জুন থেকে ৭ দশমিক ৩০ শতাংশ কমিয়ে জুলাইয়ে খরচ হয় ২১ লাখ ৩৮ হাজার ৬২৫ টাকা। জুন থেকে খরচ ৩১ দশমিক ৮৪ শতাংশ কমিয়ে আগস্টের ব্যয় হয় ১৫ লাখ ৭৩ হাজার ৮১৩ টাকা। জুন থেকে খরচ ৪৬ দশমিক ৮৪ শতাংশ (প্রায় অর্ধেক) কমিয়ে সেপ্টেম্বরে বিদ্যুৎ খাতের ব্যয় দাঁড়ায় ১২ লাখ ২৭ হাজার ৩৫৩ টাকা।

২০২২ সালের জুনে পরিবহনের জন্য জ্বালানি খাতে অকটেন ও ডিজেলের ব্যবহার ছিল ৪১ হাজার ৪০২ লিটার। জুন থেকে ৪ হাজার ৪০০ লিটার (১০ দশমিক ৬৩ শতাংশ) কমিয়ে জুলাইয়ে জ্বালানি তেলের ব্যবহার হয় ৩৭ হাজার ২ লিটার। জুন থেকে ১৫ দশমিক ৮৫ শতাংশ কমিয়ে আগস্টে জ্বালানি তেলের ব্যবহার হয় ৩৪ হাজার ৮৪১ লিটার। আর জুন থেকে ৯ হাজার ৬৬৬ লিটার তেল (২৩ দশমিক ৩৪ শতাংশ) কমিয়ে সেপ্টেম্বরে তেলের ব্যবহার ৩১ হাজার ৭৩৬ লিটারে নামিয়ে আনা হয়।

জুনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আপ্যায়ন ব্যয় ছিল ৩ লাখ ২১ হাজার ৬৬৫ টাকা। ওই মাস থেকে ১৬ দশমিক ৮১ শতাংশ খরচ কমিয়ে জুলাইয়ের আপ্যায়ন ব্যয় ২ লাখ ৬৭ হাজার ৫৭০ টাকায় নামিয়ে আনা হয়।

জুন থেকে ৩২ দশমিক ১০ শতাংশ কমিয়ে আগস্টের আপ্যায়ন ব্যয় ২ লাখ ১৮ হাজার ৪১০ টাকায় নামিয়ে আনা হয়। ওই মাস থেকে ৪৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ খরচ কমিয়ে সেপ্টেম্বর আপ্যায়ন ব্যয় হয় ১ লাখ ৭৪ হাজার ১২০ টাকা।

আরও পড়ুন:
রাজশাহীতে বিএনপির চেয়ে ১৪ গুণ বড় সমাবেশ আওয়ামী লীগের: হাছান
অনির্বাচিত কাউকে দিয়ে দেশের উন্নয়ন হয় না: প্রধানমন্ত্রী
আওয়ামী লীগ পালায় না, জনগণকে নিয়ে কাজ করে: শেখ হাসিনা
নৌকায় ভোটের ওয়াদা চাই: শেখ হাসিনা
নৌকায় ভোট দিয়েছেন বলেই দেশ আজ স্বয়ংসম্পূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

p
উপরে