ঘাটে পণ্যবাহী যানচালকদের ভোগান্তি

ঘাটে পণ্যবাহী যানচালকদের ভোগান্তি

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে যাত্রীবাহী পরিবহনের চাপ কম থাকলেও পণ্যবাহী ও সাধারণ ট্রাকের র্দীঘলাইন। ছবি: নিউজবাংলা

ট্রাকচালক লিয়াকত আলী বলেন, ‘শুক্রবার রাত ৯টার দিকে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে আসছি। তখন বাসের কোনো চাপ ছিল না। কিন্তু সিরিয়ালের কারণে টার্মিনালে থাকতে হয়। পরে আজ দুপুর ১২টার দিকে ঘাট এলাকায় পৌঁছাই। কিন্তু এখনও ফেরি পাই নাই।’

ঈদে ঘরমুখী মানুষের চাপ বেড়েছে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে। যাত্রীবাহী পরিবহনের চাপ কম থাকলেও পণ্যবাহী ও সাধারণ ট্রাকের দীর্ঘ লাইন।

যাত্রীরা স্বাভাবিকভাবে পার হতে পারলেও ট্রাকচালকদের অপেক্ষা করতে হচ্ছে বলে জানান কয়েকজন ভুক্তভোগী ট্রাকচালক।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) সূত্রে জানা যায়, এই নৌরুটে ২০টি ফেরির মধ্যে ছোট-বড় ১৬টি দিয়ে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার করা হচ্ছে। যাত্রীবাহী ও ব্যক্তিগত পরিবহন অগ্রাধিকার ভিত্তিতে পার করা হচ্ছে। যার ফলে পণ্যবাহী ও সাধারণ ট্রাকগুলোকে পারের অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে দীর্ঘ সময়। তবে পাটুরিয়া ঘাটে যাত্রীদের কোনো ভোগান্তি নেই।

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, শনিবার দুপুর ১২টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত পাটুরিয়া ঘাটে ফেরি পারের জন্য কিছু যাত্রীবাহী ও ব্যক্তিগত পরিবহন অপেক্ষায় ছিল। এ ছাড়া পণ্যবাহী ও সাধারণ ট্রাক দীর্ঘ সময় ফেরির জন্য অপেক্ষা করেছে। তবে এগুলোর মধ্যে খালি ট্রাকের সংখ্যাই বেশি।

ফরিদপুরের বাসিন্দা আয়েশা বেগম বলেন, ‘ঈদে বাড়িতে যাওয়ার জন্য সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকতে হতো। অথচ আজকে ঘাট এলাকায় এসে প্রায় আধা ঘণ্টা অপেক্ষা করেই ফেরিতে উঠতে পারছি।’

গোপালগঞ্জের শেফালী বেগম বলেন, ‘কোনো ঝামেলা ছাড়াই ফেরির দেখা পাইলাম। ঘাটে এসে একটু অপেক্ষা করতেই দেখি ফেরি এলো। কোনো ভোগান্তিও হয় নাই।’

ট্রাকচালক লিয়াকত আলী বলেন, ‘শুক্রবার রাত ৯টার দিকে পাটুরিয়া ফেরিঘাটে আসছি। তখন বাসের কোনো চাপ ছিল না। কিন্তু সিরিয়ালের কারণে টার্মিনালে থাকতে হয়। পরে আজ দুপুর ১২টার দিকে ঘাট এলাকায় পৌঁছাই। কিন্তু এখনও ফেরি পাই নাই।’

আরেক ট্রাকচালক রাসেল হোসেন বলেন, ‘হাটে গরু বেইচা শুক্রবার দুপুরে পাটুরিয়া আসছি। কিন্তু ট্রাকের চাপ বেশি থাকায় সংযোগ মোড়েই ট্রাকটি আটকে দেয় পুলিশ। ভাবছিলাম তাড়াতাড়ি করে ফেরি পার হমু। আবার গরুর ট্রিপ নিয়ে হাটে যামু। এহন তো খুব বিরক্ত লাগতেছে।’

বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের ডিজিএম জিল্লুর রহমান জানান, ঈদ ছাড়াও স্বাভাবিক সময়েও পণ্যবাহী ও সাধারণ ট্রাকের চাপ থাকে। তবে প্রায় সব ট্রাকই খালি। কিছু আছে জরুরি ও পণ্যবাহী।

যাত্রীবাহী পরিবহন না থাকলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জরুরি ও পণ্যবাহী যানবাহন পার করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় যাত্রীদের কোনো ধরনের চাপ নেই। তবে সরকারি ছুটি ঘোষণা হলে তার পর যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়তে পারে। এই মুহূর্তে পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় ও আশপাশের সড়কে সাত শতাধিক ট্রাক ফেরি পারের অপেক্ষা আছে। এ ছাড়া যাত্রীবাহী শতাধিক বাস ও ব্যক্তিগত গাড়ি ফেরি অপেক্ষায় রয়েছে।

আরও পড়ুন:
লোকাল ট্রেনে পিষ্ট স্বাস্থ্যবিধি
শিমুলিয়া-বাংলাবাজারে যাত্রীর ঢল, আটকে আছে পণ্যবাহী ট্রাক
ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের ২৫ কিলোমিটার যানজট
দ্বিগুণের বেশি ভাড়া নেয়ার অভিযোগ গাবতলীতে
তিন চাকার ‘ঢাকাগামী’ যান বাড়াচ্ছে শঙ্কা

শেয়ার করুন

মন্তব্য