ঢাকা থেকে বের হওয়ার মুখে যানজট, চট্টগ্রামের রাস্তায় স্বস্তি

ঢাকা থেকে বের হওয়ার মুখে যানজট, চট্টগ্রামের রাস্তায় স্বস্তি

ঢাকা থেকে বের হওয়ার মুখে সড়কে গাড়ির চাপ। ছবি: নিউজবাংলা

‘মাত্র ২ ঘণ্টা থেকে সোয়া ২ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে ঢাকা-কুমিল্লায় আসা-যাওয়া করা যাচ্ছে। বিশেষ করে মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে কোনো যানজট নেই। যাত্রীরা স্বস্তিতে বাড়ি ফিরছেন বলে জানিয়েছেন তারা।’

ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গমুখী গাড়িগুলো গন্তব্যের শুরুতেই যানজটে আটকা পড়ছে। সাভার ও গাজীপুরের বিভিন্ন অংশে থেমে থেমে চলছে গাড়ির চাকা। রাজধানী ঘেঁষা এসব এলাকায় দেখা গেছে পরিবহন-সংকটও। একসঙ্গে পোশাক কারখানাগুলো ছুটি হওয়ায় এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

তবে টাঙ্গাইল অংশে যানবাহনের চাপ কমে গেছে। এতে মহাসড়কের এই অংশে গন্তব্যমুখী গাড়িগুলো চলছে স্বাভাবিক গতিতে।

একই চিত্র দেখা গেছে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে। মহাসড়কে ট্রাফিক পুলিশের তৎপরতায় কম সময়ে গন্তব্যে পৌঁছে স্বস্তির কথা জানিয়েছেন যাত্রী ও পরিবহন-সংশ্লিষ্টরা।

সড়কে থাকা পুলিশ সদস্যরা বলছেন, তারা যানজট নিরসনে কাজ করছেন। পশু ও যাত্রীবাহী গাড়িগুলো যেন নির্বিঘ্নে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারে সেই চেষ্টায় দিনরাত কাজ চলছে।

সাভারের সড়কে যানজট

ঈদে ঘরমুখী মানুষের চাপে সাভারে মহাসড়ক ও শাখা সড়কে যানজট দেখা দিয়েছে। সোমবার দুপুরে একযোগে শিল্পকারখানা ছুটি হওয়ার পর থেকে সড়কে চাপ বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। অতিরিক্ত গাড়ির চাপে ঢাকা-আরিচা, নবীনগর-চন্দ্রা, টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড মহাসড়কসহ শাখা সড়কে সৃষ্টি হয়েছে যানজট।

সরেজমিনে দেখা গেছে, দুপুরের পর থেকে সাভারের সড়কে যানবাহনের চাপ বাড়তে থাকে। এ সময় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের আমিনবাজার থেকে হেমায়েতপুর পর্যন্ত প্রায় ৬ কিলোমিটার, টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের বাইপাইল থেকে ধউর পর্যন্ত প্রায় ১২ কিলোমিটার, নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কে সিগন্যালের কারণে বাইপাইল থেকে ডিইপিজেড পর্যন্ত প্রায় ২ কিলোমিটার ও বিরুলিয়া-আকরান শাখা সড়কে খাগান থেকে আকরান প্রায় ২ কিলোমিটার এলাকায় যানবাহনের প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে ভোগান্তিতে পড়েছেন ঘরমুখী মানুষ।

সাভার ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর (টিআই) আব্দুস সালাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সকাল থেকে সাভারের সবগুলো সড়কে যানচলাচল স্বাভাবিক ছিল। শুধু টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের ইনকামিংয়ে গাড়ির ধীরগতি লক্ষ করা গেছে। তবে দুপুরের পর থেকে সাভারের সবগুলো সড়কে ঈদে ঘরমুখী মানুষের কারণে যানবাহনের চাপ বেড়েছে। আমরা যানজট নিরসনে কাজ করে যাচ্ছি।’

সাভার-আশুলিয়ার সব শিল্পকারখানা ছুটি হয়ে যাওয়ায় শ্রমিকরা শিল্পাঞ্চল ছাড়তে শুরু করেছেন। বিভিন্ন স্থানে ঘরমুখী শ্রমিকদের জটলা দেখা গেছে। অনেককেই ঝুঁকি নিয়ে গাদাগাদি করে বেশি ভাড়ায় ট্রাকে রওনা হতে দেখা গেছে।

পরিবহন-সংকটে উত্তরবঙ্গের যাত্রীরা

গাজীপুরের ঢাকা-ময়মনসিংহ ও ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ব্যস্ততম স্থানগুলোতে ঘরমুখী মানুষের ভিড় বাড়ছে। সে তুলনায় পরিবহন কম থাকায় দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সড়কে গণপরিবহনের সংখ্যা কিছুটা বেড়েছে।

বিশেষ করে গাজীপুর শিল্প এলাকা হওয়ায় রোববার বেশকিছু পোশাক কারখানা ছুটি হয়ে গেছে। দুপুরের পর প্রায় সব কারখানাই ছুটি হবে। তাই সন্ধ্যার পর উত্তরবঙ্গে যাওয়ার ব্যস্ততম এই মহাসড়ক দুটিতে বিকেল থেকে তীব্র যানজটের আশঙ্কা করছেন যাত্রীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, সকাল থেকে বৃষ্টি উপেক্ষা করে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে হাজার হাজার যাত্রী ভিড় করছে উত্তরবঙ্গের প্রবেশপথ টঙ্গী, চান্দনা চৌরাস্তা ও চন্দ্রা ত্রিমোড়ে। গণপরিবহনের স্বল্পতার কারণে অনেকেই গরুবাহী ট্রাক ও পিকআপে যাচ্ছেন। বেলা যত বাড়ছে, যাত্রীর চাপও বেড়েই চলছে। যানবাহনের আধিক্য ধীরে ধীরে বাড়ছে। ওই এলাকায় পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা যানবাহনের শৃঙ্খলা আনয়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন।

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক

ঢাকা-টাঙ্গাইল ও বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ভোরে যানজট এবং ধীরগতিতে পরিবহন চলাচল করলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মহাসড়কে যান চলাচল অনেকটাই স্বাভাবিক হয়েছে।

সোমবার ভোর থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়ক থেকে কালিহাতী উপজেলার পুংলী এলাকা পর্যন্ত যানজট সৃষ্টি হয়। এতে ভোগা‌ন্তি‌তে প‌ড়ে‌ন যাত্রী ও চালকরা।

ঢাকা থেকে বের হওয়ার মুখে যানজট, চট্টগ্রামের রাস্তায় স্বস্তি
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে গাড়ির চাপ কম

ঢাকা থে‌কে ছেড়ে আসা উত্তরবঙ্গগামী লে‌নে এই চিত্র দেখা গেলেও বিপরীত অবস্থা দেখা গেছে ঢাকামুখী লে‌নে। স্বাভা‌বিক গ‌তি‌তেই চল‌েছে প‌রিবহন। ঘরমুখী মানুষকে যেতে দেখা গেছে খোলা ট্রাকে করে।

টাঙ্গাইল ট্রাফিকের সার্জেন মিটুন চক্রবর্তী জানান, সকালের দিকে একটু রাস্তায় যানজট ছিল, এখন রাস্তা একদম ফাঁকা । কোনো প্রকার কোথাও কোনো জটলা নেই।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে স্বস্তি

বিভিন্ন মহাসড়কে গণপরিবহনের তীব্র চাপে যানজট থাকলেও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশ রয়েছে পুরোপুরি স্বস্তিতে।

মহাসড়কের কুমিল্লা অংশের ১০৪ কিলোমিটার এলাকা যানজটমুক্ত থাকায় যাত্রীবাহী গাড়ি চলাচলে কোনো ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে না। পাশাপাশি পণ্য ও পশুবাহী গাড়িও চলাচল করছে স্বস্তিতে। সোমবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মহাসড়ক ঘুরে এমন দৃশ্যই দেখা গেছে।

ঈদে বাড়ি ফেরা মানুষের নিরাপদ যাত্রা ও মহাসড়ককে যানজটমুক্ত রাখতে হাইওয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে নেয়া হয়েছে প্রস্তুতি। হাইওয়ে পুলিশের ১০টি টিম, দুটি কন্ট্রোল রুম এবং দুর্ঘটনাকবলিত গাড়ি দ্রুত মহাসড়ক থেকে সরিয়ে নিতে রাখা হয়েছে পাঁচটি রেকার।

এ ছাড়া সড়ক দুর্ঘটনায় কেউ আহত হলে তাদের চিকিৎসার জন্য দুটি অ্যাম্বুলেন্সও প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সোমবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হাইওয়ে পুলিশ, কুমিল্লা অঞ্চলের পুলিশ সুপার মুহাম্মদ রহমত উল্লাহ।

তিনি জানান, ‘আমরা মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখতে বিভিন্ন প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি। বিশেষ করে দাউদকান্দির গৌরপুর, চান্দিনা, ইলিয়টগঞ্জ, নিমসার বাজার, সদর দক্ষিণের সুয়াগাজী ও চৌদ্দগ্রাম উপজেলা সদরে যাতে যানবাহনের জট না লাগে সে জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

ঈদ উপলক্ষে সাধারণ মানুষকে নিরাপদে বাড়ি পৌঁছাতে হাইওয়ে পুলিশ দিনরাত কাজ করে যাচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি মহাসড়কের যানজট তো দূরের কথা, কোথায়ও যেন জটলাও না বাঁধে।

ঢাকা থেকে বের হওয়ার মুখে যানজট, চট্টগ্রামের রাস্তায় স্বস্তি
ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে গাড়ির চাকা ঘুরছে স্বাভাবিক গতিতে

ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী বাসচালক সোবহান তালুকদার বলেন, ‘দাউদকান্দি থাইক্কা আলেহারচর আইছি। রাস্তাত কোনো জাম নাই। একটানে আইছি। এরুম থাকলে চিটাং যাইতে দেড় ঘণ্টা লাগবো।’

মাত্র সোয়া ২ ঘণ্টায় ঢাকা থেকে কুমিল্লায় পৌঁছে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেন ব্যাংকার সাইফুল ইসলাম।

নিউজবাংলাকে বলেন, দুপুর ১টায় বাসে উঠছি। সোয়া ৩ টায় কুমিল্লা আসছি। কী যে ভালো লাগছে। মুন্সিগঞ্জ ও সোনারগাঁয়ের কাছে যানবাহনের কিছুটা চাপ ছিল। তবে যানজট ছিল না।

ঢাকা-কুমিল্লা রুটে চলাচলকারী রয়েল পরিবহনের বাসচালক দেলোয়ার হোসেন, এশিয়া পরিবহনের বাসচালক আবুল কাসেম বলেন, ‘মাত্র ২ ঘণ্টা থেকে সোয়া ২ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে ঢাকা-কুমিল্লায় আসা-যাওয়া করা যাচ্ছে। বিশেষ করে মহাসড়কের কুমিল্লা অংশে কোনো যানজট নেই। যাত্রীরা স্বস্তিতে বাড়ি ফিরছেন বলে জানিয়েছেন তারা।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য