কাশিমপুর কারাগারে জেএমবি সদস্যের ফাঁসি কার্যকর

কাশিমপুর কারাগারে জেএমবি সদস্যের ফাঁসি কার্যকর

বোমা হামলা মামলায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া জেএমবি সদস্য আসাদুজ্জামান পনির।

কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো. গিয়াস উদ্দিন ফাঁসি কার্যকরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পর আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ স্বজনদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।’

গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) এক সদস্যের ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে কারা কর্তৃপক্ষ ওই জেএমবি সদস্যের ফাঁসি কার্যকর করে।

ফাঁসি কার্যকর হওয়া জেএমবি সদস্য হলেন ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া থানার কানাইকরস্থান এলাকার বাসিন্দা আসাদুজ্জামান পনির ওরফে আসাদ। কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারাগারে তার কয়েদি নম্বর ছিল ৫৪১/এ।

আলোচিত জল্লাদ শাহজাহান ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পর সিভিল সার্জন অফিসের প্রতিনিধি আশিফ রহমান ইভান মৃত্যু নিশ্চিত করেন।

কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো. গিয়াস উদ্দিন ফাঁসি কার্যকরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের পর আইনি প্রক্রিয়া শেষে মরদেহ স্বজনদের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।’

কারাগার সূত্রে জানা গেছে, ২০০৫ সালে ৮ ডিসেম্বর নেত্রকোণায় জেএমবির সক্রিয় সদস্য হিসেবে বোমা বিস্ফোরণে সহযোগিতা করে আসাদুজ্জামান পনির। ওই বোমা হামলায় আট জন নিহত এবং বহু লোক আহত হয়।

এ ঘটনায় জেএমবি সদস্য আসাদুজ্জামান পনির ওরফে আসাদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে একাধিক মামলা হয়। এর মধ্যে নেত্রকোণা থানাযর মামলায় ২০০৮ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয় আদালত।

এছাড়া তার বিরুদ্ধে ২০০৫ সালে নেত্রকোণা থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে আরেকটি মামলায় ২০ বছরের কারাদণ্ড, কোতোয়ালি থানায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের দুটি মামলায় একটিতে ১০ বছর অন্যটিতে ২০ বছরের কারাদণ্ড দেয় আদালত। কোতোয়ালী থানায় তার বিরুদ্ধে আরও একটি মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

আরও পড়ুন:
পশ্চিমবঙ্গে আরও ২ জেএমবি সদস্যের হদিস
রাজধানীর শ্যামলী থেকে জেএমবির ‘সদস্য’ গ্রেপ্তার
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত পলাতক জঙ্গি গ্রেপ্তার
রংপুর থেকে জেএমবির ১ ‘সদস্য’ গ্রেপ্তার
জেএমবি সদস্য সাকিব রিমান্ড শেষে কারাগারে

শেয়ার করুন

মন্তব্য